Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

সরকারি প্রকল্প বনাম ভোট মেরুকরণ
তন্ময় মল্লিক

পুরসভা বা বিধানসভা যে ভোটই হোক না কেন, নাগরিকত্ব আইনই এরাজ্যে বিজেপির লড়াইয়ের একমাত্র অস্ত্র। সেই কারণে নাগরিকত্ব আইনকে মানুষের কাছে অতীব মহার্ঘ হিসেবে তুলে ধরে ভোট মেরুকরণের ভিত মজবুত করতে মরিয়া গেরুয়া শিবির। ঝাড়খণ্ডের ভোট বুঝিয়ে দিয়েছে, ৩৭০ অনুচ্ছেদ মানুষ খায়নি, মোদি ম্যাজিকও ফ্লপ। এই অবস্থায় একমাত্র নাগরিকত্ব আইনই হতে পারে এরাজ্যের ক্ষমতা কবজার জব্বর ফাঁদ। সেই ফাঁদে সাধারণ মানুষ তো বটেই, রাজনৈতিক দলগুলিও পা দিয়েছে। সিপিএম এবং কংগ্রেস এই ইস্যুতে ধর্মঘট পালন করেছে। তৃণমূলও আদাজল খেয়ে বিরোধিতায় নেমেছে। কিন্তু, ভোটকুশলী প্রশান্ত কিশোর উপলব্ধি করেছেন, সিএএ নিয়ে লড়াইয়ে মেতে থাকা ছায়ার সঙ্গে যুদ্ধ করার শামিল। মন জয় করতে গেলে মানুষকে দিতে হবে সরকারি পরিষেবা। সেই জন্যই রাজ্য সরকারের প্রকল্পগুলিকে আরও বেশি করে মানুষের দুয়ারে পৌঁছে দিয়ে কিস্তিমাতের কৌশল নিয়েছেন কুশলী পিকে।
লোকসভা ভোটে তৃণমূলের বিপর্যয়ের কারণগুলির মধ্যে তিনটি বিষয়কে টিম পিকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে সংশোধনের পরামর্শ দিয়েছে। প্রথমত, পঞ্চায়েত ভোটে জুলুমবাজি, যা সাধারণ ভোটারদের তো বটেই, তৃণমূল সমর্থকদেরও বিরূপ করেছে। দ্বিতীয়ত, সরকারি প্রকল্প ঘিরে স্থানীয় স্তরে নেতাদের দুর্নীতি, অর্থাৎ কাটমানি। কাটমানির নেশায় বুঁদ নেতাদের জন্যই তৃণমূলের ঘরের লোক পর হয়েছে। তৃতীয়ত, নেতাদের আস্ফালন। তাতে সাধারণ মানুষ তো ক্ষুণ্ণ হয়েছেই, আত্মসম্মান নিয়ে চলা কর্মীরা হয় বসে গিয়েছেন, অথবা বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন।
ক্ষত মেরামতের জন্য নেওয়া কৌশলগুলি মানুষ গ্রহণ করছে কি না, তা খতিয়ে দেখার জন্য উপনির্বাচন ছিল ‘অ্যাসিড টেস্ট’। নিজের ভোট নিজে দেওয়ার সুযোগ পেলে মানুষ কাকে বেছে নেয়, তা দেখতে চেয়েছিল। সেই জন্য অধিকাংশ বুথে পুলিস প্রহরায় ভোট হওয়া সত্ত্বেও শাসক দল পঞ্চায়েতের মতো ভোট করানোর রাস্তায় হাঁটেনি। ভোটারকে ভোট দিতে দিয়েছে। জুলুমের ভোটের রাস্তা পরিহার করে উপনির্বাচনে সাফল্য পাওয়ায় পুরসভা ভোটেও শাসক দল একই রাস্তায় হাঁটতে চাইছে। কারণ টিম পিকে অনুসন্ধান করে বুঝেছে, তৃণমূলের শেষের শুরু এখনও হয়নি।
