Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

আর ঘৃণা নিতে পারছে না বাঙালি
হারাধন চৌধুরী

জয়বাংলার লোক/ মোটা মোটা চোখ/ আতপ চালের ভাত খেয়ে/ ক্যাম্পের মধ্যে ঢোক।
এটাই বোধহয় আমার শোনা প্রথম কোনও ছড়া। আজও ভুলতে পারিনি। শ্রবণ। দর্শন। স্পর্শ। প্রথম অনেক জিনিসই ভোলা যায় না। জীবনের উপান্তে পৌঁছেও সেসব অনুভবে জেগে থাকে অনেকের। কোনোটা বয়ে বেড়ায় সুখানুভূতি, কোনোটা বেদনা। এই ছড়াটি আমার জীবনে তেমনই একটি। যখন প্রথম শুনেছি তখন নিতান্তই শিশু। তবু রয়ে গিয়েছে। শৈশবস্মৃতির শিকড় এতটাই গভীর কখনও। আজ বুঝতে পারি, কারণ, এই ছড়া আমার শুধু শ্রবণযন্ত্রকে অধিকার করেনি, দর্শনেন্দ্রিয়, এমনকী ত্বক রক্ত মাংস অস্থি ভেদ করে হৃদয়কে আন্দোলিত করেছে দীর্ঘকাল। এখনও করছে। পঞ্চাশ পেরনো অনেকেইর চেনা হয়তো ছড়াটি। সূচনার ‌‘জয়বাংলা’ শব্দবন্ধটি অবশ্যই গৌরবসূচক। কিন্তু, ছড়াটি কোনোভাবে মর্যাদাসূচক হয়ে ওঠেনি। বরং বাংলার একটি অংশের মানুষের প্রতি অবজ্ঞা তাচ্ছিল্য, এমনকী ঘৃণাই প্রকট হয়ে উঠেছে এই ছড়ার পরবর্তী শব্দগুলি চয়নের ভিতর দিয়ে।
‘জয়বাঙলা’ শব্দবন্ধটি, কাজী নজরুল ইসলাম প্রথম (১৯২২) ব্যবহার করেছিলেন। পূর্ববঙ্গে মাদারিপুরের ব্রিটিশ-বিরোধী আন্দোলনের নেতা পূর্ণ চন্দ্রের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে কবি একটি প্রশস্তি লেখেন। তাতেই শব্দটির প্রথম উল্লেখ পাওয়া যায়। পরে এটাই হয়ে উঠেছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতার ‘মন্ত্র’। এই মন্ত্রশক্তির বলেই মুক্তিযোদ্ধারা সমস্ত ভয় তুচ্ছ করতে পেরেছিলেন, পরাস্ত করেছিলেন পাকিস্তানের জল্লাদ বাহিনীকে, জিন্না সাহেবের সাধের পূর্ব পাকিস্তান ২৪ বছরের ভিতরে ‘স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ’ রাষ্ট্রে রূপান্তরিত হয়েছিল। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় ‘জয়বাংলা’ নামে একটি সাপ্তাহিক কাগজও বেরত। ‘মুজিবনগর’ (কলকাতায়) থেকে। ছিল প্রবাসী বাংলাদেশ সরকারের মুখপত্র। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ‘স্বাধীনতার ঘোষণা’টি এই কাগজের প্রথম সংখ্যায় ছাপা হয়। পাকপন্থীরা অবশ্য ‘জয়বাংলা’ স্লোগানটিকে বাঙালির হৃদয় থেকে মুছে ফেলতে চায়। অন্যদিকে, স্বাধীনতা অক্ষুণ্ণ রাখার পক্ষের বাংলাদেশিরা চান ‘জয়বাংলা’কেই সে-দেশের ‘রাষ্ট্রীয় স্লোগান’-এর স্বীকৃতি দেওয়া হোক।
