Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

আর ক’জন ধর্ষিতা হলে রামরাজ্য পাব
সন্দীপন বিশ্বাস 

রাত অনেক হল। মেয়েটি এখনো বাড়ি ফেরেনি। কোথাও আটকে গিয়েছে। অনেক লড়াই করে, পুরুষের সঙ্গে পাশাপাশি ঘাম ঝরিয়ে তাকে বেঁচে থাকতে হয়। বাড়িতে বাবা-মা অস্থির হয়ে ওঠেন। এই রাতে জঙ্গলের মধ্য দিয়ে পশুদের নখের আঘাত এড়িয়ে তাঁদের মেয়েটা কি কোনওক্রমে বাড়ি ফিরতে পারবে? কোনও কোনও মেয়ের কিন্তু বাড়ি ফেরা হয় না। দুর্ভাগ্যক্রমে তারা পড়ে যায় হায়নার ফাঁদে। সারা শরীর রক্তাক্ত হয়। হায়নার দাঁতের ফাঁকে আটকে যায় মেয়েটির শরীরের রক্ত-মাংস। এমন ধরনের ঘটনা দিন দিন বাড়ছে। রাত কিংবা দিন, এই দেশে যে মেয়েরা আর নিরাপদ নয়, তা প্রতিদিনের ঘটনাই প্রমাণ করে দিচ্ছে। ছাড় পাচ্ছে না অবোধ এক বছরের শিশুকন্যা থেকে ৮০ বছরের বৃদ্ধা পর্যন্ত। সেই হতভাগিনী নির্ভয়ার গল্প এখন আরও প্রসারিত। বেঙ্গালুরু, মুম্বই, কাঠুয়া, হায়দরাবাদ, উন্নাও, কামদুনি, মধ্যমগ্রাম। তারপর, তারপর...। অজস্র নারীর যন্ত্রণা আর কান্না মিশে যাচ্ছে আমাদের সভ্যতার উজ্জ্বল আলোয়। আমরা বুঝতেও পারছি না, আলোর নীচেই গাঢ় হচ্ছে ঘন অন্ধকার। ক্রমেই অবণ্যের আতঙ্ক আমাদের গ্রাস করছে। হাড়হিম করা অনুভূতি তৈরি হচ্ছে। প্রত্যেক বাবা তাঁর কন্যাসন্তানের দিকে তাকিয়ে আতঙ্কে ভাবছেন, এই সমাজে আমার মেয়েটা নিরাপদ তো?
ঘটনার পর অভিযুক্তরা গ্রেপ্তার হবে। তারপর চলবে তার বিচার। কবে সে বিচার শেষ হবে, কেউ জানে না। উল্টে বিচারের সময় মেয়েটিকে নানা ধরনের প্রশ্নে প্রকাশ্য কোর্টে আরও একবার অপমানিত হতে হবে। আমরা তার নমুনা দেখেছি তপন সিংহের সাহসী ছবি ‘আদালত ও একটি মেয়ে’তে। এখনও সেরকমই চলছে। এখনও কত প্রশ্ন ওঠে। মেয়েটির বয়স কত, ধর্ম কী, মেয়েটির স্বভাবচরিত্র ঠিক ছিল কিনা! বিচার চলবে, চলবে, চলবে। আর মেয়েটার উপর হুমকি আসতেই থাকবে। তাকে কখনো গাড়িতে ধাক্কা মেরে খুন করার চেষ্টা হবে। কখনো পুড়িয়ে মারারও চেষ্টা হবে। এসব দেখে বিচারপ্রক্রিয়ার উপর মানুষের বিশ্বাস ক্রমে ক্রমে টলে যাচ্ছে। এটা একটা বিপজ্জনক দিক। হায়দরাবাদের ঘটনায় অভিযুক্ত চারজনকে পুলিশ যখন এনকাউন্টারে মেরে ফেলল, তখন সারা দেশ উল্লাসে বলে উঠেছিল, ঠিক হয়েছে। এতেই বোঝা যায় সাধারণ মানুষের ভিতরে কতটা আগুন ধিক ধিক করে