Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

অস্তাচলে মন্দির রাজনীতি
শান্তনু দত্তগুপ্ত 

সালটা ১৯৯২। লালকৃষ্ণ আদবানির ‘রথযাত্রা’ শুরু হওয়ার ঠিক আগের কথা...। কথোপকথন চলছে বিজেপি নেতার সঙ্গে বজরং দলের এক নেতার। ‘বাবরির কলঙ্ক মুছে দিতে পারবে না?’ বজরং দলের সেই নেতা উত্তর দিলেন ‘আপনার নির্দেশের অপেক্ষাতেই তো বসে আছি। আপনি শুধু একবার বলে দেখুন... নাম-নিশান মুছে দেব।’ বিজেপি নেতা বললেন, ‘তাহলে অপেক্ষা কীসের? দাসত্বের চিহ্ন আর কতদিন বয়ে বেড়াব আমরা...?’ এম এস লিবারহান কমিশনে এক প্রত্যক্ষদর্শী এই বয়ান দিয়েছিলেন। আবার তারপর তুলেও নিয়েছিলেন। বলেছিলেন, এর মধ্যে জড়াতে চান না। তিনি যা দেখেছিলেন, তা বয়ান আকারে লিবারহান কমিশনের খাতায় থেকে গেলে এই মামলা কোনদিকে গড়াত, তা অনুমান করা যায় না। তবে হ্যাঁ, একটা বিষয় পরিষ্কার... অযোধ্যায় তারপর যা হয়েছিল, তার অনেকটা দায়িত্ব বহন করে ওই কথপোকথন। মামলার রায় প্রকাশিত। কোন মামলা? জমি কার... এই একটি প্রশ্নের বহু প্রতীক্ষিত উত্তর অবশেষে মিলেছে। সুপ্রিম কোর্ট জানিয়েছে, ‘জমি রামলালার’। অর্থাৎ সেখানে রামমন্দিরই হবে। বাবরি মসজিদ যে জায়গায় ছিল, সেখানেই। কারণ, আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অব ইন্ডিয়ার রিপোর্ট, রামায়ণ ও স্কন্দপুরাণের থেকে শ্লোক উল্লেখ করে শীর্ষ আদালতের পাঁচ সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চ জানিয়ে দিয়েছে, ১৫২৮ সালে বাবরি মসজিদ নির্মাণের আগে সেখানে অন্য কিছু ছিল। অ-মুসলিম কোনও স্থাপত্য। যার জায়গায় বাবর ওই মসজিদ বানিয়েছিলেন। এবং জমিটিতে কখনওই মুসলিম সমাজের একচ্ছত্র অধিকার ছিল না। অর্থাৎ শতকের পর শতক ধরে এই জমির উপর হিন্দুরা অধিকার জানিয়ে এসেছেন। রামের জন্মস্থলে পৌঁছে মানুষ মাথা নিচু করেছে। পড়াশোনা নেই, দেশের রাষ্ট্রপতির নাম জিজ্ঞেস করলেও হয়তো তাঁরা বলতে পারবেন না সুপ্রিম কোর্টে কী নিয়ে মামলা চলছে... তাঁরা যে শুধুই তীর্থ করতে এসেছেন! রামলালাকে দেখতে এসেছেন। তাঁর জন্মভূমিতে একবার পা রাখতে।
এই বিশ্বাসের নামই যে অযোধ্যা! আর এই বিশ্বাসেরই মর্যাদা দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। রায়ে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘১৫২৮ খ্রিস্টাব্দের শত শত বছর আগে থেকে শাস্ত্র রয়েছে। যা হিন্দুত্বের মূল উৎস। তার উপরেই হিন্দু সম্প্রদায়ের বিশ্বাস গড়ে উঠেছে তিলে তিলে। বাল্মীকি রামায়ণ এদের মধ্যে অন্যতম, যার দশম শ্লোক থেকে আমরা জানতে পারি শ্রীরাম সম্পর্কে। তাঁর জন্মের সময় এই বিশ্বের আবহ যেমন হয়েছিল, তা দেখা যায় না। বোঝা গিয়েছিলে, এই শিশু সাধারণ নয়। গোটা বিশ্বের পালক। অযোধ্যা তাঁর জন্মে আশীর্বাদধন্য হয়ে উঠেছিল।’ যদিও আদালত আরও জানিয়েছে, অযোধ্যার উল্লেখ থাকলেও রামায়ণে কিন্তু বলা নেই যে শহরের ঠিক কোথায় ভগবান রাম জন্মগ্রহণ করেছিলেন। জন্মভূমি বলতে গোটা অযোধ্যাকেই বোঝানো হয়েছে। নিশ্চিতভাবে কোনও জায়গার কথা বলা হয়নি।’ পাশাপাশি স্কন্দপুরাণের প্রসঙ্গ টেনে শীর্ষ আদালত জানিয়েছে, রামায়ণের মতো স্কন্দপুরাণেও কিন্তু বিশ্বাস করেন হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা। যা কি না খ্রিস্টপূর্ব ৮ শতাব্দীর বলে বিশ্বাস করা হয়। সেখানে কিন্তু বলা আছে, ‘ওই উত্তর-পশ্চিমে জন্মগ্রহণ করেছিলেন রাম। বিঘ্নেশ্বরের পূর্বে, বশিষ্ঠের উত্তরে...। অর্থাৎ এটা দেখাই যাচ্ছে ১৫২৮ খ্রিস্টাব্দের আগের বহু হিন্দু লেখা আছে, যা প্রমাণ করে অযোধ্যার ওই স্থানে রামের জন্ম হয়েছিল।’
ঐতিহাসিক রায়। লালকৃষ্ণ আদবানি আজ খুশি। আর বিতর্কের অবকাশ নেই। অযোধ্যার সেই ২.৭৭ একর জমিতেই রামমন্দির হবে। তাই খুশি আদবানি। ৯৩ বছরে পা দিয়েছেন তিনি। ৮ নভেম্বর। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহদের থেকে শুভেচ্ছা নেওয়ার পর রাতেই তিনি জেনেছিলেন, রায় দেবে সুপ্রিম কোর্ট। পরদিনই। কিন্তু আদবানি কি মনে রেখেছেন...? ১৯৯২ সালের ৬ ডিসেম্বরের সেই হাড় হিম করে দেওয়া দিনটির আগে তিনি নিজে কী বলেছিলেন? তাঁর সাফ কথাই ছিল, ‘এই ধরনের বিতর্কের ফয়সালা করা আদালতের কাজ নয়। কোর্ট ঠিক করতে পারে না শ্রীরাম এখানে জন্মগ্রহণ করেছিলেন, নাকি অন্য কোথাও?’ অথচ সেই আদালতই নির্ধারণ করল শ্রীরামের জন্মস্থান। অযোধ্যা। আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অব ইন্ডিয়ার রিপোর্ট, মানুষের বিশ্বাস, আর মামলার পক্ষে পেশ হওয়া বাদী-বিবাদীর তথ্য-প্রমাণ-যুক্তির ভিত্তিতে।
অবশেষে সফল আদবানি। বিজেপির লৌহপুরুষ তিনি। হিন্দুত্ব, রথযাত্রা, রামজন্মভূমি... অটলবিহারী বাজপেয়ি যদি দলের প্রশাসনিক দক্ষতা, শান্তি, বাগ্মিতার প্রতীক হন, আদবানি তাহলে হিন্দুত্বের এজেন্ডাকে বয়ে নিয়ে যাওয়ার। সমান্তরালভাবে। তিনি ছিলেন কট্টরপন্থায় বিশ্বাসী। আর নরেন্দ্র মোদি অর্গানাইজড পদক্ষেপে। তাই আদবানি সফল, আর মোদি জয়ী। সুপ্রিম কোর্টের এই রায় অবশ্যই কোনও সম্প্রদায়ের জয়-পরাজয় চিহ্নিত করেনি। এই রায় প্রয়োজন ছিল কারণ, এই সংক্রান্ত দীর্ঘ বিবাদ, হিংসা, খুনোখুনি, দ্বিধাবিভক্ত ভারতীয় সমাজকে আরও একবার সবকিছু ভুলে এক হওয়ার বার্তা দেওয়ার ছিল। হিন্দুদের রামমন্দিরের জন্য অন্যত্র জমি দিয়ে যদি মুসলিম সমাজ অযোধ্যার ওই জমিতে ফের বাবরি মসজিদ বানানোর অনুমতি পেতেন, তাহলেও দেশের শান্তি এতটুকু বিঘ্নিত হতো না। দোকানপাট এভাবেই খুলত। আমাদের ছেলেমেয়েরা এভাবেই স্কুলে যেত। রায় যাই হোক না কেন... এটাই নিশ্চিত করেছিলেন মোদি। চ্যালেঞ্জ ছিল তাঁর। কেন্দ্রে তিনি ক্ষমতায়। রাজ্যেও তিনি। নামেই বিজেপি সরকার। এই শিবিরের চালিকাশক্তি যে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী, তা বোঝার জন্য কোনও পুরস্কার নেই। তাই লোকসভা ভোট গত এক বছরে ব্যতিক্রম হয়েই এই সত্যিটাকে প্রমাণ করেছে। একের পর এক বিধানসভা নির্বাচনে ব্যাকফুটে যেতে থাকা বিজেপি লোকসভা ভোটে কিন্তু মারকাটারি ফল করেছে। মানুষ দেখেছে, কুর্সিতে বসবেন উনি... নরেন্দ্র মোদি। বাকি সব রাজ্যে মুখ্যমন্ত্রী হয়ে যাওয়ার যাঁর ক্ষমতা নেই। কিন্তু শান্তিরক্ষায় তাঁর আবেদনের দাম আছে। সেটাই রেখেছে ভারত। তাই তিনি জয়ী। হিন্দু-মুসলিম নির্বিশেষে সবাই এই রায় মেনেছে... তাই মোদি জয়ী। ক্ষোভ থাকাটাই স্বাভাবিক। সেটা ইতিউতি রয়েওছে। তার মানে সেই ক্ষোভ আগুন হয়ে ঝরে পড়াটা কখনওই সমাজতন্ত্রের, গণতন্ত্রের বিজ্ঞাপন নয়। এই ভারত সেটা জানে। তাই মোদি জয়ী। কিন্তু পরবর্তী যত বিধানসভা ভোট আছে, সেই সবেও কি নরেন্দ্র মোদি একইভাবে জয়লাভ করবেন? রামমন্দির কি তাঁকে ভোটযন্ত্রে আশীর্বাদের ফুল ছড়িয়ে দেবে?
ঝাড়খণ্ডের ভোটে এর উত্তর মিলবে না। ছোট রাজ্য। বিজেপি এখানে যথেষ্ট শক্তিশালী। তাই পশ্চিমবঙ্গের পড়শি এই রাজ্য নিয়ে কারও তেমন মাথাব্যথা নেই। ব্যাপারটা কতক এমন যে, এখানে বিজেপি তো জিতেই রয়েছে। কিন্তু তারপর যে আরও অনেক পথ যাওয়া বাকি! এবং সেক্ষেত্রে নরেন্দ্র মোদির হাতে আর কোনও ধর্মীয়-রাজনৈতিক তুরুপের তাস নেই। অযোধ্যা ইস্যুর উপর ভর করে সেই জন্মলগ্ন থেকেই ভারতের বুকে গেরুয়া আবির ছড়িয়েছে বিজেপি। একের পর এক ভোট এসেছে... গিয়েছে। রামমন্দির নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি। কিন্তু বিষয়টিকে উস্কে ভোটের ঝুলি ভরিয়েছে বিজেপি। নরেন্দ্র মোদি নিজে অবশ্য হিন্দুত্বের কথা বেশি বলেন না। তিনি বিকাশে বিশ্বাসী। সবকা সাথ, সবকা বিকাশ। স্বপ্নের সওদাগর তিনি। তাই এখনও তাঁর ভোটাররা বিশ্বাস করে, আচ্ছে দিন সত্যি আসবে। আর সেক্ষেত্রে মোদি যে চেষ্টার ত্রুটি রাখেন না, সে নিয়েও সন্দেহ নেই। তিনি আত্মবিশ্বাসী, অযোধ্যা