Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

ভারত-মার্কিন সহযোগিতাই ঠেকাতে পারবে
অ্যান্টিবায়োটিকের যথেচ্ছ ব্যবহারের বিপদ 
কেনেথ আই জাস্টার

কেউ কি ভাবতে পেরেছিল, সামান্য একটি ছাতাপড়া ‘মেলন’ জাতীয় ফলের ভিতর লুকিয়ে রয়েছে অগণিত মানুষের জিয়নকাঠি? হ্যাঁ, পেনিসিলিন—এটাই হল সর্বপ্রথম অ্যান্টিবায়োটিক। আবিষ্কৃত হয়েছিল ১৯২৮-এ। আমরা জানি, আবিষ্কার করেছিলেন ব্রিটিশ বিজ্ঞানী আলেকজান্দার ফ্লেমিং। তবু ১৯৪২-এর আগে অবধি ক্যানটালোপের ভিতরে সঞ্চিত রহস্যের সাহায্যে পেনিসিলিয়ামের বাণিজ্যিক উৎপাদন সম্ভব হয়নি। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় হাজার হাজার অসুস্থ সৈনিকের জীবনদায়ী পেনিসিলিয়াম উৎপাদনের সূত্রেই যুক্তরাষ্ট্রের ঔষধ শিল্প দ্রুত বিকশিত হতে পেরেছিল।
আমরা জানি, প্রথম বিশ্বযুদ্ধে আহত সৈনিকরা যত সংখ্যায় না মরেছিল, তার তুলনায় বেশি সৈনিকের বেঘোরে প্রাণ গিয়েছিল নানাবিধ ইনফেকশন সারাতে না-পারার কারণে। উল্লেখযোগ্য ঘটনা এই, পেনিসিলিয়াম মিরাকল বা চমৎকার দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকাল থেকে মানবসভ্যতার কাছে বিরাট এক আশীর্বাদ হয়ে উঠল, আমরা আগের বিপদটির পুনরাবৃত্তি ঠেকাতে সক্ষম হলাম। নিউমোনিয়া এবং নানা ধরনের চর্মরোগের মতো সাধারণ অসুখে মৃত্যুর ব্যাপক হারটিও হঠাৎ করে কমিয়ে আনা সম্ভব হল। এই যে অগ্রণী এক যুগ এসে গেল, অনেকের মতে, সংক্রামক ব্যাধির বিরুদ্ধে লড়াইতে আমরা নিশ্চিতরূপে জয় ছিনিয়ে আনতে পারলাম। পেনিসিলিনের কার্যকারিতা হ্রাসের প্রাথমিক লক্ষণগুলির মোকাবিলা করা গিয়েছিল নতুন নতুন অ্যান্টিবায়োটিক আবিষ্কারের মাধ্যমে। তার ফলে, ১৯৮৫ সালে এসেও ইনফেকশাস ডিজিজেস সোসাইটি অফ অ্যামেরিকা তার বার্ষিক অধিবেশনে—সংক্রামক ব্যাধির জন্য স্পেশালিস্ট বা বিশেষজ্ঞদের আদৌ প্রয়োজন আছে কি না—এরকম একটি প্রশ্ন তোলার অবকাশ পেয়েছিল।
অথচ, তার পর ৩৫ বছর পেরনোর আগেই আমাদের সামনে নতুন এক কঠিন বাস্তব এসে হাজির হয়েছে যে, এই সমস্ত জীবনদায়ী ওষুধ আর বেশিদিন কার্যকরী নাও থাকতে পারে। এই যে নির্দিষ্ট রোগের চিকিৎসায় নির্দিষ্ট অ্যান্টিবায়োটিকের কার্যকারিতা বা রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা হারিয়ে যাচ্ছে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু) এর নাম দিয়েছে অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল রেজিস্টান্স (এএমআর)। সারা