Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

জল বেড়েছে, বোধ বাড়েনি
রঞ্জন সেন

সমুদ্রের জলস্তর বাড়ার ফলে পৃথিবীর বহু উপকূলবর্তী দেশ ও দ্বীপ বিপন্ন হবে বলে পরিবেশবিজ্ঞানীরা আশঙ্কা প্রকাশ করছেন। তাঁরা এটাও বলছেন আমরা সবাই মিলে এবং রাষ্ট্রনায়কেরা চাইলে গ্রিনহাউস গ্যাস নিঃসরণ কমিয়ে এই অবস্থার মোকাবিলা করতে পারি। কিন্তু বিপদ যখন একেবারে ঘাড়ের কাছে তখনই আমেরিকা, চীন এবং ভারতের মত দেশগুলি ২০১৫ তে প্যারিসে গৃহীত হওয়া ক্লাইমেট প্যাক্ট থেকে সরে আসতে চাইছে। সমীক্ষায় দেখা গেছে বিশ্বের বৃহৎ শক্তিধর দেশগুলিসহ প্রায় ৭৫ শতাংশ দেশই তাদের দূষণ নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্য মাত্রা পূরণ করতে পারেনি। আমরা সবাই জানি উন্নত দেশগুলি তাদের দূষণের দায় অন্য দেশগুলির উপর চাপিয়ে দেয়। দায়িত্ব এড়াতে কয়েকটি শক্তিশালী রাষ্ট্র এখন এই চুক্তি থেকে বেরিয়ে আসতে চাইছে। এমন একটা সময়ে এটা ঘটছে যখন পরিবেশ বিজ্ঞানীরা আশঙ্কা করছেন উষ্ণায়নের ফলে ২০৫০ এর মধ্যেই সমুদ্রের জলস্তর আরও প্রায় সাড়ে চার ইঞ্চি বাড়বে, প্লাবিত হবে বহু দেশ।
এই সতর্কবাণী কিন্তু পরিবেশবিজ্ঞানীরা মানুষকে কোনও ভয় দেখানোর জন্য দিচ্ছেন না, কাউকে আতঙ্কিত করাও তাঁদের উদ্দেশ্য নয়। তাঁরা শুধু বলছেন এই অবস্থা মোকাবিলার প্রস্তুতিটা আরও জোরদার করার কথা। নইলে পরিস্থিতি একেবারে আয়ত্তের বাইরে চলে যাবে। ইতিমধ্যেই প্রস্তুত হওয়ার জন্য আমরা অনেকটা সময় পেয়েছিলাম, কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। দূষণ বেড়েছে, কিন্তু যাঁরা তা আটকানোর কাজে নেতৃত্ব দেবেন সেই রাষ্ট্রনায়কেরা কোন বাস্তবসম্মত পদক্ষেপ নিতে পারেন নি। দেখেশুনে মনে হয় বোধবুদ্ধি তেমন বাড়েনি তাঁদের। বহুজাতিক সংস্থার চাপে তাঁরা গ্রিনহাউস গ্যাস কমানোর ব্যাপারটা ঠিকঠাক করে উঠতে পারেন নি, তৈরি হয়নি এই গ্যাস নিঃসরণ রোখার উপযোগী কোনও গাইড লাইন। ফলে পৃথিবীর উপকূলবর্তী জনপদগুলির একটা বিরাট অংশের মানুষ এক বিপর্যয়ের সামনে এসে দাঁড়িয়েছেন। আমাদের দেশের কথাই বলি, সমুদ্রের জলস্তর বাড়লে আমাদের দেশের ৩টি উপকূলবর্তী শহর সুরাত, কলকাতা, মুম্বাই এবং ওড়িশা, কেরল ও চেন্নাই—এই তিন রাজ্যের মানুষ এরফলে সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগে পড়বেন।
ট্রাম্প যখন ২০১৫তে প্যারিসে তৈরি আন্তর্জাতিক জলবায়ু চুক্তি থেকে বেড়িয়ে আসতে চাইছেন ঠিক তার কিছুদিন আগেই প্রকাশিত হয়েছে বিশ্বের পরিবেশ বিজ্ঞানী ও সাংবাদিকদের সংস্থা ক্লাইমেট সেন্ট্রালের রিপোর্ট। কোস্টালডেম নামে একটি নতুন সফটওয়্যার ব্যবহার করে সংগৃহীত এই রিপোর্টে বলা হয়েছে ভারতের প্রায় ৩৬ মিলিয়ন মানুষ সমুদ্রের জলস্ফীতির ফলে বন্যার কবলে পড়বেন। পশ্চিমবঙ্গের