Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

তিন বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচন: মিলবে লোকসভা-উত্তর রাজ্য-রাজনীতির মতিগতি
বিশ্বনাথ চক্রবর্তী

২০১৯ সালে লোকসভা নির্বাচনের পর রাজ্যে প্রথম তিনটি বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনের জন্য ভোটগ্রহণ আগামী ২৫ নভেম্বর,ফলাফল ২৮ নভেম্বর।  খড়্গপুর সদর করিমপুর এবং কালিয়াগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনের ফলাফল থেকে বিবাদমান রাজ্য-রাজনীতির একাধিক প্রশ্নের উত্তর মিলতে পারে। এই তিনটি আসনের মধ্যে খড়্গপুর সদর আসনটি ছিল বিজেপির, করিমপুর তৃণমূল কংগ্রেসের এবং কালিয়াগঞ্জ বাম-কংগ্রেস জোটের তরফ থেকে কংগ্রেসের।
গত লোকসভা নির্বাচনে রাজ্য-রাজনীতির গতিপ্রকৃতিতে বিরাট পরিবর্তন এসেছে। রাজ্য রাজনীতির আঙিনায় তৃণমূল, বাম ও কংগ্রেসের রাজনীতির বৃত্তে বিজেপি প্রবলভাবে নিজের উপস্থিতি জাহির করতে সক্ষম হয়েছিল। রাজ্যের ৪২টি লোকসভা কেন্দ্রের মধ্যে ১৮টি লোকসভা আসনে জয়ের পাশাপাশি শাসক তৃণমূলের সঙ্গে বিজেপির প্রাপ্ত ভোটের ফারাক ছিল মাত্র ৩ শতাংশ। রাজ্যের ২৩টি জেলার মধ্যে ১৩টি জেলায় বিজেপির প্রাপ্ত ভোট শাসক তৃণমূলের থেকে বেশি ছিল। লোকসভা নির্বাচনের নিরিখে ২৯৪টি বিধানসভা কেন্দ্রের মধ্যে বিজেপি একাই ১২১টি কেন্দ্রে এগিয়ে ছিল। অন্যদিকে, বিগত লোকসভা নির্বাচনে বামেরা ৭.৫ শতাংশ ভোট পেয়ে রাজ্য-রাজনীতিতে প্রান্তিক অবস্থায় পৌঁছায়। কংগ্রেস লোকসভায় ২টি আসন পেলেও প্রাপ্ত ভোট ৫.৫ শতাংশে নেমে আসে। পাশাপাশি উত্তর দিনাজপুর, মালদা, মুর্শিদাবাদে কংগ্রেস তৃতীয় শক্তিতে পরিণত হয়। এই অবস্থায় ২০১৬ বিধানসভা নির্বাচনের পর আবারও রাজ্যে বাম ও কংগ্রেস জোট গঠন করে এই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নেমেছে।
লোকসভা নির্বাচনের পরবর্তী পর্যায়ে একের পর এক জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক কর্মী রাজ্য-রাজনীতিতে পরিবর্তনের সম্ভাবনা দেখে বিজেপিতে যোগদান করতে শুরু করে। একের পর এক পুরসভার জনপ্রতিনিধিরা দিল্লিতে গিয়ে বিজেপির গেরুয়া পতাকা হাতে নিয়ে ছিলেন। বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব মুকুল রায় থেকে কৈলাস বিজয়বর্গীয় দাবি করেছিলেন, একশোর বেশি তৃণমূলের বিধায়ক বিজেপিতে যোগদানের সম্ভাবনা রয়েছে। বাস্তবে কিন্তু দেখা গেল উত্তর ২৪ পরগনার যে-সমস্ত পুরসভা বিজেপির দখলে গিয়েছিল একের পর এক সেই পুরসভাগুলির জনপ্রতিনিধিরা দল বেঁধে আবারও তৃণমূল কংগ্রেসে ফিরে আসে। এমনকী, অর্জুন সিংয়ের গড় বলে পরিচিত ভাটপাড়ার পুনর্দখল নিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। রাজারহাট নিউ টাউনের বিধায়ক এবং বেহালা-পূর্বের বিধায়ক যথাক্রমে সব্যসাচী দত্ত এবং শোভন চট্টোপাধ্যায় বিজেপিতে যোগদান করলেও শোভনবাবুর দলে ফিরে আসা সময়ের অপেক্ষামাত্র। সব্যসাচীবাবুও বিজেপির রাজনীতিতে কতটুকু সক্রিয় হয়েছেন তা নিয়েও প্রশ্ন রয়েছে। অর্থাৎ, অন্যদল থেকে বিজেপিতে ঢোকার স্রোত কেবল বন্ধ হয়েছে তাই নয়, বরং যাঁরা এসেছিলেন তাঁদের বিজেপির রাজনীতির প্রতি মোহভঙ্গের ছাপ স্পষ্ট। 
