Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

সিঁদুরে মেঘ ঝাড়খণ্ডেও
শান্তনু দত্তগুপ্ত

ভারতের গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে একটা কথা বেশ প্রচলিত... এদেশের ভোটাররা সাধারণত পছন্দের প্রার্থীকে নয়, অপছন্দের প্রার্থীর বিরুদ্ধে ভোট দিয়ে থাকেন। ২০১৪ সালে যখন নরেন্দ্র মোদিকে নির্বাচনী মুখ করে বিজেপি আসরে নামল, সেটা একটা বড়সড় চমক ছিল। কারণ, গোধরা কাণ্ডের অতীত, দলের নরমপন্থী গোষ্ঠীর (প্রভাবশালী তো বটেই) বিপরীত মেরু এবং অবশ্যই একচ্ছত্র আধিপত্যে বিশ্বাসী এক রাজনীতিক। তাঁর ইতিবাচক দিক কী ছিল? অসম্ভব ভালো কথা বলতে পারেন, দারুণ প্রশাসক এবং গুজরাতের উন্নয়নে তাঁর প্রশংসনীয় ভূমিকা। এদেশের ভোটার এমন প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী কোনওদিন দেখেনি। গোটা ভারত প্রায় ঘুরেছিলেন তিনি, প্রচার করেছিলেন। বিজেপির এক একজন প্রার্থীর হয়ে। এভাবেই কি তিনি পছন্দের প্রার্থী হয়ে গিয়েছিলেন? নাঃ। ব্যাপারটা অতটা সহজ নয়। একের পর এক দুর্নীতির আগুনে পুড়ে তখন দ্বিতীয় ইউপিএ সরকার ছাই হতে বসেছে। শরিকদের বায়নার চাপ এবং আর্থিক কেলেঙ্কারি... এই সরকার আগে কত ভালো ভালো কাজ করেছে, সেটাই মানুষ ভুলতে বসেছিল। হয়তো পরিবারতন্ত্র থেকে একটু ছুটি চাইছিল ভারত। তাই মোদির পক্ষে কেবল নয়, কংগ্রেসের বিপক্ষেও বিলক্ষণ ভোট পড়েছিল। সেই প্রবণতা চলতি বছরের লোকসভা ভোটেও দেখা গিয়েছে। কেন? মোদির প্রতিপক্ষ হিসেবে রাহুল গান্ধীকে ভারতীয় ভোটাররা খুব একটা পছন্দ করেননি। তাই মোদির পক্ষে ভোট তো পড়েইছে, রাহুল গান্ধীর বিপক্ষেও গিয়েছে বিপুল একটা অংশ। তারপর ছ’মাস অতিক্রান্ত।
পসন্দ-না পসন্দের থিওরিটা যদি ১০০ শতাংশ কার্যকর বলে ধরি, তাহলে এখন খুব পরিষ্কার ছবিটা হল, হাওয়া ঘুরছে। লোকসভা ভোটে অর্থাৎ দেশ চালানোর জন্য নরেন্দ্র মোদির বিকল্প নেই ঠিকই, রাজ্য চালানোর জন্য তো আছে! তাই মধ্যপ্রদেশ-রাজস্থান-ছত্তিশগড় যদি সিনেমার ট্রেলার হয়, তাহলে হরিয়ানা-মহারাষ্ট্রের ফল থেকে পূর্ণাঙ্গ ছবিটা শুরু হয়ে গিয়েছে। বিজেপির ঝুলিতে এখনও ভোট আসছে। কিন্তু প্রতিপক্ষকে ‘পছন্দ না হওয়া’ জনমতের যে সমর্থনটা তারা গত পাঁচ বছর ধরে পেয়ে এসেছিল, তাতে ভাটা পড়েছে। এবং তার হাতে-গরম প্রমাণ অবশ্যই পশ্চিমবঙ্গের তিন কেন্দ্রে উপনির্বাচন। লোকসভা নির্বাচনে ১৮টি আসন জয়ের পর বিজেপি মনে করেছিল, গোটা রাজ্যটাই তাদের দখলে। ফল যে এভাবে ঘুরে যাবে, ভোটের সময়ও এতটা আন্দাজ করা যায়নি। বিজেপি কিন্তু মনে করেছিল, কিছু না থাকতেই যদি এই ফল হয়, তাহলে তো বাংলার মানুষ আমাদেরই পাশে! যা হল না। বিষয়টা একেবারে পরিষ্কার, বিজেপির বোঝা উচিত, বাংলায় এখনও মমতার বিকল্প মমতাই। বরং যে রাজ্যগুলিতে বিজেপি গত কয়েক বছর ধরে ফুলেফেঁপে উঠেছিল, সেদিকে আরও বেশি করে নজর দেওয়া উচিত। হরিয়ানার পর