জ্বলছিল। এভাবে নিশ্চয়ই অপরাধীদের শাস্তি হতে পারে না। কিন্তু মানুষের সমর্থন দেখে একটাই কথা মনে হয়েছে, বিচারের বাণী এভাবে নীরবে নিভৃতে কাঁদুক, এটাও মানুষের পছন্দ নয়। পছন্দ নয় দীর্ঘমেয়াদি বিচার প্রক্রিয়াও। তাই বিচারের বাইরে এই ধরনের শাস্তিতে প্রায় সকলের উল্লসিত মানসিকতাই প্রকাশ পেয়েছে। সভ্য মন বলছে, এটা নিশ্চয়ই কাম্য নয়। কিন্তু ভিতরের রোষ বলছে, চাই এনকাউন্টার। এটাই তো গণরোষ। আইন যখন দুর্বল হয়, গণরোষ তখন প্রবল শক্তি ধারণ করে। একটা কথা বলতেই হয় যে, হায়দরাবাদ পুলিশের এই এনকাউন্টার নিশ্চয়ই অপরাধপ্রবণতা কমাবে। বিচারব্যবস্থা যে ভয় অপরাধীদের দেখাতে পারেনি, এই এনকাউন্টার কিছুটা হলেও সেই ভয় তৈরি করতে সক্ষম হবে। এখানেই এই এনকাউন্টরের সার্থকতা বলে সকলের মনে হয়েছে। অর্থাৎ আইন তাদের এত তাড়াতাড়ি শাস্তি দিতে পারত না। সারা দেশে উল্লাসের মধ্য দিয়ে কার্যত সেই মনস্তত্ত্বই প্রকাশ পেয়েছে।
কিন্তু এই এনকাউন্টার শেষ কথা হতে পারে না। এই ক্ষমতা পুলিসের হাতে চলে গেলে সমস্ত ব্যবস্থা লণ্ডভণ্ড হয়ে যাবে। কত ফেক এনকাউন্টারে পুলিস কত যে নিরীহ মানুষকে মেরে ফেলেছে, তার হিসাব নেই। আমাদের রাজ্যে ১৯৭১ সালের ঘটনা আমরা ভুলে যাইনি। সেদিন কত যে নিরীহ, মেধাবী ছেলেকে পুলিস নকশাল বলে তুলে নিয়ে গিয়ে গুলি করে মেরে দিয়েছিল, তার হিসাব নেই। আমাদের দেশে আইনরক্ষক পুলিসের ভূমিকা খুবই বিতর্কিত। বহু উর্দিতে লেগে আছে অনেক কলঙ্কের দাগ। লক আপে ধর্ষিত হওয়ার ঘটনাও আমাদের দেশে কম ঘটেনি। সুতরাং আজ পুলিস পুষ্পবৃষ্টিতে অভিনন্দিত হলেও, ক্ষমতা তাকে বিপথে নিয়ে যাবেই। এই রক্ষকই যে ভক্ষক হয়ে ওঠে এটা আমরা কমবেশি সকলেই জানি। তাই সব ক্ষেত্রে এনকাউন্টার শেষ কথা হতে পারে না।
কিন্তু গণরোষ ফিরে ফিরে আসবেই। কারও শক্তি নেই তাকে থামানোর। যুগে যুগে প্রমাণ হয়েছে মানুষের শক্তিই সবথেকে বড়। এই গণরোষ দেখেছিল নাগপুর। ২০০৪ সালে ধর্ষিতা মেয়েরা একত্রিত হয়ে কোর্টেই মেরে ফেলেছিলেন আক্কু যাদবকে। দিনের পর দিন কস্তুরবা বস্তির মেয়েরা আক্কুর শিকার হয়ে উঠছিলেন। প্রভাবশালী হওয়ায় আইন তাকে ছুঁতেও পারছিল না। এর মধ্যেই সমাজকর্মী ঊষা নারায়ণের নেতৃত্বে বস্তির মেয়েরা ফুঁসে ওঠেন। সেদিন কোর্টে হাজির করা হয় আক্কুকে। কোর্ট চত্বরে উপস্থিত মেয়েদের দেখে সে বলে ওঠে। ‘আজই জামিন পাব, বেরিয়ে এসে তোদের দেখে নেব।’ সঙ্গে সঙ্গে প্রায় ২০০ মেয়ে তার ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েন। কারও হাতে চাকু, কারও হাতে লাঠি, কারও হাতে লঙ্কাগুঁড়ো। বিধাতার শাস্তি গণরোষ হয়ে নেমে আসে। সেখানেই খতম হয় আক্কু যাদব। পরিস্থিতি আবার সেইদিকেই এগচ্ছে।
একটা কথা আমার গত কয়েকদিন ধরেই মনে হচ্ছে, যে দেশে সীতাদের ধর্ষণ করে পুড়িয়ে মারা হয়, সে দেশেই আবার ঘটা করে রামমন্দির নির্মাণ করা হয়। এতেই বোঝা যায় এই রামমন্দির নির্মাণ আসলে রাজনৈতিক অ্যাজেন্ডা ছাড়া আর কিছু নয়। অযোধ্যা থেকে প্রায় দুশো কিলোমিটার দূরে উন্নাওয়ে দুটি মেয়ে লাঞ্ছনার শিকার। তাদের একজনকে অভিযুক্তরা গাড়ি দিয়ে পিষে মেরে ফেলার চেষ্টা করেছিল আর একজনকে অভিযুক্তরা পুড়িয়ে মেরে দিয়েছে। একটি ঘটনায় স্বয়ং বিজেপি বিধায়ক অভিযুক্ত। এ কোন বর্বরতার দিকে হাঁটছি আমরা! সেটাও কি আর এক রামরাজ্য? আর কতজন মেয়ে ধর্ষিতা হলে আমরা সেই রামরাজ্য পাব?
যোগীর রাজ্যে দেখেছি গোরক্ষকরা খুব তৎপর। কেউ গোমাংস নিয়ে গেলেই বেদম গণপিটুনি দিয়ে তাদের ‘অপরাধের’ শাস্তি দেওয়া হয়। অনেক সময় তাদের প্রাণবায়ুও বেরিয়ে যায়। তাই উত্তরপ্রদেশের এমন অন্ধকার সময়ে আমরা শরণাপন্ন হতে পারি, সেই সব গোরক্ষকদের। বলতে পারি, হে গোরক্ষকগণ, তোমাদের রাজ্যের মেয়েরা কী দোষ করল? এমন প্রয়োজনীয় সময়ে গোমাংস ধরার চেয়ে ধর্ষণকারীদের ধরা অনেক মহৎ ও পুণ্যের কাজ। তোমরাই বিচার করে দেখ, একটা গোরুর থেকে মানুষের প্রাণের দাম কিংবা একজন নারীর শ্লীলতার দাম কম না বেশি?
হায়দরাবাদের ঘটনা আমাদের দেশের মানুষের ভিতরে একটা আগুন জ্বেলে দিয়েছিল। এই ক্রোধটা স্বাভাবিক। কিন্তু দিকে দিকে ধর্ষণের উল্লম্ফন দেখে যে সুশীল সমাজ, ছাত্রসমাজ কিংবা সাধারণ মানুষ প্রতিবাদে গর্জে ওঠেন, তাঁদেরই কারও কারও লালসার কলুষিত স্পর্শে বিব্রত হন বাসের মহিলা যাত্রী, হাটে বাজারে বা মলে কোনও মেয়ে। কিংবা কোনও স্কুলের শিক্ষকের বা পুলকারের চালকের ‘ব্যাড টাচ’ লেগে যায় বালিকার অঙ্গে। ফেসবুকে কেউ আপলোড করে দেয় বান্ধবীর অশ্লীল ছবি! তাদের শাস্তি দেবে কে? মানসিকতা না বদলালে মেয়েরা নিত্যদিন সমাজে অপমানিত, লাঞ্ছিত হতেই থাকবে। একটা সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, মেয়েরা বেশি লাঞ্ছিত হয় তাদের পরিচিত জনের কাছ থেকেই। কে দেবে তাদের শাস্তি? কিংবা শ্লীলতাহানির অভিযোগে অভিযুক্ত রাজনৈতিক নেতা, প্রভাবশালী ধর্মীয় গুরু, পুলিস কর্তা, শিল্পপতি, আইনজীবী এই ধরনের মানুষদের এনকাউন্টারে ওড়াবেন কোন পুলিসকর্তা?
