Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

উপমহাদেশে সহিষ্ণুতার আন্দোলনের ক্ষতি হচ্ছে
হারাধন চৌধুরী

বাঙালি বেড়াতে ভালোবাসে। বেড়ানোর সুযোগটা পাশপোর্ট ভিসা নিয়ে বিদেশে হলে তো কথাই নেই। কিন্তু গন্তব্য যদি বাংলাদেশ, আর দাবি করা হয় বিদেশ-ভ্রমণের, তবে অনেকেই মুখ টিপে হাসবেন। কারণ, বাংলাদেশকে ‘বিদেশ’ ভাবার মানসিকতা আমাদের গড়ে ওঠেনি। তেমনি বাংলাদেশের মানুষজনও কলকাতায় আসাটাকে বিদেশে আসা বলে ভাবেন না। ভারত-বাংলাদেশ ক্রিকেট ম্যাচের সময় কলকাতার অনেক ক্রিকেট-প্রেমী বাঙালিকে দেখেছি বাংলাদেশ টিমের সমর্থক! অবাক হলেও সত্যি। তাঁদের যুক্তি, বাংলাদেশ টিম মানে এগারোজন বাঙালির দল। ভাবা যায়! আমি আগে বাঙালি, পরে ভারতীয়। বাঙালির আবেগ এখনও এতটাই উচ্চগ্রামের। সেখানে বর্ডার, কাঁটাতার অবচেতনে নস্যাৎ হয়ে যায়। অস্বীকার করার উপায় নেই। বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী জেলাগুলির বহু মানুষের কাছে তাঁদের রাজধানী শহর ঢাকার চেয়ে কলকাতা অনেক আপন। এই যে নৈকট্য তার বড় কারণ দূরত্ব। যেখানে মাত্র ৬০-৭০ কিমি এগোলেই কলকাতায় পৌঁছনো সম্ভব, সেখানে ঢাকায় যেতে পাড়ি দিতে হয় তিনশো কিমির বেশি পথ।
ওপার বাংলার বেশিরভাগ মানুষের বিশ্বাস, কলকাতার চিকিৎসা-পরিষেবা ঢাকার চেয়ে ভালো, আর সেটা ঐতিহাসিক কারণে। কলকাতার এই পরিষেবার উপর তাঁদেরও হক রয়েছে বলে তাঁরা মনে করেন। ইএম বাইপাস লাগোয়া কয়েকটি বেসরকারি হাসপাতালে সারা বছরই রোগীর ভিড় থাকে। এই রোগীদের একটি বড় অংশই বাংলাদেশি। এখানকার পরিষেবায় তাঁরা এতটাই সন্তুষ্ট যে অনেকে প্রায়ই চিকিৎসা করাতে আসেন। সিএএ-এনআরসি নিয়ে কিছুদিন যাবৎ কলকাতাসহ গোটা পশ্চিমবঙ্গ এবং আরও একাধিক অঞ্চল উত্তাল। তারই মধ্যে একদিন আলাপ হয় মাঝবয়সি এক আইনজীবীর সঙ্গে। আব্দুল জলিল। বাংলাদেশের একটি জেলা কোর্টে প্র্যাকটিস করেন।
তাঁর কাছে প্রশ্ন ছিল, এই ব্যাপারে বাংলাদেশের মানুষের প্রতিক্রিয়া কী? তিনি হেসে জবাব দিলেন, বাংলাদেশে মৌলবাদের বাড়াবাড়ি নিয়ে এতদিন আপনারা (ভারতীয়রা) হেসেছেন, আর এখন আমরা হাসছি আপনাদের (ভারতীয়দের) দেখে!
জলিল সাহেব বলেন, আপনাদের কাছে বিস্ময়কর মনে হলেও নিখাদ সত্যিটা এই—বাংলাদেশের আজকের যুবসমাজ মনে-প্রাণে অনেক আধুনিক। তাদের বেশিরভাগের কাছে মৌলবাদের কোনও স্থান নেই। বয়স্কদেরও চোখ খুলে দিচ্ছেন বয়োকনিষ্ঠরা। ধর্মভিত্তিক রাজনীতি থেকে ক্রমে দূরে সরে আসার প্রবণতাটি আজকের বাংলাদেশের বিরাট প্রাপ্তি। ধর্মের নামে জাতের নামে বজ্জাতি বেশি বেশি মানুষ মন থেকে পরিত্যাগ করছেন বলেই জামাত এবং বিএনপি শিবিরে ত্রাহি রব উঠেছে।
জলিল সাহেবের আন্তরিক আমন্ত্রণ, শুধু মুখের কথা নয়, আসুন—সামনে তো একুশের বইমেলা, তারপর বাংলা বর্ষবরণের অনুষ্ঠান। দেখে যান কেমন অসাম্প্রদায়িক আনন্দের পরিবেশ আমরা গড়ে তুলতে পেরেছি। এমনকী, দুর্গাপুজোতেও কী আনন্দ হয় নতুন এই বাংলাদেশের প্রায় সর্বত্র, আপনারা কল্পনাও করতে পারবেন না। দুর্গাপুজোর উৎসব যাতে পূর্ণ নিরাপত্তার সঙ্গে অনুষ্ঠিত হতে পারে তার অভূতপূর্ব বন্দোবস্ত আমাদের সরকার করে থাকে। শিক্ষা এবং চাকরি ক্ষেত্রেও হিন্দুসহ সমস্ত সংখ্যালঘু শ্রেণী আগের চেয়ে বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে। বেশিরভাগ সরকারি উচ্চপদেও হিন্দুরা আর ব্র্যাত্য নয়।