মহারাষ্ট্রেও মুখ পুড়েছে গেরুয়া শিবিরের। এতদিনের শরিক শিবসেনা সঙ্গ ছেড়েছে। শুধু বাল থ্যাকারের দলই নয়, রাজ্যে রাজ্যে শরিক সমস্যায় ভুগছে বিজেপি। এমনকী ঝাড়খণ্ডেও আসন রফা নিয়ে ঝামেলা হওয়ায় অল ঝাড়খণ্ড স্টুডেন্টস ইউনিয়ন (এজেএসইউ) এবার আর এনডিএতে নেই। তারা চেয়েছিল ১৮টি আসনে লড়তে। কিন্তু বিজেপি জানিয়েছিল, খুব বেশি হলে ১৩টি ছাড়া যাবে। আর তাতেই বেঁকে বসেছে এজেএসইউ। শনিবার থেকে শুরু হয়েছে পাঁচ দফার বিধানসভা ভোট। তারা কিন্তু আলাদাই লড়ছে। সাদা চোখে মারাত্মক কিছু মনে হচ্ছে না ঠিকই, এটা অবশ্যই বিজেপির কাছে বড় ধাক্কা। একটা সময় ধারণা করা হচ্ছিল, ঝাড়খণ্ড বিজেপি হাসতে হাসতে দখল করবে। এখন কিন্তু অঙ্কটা অতটাও আর সহজ নেই। একটি সমীক্ষক সংস্থা মতামত সংগ্রহ করার পর দাবি করছে, খুব বেশি হলে ৩৩টি আসন পাবে। আর ৮১ বিধানসভা কেন্দ্রের ঝাড়খণ্ডে ম্যাজিক ফিগার ৪১।
গত কয়েকটি বিধানসভা নির্বাচনের ধারা দেখলে সমীকরণটা খুব অস্বাভাবিক নয়। আঞ্চলিক দলগুলি উল্লেখযোগ্যভাবে ইদানীং নির্ণায়ক শক্তি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করছে। এবং ঝাড়খণ্ডেও বিজেপি-বিরোধী জোটের মধ্যে কংগ্রেস নয়, জনপ্রিয়তা বেড়েছে ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চার। চলতি ভোটে জেএমএমের হেমন্ত সোরেনই বিরোধী জোটে মুখ্যমন্ত্রী পদের দাবিদার। ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চার কিন্তু এখনও রাজ্যে একটা স্থায়ী ভোটব্যাঙ্ক রয়েছে। সরকারে না এলেও ওই ভোটে সাধারণত খুব একটা ঘাটতি হয় না। গত বিধানসভা ভোটেও যা ছিল ২০ শতাংশের মতো। এছাড়া ঝাড়খণ্ড বিকাশ মোর্চা বা জেভিএম কিছুটা ভোট টানে। এই জেভিএম গত ভোটে ছিল ইউপিএর সঙ্গে। এবার তারা আবার আলাদা লড়ছে। অর্থাৎ, বিজেপি যেমন এজেএসইউয়ের ভোটটা পাচ্ছে না, ঠিক তেমনই জেভিএমের সমর্থন কংগ্রেস জোটের সঙ্গে নেই। এই দুই দলই কিন্তু বড় দলগুলি থেকে কিছুটা ভোট কাটবে বলেই আশা করা যায়। সেক্ষেত্রে ত্রিশঙ্কু বিধানসভা হওয়ার সম্ভাবনাটাই প্রবল। এমন পরিস্থিতিতে ছোটখাটো দল এবং নির্দলের উপরই সরকার গঠনের ভাগ্য নির্ধারণ করবে। কম বিধানসভা আসনের ঝাড়খণ্ডে বিজেপির একটাই সুবিধা, ৩০-৩৫টা আসন পেলেও বাকিটা ম্যানেজ করা অসম্ভব নয়। যে সমস্যাটা তাদের মহারাষ্ট্রে হয়েছে। ম্যাজিক ফিগার ১৪৫, কিন্তু তাদের দখলে ছিল ১০৫টি আসন। ফারাক অনেকটা। তাই কোনও না কোনও আঞ্চলিক দলের উপর ভরসা করতেই হয়েছে বিজেপিকে। শিবসেনা তাদের উপর দাদাগিরি দেখিয়ে জোট ছেড়ে বেরিয়ে যেতে পেরেছে। এনসিপির অজিত পাওয়ার হঠাৎ ঘরশত্রু বিভীষণ হয়ে বেরিয়ে এসে সমর্থন জুগিয়েছেন। আবার তারপর বেচাল হয়ে গিয়েছে বুঝতে পেরে ঘরে ফিরে গিয়েছেন। ভোররাতে শপথের ব্যবস্থা করেও তাই মুখ পুড়েছে বিজেপির।