এর মধ্যে আবার দেখি ফোঁস করে ওঠেন মানবাধিকারবাদীরা। এইসব নৃশংস পশুদের ফাঁসি দেওয়ার কথা বললে তাঁরা মানবাধিকারের কথা বলেন। কার জন্য মানবাধিকার! ওই পশুদের জন্য? মানুষের দেহ ধারণ করলেই কী মনুষ্য পদবাচ্য হয়? মানবাধিকার অবশ্যই মানুষের জন্য থাকুক। মানুষের দেহধারী পশুদের জন্য সেই মানবাধিকার প্রয়োগ করে যদি তাদের সোহাগ করা হয়, তবে সেই রাতের অন্ধকারে যন্ত্রণায় কুঁকড়ে যাওয়া মেয়েটা, দাউ দাউ আগুনে জ্বলতে থাকা মেয়েটা কি আমাদের গোটা সমাজটার মুখেই ঘৃণায় থুথু ছিটিয়ে দেবে না? বাংলায় একটা প্রবাদ আছে, যেমন কুকুর তেমন মুগুর। অপরাধীকে যথোপযুক্ত শাস্তি দিতেই হবে। এবং সেটা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব।
১৯৯৮ সালে পরমাণু বিজ্ঞানী এ পি জে আব্দুল কালাম একটি অনুষ্ঠানে বক্তৃতা দিচ্ছিলেন। তখনও তিনি রাষ্ট্রপতি হননি। সেই বক্তৃতার শেষে একটি নয়-দশ বছরের মেয়ে তাঁর কাছে অটোগ্রাফ নিতে এলে তিনি মেয়েটিকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন, ‘তুমি কী স্বপ্ন দেখো?’ মেয়েটি হাসিমুখে বলেছিল, ‘আমি উন্নত ভারতবর্ষের স্বপ্ন দেখি।’ উত্তরটা শুনে চমৎকৃত হয়েছিলেন কালাম সাহেব। সেই মেয়েটির স্বপ্ন আর এক রকমের স্বপ্ন এঁকে দিয়েছিল কালাম সাহেবের চোখে। তিনিও স্বপ্ন দেখলেন, টোয়েন্টি টোয়েন্টি। অর্থাৎ তখন তিনি স্বপ্ন দেখলেন আগামী ২০২০ সালের মধ্যে ভারত কীভাবে উন্নত দেশ হয়ে উঠতে পারে। লিখেছিলেন, ‘ইন্ডিয়া ২০২০: আ ভিশন ফর দ্য নিউ মিলেনিয়াম’। আর কয়েকদিন পরেই আমরা পৌঁছে যাব ২০২০ সালে। আজ কালাম বেঁচে থাকলে দেখতেন কীভাবে তাঁর স্বপ্ন ভূলুণ্ঠিত। শিক্ষায়, স্বাস্থ্যে, অর্থনীতিতে, ক্ষুধায়, নারীদের লাঞ্ছনায় দেশ আজ পিছন দিকে হাঁটছে। আর রাজনৈতিক নেতাদের মধ্যে চলছে ক্ষমতার পিঠে ভাগাভাগি। শত ধিক বললেও হবে না কোনও কাজ। কেননা ক্ষমতাই একমাত্র সত্য তাহার উপরে নাই। সত্য সেলুকাস, কী বিচিত্র এই দেশ!
09th  December, 2019
নিত্য নতুন ইভেন্টের
আড়ালে যত খেলা
সমৃদ্ধ দত্ত