জলিল সাহেবের সঙ্গে এই কথার মধ্যে যোগ দিলেন পাশে দাঁড়ানো এক বাংলাদেশি যুবক। অনির্বাণ ইসলাম। ঢাকায় সরকারি চাকুরে। অনির্বাণ বলেন, আজকের বাংলাদেশের স্বপ্ন—অচিরেই যথার্থ ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র হিসেবে বিকশিত হওয়া। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন সাকার করে তোলাই আমাদের স্বপ্ন। তাঁকে হত্যার পরই ‘রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম’ চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। ফের বঙ্গবন্ধুর সংবিধান ফিরিয়ে আনাই মুক্তমনা বাংলাদেশিদের লক্ষ্য।
জলিল সাহেব বলেন, আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সত্যিকার ধর্মনিরপেক্ষ নেতা। তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের যোগ্য উত্তরসূরি। কিন্তু এমন উন্নত চেতনার যুবসমাজকে পাশে না-পেলে তিনি এই অসাধ্যসাধন করতে পারতেন না। বাংলাদেশ দীর্ঘদিন যে পিছিয়ে ছিল তার মূল কারণ জনসংখ্যার অর্ধেককে অকেজো করে রাখা হয়েছিল। আজ মেয়েরাও সামনের সারিতে উঠে আসছেন। বাংলাদেশে সফল হয়েছে জন্মনিয়ন্ত্রণ কর্মসূচি। শিক্ষার হার দ্রুত বাড়ছে। যোগাযোগ ব্যবস্থা ছিল খুব দুর্বল, আর ছিল তীব্র বিদ্যুৎসমস্যা। পূর্ববঙ্গ ব্রিটিশ ভারতে দুয়োরানির সন্তানের মতোই ব্যবহার পেয়েছে, শোষণ পাকিস্তান জমানায় আরও তীব্র হয়েছে। হাসিনার সরকার সেই অতল থেকে টেনে তুলেছে বাংলাদেশের যোগাযোগ ও বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থাকে। আজকের বাংলাদেশ সামনে এগোনো ছাড়া আর কিছু নিয়ে ভাবছে না। প্রত্যেকে নিজ নিজ সৎ জীবিকাকেই পাখির চোখ করেছে। তাই ভারতে কী হচ্ছে, তা নিয়ে নষ্ট করার মতো সময় আমাদের নেই।
জলিল সাহেব যে-আক্ষেপসহ উপসংহার টানলেন তার ভিতরে একটি চেতাবনি লক্ষ করলাম—আমরা (বাংলাদেশিরা) একটা ‘আনসেটেলড’ (অমীমাংসিত) ইস্যুকে ‘সেটেলড’ (মীমাংসিত) করার জন্য আপ্রাণ লড়াই করছি আর ভারত সেই ‘সেটেলড’ ইস্যুটাকেই ‘আনসেটেলড’ করতে প্রয়াসী হয়েছে! তিনি অবশ্য এটাও মানলেন যে ভারতের গণতান্ত্রিক ভিত্তি অত্যন্ত মজবুত। বললেন, তাই আমরা ধরেই নিচ্ছি, এই সমস্যা ভারতের মানুষ দ্রুত সামলে নেবে। ভারতের ধর্মনিরপেক্ষ কাঠামো অক্ষুণ্ণই থাকবে।
এই দুই মুক্তমনা বাংলাদেশি নাগরিকের কথার সূত্র ধরে খোঁজ নিয়ে দেখছি—বিশ্ব সন্ত্রাসবাদ সূচকে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলির ভিতরে সবচেয়ে বেশি উন্নতি করেছে বাংলাদেশ। সিডনির বিখ্যাত গবেষণা সংস্থা ইনস্টিটিউট ফর ইকনোমিকস অ্যান্ড পিস-এর ২০১৯-এর প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে, ২০১৮-র তুলনায় বাংলাদেশ ওই বছর ৬ ধাপ এগিয়েছে। ২০১৭-র তুলনায় ২০১৮-তে বাংলাদেশে সন্ত্রাসবাদী হামলায় প্রাণহানি কমেছে ৭০ শতাংশ। গ্লোবাল টেররিজম ইনডেক্স অনুসারে বাংলাদেশে সন্ত্রাসবাদের প্রভাব এখন মাঝারি মাত্রার। পরিস্থিতি আগে অনেক খারাপ ছিল। এই সাফল্য অবশ্য হাওয়ায় আসেনি। ২০১৩-১৫ সালের ভিতর মুক্তমনা নাগরিকদের উপর একের পর এক মৌলবাদী আক্রমণের ঘটনা ঘটেছে। কয়েকজনের প্রাণও গিয়েছে তাতে। ২০১৩-তে উগ্র মৌলবাদীরা ধর্মনিরপেক্ষ মুক্তমনা নামী ব্যক্তিদের খতম করার হুমকিসহ একটি হিট লিস্ট প্রকাশ করে। তারপর একের পর এক ঘটনায় আক্রান্ত