Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

ক্ষমতায় ফিরে আসার লক্ষ্যে কমনিষ্ঠ পার্টি অব মৃত্যুলোকের নয়া পরিকল্পনা
সন্দীপন বিশ্বাস

হাতের চুরুটটা নিভতে নিভতেও আগুন ছুঁয়ে আছে। আর কমরেট প্রমোদিয়েভ ঝিমোতে ঝিমোতেও জেগে আছেন। ওদিকে কমরেট জ্যোতোভস্কি আরাম কেদারায় হেলান দিয়ে টেবিলে পা তুলে দিয়ে টিভি দেখছেন। একটা গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণার দিকে তাকিয়ে আছেন তিনি। এখনও অন্য কমরেটরা আসেননি। ওনাদের উপস্থিতিতে কমনিষ্ঠ পার্টি অব মৃত্যুলোকের (সিপিএম) সদর দপ্তর নানা আলোচনা আর বিতর্কে মশগুল হয়ে ওঠে। মর্ত্যলোকের কমরেটদের কাজ নিয়ে প্রতিদিনই চুলচেরা আলোচনা হয়। কখনও কখনও তা প্রায় হাতাহাতির পর্যায়ে গিয়ে পড়ে।
জ্যোতোভস্কি বললেন, ‘কী মনে হচ্ছে কমরেট, আপনার চান্স আসবে?’
প্রমোদিয়েভ বললেন, ‘ক্ষমতা হল আমার হাতের এই চুরুটের মতো, এলেও জ্বলন, না এলেও জ্বলন।’
জ্যোতোভস্কি বললেন, ‘বড় তাত্ত্বিক কথা।’
বলতে বলতেই ঘোষণা হয়ে গেল। টিভির সংবাদ পাঠক পড়লেন ‘এবছরের নভেম্বর বিপ্লব উদযাপন কমিটির প্রধান নির্বাচিত হয়েছেন কমরেট প্রমোদিয়েভ।...।’ জ্যোতোভস্কি উঠে গিয়ে বললেন, ‘অভিনন্দন কমরেট প্রমোদিয়েভ।’ তারপরই ওদিক পরপর ফোন আসতে শুরু করল। লেনিন, স্তালিন, ট্রটস্কি, বিনয়স্কি, হরেকৃস্তভ প্রমুখের ফোন ধরতে ধরতে যেন হাঁপিয়ে উঠলেন প্রমোদিয়েভ। ‘ধ্যুত্তেরি’ বলে তাঁর মোবাইলের স্যুইচ অফ করে দিলেন।
এর মধ্যেই ছুটতে ছুটতে পার্টি অফিসে ঢুকলেন কমরেট সুভনোৎসিন। হাতের ফুলের গোছা। সেটা প্রমোদিয়েভের হাতে দিয়ে মাথা থেকে স্পোর্টস হ্যাটটা টেবিলে রেখে টাকের ঘাম মুছতে মুছতে বললেন ‘অভিনন্দন কমরেট, আপনার এই সম্মান আমাদের গর্বিত করল।’
প্রমোদিয়েভ চুরুটে টান দিয়ে বললেন, ‘এই নভেম্বর বিপ্লবই একদিন সারা বিশ্বে কমনিষ্ঠদের ক্ষমতা দখলের পথ প্রশস্ত করেছিল। আমরাও একসময় আমাদের রাজ্যে ক্ষমতার এক মসৃণ অবস্থানে ছিলাম। কিন্তু কয়েকজন অর্বাচীনের জন্য সেখানে আজ আমাদের সাজানো বাগান শুকিয়ে গিয়েছে।’
জ্যোতোভস্কি একটা হুম শব্দ করে বললেন, ‘আঙুরের জমিতে শিল্প করতে যাওয়া আর ভৃঙ্গীগ্রামে জমি দখলের ভুলের মাশুল আমাদের দিতে হচ্ছে। মানুষ টিভিতে দেখেছে সেই অত্যাচারের দৃশ্য। কমরেটরা পুলিশের পোশাক পরে কীভাবে গুলি চালিয়ে মানুষ মেরেছে, কীভাবে মানুষের ঘরে আগুন দিয়েছে। তার পাল্টা রিঅ্যাকশন হবেই।’
