Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

অস্তাচলে মন্দির রাজনীতি
শান্তনু দত্তগুপ্ত 

সালটা ১৯৯২। লালকৃষ্ণ আদবানির ‘রথযাত্রা’ শুরু হওয়ার ঠিক আগের কথা...। কথোপকথন চলছে বিজেপি নেতার সঙ্গে বজরং দলের এক নেতার। ‘বাবরির কলঙ্ক মুছে দিতে পারবে না?’ বজরং দলের সেই নেতা উত্তর দিলেন ‘আপনার নির্দেশের অপেক্ষাতেই তো বসে আছি। আপনি শুধু একবার বলে দেখুন... নাম-নিশান মুছে দেব।’ বিজেপি নেতা বললেন, ‘তাহলে অপেক্ষা কীসের? দাসত্বের চিহ্ন আর কতদিন বয়ে বেড়াব আমরা...?’ এম এস লিবারহান কমিশনে এক প্রত্যক্ষদর্শী এই বয়ান দিয়েছিলেন। আবার তারপর তুলেও নিয়েছিলেন। বলেছিলেন, এর মধ্যে জড়াতে চান না। তিনি যা দেখেছিলেন, তা বয়ান আকারে লিবারহান কমিশনের খাতায় থেকে গেলে এই মামলা কোনদিকে গড়াত, তা অনুমান করা যায় না। তবে হ্যাঁ, একটা বিষয় পরিষ্কার... অযোধ্যায় তারপর যা হয়েছিল, তার অনেকটা দায়িত্ব বহন করে ওই কথপোকথন। মামলার রায় প্রকাশিত। কোন মামলা? জমি কার... এই একটি প্রশ্নের বহু প্রতীক্ষিত উত্তর অবশেষে মিলেছে। সুপ্রিম কোর্ট জানিয়েছে, ‘জমি রামলালার’। অর্থাৎ সেখানে রামমন্দিরই হবে। বাবরি মসজিদ যে জায়গায় ছিল, সেখানেই। কারণ, আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অব ইন্ডিয়ার রিপোর্ট, রামায়ণ ও স্কন্দপুরাণের থেকে শ্লোক উল্লেখ করে শীর্ষ আদালতের পাঁচ সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চ জানিয়ে দিয়েছে, ১৫২৮ সালে বাবরি মসজিদ নির্মাণের আগে সেখানে অন্য কিছু ছিল। অ-মুসলিম কোনও স্থাপত্য। যার জায়গায় বাবর ওই মসজিদ বানিয়েছিলেন। এবং জমিটিতে কখনওই মুসলিম সমাজের একচ্ছত্র অধিকার ছিল না। অর্থাৎ শতকের পর শতক ধরে এই জমির উপর হিন্দুরা অধিকার জানিয়ে এসেছেন। রামের জন্মস্থলে পৌঁছে মানুষ মাথা নিচু করেছে। পড়াশোনা নেই, দেশের রাষ্ট্রপতির নাম জিজ্ঞেস করলেও হয়তো তাঁরা বলতে পারবেন না সুপ্রিম কোর্টে কী নিয়ে মামলা চলছে... তাঁরা যে শুধুই তীর্থ করতে এসেছেন! রামলালাকে দেখতে এসেছেন। তাঁর জন্মভূমিতে একবার পা রাখতে।
এই বিশ্বাসের নামই যে অযোধ্যা! আর এই বিশ্বাসেরই মর্যাদা দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। রায়ে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘১৫২৮ খ্রিস্টাব্দের শত শত বছর আগে থেকে শাস্ত্র রয়েছে। যা হিন্দুত্বের মূল উৎস। তার উপরেই হিন্দু সম্প্রদায়ের বিশ্বাস গড়ে উঠেছে তিলে তিলে। বাল্মীকি রামায়ণ এদের মধ্যে অন্যতম, যার দশম শ্লোক থেকে আমরা জানতে পারি শ্রীরাম সম্পর্কে। তাঁর জন্মের সময় এই বিশ্বের আবহ যেমন হয়েছিল, তা দেখা যায় না। বোঝা গিয়েছিলে, এই শিশু সাধারণ নয়। গোটা বিশ্বের পালক। অযোধ্যা তাঁর জন্মে আশীর্বাদধন্য হয়ে উঠেছিল।’ যদিও আদালত আরও জানিয়েছে, অযোধ্যার উল্লেখ থাকলেও রামায়ণে কিন্তু বলা নেই যে শহরের ঠিক কোথায় ভগবান রাম জন্মগ্রহণ করেছিলেন। জন্মভূমি বলতে গোটা অযোধ্যাকেই বোঝানো হয়েছে। নিশ্চিতভাবে কোনও জায়গার কথা বলা হয়নি।’ পাশাপাশি স্কন্দপুরাণের প্রসঙ্গ টেনে শীর্ষ আদালত জানিয়েছে, রামায়ণের মতো স্কন্দপুরাণেও কিন্তু বিশ্বাস করেন হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা। যা কি না খ্রিস্টপূর্ব ৮ শতাব্দীর বলে বিশ্বাস করা হয়। সেখানে কিন্তু বলা আছে, ‘ওই উত্তর-পশ্চিমে জন্মগ্রহণ করেছিলেন রাম। বিঘ্নেশ্বরের পূর্বে, বশিষ্ঠের উত্তরে...। অর্থাৎ এটা দেখাই যাচ্ছে ১৫২৮ খ্রিস্টাব্দের আগের বহু হিন্দু লেখা আছে, যা প্রমাণ করে অযোধ্যার ওই স্থানে রামের জন্ম হয়েছিল।’
ঐতিহাসিক রায়। লালকৃষ্ণ আদবানি আজ খুশি। আর বিতর্কের অবকাশ নেই। অযোধ্যার সেই ২.৭৭ একর জমিতেই রামমন্দির হবে। তাই খুশি আদবানি। ৯৩ বছরে পা দিয়েছেন তিনি। ৮ নভেম্বর। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহদের থেকে শুভেচ্ছা নেওয়ার পর রাতেই তিনি জেনেছিলেন, রায় দেবে সুপ্রিম কোর্ট। পরদিনই। কিন্তু আদবানি কি মনে রেখেছেন...? ১৯৯২ সালের ৬ ডিসেম্বরের সেই হাড় হিম করে দেওয়া দিনটির আগে তিনি নিজে কী বলেছিলেন? তাঁর সাফ কথাই ছিল, ‘এই ধরনের বিতর্কের ফয়সালা করা আদালতের কাজ নয়। কোর্ট ঠিক করতে পারে না শ্রীরাম এখানে জন্মগ্রহণ করেছিলেন, নাকি অন্য কোথাও?’ অথচ সেই আদালতই নির্ধারণ করল শ্রীরামের জন্মস্থান। অযোধ্যা। আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অব ইন্ডিয়ার রিপোর্ট, মানুষের বিশ্বাস, আর মামলার পক্ষে পেশ হওয়া বাদী-বিবাদীর তথ্য-প্রমাণ-যুক্তির ভিত্তিতে।
অবশেষে সফল আদবানি। বিজেপির লৌহপুরুষ তিনি। হিন্দুত্ব, রথযাত্রা, রামজন্মভূমি... অটলবিহারী বাজপেয়ি যদি দলের প্রশাসনিক দক্ষতা, শান্তি, বাগ্মিতার প্রতীক হন, আদবানি তাহলে হিন্দুত্বের এজেন্ডাকে বয়ে নিয়ে যাওয়ার। সমান্তরালভাবে। তিনি ছিলেন কট্টরপন্থায় বিশ্বাসী। আর নরেন্দ্র মোদি অর্গানাইজড পদক্ষেপে। তাই আদবানি সফল, আর মোদি জয়ী। সুপ্রিম কোর্টের এই রায় অবশ্যই কোনও সম্প্রদায়ের জয়-পরাজয় চিহ্নিত করেনি। এই রায় প্রয়োজন ছিল কারণ, এই সংক্রান্ত দীর্ঘ বিবাদ, হিংসা, খুনোখুনি, দ্বিধাবিভক্ত ভারতীয় সমাজকে আরও একবার সবকিছু ভুলে এক হওয়ার বার্তা দেওয়ার ছিল। হিন্দুদের রামমন্দিরের জন্য অন্যত্র জমি দিয়ে যদি মুসলিম সমাজ অযোধ্যার ওই জমিতে ফের বাবরি মসজিদ বানানোর অনুমতি পেতেন, তাহলেও দেশের শান্তি এতটুকু বিঘ্নিত হতো না। দোকানপাট এভাবেই খুলত। আমাদের ছেলেমেয়েরা এভাবেই স্কুলে যেত। রায় যাই হোক না কেন... এটাই নিশ্চিত করেছিলেন মোদি। চ্যালেঞ্জ ছিল তাঁর। কেন্দ্রে তিনি ক্ষমতায়। রাজ্যেও তিনি। নামেই বিজেপি সরকার। এই শিবিরের চালিকাশক্তি যে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী, তা বোঝার জন্য কোনও পুরস্কার নেই। তাই লোকসভা ভোট গত এক বছরে ব্যতিক্রম হয়েই এই সত্যিটাকে প্রমাণ করেছে। একের পর এক বিধানসভা নির্বাচনে ব্যাকফুটে যেতে থাকা বিজেপি লোকসভা ভোটে কিন্তু মারকাটারি ফল করেছে। মানুষ দেখেছে, কুর্সিতে বসবেন উনি... নরেন্দ্র মোদি। বাকি সব রাজ্যে মুখ্যমন্ত্রী হয়ে যাওয়ার যাঁর ক্ষমতা নেই। কিন্তু শান্তিরক্ষায় তাঁর আবেদনের দাম আছে। সেটাই রেখেছে ভারত। তাই তিনি জয়ী। হিন্দু-মুসলিম নির্বিশেষে সবাই এই রায় মেনেছে... তাই মোদি জয়ী। ক্ষোভ থাকাটাই স্বাভাবিক। সেটা ইতিউতি রয়েওছে। তার মানে সেই ক্ষোভ আগুন হয়ে ঝরে পড়াটা কখনওই সমাজতন্ত্রের, গণতন্ত্রের বিজ্ঞাপন নয়। এই ভারত সেটা জানে। তাই মোদি জয়ী। কিন্তু পরবর্তী যত বিধানসভা ভোট আছে, সেই সবেও কি নরেন্দ্র মোদি একইভাবে জয়লাভ করবেন? রামমন্দির কি তাঁকে ভোটযন্ত্রে আশীর্বাদের ফুল ছড়িয়ে দেবে?
ঝাড়খণ্ডের ভোটে এর উত্তর মিলবে না। ছোট রাজ্য। বিজেপি এখানে যথেষ্ট শক্তিশালী। তাই পশ্চিমবঙ্গের পড়শি এই রাজ্য নিয়ে কারও তেমন মাথাব্যথা নেই। ব্যাপারটা কতক এমন যে, এখানে বিজেপি তো জিতেই রয়েছে। কিন্তু তারপর যে আরও অনেক পথ যাওয়া বাকি! এবং সেক্ষেত্রে নরেন্দ্র মোদির হাতে আর কোনও ধর্মীয়-রাজনৈতিক তুরুপের তাস নেই। অযোধ্যা ইস্যুর উপর ভর করে সেই জন্মলগ্ন থেকেই ভারতের বুকে গেরুয়া আবির ছড়িয়েছে বিজেপি। একের পর এক ভোট এসেছে... গিয়েছে। রামমন্দির নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি। কিন্তু বিষয়টিকে উস্কে ভোটের ঝুলি ভরিয়েছে বিজেপি। নরেন্দ্র মোদি নিজে অবশ্য হিন্দুত্বের কথা বেশি বলেন না। তিনি বিকাশে বিশ্বাসী। সবকা সাথ, সবকা বিকাশ। স্বপ্নের সওদাগর তিনি। তাই এখনও তাঁর ভোটাররা বিশ্বাস করে, আচ্ছে দিন সত্যি আসবে। আর সেক্ষেত্রে মোদি যে চেষ্টার ত্রুটি রাখেন না, সে নিয়েও সন্দেহ নেই। তিনি আত্মবিশ্বাসী, অযোধ্যা