জেলাগুলির মধ্যে পশ্চিম মেদিনীপুরের বিপদ সবচেয়ে বেশি। প্লাবিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে হাওড়ার উদয়নারায়ণপুর, উত্তর ২৪পরগনার বনগাঁ, হুগলির হরিপাল ও সিঙ্গুর, পূর্ব মেদিনীপুরের পাঁশকুড়া ও ঘাটাল। এরফলে বাড়িঘর ছাড়া হবেন রাজ্যের প্রায় ৪কোটি মানুষ। অথচ এমন হওয়ার কোনও কথাই ছিল না। পরিবেশে এই বিপদের আভাস ছিল। বিজ্ঞানীরা সতর্ক করেছিলেন, কিন্তু আমরা সতর্ক হইনি। রাষ্ট্রনায়কেরা তার জন্য আমাদের প্রস্তুত করেননি।
রবীন্দ্রনাথ বলেছিলেন, প্রস্তুত থাকার নামই সভ্যতা। বর্বরতা সবসময়ই অপ্রস্তুত। কথা হচ্ছে বিচক্ষণ রাষ্ট্রনায়কেরা তো তথাকথিত অশিক্ষিত ও বর্বর নন, তাঁরা এই ভুল করলেন কেন? এর একটাই উত্তর, সীমাহীন লোভ ও পরিবেশের উপর একচেটিয়া লুঠপাট, গাছকাটা, জলাভূমি বিলোপ করা, বায়ুদূষণ ছড়ানোর কাজে লাগাতার মদত দিয়ে গেছেন তাঁরা। কার্বন নিঃসরণ কম করার জন্য তেমন কোনও ব্যবস্থা নেওয়ার বদলে আকাশছোঁয়া বাড়ি, পুলকার ও সাইকেলের বদলে অসংখ্য গাড়ি, জঙ্গল পাহাড় কেটে আবাসন গড়ার কাজে মদত দিয়েছেন তাঁরা। জলবায়ু দূষণ রুখতে মিলেমিশে কাজ করার বদলে নিজেদের অহম নিয়েই ব্যস্ত থেকেছেন। প্রযুক্তি এসে গেছে কিন্তু এখনও বহু দেশ জিআইএস নির্ভর জরুরি দূষণমুক্তি ব্যবস্থা চালু করেনি। এই সঙ্কটের মুহূর্তেও জলবায়ু চুক্তি থেকে বেরিয়ে যাবো বলে চাপ সৃষ্টির রাজনীতি করে চলেছেন ট্র্যাম্প অ্যান্ড কোং।
অথচ পৃথিবীর উপকূলরেখা ও মানুষের বাসভূমির অবস্থানের দিকে তাকালে সমস্যাটার গুরুত্ব বোঝা যায়। বিশ্বের প্রায় ১১০ মিলিয়ন মানুষই বাস করেন এখন জোয়ারের জল সর্বোচ্চ যে উচ্চতায় ওঠে তার অনেক নীচে। এর পাশাপাশি প্রায় ২৫০ মিলিয়ন মানুষ বাস করেন বন্যার সময় বার্ষিক জলস্তর যে জায়গায় পৌঁছায় তার চেয়ে নিচু জমিতে। স্বাভাবিকভাবেই সমুদ্রের জলস্তরের উচ্চতা বাড়লে এরা যে বিপদে পড়বেন তা বুঝতে কোনও বিশেষজ্ঞ হওয়ার দরকার হয় না। এ নিয়ে পরিবেশ বিজ্ঞানীদের সতর্কতা কোনও নতুন ঘটনাও নয়। বছর দুয়েক আগেও বিশ্বের বিভিন্ন রাষ্ট্রের উদ্যোগে তৈরি ইন্টারন্যাশনাল প্যানেল অন ক্লাইমেটিক চেঞ্জ তাদের রিপোর্টে জানিয়েছিল, বৃহত্তর কলকাতার প্রায় ১কোটি ৪ লক্ষ মানুষ তাঁদের বাসভূমি প্লাবিত হওয়ার ফলে ২১০০ সালের মধ্যেই গৃহহীন হবেন।
এখন এই বিপদ আরও বেশি, প্রায় চতুর্গুণ। এবং ব্যাপারটা এমন নয় যে এই বিপদ ঘটবে কোনও অনাগত ভবিষ্যতে। বিপদের বৃত্ত আরও প্রসারিত হয়েছে এখন। শাটল রাডার টপোগ্রাফি মিশন মোটামুটিভাবে তার সময়কালও জানিয়েছে। বিশ্বের উপকূলবর্তী এলাকার প্লাবন ভারত, বাংলাদেশ, চীন, ভিয়েতনাম, ইন্দোনেশিয়া, থাইল্যান্ডের প্রায় ২৩ কোটি ২৭ লক্ষ মানুষের জীবনকে বিপন্ন করবে। এটা শুধু ঘরবাড়ি ডুবে যাওয়ার মত ব্যাপার নয়, বিষয়টার কবলে পড়া দেশগুলির অর্থনীতি, শহরের উপকূলরেখা সহ গোটা অঞ্চলটার চেহারাতেই যাকে বলে একেবারে আমূল পরিবর্তন আসবে। যার প্রভাব পড়বে জনবসতি থেকে শুরু করে রাষ্ট্রগুলির গঠন, রাজনীতি, সংস্কৃতি, জীবনযাপন, বাণিজ্য, যোগাযোগ সবকিছুর উপর।
