Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

ঘর ওয়াপসি ও কিছু প্রশ্ন
তন্ময় মল্লিক

ঘর ওয়াপসি। ঘরে ফেরা। ‘ভাইজান’ সিনেমার ছোট্ট মুন্নির ঘরে ফেরার কাহিনীর দৌলতে ‘ঘর ওয়াপসি’ এখন আমবাঙালির অতি পরিচিত শব্দ। সেই পরিচিত শব্দটি অতি পরিচিতির মর্যাদা পেয়েছে সাম্প্রতিক রাজনৈতিক নেতাদের একাংশের ঘন ঘন জার্সি বদলের দৌলতে। অনেকের মতে, এই ঘর বদলের মধ্যেই লুকিয়ে আছে রাজ্যের ক্ষমতা দখলের গোপন রহস্য। তীক্ষ্ম দৃষ্টি রাখলেই স্পষ্ট হবে, ২০২১ সালে পশ্চিমবঙ্গ কার। জাহাজে জল ঢোকার খবর যেভাবে ক্যাপ্টেনের আগে ইঁদুর পায়, ঠিক সেইভাবেই নাকি ঘরবদলুরা বুঝে যায়, দল ডুবতে বসেছে। তাই ডুবন্ত জাহাজ থেকে সবার আগে সমুদ্রে ঝাঁপ দেয় ইঁদুর। কিন্তু, সেই ইঁদুরের দল যখন ফের সেই জাহাজেই ওঠে? তখন রাজনীতির অঙ্ক ভয়ঙ্কর জটিল হয়ে যায়।
লোকসভা ভোটের সময় এরাজ্যে প্রচারে এসে নরেন্দ্র মোদি বলেছিলেন, তৃণমূলের ৬০ জন বিধায়ক তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন। বিজেপির রাজ্য সভাপতি দাবি করেছিলেন, তাঁর সঙ্গে তৃণমূলের ১০০ জন বিধায়ক যোগাযোগ করছেন। অমিত শাহ আরও একধাপ এগিয়ে বলেছিলেন, লোকসভা ভোটের ফল যেদিন বের হবে তার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে পশ্চিমবঙ্গের সরকার পড়ে যাবে। বিজেপির কেন্দ্রীয় এবং রাজ্য নেতাদের আত্মবিশ্বাস এবং দৃঢ়তা দেখে অনেকেই তখন অঙ্ক কষা শুরু করে দিয়েছিলেন। তৃণমূল শাসনে ঘরে ঢুকে যাওয়ার সিপিএমের নেতা-কর্মীরা ভাবলেন, তৃণমূলকে বধ করার এই সুযোগ। তাঁরাও হয়তো ভেবেছিলেন, বিজেপি ভালো ফল করলেই তৃণমূলের বিধায়করা প্যারেড করে বিজেপিতে যোগ দেবেন। তার জেরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার সংখ্যালঘু হয়ে পড়বে। জারি হবে রাষ্ট্রপতি শাসন। সেই আশায় বুক বেঁধে বাম ভোট গেল রামে।
লোকসভা ভোটে গেরুয়া ঝড় দেখে ঘাপটি মেরে থাকা সিপিএমের হার্মাদরা মাথা চাড়া দিল। তারা চলে এল বিজেপির সামনের সারিতে। তার পাশাপাশি প্রায় গোটা রাজ্যে তৃণমূলের উইকেট পড়া শুরু হল। একের পর এক পঞ্চায়েত, পুরসভা তৃণমূলের হাতছাড়া হয়ে গেল। কয়েকজন বিধায়কও বিজেপিতে যোগ দিলেন বটে। কিন্তু, সংখ্যাটা গেরুয়া শিবিরের দাবির ধারেকাছেও গেল না।
রাজনীতির সঙ্গে প্রকৃতির একটা জায়গায় ভীষণ মিল পাওয়া যায়। জনপ্রিয়তায়। প্রকৃতির নিয়মের নদীতে যেভাবে জোয়ার ভাটা খেলে, রাজনীতিতেও তেমনটাই চলে। রাজনীতিতে জোয়ার ভাটা আছে বলেই তো ক্ষমতার বদল ঘটে। জোয়ারের জল ধরে রাখার মতোই কঠিন জনপ্রিয়তা ধরে রাখা। তৃণমূল নেতাদের ঘর ওয়াপসি দেখে অনেকেই বলতে শুরু করেছেন, বিজেপির ভাটার টান শুরু হয়েছে। কেউ কেউ আবার বলছেন, জোয়ারের তোড়ে ধেয়ে আসা নোনাজল বেরিয়ে যাচ্ছে। এবার আকাশের বৃষ্টিতে ফসল ফলবে।