মনে পড়ছে, একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে এবং তারপর দীর্ঘ কয়েক বছর এপার বাংলায় পূর্ববঙ্গের শরণার্থীর ঢল নেমেছিল। দুই বাংলার সীমান্তে হেন জায়গা পাওয়া দুষ্কর ছিল যেখান দিয়ে পূর্ববাংলার মানুষ এপারে প্রবেশ করেনি—নদী খাল বিল, খেত-খামার, জঙ্গল কোনও কিছুকেই বাধা মানেনি তারা। উপায়ও ছিল না। কোনোরকমে প্রাণটাকে বাঁচাতে হবে। এই ছিল সবার লক্ষ্য, মোক্ষ। তাদের বেশিরভাগই চলে এসেছিল বস্তুত একবস্ত্রে, খালি পেটে আর একটি করে ভাঙা বুক নিয়ে। অবশ্য সবার সেই সৌভাগ্যও হয়নি। সীমান্ত পেরনোর আগেই খান সেনাদের নজরে পড়েছিল যারা, তাদের হয় কচুকাটা করেছিল, নয়তো এলোপাতাড়ি গুলিতে ঝাঁজরা করে দিয়েছিল। দুধের শিশু থেকে নিরীহ নারী, অশক্ত বৃদ্ধবৃদ্ধা কারও জন্য তাদের এতটুকু মায়া মহব্বত ছিল না। নাবালিকা থেকে অন্তঃসত্ত্বা, এমনকী প্রৌঢ়া, বৃদ্ধাদেরও ইজ্জত লুটেছিল সেই বেজম্মার দল। বামপন্থীদের কল্যাণে ‘সর্বহারা’ কথাটির সঙ্গে আমরা বেশ পরিচিত। এতক্ষণ যে বাঙালি শরণার্থীদের কথা বলা হল, সর্বহারার সর্বোচ্চ দৃষ্টান্ত তো তারাই।
প্রথম দিকে তাদের কারও কারও অস্বাস্থ্যকর শরণার্থী ক্যাম্পগুলিতে জায়গা হয়েছে, আবার কারও হয়নি। তারা রাস্তা রেললাইন খাল নদী প্রভৃতির ধারে খোলা আকাশের নীচে, অথবা কোনোরকমে খাড়া করা ছাউনিগুলিতে ছিল। তার ভিতরেই শীত বর্ষাও কেটেছে মানুষগুলির। তাদের কাছে টাকাকড়ি বলতে কিছু নেই। সরকারি দানখয়রাতিই এক ও একমাত্র ভরসা। কিছুদিন রান্না খাবার, পাউরুটি, ছাতু, গুঁড়ো দুধ, জরুরি কিছু ওষুধ প্রভৃতি দেওয়া হয়েছে। তারপর রেশন মারফত দেওয়া হতো চাল। চাল বলতে আতপ চাল। এসব মিলিয়েই শরণার্থীদের হিউমিলিয়েট করার জন্য ‘জয়বাংলার লোক ...’ ছড়াকাটা হতো। ‘দিন আসবে’ ধরে নিয়ে হতভাগ্যরা কিছুই বলত না।
এই মানুষগুলি এমনভাবে থাকতে বাধ্য হতো যে তাদের মধ্যে পেটের ও ত্বকের নানা ধরনের অসুখ সংক্রামক হয়ে উঠেছিল। আর ব্যাপক আকারে ছড়িয়ে পড়েছিল চোখের চেনা অসুখ কনজাংটিভাইটিস। অস্বীকার করার উপায় নেই, কনজাংটিভাইটিস ওইসময় গণহারে ছড়িয়েছিল। অতএব, এই অসুখটির জন্য কেউ কেউ শরণার্থীদেরই দায়ী করল। শুধু দায় চাপাল না, অসুখটার নামও দিয়ে দিল ‘জয়বাংলা’! প্রকোপ অনেক কমে এলেও অসুখটা এখনও বিরল নয়। অবাক ব্যাপার, এখনও অনেক শিক্ষিত মানুষকেও বলতে শুনি—ওর ‘জয়বাংলা’ হয়েছে! সোজা কথায় পূর্ববঙ্গ থেকে আসা উদ্বাস্তু বা শরণার্থীদের সম্পর্কে ঘৃণা দেশভাগের ৭২ বছর পরেও দূর হয়নি।