আমাদের এখানে একটা মুশকিল আছে। কিছু মানুষ এই ধরনের সমীক্ষার রিপোর্ট বা আশঙ্কাতে একটা মুখরোচক আলোচনার বিষয় করে নেয়। তাতে কাজের কাজ কিছু হয়না, বরং তৈরি হয় একটা অহেতুক আতঙ্কের পরিবেশ। আরেক দল ঠিক উল্টোটা, তাঁরা বলতে শুরু করেন, দূর ছাড়ো তো, ওরকম কত রিপোর্ট দেখলাম, এসব শুধু বাজার গরম করার জন্য গল্প। এসব আলোচনার গণ্ডি পেরিয়ে জলবায়ুর পরিবর্তন এখন একটা বাস্তবতা। তা শুধুই ‘ঘটবে’ তে আটকে নেই। ইতিমধ্যেই ঘটতে শুরু করেছে। অযথা আতঙ্ক না বাড়িয়ে বা বিতর্ক তৈরি না করে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেওয়া শুরু করলে অবস্থাটা অনেকটাই সামাল দেওয়া যাবে বলে পরিবেশ বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন।
রাষ্ট্রের কাজ রাষ্ট্র করবে, কিন্তু সব দায়টা রাষ্ট্রের উপর চাপিয়ে নিজেরা চুপ করে বসে থাকাটা কোনও কাজের কথা নয়। বর্জ্যের পুনঃব্যবহার এবং গৃহস্থালির বর্জ্যের অর্ধেক পুনঃব্যবহারযোগ্য করলেই বছরে অনেকটা গ্রিন হাউস গ্যাস নিঃসরণ কমানো যায়। এয়ার কন্ডিশনার ব্যবহার এবং অকারণে খাবার জিনিস ও জল ইত্যাদি গরম করার অভ্যাস কমালে বাতাসে কার্বন ডাই অক্সাইড কমে। গাছ লাগানো মানেই দূষণ কমানো। ছোটবেলা থেকেই বিজ্ঞান বইতে পড়ে আসছি গাছ কার্বন ডাই অক্সাইড টেনে নিয়ে বাতাসে অক্সিজেনের পরিমাণ বাড়ায়।
কিন্তু তা শুধুই বইয়ের পাতাতেই রয়ে গেল! নিজেদের জীবনে আমরা তার কোন প্রয়োগ করলাম না। গাছ কাটাই যেন আমাদের সাধারণ অভ্যাস। কোনও নিত্যব্যবহার্য জিনিস কেনার আগে তাতে বিদ্যুৎ খরচ সাশ্রয় হয় কিনা দেখে নিন। এসব ছোট ছোট পদক্ষেপই কিন্তু কার্বন নিঃসরণের বিপদ অনেকটা কমাতে পারে। সত্যি বলতে কী মানুষ এখন ঠেকে শিখেছেন। আমাদের ছোট ছোট অভ্যাসের বদল কিন্তু কালক্রমে একটা বিরাট শক্তিতে পরিণত হয়ে রাষ্ট্রনায়কদের উপর চাপ সৃষ্টি করবে, তাদের নতুন করে ভাবতে শেখাবে। অহম আর অত্যাধিক পরিমাণে কার্বন নিঃসরণ করা শিল্পগুলিকে নিয়ন্ত্রণ করার কাজে আরও জোর দেবেন তাঁরা।
এটা কোনও ব্যক্তিগত লড়াই নয়, কোনও নির্দিষ্ট দেশের লড়াইও নয়, উষ্ণায়নের বিরুদ্ধে বিশ্বের মানুষের লড়াই। জলবায়ু চুক্তি ভেঙে বেরিয়ে আসার দায়িত্বজ্ঞানহীন কাজ নয়, আগামী ৩০ বছরের মধ্যে প্রতিটি দেশের অর্ধেক সবুজ করা গেলে এই বিপদকে অনেকটা আটকানো যায়। আর রাষ্ট্রনায়কদেরও ভাবতে হবে রাষ্ট্রই যদি না থাকে তাহলে তাঁরা মাতব্বরি করবেন বা জোর খাটাবেন কার উপর?
16th  November, 2019
ক্ষমা করো সুভাষ
জয়ন্ত চৌধুরী