কাদের দাবি সত্যি, তা বুঝতে আরও কিছুদিন সময় লাগবে। তবে বাস্তবটা হচ্ছে, অধিকাংশ জেলায় ঘর ওয়াপসির দৌলতে একের পর এক পঞ্চায়েত ও পুরসভা ফের তৃণমূলের দখলে আসতে শুরু করেছে। আর এব্যাপারে রেকর্ড গড়েছে উত্তর ২৪ পরগনা। লোকসভা ভোটের পর এই জেলাতেই সব চেয়ে বেশি দল বদলের হিড়িক পড়েছিল। আবার এখানেই সবচেয়ে বেশি ঘর ওয়াপসির ঘটনা। প্রশ্নটা হল, কেন এত দ্রুত এই প্রেক্ষাপট পরিবর্তন?
ক্ষমতার লোভ বড় ভয়ঙ্কর। এই ক্ষমতার লোভেই ঔরঙ্গজেব তাঁর বৃদ্ধ পিতা সম্রাট শাহজাহানকে কারাগারে নিক্ষেপ করেছিলেন। এই ক্ষমতার টানেই রাজনীতির কারবারিরা নিজের আঁতুড়ঘর ছেড়ে অবলীলায় হাঁটা দিতে পারে বিরোধী শিবিরে। লোকসভা ভোটে তৃণমূলের অবস্থা টলমল ভেবে দলের অনেক কেষ্টবিষ্টুই ছুটেছিলেন গেরুয়া শিবিরে। তাঁদের গলায় তখন একটাই সুর, ‘রং দে মুঝে গেরুয়া’।
শুধু তৃণমূলের নয়, সিপিএমের গ্রাম ও ব্লক স্তরের অনেকেই ফের ক্ষমতা ভোগের আশায় ‘শহিদের রক্তে রাঙা’ লাল ঝাণ্ডা ছুঁড়ে ফেলে দিয়ে হাতে তুলে নিয়েছিলেন পদ্মফুল। সিপিএম থেকে যাঁরা গিয়েছিলেন তাঁদের বেশিরভাগই সেখানেই অবস্থান করছেন। নতুন দলে সম্মান জুটছে না, তবুও থাকছেন। কংগ্রেস এবং সিপিএম কাছাকাছি আসা, উপনির্বাচনে আসন সমঝোতার পরেও নয়। কারণ তাঁরা মনে করছেন, পরীক্ষার হলে ফেল করা দু’জন ছাত্রকে দেখাদেখি করে লেখার সুযোগ দিলেও পাশ মার্কস জোগাড় করা তাদের পক্ষে খুবই কঠিন।
তৃণমূল নেতাদের ঘর ওয়াপসির পিছনে মূলত দু’টি কারণ শোনা যাচ্ছে। প্রথমত, অনেকেই ভাবছেন, লোকসভা ভোটের সাফল্য এরাজ্যের বিধানসভা ভোটে বিজেপি ধরে রাখতে পারবে না। দেশজুড়ে আর্থিক সঙ্কটের ধাক্কায় ‘মোদি ম্যাজিক’-এর সম্মোহনী ক্ষমতা দুর্বল হচ্ছে। ‘আচ্ছে দিনের’ স্লোগান এখন গেরুয়া শিবিরের কাছে ব্যুমেরাং। ‘কাটমানি’র মতো ইস্যুও বিজেপি কাজে লাগাতে ব্যর্থ। তার উপর এনআরসি ইস্যু ওপার বাংলা থেকে আসা মানুষের মনে আতঙ্কের সৃষ্টি করেছে। ফলে লোকসভা ভোটের পর বিজেপিকে ঘিরে তৈরি হওয়া উন্মাদনা অনেকটাই স্তিমিত। তাই যাঁরা ভেবেছিলেন, বিজেপি এরাজ্যে ২০২১ সালে ‘ক্লিন স্যুইপ’ করবে, এই পরিস্থিতিতে তাঁরাই এখন দোলাচালে পড়ে গিয়ে ঘরে ফিরতে চাইছেন।
অনেকে আবার এও বলছেন, ছড়ি ঘোরানোর আশায় যাঁরা বিজেপিতে গিয়েছিলেন, তাঁরা এই ক’মাসেই হতাশ। তাঁদের নাকি উপলব্ধি হয়েছে, জাত খুইয়েও পেট ভরার তেমন আশা নেই। কারণ এরাজ্যেও বিজেপির উপর আরএসএস-এর নিয়ন্ত্রণ বাড়ছে। সিপিএম এবং তৃণমূল থেকে আসা লোকজনকে তারা ঘরে জায়গা দিলেও ‘ঘরের ছেলে’ করতে চাইছে না। মারদাঙ্গার এলাকা বাদ দিয়ে বেশিরভাগ জায়গাতেই নব্যদের গুরুত্বহীন করে রেখে দিয়েছে। তাঁদের অবস্থা অনেকটা দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিকের মতো। কেউ কেউ বলছেন, বিজেপিতে যোগদানকারীদের অবস্থা অনেকটা আমেরিকার অভিবাসীদের মতো। অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে তাঁদের কপালে ‘গ্রিন কার্ড’ জুটলেও নাগরিকত্ব! নৈব নৈব চ। কেউ কেউ আবার বিজেপির সুদিন এলে ঘাড় ধাক্কা খাওয়ার ভয়ও পাচ্ছেন। তখন তাঁদের আমও যাবে, ছালাও যাবে। এইসব সাতপাঁচ ভেবেই নাকি ‘ঘর ওয়াপসি’।