আজ মানবেতর জীবনের সংজ্ঞা খুঁজতে গেলে প্রথমেই একাত্তরের সেই জীবন্মৃত মানুষগুলির ছবি সারি দিয়ে আমার সামনে এসে দাঁড়িয়ে পড়ে। গৃহযুদ্ধে বিধ্বস্ত আফ্রিকার কিছু দেশ, সিরিয়া, প্যালেস্তাইন, আফগানিস্তান, কিংবা মার্কিনহানায় বিপর্যস্ত ভিয়েতনামের যেসব ছবি পরবর্তীকালে দেখেছি তাকে বাঙালির সেই দুর্দশার পাশে ন্যূন মনে হয়।
এই মানুষগুলির আদি পরিচয় কী? তারা ভারতসন্তান। ছোটবেলায় ইতিহাসে পড়েছি, ভারতকে অত্যাচারী ব্রিটিশের শাসনমুক্ত করার কাজে অগ্রণী ভূমিকা নিয়েছিল মূলত তিনটি প্রদেশ—বাংলা, পাঞ্জাব ও মহারাষ্ট্র। পূর্ববঙ্গ কোনোভাবেই তার বাইরে ছিল না। পূর্ববঙ্গের মানুষজন সমান লড়েছিল। তবেই ভারত স্বাধীন হয়েছিল। কিন্তু সেই ‘স্বাধীনতা’ যে তাদের একাংশের জীবনে চরম অভিশাপের নামান্তর হয়ে উঠবে, তা তারা দুঃস্বপ্নেও ভাবেনি। আমরা জানি, সেই অভিশাপের নাম দেশভাগ। হতভাগ্য মানুষগুলি এজন্য সেকালের হাতে গোনা কিছু ন্যাশনাল লিডারকেই দায়ী করে, যাঁদের ক্ষমতার লোভ দেশভাগ অবশ্যম্ভাবী করে তুলেছিল। সাবেক বাংলা প্রদেশ দু’ভাগেই অবশ্য ক্ষান্ত হয়নি। বাংলার বেশিরভাগটা এসেছিল পশ্চিমবঙ্গে। (যদিও হিন্দুপ্রধান সাবেক খুলনা ও যশোহর জেলা পাকিস্তান কেন পেয়েছিল, সদুত্তর মেলনি।) আর কিছুটা গিয়েছে উত্তর-পূর্ব ভারতে। বরাক উপত্যাকার বিস্তীর্ণ অঞ্চল যুক্ত হয়েছে আজকের অসম প্রদেশের সঙ্গে আর কিছুটা নিয়ে গঠিত হয়েছে ত্রিপুরা রাজ্য। ভারতের মানচিত্র নিয়ে স্যার শেরিল র‌্যাডক্লিফের কাটাকুটির খেলা এখানেই শেষ হয়নি, দুই বাংলা আর অসমের মধ্যে তিনি দেড়শোর বেশি ছিটমহলেরও জন্ম দিয়ে গিয়েছেন। যে-যন্ত্রণা এই সেদিন অবধি বয়ে বেড়াতে হয়েছে সংশ্লিষ্ট অঞ্চলের হাজার হাজার মানুষকে।
তাহলে বলুন, এই মানুষগুলির নিজের দোষটা কোথায়? যাদের বসবাসের পুরনো অঞ্চল অসমের অন্তর্ভুক্ত করা হল তাদের কেন অসমে ‘বহিরাগত’ দেগে দেওয়া হবে? কেন কিছু মানুষকে সাত দশকের বেশিকাল ছিটমহলের জাঁতাকলে পেষাই করা হল? নেতাদের উচ্চাকাঙ্ক্ষা পূরণের কারণে কিছু মানুষকে পাকিস্তানে ফেলে রাখা হল। সেখানে একাধিক বার দাঙ্গার শিকার হল তারা। এইভাবে আড়াই দশক কাটার আগেই, একাত্তরে যুদ্ধের বলি হল তারা।
এখন জাতীয় নাগরিক পঞ্জির (এনআরসি) নতুন ধুয়ো তোলা হচ্ছে। সেখানে বাঙালিকে ফের প্রমাণ করতে হবে যে সে ‘ভারতীয়’! মানেটা কী? এই জাতিটার কি আর কোনও কাজ নেই। একটা করে ধাক্কা কাটিয়ে উঠতে-না-উঠতেই তাকে আরেকটা নতুন ধাক্কা গ্রহণের জন্য তৈরি হতে হবে! কেন? কেন? কেন? এবং, আর কত বার, আর কত কাল চলবে এই পিং পং খেলা?