ইস্যু না থাকলেও ভোটে জিততে তাঁর অসুবিধা হবে না। তাঁর কাজ দেখেই ভারত তাঁকে ভোট দেবে। জেতাবে। আর যদি ২০২৪ সালের মধ্যে সত্যিই রামমন্দির হয়ে যায় তার ডিভিডেন্ড তো কিছু আছেই! তবে এর মধ্যেও প্রশ্ন আছে... অযোধ্যার ফৌজদারি মামলাটির কী হল? ৬ ডিসেম্বর, ১৯৯২... বাবরি সৌধ ধ্বংসের কয়েক মিনিটের মধ্যে অজ্ঞাতপরিচয় করসেবকদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি ধারায় এফআইআর দায়ের হয়েছিল অযোধ্যার রামজন্মভূমি থানায়। তার ঠিক ১০ মিনিটের মাথায়, অর্থাৎ বিকেল সাড়ে পাঁচটা নাগাদ আর একটি এফআইআর হয়। তাতে নাম ছিল, লালকৃষ্ণ আদবানি, মুরলিমনোহর যোশি, উমা ভারতী, অশোক সিঙ্ঘল, গিরিরাজ কিশোর, বিনয় কাটিয়ার, বিষ্ণু হরি ডালমিয়া এবং সাধ্বী ঋতাম্ভরার। এর পাশাপাশি আরও ৪৭টি এফআইআর দায়ের হয়েছিল। ৩০০ প্রত্যক্ষদর্শী... ৪৯ জন অভিযুক্ত মারা গিয়েছেন। তারপরও মামলা চলছে ২৭ বছর ধরে। লখনউয়ের বিশেষ সিবিআই আদালতে। সুপ্রিম কোর্ট কিন্তু বলেছে, ১৯৯২ সালের ৬ ডিসেম্বর বাবরি সৌধ ওইভাবে ভেঙে ফেলাটা অপরাধ। সেটা মোটেই ঠিক কাজ হয়নি। সিবিআই আদালতে শুনানিও প্রায় শেষ পর্যায়ে। এবার সেই রায় যদি বিজেপি ও আরএসএসের হাইপ্রোফাইল সব নেতানেত্রীর বিপক্ষে যায়? সুপ্রিম কোর্ট যে ইঙ্গিত দিয়েছে, তাতে তেমন কিছু হওয়াটা অস্বাভাবিক নয়। বিভিন্ন মহল মনে করছে, সেটা কিন্তু বিজেপির জন্য মোটেই সুখকর হবে না। এখানেও যে একটা অন্য সমীকরণ আছে! সেটা মোদির। অমিত শাহের। হিন্দুত্ব এজেন্ডা বিজেপিতে আছে। থাকবে। কিন্তু মোদি-অমিত শাহের জমানায় তারও যে অভিযোজন হয়েছে! সে আর উন্মুক্ত তরবারি নয়। বিজেপির এখনকার হিন্দুত্ব অর্গানাইজড। তা সোশ্যাল মিডিয়ায় ঘোরাফেরা করে। হিন্দুত্বের নিশান উড়িয়ে বিজেপিকে ধর্মীয় মেরুকরণের ঘোষণা আজ না করলেও চলে। এই এজেন্ডা চোরাস্রোতের মতো ঢুকে পড়ে ভোটারের ঘরে। ভক্তের ঘরে। এর বিস্তার অসীম। কিন্তু চিরন্তন নয়। ছাপোষা মধ্যবিত্তের ঘরে ধর্ম ততক্ষণই ভালো লাগে, যতক্ষণ পেটে ভাত আছে। চাকরি না থাকলে, দু’বেলা দু’মুঠো খেতে না পেলে ধর্মীয় ভাবাবেগ, মন্দির রাজনীতি জানালা দিয়ে পালিয়ে যায়। তাই রাম-রাজনীতি আর নয়, মোদিকে আগে নিশ্চিত করতে হবে দেশের আর্থিক বৃদ্ধি, মানুষের কর্মসংস্থান, গরিব মানুষের পেটের ভাত। ওই যে তিনি বলেন না... ‘আমি রাষ্ট্রভক্ত’। রাষ্ট্র মানেই তো মানুষ। ভারত মানে ভারতবাসী। পেটে খেলেই যে পিঠে সইবে... এ আজও মিছে কথা নয়! 
12th  November, 2019
রাম রাজনীতির উত্তরাধিকার
হিমাংশু সিংহ