তবে, এখানে সব চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হল, বিজেপি নেতৃত্ব কি তৃণমূল নেতাদের ‘ঘর ওয়াপসি’ ঠেকাতে পারছে না? নাকি চাইছে না?
একটা কথা ঠিক, ভোটের পর যাঁরা বিজেপিতে গিয়েছিলেন তাঁদের বেশিরভাগই ছিলেন জনপ্রতিনিধি। ওই জনপ্রতিনিধিদের অনেকে তাৎক্ষণিক জনরোষ থেকে বাঁচতেই ‘রং দে মুঝে গেরুয়া’ গান গেয়েছিলেন। আর সিপিএম থেকে যাঁরা গিয়েছেন, তাঁদের বেশিরভাগই মারকুটে প্লেয়ার। শয়নে, স্বপনে, জাগরণে তাঁদের একটাই ভাবনা, এলো মেলো করে দে মা, লুটেপুটে খাই। এককথায়, হার্মাদ সম্প্রদায়ভুক্ত। সেই মূলধনের জোরেই কেশপুর, গড়বেতা, পটাশপুর, ময়না, আরামবাগ, খানাকুল, গোঘাট, পাত্রসায়র, ইন্দাস, দিনহাটা প্রভৃতি এলাকায় তৃণমূলের সঙ্গে বিজেপি সমানে টক্কর নিচ্ছে। কোনও কোনও এলাকায় তৃণমূলকে ঘরে ঢুকিয়েও দিচ্ছে। ফিরে আসছে বাম জমানার সেই স্মৃতি। সাধারণ মানুষ মারদাঙ্গার রাজনীতি মেনে নিতে পারছে না। শুধু সাধারণ ভোটাররাই নয়, বিজেপির একটা অংশও এসব পছন্দ করছে না।
লোকসভা ভোটে অভাবনীয় সাফল্যের পর বিজেপি নেতারা সংসার বাড়ানোর লোভে হাট করে খুলে দিয়েছিল দরজা। রক্ষীহীন সেই দরজা দিয়ে যিনিই ঢুকেছেন তাঁকেই পদ্মফুলে বরণ করা হয়েছে। কিন্তু, বিজেপি নেতারা তখন সম্ভবত ভুলে গিয়েছিলেন, বন্যার জলে শুধু মাছ আসে না, সাপ, ব্যাঙও থাকে। দরজা খোলা পেয়ে এখানেও মাছের পিছু পিছু অনেক সাপ, ব্যাঙও ঢুকে গিয়েছে। আর তার খেসারতও বিজেপিকে দিতে হচ্ছে। শুরু হয়েছে আদি-নব্যের লড়াই। কোণঠাসা আদিরা ক্রমশ নিষ্ক্রিয় হয়ে যাচ্ছে। বিজেপির এখন শ্যাম রাখি, না কুল রাখি অবস্থা।
ঘটা করে তৃণমূলের নেতাদের দলে যোগদান করিয়েও তাঁদের ধরে রাখতে না পারার পিছনে বিজেপি নেতৃত্বের ব্যর্থতা ক্রমশই প্রকট হচ্ছে, একথা ঠিক। কিন্তু, ‘হারাধন’রা ঘরে ফেরায় তৃণমূলের কি সবটাই লাভ হচ্ছে? কারণ যাঁদের সৌজন্যে লোকসভা ভোটে বিপর্যয়, তাঁরাই ফের দলের মুখ হয়ে উঠলে জনমানসে বিরূপ প্রভাব অনিবার্য। ধাক্কা খেতে পারে ‘দিদিকে বলো’র হাত ধরে ঘুরে দাঁড়ানোর লড়াই।
দল বদলে রেকর্ড গড়ে বসেছে কোচবিহার জেলার দিনহাটা মহকুমার ভেটাগুড়ি ১ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েত। নির্বাচনে পঞ্চায়েতটি দখল করেছিল তৃণমূল। লোকসভা ভোটে কোচবিহারে বিজেপি জিততেই বহু তৃণমূল নেতা গেরুয়া শিবিরে যোগ দিতে শুরু করেন। অন্যান্য পঞ্চায়েতের সঙ্গে ভেটাগুড়ি ১ পঞ্চায়েতটিও চলে যায় বিজেপির দখলে। কিন্তু, কিছুদিন যেতে না যেতেই ফের ওই পঞ্চায়েতের অধিকাংশ সদস্যই ফের তৃণমূলে ফেরেন। তারপর ৩১ অক্টোবর আবার ওই পঞ্চায়েতের ১০জন সদস্যের মধ্যে ৯জনই বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন।
কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, কেন এত ঘন ঘন জার্সি বদল? যাঁরা রাজনীতির উপরতলার বাসিন্দা তাঁদের ঘর বদলের পিছনে অনেক অঙ্ক থাকে। অনেক চাওয়া পাওয়া থাকে। অনেক দর কষাকষিও হয়। থাকে অনেক শর্তও। কিন্তু, সবাই কি শুধু পাওয়ার জন্যই দল, আদর্শ, পারস্পরিক সম্পর্ককে অস্বীকার করে বিপরীত মেরুতে চলে যাচ্ছেন, নাকি বহু ক্ষেত্রে পরিস্থিতি বাধ্য করছে?
ভেটাগুড়ি ১ পঞ্চায়েতের সদস্য প্রবীণ বর্মণ তৃণমূল ছাত্র পরিষদ পরিচালিত দেওয়ানহাট কলেজের কালচারাল সেক্রেটারি ছিলেন। প্রবীণবাবু বলেন, পঞ্চায়েত ভোটে আমি নির্দল প্রার্থী হয়েছিলাম। জিতেছিলাম তৃণমূলের ভোটেই। তাই জেতার পর তৃণমূলে যোগ দিয়েছিলাম। কিন্তু, লোকসভা ভোটের পর সকলের সঙ্গে আমিও বিজেপিতে গেলাম। কিন্তু, সেখানে নেতৃত্বের অভাব। তাই ফের সকলে তৃণমূলে। আমিও ছিলাম। এমপি যোগাযোগ করায় সকলে সিদ্ধান্ত নিল, বিজেপিতে যোগ দেব। আমিও বিজেপিতে চলে গেলাম।
এই তরুণ পঞ্চায়েত সদ঩স্যের স্বীকারোক্তি, আসলে এখন আমাদের অবস্থা ফুটবলের মতো। একবার এ নেতার লাথি খেয়ে অন্য নেতার পায়ে গিয়ে পড়ছি। আবার কিছুদিন পর সেই নেতার লাথি খেয়ে অন্যজনের পায়ের সামনে। বারবার ডিগবাজি খাচ্ছি। হাসির খোরাক হচ্ছি। এসব আর ভালো লাগছে না।
ভালো না লাগারই কথা। কারণ আজ যিনি সঙ্গী, কাল তিনিই হয়ে যাচ্ছেন প্রতিপক্ষ। এখানে টিকে থাকার জন্য মুন্সিয়ানার দরকার। রং বদলের খেলায় গিরগিটিকেও হার মানানোর মুন্সিয়ানা লাগে। আর সেটা না থাকলে ভালো না লাগাটা দিন দিন জাঁকিয়ে বসবে। এর থেকে বেরিয়ে আসার কোনও উপায় নেই। কারণ রাজনীতির ময়দান এখন আক্ষরিক অর্থেই কুরুক্ষেত্রের প্রান্তর।
কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধে জ্যেষ্ঠ তাত যুধিষ্ঠির ও ভীমের নির্দেশে অভিমন্যু প্রবেশ করেছিলেন দ্রোণাচার্ষের তৈরি ‘ফাঁদ’ চক্রব্যূহে। অভিমন্যু তখন মাত্র ১৬। প্রবীণের মতো অনেকেই একইভাবে প্ররোচিত হয়ে ঢুকে পড়েন রাজনীতির চক্রব্যূহে। তাঁদের অবস্থাও অনেকটা মহাভারতের অভিমন্যুর মতোই। ঢুকে যান অনায়াসেই, কিন্তু চক্রব্যূহ থেকে বের হওয়ার রাস্তাটা তাঁদেরও অজানাই থেকে যায়। যুগে যুগে যুদ্ধক্ষেত্রের একটাই ভাষা, ‘হয় মারো, না হয় মরো’। এখানে শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের কোনও জায়গা নেই। রাজনীতিতে বিরোধী ও শাসকের সহাবস্থানের নাম ‘সমঝোতা’।
16th  November, 2019
কুকথায় হাততালি জুটলেও
দূরে সরে যায় মানুষ 
তন্ময় মল্লিক

রুটি সেঁকার জন্য তাওয়া গরম করতে হয়। আবার সেই তাওয়া বেশি তেতে গেলে রুটি যায় পুড়ে। তখন খাবারের থালার বদলে রুটির জায়গা হয় ডাস্টবিনে। রাজনীতিতেও তেমনটাই। কর্মীদের চাঙ্গা করার জন্য নেতারা গরম গরম ভাষণ দেন। কিন্তু তা মাত্রা ছাড়ালে মানুষ মুখ ফিরিয়ে নেয়।  
বিশদ

বাংলার সমাজ ও
রাজনৈতিক সন্ধিক্ষণ
সমৃদ্ধ দত্ত

সেদিন বিকেলে তাঁকে ভেন্টিলেটরে নিয়ে যাওয়া হবে। কারণ, প্রবল শ্বাসকষ্ট। অক্সিজেন দিলেও কাজ হচ্ছে না তেমন। এইমস ডাক্তাররা বুঝলেন পরিস্থিতি ভালো নয়। অনেকদিন হয়ে গেল কোভিডে আক্রান্ত হয়েছিলেন।   বিশদ

18th  September, 2020
‘এক ভারত, শ্রেষ্ঠ ভারত’-এর
রূপকার নরেন্দ্র মোদি
যোগী আদিত্যনাথ

রাজা কালস্য কারণম্‌। মহাভারতের ‘শান্তিপর্ব’-এ যুধিষ্ঠিরকে উপদেশ দিতে গিয়ে পিতামহ ভীষ্ম এই কালজয়ী কথাটি বলেছিলেন। কথাটি পিতামহ নিজের লোকদের বলেছিলেন বলে মনে হতে পারে। কিন্তু এর ভিতরে এই ভারতের সবার জন্যই একটি জোরালো বার্তা তিনি রেখে গিয়েছেন।  বিশদ