বয়কটের আগে বুঝতে হবে যে, এখন এসব বয়কট করার অর্থ আমাদের দেশেরই ব্যবসায়ী, দোকানিদের চরম আর্থিক ক্ষতি। বিগত তিনমাসের লকডাউনে এমনিতেই জীবিকা সঙ্কটে ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ীরা। আমাদের এলাকার চাইনিজ প্রোডাক্ট এখন আমরা না কিনলে চীনের ক্ষতি নেই।
বিশদ

করোনা যুদ্ধে জাপানকে জেতাচ্ছে সুস্থ সংস্কৃতি 
হারাধন চৌধুরী

সারা পৃথিবীর হিসেব বলছে, করোনা ভাইরাসে বা কোভিড-১৯ রোগে মৃতদের মধ্যে বয়স্কদের সংখ্যাই বেশি। সেই প্রশ্নে জাপানিদের প্রচণ্ড ভয় পাওয়ার কথা। কারণ, প্রতি একশো জনের মধ্যে বয়স্ক মানুষের সংখ্যা জাপানেই সর্বাধিক।   বিশদ

09th  July, 2020
 একাদশ অবতার
সন্দীপন বিশ্বাস

কতদিন হয়ে গেল ওইসব দামি দামি স্যুট পরা হয়নি, কতদিন বিদেশ যাওয়া হয়নি, কত বিদেশি রাজার সঙ্গে জড়াজড়ি করে হাগ করা হয়নি। সেসব নিয়ে খুবই মন খারাপ হবু রাজার।
বিশদ

08th  July, 2020
সীমান্ত বিতর্ক অছিলা, বাণিজ্য যুদ্ধ
জিততেই চীনের গলওয়ান কাণ্ড
সঞ্জয় মুখোপাধ্যায়

সীমান্ত উত্তেজনা কমাতে ভারতের নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভালের সঙ্গে চীনের বিদেশ মন্ত্রীর বৈঠক আপাতত স্বস্তি দিয়েছে। কিন্তু, স্থায়ী সমাধান সূত্র মেলেনি। বরং বৈঠকের পর চীনের সরকারের বক্তব্য, দুই দেশের সম্পর্ক এক জটিল পরিস্থিতির মুখোমুখি। কী সেই পরিস্থিতি?
বিশদ

08th  July, 2020
সীমান্তেও মোদির
চমকদার রাজনীতি
শান্তনু দত্তগুপ্ত

তারিখটা ৭ নভেম্বর, ১৯৫৯। কংকা পাসের ঘটনার পর প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরুকে চিঠি দিয়েছেন চৌ-এন-লাই। লিখেছেন, দু’দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর মধ্যে যা হয়েছে, তা দুর্ভাগ্যজনক এবং মোটেও কাঙ্ক্ষিত নয়।
বিশদ

07th  July, 2020
আইনের হাত থেকে
স্বাধীনতাকে উদ্ধার করো
পি চিদম্বরম

যদি কোনও ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়, তবে সে অবশ্যই কোনও ভুল করেছে। যদি কারও জামিন নামঞ্জুর হয়ে যায়, তবে সে নিশ্চয় অপরাধী। যদি কোনও ব্যক্তিকে বিচারবিভাগীয় হেফাজতে পাঠানো হয়, তবে জেলসহ শাস্তিই তার প্রাপ্য।  বিশদ

06th  July, 2020
গুরু কে, কেনই বা গুরুপূর্ণিমা?
জয়ন্ত কুশারী

কে দেখাবেন আলোর পথ? পথ অন্ধকারাচ্ছন্নই বা কেন? এই অন্ধকার, মনের। মানসিকতারও। চিন্তার। আবার চেতনারও। এই অন্ধকার কুসংস্কারের। আবার অশিক্ষারও। অথচ আমরা প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষায় উচ্চশিক্ষিত এক একজন।   বিশদ

05th  July, 2020
জাতির উদ্দেশে ভাষণের চরম অবমূল্যায়ন
হিমাংশু সিংহ

অনেক প্রত্যাশা জাগিয়েও মাত্র ১৬ মিনিট ৯ সেকেন্ডেই শেষ। দেশবাসীর প্রাপ্তি বলতে আরও পাঁচ মাস বিনামূল্যে রেশন। শুধু ওইটুকুই। ছাপ্পান্ন ইঞ্চি বুক ফুলিয়ে চীনকে কোনও রণহুঙ্কার নয়, নিহত বীর জওয়ানদের মৃত্যুর বদলা নয় কিম্বা শূন্যে নেমে যাওয়া অর্থনীতিকে টেনে তোলার সামান্যতম অঙ্গীকারও নয়। ১৬ মিনিটের মধ্যে ১৩ মিনিটই উচ্চকিত আত্মপ্রচার।   বিশদ