সর্বভারতীয় স্তরে বিজেপি একাই ৩০০-র বেশি আসন নিয়ে দ্বিতীয় বার দেশ চালানোর দায়িত্ব পেলেও অর্থনৈতিক মন্দার বিষয়টি সরকার এবং দল উভয়কেই দুশ্চিন্তায় রেখেছে। ৩৭০ ধারা বিলোপ, তিন তালাক বিল পাসের মতো গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা প্রবাহের পরেও হরিয়ানা, মহারাষ্ট্রে বিজেপির ফল প্রত্যাশামতো হয়নি। হরিয়ানায় নতুন সঙ্গী জুটিয়ে সরকার গঠনে সফল হলেও, মহারাষ্ট্রে বিজেপির সরকার গঠনের স্বপ্ন এখনও অধরা রয়েছে। রাজ্যে রাষ্ট্রপতির শাসন জারি করতে হয়েছে। সংবিধানের ৩৭০ ধারা বিলোপের পর অশান্ত কাশ্মীর উপত্যকা এখনও বিজেপির মাথা ব্যথার কারণ। স্বস্তি কেবল অযোধ্যায় রাম মন্দিরের প্রশ্নে সুপ্রিম কোর্টের রায়। এইরূপ জাতীয় আবহে রাজ্যের তিনটি উপনির্বাচনের ভোট বিজেপির জাতীয় নেতৃত্বের কাছে যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ।
আবার ফেরা যাক রাজ্য-রাজনীতির দিকে। লোকসভা নির্বাচনের ধাক্কা সামলাতে তৃণমূল কংগ্রেস ভোট-কৌশলী প্রশান্ত কিশোরকে নিয়োগ করে দলের হারানো জমি ফিরে পেতে। প্রশান্ত কিশোরের পরামর্শ অনুসারে তৃণমূল শুরু করে নতুন করে গণসংযোগ যাত্রা, যার পোশাকি নাম দেওয়া হয়েছে ‘দিদিকে  বলো’। এই উপনির্বাচনে তৃণমূলের হয়ে প্রার্থী নির্বাচন থেকে শুরু করে ভোটের প্রচারকৌশল সবকিছুই নির্ধারিত হয়েছে প্রশান্ত কিশোরের পরামর্শে। এমনকী, তিনটি কেন্দ্রের জন্য আলাদা আলাদা নির্বাচনী ইস্তাহার তৈরি করার পরামর্শ ছিল ভোট কৌশলী প্রশান্ত কিশোরের মস্তিষ্কপ্রসূত। এই উপনির্বাচনের ফল থেকে প্রশান্ত কিশোরের কর্মদক্ষতার প্রমাণ মেলানোর সুযোগ রয়েছে।
বিগত লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল থেকে দেখা গেছে রাজ্যজুড়ে বাম-কংগ্রেসের সিংহভাগ ভোটারই বিজেপিকে ভোট দিয়েছেন। ক্ষেত্রবিশেষে তৃণমূলের ভোটও  বিজেপিতে হস্তান্তরিত হয়েছিল। নির্বাচনের পর গঙ্গা দিয়ে অনেকটা জল বয়ে গিয়েছে। ইতিমধ্যেই অসমের এনআরসিকে সামনে রেখে পশ্চিমবঙ্গেও এনআরসি করবার কথা বিজেপির নেতৃত্ব ঘোষণা করায় তৃণমূল রাস্তায় নেমে বিরোধিতা শুরু করে। এনআরসি ইস্যু রাজ্য-রাজনীতিতে উঠে আসার পর বিজেপি যেমন কিছুটা কোণঠাসা হয়ে পড়েছে, তেমনি শাসক তৃণমূল এনআরসিকে সামনে রেখে ভোটারদের মন পেতে ব্যাপক রাজনৈতিক কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। তৃণমূলের এনআরসির বিরোধিতা থেকে রাজ্য-রাজনীতিতে উঠে আসতে পারে নতুন রাজনৈতিক সমীকরণ। রাজ্যজুড়েই মানুষ এনআরসি নিয়ে আতঙ্কে ভুগছে। বিজেপি সংসদে নাগরিকত্ব বিল এনে হিন্দুভোটারদের আশ্বস্ত করতে পারলেও সংখ্যালঘু ভোটারদের মধ্যে রয়েছে তীব্র আতঙ্ক। এই অবস্থায় সংখ্যালঘু অধ্যুষিত করিমপুর বিধানসভা কেন্দ্রে সংখ্যালঘু ভোটাররা আরও বেশি করে তৃণমূলের দিকে ঝুঁকে পড়ে কি না তা পরখ করার সুযোগ রয়েছে। আবার প্রতিযোগিতামূলকভাবে তৃণমূল এবং বিজেপি রাজ্য-রাজনীতিতে ধর্মের ব্যবহার করছে—এই অভিযোগ সামনে রেখে বাম, কংগ্রেস এনআরসি নিয়ে সংখ্যালঘু ভোটারদের আশ্বস্ত করতে যে প্রচার চালাচ্ছে, তাতে বামেদের প্রতি সংখ্যালঘুদের নতুন কোনও ভাবনার প্রকাশ ফুটে ওঠে কি না তা এই উপনির্বাচনের ফল থেকে বোঝা যাবে। এনআরসির প্রভাব খড়্গপুর সদরে কম থাকলেও কালিয়াগঞ্জের প্রচারে শাসক বিরোধী উভয়ই এনআরসি নিয়ে তাদের বক্তব্য ব্যাপকভাবে ভোটারদের  সামনে তুলে ধরেছে। উত্তরবঙ্গের কালিয়াগঞ্জ কেন্দ্রে ৫০ শতাংশ রাজবংশী সম্প্রদায় মানুষের বাস। নাগরিকত্ব বিলকে সামনে রেখে যে বক্তব্য বিজেপি রাখছে তাতে হিন্দুদের মধ্যে কী ধরনের প্রভাব পড়বে তা দেখার সুযোগ রয়েছে কালিয়াগঞ্জ বিধানসভা উপনির্বাচনের ফলাফল থেকে।
লোকসভা নির্বাচনে ধাক্কা খাওয়ার পর তৃণমূল কংগ্রেস বিজেপির হিন্দু জাতীয়তাবাদী ভাবনাকে প্রতিহত করতে বাংলা-বাঙালি উপ-জাতীয়তাবাদকে সামনে এনেছে। কাশ্মীরে কর্মরত মুর্শিদাবাদের পাঁচ শ্রমিকের মৃত্যুর ইস্যু থেকে সর্বভারতীয় পরীক্ষার প্রশ্নপত্রকে কেন্দ্র করে তৃণমূলের একের পর এক বক্তব্যে বাংলা-বাঙালিয়ানার ভাবনা তুলে ধরা হচ্ছে। দলের এই ভাবনায় তৃণমূল বাংলা ও বাঙালির আশা-আকাঙ্ক্ষার ধারক ও বাহক এবং অন্যদিকে বিজেপি একটি অ-বাঙালিদের দল—এই প্রচারকে তুঙ্গে নিয়ে যাওয়ার কৌশল লক্ষ করা গেছে। তৃণমূলের হয়ে নানা সংগঠন গত কয়েক মাস ধরে ব্যাপক প্রচারও চালাচ্ছে। এই প্রচারের নিটফল কী হতে যাচ্ছে, তার একটা ইঙ্গিত তিন বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনের ফলাফল থেকে মিলতে পারে। 
রাজ্য-রাজনীতিতে তৃণমূলের বিরুদ্ধে ওঠা প্রধান অভিযোগগুলিকে হাতিয়ার করে বিজেপি এবং বাম-কংগ্রেস নির্বাচনী প্রচারে নেমেছে। এর মধ্যে কাটমানি ফেরত  দেওয়ার মতো ইস্যু যেমন রয়েছে, তেমনি স্কুলের নিয়োগ নিয়ে দুর্নীতির মতো ইস্যুও রয়েছে। উপনির্বাচনের ইস্যু পাল্টা ইস্যু, পাশাপাশি রাজ্যের হিংসাত্মক পঞ্চায়েত নির্বাচন বা সাম্প্রতিক অতীতে ঘটে-যাওয়া উপনির্বাচন ঘিরে হিংসার আবহকেও বিরোধীরা প্রচারের অঙ্গ করেছে। আগামী বছর রাজ্যজুড়ে ১১১টি পুরসভা নির্বাচনের পূর্বে এই তিনটি উপনির্বাচনের মাধ্যমে তিন শিবিরের আজকের পরিস্থিতির একটা আন্দাজ মিলবে।