ইস্যু না থাকলেও ভোটে জিততে তাঁর অসুবিধা হবে না। তাঁর কাজ দেখেই ভারত তাঁকে ভোট দেবে। জেতাবে। আর যদি ২০২৪ সালের মধ্যে সত্যিই রামমন্দির হয়ে যায় তার ডিভিডেন্ড তো কিছু আছেই! তবে এর মধ্যেও প্রশ্ন আছে... অযোধ্যার ফৌজদারি মামলাটির কী হল? ৬ ডিসেম্বর, ১৯৯২... বাবরি সৌধ ধ্বংসের কয়েক মিনিটের মধ্যে অজ্ঞাতপরিচয় করসেবকদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি ধারায় এফআইআর দায়ের হয়েছিল অযোধ্যার রামজন্মভূমি থানায়। তার ঠিক ১০ মিনিটের মাথায়, অর্থাৎ বিকেল সাড়ে পাঁচটা নাগাদ আর একটি এফআইআর হয়। তাতে নাম ছিল, লালকৃষ্ণ আদবানি, মুরলিমনোহর যোশি, উমা ভারতী, অশোক সিঙ্ঘল, গিরিরাজ কিশোর, বিনয় কাটিয়ার, বিষ্ণু হরি ডালমিয়া এবং সাধ্বী ঋতাম্ভরার। এর পাশাপাশি আরও ৪৭টি এফআইআর দায়ের হয়েছিল। ৩০০ প্রত্যক্ষদর্শী... ৪৯ জন অভিযুক্ত মারা গিয়েছেন। তারপরও মামলা চলছে ২৭ বছর ধরে। লখনউয়ের বিশেষ সিবিআই আদালতে। সুপ্রিম কোর্ট কিন্তু বলেছে, ১৯৯২ সালের ৬ ডিসেম্বর বাবরি সৌধ ওইভাবে ভেঙে ফেলাটা অপরাধ। সেটা মোটেই ঠিক কাজ হয়নি। সিবিআই আদালতে শুনানিও প্রায় শেষ পর্যায়ে। এবার সেই রায় যদি বিজেপি ও আরএসএসের হাইপ্রোফাইল সব নেতানেত্রীর বিপক্ষে যায়? সুপ্রিম কোর্ট যে ইঙ্গিত দিয়েছে, তাতে তেমন কিছু হওয়াটা অস্বাভাবিক নয়। বিভিন্ন মহল মনে করছে, সেটা কিন্তু বিজেপির জন্য মোটেই সুখকর হবে না। এখানেও যে একটা অন্য সমীকরণ আছে! সেটা মোদির। অমিত শাহের। হিন্দুত্ব এজেন্ডা বিজেপিতে আছে। থাকবে। কিন্তু মোদি-অমিত শাহের জমানায় তারও যে অভিযোজন হয়েছে! সে আর উন্মুক্ত তরবারি নয়। বিজেপির এখনকার হিন্দুত্ব অর্গানাইজড। তা সোশ্যাল মিডিয়ায় ঘোরাফেরা করে। হিন্দুত্বের নিশান উড়িয়ে বিজেপিকে ধর্মীয় মেরুকরণের ঘোষণা আজ না করলেও চলে। এই এজেন্ডা চোরাস্রোতের মতো ঢুকে পড়ে ভোটারের ঘরে। ভক্তের ঘরে। এর বিস্তার অসীম। কিন্তু চিরন্তন নয়। ছাপোষা মধ্যবিত্তের ঘরে ধর্ম ততক্ষণই ভালো লাগে, যতক্ষণ পেটে ভাত আছে। চাকরি না থাকলে, দু’বেলা দু’মুঠো খেতে না পেলে ধর্মীয় ভাবাবেগ, মন্দির রাজনীতি জানালা দিয়ে পালিয়ে যায়। তাই রাম-রাজনীতি আর নয়, মোদিকে আগে নিশ্চিত করতে হবে দেশের আর্থিক বৃদ্ধি, মানুষের কর্মসংস্থান, গরিব মানুষের পেটের ভাত। ওই যে তিনি বলেন না... ‘আমি রাষ্ট্রভক্ত’। রাষ্ট্র মানেই তো মানুষ। ভারত মানে ভারতবাসী। পেটে খেলেই যে পিঠে সইবে... এ আজও মিছে কথা নয়! 
12th  November, 2019
‘যে আপনকে পর করে...’
শান্তনু দত্তগুপ্ত