হয়েছেন ব্লগার আহমেদ রাজীব হায়দার, সাংবাদিক আরিফ মহিউদ্দিন, শাহবাগ আন্দোলনের শরিক সানিউর রহমান, বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সফিউল ইসলাম, ব্লগার অনন্ত বিজয় দাস, ব্লগার নিলয় চট্টোপাধ্যায় ওরফে নিলয় নীল, ব্লগার ওয়াশিকুর রহমান, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী ইঞ্জিনিয়ার ও প্রতিভাবান ব্লগার অভিজিৎ রায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র নাজিমুদ্দিন সামাদ, নামী প্রকাশক ফয়সল আরেফিন দীপন ও আহমেদুর রশিদ চৌধুরী, লেখক রণদীপ বসু ও তারেক রহমান প্রমুখ। তার আগে ২০০৪ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় রক্তাক্ত হন প্রখ্যাত যুক্তিবাদী অধ্যাপক লেখক হুমায়ুন আজাদ। ‘পাক সার জমিন সাদ বাদ’, ‘নারী’ এবং ‘আমার অবিশ্বাস’ শিরোনামের বিতর্কিত ও সাড়া জাগানো বইগুলি তাঁরই কলম থেকে বেরিয়েছিল। ২০১৬ সালে ঢাকার গুলশান এলাকায় হোলি আর্টিজান বেকারিতে (জনপ্রিয় রেস্তরাঁ) ঘটে যায় এক ভয়াবহ জঙ্গি হামলার ঘটনা। এরপরই হাসিনা সরকার জিরো টলারেন্স নীতি নিয়ে এগোয়। তাতে শুধু আইনশৃঙ্খলারই উন্নতি হয়নি, ইতিবাচক প্রভাব পড়েছে সে-দেশের অর্থনীতিতে। বাংলাদেশের এই সাফল্য ধরা পড়েছে বিশ্ব ক্ষুধা সূচকেও। ২০১৯-এর অক্টোবরের মাঝামাঝি প্রকাশিত হয়েছে গ্লোবাল হাঙ্গার ইনডেক্স। তাতে দেখা যাচ্ছে ভারতের পজিশন সাত ধাপ নেমে গিয়েছে: ৯৫ থেকে ১০২ নম্বরে। অন্যদিকে, এগিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ (৮৮)। ছোট এই পড়শি দেশটি ২০১৮-তেও ভারতের চেয়ে এগিয়ে ছিল, যে-দেশ একসময় ভারতের উপর বিশেষভাবে নির্ভরশীল ছিল খাদ্যসহ নানা প্রয়োজনে।
তবে মৌলবাদ ও সন্ত্রাসবাদ বাংলাদেশ থেকে নির্মূল হয়ে গিয়েছে, এমন দাবি কেউ করেননি। রক্তবীজের ঝাড় যে সুযোগের অপেক্ষায় রয়েছে, তার প্রমাণ পাওয়া গিয়েছে ২০১৮-র ৩ মার্চ। ওইদিন সিলেটে আততায়ীর হাতে আক্রান্ত হন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রখ্যাত অধ্যাপক, কল্পবিজ্ঞান সাহিত্যের নামী লেখক, বিশিষ্ট চিন্তাবিদ মহম্মদ জাফর ইকবাল। তাঁকে আক্রমণের ঘটনায় ধৃত এক মাদ্রাসা-ছাত্র পুলিসের জেরায় দাবি করেছিল, সে প্রফেসর জাফর ইকবালকে ‘ইসলামের শত্রু’ মনে করে।
সিএএ, এনআরসি প্রভৃতি ভারতের মানুষ গ্রহণ করবেন কি করবেন না, তা নিশ্চিত করে বলার সময় এখনও হয়নি। তবে, এটুকু বলা যেতে পারে—এই ইস্যুতে ব্যাহত হচ্ছে আমাদের উন্নয়ন কর্মসূচিগুলি। অর্থনৈতিকভাবে আমরা দ্রুত পিছিয়ে পড়ছি। পাশাপাশি এই অধ্যায় বহির্ভারতে নেতিবাচক বার্তা দিচ্ছে। আমাদের এমন কিছু করা উচিত হবে না যার দ্বারা অন্তত বাংলাদেশে মৌলবাদের বিরুদ্ধে লড়াইটা কোনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং উদ্বাহু নৃত্য করে পাকিস্তানের মৌলবাদী শক্তি। এই উপমহাদেশে শান্তি-সুস্থিতি প্রতিষ্ঠার প্রধান শর্ত হল—ধর্মনিরপেক্ষতা ও সহিষ্ণুতা। যথার্থ ধর্মনিরপেক্ষ সহিষ্ণু ভারত ছাড়া আর কে তার প্রেরণা হতে পারে? ভারতের উচিত, এই চাহিদায় নিজেকে প্রশ্নাতীত প্রমাণ করা, সহিষ্ণুতার ঐতিহ্য জলাঞ্জলি দেওয়া নয়। কে বলতে পারে সেই পবিত্র আলো-হাওয়ায় পাকিস্তানও কোনও একদিন যুক্তিবাদের গুলবাগিচা হয়ে উঠবে না!  
16th  January, 2020
অপরাজেয় সুভাষ
পার্থসারথি চট্টোপাধ্যায়