পৃথিবীতে মানুষের স্বাস্থ্যের সামনে যে ভয়ঙ্কর দশটি বিপদ উপস্থিত হয়েছে, এএমআর তারই একটি। বছরে ২ লক্ষ ১৪ হাজার নবজাতকের মৃত্যুর কারণ এএমআর প্যাথোজেনস অথবা ‘সুপারবাগস’। ‘প্যাথোজেন’ শব্দের বাংলা করা যায় ‘রোগের জনক’ বা যে ‘এজেন্ট’ রোগসৃষ্টির জন্য দায়ী। অন্যদিকে, ‘সুপারবাগ’ হল সেইসব মারাত্মক জীবাণু—নির্দিষ্ট জীবাণুপ্রতিরোধী ওষুধ প্রয়োগের পরেও যারা নির্বিকার থাকতে পারে। অর্থাৎ প্রতিটি ‘এএমআর প্যাথোজেন’ই হল জীবনঘাতী ‘সুপারবাগ’। বিশ্বজুড়ে এএমআর বেড়ে চলেছে। বলা দরকার, এটা পৃথিবীর যে-কোনও জায়গার যে-কোনও বয়সি মানুষের ক্ষতি করতে পারে। সামান্য ব্যাকটিরিয়াসংক্রমণের কারণে একসময় হরবখত মানুষ মারা যেত। ভয় হচ্ছে যে, অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্টান্সের বিপদ সেই ফেলে আসা দুঃসময়কেই না ফিরিয়ে আনে!
সোজা করে বললে বলতে হয় যে, অ্যান্টিবায়োটিকের মতো অমূল্য সম্পদের তত্ত্বাবধায়ক হিসেবে আমরা একেবারে ‘কেয়ারলেস’। আমরা এতটাই অবিবেচক যে অ্যান্টিবায়োটিক নিজেদের উপর এবং পশুদের উপরেও মুড়িমুড়কির মতো প্রয়োগ করে থাকি। এই যে সমস্যা তার মূলে আমাদের মধ্যে চারিয়ে যাওয়া কিছু সাধারণ ভুল ধারণা, যেমন ঠান্ডালাগা বা জ্বরজ্বালাতেও অ্যান্টিবায়োটিক কাজ করে—অথচ, বাস্তবটা হল, এইসব অ্যান্টিবায়োটিক কোনোভাবে ভাইরাসের ক্ষতি করতে পারে না। এবংবিধ ভুল ধারণা থেকেই আমাদের ভিতর অ্যান্টিবায়োটিকের যথেচ্ছ ব্যবহারের বদঅভ্যাস গড়ে উঠেছে এবং কিছু ডাক্তারও প্রয়োজনের অতিরিক্ত অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়ার বা ব্যবহারের পরামর্শ দিয়ে চলেছেন। সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে যে, হাসপাতালগুলিতে যত ‘অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল’ ব্যবহার হচ্ছে তার প্রায় অর্ধেকের কোনও প্রয়োজন নেই অথবা যেমনভাবে ব্যবহার করা দরকার ঠিক সেইভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে না।
অ্যান্টিবায়োটিকের আনাড়ির মতো এবং লাগামছাড়া ব্যবহার চলছে অন্যপ্রাণীদেরও উপর। যখন অগণিত মানুষের জীবনরক্ষার তাগিদে অ্যান্টিবায়োটিকের কার্যকারিতা অক্ষুণ্ণ রাখা কর্তব্য, তখন এই ধরনের অনেকগুলি ওষুধ ব্যবহার করা হচ্ছে—খাদ্য হিসেবে ব্যবহৃত কিংবা খাদ্যপ্রদায়ী পশুপাখিদের দ্রুত দৈহিক বৃদ্ধির লোভ নিয়ে। পশুপাখির রোগসংক্রমণের চিকিৎসায় যত না তারা এইসব ওষুধ ব্যবহার করছে, তার চেয়ে বেশি করছে উপরোক্ত বাণিজ্যিক কারণে। চার দশকের বেশি হয়ে গেল, নতুন শ্রেণীর কোনও অ্যান্টিবায়োটিক ‘ডেভেলপ’ করা সম্ভব হয়নি, তার মধ্যে চলা এই কাণ্ডটিকে উপদ্রবকর বলেই মনে হচ্ছে।