মহাত্মা গান্ধী একটা কথা বলতেন, মনপ্রাণ দিয়ে দেশের সেবা যিনি করেন, তিনিই সত্যিকারের নাগরিক। নাগরিক কাহারে কয়? বা নাগরিক কয় প্রকার ও কী কী? এই জাতীয় প্রশ্ন এখন দেশে সবচেয়ে বেশি চর্চিত। সবাই নিজেকে প্রমাণে ব্যস্ত। ভালো নাগরিক হওয়ার চেষ্টাচরিত্র নয়, নাগরিক হতে পারলেই হল। তার জন্য কাগজ লাগবে। এক টুকরো কাগজ প্রমাণ করবে, আপনি আমি ভারতের বাসিন্দা।   বিশদ

21st  January, 2020
আইন ও বাস্তব
পি চিদম্বরম

আপনি যখন এই লেখা পড়ছেন তখন ইন্টারনেট, আন্দোলন, জনসমাবেশ, রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড, ভাষণ ও লেখালেখি এবং কাশ্মীর উপত্যকার পর্যটকদের উপর নিয়ন্ত্রণ জারি রয়েছে। কোনোরকম ‘চার্জ’ ছাড়াই রাজনৈতিক নেতাদের হেপাজতবাসও চলছে যথারীতি। সুতরাং প্রশ্ন উঠছে—আদালতের রায়ের পরেও বাস্তবে কিছু পরিবর্তন হয়েছে কি?
বিশদ

20th  January, 2020
নেতাজি—আঁধারপথে অনন্ত আলোর দীপ্তি
সন্দীপন বিশ্বাস

স্বাধীনতার পর অতিক্রান্ত বাহাত্তর বছর। কিন্তু আজও যেন তার নাবালকত্ব ঘুচল না। আসলে দেশের যাঁরা হাল ধরেন, তাঁরাই যদি নাবালকের মতো আচরণ করেন, তাহলে দেশও নাবালকই থেকে যায়। এই নাবালকত্ব আসলে এক ধরনের অযোগ্যতা। সেই অযোগ্যতার পথ ধরেই দেশ ডুবে আছে অসংখ্য সঙ্কটে। দুর্নীতিই হল সেই সঙ্কটের মধ্যমণি।  
বিশদ

20th  January, 2020
মানুষকে সঙ্কটে ফেলা ছাড়া নোটবাতিলের
আর কোনও উদ্দেশ্যই সফল হয়নি 
হিমাংশু সিংহ

আর-একটা সাধারণ বাজেট পেশ হতে চলেছে দু’সপ্তাহের মধ্যে। নিঃসন্দেহে এবারের বাজেটের প্রধান লক্ষ্য, বেনজির আর্থিক মন্দার মোকাবিলা করা, নতুন কাজের সুযোগ সৃষ্টি করা এবং একইসঙ্গে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পকে চাঙ্গা করা। ছাপ্পান্ন ইঞ্চি ছাতির নরেন্দ্র মোদি যতই নিজের ঢাক পেটান না কেন, দেশের অর্থনীতি এই মুহূর্তে ভয়ঙ্কর সঙ্কটে জর্জরিত। 
বিশদ

19th  January, 2020
প্রধানমন্ত্রীর সফর এবং হিন্দু ভোটের ভাগাভাগি
শুভময় মৈত্র

সম্প্রতি (১১-১২ জানুয়ারি) প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কলকাতা ভ্রমণকে ঘিরে উত্তেজনা তুঙ্গে উঠেছিল। সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) সংক্রান্ত বিতর্কে হইচই চলছে সারা দেশে। কলকাতার এক বড় অংশের বামমনা বুদ্ধিজীবী মানুষ এর বিরুদ্ধে পথে নেমেছেন। প্রথম থেকেই তৃণমূল সিএএ বিরোধী আন্দোলন করছে। 
বিশদ

18th  January, 2020
নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদ: পুতুলনাচের ইতিকথা
জিষ্ণু বসু