১৯৪১ সালের ১৭ জানুয়ারি ইংরেজ পুলিসের চোখে ধুলো দিয়ে এলগিন রোডের বাড়ি থেকে বেরিয়ে গেলেন সুভাষচন্দ্র। পরদিন গোমো থেকে ফ্রন্টিয়ার মেলে চড়ে পৌঁছে গেলেন পেশোয়ার। সম্পূর্ণ একা। ওখানে দেখা হল আবিদ হাসান ও অন্যান্যদের সঙ্গে এবং অবশ্যই ভগৎরাম তলোয়ারের সঙ্গে। বিশদ

ইতিহাস গড়ার মুখে
ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত মমতার
তন্ময় মল্লিক

নির্বাচন কমিশনের কর্তাদের রাজ্যে আসা-যাওয়া, প্রশাসনের কর্তাদের সঙ্গে ঘন ঘন বৈঠক বুঝিয়ে দিচ্ছে, ‘অঘটন’ হচ্ছে না। ভোট হবে কমিশনের তত্ত্বাবধানেই। অর্থাৎ বঙ্গে ৩৫৬ ধারা জারির সম্ভাবনা নেই। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখ্যমন্ত্রিত্বেই হবে ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচন। অতএব বোঝা যাচ্ছে, বিজেপি নেতাদের ৩৫৬ ধারা জারি করে ভোট করানোর দাবিটা ছিল দলীয় কর্মীদের চাঙ্গা করার কৌশল। বিশদ