এখন শঙ্কিত স্বয়ং হেমন্ত বিশ্বশর্মা, মানে উত্তর-পূর্ব ভারতে বিজেপির প্রধান মুখ তথা অসমের অর্থমন্ত্রী। চতুর্দিকে বিজেপির মুখ পুড়ছে বলেই না? বিশেষত অসমের চূড়ান্ত এনআরসি তালিকায় ১২ লক্ষাধিক হিন্দুর নাম বাদ পড়েছে। তিনি পরিষ্কার বুঝে গিয়েছেন, এই বার্তা ক্রমে রটে গেলে তাঁদের ঘৃণার রাজনীতি ফিনিশ হওয়া শুধু সময়ের অপেক্ষা। ২০ নভেম্বর হেমন্তবাবুই দাবি করেছেন, অসমের চূড়ান্ত নাগরিকপঞ্জি বাতিল করা উচিত। তবে শুধু অসমের জন্য নয়, সারা ভারতের জন্য নতুন করে এনআরসি প্রস্তুত করা উচিত, যার একটি নির্দিষ্ট কাট অফ ডেট (অসমের জন্য ২৪ মার্চ, ১৯৭১ দিনটি ধার্য করা হয়) থাকা প্রয়োজন বলেও তিনি মনে করেন। হেমন্তবাবু মনে করছেন, অসমে এনআরসি তালিকা তৈরিতে অনেক গলদ আছে। ২৮ নভেম্বর তিনি বলেন, এনআরসিতে নাম অন্তর্ভুক্তির জন্য যেসব হিন্দু বাঙালি আবেদন করেছিলেন তাঁদের জেলাভিত্তিক নাম প্রকাশ্যে আনা হবে।
তা, কী লভ্যটা হবে মশায়? ক্ষমতার কারবারিদের আরেক দফা চাপান-উতোর ছাড়া কী মিলবে? এখন কথা হল, বাঙালি কেন এত ভুগবে? এই দুর্ভোগের অগ্রে বাঙালির নামটিই রাখছি, কারণটি সোজা—এদেশের আর কোনও জাতিকে এই দুর্ভোগ পোহাতে হবে না—অমিত শাহের হুঙ্কার মতো সারা দেশে এনআরসি হলেও না। বাঙালি ছাড়া আর কাউকেই যাযাবর বা নিজভূমে পরবাসী বানায়নি এদেশের ঘৃণ্য রাজনীতি, পাঞ্জাবিদের কথা মাথায় রেখেই বলছি। এনআরসির পরীক্ষায় পাশ নম্বর পাওয়ার জন্য যেসব নথি রেডি রাখার ফতোয়া আসছে বলে শোনা যাচ্ছে, তা পশ্চিমবঙ্গের দু-চার কোটি বাঙালি জোগাড় করতে ব্যর্থ হবে। ১৯৭১-এর ২৪ মার্চের আগে ভারতে প্রবেশ করার সময় ক’জন বর্ডার স্লিপ নিতে পেরেছিল? নিয়ে থাকলেও ক’জন তা এতকাল গুছিয়ে রাখতে পেরেছে? ক’জন ওই কাগজের ভবিষ্যৎ গুরুত্ব বুঝেছিল? কোন জ্যোতিষ-গণনায় তারা টের পাবে যে, কোনও একদিন এক মহান সরকারের এনিয়ে বাই চাগাড় দিয়ে উঠবে?
শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাংলাদেশ তৈরি হয়। তিনি হিন্দুসহ সমস্ত ধর্মীয় সংখ্যালঘুকে আশ্বস্ত করেছিলেন যে নতুন দেশ হবে সবার, চলবে ধর্মনিরপেক্ষতার নীতিতে। আর যায় কোথায়! পাকিস্তানের দালাল বাহিনী তাঁকে ‘হিন্দু ভারতের হাতের পুতুল’ দেগে দিয়ে খুন করল ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট, ভারতের স্বাধীনতা দিবসে। তাঁর মৃত্যুর পরই বাংলাদেশের উপর ‘রাষ্ট্রধর্ম’ ইসলাম চাপিয়ে দেওয়া হল। ফলে, মুজিব-উত্তর বাংলাদেশ বহু হিন্দুর কাছে মোটেই নিরাপদ মনে হয়নি। সব ছেড়েছুড়ে কিংবা