মুক্তিপথের অগ্রদূত তিনি। অখণ্ড ভারত সাধনার নিভৃত পথিক সুভাষচন্দ্রের বৈপ্লবিক অভিঘাত বাধ্য করেছিল দ্রুত ক্ষমতা হস্তান্তরের পটভূমি রচনা করতে। দেশি বিদেশি নিরপেক্ষ ঐতিহাসিকদের লেখনীতে আজাদ হিন্দের অসামান্য আত্মত্যাগ স্বীকৃত হয়েছে। সর্বাধিনায়কের হঠাৎ হারিয়ে যাবার বেদনা তাঁর জন্মদিনেই বড় বেশি স্পর্শ করে যায়।  
বিশদ

স্বামীজি, বিশ্বকবি ও নেতাজির খিচুড়ি-বিলাস
বিকাশ মুখোপাধ্যায়

মঙ্গলকাব্য থেকে কাহিনীটা এভাবে শুরু করা যেতে পারে।
সকাল সকাল ঘুম থেকে উঠেই মা দুর্গা নন্দিকে তলব করেছেন, যাও ডাব পেড়ে নিয়ে এসো।
নন্দির তখনও গতরাতের গাঁজার খোঁয়ার ভাঙেনি। কোনওরকমে জড়ানো স্বরে বলল, ‘এত্তো সকালে মা?’  বিশদ

‘যে আপনকে পর করে...’
শান্তনু দত্তগুপ্ত

মহাত্মা গান্ধী একটা কথা বলতেন, মনপ্রাণ দিয়ে দেশের সেবা যিনি করেন, তিনিই সত্যিকারের নাগরিক। নাগরিক কাহারে কয়? বা নাগরিক কয় প্রকার ও কী কী? এই জাতীয় প্রশ্ন এখন দেশে সবচেয়ে বেশি চর্চিত। সবাই নিজেকে প্রমাণে ব্যস্ত। ভালো নাগরিক হওয়ার চেষ্টাচরিত্র নয়, নাগরিক হতে পারলেই হল। তার জন্য কাগজ লাগবে। এক টুকরো কাগজ প্রমাণ করবে, আপনি আমি ভারতের বাসিন্দা।   বিশদ

21st  January, 2020
আইন ও বাস্তব
পি চিদম্বরম

আপনি যখন এই লেখা পড়ছেন তখন ইন্টারনেট, আন্দোলন, জনসমাবেশ, রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড, ভাষণ ও লেখালেখি এবং কাশ্মীর উপত্যকার পর্যটকদের উপর নিয়ন্ত্রণ জারি রয়েছে। কোনোরকম ‘চার্জ’ ছাড়াই রাজনৈতিক নেতাদের হেপাজতবাসও চলছে যথারীতি। সুতরাং প্রশ্ন উঠছে—আদালতের রায়ের পরেও বাস্তবে কিছু পরিবর্তন হয়েছে কি?
বিশদ