‘এএমআর থ্রেট’-এর মোকাবিলায় ভারত ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পারস্পরিক সহযোগিতার নেপথ্যে রয়েছে একটি ‘কমন ইন্টারেস্ট’। বিশ্বজুড়ে যেসব দেশে মাথাপিছু অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার সবচেয়ে বেশি, যুক্তরাষ্ট্র তাদের অন্যতম একটি। অন্যদিকে, অ্যান্টিবায়োটিকের সবর্মোট ব্যবহারের প্রশ্নে ভারত অন্য সমস্ত দেশকেই পিছনে ফেলে দিয়েছে। এই চ্যালেঞ্জিং সিচুয়েশনেও বলতে চাই যে, আশা হারিয়ে ফেলার মতো অবস্থায় কিন্তু আমরা পৌঁছে যাইনি। একটা সম্ভাবনাময় সমাধানের লক্ষ্যে পৌঁছনোর জন্য যুক্তরাষ্ট্র এবং ভারত দুই দেশই অভিনব শক্তিতে সমুজ্জ্বল হয়ে উঠতে অভ্যস্ত।
ওষুধ আবিষ্কারের প্রশ্নে এবং সংক্রামক ব্যাধির বিরুদ্ধে লড়াইতে যুক্তরাষ্ট্র একটি অগ্রণী দেশ। ভারতের রয়েছে সমৃদ্ধ ফার্মাসিউটিকাল সেক্টর এবং প্রাণচঞ্চল পাবলিক হেলথ কমিউনিটি। সমস্যাগুলিকে বিভিন্ন দিক থেকে মোকাবিলা করার কাজটি আমরা ইতিমধ্যেই শুরু করেছি। এর মধ্যে রয়েছে হাসপাতালগুলির রোগসংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা আরও চাঙ্গা করা, অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল-রেজিস্টান্ট ইনফেকশনের উপর নজরদারির ব্যবস্থা গড়ে তোলা, এএমআর সল্যুশানের বিষয়ে যেসব বিজ্ঞানী ও গবেষক কাজ করছেন তাঁদের পাশে দাঁড়ানো এবং জরুরি ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় নতুন অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল ডেভেলপমেন্টের জন্য তহবিল জোগানো।
এএমআর বিষয়ে গবেষণা ও নীতিনির্ধাণের উদ্দেশ্যে কলকাতায় একটি নতুন হাব গড়ে তোলা হয়েছে। সেটির উদ্বোধন উপলক্ষে গত মাসে আমার সঙ্গে সচিব তথা ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিকেল রিসার্চ (আইসিএমআর)-এর ডিরেক্টর জেনারেল বলরাম ভার্গবের সাক্ষাৎ হয়েছিল। সেখানেই এই বিপদ মোকাবিলার অঙ্গীকারটি পুনরাবৃত্ত হয়েছিল। আমি আশ্বস্ত করেছি যে, আমাদের ভারতীয় অংশীদারদের সঙ্গে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নিবিড়ভাবেই কাজ চালিয়ে যাবে। উল্লেখ্য যে, এএমআর-এর বিপদ মোকাবিলায় আমাদের ইন্ডিয়ান পার্টনারদের মধ্যে রয়েছে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রক, আইসিএমআর এবং বায়োটেকনোলজি ডিপার্টমেন্ট।