যাবতীয় সহায় সম্বল জলের দরে বেচে দিয়ে তারা এদেশে চলে এসেছে। বাংলাদেশের প্রগতিশীল সমাজ বার বার দাবি জানালেও বাংলাদেশকে ফিরিয়ে দেওয়া হয়নি বঙ্গবন্ধুর ঘোষিত সংবিধান। দীর্ঘদিন ক্ষমতাসীন থেকে তাঁর কন্যা শেখ হাসিনাও তা পারেননি। হাসিনার সরকার হিন্দুসহ সমস্ত সংখ্যালঘুর নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করার ব্যাপারে আন্তরিক বলে শুনতে পাই। তবু, কেন যেন এখনও সে-দেশের হিন্দুদের একটা বড় অংশের মন থেকে ভয় দূর হয়নি।
অন্যদিকে বলব সেইসব মানুষের কথা, যারা এই বাংলা কিংবা এই ভারতের বাইরে পৃথিবীর কিছু আছে বলে জানে না, শোনেওনি, তাদের কথা। তারা এই বঙ্গে, এই ভারতে নরেন্দ্র মোদি, অমিত শাহদের থেকেও বেশিকাল যাবৎ বসবাস করছে। হলফ করে বলা যায়, এমন বহু মানুষও এনআরসির প্রয়োজনীয় নথির জোগান দিতে পারবে না। যে-দেশের নানা অংশের মানুষ বংশপরম্পরায় ভূমিহীন গৃহহীন, ঝড়ঝঞ্ঝা বন্যা প্রভৃতি প্রাকৃতিক দুর্যোগ ফি বছর যাদের সঙ্গী, অশিক্ষার অভিশাপ এখনও যাদের আষ্টেপৃষ্ঠে রেখেছে, তারা জানে না জন্ম সার্টিফিকেট, মৃত্যুর সার্টিফিকেট বলে যে কিছু হয়, সেসব গুছিয়ে রাখতে হয়, কীভাবে রাখতে হয়। একবেলার চাল আটা জোগাড় করতেই যাদের কালঘাম ছোটে তাদের জমির দলিল আবার কী মশায়? চাকরির নথি কোত্থেকে জুটবে? সাত জম্মে কেউ স্কুল-পাঠশালায় গিয়েছে? অফিসে ঢোকার পারমিশন জুটবে কোত্থেকে হে? এই লোকগুলোর কী বন্দোবস্ত? ভারতে ভবঘুরে লোকের সংখ্যা কত, সরকার হিসেব দিতে পারবে? সারা পৃথিবীতে জিপসি-রোমানি যারা, শুনেছি তারা আদিতে ভারতীয়! তাদের উপর ইউরোপে একসময় খুব অত্যাচার হয়েছে, হিটলারের জমানা থেকে, এখনও হচ্ছে। তারা আজকের ভারতেও চলমান—ভদ্রজনেরা তাদের বানাজারা বলি। এনআরসি-ওয়ালারা এদের কথা মাথায় রেখেছেন তো?
ভারতভাগের খেলা থেকে এ পর্যন্ত অনেক দেখলাম আমরা। নেতাদের খামখেয়াল বন্ধ হওয়া দরকার। তাঁরা একটু মানবিক হোন। মানুষকে মানুষ ভাবতে শিখুন। তাহলেই দেখবেন এসব বদবুদ্ধি মাথা থেকে জাস্ট উবে যাবে। শুধু একটি মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রক খুলে ফেললেই দায় মিটে যায় না, দেশবাসীই যে যথার্থ মানবসম্পদ (হিউম্যান রিসোর্স)—এই শ্রদ্ধাটি থাকা জরুরি। দেশকে দ্রুত এবং সুন্দরভাবে সাজাতে হলে এই অমূল্য সম্পদের সদ্ব্যবহার করতেই হবে। মানুষকে অকারণ, বারংবার, ব্যতিব্যস্ত করার পরিণাম—অপূরণীয় ক্ষতিই আহ্বান করা।
05th  December, 2019
কুকথায় হাততালি জুটলেও
দূরে সরে যায় মানুষ 
তন্ময় মল্লিক