উত্তরবঙ্গে লোকসভা নির্বাচনের সমস্ত আসনই তৃণমূলের হাতছাড়া হয়েছিল। উত্তর দিনাজপুরের কালিয়াগঞ্জ (তফসিলি)  কেন্দ্রে ২০১৬-র বিধানসভা নির্বাচনে কংগ্রেস প্রার্থী ৪৬,৬০২ ভোটে জয়ী হলেও লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি এই কেন্দ্রটি থেকে ৫৬,৫৬২ ভোটে এগিয়ে যায়। রাজবংশী সম্প্রদায় অধ্যুষিত এই কেন্দ্রের ফলাফল তিন পক্ষের কাছেই যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। কংগ্রেস কি পারবে তার পুরনো জমি ফিরে পেতে? না কি বিজেপি লোকসভার মতো এই কেন্দ্রে তার প্রভাব অব্যাহত রাখবে? না কি এনআরসি-র মতো ইস্যু আসাতে ২৩ শতাংশ সংখ্যালঘু ভোটারের সমর্থন নিয়ে তৃণমূলের পক্ষে এই কেন্দ্রে চমক দেওয়া সম্ভব হবে?
তিন দশকেরও বেশি সময় ধরে নদীয়ার করিমপুর ছিল বামেদের দুর্ভেদ্য দুর্গ। প্রায় ৪৫ শতাংশ সংখ্যালঘু মানুষ এই কেন্দ্রটিতে রয়েছেন। গত নির্বাচনে সিপিএমের প্রার্থীকে পরাজিত করে তৃণমূলের মহুয়া মৈত্র ১৫,৯৮৯ ভোটে জয়ী হয়েছিলেন। লোকসভা নির্বাচনে মহুয়া মৈত্রের ভোটের ব্যবধান সামান্য কিছু কমে দাঁড়ায় ১৪,৩৪০ ভোট। কিন্তু এই কেন্দ্রে বাম-কংগ্রেসকে সরিয়ে বিজেপি ৩৬ শতাংশ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছে। বাম-কংগ্রেস মিলে লোকসভায় ভোট ছিল ২০ শতাংশের মতন।
উপনির্বাচনে বাম-কংগ্রেস ঐক্যবদ্ধ হওয়ায় কেন্দ্রে নতুন কোনও সমীকরণ উঠে আসে কি না, না কি বাম-কংগ্রেসের সংখ্যালঘু অবশিষ্ট ভোটাররাও আরও ব্যাপকভাবে তৃণমূলের সমর্থনে এগিয়ে আসে তা যেমন দেখার বিষয়, তেমনি বাম-কংগ্রেস জোট এবং তৃণমূলের মধ্যে সংখ্যালঘু ভোট বিভাজনকে কাজে লাগিয়ে বিজেপি এগিয়ে যায় কি না তা দেখার বিষয়।
বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ লোকসভা নির্বাচনের প্রার্থী হিসেবে খড়্গপুর সদর কেন্দ্র থেকে ৪৫,১৩৩ ভোটে এগিয়ে ছিলেন। মোট ভোটের ৫৮ শতাংশ বিজেপির পক্ষে ছিল। উপনির্বাচনে প্রার্থিপদ নিয়ে বিজেপির অন্তর্দ্বন্দ্ব জয়ের পথে বাধা হয়ে দাঁড়ায় কি না তা দেখার। না কি জ্ঞানসিং সোহনপালের চার দশকে জেতা এই আসনে নতুন কোনও সমীকরণ উঠে আসে তা দেখার।
পুরসভার চেয়ারম্যানকে প্রার্থী করে তৃণমূল আসনটি দখল করতে মরিয়া প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। অন্যদিকে, বিজেপি সভাপতির জেতা এই আসনে দুর্ঘটনা হলে রাজ্য-রাজনীতির সমীকরণই পাল্টে যেতে পারে। এই সমস্ত সম্ভাবনার উত্তর মিলবে ২৮ নভেম্বর। তার আগে ২৫ নভেম্বর শান্তিপূর্ণভাবে এই তিনটি কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ সম্পন্ন করা নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসনের কাছে একটি বড় চ্যালেঞ্জ।
 লেখক রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক 
23rd  November, 2019
আম আদমির বাজেট প্রত্যাশা
শান্তনু দত্তগুপ্ত