20th  January, 2020
নেতাজি—আঁধারপথে অনন্ত আলোর দীপ্তি
সন্দীপন বিশ্বাস

স্বাধীনতার পর অতিক্রান্ত বাহাত্তর বছর। কিন্তু আজও যেন তার নাবালকত্ব ঘুচল না। আসলে দেশের যাঁরা হাল ধরেন, তাঁরাই যদি নাবালকের মতো আচরণ করেন, তাহলে দেশও নাবালকই থেকে যায়। এই নাবালকত্ব আসলে এক ধরনের অযোগ্যতা। সেই অযোগ্যতার পথ ধরেই দেশ ডুবে আছে অসংখ্য সঙ্কটে। দুর্নীতিই হল সেই সঙ্কটের মধ্যমণি।  
বিশদ

20th  January, 2020
মানুষকে সঙ্কটে ফেলা ছাড়া নোটবাতিলের
আর কোনও উদ্দেশ্যই সফল হয়নি 
হিমাংশু সিংহ

আর-একটা সাধারণ বাজেট পেশ হতে চলেছে দু’সপ্তাহের মধ্যে। নিঃসন্দেহে এবারের বাজেটের প্রধান লক্ষ্য, বেনজির আর্থিক মন্দার মোকাবিলা করা, নতুন কাজের সুযোগ সৃষ্টি করা এবং একইসঙ্গে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পকে চাঙ্গা করা। ছাপ্পান্ন ইঞ্চি ছাতির নরেন্দ্র মোদি যতই নিজের ঢাক পেটান না কেন, দেশের অর্থনীতি এই মুহূর্তে ভয়ঙ্কর সঙ্কটে জর্জরিত। 
বিশদ

19th  January, 2020
প্রধানমন্ত্রীর সফর এবং হিন্দু ভোটের ভাগাভাগি
শুভময় মৈত্র

সম্প্রতি (১১-১২ জানুয়ারি) প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কলকাতা ভ্রমণকে ঘিরে উত্তেজনা তুঙ্গে উঠেছিল। সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) সংক্রান্ত বিতর্কে হইচই চলছে সারা দেশে। কলকাতার এক বড় অংশের বামমনা বুদ্ধিজীবী মানুষ এর বিরুদ্ধে পথে নেমেছেন। প্রথম থেকেই তৃণমূল সিএএ বিরোধী আন্দোলন করছে। 
বিশদ

18th  January, 2020
নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদ: পুতুলনাচের ইতিকথা
জিষ্ণু বসু

নাচায় পুতুল যথা দক্ষ বাজিকরে/ নাচাও তেমনি তুমি অর্বাচীন নরে। —কবি নবীনচন্দ্র সেনের এই বিখ্যাত পঙ্‌ক্তি আজ ভীষণ প্রাসঙ্গিক মনে হয়। গত মাসাধিক কাল সামান্য কিছু অতি বুদ্ধিমান আমাদের মতো অর্বাচীনদের পুতুলের মতো নাচাচ্ছেন। জাতীয় ও আঞ্চলিক প্রচার মাধ্যমও অতি যত্নসহকারে তা পরিবেশন করছে। 
বিশদ

18th  January, 2020
উপমহাদেশে সহিষ্ণুতার আন্দোলনের ক্ষতি হচ্ছে 
হারাধন চৌধুরী

বাঙালি বেড়াতে ভালোবাসে। বেড়ানোর সুযোগটা পাশপোর্ট ভিসা নিয়ে বিদেশে হলে তো কথাই নেই। কিন্তু গন্তব্য যদি বাংলাদেশ, আর দাবি করা হয় বিদেশ-ভ্রমণের, তবে অনেকেই মুখ টিপে হাসবেন। কারণ, বাংলাদেশকে ‘বিদেশ’ ভাবার মানসিকতা আমাদের গড়ে ওঠেনি। 
বিশদ