05th  July, 2020
মধ্যবিত্তের লড়াই শুরু হল
শুভময় মৈত্র 

কোভিড পরিস্থিতি চীনে শুরু হয়েছে গত বছরের শেষে। মার্চ থেকেই আমাদের দেশে হইচই। শুরুতেই ভীষণ বিপদে পড়েছেন নিম্নবিত্ত মানুষ। পরিযায়ী শ্রমিকদের অবর্ণনীয় দুর্দশার কথা এখন সকলেই জানেন।  বিশদ

04th  July, 2020
রাজধর্ম
তন্ময় মল্লিক 

যেমন কথা তেমন কাজ। উম-পুন সুপার সাইক্লোনে ক্ষতিপূরণ নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ উঠতেই মুখ্যমন্ত্রী জানিয়ে দিয়েছিলেন, টাঙিয়ে দেওয়া হবে ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা। ফেরানো হবে অবাঞ্ছিতদের হাতে যাওয়া ক্ষতিপূরণ।   বিশদ

04th  July, 2020
উন্নয়ন  ও  চীনা  আগ্রাসনের  উত্তর  একসুতোয় গাঁথা
নীলাশিস  ঘোষদস্তিদার 

আমরা ভারতীয়রা চীনা পণ্য বয়কট করব কি না, এই প্রশ্নে অনেকেই বেশ দ্বিধায়। এই কারণে যে এত সস্তায় কেনা সাধের চীনা অ্যান্ড্রয়েড ফোনটি ছেড়ে কি দামি আই-ফোন বা অকাজের দেশি ফোন কিনতে হবে?   বিশদ

03rd  July, 2020
ভার্চুয়াল স্ট্রাইক নাকি ড্যামেজ কন্ট্রোল!
মৃণালকান্তি দাস

ভারতের কোনও রাষ্ট্রনেতা তাঁর মতো বিদেশ সফর করেননি। প্রধানমন্ত্রী হওয়ার আগেও বিনিয়োগ টানতে চীনে গিয়েছেন অনেকবার। তখন তিনি গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী। দশ বছরে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং চীনে গিয়েছেন ২ বার।  বিশদ

03rd  July, 2020
একনজরে
নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ট্রেন বন্ধ। শিয়ালদহ খাঁ খাঁ করছে। স্টেশন সংলগ্ন হোটেল ব্যবসায়ীরা কার্যত মাছি তাড়াচ্ছেন। এশিয়ার ব্যস্ততম স্টেশনের আশপাশের লজ, হোটেল, গেস্ট হাউসগুলির সদর ...

 সুখেন্দু পাল, বহরমপুর: গতবারের চেয়ে এবার রাজ্যের পঞ্চায়েতগুলিতে অর্থ কমিশনের টাকা অনেক কম পাঠানো হচ্ছে। কোনও কোনও পঞ্চায়েতে প্রথম কিস্তিতে গত বছরের তুলনায় অর্ধেকেরও কম টাকা পাঠানো হবে। কেন্দ্রের বিরুদ্ধে বঞ্চনার অভিযোগ তুলে ইতিমধ্যেই প্রধানরা সরব হয়েছেন। ...

বার্সেলোনা: খেতাবের দৌড়ে পিছিয়ে পড়েও লড়াই জারি বার্সেলোনার। বুধবার ক্যাম্প ন্যু’য়ে লুই সুয়ারেজের করা একমাত্র গোলে কাতালন ডার্বিতে এস্প্যানিয়লকে পরাস্ত করল কিকে সেতিয়েন-ব্রিগেড। এই জয়ের ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, তমলুক: পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় ভুয়ো ক্ষতিগ্রস্তদের কাছ থেকে টাকা ফেরাতে ব্লক লেভেল টাস্ক ফোর্স (বিএলটিএফ) তৈরি করল জেলা প্রশাসন। গত ৭জুলাই জেলাশাসক পার্থ ঘোষ এই সংক্রান্ত একটি নির্দেশিকা জারি করেছেন। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