নাচায় পুতুল যথা দক্ষ বাজিকরে/ নাচাও তেমনি তুমি অর্বাচীন নরে। —কবি নবীনচন্দ্র সেনের এই বিখ্যাত পঙ্‌ক্তি আজ ভীষণ প্রাসঙ্গিক মনে হয়। গত মাসাধিক কাল সামান্য কিছু অতি বুদ্ধিমান আমাদের মতো অর্বাচীনদের পুতুলের মতো নাচাচ্ছেন। জাতীয় ও আঞ্চলিক প্রচার মাধ্যমও অতি যত্নসহকারে তা পরিবেশন করছে। 
বিশদ

18th  January, 2020
উপমহাদেশে সহিষ্ণুতার আন্দোলনের ক্ষতি হচ্ছে 
হারাধন চৌধুরী

বাঙালি বেড়াতে ভালোবাসে। বেড়ানোর সুযোগটা পাশপোর্ট ভিসা নিয়ে বিদেশে হলে তো কথাই নেই। কিন্তু গন্তব্য যদি বাংলাদেশ, আর দাবি করা হয় বিদেশ-ভ্রমণের, তবে অনেকেই মুখ টিপে হাসবেন। কারণ, বাংলাদেশকে ‘বিদেশ’ ভাবার মানসিকতা আমাদের গড়ে ওঠেনি। 
বিশদ

17th  January, 2020
হৃদয়জুড়ে মানবসেবা
মৃণালকান্তি দাস

সমকাল তাঁকে যথেষ্ট লজ্জা দিয়েছিল! নিজের দেশ ছেড়ে বিদেশ-বিভুঁইয়ে কপর্দকহীন এক সন্ন্যাসীকে নিগৃহীত করতে অগ্রণী ভূমিকা নিয়েছিলেন ব্রাহ্মসমাজের প্রতিনিধি প্রতাপচন্দ্র মজুমদার।  স্বামীজির বিজয়কীর্তিকে ধূলিসাৎ করতে নিজের ‘ইউনিটি অ্যান্ড দি মিনিস্টার’ পত্রিকায় স্বামীজিকে ‘নবহিন্দু বাবু নরেন্দ্রনাথ দত্ত’ সম্বোধন করে বলা হয় যে, তিনি নাকি যুবাবয়সে ব্রাহ্মসমাজে আসেন  শুধুমাত্র  ‘নববৃন্দাবন’ থিয়েটারে অভিনয়ের জন্য।  
বিশদ

17th  January, 2020
প্রধানমন্ত্রীর সফর এবং হিন্দু ভোটের ভাগাভাগি
শুভময় মৈত্র

সম্প্রতি (১১-১২ জানুয়ারি) প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কলকাতা ভ্রমণকে ঘিরে উত্তেজনা তুঙ্গে উঠেছিল। সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) সংক্রান্ত বিতর্কে হইচই চলছে সারা দেশে। কলকাতার এক বড় অংশের বামমনা বুদ্ধিজীবী মানুষ এর বিরুদ্ধে পথে নেমেছেন। প্রথম থেকেই তৃণমূল সিএএ বিরোধী আন্দোলন করছে।  
বিশদ

16th  January, 2020
উপমহাদেশে সহিষ্ণুতার আন্দোলনের ক্ষতি হচ্ছে
হারাধন চৌধুরী

সিএএ, এনআরসি প্রভৃতি ভারতের মানুষ গ্রহণ করবেন কি করবেন না, তা নিশ্চিত করে বলার সময় এখনও হয়নি। তবে, এটুকু বলা যেতে পারে—এই ইস্যুতে ব্যাহত হচ্ছে আমাদের উন্নয়ন কর্মসূচিগুলি। অর্থনৈতিকভাবে আমরা দ্রুত পিছিয়ে পড়ছি। পাশাপাশি এই অধ্যায় বহির্ভারতে নেতিবাচক বার্তা দিচ্ছে। আমাদের এমন কিছু করা উচিত হবে না যার দ্বারা অন্তত বাংলাদেশে মৌলবাদের বিরুদ্ধে লড়াইটা কোনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং উদ্বাহু নৃত্য করে পাকিস্তানের মৌলবাদী শক্তি। 
বিশদ