কর্পোরেট কর ২৫ শতাংশ, আর ব্যক্তিগত আয়কর ৩০ শতাংশ... এটা তো হতে পারে না! কাজেই আসন্ন বাজেটে ব্যক্তিগত আয়করের দিক থেকে সাধারণ চাকরিজীবীরা লাভবান হতে পারেন। তাও বিষয়টা সম্ভাবনা আকারেই আছে। তার কারণ, লোকসভা নির্বাচন সদ্য শেষ হয়েছে। আগামী চার বছর তো মোদি সরকার নিশ্চিন্ত! এখনই আয়করে বড় ছাড়ের মতো ঘোষণা করে দিলে ভোটের আগে কী হবে?এই প্রশ্ন আপাতত শনিবার পর্যন্ত সিন্দুকে তোলা থাক।
বিশদ

সবচেয়ে ভালোর জন্য আশা করে সবচেয়ে খারাপের জন্য প্রস্তুতি
পি চিদম্বরম

আর একটি বছর শুরু হল, আর একটি বাজেট পেশের অপেক্ষা, এবং এটি ভারতীয় অর্থনীতির আর একটি গুরুতর বছর। ২০১৬-১৭ সাল থেকে প্রতিটি বছর আমাদের জন্য অনেক বিস্ময় এবং ব্যথা নিয়ে এসেছে। ২০১৬-১৭ গিয়েছে সর্বনাশা নোটবন্দির বছর। ত্রুটিপূর্ণ জিএসটি এবং সেটা তড়িঘড়ি রূপায়ণের বছর গিয়েছে ২০১৭-১৮।  বিশদ

26th  January, 2020
সংবিধান ও গণতন্ত্রের ভিত দুর্বল হলে ভারতের আত্মাও বিপন্ন হতে বাধ্য
হিমাংশু সিংহ

১৫ আগস্ট যদি দেশের জন্মদিন হয়, তাহলে ২৬ জানুয়ারি হচ্ছে কোন মতাদর্শ ও আইন মেনে কীসের ভিত্তিতে দেশ পরিচালিত হবে, তার লিখিত বয়ান চূড়ান্ত করার বর্ণাঢ্য উদযাপনের শুভ মুহূর্ত। নবজাতক শিশু স্কুলে ভর্তি হলে একটা নির্দিষ্ট নিয়ম শৃঙ্খলা মেনে ধীরে ধীরে পরিণত হয়। 
বিশদ

26th  January, 2020
১৬০০ কোটি টাকায় কী হতে পারে?
মৃণালকান্তি দাস

শুধুমাত্র অসমে এনআরসি প্রক্রিয়া করতে গিয়েই সরকার খরচ করে ফেলেছে ১৬০০ কোটি টাকা! এত টাকা কীভাবে খরচ হল সেটা খতিয়ে দেখতে দাবি উঠেছে সিবিআই তদন্তের। শুধু তাই-ই নয়, এই এনআরসি করতে বিপুল আর্থিক দুর্নীতি হয়েছে, এই অভিযোগ তুলেছেন অসমের বিজেপি নেতা তথা অর্থমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা। সেই দুর্নীতির কথা ধরা পড়েছে ক্যাগের প্রতিবেদনেও। এনআরসির মুখ্য সমন্বয়কারী প্রতীক হাজেলাকে মধ্যপ্রদেশে বদলি করে দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। মুখ লুকোনোর জায়গা পাচ্ছে না বিজেপি।
বিশদ