টিম পিকে মনে করছে, বিজেপির ভোট মেরুকরণের রাজনীতি মোকাবিলার একমাত্র হাতিয়ার সামাজিক প্রকল্পে বেনিফিসিয়ারির সংখ্যা বাড়ানো। সে কথা মাথায় রেখে রাজ্য সরকার বিভিন্ন প্রকল্পে বেনিফিসিয়ারির সংখ্যা এক ধাক্কায় অনেকটাই বাড়িয়ে দিয়েছে। কোনও কোনও ক্ষেত্রে দ্বিগুণ করে দেওয়া হয়েছে। কারণ ‘দিদিকে বলো’ কর্মসূচির ফিডব্যাক বলছে, বিধবা ভাতা, বার্ধক্য ভাতা এবং বাংলা আবাস যোজনায় ঘরের চাহিদা প্রচুর। বহু জায়গায় দুঃস্থদের চেয়ে নেতাদের আত্মীয়, ছেলেমেয়ে সেই সুযোগ পেয়েছে। তাই প্রকৃত গরিবের হাতে প্রকল্পের সুযোগ পৌঁছনো সুনিশ্চিত করায় জোর দিয়েছে।
ঘর পোড়া গোরু সিঁদুরে মেঘ দেখলেই ভয় পায়। তাই এবার আগাম বাঁধনের ব্যবস্থাটা করেছে। কারণ পুরুলিয়া ও ঝাড়গ্রামের পঞ্চায়েত ভোট ও লোকসভা ভোট বুঝিয়ে দিয়েছে, উন্নয়ন আর সামাজিক প্রকল্পের হাত ধরেই শাসক দলে বাসা বেঁধেছে দুর্নীতি। তাই সরকারি সুযোগ বৃদ্ধির পাশাপাশি জোরদার করা হয়েছে নজরদারি ব্যবস্থা। তবে, সে কাজে দলীয় নেতৃত্বের উপর তৃণমূল নেত্রী ভরসা করেননি। কারণ তিনি দেখেছেন, লাভের গুড় তাঁর দলের পিঁপড়েই সাবাড় করেছে। উন্নয়নের সুফল দলের বদলে গিয়েছে নেতার পেটে। তাই এবার নজরদারির কাজে সরাসরি যুক্ত করেছে প্রশাসনকে। চালু করেছেন ‘গ্রামে চলো’। বিডিও সহ প্রশাসনের অন্যান্য কর্তারা গ্রামে গিয়ে রাত কাটাচ্ছেন। মানুষের অভাব অভিযোগ শুনছেন। তাঁদের সমস্যার কথা শোনার মধ্যেই জেনে নিচ্ছেন নেতাদের খুঁটিনাটি তথ্য। এসব দেখে অনেকেই বলছেন, ‘গ্রামে চলো’ আসলে সরকারি পর্যায়ে ‘দিদিকে বলো’। সরকারের পাশাপাশি শাসক দলের ভিত মজবুত করতেই নাকি এই জোড়া ‘ফিডব্যাকে’র ব্যবস্থা।
এখানেই শেষ নয়। কাটমানি খাওয়ার নেশা মাদকের নেশার চেয়েও ভয়ঙ্কর। এ নেশা সহজে ছাড়ানো যায় না। সেই উপলব্ধি থেকেই হয়েছে মাইকিংয়ের ব্যবস্থা। প্রশাসন মাইকিং করে ঘোষণা করছে, সরকারি প্রকল্পে কেউ টাকা দাবি করলেই প্রশাসনকে জানান। অবাক করার বিষয় হলেও একথা সত্যি, কিছু কিছু এলাকায় এখনও কাটমানি চাওয়ার অভিযোগ জমা পড়ছে।