17th  January, 2020
হৃদয়জুড়ে মানবসেবা
মৃণালকান্তি দাস

সমকাল তাঁকে যথেষ্ট লজ্জা দিয়েছিল! নিজের দেশ ছেড়ে বিদেশ-বিভুঁইয়ে কপর্দকহীন এক সন্ন্যাসীকে নিগৃহীত করতে অগ্রণী ভূমিকা নিয়েছিলেন ব্রাহ্মসমাজের প্রতিনিধি প্রতাপচন্দ্র মজুমদার।  স্বামীজির বিজয়কীর্তিকে ধূলিসাৎ করতে নিজের ‘ইউনিটি অ্যান্ড দি মিনিস্টার’ পত্রিকায় স্বামীজিকে ‘নবহিন্দু বাবু নরেন্দ্রনাথ দত্ত’ সম্বোধন করে বলা হয় যে, তিনি নাকি যুবাবয়সে ব্রাহ্মসমাজে আসেন  শুধুমাত্র  ‘নববৃন্দাবন’ থিয়েটারে অভিনয়ের জন্য।  
বিশদ

17th  January, 2020
প্রধানমন্ত্রীর সফর এবং হিন্দু ভোটের ভাগাভাগি
শুভময় মৈত্র

সম্প্রতি (১১-১২ জানুয়ারি) প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কলকাতা ভ্রমণকে ঘিরে উত্তেজনা তুঙ্গে উঠেছিল। সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) সংক্রান্ত বিতর্কে হইচই চলছে সারা দেশে। কলকাতার এক বড় অংশের বামমনা বুদ্ধিজীবী মানুষ এর বিরুদ্ধে পথে নেমেছেন। প্রথম থেকেই তৃণমূল সিএএ বিরোধী আন্দোলন করছে।  
বিশদ

16th  January, 2020
উপমহাদেশে সহিষ্ণুতার আন্দোলনের ক্ষতি হচ্ছে
হারাধন চৌধুরী

সিএএ, এনআরসি প্রভৃতি ভারতের মানুষ গ্রহণ করবেন কি করবেন না, তা নিশ্চিত করে বলার সময় এখনও হয়নি। তবে, এটুকু বলা যেতে পারে—এই ইস্যুতে ব্যাহত হচ্ছে আমাদের উন্নয়ন কর্মসূচিগুলি। অর্থনৈতিকভাবে আমরা দ্রুত পিছিয়ে পড়ছি। পাশাপাশি এই অধ্যায় বহির্ভারতে নেতিবাচক বার্তা দিচ্ছে। আমাদের এমন কিছু করা উচিত হবে না যার দ্বারা অন্তত বাংলাদেশে মৌলবাদের বিরুদ্ধে লড়াইটা কোনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং উদ্বাহু নৃত্য করে পাকিস্তানের মৌলবাদী শক্তি। 
বিশদ

16th  January, 2020
একনজরে
 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ইরান-আমেরিকার যুদ্ধ হলে ভারতে তার বিরাট প্রভাব পড়বে। আফগানিস্তান, ইরাকে আমেরিকার যুদ্ধের সময় যতটা হয়নি, তার চেয়ে অনেক বেশি হবে। ইরান ভারতের কাছে খুব গুরুত্বপূর্ণ দেশ। ইরান থেকে ভারত তেল পায়। ভারতের চা সেখানে রপ্তানি হয়। ...

 বিএনএ, বারাসত: রসিদ দিয়ে ‘গুন্ডা ট্যাক্স’ আদায়ের সংবাদ প্রকাশ্যে আসায় এবার রসিদ ছাড়াই তোলাবাজি শুরু হয়েছে ঘোজাডাঙা সীমান্তে। আগের তুলনায় আরও সতর্কভাবে ও সুচতুরভাবে তোলাবাজি শুরু করা হয়েছে বলে অভিযোগ। ট্রাক চালক ও এলাকাবাসীর অভিযোগ, পুলিসি মদতে এই তোলাবাজি চলায় ...

 অর্পণ সেনগুপ্ত, কলকাতা: টানা ওষুধ খেলে শরীরে জমে ‘বিষ’। এবার সহজেই সেই ‘বিষ’ সাফ হতে পারে। আশার আলো দেখাচ্ছে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের একটি গবেষণা। কিছু রোগ আছে, যেগুলির জন্য সারাজীবন ওষুধ খেয়ে যেতে হয়। তার একটি ক্ষতিকর দিকও থাকে। ...