সুভাষচন্দ্র: বাঙালি, ভারতীয়
ও আন্তর্জাতিক নেতা
অমিত শাহ

সুভাষচন্দ্র বসুর মতো নেতা প্রতিটি ভারতীয়ের হৃদয়ে বাস করেন। কংগ্রেস এবং বামপন্থীরা নেতাজিকে সেই আমলেও সম্মান দেয়নি, আজও দেয় না। কিন্তু নরেন্দ্র মোদিজি সুভাষবাবুর স্বপ্ন এবং বিচার দিয়ে গড়া এক আত্মনির্ভর ও  শক্তিশালী ভারত নির্মাণের সঙ্কল্প নিয়েছেন। বাংলা ও সারা ভারতের লোক তাঁকে সমর্থন করছেন। বিশদ

বাংলার তিন মনীষী
আত্মমর্যাদা শিখিয়েছেন
সমৃদ্ধ দত্ত

এখানে বিজেপির কে প্রার্থী হবেন এবং কে হবেন না সেই চূড়ান্ত সিলমোহর কোনও বাঙালি নেতা দেবেন? নাকি বাংলা বিজেপি স্রেফ লিস্ট তৈরি করে জমা দেবে দিল্লির নেতাদের কাছে? কাদের ক্ষমতা বেশি? এসব কি আত্মশক্তির লক্ষণ? বিশদ

22nd  January, 2021
দলভাঙানো রাজনীতি:
এ রাজ্যে নবতর সংযোজন

এই রাজ্যে দল ভাঙানোর অনৈতিক রাজনীতির যাঁরা প্রবর্তক, তাঁরা এখন হঠাৎ চিৎকার শুরু করলেন কেন? পাঁচিল ভেঙে পথ করেছে তৃণমূল। সেই পথ ধরেই বিজেপি আজ তৃণমূলের ঘর ভাঙছে।
বিশদ

21st  January, 2021
নবান্ন দখলের ভোট
ও প্রেশার পলিটিক্স
হারাধন চৌধুরী

বিজেপি নেতৃত্ব ভাবছে, নাটক আর প্রেশার পলিটিক্স দিয়েই হাঁড়ির হাল মেরামত করে ফেলবে। কিন্তু মাস্টার স্ট্রোকের পলিটিক্সে আজও যিনি অদ্বিতীয় সেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও বুঝিয়ে দিয়েছেন, নন্দীগ্রাম ভাঙিয়ে একটি পরিবারের রাজনীতিকে আর একপাও এগতে দেবেন না তিনি। বিশদ

20th  January, 2021
তৃণমূল বনাম তৃণমূল (বি)
শান্তনু দত্তগুপ্ত

হতে পারে বাংলার ভোট প্রধানমন্ত্রীর কর্তৃত্ব কায়েমের অ্যাসিড টেস্ট। কিন্তু একুশ যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়েরও প্রেস্টিজ ফাইট! দাঁড়িপাল্লার একদিকে কেন্দ্র, আর অন্যদিকে মমতার সরকারকে রাখলে উন্নয়ন এবং বেনিফিশিয়ারির নিরিখেই বিজেপি অনেক নীচে নেমে যাবে। বিশদ

19th  January, 2021
বাজেটের আগে অর্থমন্ত্রী
আরও বিভ্রান্ত করলেন
পি চিদম্বরম

যে-দেশে আমরা আজ বাস করছি সেটা দিনে দিনে অচেনা এবং বিস্ময়কর হয়ে যাচ্ছে। এটা খুব অবাক ব্যাপার নয় কি গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে নির্বাচিত একটা সরকার তার পুরনো গোঁ ধরেই বসে থাকবে, বিশেষ করে দিল্লির ভয়ানক শীতের মধ্যেও কৃষকদের প্রতিবাদ আন্দোলন যখন ৫৬ দিনে পা দিয়েছে? বিশদ