লোকসভা ভোটে ধাক্কা খাওয়ার জন্য নেতাদের আস্ফালনের বিষয়টিই সব চেয়ে বেশি গুরুত্ব পেয়েছে। কারণ টিম পিকে মনে করছে, স্থানীয় নেতাদের দাম্ভিকতা, ফুলেফেঁপে ওঠার জ্বালা সহ্য করতে না পেরে তৃণমূলের অনেকেই রাগে ভোট দিয়েছে বিজেপিকে। সেকথা মাথায় রেখেই পুরসভা এবং বিধানসভা নির্বাচনের জন্য স্বচ্ছ প্রার্থীর অনুসন্ধান করছে টিম পিকে। তাই খোঁজ চলছে গ্রহণযোগ্য পাঁচটি করে মুখের।
সম্প্রতি কলকাতায় বিধায়ক এবং দলীয় নেতৃত্বকে নিয়ে এক আলোচনায় প্রশান্ত কিশোর এবং যুবনেতা অভিষেক ব঩ন্দ্যোপাধ্যায় সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, লবি করে বা দাদা-দিদি ধরে এবার টিকিট পাওয়া যাবে না। এটা যদি স্রেফ কথার কথা না হয়, তাহলে শাসক দলে প্রচুর নতুন মুখের টিকিট পাওয়ার সম্ভাবনা প্রবল।
তবে, তৃণমূল শেষ পর্যন্ত এই ঝুঁকি নিতে পারে কি না সেটাই দেখার। কারণ পুরসভা নির্বাচনে অল্প কিছু ভোট এধার ওধার হলেই জেতা আসন হাতছাড়া হয়ে যায়। তারপরেও তৃণমূল জনগণের অপছন্দের মুখগুলি ছেঁটে ফেলার সাহস দেখালে কয়েকটি পুরসভা হয়তো হাতছাড়া হবে, কিন্তু ভোট রাজনীতিতে দীর্ঘমেয়াদি সুফল ঘরে তুলবে। তাই অনেকেই মনে করছেন, পুরসভা ভোটে প্রার্থী নির্বাচন এবং ভোট পরিচালানার পদ্ধতির উপরেই নির্ভর করছে শাসক দলের ভাবমূর্তি পুনরুদ্ধারের বিষয়টি।
বাম জমানার শেষদিকে সিপিএমও প্রায় একই রকম সমস্যার মুখে পড়েছিল। দলের একাংশের মাতব্বরি বামমনস্ক মানুষকেও সিপিএমের প্রতি বীতশ্রদ্ধ করে তুলেছিল। মানুষের পালস বুঝতে পেরে আলিমুদ্দিনের ম্যানেজাররা ‘শুদ্ধিকরণে’র আওয়াজ তুলেছিলেন। কিন্তু, বাস্তবায়িত করার সাহস দেখাননি। কারণ জনবিচ্ছিন্ন সিপিএমের কাছে তখন ম্যাসলম্যান ও মাতব্বররাই হয়ে উঠেছিল দলের সম্পদ। তাদের সরিয়ে দেওয়া মানে ক্ষমতাচ্যুত হওয়া। সেই ভয়েই সিপিএম শুদ্ধিকরণ স্লোগানের বেড়া টপকাতে পারেনি। সেই কারণেই যে সমস্ত চিন্তাশীল মানুষের কাছে একদিন বামফ্রন্ট ছিল ‘চোখের মণি’, তাঁদের কাছেই সিপিএম হয়ে গিয়েছিল ‘চোখের বালি’। তার খেসারত গুনতে হয়েছিল ২০১১ সালে।