ঝাড়খণ্ডে তেমন কিছু হোক, বিজেপি তা একেবারেই চাইবে না। তারা অবশ্য আশাবাদী, রঘুবর দাসই বিনা ঝড়ঝাপ্টায় ভোট বৈতরণী পার করিয়ে দেবেন। তিনিই একমাত্র মুখ্যমন্ত্রী, যিনি পাঁচ বছর টানা ঝাড়খণ্ডে সরকার চালিয়েছেন। ২০০০ সালে পৃথক রাজ্য হওয়ার পর এই প্রথম। তাহলে ধরে নেওয়া যেতেই পারে, তার মধ্যে নিশ্চয়ই সেই ক্ষমতা আছে! কিন্তু তাঁর জমানায় কি ঝাড়খণ্ডের দারুণ উন্নতি হয়েছে? হয়তো হয়েছে, কিন্তু তা চোখে পড়ার মতো নয়। ঝাড়খণ্ড খনি সমৃদ্ধ। দেশকে ‘কাঁচামাল’ সরবরাহ করে এই রাজ্য। অথচ এখানকার অধিকাংশ মানুষেরই দারিদ্র্যসীমার নীচে বসবাস। এ অবশ্য নতুন কিছু নয়। বিশ্বের যে দেশ, যে প্রান্তই খনি সমৃদ্ধ, সেখানে এটাই অতি পরিচিত ছবি। শিক্ষার অভাব, হাতে কাঁচা টাকা এবং সেটাও যথেষ্ট নয়। রঘুবর দাস নিশ্চিতভাবে পাঁচ বছর সরকার টেনেছেন, কিন্তু এই ছবিটা বদলাতে পারেননি। খনি সমৃদ্ধ ঝাড়খণ্ডের বহু কেন্দ্রে বিজেপি প্রার্থীকে সেখানকার মানুষ শুধু ভোটের সময় দেখেছিল। পাঁচ বছরে যাঁদের আর হদিশ পাওয়া যায়নি। সেই ক্ষোভটা ভোটারদের মনে বিলক্ষণ রয়েছে। কাজেই যদি মারমার কাটকাট ফল করতে হয়, বিজেপিকে কিন্তু স্ট্র্যাটেজি বদলাতেই হবে। আর যদি মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থীকে দেখে ভোট হয়, রঘুবরের ঘাড়ের কাছে নিঃশ্বাস ফেলছেন হেমন্ত সোরেন। আর কালো ঘোড়া জেভিএমের বাবুলাল মারাণ্ডি। জেভিএমের প্রাপ্ত আসন যদি ১৫ টপকে যায়, তাহলে বাবুলাল অদূর ভবিষ্যতে ঝাড়খণ্ডের ‘উদ্ধব’ হতেই পারেন।
বিজেপি যেভাবে হোক এই রাজ্য ধরে রাখার চেষ্টা করবে, সে নিয়ে কোনও প্রশ্ন নেই। কিন্তু শরিক ধরে বা নির্দল ম্যানেজ করে জিতলেও কি নরেন্দ্র মোদির সেই সম্মান থাকবে? মনে রাখতে হবে, ঝাড়খণ্ডে ভোট পাঁচ দফায়। আর দিন যত যাচ্ছে, দেশের অর্থনীতির ফাঁপা চেহারাটা ততই প্রকাশ্যে আসছে। জিডিপি কমছে, উৎপাদন শিল্প ধাক্কা খাচ্ছে, কাজ হারাচ্ছে মানুষ। একে তো হাতে টাকা নেই, উল্টোদিকে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম আকাশছোঁয়া। এর প্রতিকার এখনও চোখে পড়ছে না। রামমন্দির ইস্যু দিয়ে আর নতুন করে বিজেপি ভোট করাতে পারবে না। সেটা অতীত হয়ে গিয়েছে। সবার অ্যাকাউন্টে ১৫ লক্ষ টাকা করে ঢুকে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি ফের দিলে লোকে মারতে আসবে। তার থেকে যদি প্রত্যেক নাগরিকের দু’বেলা দু’মুঠো খাওয়াটা সরকার নিশ্চিত করতে পারে, সেটাই হবে পরম প্রাপ্তি। ভারতবাসী কিন্তু খুব অল্পেই সন্তুষ্ট হয়। নরেন্দ্র মোদি ‘আচ্ছে দিনে’র স্বপ্ন দেখালে আমরা তাতেই অন্ধের মতো বিশ্বাস করি। এখনও ভারত মনে করে, মোদিই পারবেন। তাই এই বিপুল জনমতে তাঁর ফিরে আসা। কেন্দ্রের মসনদে। এই বিশ্বাসের মর্যাদা দেওয়াটা কিন্তু তাঁরই কর্তব্য।
ফল মিলবে ভোটযন্ত্রে। কারণ, ভারত হোক বা ঝাড়খণ্ড... বিজেপির মুখ যে তিনিই। 
03rd  December, 2019
আম আদমির বাজেট প্রত্যাশা
শান্তনু দত্তগুপ্ত