রুটি সেঁকার জন্য তাওয়া গরম করতে হয়। আবার সেই তাওয়া বেশি তেতে গেলে রুটি যায় পুড়ে। তখন খাবারের থালার বদলে রুটির জায়গা হয় ডাস্টবিনে। রাজনীতিতেও তেমনটাই। কর্মীদের চাঙ্গা করার জন্য নেতারা গরম গরম ভাষণ দেন। কিন্তু তা মাত্রা ছাড়ালে মানুষ মুখ ফিরিয়ে নেয়।  
বিশদ

বাংলার সমাজ ও
রাজনৈতিক সন্ধিক্ষণ
সমৃদ্ধ দত্ত

সেদিন বিকেলে তাঁকে ভেন্টিলেটরে নিয়ে যাওয়া হবে। কারণ, প্রবল শ্বাসকষ্ট। অক্সিজেন দিলেও কাজ হচ্ছে না তেমন। এইমস ডাক্তাররা বুঝলেন পরিস্থিতি ভালো নয়। অনেকদিন হয়ে গেল কোভিডে আক্রান্ত হয়েছিলেন।   বিশদ

18th  September, 2020
‘এক ভারত, শ্রেষ্ঠ ভারত’-এর
রূপকার নরেন্দ্র মোদি
যোগী আদিত্যনাথ

রাজা কালস্য কারণম্‌। মহাভারতের ‘শান্তিপর্ব’-এ যুধিষ্ঠিরকে উপদেশ দিতে গিয়ে পিতামহ ভীষ্ম এই কালজয়ী কথাটি বলেছিলেন। কথাটি পিতামহ নিজের লোকদের বলেছিলেন বলে মনে হতে পারে। কিন্তু এর ভিতরে এই ভারতের সবার জন্যই একটি জোরালো বার্তা তিনি রেখে গিয়েছেন।  বিশদ

17th  September, 2020
কাজ দাও, মুলতুবি রাখো
গ্রেট গেরুয়া সার্কাস
হারাধন চৌধুরী

দু’দশক যাবৎ ভারতীয় মিডিয়ায় সার্কাসের এলিজি বা শোকগাথা লেখা হচ্ছে। বেশিরভাগ লেখা ভারী হয়ে উঠছে জোকারদের জন্য সহমর্মিতায়। জোকারের জীবন কঠিন। কেউ শখ করে জোকার হয় না। কারও কারও জীবনখাতায় এই ভবিতব্যই লেখা থাকে।  বিশদ

17th  September, 2020
 কোনও প্রশ্ন নয়, নো কোয়েশ্চেনস!
সন্দীপন বিশ্বাস

 মোদি, অমিত শাহ তথা বিজেপি নেমে পড়েছে বিহার জয়ে। সেখানে অবশ্য নীতীশের হাত ধরে বিজেপিকে ভোট বৈতরণী পার হতে হবে। সেখানে রাজপুত ভোট আর ক্ষত্রিয় ভোট নিজেদের বাক্সে আনতে বিজেপিকে খেলতে হল দু’টি খেলা। একজনকে ডাইনি বানানো হল, অন্যজনকে দেবী বানানো হল।
বিশদ

16th  September, 2020
 সত্যিটা দেখলাম না... দেখানো হল না
শান্তনু দত্তগুপ্ত

এতকিছুর পরও আমেরিকার অর্থনীতি ধাক্কা খেল না। ট্রাম্প বুঝেছিলেন, ব্যবসাটা তিনি জানেন। করোনা ভাইরাসকে নয়। কাজেই শক্তিশালী অর্থনীতিকে বসিয়ে দেওয়ার মানে হয় না। করোনা আজ না হয় কাল কমবে। অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াতে বছর লেগে যাবে। বিশদ

15th  September, 2020
ফেসবুক দিয়ে ঘৃণা-বিদ্বেষ
ছড়ালে কার লাভ হয়?

২০১৯। সাধারণ নির্বাচনের আগে একটি কাগজের হেডলাইন ছিল ‘গুগল কি ভারতীয় নির্বাচনকে প্রভাবিত করছে?’ খবরটা বেরনোমাত্রই ‘গুগল’ অস্বীকার করেছিল। কিন্তু অন্যকিছু সংস্থা টের পায়, গুগলে যেভাবে প্রার্থীদের সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয়েছে সেই তথ্য একটু সংশ্লেষণ করলে দ্বিধান্বিত ভোটারদের সহজেই প্রভাবিত করা সম্ভব।
বিশদ

15th  September, 2020
দমনমূলক ফেডারালিজম চলছে
পি চিদম্বরম

এটা পরিষ্কার যে মোদি সরকার এবার তার বিপুল গরিষ্ঠতাকে ব্যবহার করবে। রাজ্যগুলির মতামতের কোনও তোয়াক্কা করবে না। ইচ্ছেমতো সংশোধনী পাশ করিয়ে নেবে। ফেডারালজিমকে আরেকটি ধাক্কা দেবে। ‘এক জাতি, এক সবকিছু’ পরিণামে ‘এক জাতি’কে ধ্বংস করে ছাড়বে।
বিশদ

14th  September, 2020
নতুন জাতীয় শিক্ষানীতিতে
স্কুলশিক্ষার সর্বনাশ হবে
প্রদীপকুমার দত্ত