পঠন-পাঠনে আগ্রহ বাড়লেও মন চঞ্চল থাকবে। কোনও হিতৈষী দ্বারা উপকৃত হবার সম্ভাবনা। ব্যবসায় যুক্ত হলে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৮৫- ভাষাবিদ মহম্মদ শহীদুল্লাহর জন্ম,
১৮৯৩- গণিতজ্ঞ কে সি নাগের জন্ম,
১৯৪৯- ক্রিকেটার সুনীল গাভাসকরের জন্ম,
১৯৫০- গায়িকা পরভীন সুলতানার জন্ম,
১৯৫১- রাজনীতিক রাজনাথ সিংয়ের জন্ম



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৩.০৪ টাকা ৭৬.৭৪ টাকা
পাউন্ড ৯২.১৪ টাকা ৯৭.১৪ টাকা
ইউরো ৮২.৯৩ টাকা ৮৭.৪০ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৫০,০৬০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৭,৪৯০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৮,২০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৫১,৭১০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৫১,৮১০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২৬ আষাঢ় ১৪২৭, ১০ জুলাই ২০২০, শুক্রবার, পঞ্চমী ১৬/৩০ দিবা ১১/৩৯। পূর্বভাদ্রপদ অহোরাত্র। সূর্যোদয় ৫/২/৪২, সূর্যাস্ত ৬/২১/২৷ অমৃতযোগ দিবা ১২/৮ গতে ২/৪৮ মধ্যে। রাত্রি ৮/২৯ মধ্যে পুনঃ ১২/৪৬ গতে ২/৫৫ মধ্যে পুনঃ ৩/৩৮ গতে উদয়াবধি। বারবেলা ৮/২২ গতে ১১/৪২ মধ্যে। কালরাত্রি ৯/১ গতে ১০/২১ মধ্যে।
২৫ আষাঢ় ১৪২৭, ১০ জুলাই ২০২০, শুক্রবার, পঞ্চমী দিবা ১১/২৭। পূর্বভাদ্রপদ নক্ষত্র অহোরাত্র। সূযোদয় ৫/২, সূর্যাস্ত ৬/২৩। অমৃতযোগ দিবা ১২/৯ গতে ২/৪৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৮/৩০ মধ্যে ও ১২/৪৬ গতে ২/৫৫ মধ্যে ও ৩/৩৭ গতে ৫/৩ মধ্যে। বারবেলা ৮/২৩ গতে ১১/৪৩ মধ্যে। কালরাত্রি ৯/৩ গতে ১০/২৩ মধ্যে।
১৮ জেল্কদ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
মহারাষ্ট্রের জেলগুলিতে করোনায় আক্রান্ত ৫৯৬ জন বন্দী ও ১৬৭ কর্মী
মহারাষ্ট্রের জেলগুলিতে এ পর্যন্ত মোট করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫৯৬ জন ...বিশদ

09:44:11 AM

করোনা:ফের রেকর্ড, দেশে একদিনে আক্রান্ত ২৬,৫০৬
গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হলেন আরও ...বিশদ

09:35:40 AM

 শিয়ালদহ-ভুবনেশ্বর স্পেশাল ট্রেন এখন সপ্তাহে ২ দিন
আগামী ১৩ জুলাই থেকে শিয়ালদহ-ভুবনেশ্বর স্পেশাল ট্রেন সপ্তাহে তিনদিনের বদলে ...বিশদ

09:20:11 AM

কন্টেইনমেন্ট জোনে হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ 
কন্টেইনমেন্ট জোনে বিভিন্ন আবাসন, বাড়ি কিংবা পাড়ার বাসিন্দাদের নিয়ে হোয়াটসঅ্যাপ ...বিশদ

09:00:19 AM

ফের রেকর্ড আমেরিকায়, একদিনে আক্রান্ত ৬৫ হাজারেরও বেশি
করোনা আক্রান্ত নিয়ে ফের রেকর্ড আমেরিকায়। গত ২৪ ঘণ্টায় মার্কিন ...বিশদ

08:55:18 AM

আজ আইসিএসই, আইএসসির ফল
 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আজ, শুক্রবার দুপুর ৩টেয় প্রকাশিত হতে চলেছে ...বিশদ

08:43:37 AM