কর্পোরেট কর ২৫ শতাংশ, আর ব্যক্তিগত আয়কর ৩০ শতাংশ... এটা তো হতে পারে না! কাজেই আসন্ন বাজেটে ব্যক্তিগত আয়করের দিক থেকে সাধারণ চাকরিজীবীরা লাভবান হতে পারেন। তাও বিষয়টা সম্ভাবনা আকারেই আছে। তার কারণ, লোকসভা নির্বাচন সদ্য শেষ হয়েছে। আগামী চার বছর তো মোদি সরকার নিশ্চিন্ত! এখনই আয়করে বড় ছাড়ের মতো ঘোষণা করে দিলে ভোটের আগে কী হবে?এই প্রশ্ন আপাতত শনিবার পর্যন্ত সিন্দুকে তোলা থাক।
বিশদ

সবচেয়ে ভালোর জন্য আশা করে সবচেয়ে খারাপের জন্য প্রস্তুতি
পি চিদম্বরম

আর একটি বছর শুরু হল, আর একটি বাজেট পেশের অপেক্ষা, এবং এটি ভারতীয় অর্থনীতির আর একটি গুরুতর বছর। ২০১৬-১৭ সাল থেকে প্রতিটি বছর আমাদের জন্য অনেক বিস্ময় এবং ব্যথা নিয়ে এসেছে। ২০১৬-১৭ গিয়েছে সর্বনাশা নোটবন্দির বছর। ত্রুটিপূর্ণ জিএসটি এবং সেটা তড়িঘড়ি রূপায়ণের বছর গিয়েছে ২০১৭-১৮।  বিশদ

26th  January, 2020
সংবিধান ও গণতন্ত্রের ভিত দুর্বল হলে ভারতের আত্মাও বিপন্ন হতে বাধ্য
হিমাংশু সিংহ

১৫ আগস্ট যদি দেশের জন্মদিন হয়, তাহলে ২৬ জানুয়ারি হচ্ছে কোন মতাদর্শ ও আইন মেনে কীসের ভিত্তিতে দেশ পরিচালিত হবে, তার লিখিত বয়ান চূড়ান্ত করার বর্ণাঢ্য উদযাপনের শুভ মুহূর্ত। নবজাতক শিশু স্কুলে ভর্তি হলে একটা নির্দিষ্ট নিয়ম শৃঙ্খলা মেনে ধীরে ধীরে পরিণত হয়। 
বিশদ

26th  January, 2020
১৬০০ কোটি টাকায় কী হতে পারে?
মৃণালকান্তি দাস

শুধুমাত্র অসমে এনআরসি প্রক্রিয়া করতে গিয়েই সরকার খরচ করে ফেলেছে ১৬০০ কোটি টাকা! এত টাকা কীভাবে খরচ হল সেটা খতিয়ে দেখতে দাবি উঠেছে সিবিআই তদন্তের। শুধু তাই-ই নয়, এই এনআরসি করতে বিপুল আর্থিক দুর্নীতি হয়েছে, এই অভিযোগ তুলেছেন অসমের বিজেপি নেতা তথা অর্থমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা। সেই দুর্নীতির কথা ধরা পড়েছে ক্যাগের প্রতিবেদনেও। এনআরসির মুখ্য সমন্বয়কারী প্রতীক হাজেলাকে মধ্যপ্রদেশে বদলি করে দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। মুখ লুকোনোর জায়গা পাচ্ছে না বিজেপি।
বিশদ