25th  January, 2020
মুখ হয়ে ওঠার নিরন্তর প্রয়াস
তন্ময় মল্লিক

কথায় আছে, মুখ হচ্ছে মনের আয়না। আবার কেউ কেউ মনে করেন, সুন্দর মুখের জয় সর্বত্র। তাই অনেকেরই ধারণা, সাফল্য লাভের গুরুত্বপূর্ণ উপাদানই হল মুখ। রাজনীতিতেও সেই মুখের গুরুত্ব অপরিসীম। তবে রাজনীতিতে সৌন্দর্য অপেক্ষা অধিকতর প্রাধান্য পেয়ে থাকে মুখের কথা, ভাষাও।  
বিশদ

25th  January, 2020
নিরপেক্ষ রাজনৈতিক চেতনার অভাব
সমৃদ্ধ দত্ত

 আজকাল একটি বিশেষ শ্রেণীর কাছে দুটি শব্দ খুব অপছন্দের। সেকুলার এবং ইন্টেলেকচুয়াল। ওই লোকটিকে আমার পছন্দ নয়, কারণ লোকটি সেকুলার। ওই মানুষটি আসলে সুবিধাবাদী এবং খারাপ, কারণ তিনি ইন্টেলেকচুয়াল। সমাজের এই অংশের উচ্চকিত তর্জন গর্জন হাসি ঠাট্টা কটাক্ষ শুনলে মনে হবে, সেকুলার হওয়া বোধহয় সাংঘাতিক অপরাধ। বিশদ

24th  January, 2020
বাজেটের কোনও অঙ্কই মিলছে না, আসন্ন বাজেটে বৃদ্ধিতে গতি ফিরবে কীভাবে?
দেবনারায়ণ সরকার

বস্তুত, বর্তমান অর্থবর্ষে ভারতের অর্থনীতির চিত্র যথেষ্ট বিবর্ণ। সমৃদ্ধির হার ক্রমশ কমে ৫ শতাংশে নামার ইঙ্গিত, যা ১১ বছরে সর্বনিম্ন। মুদ্রাস্ফীতি গত ৩ বছরে সর্বাধিক। শিল্পে সমৃদ্ধির হার ৮ বছরে সর্বনিম্ন। পরিকাঠামো শিল্পে বৃদ্ধির হার ১৪ বছরে সর্বনিম্ন। বিদ্যুতের চাহিদা ১২ বছরে সর্বনিম্ন। বেসরকারি লগ্নি ১৬ বছরে সর্বনিম্ন। চাহিদা কমায় বাজারে ব্যাঙ্ক লগ্নি কমেছে, যা গত ৫৮ বছরে সর্বনিম্ন। রপ্তানিও যথেষ্ট ধাক্কা খাওয়ার ইঙ্গিত বর্তমান বছরে। এর উপর ভারতে বেকারত্বের হার গত ৪৫ বছরে সর্বনিম্ন।
বিশদ

24th  January, 2020
ক্ষমা করো সুভাষ
জয়ন্ত চৌধুরী

মুক্তিপথের অগ্রদূত তিনি। অখণ্ড ভারত সাধনার নিভৃত পথিক সুভাষচন্দ্রের বৈপ্লবিক অভিঘাত বাধ্য করেছিল দ্রুত ক্ষমতা হস্তান্তরের পটভূমি রচনা করতে। দেশি বিদেশি নিরপেক্ষ ঐতিহাসিকদের লেখনীতে আজাদ হিন্দের অসামান্য আত্মত্যাগ স্বীকৃত হয়েছে। সর্বাধিনায়কের হঠাৎ হারিয়ে যাবার বেদনা তাঁর জন্মদিনেই বড় বেশি স্পর্শ করে যায়।  
বিশদ

23rd  January, 2020
স্বামীজি, বিশ্বকবি ও নেতাজির খিচুড়ি-বিলাস
বিকাশ মুখোপাধ্যায়

মঙ্গলকাব্য থেকে কাহিনীটা এভাবে শুরু করা যেতে পারে।
সকাল সকাল ঘুম থেকে উঠেই মা দুর্গা নন্দিকে তলব করেছেন, যাও ডাব পেড়ে নিয়ে এসো।
নন্দির তখনও গতরাতের গাঁজার খোঁয়ার ভাঙেনি। কোনওরকমে জড়ানো স্বরে বলল, ‘এত্তো সকালে মা?’  বিশদ