18th  January, 2021
ভোটকে কলুষিত করলে
উচিত শিক্ষা দিতে হবে
হিমাংশু সিংহ

তৃণমূল ভাঙতে দশ মণ তেল পুড়িয়ে বিজেপি এখন বুঝতে পারছে শুধু অবিশ্বাসের উপর দাঁড়িয়ে বাংলা দখল প্রায় অসম্ভব! মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দুর্বল করা যাচ্ছে না। বিশদ

17th  January, 2021
ভোটের আগে ‘গাজর’ ঝোলানো
বিজেপির ট্র্যাডিশন
তন্ময় মল্লিক

ভোটের মুখে ‘গাজর’ ঝোলানোটা বিজেপির ট্র্যাডিশন। ২০১৪ সালে লোকসভা ভোটের আগে সুইস ব্যাঙ্কে ভারতীয়দের জমা ‘বেআইনি অর্থ’ ফিরিয়ে এনে প্রত্যেককে ১৫ লক্ষ টাকা দেওয়ার কথা বলেছিল বিজেপি। ‘গাজর’ ঝোলানোর সেই শুরু। এবার সোনার বাংলা ও কৃষি সম্মান নিধির ‘গাজর’। বিশদ

16th  January, 2021
ক’দিনের জন্য বাঙালি হওয়া যায় না
মৃণালকান্তি দাস

মাস কয়েকের জন্য রবীন্দ্রনাথ, রামমোহন, শ্রীচৈতন্য... বাংলার মনীষীরাই হয়ে উঠছেন গেরুয়া বাহিনীর প্রচারের অনুঘটক। এটা স্পষ্ট, ‘বহিরাগত’ তকমা ঘোচাতে বিজেপিকে নিরুপায় হয়েই বাংলার মনীষীদের আশ্রয় খুঁজতে হচ্ছে। বাংলার মনীষীরা কোন দলে, ভোট-হাওয়ায় সেই ধন্দ উস্কে দিতে চাইছে বিজেপি। বিশদ

15th  January, 2021
বাঙালির অস্তিত্ব রক্ষা দেশের
জন্যও ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ
জিষ্ণু বসু

বাঙালি ভারতের নবজাগরণের কাণ্ডারীর ভূমিকা পালন করেছে। জীবন্ত জাগ্রত ভারতাত্মার পূজাবেদি ছিল বাংলা। ১৮৮২ সালে ঋষি বঙ্কিমচন্দ্র লিখলেন আনন্দমঠ উপন্যাস। বাঁধা হল ‘বন্দেমাতরম’ গান। দেশমাতৃকাকে দশপ্রহরণধারিণী দেবী দুর্গার সঙ্গে তুলনা করলেন সাহিত্যসম্রাট। বিশদ

14th  January, 2021
একনজরে
বালুরঘাটে এসে কংগ্রেসের যে পার্টি অফিসটির উদ্বোধন করেছিলেন নেতাজি, তা আজ আত্রেয়ীর গর্ভে। বালুরঘাট শহরের যে বাড়িতে রাত্রিবাস করেছিলেন তিনি, সেটিরও একটি অংশ ভাঙা পড়েছে ...

ভোটের মুখে সুখবর। রাজ্য সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে কর্মরত দৈনিক মজুরি ভিত্তিক কর্মচারীদের ভাতা বৃদ্ধি করল সরকার। মোট তিনটি ক্যাটিগরিতে সমানহারে দৈনিক ১৭ টাকা করে মজুরি বৃদ্ধি করা হয়েছে। রাজ্য সরকার এই মর্মে নির্দেশিকা জারি করেছে। ...

জাতীয় দলের প্রাক্তন গোলরক্ষক প্রশান্ত ডোরার শারীরিক অবস্থার আরও অবনতি হয়েছে। শুক্রবার তিনি ভেন্টিলেশনে রয়েছেন। তাঁর প্লেটলেটের সংখ্যা নেমে এসেছে তিন হাজারে। কমেছে হিমোগ্লোবিনের মাত্রাও।   ...