অনেকে মনে করছেন, লোকসভা ভোটে রাজ্যবাসী শাসক দলকে সেই সংশোধনের শিক্ষাই দিয়েছে। তৃণমূল তা থেকে শিক্ষা নিয়ে পুরসভা ও বিধানসভা ভোটে প্রার্থী বাছাইয়ে স্বচ্ছতাকে গুরুত্ব দিলে ক্ষত মেরামত কঠিন হবে না। সেক্ষেত্রে টিকিট থেকে বঞ্চিতদের অনেকেই বিজেপিতে গিয়ে ভিড়বে। তাতে সাময়িক হলেও বিজেপির লাভ হবে। এখন দেখার, তৃণমূল নেতৃত্ব টিম পিকের পরামর্শ মেনে ঝুঁকি নেয় কি না! মহারাষ্ট্র, ঝাড়খণ্ড প্রভৃতি রাজ্য থেকে ক্ষমতাচ্যুত হওয়ায় বিজেপি এতদিন নাগালের বাইরে থাকা রাজ্য দখলের মরিয়া চেষ্টা চালাবে। সেক্ষেত্রে ভোট মেরুকরণই হবে লক্ষ্য। আর হাতিয়ার হবে নাগরিকত্ব আইন। সিএএ-র প্রতিবাদে এ রাজ্যে মুর্শিদাবাদ, মালদহ এবং বীরভূমে ঘটে যাওয়া তাণ্ডবলীলাকে সামনে এনে বিজেপি হিন্দু ভোট এককাট্টা করার মরিয়া চেষ্টা চালাবে। স্বয়ং দিলীপ ঘোষ ইতিমধ্যেই ঘোষণা করেছেন, এরাজ্যে আসা ৫০ লক্ষ মুসলিমকে চিহ্নিত করে তাঁদের ভোটাধিকার সহ অন্যান্য সুযোগসুবিধা কেড়ে নেওয়া হবে।
ঝাড়খণ্ডের ভোটে পর্যুদস্ত হওয়ার পর অমিত শাহ এনআরসিকে আপাতত ‘ঠান্ডাঘরে’ পাঠিয়ে দেওয়ার পরেও দিলীপবাবুর এই হুঙ্কার রাজনৈতিকভাবে খুবই তাৎপর্যপূর্ণ। অনেকেই মনে করছেন, অত্যন্ত সচেতনভাবেই দিলীপবাবু একথা বলেছেন। তিনি মনে করছেন, একমাত্র ধর্মীয় ভাবাবেগই পারে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারের বেনিফিসিয়ারিদের টলিয়ে দিতে। তার জন্য শুধু উদ্বাস্তুদের নাগরিকত্ব প্রদানই যথেষ্ট নয়, সপ্তমে চড়াতে হবে মুসলিম বিরোধী জেহাদ। আর সেই কাজটিই তিনি জেলায় জেলায় ঘুরে চালিয়ে যাচ্ছেন। তাঁর বক্তব্যকে ঘিরে পদে পদে দানা বাঁধছে বিতর্ক। তবুও তিনি দমছেন না। কারণ তিনি বুঝে গিয়েছেন, কেন্দ্রীয় সরকার ও নরেন্দ্র মোদিকে ভাঙিয়ে বাংলায় গেরুয়া ঝড় তুলতে গেলে ‘ঝাড়’ হয়ে যাবে। বিজেপির বঙ্গজয়ের একমাত্র ইউএসপি হতে পারে ভোট মেরুকরণ। তাই এবার অবশ্যম্ভাবীভাবেই বঙ্গের লড়াই ভোট মেরুকরণ বনাম সরকারি প্রকল্প।
 