যখন আমাদের সরকার দুটি পদ্ধতি মেনে পরিকল্পিত উপায়ে এই সমস্যার সমাধানে একযোগে কাজ করে, তখন এএমআর-এর মতো কঠিন বিপদটি নিয়ে আমাদেরও ব্যক্তিগত স্তর থেকে সমষ্টিগতভাবে জরুরি ভিত্তিতে সোচ্চার হতে হবে, সচেতন হতে হবে। স্বাস্থ্যপরিষেবার গ্রহীতা হিসেবে যে-কোনও অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়া বা অন্যভাবে নেওয়ার আগে আমাদের কর্তব্য হল উপযুক্ত চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ। সংক্রামক ব্যাধি ছড়ানো ঠেকাতে প্রত্যেককেই বিরত থাকতে হবে। এজন্য প্রয়োজন স্বাস্থ্যবিজ্ঞানের যথাযথ ধারণা। এই ধারণা থাকলে আমরা হাত পরিচ্ছন্ন রাখব, মুখ খুলে কাশি দেব না, অসুস্থ শরীর নিয়ে বাইরে বেরব না। রোগসংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে রাখতে স্বাস্থ্যকর্মীদের নিয়মিত দায়িত্ব পালন করতে হবে, চিকিৎসার স্বীকৃত গাইডলাইন বা নির্দেশিকা অনুসরণ করতে হবে, প্রেসক্রিপশনে অপ্রয়োজনেও অ্যান্টিবায়োটিক লেখায় ক্ষান্ত দিতে হবে। আর যেটা দরকার তা হল, সংক্রামক ব্যাধি ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে চালু ভ্যাকসিন বা টিকাগুলি যাতে মানুষ ঠিকমতো নেয় তার জন্য প্রচার বাড়াতে হবে। কৃষকদের উচিত গবাদি পশুপাখিদের টিকাকরণের উপর গুরুত্ব দেওয়া। কেবলমাত্র সংক্রামক ব্যাধি নিরাময়ের প্রয়োজনেই গবাদি পশুপাখিদের অ্যান্টিবায়োটিক দেওয়া দরকার এবং অবশ্যই তা প্রয়োগ করতে হবে উপযুক্ত পশুচিকিৎসকদের পরামর্শ নিয়ে। নতুন নতুন অ্যান্টিবায়োটিকের উদ্ভাবনের উদ্দেশ্যে আমাদের শিল্পও গড়ে তুলতে হবে। একইসঙ্গে আমাদের দায়িত্বশীল অভিভাবক হয়ে ওঠাও প্রয়োজন। অব্যবহার্য অ্যা঩ন্টিবায়োটিকের ‘ডিসপোজাল’-এর বিষয়েও বিবেচনাপূর্ণ ভূমিকা থাকা দরকার।
এই বিরাট চ্যালেঞ্জের মোকাবিলায় আমাদের ব্যক্তিগতভাবে এবং সমষ্টিগতভাবে—দু’ভাবেই সক্রিয় হতে হবে। এএমআর মোকাবিলায় আমাদের সহযোগিতা দুই দিক থেকে প্রতিনিধিত্ব করবে। একদিকে, ইউএস-ইন্ডিয়া কোঅপারেশন একটি সিম্বল হয়ে উঠবে। অন্যদিকে, এমন একটি ‘লঞ্চ প্যাড’ হিসেবে ভাস্বর থাকবে, যেখানে দুই দেশ একযোগে কাজ করবে এবং যেখান থেকে আমাদের দুটি দেশ তো বটেই সারা পৃথিবীও উপকৃত হবে।
 লেখক ভারতে নিযুক্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত 
শিবসেনা ও একটি পরম্পরার অপমৃত্যু
শান্তনু দত্তগুপ্ত