23rd  January, 2020
‘যে আপনকে পর করে...’
শান্তনু দত্তগুপ্ত

মহাত্মা গান্ধী একটা কথা বলতেন, মনপ্রাণ দিয়ে দেশের সেবা যিনি করেন, তিনিই সত্যিকারের নাগরিক। নাগরিক কাহারে কয়? বা নাগরিক কয় প্রকার ও কী কী? এই জাতীয় প্রশ্ন এখন দেশে সবচেয়ে বেশি চর্চিত। সবাই নিজেকে প্রমাণে ব্যস্ত। ভালো নাগরিক হওয়ার চেষ্টাচরিত্র নয়, নাগরিক হতে পারলেই হল। তার জন্য কাগজ লাগবে। এক টুকরো কাগজ প্রমাণ করবে, আপনি আমি ভারতের বাসিন্দা।   বিশদ

21st  January, 2020
আইন ও বাস্তব
পি চিদম্বরম

আপনি যখন এই লেখা পড়ছেন তখন ইন্টারনেট, আন্দোলন, জনসমাবেশ, রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড, ভাষণ ও লেখালেখি এবং কাশ্মীর উপত্যকার পর্যটকদের উপর নিয়ন্ত্রণ জারি রয়েছে। কোনোরকম ‘চার্জ’ ছাড়াই রাজনৈতিক নেতাদের হেপাজতবাসও চলছে যথারীতি। সুতরাং প্রশ্ন উঠছে—আদালতের রায়ের পরেও বাস্তবে কিছু পরিবর্তন হয়েছে কি?
বিশদ

20th  January, 2020
নেতাজি—আঁধারপথে অনন্ত আলোর দীপ্তি
সন্দীপন বিশ্বাস

স্বাধীনতার পর অতিক্রান্ত বাহাত্তর বছর। কিন্তু আজও যেন তার নাবালকত্ব ঘুচল না। আসলে দেশের যাঁরা হাল ধরেন, তাঁরাই যদি নাবালকের মতো আচরণ করেন, তাহলে দেশও নাবালকই থেকে যায়। এই নাবালকত্ব আসলে এক ধরনের অযোগ্যতা। সেই অযোগ্যতার পথ ধরেই দেশ ডুবে আছে অসংখ্য সঙ্কটে। দুর্নীতিই হল সেই সঙ্কটের মধ্যমণি।  
বিশদ

20th  January, 2020
একনজরে
সংবাদদাতা, আলিপুরদুয়ার: নির্বাচনে কংগ্রেসের সঙ্গে জোট প্রশ্নে ফ্রন্টের বড় শরিক সিপিএমের সঙ্গে আর কোনও তিক্ততা নয়। তাই আসন্ন আলিপুরদুয়ার পুরভোটে বামফ্রন্টের সঙ্গে কংগ্রেস থাকলেও শরিক আরএসপি’র কোনও অসুবিধা নেই।   ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: শিল্প ও ব্যবসায় উৎসাহ দিতে সব ক্ষেত্রেই ৯২ শতাংশ ফায়ার লাইসেন্স ফি কমিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। ২০১৭ সালের এই ফি খুব বেড়ে গিয়েছিল বলে বেশ কয়েকজন শিল্পপতি ও বণিকসভার প্রতিনিধিরা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তাঁদের ...

  নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: তিনি দায়িত্ব নেওয়ার পর আই লিগে শেষ ছ’টি ম্যাচের একটিতেও হারেনি ট্রাউ এফসি। তবুও গড়াপেটার অভিযোগে কোচ দিমিত্রিস দিমিত্রিউকে বরখাস্ত করল মণিপুরের ক্লাবটি। সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রাউয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ‘দিমিত্রিসকে কোচের পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া ...

বিএনএ, বারাসত: রবিবার ভোর রাতে বসিরহাটের সংগ্রামপুরে ট্রাক চাপা পড়ে এক পুলিস কর্মীর মৃত্যু হয়েছে। মৃতের নাম দিলীপ বিশ্বাস (৫২)। তাঁর বাড়ি গাইঘাটা থানা এলাকায়। ঘাতক লরির চালক ইন্দাদুল শেখ ও খালাসি আতিউল রহমানকে পুলিস গ্রেপ্তার করেছে। তাদের বাড়ি মুর্শিদাবাদ ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