17th  September, 2020
কাজ দাও, মুলতুবি রাখো
গ্রেট গেরুয়া সার্কাস
হারাধন চৌধুরী

দু’দশক যাবৎ ভারতীয় মিডিয়ায় সার্কাসের এলিজি বা শোকগাথা লেখা হচ্ছে। বেশিরভাগ লেখা ভারী হয়ে উঠছে জোকারদের জন্য সহমর্মিতায়। জোকারের জীবন কঠিন। কেউ শখ করে জোকার হয় না। কারও কারও জীবনখাতায় এই ভবিতব্যই লেখা থাকে।  বিশদ

17th  September, 2020
 কোনও প্রশ্ন নয়, নো কোয়েশ্চেনস!
সন্দীপন বিশ্বাস

 মোদি, অমিত শাহ তথা বিজেপি নেমে পড়েছে বিহার জয়ে। সেখানে অবশ্য নীতীশের হাত ধরে বিজেপিকে ভোট বৈতরণী পার হতে হবে। সেখানে রাজপুত ভোট আর ক্ষত্রিয় ভোট নিজেদের বাক্সে আনতে বিজেপিকে খেলতে হল দু’টি খেলা। একজনকে ডাইনি বানানো হল, অন্যজনকে দেবী বানানো হল।
বিশদ

16th  September, 2020
 সত্যিটা দেখলাম না... দেখানো হল না
শান্তনু দত্তগুপ্ত

এতকিছুর পরও আমেরিকার অর্থনীতি ধাক্কা খেল না। ট্রাম্প বুঝেছিলেন, ব্যবসাটা তিনি জানেন। করোনা ভাইরাসকে নয়। কাজেই শক্তিশালী অর্থনীতিকে বসিয়ে দেওয়ার মানে হয় না। করোনা আজ না হয় কাল কমবে। অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াতে বছর লেগে যাবে। বিশদ

15th  September, 2020
ফেসবুক দিয়ে ঘৃণা-বিদ্বেষ
ছড়ালে কার লাভ হয়?

২০১৯। সাধারণ নির্বাচনের আগে একটি কাগজের হেডলাইন ছিল ‘গুগল কি ভারতীয় নির্বাচনকে প্রভাবিত করছে?’ খবরটা বেরনোমাত্রই ‘গুগল’ অস্বীকার করেছিল। কিন্তু অন্যকিছু সংস্থা টের পায়, গুগলে যেভাবে প্রার্থীদের সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয়েছে সেই তথ্য একটু সংশ্লেষণ করলে দ্বিধান্বিত ভোটারদের সহজেই প্রভাবিত করা সম্ভব।
বিশদ

15th  September, 2020
দমনমূলক ফেডারালিজম চলছে
পি চিদম্বরম

এটা পরিষ্কার যে মোদি সরকার এবার তার বিপুল গরিষ্ঠতাকে ব্যবহার করবে। রাজ্যগুলির মতামতের কোনও তোয়াক্কা করবে না। ইচ্ছেমতো সংশোধনী পাশ করিয়ে নেবে। ফেডারালজিমকে আরেকটি ধাক্কা দেবে। ‘এক জাতি, এক সবকিছু’ পরিণামে ‘এক জাতি’কে ধ্বংস করে ছাড়বে।
বিশদ

14th  September, 2020
নতুন জাতীয় শিক্ষানীতিতে
স্কুলশিক্ষার সর্বনাশ হবে
প্রদীপকুমার দত্ত

 সরকারি স্কুলগুলির পরিকাঠামো উন্নত করে শিক্ষাকে সব মানুষের নাগালের মধ্যে নিয়ে আসার জন্য যে অর্থের প্রয়োজন তা বরাদ্দের কোনও সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা এই শিক্ষানীতিতে নেই। বরং এই শিক্ষানীতি শিক্ষার বেসরকারিকরণের পথকেই প্রশস্ত করবে। শিক্ষা ক্ষেত্রে ধনী-দরিদ্র বৈষম্য আরও বাড়বে।
বিশদ