11th  January, 2020
করোনা যুদ্ধে জাপানকে জেতাচ্ছে সুস্থ সংস্কৃতি 
হারাধন চৌধুরী

সারা পৃথিবীর হিসেব বলছে, করোনা ভাইরাসে বা কোভিড-১৯ রোগে মৃতদের মধ্যে বয়স্কদের সংখ্যাই বেশি। সেই প্রশ্নে জাপানিদের প্রচণ্ড ভয় পাওয়ার কথা। কারণ, প্রতি একশো জনের মধ্যে বয়স্ক মানুষের সংখ্যা জাপানেই সর্বাধিক।   বিশদ

 একাদশ অবতার
সন্দীপন বিশ্বাস

কতদিন হয়ে গেল ওইসব দামি দামি স্যুট পরা হয়নি, কতদিন বিদেশ যাওয়া হয়নি, কত বিদেশি রাজার সঙ্গে জড়াজড়ি করে হাগ করা হয়নি। সেসব নিয়ে খুবই মন খারাপ হবু রাজার।
বিশদ

08th  July, 2020
সীমান্ত বিতর্ক অছিলা, বাণিজ্য যুদ্ধ
জিততেই চীনের গলওয়ান কাণ্ড
সঞ্জয় মুখোপাধ্যায়

সীমান্ত উত্তেজনা কমাতে ভারতের নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভালের সঙ্গে চীনের বিদেশ মন্ত্রীর বৈঠক আপাতত স্বস্তি দিয়েছে। কিন্তু, স্থায়ী সমাধান সূত্র মেলেনি। বরং বৈঠকের পর চীনের সরকারের বক্তব্য, দুই দেশের সম্পর্ক এক জটিল পরিস্থিতির মুখোমুখি। কী সেই পরিস্থিতি?
বিশদ

08th  July, 2020
সীমান্তেও মোদির
চমকদার রাজনীতি
শান্তনু দত্তগুপ্ত

তারিখটা ৭ নভেম্বর, ১৯৫৯। কংকা পাসের ঘটনার পর প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরুকে চিঠি দিয়েছেন চৌ-এন-লাই। লিখেছেন, দু’দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর মধ্যে যা হয়েছে, তা দুর্ভাগ্যজনক এবং মোটেও কাঙ্ক্ষিত নয়।
বিশদ

07th  July, 2020
আইনের হাত থেকে
স্বাধীনতাকে উদ্ধার করো
পি চিদম্বরম

যদি কোনও ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়, তবে সে অবশ্যই কোনও ভুল করেছে। যদি কারও জামিন নামঞ্জুর হয়ে যায়, তবে সে নিশ্চয় অপরাধী। যদি কোনও ব্যক্তিকে বিচারবিভাগীয় হেফাজতে পাঠানো হয়, তবে জেলসহ শাস্তিই তার প্রাপ্য।  বিশদ

06th  July, 2020
গুরু কে, কেনই বা গুরুপূর্ণিমা?
জয়ন্ত কুশারী

কে দেখাবেন আলোর পথ? পথ অন্ধকারাচ্ছন্নই বা কেন? এই অন্ধকার, মনের। মানসিকতারও। চিন্তার। আবার চেতনারও। এই অন্ধকার কুসংস্কারের। আবার অশিক্ষারও। অথচ আমরা প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষায় উচ্চশিক্ষিত এক একজন।   বিশদ

05th  July, 2020
জাতির উদ্দেশে ভাষণের চরম অবমূল্যায়ন
হিমাংশু সিংহ

অনেক প্রত্যাশা জাগিয়েও মাত্র ১৬ মিনিট ৯ সেকেন্ডেই শেষ। দেশবাসীর প্রাপ্তি বলতে আরও পাঁচ মাস বিনামূল্যে রেশন। শুধু ওইটুকুই। ছাপ্পান্ন ইঞ্চি বুক ফুলিয়ে চীনকে কোনও রণহুঙ্কার নয়, নিহত বীর জওয়ানদের মৃত্যুর বদলা নয় কিম্বা শূন্যে নেমে যাওয়া অর্থনীতিকে টেনে তোলার সামান্যতম অঙ্গীকারও নয়। ১৬ মিনিটের মধ্যে ১৩ মিনিটই উচ্চকিত আত্মপ্রচার।   বিশদ

05th  July, 2020
মধ্যবিত্তের লড়াই শুরু হল
শুভময় মৈত্র 

কোভিড পরিস্থিতি চীনে শুরু হয়েছে গত বছরের শেষে। মার্চ থেকেই আমাদের দেশে হইচই। শুরুতেই ভীষণ বিপদে পড়েছেন নিম্নবিত্ত মানুষ। পরিযায়ী শ্রমিকদের অবর্ণনীয় দুর্দশার কথা এখন সকলেই জানেন।  বিশদ