সুভনোৎসিন বললেন, ‘এখানে একটা কথা আমার বলা দরকার। সেটা হল এর থেকে অনেক বড় হত্যাকাণ্ড রাশিয়ায় লেনিনবাবু আর স্তালিনবাবুরা করেছিলেন। মস্কো, সেন্ট পিটার্সবার্গে যে গণহত্যা হয়েছিল সেটা হিটলারের থেকে কোনও অংশে কম ছিল না। তাও ওঁরা ক্ষমতা হারাননি। ওনাদের গণহত্যার তুলনায় আঙুর আর ভৃঙ্গীগ্রামের হত্যাকাণ্ড ছেলেমানুষ।’
জ্যোতোভস্কি বললেন, ‘চুপ করে বোস। তোমার এই এক মাথা গরম। আমরা এখান থেকে সব নজর রাখছি। প্রতিটা ভোটের ফল বিশ্লেষণ করে দেখেছি। প্রতিদিন ওখানে আমাদের ভোট কমে যাচ্ছে। আমরা শুধু মানুষের কথা বলতাম। আর ওরা মা মাটি মানুষের কথা বলে সব ভোট ছিনিয়ে নিয়ে গেল। এখন তো আবার শুনছি গোমূত্র, গোময় নিয়েও কেউ কেউ ভোটের আসরে অবতীর্ণ হচ্ছে। কিন্তু আমাদের নেতারা বসে ঝিমোচ্ছেন।’
প্রমোদিয়েভ বললেন, ‘তোমাদেরই তো দোষ। নিজেরাই ক্ষমতা ভোগ করেছ। কখনও ইয়ং জেনারেশনকে পাত্তাই দাওনি। ফলে দল এখন তরুণ শূন্য। তোমাদের সব কথা জানতে পারলে কমরেট স্তালিনরা ফায়ারিং স্কোয়াডের সামনে দাঁড় করিয়ে সবাইকে গুলি করে মারতেন।’
জ্যোতোভস্কি বললেন, ‘লেটেস্ট রিপোর্টে দেখলাম সারাদেশে আমাদের পার্টি সদস্যের সংখ্যা দশকোটি ছড়িয়ে গিয়েছে।’
প্রমোদিয়েভ বললেন, ‘ওসব জল মেশানো রিপোর্ট। তুমি ওই রিপোর্টকে অথেন্টিক বলে মনে কর? আমাদের দুর্ভাগ্য হল আমরা সব কাজের লোকগুলো একে একে মৃত্যুলোকে চলে এলাম আর পড়ে রইলেন শুধু বাক্যবাগীশগুলো। দু’একজন বাদে কারও সঙ্গে মানুষের কোনও যোগ নেই। এদের দেখে মানুষ আমাদের ভোট দেবে? ফুঃ!’
এর মধ্যে একজন বেয়ারা এসে একটা স্লিপ দিয়ে গেলেন। প্রমোদিয়েভ সেটা পড়লেন। ‘মিঃ ঝংকারিয়া। ইনি আবার কে? আমার সঙ্গে দেখা করতেই বা চাইছেন কেন?’
সুভনোৎসিন বললেন, ‘উনি আমার সঙ্গে এসেছেন। আপনার সঙ্গে একটু দেখা করতে চান। মর্ত্যলোকে বড় শিল্পপতি ছিলেন। ওখানেই আমাদের পরিচয়। এখন এখানে এসেও সেই ধান্দা করতে চান।’
প্রমোদিয়েভ বললেন, ‘না, কোনও বুর্জোয়া শিল্পপতিকে আমি কাছে ঘেঁষতে দেব না।’
সুভনোৎসিন বললেন, ‘আজ্ঞে উনি মর্ত্যলোকেও আমাদের অনেক সেবা করেছেন। আপনি কি মনে করেন, শুধু কৌটো নাড়িয়ে পার্টির এত কোটি টাকার সম্পত্তি হয়েছে?’
প্রমোদিয়েভ বললেন, ‘দেখুন কমরেট জ্যোতোভস্কি, আপনার শিষ্যের কথাবার্তা শুনুন।’