14th  September, 2020
সন্তোষকুমার ঘোষ: অসাধারণ ব্যক্তিত্ব, প্রচণ্ড
ক্ষমতাবান সাহিত্যিক ও যুগান্তকারী সাংবাদিক
বরুণ সেনগুপ্ত

খবরের কাগজ সাধারণ মানুষের জন্য। তাই সাধারণ মানুষ যেসব খবরে আগ্রহী সেইগুলিই বেশি করে লেখা উচিত। অথবা যেমন, খবরের কাগজে যা লেখার তা সোজাসুজি লেখা উচিত। ‘এটাও হয় ওটাও হয়’ গোছের ব্যাপার নয়। এই জিনিসগুলি হাতেকলমে শিখেছি সন্তোষকুমার ঘোষের কাছে।
বিশদ

13th  September, 2020
সিবিআইয়ের বন্দিদশা কাটবে কবে?
হিমাংশু সিংহ

 সুশান্তের মৃত্যু হয় ১৪ জুন। আর আজ ১৩ সেপ্টেম্বর। তাঁর আকস্মিক চলে যাওয়ার পর ঠিক তিন মাস অতিক্রান্ত। প্রতিভাবান অভিনেতার মৃত্যু রহস্যের তদন্তে কোথাকার জল কোথায় গিয়ে দাঁড়ায় তার তল খুঁজে পাচ্ছেন না তুখোড় সিবিআই গোয়েন্দারাও। কিংবা বলা ভালো, সত্যি তল খোঁজার চেষ্টা হচ্ছে কি?
বিশদ

13th  September, 2020
কঠোর আইন অপেক্ষা জরুরি
সন্তানের মূল্যবোধ তৈরি
তন্ময় মল্লিক

বাবা, মায়ের সুরক্ষার জন্য সরকারকে আনতে হচ্ছে আরও কঠোর বিল। যে কাজ করে সন্তানের ধন্য হওয়ার কথা, তা পালনের জন্য দেখাতে হচ্ছে জেলের ঘানি টানার ভয়। এ বড়ই দুর্ভাগ্য। লজ্জাও বোধহয় এদের দেখে লজ্জায় মুখ লুকায়!
বিশদ

12th  September, 2020
একনজরে
সংবাদদাতা, রামপুরহাট: রামপুরহাটে তৃণমূল বিধায়কের নার্সিংহোমে হামলা ও ভাঙচুরের অভিযোগে তিনজনকে গ্রেপ্তার করল পুলিস। শুক্রবার ধৃতদের রামপুরহাট আদালতে তোলা হয়।  ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: করোনা পরিস্থিতির জন্য এমবিবিএস, বিডিএস, আয়ুষ, নার্সিং সহ বিভিন্ন চিকিৎসা পাঠ্যক্রমের বহু ছাত্রছাত্রীর পরবর্তী বছরে প্রোমোশন হয়নি। মার্কশিটও পাননি। ফলে বৃত্তিও আটকে গিয়েছে।   ...

উত্তরপ্রদেশে ফের নাবালিকাকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠল এক যুবকের বিরুদ্ধে। গত শনিবার ঘটনাটি ঘটে বান্দা জেলায়। কিন্তু শুক্রবার ওই কিশোরীর মা স্থানীয় থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।   ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: মেডিক্যাল পরীক্ষা এবং পুলিস ভেরিফিকেশন না হওয়ায় বহু শিক্ষকের চাকরি পাকা হয়নি। অথচ চাকরি পাওয়ার পর কেটে গিয়েছে দু’বছর। নিয়ম অনুযায়ী, দু’বছর পর চাকরি পাকা হবে। কিন্তু তার জন্য পুলিস ও মেডিক্যাল রিপোর্ট ইতিবাচক হতে হবে।  ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কথাবার্তা ও আচরণে সংযমের অভাবে বিপত্তির আশঙ্কা। কোনও হঠকারী বা দুঃসাহসিক কাজ না করাই ভালো। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯১৯- অভিনেতা জহর রায়ের জন্ম
১৯২১- সাহিত্যিক বিমল করের জন্ম
১৯২৪- গায়িকা সুচিত্রা মিত্রের জন্ম
১৯৬৫- মহাকাশচারী সুনীতা উইলিয়ামসের জন্ম  