04th  July, 2020
রাজধর্ম
তন্ময় মল্লিক 

যেমন কথা তেমন কাজ। উম-পুন সুপার সাইক্লোনে ক্ষতিপূরণ নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ উঠতেই মুখ্যমন্ত্রী জানিয়ে দিয়েছিলেন, টাঙিয়ে দেওয়া হবে ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা। ফেরানো হবে অবাঞ্ছিতদের হাতে যাওয়া ক্ষতিপূরণ।   বিশদ

04th  July, 2020
উন্নয়ন  ও  চীনা  আগ্রাসনের  উত্তর  একসুতোয় গাঁথা
নীলাশিস  ঘোষদস্তিদার 

আমরা ভারতীয়রা চীনা পণ্য বয়কট করব কি না, এই প্রশ্নে অনেকেই বেশ দ্বিধায়। এই কারণে যে এত সস্তায় কেনা সাধের চীনা অ্যান্ড্রয়েড ফোনটি ছেড়ে কি দামি আই-ফোন বা অকাজের দেশি ফোন কিনতে হবে?   বিশদ

03rd  July, 2020
ভার্চুয়াল স্ট্রাইক নাকি ড্যামেজ কন্ট্রোল!
মৃণালকান্তি দাস

ভারতের কোনও রাষ্ট্রনেতা তাঁর মতো বিদেশ সফর করেননি। প্রধানমন্ত্রী হওয়ার আগেও বিনিয়োগ টানতে চীনে গিয়েছেন অনেকবার। তখন তিনি গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী। দশ বছরে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং চীনে গিয়েছেন ২ বার।  বিশদ

03rd  July, 2020
চীনের নতুন পুতুলের নাম পাকিস্তান
হারাধন চৌধুরী 

পাকিস্তান ছিল আমেরিকার পুতুল। এবার সেটা হাত বদলে চীনের হয়েছে। চীনের কোনও কিছুর গ্যারান্টি নেই। যেমন তাদের কথা আর বিশ্বাসের মূল্য, তেমনি চীনা প্রোডাক্টের আয়ু। এ নিয়ে চালু রসিকতাও কম নয়।  বিশদ

02nd  July, 2020
একনজরে
সংবাদদাতা, ঝাড়গ্রাম: বুধবার গোপীবল্লভপুরে বিজেপির ছেড়ে বেশকিছু কর্মী সমর্থক তৃণমূলে যোগ দিলেন। শহরের একটি অতিথিশালায় এই দলবদলের অনুষ্ঠানে তৃণমূলে আসা কর্মীদের হাতে পতাকা তুলে দেন ছত্রধর মাহাত।  ...

সুমন তেওয়ারি, ঝাঁঝরা: ভারত-চীন সীমান্তে চড়ছে উত্তেজনার পারদ। অথচ তার এতটুকু আঁচ পড়েনি দুর্গাপুরের ঝাঁঝরায়। উৎপাদনের নিরিখে দেশের এই সর্ববৃহৎ ভূগর্ভস্থ কয়লা খনি প্রকল্পে হাতে হাত মিলিয়ে কাজ করছেন দুই দেশের কর্মীরা। ...

  নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: করোনা আবহের মধ্যেও প্রেসিডেন্সি জেলে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত দুই বন্দি লিগ্যাল ক্লিনিকের কাজ করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন। আইনি ভাষায় তাঁদেরকে বলা হয়, ‘প্যারা লিগ্যাল ভলেন্টিয়ার’ (পিএলভি)। ...

করাচি: বিশ্বকাপের মত টুর্নামেন্টে ভারতের বিপক্ষে একবারও জয়লাভ করতে পারেনি পাকিস্তান। এর কারণ তুলে ধরলেন পাক দলের প্রাক্তন তারকা বোলার ওয়াকার ইউনিস। কেন আইসিসির বৃহত্তম মঞ্চে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের কাছে তাঁর দেশ বারবার ব্যর্থ হয়, তা বিশ্লেষণ করতে গিয়ে প্রাক্তন তারকা পেসারটি ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