শিবাজি পার্কের জনসভায় তির-ধনুকটা নামিয়ে বক্তৃতা শুরু করতে গিয়েও থমকে গেলেন বাল থ্যাকারে। শব্দবাজির দাপট কানের যাবতীয় সহ্যক্ষমতা অতিক্রম করছে। সঙ্গে চিৎকার... উল্লাস। অপেক্ষা করছেন শিবসেনা ‘প্রমুখ’। তির-ধনুক তাঁর দলের প্রতীক। পৌরুষের প্রতীক। তিনি নিজেও তাই। ১৯৯৫ সালের বিধানসভা ভোটের শেষ পর্বের প্রচার।  
বিশদ

19th  November, 2019
প্রচলিত ছকে মৌসুমি বায়ু চরিত্র বোঝা যাচ্ছে না
শান্তনু বসু

২০১৯-এর এই উদ্বৃত্ত বৃষ্টিপাত আবহাওয়াবিদদের হিসেবেই ছিল না। উদ্বৃত্ত বৃষ্টিপাত ভূগর্ভস্থ জলস্তরকে পুনরুজ্জীবিত করবে সন্দেহ নেই, কিন্তু আগামী বছর যদি আরও দেরিতে কেরলে মৌসুমি বায়ু প্রবেশ করে, ভারতের কৃষি আবার অনিশ্চয়তায় চলে যাবে। চলতি বছরের উদ্বৃত্ত জলকে ধরে রাখা হয়েছে—এমন সুখবর কিন্তু নেই।
বিশদ

18th  November, 2019
একটি কাল্পনিক স্মরণসভা
সন্দীপন বিশ্বাস

সাদা কাপড়ে মোড়া মঞ্চজুড়ে সারি সারি চেয়ার-টেবিল। টেবিলের উপরে ফুলদানিতে সাদা ফুল। মঞ্চের একপাশে বড় একটি ছবি। তাতে সাদা মালা দেওয়া। শোকস্তব্ধ পরিবেশ। আজ এখানে প্রাক্তন নির্বাচন কমিশনার টি এন সেশনের স্মরণসভার আয়োজন করা হয়েছে। সেখানে সমাজের গণ্যমান্য সকলকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। অনেকেই এসেছেন।  
বিশদ

18th  November, 2019
মূল্যবোধের রাজনীতি ও
মহারাষ্ট্রের কুর্সির লড়াই
হিমাংশু সিংহ

আজকের নির্বাচনী রাজনীতি যে কতটা পঙ্কিল ও নোংরা তারই জ্বলন্ত প্রমাণ আজকের মহারাষ্ট্র। সঙ্কীর্ণ স্বার্থসর্বস্ব রাজনীতিতে ক্ষমতা দখলের নেশায় ছোটবড় প্রতিটি রাজনৈতিক দলই আজ মরিয়া। মহারাষ্ট্রের ফল বেরনোর পর গত তিন সপ্তাহের রাজনীতির নাটকীয় ওঠাপড়া সেই অন্ধকার দিকটাকেই বড় প্রকট করে তুলেছে। ভোটের ফল ও কে মুখ্যমন্ত্রীর কুর্সিতে বসবেন তা নিয়ে দুই পুরনো জোট শরিকের দ্বন্দ্ব যে দেশের বাণিজ্য পীঠস্থান মুম্বই তথা মহারাষ্ট্রকে এমন নজিরবিহীন সঙ্কটে ফেলবে, তা কে জানত? যে জোট পাঁচ বছর ধরে রাজ্য শাসন করল এবং এবারও গরিষ্ঠতা পেল, সেই জোটই ভেঙে খান খান!
বিশদ

17th  November, 2019
ঘর ওয়াপসি ও কিছু প্রশ্ন
তন্ময় মল্লিক

 ঘর ওয়াপসি। ঘরে ফেরা। ‘ভাইজান’ সিনেমার ছোট্ট মুন্নির ঘরে ফেরার কাহিনীর দৌলতে ‘ঘর ওয়াপসি’ এখন আমবাঙালির অতি পরিচিত শব্দ। সেই পরিচিত শব্দটি অতি পরিচিতির মর্যাদা পেয়েছে সাম্প্রতিক রাজনৈতিক নেতাদের একাংশের ঘন ঘন জার্সি বদলের দৌলতে।
বিশদ