জ্যোতোভস্কি বললেন, ‘হ্যাঁ, চিরকালই ও একটু একগুঁয়ে। পার্টিতে থেকেও অনেক সময় পার্টিলাইন মানেনি। তাতে অবশ্য অনেক সময় পার্টির উপকারই হয়েছে। আপনি একবার কথা বলে দেখতে পারেন।’
প্রমোদিয়েভের সঙ্কেত পেয়ে উঠে বাইরে গেলেন সুভনোৎসিন। একটু পরে এক ব্যক্তিকে নিয়ে ঘরে ঢুকলেন। পরিচয় করিয়ে দিয়ে বললেন, ‘ইনিই মিঃ ঝংকারিয়া।’
ঝংকারিয়া সবাইকে প্রণাম করে একটা প্যাকেট টেবিলে রাখলেন। সেটা দেখে প্রমোদিয়েভ বললেন, ‘এটা কী?’
মিঃ ঝংকারিয়া বললেন, ‘আজ্ঞে পরনামি। মন্দিরে দেওতা দরশন করতে যাব, আর থালায় পরনামি দেব না! ই কালচার হামার নেই স্যার।’
প্রমোদিয়েভ: ‘না, না ওটা নিয়ে যান। ওসব দেবতা টেবতার কথা আমাদের বলবেন না।’ সুভনোৎসিন বললেন, ‘মিঃ ঝংকারিয়ার একটা ইচ্ছে আছে। সেটা হল আমাদের নভেম্বর বিপ্লবের যে উৎসব হবে, তার খরচ সবটাই উনি বহন করতে চান। আমার ইচ্ছে এই সুযোগটা দিয়ে ওনাকে সম্মানিত করা হোক।’
হাতের নেভা চুরুটটা অ্যাসট্টেতে রাখতে রাখতে প্রমোদিয়েভ বললেন, ‘বেশ তাই।’
মিঃ ঝংকারিয়া বললেন, ‘হামার একটা নিবেদন আছে। এটা ওবশ্য মোরতোলোকের কেস আছে।’
প্রমোদিয়েভ তাঁর পাকা ভুরু দুটো বাঁকিয়ে বললেন, ‘বলুন।’
মিঃ ঝংকারিয়া গদগদ হয়ে বললেন, ‘থ্যাঙ্ক ইউ স্যার। হামার লেড়কা আভি মরতোলোকে রিয়্যাল ইসটেটের বেওসা করে। তাই উস লোক মে একটা বড়া জমি চাই।
জ্যোতোভস্কি চটে গিয়ে বললেন, ‘আমরা কি জমি লেনদেনের ব্যবসা খুলেছি নাকি? আপনি অন্য কোথাও যান।’
মিঃ ঝংকারিয়া হাত দুটো জোড় করে বিনয়ের সঙ্গে বললেন, ‘চটে যাবেন না স্যার। আপনারা চাইলেই হোবে।’
সুভনোৎসিন তাঁকে থামিয়ে বললেন, ‘মিঃ ঝংকারিয়া। আপনার যা বলার তাড়াতাড়ি বলুন। একটু পরেই অন্য কমরেডরা চলে আসবেন। আজ পলিতবুড়োর মিটিং আছে।’
মিঃ ঝংকারিয়া বললেন, ‘হাঁ হাঁ, ঠিকই বলিয়েছেন। হামি চাইছিলাম আলুমুদুয়েভ স্ট্রিটের পার্টি অফিসটা হামাকে দিয়ে দিন। হামার লেড়কা ওখানে একটা মাল্টিস্টোরেড বিল্ডিং আউর শপিং কমপেলেক্স বনাবে। উও ইমন বিল্ডিং বনাবে যে লোকে আঁখ ফিরাতে পারবে না। হামার লেড়কা উধারকা নেতাকো সাথ বাতচিৎ করতা। লেকিন উও লোগ নেহি মানতা।’