রামমন্দির নির্মাণ শেষ হলে এদেশের গেরুয়া রাজনীতির সবচেয়ে মোক্ষম অস্ত্রটাও কিন্তু রাতারাতি ভোঁতা হতে বাধ্য। যে স্বপ্নকে লালন করে তিন দশক দিনরাত পথচলা, তার প্রাপ্তি যেমন মধুর, তেমনই সঙ্গত কারণেই প্রশ্ন, এর পর কী? বিশদ

দল বদলের জেরে কুশীলবরাই হয়ে যান পুতুল
তন্ময় মল্লিক

রাজনীতিতে দল বদল খুবই স্বাভাবিক ঘটনা। তবে, যাঁরা দল বদলান, তাঁরা ‘ঘরের ছেলে’র মর্যাদা হারান। গায়ে লেগে যায় ‘সুবিধাবাদী’ তকমা। পরিস্থিতি বলছে, তাতে রাজনীতির কুশীলবরা‌ই হয়ে যান হাতের পুতুল। বিশদ

08th  August, 2020
রামমন্দিরের পর হিন্দুত্ববাদী
রাজনীতি কোন পথে?
সমৃদ্ধ দত্ত

নরেন্দ্র মোদি কি উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবেই উচ্চারণ করেছেন একাধিকবার ‘জয় সিয়ারাম’ ধ্বনি? উগ্র হিন্দুত্ব থেকে এবার কি অন্য নতুন এক সমন্বয়ের হিন্দুত্বে ফিরতে চান তিনি? সনাতন ভারতবর্ষ আশা করবে, হিন্দুত্ববাদী রাজনীতিকে তিনি আগামীদিনে চালিত করবেন সহিষ্ণুতা, বহুত্ববাদ আর ঐক্যের পথে।
বিশদ

07th  August, 2020
ক্রীড়া ও বিনোদন অর্থনীতি:
কী ভাবছে সরকার?
হারাধন চৌধুরী

 ১০০ বছর ধরে মাঠ কাঁপাচ্ছে যে দল, সেই লাল-হলুদ ঝড়ের নাম ইস্টবেঙ্গল। এই স্লোগানের সঙ্গে বাঙালি বহু পরিচিত। গত ১ আগস্ট, ইস্টবেঙ্গলের শতবর্ষ পূর্ণ হল। যে-কোনও ক্ষেত্রে সেঞ্চুরির গরিমা কতটা সবাই জানেন। ক্রীড়ামোদী বাঙালি মূলত দুই শিবিরে বিভক্ত—ইস্টবেঙ্গল, মোহনবাগান।
বিশদ

06th  August, 2020
সবুজ হচ্ছে জঙ্গলমহলের প্রকৃতি ও মানুষ
সন্দীপন বিশ্বাস

জঙ্গলমহল হাসছে। এই কথাটা একসময় বহু ব্যবহৃত শব্দবন্ধের মতো হয়ে গিয়েছিল। তারপর সেটা নিয়ে বিরোধীদের বিদ্রুপ করা শুরু হল। কিন্তু এটা ঠিক, ২০১১ সালের আগে যে জঙ্গলমহলের চোখে জল ছিল, তা আর ফিরে আসেনি।
বিশদ