 সরকারি স্কুলগুলির পরিকাঠামো উন্নত করে শিক্ষাকে সব মানুষের নাগালের মধ্যে নিয়ে আসার জন্য যে অর্থের প্রয়োজন তা বরাদ্দের কোনও সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা এই শিক্ষানীতিতে নেই। বরং এই শিক্ষানীতি শিক্ষার বেসরকারিকরণের পথকেই প্রশস্ত করবে। শিক্ষা ক্ষেত্রে ধনী-দরিদ্র বৈষম্য আরও বাড়বে।
বিশদ

14th  September, 2020
সন্তোষকুমার ঘোষ: অসাধারণ ব্যক্তিত্ব, প্রচণ্ড
ক্ষমতাবান সাহিত্যিক ও যুগান্তকারী সাংবাদিক
বরুণ সেনগুপ্ত

খবরের কাগজ সাধারণ মানুষের জন্য। তাই সাধারণ মানুষ যেসব খবরে আগ্রহী সেইগুলিই বেশি করে লেখা উচিত। অথবা যেমন, খবরের কাগজে যা লেখার তা সোজাসুজি লেখা উচিত। ‘এটাও হয় ওটাও হয়’ গোছের ব্যাপার নয়। এই জিনিসগুলি হাতেকলমে শিখেছি সন্তোষকুমার ঘোষের কাছে।
বিশদ

13th  September, 2020
সিবিআইয়ের বন্দিদশা কাটবে কবে?
হিমাংশু সিংহ

 সুশান্তের মৃত্যু হয় ১৪ জুন। আর আজ ১৩ সেপ্টেম্বর। তাঁর আকস্মিক চলে যাওয়ার পর ঠিক তিন মাস অতিক্রান্ত। প্রতিভাবান অভিনেতার মৃত্যু রহস্যের তদন্তে কোথাকার জল কোথায় গিয়ে দাঁড়ায় তার তল খুঁজে পাচ্ছেন না তুখোড় সিবিআই গোয়েন্দারাও। কিংবা বলা ভালো, সত্যি তল খোঁজার চেষ্টা হচ্ছে কি?
বিশদ

13th  September, 2020
কঠোর আইন অপেক্ষা জরুরি
সন্তানের মূল্যবোধ তৈরি
তন্ময় মল্লিক

বাবা, মায়ের সুরক্ষার জন্য সরকারকে আনতে হচ্ছে আরও কঠোর বিল। যে কাজ করে সন্তানের ধন্য হওয়ার কথা, তা পালনের জন্য দেখাতে হচ্ছে জেলের ঘানি টানার ভয়। এ বড়ই দুর্ভাগ্য। লজ্জাও বোধহয় এদের দেখে লজ্জায় মুখ লুকায়!
বিশদ

12th  September, 2020
একনজরে
উত্তরপ্রদেশে ফের নাবালিকাকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠল এক যুবকের বিরুদ্ধে। গত শনিবার ঘটনাটি ঘটে বান্দা জেলায়। কিন্তু শুক্রবার ওই কিশোরীর মা স্থানীয় থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।   ...

নয়াদিল্লি: শ্রীলঙ্কার লাসিথ মালিঙ্গা ব্যক্তিগত কারণে নিজেকে আইপিএল থেকে সরিয়ে নিয়েছেন। যার অভাব অনুভূত হবে বলে ইতিমধ্যেই মন্তব্য করেছেন মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের অধিনায়ক রোহিত শর্মা। বিশেষজ্ঞদেরও ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: করোনা পরিস্থিতির জন্য এমবিবিএস, বিডিএস, আয়ুষ, নার্সিং সহ বিভিন্ন চিকিৎসা পাঠ্যক্রমের বহু ছাত্রছাত্রীর পরবর্তী বছরে প্রোমোশন হয়নি। মার্কশিটও পাননি। ফলে বৃত্তিও আটকে গিয়েছে।   ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: মেডিক্যাল পরীক্ষা এবং পুলিস ভেরিফিকেশন না হওয়ায় বহু শিক্ষকের চাকরি পাকা হয়নি। অথচ চাকরি পাওয়ার পর কেটে গিয়েছে দু’বছর। নিয়ম অনুযায়ী, দু’বছর পর চাকরি পাকা হবে। কিন্তু তার জন্য পুলিস ও মেডিক্যাল রিপোর্ট ইতিবাচক হতে হবে।  ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কথাবার্তা ও আচরণে সংযমের অভাবে বিপত্তির আশঙ্কা। কোনও হঠকারী বা দুঃসাহসিক কাজ না করাই ভালো। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯১৯- অভিনেতা জহর রায়ের জন্ম
১৯২১- সাহিত্যিক বিমল করের জন্ম
১৯২৪- গায়িকা সুচিত্রা মিত্রের জন্ম
১৯৬৫- মহাকাশচারী সুনীতা উইলিয়ামসের জন্ম  