16th  November, 2019
জল বেড়েছে, বোধ বাড়েনি
রঞ্জন সেন

 সমুদ্রের জলস্তর বাড়ার ফলে পৃথিবীর বহু উপকূলবর্তী দেশ ও দ্বীপ বিপন্ন হবে বলে পরিবেশবিজ্ঞানীরা আশঙ্কা প্রকাশ করছেন। তাঁরা এটাও বলছেন আমরা সবাই মিলে এবং রাষ্ট্রনায়কেরা চাইলে গ্রিনহাউস গ্যাস নিঃসরণ কমিয়ে এই অবস্থার মোকাবিলা করতে পারি। বিশদ

16th  November, 2019
সংবিধানই পথ
সমৃদ্ধ দত্ত

 তিন বছর ধরে সংবিধান রচনার কাজ অবশেষে যখন সমাপ্ত হল, তখন ১৯৪৯ সালের ২৫ নভেম্বর ভারতীয় সংবিধানের চূড়ান্ত খসড়া পেশ করে সংবিধান-সভায় তাঁর সর্বশেষ বক্তৃতায় সংবিধান রচনা কমিটির চেয়ারম্যান ড.ভীমরাও আম্বেদকর আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন, ভারতের এই সংবিধানের মূল সুর এবং গণতন্ত্র কি আদৌ শেষ পর্যন্ত আগামী দিনে রক্ষা করা সম্ভব হবে? বিশদ

15th  November, 2019
পঞ্চাশোর্ধ্বে বানপ্রস্থ?
অতনু বিশ্বাস

পঞ্চাশ ছুঁই-ছুঁই হয়ে একটা প্রায় বৃদ্ধ-বৃদ্ধ ভাব এসেছে আমার মধ্যে। সেটা খুব অস্বাভাবিক হয়তো নয়। এমনিতেই চারপাশের দুনিয়াটা বদলে গিয়েছে অনেক। চেনা-পরিচিত বাচ্চা বাচ্চা ছেলেমেয়েগুলো হঠাৎ যেন বড় হয়ে গিয়েছে। আমাকে ডাকনাম ধরে ডাকার লোকের সংখ্যাও কমে যাচ্ছে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে। বুড়ো হবার সব লক্ষণ একেবারে স্পষ্ট। 
বিশদ

14th  November, 2019
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দৃঢ় নীতির
কাছে ভারতের স্বার্থটাই সবার উপরে
অমিত শাহ

 মোদিজির নেতৃত্বাধীন উন্নতশির ভারতের কথা বিবেচনা করে আরসিইপি সদস্য রাষ্ট্রগুলি বেশিদিন আমাদের এড়িয়ে থাকতে পারবে না। তারা আমাদের শর্তে ভারতের সঙ্গে বাণিজ্যে রাজি হবে। এর মধ্যে আমরা এফটিএ মারফত আসিয়ান রাষ্ট্রগুলির সঙ্গে অর্থনৈতিক সম্পর্করক্ষায় সফল হয়েছি। আরসিইপি প্রত্যাখ্যান করে চীনের সম্ভাব্য গ্রাস থেকে আমাদের শিল্পকে আমরা দৃঢ়তার সঙ্গে সুরক্ষা দিতে পেরেছি। আমাদের জন্য ভারতের স্বার্থটাই সবার আগে। বিশদ

13th  November, 2019
ভাষা বিতর্কে জেইই মেনস
শুভময় মৈত্র

পশ্চিমবঙ্গের যে সমস্ত ছাত্রছাত্রী এই ধরনের প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় বসেন, তাঁরা মোটামুটি ভালোভাবেই ইংরেজি পড়তে পারেন। তার জন্যে কংগ্রেস, সিপিএম, তৃণমূল বা বিজেপির কোনও কৃতিত্ব নেই। সারা দেশের মধ্যে বাঙালিরা যে শিক্ষা সংস্কৃতিতে বেশ এগিয়ে আছে সেটা বোঝার জন্যে প্রচুর পরিসংখ্যান আছে, যেগুলো জায়গামতো ছাপা হয় না। বিশেষ করে বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে এরাজ্যের ছেলেমেয়েরা ঐতিহ্যগতভাবে ভালো, ঔপনিবেশিক কারণে ইংরেজিতেও। সেখানে জেইই মেনসের মতো পরীক্ষার প্রশ্ন বাংলায় করতে হবে বলে বাংলার পরীক্ষার্থীদের না গুলিয়ে দেওয়াই মঙ্গল। বিশদ