25th  January, 2020
মুখ হয়ে ওঠার নিরন্তর প্রয়াস
তন্ময় মল্লিক

কথায় আছে, মুখ হচ্ছে মনের আয়না। আবার কেউ কেউ মনে করেন, সুন্দর মুখের জয় সর্বত্র। তাই অনেকেরই ধারণা, সাফল্য লাভের গুরুত্বপূর্ণ উপাদানই হল মুখ। রাজনীতিতেও সেই মুখের গুরুত্ব অপরিসীম। তবে রাজনীতিতে সৌন্দর্য অপেক্ষা অধিকতর প্রাধান্য পেয়ে থাকে মুখের কথা, ভাষাও।  
বিশদ

25th  January, 2020
নিরপেক্ষ রাজনৈতিক চেতনার অভাব
সমৃদ্ধ দত্ত

 আজকাল একটি বিশেষ শ্রেণীর কাছে দুটি শব্দ খুব অপছন্দের। সেকুলার এবং ইন্টেলেকচুয়াল। ওই লোকটিকে আমার পছন্দ নয়, কারণ লোকটি সেকুলার। ওই মানুষটি আসলে সুবিধাবাদী এবং খারাপ, কারণ তিনি ইন্টেলেকচুয়াল। সমাজের এই অংশের উচ্চকিত তর্জন গর্জন হাসি ঠাট্টা কটাক্ষ শুনলে মনে হবে, সেকুলার হওয়া বোধহয় সাংঘাতিক অপরাধ। বিশদ

24th  January, 2020
বাজেটের কোনও অঙ্কই মিলছে না, আসন্ন বাজেটে বৃদ্ধিতে গতি ফিরবে কীভাবে?
দেবনারায়ণ সরকার

বস্তুত, বর্তমান অর্থবর্ষে ভারতের অর্থনীতির চিত্র যথেষ্ট বিবর্ণ। সমৃদ্ধির হার ক্রমশ কমে ৫ শতাংশে নামার ইঙ্গিত, যা ১১ বছরে সর্বনিম্ন। মুদ্রাস্ফীতি গত ৩ বছরে সর্বাধিক। শিল্পে সমৃদ্ধির হার ৮ বছরে সর্বনিম্ন। পরিকাঠামো শিল্পে বৃদ্ধির হার ১৪ বছরে সর্বনিম্ন। বিদ্যুতের চাহিদা ১২ বছরে সর্বনিম্ন। বেসরকারি লগ্নি ১৬ বছরে সর্বনিম্ন। চাহিদা কমায় বাজারে ব্যাঙ্ক লগ্নি কমেছে, যা গত ৫৮ বছরে সর্বনিম্ন। রপ্তানিও যথেষ্ট ধাক্কা খাওয়ার ইঙ্গিত বর্তমান বছরে। এর উপর ভারতে বেকারত্বের হার গত ৪৫ বছরে সর্বনিম্ন।
বিশদ

24th  January, 2020
ক্ষমা করো সুভাষ
জয়ন্ত চৌধুরী

মুক্তিপথের অগ্রদূত তিনি। অখণ্ড ভারত সাধনার নিভৃত পথিক সুভাষচন্দ্রের বৈপ্লবিক অভিঘাত বাধ্য করেছিল দ্রুত ক্ষমতা হস্তান্তরের পটভূমি রচনা করতে। দেশি বিদেশি নিরপেক্ষ ঐতিহাসিকদের লেখনীতে আজাদ হিন্দের অসামান্য আত্মত্যাগ স্বীকৃত হয়েছে। সর্বাধিনায়কের হঠাৎ হারিয়ে যাবার বেদনা তাঁর জন্মদিনেই বড় বেশি স্পর্শ করে যায়।  
বিশদ

23rd  January, 2020
স্বামীজি, বিশ্বকবি ও নেতাজির খিচুড়ি-বিলাস
বিকাশ মুখোপাধ্যায়