16th  January, 2020
রাজনীতির রঙের বাইরে
শান্তনু দত্তগুপ্ত

যে পড়ুয়ারা আজ পথে নেমেছে, তারা তো শিক্ষিত! এঁটেল মাটির তালের মতো। যুক্তি দিয়ে বোঝালে তারা অবাধ্য হয় না। তা না করে নয়াদিল্লি বা উত্তরপ্রদেশের মতো রাজ্যে পাল্টা ধোলাই দেওয়ার রাস্তা নিয়েছিল পুলিস। আর বলা হয়েছে, মানতে না পারলে পাকিস্তানে চলে যাও। এটাই কি ভারতের মতো গণতন্ত্রের থেকে পাওনা? যুব সমাজ কিন্তু মানছে না। মানবেও না। দিন নেই, রাত নেই তারা কখনও ক্যাম্পাসে ধর্নায় বসছে, কখনও রাজপথে। তাদের লড়াই আজ নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন আগ্রাসী কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে।
বিশদ

14th  January, 2020
হবু-গবুর রাজ্যে তৈরি হচ্ছে ভক্ততন্ত্র তালিকা
সন্দীপন বিশ্বাস

সকালবেলা মন্ত্রী গবু হন্তদন্ত হয়ে হবুরাজার ঘরে ঢুকে গিয়ে দেখেন রাজামশাই কম্পিউটারের সামনে বসে ‘কমান্ডো এনকাউন্টার শ্যুটিং গেম’ খেলছেন। মহারাজা পুরোপুরি বাহ্যজ্ঞান লুপ্ত হয়ে কম্পিউটারের ভিতর যেন ঢুকে পড়েছেন। গেমটা খুব মজার এবং কঠিন। বন্দুক নিয়ে একজন কমান্ডার ঢুকে পড়েছে শত্রুদের ঘাঁটিতে। 
বিশদ

13th  January, 2020
একনজরে
 সংবাদদাতা, উলুবেড়িয়া: ‘দলের লোকেরা দাদাকে মেরেছে, শিবু ফোন করে দাদাকে ডেকে নিয়ে গিয়ে পরিকল্পনা করে খুন করেছে।’ মঙ্গলবার সকালে এই দাবি করলেন বাগনানের বাইনানের তৃণমূলের ...

 রাষ্ট্রসঙ্ঘ, ২১ জানুয়ারি (পিটিআই): শুধু ভারত নয়, বেকারত্ব বাড়ছে গোটা বিশ্বেই। এদেশে বেকারত্বের হার বৃদ্ধির অভিযোগকে মান্যতা দেয়নি কেন্দ্রীয় সরকার। কিন্তু বিশ্বে বেকারদের সংখ্যা যে ...

সংবাদদাতা, ইংলিশবাজার: রাজ্য সরকারের বিভিন্ন জনকল্যাণমূলক কর্মসূচি নিয়ে প্রচারের হাতিয়ার এখন ছাত্র-যুব উৎসব। জনস্বার্থে রাজ্য সরকার যেসব কর্মসূচি নিয়েছে সেসব নিয়ে অনুষ্ঠান পরিবেশন করে এই উৎসবে অংশগ্রহণকারীরা। মালদহ জেলাও তার ব্যতিক্রম নয়।  ...

 বিএনএ, বারাকপুর: বারাকপুর শিল্পাঞ্চলে আরও একটি জুট মিল বন্ধ হয়ে গেল। মঙ্গলবার সকালে টিটাগড়ের এম্পায়ার জুট মিল কর্তৃপক্ষ সাসপেনশন অব ওয়ার্কের নোটিস ঝুলিয়ে দেয়। এতে কাজ হারালেন প্রায় দুই হাজার শ্রমিক। মিল বন্ধের প্রতিবাদে এদিন বিক্ষোভ দেখান শ্রমিকরা। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মরতদের সহকর্মীদের সঙ্গে সম্পর্ক ভালো থাকবে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা ও ব্যবহারে সংযত থাকা দরকার। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৬৬৬: মুঘল সম্রাট শাহজাহানের মৃত্যু
১৯০০ - টেলিপ্রিন্টার ও মাইক্রোফেনের উদ্ভাবক ডেভিট এ্যাডওয়ার্ড হিউজ।
১৯০১: রানি ভিক্টোরিয়ার মৃত্যু
১৯২৭ - প্রথমবারের মতো বেতারে ফুটবল খেলার ধারাবিবরণী প্রচার।
১৯৭২: অভিনেত্রী নম্রতা শিরোদকরের জন্ম