13th  November, 2019
অস্তাচলে মন্দির রাজনীতি
শান্তনু দত্তগুপ্ত 

সালটা ১৯৯২। লালকৃষ্ণ আদবানির ‘রথযাত্রা’ শুরু হওয়ার ঠিক আগের কথা...। কথোপকথন চলছে বিজেপি নেতার সঙ্গে বজরং দলের এক নেতার। ‘বাবরির কলঙ্ক মুছে দিতে পারবে না?’ বজরং দলের সেই নেতা উত্তর দিলেন ‘আপনার নির্দেশের অপেক্ষাতেই তো বসে আছি। 
বিশদ

12th  November, 2019
প্রেমময় শ্রীকৃষ্ণের মধুর রাসলীলা
চিদানন্দ গোস্বামী

বিশারদ সর্ব বিষয়ে। বাঁশিতে, রথ চালনায়, চৌর্যকর্ম, কূটনীতি, যুদ্ধবিদ্যা, ছলচাতুরি—সবকিছুতেই বিশারদ। আর প্রেমপিরিতে তো মহা বিশারদ। এবং, কলহ বিতর্ক বাগযুদ্ধ যুক্তি জাদু, অপমান উপেক্ষা করতেও কম যায় না। অথচ পরমতম প্রেমিক পুরুষ। হ্যাঁ, এমন প্রেম জানে ক’জনা! আর, সেই প্রেমেও কত না কাণ্ড!  
বিশদ

11th  November, 2019
একনজরে
বিএনএ, জলপাইগুড়ি: ব্যারাকপুরে একটি খুনের ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে জলপাইগুড়ি শহর থেকে গ্রেপ্তার করা হল একজনকে। মঙ্গলবার পিন্টু শর্মা নামে ওই অভিযুক্তকে জলপাইগুড়ি মুখ্য বিচারবিভাগীয় আদালতে তোলা হয়।  ...

 শ্রীনগর, ১৯ নভেম্বর (পিটিআই): জয়েশ-ই-মহম্মদের চার জঙ্গিকে সোমবার গ্রেপ্তার করল পুলিস। মঙ্গলবার পুলিস জানিয়েছে, গত জুলাই মাসে পুলওয়ামা জেলার অরিহল এলাকায় বোমা বিস্ফোরণের সঙ্গে এরা ...

সংবাদদাতা, কাঁথি: আস্তাকুঁড় থেকে উদ্ধার হওয়া শিশুকন্যা পূর্ব মেদিনীপুরের কাঁথির ফরিদপুরের হোম থেকে নতুন বাবা¬-মায়ের হাত ধরে পাড়ি দিল সুদূর স্পেনের বার্সেলোনায়।  ...

সুজিত ভৌমিক, কলকাতা: সাট্টা ডন রশিদ খানের সঙ্গী তথা বউবাজার বিস্ফোরণ মামলায় টাডা আইনে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি মহম্মদ খালিদের আর্জি খারিজ করে দিল লালবাজার। খালিদ ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
aries

বিদ্যায় অধিক পরিশ্রম করতে হবে। ব্যবসায় যুক্ত ব্যক্তির পক্ষে দিনটি শুভ। প্রেম-প্রীতিতে আগ্রহ বাড়বে। নতুন ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৭৫০- মহীশূরের শাসক টিপু সুলতানের জন্ম
১৯১০- রুশ সাহিত্যিক লিও তলস্তয়ের মৃত্যু
১৯১৭- কলকাতায় প্রতিষ্ঠা হল বোস রিসার্চ ইনস্টিটিউট
১৯৫৫- নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে ভারতের পক্ষে টেস্টে প্রথম দ্বিশতরান করলেন পলি উমরিগড় 