মঙ্গলকাব্য থেকে কাহিনীটা এভাবে শুরু করা যেতে পারে।
সকাল সকাল ঘুম থেকে উঠেই মা দুর্গা নন্দিকে তলব করেছেন, যাও ডাব পেড়ে নিয়ে এসো।
নন্দির তখনও গতরাতের গাঁজার খোঁয়ার ভাঙেনি। কোনওরকমে জড়ানো স্বরে বলল, ‘এত্তো সকালে মা?’  বিশদ

23rd  January, 2020
‘যে আপনকে পর করে...’
শান্তনু দত্তগুপ্ত

মহাত্মা গান্ধী একটা কথা বলতেন, মনপ্রাণ দিয়ে দেশের সেবা যিনি করেন, তিনিই সত্যিকারের নাগরিক। নাগরিক কাহারে কয়? বা নাগরিক কয় প্রকার ও কী কী? এই জাতীয় প্রশ্ন এখন দেশে সবচেয়ে বেশি চর্চিত। সবাই নিজেকে প্রমাণে ব্যস্ত। ভালো নাগরিক হওয়ার চেষ্টাচরিত্র নয়, নাগরিক হতে পারলেই হল। তার জন্য কাগজ লাগবে। এক টুকরো কাগজ প্রমাণ করবে, আপনি আমি ভারতের বাসিন্দা।   বিশদ

21st  January, 2020
আইন ও বাস্তব
পি চিদম্বরম

আপনি যখন এই লেখা পড়ছেন তখন ইন্টারনেট, আন্দোলন, জনসমাবেশ, রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড, ভাষণ ও লেখালেখি এবং কাশ্মীর উপত্যকার পর্যটকদের উপর নিয়ন্ত্রণ জারি রয়েছে। কোনোরকম ‘চার্জ’ ছাড়াই রাজনৈতিক নেতাদের হেপাজতবাসও চলছে যথারীতি। সুতরাং প্রশ্ন উঠছে—আদালতের রায়ের পরেও বাস্তবে কিছু পরিবর্তন হয়েছে কি?
বিশদ

20th  January, 2020
নেতাজি—আঁধারপথে অনন্ত আলোর দীপ্তি
সন্দীপন বিশ্বাস

স্বাধীনতার পর অতিক্রান্ত বাহাত্তর বছর। কিন্তু আজও যেন তার নাবালকত্ব ঘুচল না। আসলে দেশের যাঁরা হাল ধরেন, তাঁরাই যদি নাবালকের মতো আচরণ করেন, তাহলে দেশও নাবালকই থেকে যায়। এই নাবালকত্ব আসলে এক ধরনের অযোগ্যতা। সেই অযোগ্যতার পথ ধরেই দেশ ডুবে আছে অসংখ্য সঙ্কটে। দুর্নীতিই হল সেই সঙ্কটের মধ্যমণি।  
বিশদ

20th  January, 2020
একনজরে
 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: শিল্প ও ব্যবসায় উৎসাহ দিতে সব ক্ষেত্রেই ৯২ শতাংশ ফায়ার লাইসেন্স ফি কমিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। ২০১৭ সালের এই ফি খুব বেড়ে গিয়েছিল বলে বেশ কয়েকজন শিল্পপতি ও বণিকসভার প্রতিনিধিরা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তাঁদের ...

গোয়ালিয়র, ২৭ জানুয়ারি (পিটিআই): মধ্যপ্রদেশের গোয়ালিয়র সেন্ট্রাল জেলে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করল এক বন্দি। নাম নরোত্তম রাওয়াত। গত ২৩ জানুয়ারি থেকে জেলে ছিল সে। রবিবার রাতে জেল চত্বরের একটি গাছ থেকে নরোত্তমের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়।  ...

বিএনএ, বহরমপুর: এবার প্রতিটি বিধানসভা কেন্দ্রে তিনজন করে পিওসি (পয়েন্ট অব কন্ট্রাক্ট) নিয়োগ করবে টিম পিকে। প্রতিটি জেলা থেকে বিধায়ক এবং ব্লক সভাপতিদের কাছ থেকে বিধানসভা কেন্দ্রভিত্তিক তিনজনের নাম চেয়ে পাঠানো হয়েছিল। সেইমতো জেলা থেকে নাম পাঠানো হয়েছে।   ...