সংবাদদাতা, রায়গঞ্জ: গাঁদা ফুল চাষ করে আয়ের মুখ দেখছেন রায়গঞ্জ ব্লকের বিরঘই গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার চাষিরা। বর্তমানে অন্যান্য খাদ্যশস্য চাষ করার পাশাপাশি এই ফুল চাষেও ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যার্থীরা শুভ ফল লাভ করবে। মাঝে মাঝে হঠকারী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করায় ক্ষতি হতে পারে। নতুন ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৯৪- সাহিত্যিক জ্যোতির্ময়ীদেবীর জন্ম
১৮৯৭- মহাবিপ্লবী নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর জন্ম
১৯০৯ - কবি নবীনচন্দ্র সেনের মৃত্যু
১৯২৬- শিবসেনার প্রতিষ্ঠাতা বাল থ্যাকারের জন্ম
১৯৩৪- সাংবাদিক তথা ‘বর্তমান’ এর প্রাণপুরুষ বরুণ সেনগুপ্তর জন্ম
১৯৭৬- গায়ক পল রোবসনের মৃত্যু
১৯৮৪ – নেদারল্যান্ডের ফুটবল খেলোয়াড় আর্ইয়েন রবেনের জন্ম
১৯৮৯ - স্পেনীয় চিত্রকর সালভাদর দালির মৃত্যু
২০০২ - পাকিস্তানের করাচীতে সাংবাদিক ড্যানিয়েল পার্ল অপহৃত হন এবং পরবর্তীকালে নিহত হন।





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৩৫ টাকা ৭২.০৫ টাকা
পাউন্ড ৯১.২১ টাকা ৯৪.৪৯ টাকা
ইউরো ৭৭.৪২ টাকা ৮০.৪১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪০,৫৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৮,৫০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৯,০৮০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৬,২০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৬,৩০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৮ মাঘ ১৪২৬, ২৩ জানুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার, চতুর্দশী ৪৯/৪৮ রাত্রি ২/১৮। পূর্বাষা‌ঢ়া ৪৭/২৫ রাত্রি ১/২১। সূ উ ৬/২২/৩১, অ ৫/১৪/৭, অমৃতযোগ রাত্রী ১/৭ গতে ৩/৪৪ মধ্যে। বারবেলা ২/৩১ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ১১/৪৮ গতে ১/২৭ মধ্যে। 
৮ মাঘ ১৪২৬, ২৩ জানুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার, চতুর্দশী ৪৯/১৬/২৩ রাত্রী ২/৮/২৩। পূর্বাষাঢ়া ৪৭/৫৬/৪৫ রাত্রি ১/৩৬/৩২। সূ উ ৬/২৫/৫০, অ ৫/১২/৩২, অমৃতযোগ দিবা ১/৭ গতে ৩/৪২ মধ্যে। কালবেলা ২/৩০/৫২ গতে ৩/৫১/৪২ মধ্যে, কালরাত্রি ১১/৪৯/১১ গতে ১/২৮/২১ মধ্যে। 
২৭ জমাদিয়ল আউয়ল 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
কলকাতার একটি হোটেল থেকে বাঘের চামড়াসহ গ্রেপ্তার ৩

06:28:27 PM

উত্তরপ্রদেশের সর্দারপুরে যান্ত্রিক গোলযোগের জন্য সড়কে ইমার্জেন্সি ল্যান্ডিং এয়ারক্র্যাফ্টের 

04:08:00 PM

২৭১ পয়েন্ট উঠল সেনসেক্স 

04:05:17 PM

আইলিগে মোহন বাগান ৩-০ গোলে হারাল নেরোকা এফসিকে 

04:04:09 PM

লাভপুর কাণ্ডে মুকুল রায়কে ডেকে পাঠাল সিউড়ি থানার পুলিস 
লাভপুর খুন কাণ্ডে আজ মুকুল রায়কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডেকে পাঠাল ...বিশদ

04:04:00 PM

নাদনঘাটে এক হোটেল কর্মীর পচাগলা দেহ উদ্ধার 
পূর্ব বর্ধমানের নাদনঘাট থানার এস টি কে কে রোড সংলগ্ন ...বিশদ

03:58:49 PM