শিক্ষার জন্য দূরে কোথাও যেতে পারেন। প্রেম-প্রণয়ে নতুন যোগাযোগ হবে। বিবাহের কথাবার্তাও পাকা হতে পারে। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৫৫৬:দ্বিতীয় মোঘল সম্রাট হুমায়ুনের মৃত্যু
১৮৬৫: স্বাধীনতা সংগ্রামী পাঞ্জাব কেশরী লালা লাজপত রাইয়ের জন্ম
১৮৯৮: ভারতের মাটিতে পা রাখলেন ভগিনী নিবেদিতা
১৯২৫: বিজ্ঞানী রাজা রামান্নার জন্ম
১৯৩০: গায়ক যশরাজের জন্ম
১৯৩৭: গায়িকা সুমন কল্যাণপুরের জন্ম





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৬৪ টাকা ৭২.৩৪ টাকা
পাউন্ড ৯১.৭৩ টাকা ৯৫.০২ টাকা
ইউরো ৭৭.৩৫ টাকা ৮০.৩৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪১,৩২০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৯,২০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৯,৭৮০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৭,৪৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৭,৫৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১৩ মাঘ ১৪২৬, ২৮ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার, (মাঘ শুক্লপক্ষ) তৃতীয়া ৫/৩ দিবা ৮/২২। শতভিষা ৭/৩৪ দিবা ৯/২৩। সূ উ ৬/২১/২১, অ ৫/১৭/৩৫, অমৃতযোগ দিবা ৮/৩২ গতে ১০/৪৩ মধ্যে পুনঃ ১২/৫৪ গতে ২/২২ মধ্যে পুনঃ ৩/৫ গতে ৪/৩৩ মধ্যে। রাত্রি ৬/৯ মধ্যে পুনঃ ৮/৪৬ গতে ১১/২২ মধ্যে পুনঃ ২/০ গতে ৩/৪৪ মধ্যে। বারবেলা ৭/৪৩ গতে ৯/৫ মধ্যে পুনঃ ১/১২ গতে ২/৩৪ মধ্যে। কালরাত্রি ৬/৫৬ গতে ৮/৩৪ মধ্যে।
১৩ মাঘ ১৪২৬, ২৮ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার, তৃতীয়া ০/৪৫/৪৫ প্রাতঃ ৬/৪২/৩৩। শতভিষা ৪/৩৯/৩৪ দিবা ৮/১৬/৫। সূ উ ৬/২৪/১৫, অ ৫/১৬/২৮, অমৃতযোগ দিবা ৮/৩১ গতে ১০/৪৩ মধ্যে ও ও ১২/৫৬ গতে ২/২৫ মধ্যে ও ৩/৯ গতে ৪/৩৭ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/১৩ মধ্যে ও ৮/৪৯ গতে ১১/২৫ মধ্যে। কালবেলা ১/১১/৫৩ গতে ২/৩৩/২৫ মধ্যে। কালরাত্রি ৬/৫৪/৫৬ গতে ৮/৩৩/২৫ মধ্যে।
২ জমাদিয়স সানি

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
 চন্দননগরে সরস্বতী প্রতিমা কিনে এনে আত্মঘাতী সপ্তম শ্রেণীর ছাত্র
বুধবার সরস্বতী পুজো। মঙ্গলবার বাবার সঙ্গে গিয়ে আনন্দ করেই সরস্বতী ...বিশদ

03:59:00 PM

ট্যুইটে আক্ষেপ রাজ্যপালের
সমাবর্তন অনুষ্ঠান ছেড়ে বেরিয়ে আসার সময় আমার মনে সম্মানের বিষয়টিই ...বিশদ

02:32:28 PM

এবার ক্যানভাসে সিএএ-র প্রতিবাদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের 

02:16:00 PM

এই প্রথম বারুইপুর আদালতে ফাঁসির নির্দেশ
এই প্রথম ফাঁসির নির্দেশ দিল বারুইপুর আদালত। আজ এই আদালতে ...বিশদ

01:56:00 PM

 শিক্ষকদের জন্য সুখবর মমতার
শিক্ষকদের জন্য বড় সিদ্ধান্ত ঘোষণা রাজ্যের। ট্যু ইট করে সেই ...বিশদ

01:51:21 PM

সমাবর্তন অনুষ্ঠানে যোগ না দিয়ে ফিরেই গেলেন রাজ্যপাল 
সমাবর্তন অনুষ্ঠানে যোগ না দিয়ে ফিরে গেলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকার। ...বিশদ

01:42:00 PM