প্রমোদিয়েভ বললেন, ‘কেন মানবে? আমাদের পার্টি কি মরে গেছে নাকি যে আপনাকে বাড়িটা দিয়ে দেবে?’ মিঃ ঝংকারিয়া এবার বললেন, ‘আপনি বোলেন স্যার, পার্টি ইখন ইত্তটুকুন হয়ে গ্যাছে। বড়া বড়া বাড়ি কী কামে লাগবে? হামি ওখানে ফ্ল্যাট বানানোর পর পাঁচ হাজার স্কোয়্যার ফিটের একটা ফ্ল্যাট পার্টিকে ভেট দিব। আউর আভি একশো করোড় রুপেয়া ক্যাশ দিয়ে দিব। ছোটা পার্টি ছোটা ঘর। ইয়ে হুয়ি না বাত। ইসি কা সাথ হামার লেড়কা ডিস্ট্রিক্ট পার্টি অফিস ভি খরিদ লেনা চাহতা হ্যায়। ঝংকারিয়া ডেভেলপার্স লাল পার্টিকো এক নয়া জিন্দেগি দে সকতা হ্যায়।’
প্রমোদিয়েভ বুঝলেন পার্টির বেঁচে থাকাটা খুব জরুরি। মুমুর্ষু রোগীর জন্য নতুন পথ্য দরকার। স্ট্রাগল ফর এগজিস্টেন্ট। তাই তিনি বললেন, ‘সবই তো শুনলাম। কিন্তু আমরা এখান থেকে কীই বা করতে পারি?’
মিঃ ঝংকারিয়া বললেন, ‘আপনারা সোব পারেন। হামি ইখান থেকে আমার লেড়কাকে প্ল্যনচেটে প্ল্যান দিচ্ছি আর আপনারা প্ল্যানচেটে সোব চ্যাট করে বাতিয়ে দিন।’
সুভনোৎসিন বললেন, ‘আমার মনে হয় মিঃ ঝংকারিয়ার প্রস্তাব আমাদের মেনে নেওয়া উচিত। আমি ব্যক্তিগতভাবে সেই অনাগত ভবিষ্যৎ দেখতে পাচ্ছি। এখন অনেকেই পার্টি ছেড়ে পালাচ্ছে। লাল আর সেভ নয়। লড়াই এখন সবুজে-গেরুয়ায়। আর আমরা করছি হায় হায়। আর কিছুদিন পরে ওটা হানাবাড়ি হয়ে যাবে। ভূতেদের বাসা হবে ওটা। পার্টি এখন কলসির তলানি জল। কয়েকজন নেতা পনেরো মিনিটের মিছিল করে এক ঘণ্টা হাঁফায়। এই সময় ঘুরে দাঁড়ানোর রসদ দরকার। লেভি কমেছে। পার্টি সদস্য কমেছে। চাঁদা কম, কৌটো নাড়া বন্ধ। আমদানিটা হবে কোথা থেকে? এখন পার্টির ভরসা মিঃ ঝংকারিয়ার মতো মানুষজন। ওনারাই আমাদের অ্যাসেট। ওনাদের ভরসাতেই আবার ঘুরে দাঁড়ানোর স্বপ্ন দেখতে হবে। এনিয়ে আমি একটা কবিতা লিখেছি। দিবে আর নিবে মিলাবে মিলিবে, যাবে না ফিরে/ পার্টি আবার বেঁচে উঠুক ক্ষমতার দুধে-ক্ষীরে। পার্টি ক্ষমতায় এলে অমন বাড়ি আবার বানিয়ে নেওয়া সম্ভব। শুধু স্মৃতি আঁকড়ে পড়ে থাকলে পার্টির কোনও লাভ নেই।’
প্রমোদিয়েভ গম্ভীর মুখে সব কথা শুনলেন। তারপর বললেন, ‘মিঃ ঝংকারিয়া, আপনি আজ আসুন। আমরা পলিতবুড়োর মিটিংয়ে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করব। তারপর মর্ত্যলোকের কমরেডদের সঙ্গে প্ল্যানচেটে চ্যাট করব। তারপর আবার যা হওয়ার হবে।’
কমরেট জ্যোতোভস্কি সিলিংয়ের দিকে তাকিয়ে বললেন, ‘শূন্য থেকে শুরু। হায়রে শূন্য থেকে শুরু।’
11th  November, 2019
ক্ষমা করো সুভাষ
জয়ন্ত চৌধুরী