05th  August, 2020
 সমাজ ব্যর্থ হলে অসহায় মানুষের
পাশে দাঁড়াবার রাজনীতিই কাম্য
শুভময় মৈত্র

কোভিডাক্রান্ত ফুসফুসে সাহস জোগাতে সরকারের সহযোগিতায় দলমত নির্বিশেষে আরও কিছুটা উদ্যোগ জরুরি। দ্রুততার সঙ্গে সে কাজ না-হলে আম জনতা বিপদে পড়বে। সমাজ অকৃতকার্য হলে অ্যাম্বুলেন্সে উঠতে না-পেরে অসুস্থের মৃত্যু রুখতে হবে নিঃসহায়ের রাজনীতিকেই।
বিশদ

05th  August, 2020
নয়া নীতিতে শিক্ষা
আমাদের ‘বাহন’ হবে তো?
শান্তনু দত্তগুপ্ত

নরেন্দ্র মোদি সরকার নয়া শিক্ষানীতি ঘোষণা করার পর দিকে দিকে কেমন একটা হুলস্থুল পড়ে গিয়েছে। বিষয়ে নতুনত্ব আছে। আর তা অস্বীকার করার জায়গা নেই। সরকারি স্কুলে প্লে-গ্রুপ ও কিন্ডারগার্টেন, ১০+২ এর ধারণা পিছনে ফেলে ফুটবলের মতো ৫+৩+৩+৪ ছকে স্কুলশিক্ষাকে সাজানো এবং সায়েন্স, আর্টস, কমার্স উঠে যাওয়া... নড়েচড়ে বসার মতো পরিস্থিতি বটে।
বিশদ

04th  August, 2020
রাজ্য-রাজনীতির বর্ণময় চরিত্র
সোমেন মিত্রের কিছু স্মরণীয় মুহূর্ত 
প্রবীর ঘোষাল

২০০০ সালের মার্চ মাস। রাজ্য কংগ্রেস রাজনীতিতে ঘোর সঙ্কট। দু’বছর আগে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তৃণমূল কংগ্রেস গঠন করে ঝড় তুলে দিয়েছেন। দু’-দু’টি লোকসভা নির্বাচনে জোড়াফুলের সাফল্য গোটা দেশকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে। এই সময় এল পশ্চিমঙ্গে রাজ্যসভা নির্বাচন।  
বিশদ

03rd  August, 2020
করুণ কাহিনীতে কোনও ‘সমাপ্ত’ হয় না 
পি চিদম্বরম

গত বছরের ৫ আগস্ট ভারতের সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল করা হয়। তারপর থেকে লিখিত আদেশ ছাড়াই জম্মু ও কাশ্মীরের অনেক ব্যক্তিকে ‘গৃহবন্দি’ করা হয়েছে। এরকমই একজন গৃহবন্দি রাজনৈতিক নেতা বলেন যে, ‘জম্মু ও কাশ্মীর একটা বিরাট বন্দিশালা’। 
বিশদ

03rd  August, 2020
৫ আগস্ট ও নরেন্দ্র
মোদির ভোট অঙ্ক
হিমাংশু সিংহ 

২৯ বছর আগে ছবিটা তুলেছিলেন মহেন্দ্র ত্রিপাঠি। করোনা আবহে সেই ছবিই গোটা দেশে আজ হঠাৎ ভাইরাল। মহেন্দ্র পেশায় শখের ফটোগ্রাফার। ছোট্ট একটা স্টুডিও আছে অযোধ্যার প্রস্তাবিত রামমন্দির চত্বরের কাছেই।   বিশদ