মেষ: পঠন-পাঠনে আগ্রহ বাড়লেও মন চঞ্চল থাকবে। কোনও হিতৈষী দ্বারা উপকৃত হবার সম্ভাবনা। ব্যবসায় যুক্ত ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯২৫: অভিনেতা গুরু দত্তের জন্ম
১৯৩৮: অভিনেতা সঞ্জীব কুমারের জন্ম
১৯৫৬: মার্কিন অভিনেতা টম হ্যাংকসের জন্ম
১৯৬৯: ক্রিকেটার বেঙ্কটপতি রাজুর জন্ম
১৯৬৯: ভারতের জাতীয় পশু হল রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার 



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৪.১৯ টাকা ৭৫.৯১ টাকা
পাউন্ড ৯২.৫৯ টাকা ৯৫.৯১ টাকা
ইউরো ৮৩.১৭ টাকা ৮৬.২৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৯,৭৬০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৭,২১০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৭,৯২০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৫০,৩৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৫০,৪৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২৫ আষাঢ় ১৪২৭, ৯ জুলাই ২০২০, বৃহস্পতিবার, চতুর্থী ১২/৫৩ দিবা ১০/১২। শতভিষা ৫৫/১৭ রাত্রি ৩/৯৷ সূর্যোদয় ৫/২/১৯, সূর্যাস্ত ৬/২১/৭৷ অমৃতযোগ দিবা ৩/৪১ গতে অস্তাবধি, রাত্রি ৭/৪ গতে ৯/১২ মধ্যে পুনঃ ১২/৩ গতে ২/১১ মধ্যে পুনঃ ৩/৩৬ গতে উদয়াবধি। বারবেলা ৩/১ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ১১/৪১ গতে ১/১ মধ্যে। 
২৪ আষাঢ় ১৪২৭, ৯ জুলাই ২০২০, বূহস্পতিবার, চতুর্থী দিবা ১০/১৩। শতভিষা নক্ষত্র রাত্রি ৩/৫৩। সূযোদয় ৫/২, সূর্যাস্ত ৬/২৩। অমৃতযোগ দিবা ৩/৪২ গতে ৬/২৩ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৪ গতে ৯/১৩ মধ্যে ও ১২/৪ গতে ২/১২ মধ্যে ও ৩/৩৭ গতে ৫/২ মধ্যে। কালবেলা ৩/৩ গতে ৬/২৩ মধ্যে। কালরাত্রি ১১/৪৩ গতে ১/২ মধ্যে। 
১৭ জেল্কদ 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
কর্ণাটকে করোনা পজিটিভ আরও ২,০৬২, মোট আক্রান্ত ২৮,৮৭৭ 

08-07-2020 - 08:49:35 PM

মহারাষ্ট্রে করোনা পজিটিভ আরও ৬,৬০৩, মোট আক্রান্ত ২,২৩,৭২৪ 

08-07-2020 - 08:31:12 PM

বাতিল এশিয়া কাপ 
করোনা আবহে এখনও ঝুলে রয়েছে টি-২০ বিশ্বকাপের ভাগ্য। তার মধ্যেই ...বিশদ

08-07-2020 - 07:48:40 PM

করোনা:বাংলায় ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ৯৮৬

২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে ২৩ জন করোনা রোগী প্রাণ হারালেন। তার ...বিশদ

08-07-2020 - 07:40:14 PM

হাওড়ার কন্টেইনমেন্ট জোনের পূর্ণাঙ্গ তালিকা
প্রকাশিত হল হাওড়ার বৃহত্তর কন্টেইনমেন্ট জোনের সম্পূর্ণ তালিকা। আগামীকাল বিকেল ...বিশদ

08-07-2020 - 05:55:45 PM

কন্টেইনমেন্ট জোনের পূর্ণাঙ্গ তালিকা: উত্তর ২৪ পরগনা 
প্রকাশিত হল উত্তর ২৪ পরগনা জেলার বৃহত্তর কন্টেইনমেন্ট জোনের সম্পূর্ণ ...বিশদ

08-07-2020 - 05:55:00 PM