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৩৬ টাকা ৭২.০৬ টাকা
পাউন্ড ৯০.৯৮ টাকা ৯৪.২৫ টাকা
ইউরো ৭৭.৫৪ টাকা ৮০.৪৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪০,৫৩০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৮,৪৫৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৯,০৩০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৬,৬৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৬,৭৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৭ মাঘ ১৪২৬, ২২ জানুয়ারি ২০২০, বুধবার, ত্রয়োদশী ৪৮/৩৬ রাত্রি ১/৪৯। মূলা ৪৪/৫৩ রাত্রি ১২/২০। সূ উ ৬/২২/৩৮, অ ৫/১৩/২৬, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৯ মধ্যে পুনঃ ১০/০ গতে ১১/২৬ মধ্যে পুনঃ ৩/২ গতে ৪/২৮ মধ্যে। রাত্রি ৬/৫ গতে ৮/৪৩ মধ্যে পুনঃ ২/০ গতে উদয়াবধি। বারবেলা ৯/৫ গতে ১০/২৬ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৭ গতে ১/৯ মধ্যে। কালরাত্রি ৩/৬ গতে ৪/৪৪ মধ্যে।
৭ মাঘ ১৪২৬, ২২ জানুয়ারি ২০২০, বুধবার, ত্রয়োদশী ৮৯/২৭/৪৪ রাত্রী ২/১৩/৯। মূলা ৪৬/৪২/৪৪ রাত্রি ১/৭/৯। সূ উ ৬/২৬/৩, অ ৫/১১/৩৯, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৭ মধ্যে ও ১০/০ গতে ৪/৩৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/১৫ গতে ৮/৫০ মধ্যে ও ২/০ গতে ৬/২৬ মধ্যে। কালবেলা ৯/৭/২৭ গতে ১০/২৮/৯ মধ্যে, কালরাত্রি ৩/৭/২৭ গতে ৪/৪৬/৪৫ মধ্যে।
 ২৬ জমাদিয়ল আউয়ল

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
 তানাজি ছবির ভাইরাল ভিডিওয় শিবাজি হলেন মোদি, বিতর্ক
বলিউড সিনেমা ‘তানাজি: দ্য আনসাং ওয়ারিয়র’ ছবির একটি ক্লিপিং এখন ...বিশদ

09:03:27 AM

ধুঁকছে সুদানের পাঁচ সিংহ, বাঁচাতে তৎপরতা
খাবার আর ওষুধের অভাবে ধুঁকছে গোটা পাঁচেক পশুরাজ। একেবারে কঙ্কালসার ...বিশদ

09:00:00 AM

 দক্ষিণ ২৪ পরগনার জেলাশাসককে পুরস্কৃত করবে নির্বাচন কমিশন
ভোটার তালিকা তৈরি এবং বিশেষভাবে সক্ষমদের ভোটদানে সহায়তা বা ‘অ্যাকসেসবল ...বিশদ

08:47:10 AM

  প্রধান শিক্ষকদের বাড়তি ভাতার দাবি পশ্চিমবঙ্গ শিক্ষক সমিতির
৪১০০ টাকা পর্যন্ত গ্রেড পে প্রাপক শিক্ষক এবং শিক্ষাকর্মীদের ১৮ ...বিশদ

08:41:41 AM

নিলামে উঠছে নীরব মোদির সংগ্রহে থাকা
শেরগিল, হুসেনের মাস্টারপিস, দামি ঘড়ি

পিএনবিকাণ্ডে এখনও পলাতক শিল্পপতি নীরব মোদি। বন্দি রয়েছেন লন্ডনের জেলে। ...বিশদ

08:40:00 AM

  ২৮টি স্কুলকে কম্পিউটার দেবে ক্ষুদ্র শিল্প উন্নয়ন নিগম
কর্পোরেট সংস্থার সামাজিক দায়বদ্ধতা বা সিএসআর তহবিল থেকে ২৮টি স্কুলকে ...বিশদ

08:35:00 AM