02nd  August, 2020
ভাবনা বদলালেই সহজ
হবে করোনা মোকাবিলা
তন্ময় মল্লিক 

‘আমারই চেতনার রঙে পান্না হল সবুজ, চুনি উঠল রাঙা হয়ে। আমি চোখ মেললুম আকাশে, জ্বলে উঠল আলো পুবে-পশ্চিমে।’—রবীন্দ্রনাথ। ‘শিক্ষা আনে চেতনা, চেতনা আনে বিপ্লব, বিপ্লব আনে মুক্তি।’—লেনিন।   বিশদ

01st  August, 2020
বন্ধু চীনই এখন
আমেরিকার বড় শত্রু
মৃণালকান্তি দাস 

পঞ্চাশ বছরের ‘সম্পর্ক’ মাত্র চার বছরে উল্টে গিয়েছে! এই সেদিনও চীন-আমেরিকা নিজেদের বলত ‘কৌশলগত বন্ধু’। ১৯৭১ সালে বেজিং সফরে গিয়ে ধুরন্ধর মার্কিন বিদেশসচিব হেনরি কিসিঞ্জার সেই ‘বন্ধুত্বে’র চারা লাগিয়ে এসেছিলেন।   বিশদ

31st  July, 2020
একনজরে
 দাম্পত্য অশান্তির জেরে বিষ খেয়ে আত্মহত্যা করলেন স্ত্রী। ঘটনাটি ঘটেছে বিষ্ণুপুর থানার বগাখালি এলাকায়। মৃতার নাম রেণুকা সর্দার (৫৩)। ...

 আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার লক্ষ্যে আবার অনুশীলনে ফিরতে চলেছেন বাংলাদেশের তারকা ক্রিকেটার শাকিব আল হাসান। আগামী ২৯ অক্টোবর শেষ হতে চলেছে এই অলরাউন্ডারের নির্বাসন। ...

 কেরলের ইদুক্কিতে ভূমিধসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হল ২৪। শুক্রবার সকালে প্রবল বর্ষণের জেরে ইদুক্কি জেলায় একটি চা বাগানে ধস নামে, যার ধ্বংসস্তূপে চাপা পড়ে যায় ২০টি বাড়ি। ...

 কয়লার গুণগত মান বজায় রাখতে আন্তর্জাতিক স্তরের উপদেষ্টা সংস্থা নিয়োগ করতে চলেছে কোল ইন্ডিয়া লিমিটেড। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

ছোটখাট আঘাত লাগার সম্ভাবনা। নিকট আত্মীয় থেকে মানসিক কষ্ট পাওয়ার সম্ভাবনা। বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্রছাত্রীরা বেশি ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

নাগাসাকি দিবস
বিশ্ব আদিবাসী দিবস

১৭৭৬: ইতালির রসায়নবিদ আমাদিও অ্যাভোগাদ্রোর জন্ম
১৯৩১: ব্রাজিলের ফুটবলার তথা কোচ মারিও জাগালোর জন্ম
১৯৪৫: দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জাপানের নাগাসাকি শহরে আমেরিকার ফেলা পরমাণু ৩৯ হাজার মানুষের মৃত্যু
১৯৭০ – বিপ্লবী ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তীর মৃত্যু
১৯৭৪: ওয়াটার গেট কেলেঙ্কারির কারণে মার্কিন প্রেসিডেন্ট রিচার্ড নিকসনের পদত্যাগ
২০০৮: গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিকে পুরুষদের ৪০০ মিটার ফ্রিস্টাইল সাঁতার প্রতিযোগিতা শুরু হয়।



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৩.১৬ টাকা ৭৬.৮৮ টাকা
পাউন্ড ৯৫.৮৩ টাকা ১০০.৯৯ টাকা
ইউরো ৮৬.৪৮ টাকা ৯১.১৫ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
08th  August, 2020
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৫৬,৯৬০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৫৪,০৪০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৫৪,৮৫০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৭৫,০৩০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৭৫,১৩০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
08th  August, 2020