সংবাদদাতা, কান্দি: সোমবার সকালে সালার থানার জলসূতি গ্রামে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। পুলিস জানিয়েছে, মৃতের নাম চঞ্চল দাস (৩৫)। তিনি ওই গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন। পুলিস একটি অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু করে দেহটি ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়।  ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

শিক্ষার জন্য দূরে কোথাও যেতে পারেন। প্রেম-প্রণয়ে নতুন যোগাযোগ হবে। বিবাহের কথাবার্তাও পাকা হতে পারে। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৫৫৬:দ্বিতীয় মোঘল সম্রাট হুমায়ুনের মৃত্যু
১৮৬৫: স্বাধীনতা সংগ্রামী পাঞ্জাব কেশরী লালা লাজপত রাইয়ের জন্ম
১৮৯৮: ভারতের মাটিতে পা রাখলেন ভগিনী নিবেদিতা
১৯২৫: বিজ্ঞানী রাজা রামান্নার জন্ম
১৯৩০: গায়ক যশরাজের জন্ম
১৯৩৭: গায়িকা সুমন কল্যাণপুরের জন্ম





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৬৪ টাকা ৭২.৩৪ টাকা
পাউন্ড ৯১.৭৩ টাকা ৯৫.০২ টাকা
ইউরো ৭৭.৩৫ টাকা ৮০.৩৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪১,৩২০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৯,২০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৯,৭৮০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৭,৪৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৭,৫৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১৩ মাঘ ১৪২৬, ২৮ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার, (মাঘ শুক্লপক্ষ) তৃতীয়া ৫/৩ দিবা ৮/২২। শতভিষা ৭/৩৪ দিবা ৯/২৩। সূ উ ৬/২১/২১, অ ৫/১৭/৩৫, অমৃতযোগ দিবা ৮/৩২ গতে ১০/৪৩ মধ্যে পুনঃ ১২/৫৪ গতে ২/২২ মধ্যে পুনঃ ৩/৫ গতে ৪/৩৩ মধ্যে। রাত্রি ৬/৯ মধ্যে পুনঃ ৮/৪৬ গতে ১১/২২ মধ্যে পুনঃ ২/০ গতে ৩/৪৪ মধ্যে। বারবেলা ৭/৪৩ গতে ৯/৫ মধ্যে পুনঃ ১/১২ গতে ২/৩৪ মধ্যে। কালরাত্রি ৬/৫৬ গতে ৮/৩৪ মধ্যে।
১৩ মাঘ ১৪২৬, ২৮ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার, তৃতীয়া ০/৪৫/৪৫ প্রাতঃ ৬/৪২/৩৩। শতভিষা ৪/৩৯/৩৪ দিবা ৮/১৬/৫। সূ উ ৬/২৪/১৫, অ ৫/১৬/২৮, অমৃতযোগ দিবা ৮/৩১ গতে ১০/৪৩ মধ্যে ও ও ১২/৫৬ গতে ২/২৫ মধ্যে ও ৩/৯ গতে ৪/৩৭ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/১৩ মধ্যে ও ৮/৪৯ গতে ১১/২৫ মধ্যে। কালবেলা ১/১১/৫৩ গতে ২/৩৩/২৫ মধ্যে। কালরাত্রি ৬/৫৪/৫৬ গতে ৮/৩৩/২৫ মধ্যে।
২ জমাদিয়স সানি

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
গিরিশ পার্ক এলাকায় ১১ মাসের শিশুকে অপহরণের অভিযোগ

27-01-2020 - 04:55:03 PM

আনন্দপুরে একটি বাড়িতে ঢুকে মহিলাকে বেঁধে লুটতরাজ দুষ্কৃতীদের, তদন্তে পুলিস 

27-01-2020 - 04:18:31 PM

৮৩ যাত্রী নিয়ে আফগানিস্তানের গজনিতে ভেঙে পড়ল বিমান

27-01-2020 - 04:15:59 PM

৪৫৮ পয়েন্ট পড়ল সেনসেক্স 

27-01-2020 - 04:11:36 PM

আলিপুরদুয়ারে খুনের ঘটনায় থানায় আত্মসমর্পণ অভিযুক্তের
আলিপুরদুয়ার শহরের অরবিন্দ নগর এলাকায় বাপি পন্ডিত (২৩) নামের যুবক ...বিশদ

27-01-2020 - 04:11:00 PM

৪৮৩ পয়েন্ট পড়ল সেনসেক্স 

27-01-2020 - 03:27:26 PM