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭২.৮৯ টাকা ৭৪.৬০ টাকা
পাউন্ড ৯৩.৫৫ টাকা ৯৬.৯১ টাকা
ইউরো ৮৫.১০ টাকা ৮৮.২১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৫২,২৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৯,৬০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৫০,৩৪০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬৬,২৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬৬,৩৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৩ আশ্বিন ১৪২৭, শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, দ্বিতীয়া ৯/১৬ দিবা ৯/১১। চিত্রা নক্ষত্র ৪৯/৪১ রাত্রি ১/২১। সূর্যোদয় ৫/২৮/২, সূর্যাস্ত ৫/৩২/৫৪। অমৃতযোগ দিবা ৬/১৫ মধ্যে পুনঃ ৭/৪ গতে ৯/২৯ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৫ গতে ৩/৯ মধ্যে পুনঃ ৩/৫৮ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ১২/৪২ গতে ২/১৭ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ রাত্রি ২/১৭ গতে ৩/৫ মধ্যে। বারবেলা ৬/৫৮ মধ্যে পুনঃ ১/১ গতে ২/৩১ মধ্যে পুনঃ ৪/২ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ৭/৩ মধ্যে পুনঃ ৩/৫৮ গতে উদয়াবধি।  
২ আশ্বিন ১৪২৭, শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, দ্বিতীয়া দিবা ১২/২৯। হস্তানক্ষত্র দিবা ৭/৫৬। সূর্যোদয় ৫/২৭, সূর্যাস্ত ৫/৩৫। অমৃতযোগ দিবা ৬/২০ মধ্যে ও ৭/৭ গতে ৯/২৯ মধ্যে ও ১১/৪৮ গতে ২/৫৫ মধ্যে ও ৩/৪২ গতে ৫/৩৫ মধ্যে এবং রাত্রি ১২/৩৮ গতে ২/১৭ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ রাত্রি ২/১৭ গতে ৩/৬ মধ্যে। কালবেলা ৬/৫৮ মধ্যে ও ১/২ গতে ২/৩৩ মধ্যে ও ৪/৪ গতে ৫/৩৫ মধ্যে। কালরাত্রি ৭/৪ মধ্যে ও ৩/৫৮ গতে ৫/২৮ মধ্যে।  
মোসলেম: ১ শফর। 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
রাজ্যে করোনায় আক্রান্ত আরও ৩,১৯২ জন 
রাজ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩,১৯২ জনের শরীরে মিলল করোনা ...বিশদ

18-09-2020 - 08:42:07 PM

ফের গুগল প্লে স্টোরে মিলবে পেটিএম অ্যাপ 
ফের গুগল প্লে স্টোরে মিলবে দেশের অন্যতম জনপ্রিয় ই-ওয়ালেট অ্যাপ ...বিশদ

18-09-2020 - 07:40:01 PM

পঞ্চায়েত অফিসের কাছেই
দোকানে মিলল ঝুলন্ত দেহ 

সংবাদদাতা, পুরাতন মালদহ: পঞ্চায়েত অফিসের কাছেই, একটি দোকানের সামনের অংশে ...বিশদ

18-09-2020 - 05:50:00 PM

মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের জেরে মৃত্যু শর্বরী দত্তর
মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের জেরে মৃত্যু হয়েছে শর্বরী দত্তর। ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্টে ...বিশদ

18-09-2020 - 05:41:00 PM

বনগাঁয় ধৃত ৩ বাইক চোর 
বাইক চুরির চক্রের সঙ্গে জড়িত তিনজনকে গ্রেপ্তার করল পুলিস। ধৃতদের ...বিশদ

18-09-2020 - 04:41:27 PM

হাবড়ায় জোড়া খুনের ঘটনায় ধৃত অভিযুক্ত 
হাবড়ায় প্রৌঢ় দম্পতি খুনের ঘটনার ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে কিনারা করল ...বিশদ

18-09-2020 - 04:16:42 PM