মুক্তিপথের অগ্রদূত তিনি। অখণ্ড ভারত সাধনার নিভৃত পথিক সুভাষচন্দ্রের বৈপ্লবিক অভিঘাত বাধ্য করেছিল দ্রুত ক্ষমতা হস্তান্তরের পটভূমি রচনা করতে। দেশি বিদেশি নিরপেক্ষ ঐতিহাসিকদের লেখনীতে আজাদ হিন্দের অসামান্য আত্মত্যাগ স্বীকৃত হয়েছে। সর্বাধিনায়কের হঠাৎ হারিয়ে যাবার বেদনা তাঁর জন্মদিনেই বড় বেশি স্পর্শ করে যায়।  
বিশদ

স্বামীজি, বিশ্বকবি ও নেতাজির খিচুড়ি-বিলাস
বিকাশ মুখোপাধ্যায়

মঙ্গলকাব্য থেকে কাহিনীটা এভাবে শুরু করা যেতে পারে।
সকাল সকাল ঘুম থেকে উঠেই মা দুর্গা নন্দিকে তলব করেছেন, যাও ডাব পেড়ে নিয়ে এসো।
নন্দির তখনও গতরাতের গাঁজার খোঁয়ার ভাঙেনি। কোনওরকমে জড়ানো স্বরে বলল, ‘এত্তো সকালে মা?’  বিশদ

‘যে আপনকে পর করে...’
শান্তনু দত্তগুপ্ত

মহাত্মা গান্ধী একটা কথা বলতেন, মনপ্রাণ দিয়ে দেশের সেবা যিনি করেন, তিনিই সত্যিকারের নাগরিক। নাগরিক কাহারে কয়? বা নাগরিক কয় প্রকার ও কী কী? এই জাতীয় প্রশ্ন এখন দেশে সবচেয়ে বেশি চর্চিত। সবাই নিজেকে প্রমাণে ব্যস্ত। ভালো নাগরিক হওয়ার চেষ্টাচরিত্র নয়, নাগরিক হতে পারলেই হল। তার জন্য কাগজ লাগবে। এক টুকরো কাগজ প্রমাণ করবে, আপনি আমি ভারতের বাসিন্দা।   বিশদ

21st  January, 2020
আইন ও বাস্তব
পি চিদম্বরম

আপনি যখন এই লেখা পড়ছেন তখন ইন্টারনেট, আন্দোলন, জনসমাবেশ, রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড, ভাষণ ও লেখালেখি এবং কাশ্মীর উপত্যকার পর্যটকদের উপর নিয়ন্ত্রণ জারি রয়েছে। কোনোরকম ‘চার্জ’ ছাড়াই রাজনৈতিক নেতাদের হেপাজতবাসও চলছে যথারীতি। সুতরাং প্রশ্ন উঠছে—আদালতের রায়ের পরেও বাস্তবে কিছু পরিবর্তন হয়েছে কি?
বিশদ