দিন পঞ্জিকা

২৪ শ্রাবণ ১৪২৭, রবিবার, ৯ আগস্ট ২০২০, যষ্ঠী অহোরাত্র। রেবতীনক্ষত্র ৩৪/৩৮ রাত্রি ৭/৬। সূর্যোদয় ৫/১৪/৫৮, সূর্যাস্ত ৬/৯/১২। অমৃতযোগ প্রাতঃ ৬/৬ গতে ৯/৩২ মধ্যে। রাত্রি ৭/৩৮ গতে ৯/৬ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ ৬/৬ মধ্যে পুনঃ ১২/৫৮ গতে ১/৫০ মধ্যে। রাত্রি ৬/৫৪ গতে ৭/৩৮ মধ্যে পুনঃ ১২/৪ গতে ৩/২ মধ্যে। অমৃতযোগ প্রাতঃ ৬/৬ গতে ৯/৩২ মধ্যে। রাত্রি ৭/৩৮ গতে ৯/৬ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ প্রাতঃ ৬/৬ মধ্যে পুনঃ ১২/৫৮ গতে ১/৫০ মধ্যে। রাত্রি ৬/৫৪ গতে ৭/৩৮ মধ্যে পুনঃ ১২/৪ গতে ৩/২ মধ্যে। বারবেলা ১০/৫ গতে ১/১৯ মধ্যে। কালরাত্রি ১/৫ গতে ২/২৮ মধ্যে।
২৪ শ্রাবণ ১৪২৭, রবিবার, ৯ আগস্ট ২০২০, যষ্ঠী শেষরাত্রি ৪/৩৩। রেবতীনক্ষত্র সন্ধ্যা ৬/২৪। সূর্যোদয় ৫/১৪, সূর্যাস্ত ৬/১২। অমৃতযোগ দিবা ৬/১০ গতে ৯/৩২ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/২৮ গতে ৮/৫৯ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ৬/১০ মধ্যে ও ১২/৫৪ গতে ১/৪৪ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/৪২ গতে ৭/২৮ মধ্যে ও ১১/১ গতে ৩/৩ মধ্যে। বারবেলা ১০/৬ গতে ১/২০ মধ্যে। কালরাত্রি ১/৬ গতে ২/২৯ মধ্যে।
 ১৮ জেলহজ্জ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
রাজ্যে করোনায় মৃত্যু ২ হাজার ছাড়াল
রাজ্যে করোনায় মৃত্যু ২ হাজার ছাড়াল। এ পর্যন্ত মোট ২০০৫ ...বিশদ

08-08-2020 - 09:06:41 PM

কাজিরাঙ্গায় শিকারির গুলিতে মৃত গণ্ডার 
অসমের কাজিরাঙ্গা অভয়ারণ্যে আজ সকালে একটি মৃত গণ্ডার উদ্ধার করা ...বিশদ

08-08-2020 - 04:35:00 PM

গুজরাতে রাসায়নিক কারখানায় ভয়াবহ আগুন 
 গুজরাতের একটি রাসায়নিক কারখানায় ভয়াবহ আগুন লাগল। আজ শনিবার ঘটনাটি ...বিশদ

08-08-2020 - 03:59:00 PM

কেরলে দুর্ঘটনাগ্রস্ত বিমানের ২৩ জন যাত্রী হাসপাতাল থেকে মুক্ত 
কেরলে দুর্ঘটনাগ্রস্ত বিমানের ২৩ জন যাত্রীকে সুস্থ অবস্থায় হাসপাতাল থেকে ...বিশদ

08-08-2020 - 03:45:00 PM

কেরলের বিমান দুর্ঘটনায় নিহত ও আহতদের আর্থিক সাহায্য ঘোষণা কেন্দ্রের
কেরলের কোঝিকোড়ে বিমান দুর্ঘটনায় নিহত ও আহতদের আর্থিক সাহায্য ঘোষণা ...বিশদ

08-08-2020 - 02:09:37 PM

করোনা: কোন কোন দেশ বেশি আক্রান্ত? 
করোনায় আক্রান্তের বিচারে তালিকায় শীর্ষে রয়েছে আমেরিকা। এদেশে করোনায় আক্রান্ত ...বিশদ

08-08-2020 - 01:33:00 PM