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭২.৮৯ টাকা ৭৪.৬০ টাকা
পাউন্ড ৯৩.৫৫ টাকা ৯৬.৯১ টাকা
ইউরো ৮৫.১০ টাকা ৮৮.২১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৫২,২৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৯,৬০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৫০,৩৪০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬৬,২৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬৬,৩৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৩ আশ্বিন ১৪২৭, শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, দ্বিতীয়া ৯/১৬ দিবা ৯/১১। চিত্রা নক্ষত্র ৪৯/৪১ রাত্রি ১/২১। সূর্যোদয় ৫/২৮/২, সূর্যাস্ত ৫/৩২/৫৪। অমৃতযোগ দিবা ৬/১৫ মধ্যে পুনঃ ৭/৪ গতে ৯/২৯ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৫ গতে ৩/৯ মধ্যে পুনঃ ৩/৫৮ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ১২/৪২ গতে ২/১৭ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ রাত্রি ২/১৭ গতে ৩/৫ মধ্যে। বারবেলা ৬/৫৮ মধ্যে পুনঃ ১/১ গতে ২/৩১ মধ্যে পুনঃ ৪/২ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ৭/৩ মধ্যে পুনঃ ৩/৫৮ গতে উদয়াবধি।  
২ আশ্বিন ১৪২৭, শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, দ্বিতীয়া দিবা ১২/২৯। হস্তানক্ষত্র দিবা ৭/৫৬। সূর্যোদয় ৫/২৭, সূর্যাস্ত ৫/৩৫। অমৃতযোগ দিবা ৬/২০ মধ্যে ও ৭/৭ গতে ৯/২৯ মধ্যে ও ১১/৪৮ গতে ২/৫৫ মধ্যে ও ৩/৪২ গতে ৫/৩৫ মধ্যে এবং রাত্রি ১২/৩৮ গতে ২/১৭ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ রাত্রি ২/১৭ গতে ৩/৬ মধ্যে। কালবেলা ৬/৫৮ মধ্যে ও ১/২ গতে ২/৩৩ মধ্যে ও ৪/৪ গতে ৫/৩৫ মধ্যে। কালরাত্রি ৭/৪ মধ্যে ও ৩/৫৮ গতে ৫/২৮ মধ্যে।  
মোসলেম: ১ শফর। 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
রাজ্যে করোনায় আক্রান্ত আরও ৩,১৯২ জন 
রাজ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩,১৯২ জনের শরীরে মিলল করোনা ...বিশদ

18-09-2020 - 08:42:07 PM

ফের গুগল প্লে স্টোরে মিলবে পেটিএম অ্যাপ 
ফের গুগল প্লে স্টোরে মিলবে দেশের অন্যতম জনপ্রিয় ই-ওয়ালেট অ্যাপ ...বিশদ

18-09-2020 - 07:40:01 PM

পঞ্চায়েত অফিসের কাছেই
দোকানে মিলল ঝুলন্ত দেহ 

সংবাদদাতা, পুরাতন মালদহ: পঞ্চায়েত অফিসের কাছেই, একটি দোকানের সামনের অংশে ...বিশদ

18-09-2020 - 05:50:00 PM

মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের জেরে মৃত্যু শর্বরী দত্তর
মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের জেরে মৃত্যু হয়েছে শর্বরী দত্তর। ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্টে ...বিশদ

18-09-2020 - 05:41:00 PM

বনগাঁয় ধৃত ৩ বাইক চোর 
বাইক চুরির চক্রের সঙ্গে জড়িত তিনজনকে গ্রেপ্তার করল পুলিস। ধৃতদের ...বিশদ

18-09-2020 - 04:41:27 PM

হাবড়ায় জোড়া খুনের ঘটনায় ধৃত অভিযুক্ত 
হাবড়ায় প্রৌঢ় দম্পতি খুনের ঘটনার ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে কিনারা করল ...বিশদ

18-09-2020 - 04:16:42 PM