২০১৫ সালের জুলাই মাসে যখন বালি পুরসভাকে হাওড়ার সঙ্গে মিশিয়ে দেওয়া হয়, তখন ওই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ করেছিল বামফ্রন্ট ও কংগ্রেস। কিন্তু রাজ্য সরকার তাদের সিদ্ধান্তে ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

ব্যবসায় বাড়তি বিনিয়োগ প্রত্যাশিত সাফল্য নাও দিতে পারে। কর্মক্ষেত্রে পদোন্নতি। শ্বাসকষ্ট ও বক্ষপীড়ায় শারীরিক ক্লেশ। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

পরাক্রম দিবস
১৮৫৯ - কবি ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্তর মৃত্যু
১৮৯৪- সাহিত্যিক জ্যোতির্ময়ীদেবীর জন্ম
১৮৯৭- মহাবিপ্লবী নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর জন্ম
১৯০৯ - কবি নবীনচন্দ্র সেনের মৃত্যু
১৯২০ - ভারতীয় উপমহাদেশের বিমানে মাল পরিবহণ ও ডাক যোগাযোগ শুরু
১৯২৬- শিবসেনার প্রতিষ্ঠাতা বাল থ্যাকারের জন্ম
১৯৩৪- সাংবাদিক তথা ‘বর্তমান’-এর প্রাণপুরুষ বরুণ সেনগুপ্তর জন্ম
১৯৭৬- গায়ক পল রোবসনের মৃত্যু
১৯৮৪ – নেদারল্যান্ডের ফুটবল খেলোয়াড় আর্ইয়েন রবেনের জন্ম
১৯৮৯ - স্পেনীয় চিত্রকর সালভাদর দালির মৃত্যু
২০০২ - পাকিস্তানের করাচীতে সাংবাদিক ড্যানিয়েল পার্ল অপহৃত হন এবং পরবর্তীকালে নিহত



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭২.২২ টাকা ৭৩.৯৩ টাকা
পাউন্ড ৯৮.৫১ টাকা ১০১.৯৯ টাকা
ইউরো ৮৭.৩৯ টাকা ৯০.৫৬ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৯,৯৬০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৭,৪০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৮,১০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬৬,৪৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬৬,৫৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৯ মাঘ ১৪২৭, শনিবার, ২৩ জানুয়ারি ২০২১, দশমী ৩৬/২৬ রাত্রি ৮/৫৭। কৃত্তিকা নক্ষত্র ৩৭/৫৫ রাত্রি ৯/৩৩। সূর্যোদয় ৬/২২/২৩, সূর্যাস্ত ৫/১৪/৩৭। অমৃতযোগ দিবা ১০/০ গতে ১২/৫৩ মধ্যে। রাত্রি ৭/৫২ গতে ১০/৩০ মধ্যে পুনঃ ১২/১৪ গতে ২/০ মধ্যে পুনঃ ২/৫২ গতে ৪/৩৭ মধ্যে। বারবেলা ৭/৪৪ মধ্যে পুনঃ ১/৯ গতে ২/৩১ মধ্যে পুনঃ ৩/৫২ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ৬/৫২ মধ্যে পুনঃ ৪/৪৪ গতে উদয়াবধি। 
৯ মাঘ ১৪২৭, শনিবার, ২৩ জানুয়ারি ২০২১, দশমী রাত্রি ৭/৫৯। কৃত্তিকা নক্ষত্র রাত্রি ৯/১১। সূর্যোদয় ৬/২৬, সূর্যাস্ত ৫/১৩। অমৃতযোগ দিবা ৯/৫৮ গতে ১২/৫৭ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৫৮ গতে ১০/৩৩ মধ্যে ও ১২/১৬ গতে ১/৫৮ মধ্যে ও ২/৫০ গতে ৪/৩৩ মধ্যে। কালবেলা ৭/৪৭ মধ্যে ও ১/১০ গতে ২/৩১ মধ্যে ও ৩/৫২ গতে ৫/১৩ মধ্যে। কালরাত্রি ৬/৫২ মধ্যে ও ৪/৪৭ গতে ৬/২৫ মধ্যে। 
৯ জমাদিয়স সানি।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
ভিক্টোরিয়াতে এলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, রয়েছেন মমতাও

04:30:57 PM

নেতাজি ভবনে এলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি 

03:52:43 PM

রেস কোর্সে পৌঁছল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির হেলিকপ্টার 

03:24:11 PM

কলকাতায় এলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি 

03:14:41 PM

দেশের চারটি প্রান্তে চারটি রাজধানী করা হোক: মমতা 

02:29:17 PM

শুধু দিল্লি কেন ভারতের রাজধানী হবে: মমতা 

02:23:57 PM