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৩৪ টাকা ৭৩.৫০ টাকা
পাউন্ড ৯১.০২ টাকা ৯৫.৪১ টাকা
ইউরো ৭৭.৮১ টাকা ৮১.৫৫ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,৭৫৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,৭৭০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৭,৩২০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৫,০৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৫,১৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ২০ নভেম্বর ২০১৯, বুধবার, অষ্টমী ১৯/২৩ দিবা ১/৪১। মঘা ৩৫/২১ রাত্রি ৮/৪। সূ উ ৫/৫৬/৪, অ ৪/৪৮/১০, অমৃতযোগ দিবা ৬/৪০ মধ্যে পুনঃ ৭/২৩ গতে ৮/৬ মধ্যে পুনঃ ১০/১৭ গতে ১২/২৮ মধ্যে। রাত্রি ৫/৪১ গতে ৬/৩৩ মধ্যে পুনঃ ৮/১৯ গতে ৩/১৯ মধ্যে, বারবেলা ৮/৪০ গতে ১০/১ মধ্যে পুনঃ ১১/২২ গতে ১২/৪৪ মধ্যে, কালরাত্রি ২/৩৯ গতে ৪/১৮ মধ্যে। 
৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ২০ নভেম্বর ২০১৯, বুধবার, অষ্টমী ১৪/২/৪২ দিবা ১১/৩৫/৪। মঘা ৩২/১৪/২৪ রাত্রি ৬/৫১/৪৫, সূ উ ৫/৫৭/৫৯, অ ৪/৪৮/৯, অমৃতযোগ দিবা ৬/৫১ মধ্যে ও ৭/৩৪ গতে ৮/১৬ মধ্যে ও ১০/২৪ গতে ১২/৩২ মধ্যে এবং রাত্রি ৫/৪১ গতে ৬/৩৪ মধ্যে ও ৮/২১ গতে ৩/২৮ মধ্যে, বারবেলা ১১/২৩/৬ গতে ১২/৪৪/২২ মধ্যে, কালবেলা ৮/৪০/৩২ গতে ১০/১/৪৯ মধ্যে, কালরাত্রি ২/৪০/৩২ গতে ৪/১৯/১৬ মধ্যে।  
২২ রবিয়ল আউয়ল 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
গোটা দেশে এনআরসি হবে: অমিত শাহ 
গোটা দেশে এনআরসি হবে বলে রাজ্যসভায় জানালেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত ...বিশদ

04:31:00 PM

পর্ণশ্রীতে গ্যাস সিলিন্ডার চুরি, ধৃত ২ 

03:18:00 PM

নরেন্দ্রপুরে দম্পতির রহস্যমৃত্যু 
নরেন্দ্রপুরে এক দম্পতির দেহ উদ্ধার ঘিরে চাঞ্চল্য। আজ সকালে নরেন্দ্রপুরের ...বিশদ

02:34:00 PM

মায়ের বকুনি, অভিমানে আত্মঘাতী সপ্তম শ্রেণীর পড়ুয়া 
পড়াশোনা নিয়ে মায়ের বকুনির জেরে অভিমানে আত্মঘাতী হল সপ্তম শ্রেণীর ...বিশদ

01:38:34 PM

আসানসোলে ৫ কুখ্যাত দুষ্কৃতী গ্রেপ্তার 
ডাকাতির উদ্দেশ্যে জরো হওয়া পাঁচ কুখ্যাত দুষ্কৃতীকে গ্রেপ্তার করল আরপিএফের ...বিশদ

01:32:39 PM

মুর্শিদাবাদের সাগরদিঘিতে সভামঞ্চে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় 

01:26:09 PM