20th  January, 2020
নেতাজি—আঁধারপথে অনন্ত আলোর দীপ্তি
সন্দীপন বিশ্বাস

স্বাধীনতার পর অতিক্রান্ত বাহাত্তর বছর। কিন্তু আজও যেন তার নাবালকত্ব ঘুচল না। আসলে দেশের যাঁরা হাল ধরেন, তাঁরাই যদি নাবালকের মতো আচরণ করেন, তাহলে দেশও নাবালকই থেকে যায়। এই নাবালকত্ব আসলে এক ধরনের অযোগ্যতা। সেই অযোগ্যতার পথ ধরেই দেশ ডুবে আছে অসংখ্য সঙ্কটে। দুর্নীতিই হল সেই সঙ্কটের মধ্যমণি।  
বিশদ

20th  January, 2020
মানুষকে সঙ্কটে ফেলা ছাড়া নোটবাতিলের
আর কোনও উদ্দেশ্যই সফল হয়নি 
হিমাংশু সিংহ

আর-একটা সাধারণ বাজেট পেশ হতে চলেছে দু’সপ্তাহের মধ্যে। নিঃসন্দেহে এবারের বাজেটের প্রধান লক্ষ্য, বেনজির আর্থিক মন্দার মোকাবিলা করা, নতুন কাজের সুযোগ সৃষ্টি করা এবং একইসঙ্গে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পকে চাঙ্গা করা। ছাপ্পান্ন ইঞ্চি ছাতির নরেন্দ্র মোদি যতই নিজের ঢাক পেটান না কেন, দেশের অর্থনীতি এই মুহূর্তে ভয়ঙ্কর সঙ্কটে জর্জরিত। 
বিশদ

19th  January, 2020
প্রধানমন্ত্রীর সফর এবং হিন্দু ভোটের ভাগাভাগি
শুভময় মৈত্র

সম্প্রতি (১১-১২ জানুয়ারি) প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কলকাতা ভ্রমণকে ঘিরে উত্তেজনা তুঙ্গে উঠেছিল। সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) সংক্রান্ত বিতর্কে হইচই চলছে সারা দেশে। কলকাতার এক বড় অংশের বামমনা বুদ্ধিজীবী মানুষ এর বিরুদ্ধে পথে নেমেছেন। প্রথম থেকেই তৃণমূল সিএএ বিরোধী আন্দোলন করছে। 
বিশদ

18th  January, 2020
নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদ: পুতুলনাচের ইতিকথা
জিষ্ণু বসু

নাচায় পুতুল যথা দক্ষ বাজিকরে/ নাচাও তেমনি তুমি অর্বাচীন নরে। —কবি নবীনচন্দ্র সেনের এই বিখ্যাত পঙ্‌ক্তি আজ ভীষণ প্রাসঙ্গিক মনে হয়। গত মাসাধিক কাল সামান্য কিছু অতি বুদ্ধিমান আমাদের মতো অর্বাচীনদের পুতুলের মতো নাচাচ্ছেন। জাতীয় ও আঞ্চলিক প্রচার মাধ্যমও অতি যত্নসহকারে তা পরিবেশন করছে। 
বিশদ

18th  January, 2020
উপমহাদেশে সহিষ্ণুতার আন্দোলনের ক্ষতি হচ্ছে 
হারাধন চৌধুরী

বাঙালি বেড়াতে ভালোবাসে। বেড়ানোর সুযোগটা পাশপোর্ট ভিসা নিয়ে বিদেশে হলে তো কথাই নেই। কিন্তু গন্তব্য যদি বাংলাদেশ, আর দাবি করা হয় বিদেশ-ভ্রমণের, তবে অনেকেই মুখ টিপে হাসবেন। কারণ, বাংলাদেশকে ‘বিদেশ’ ভাবার মানসিকতা আমাদের গড়ে ওঠেনি। 
বিশদ

17th  January, 2020
হৃদয়জুড়ে মানবসেবা
মৃণালকান্তি দাস

সমকাল তাঁকে যথেষ্ট লজ্জা দিয়েছিল! নিজের দেশ ছেড়ে বিদেশ-বিভুঁইয়ে কপর্দকহীন এক সন্ন্যাসীকে নিগৃহীত করতে অগ্রণী ভূমিকা নিয়েছিলেন ব্রাহ্মসমাজের প্রতিনিধি প্রতাপচন্দ্র মজুমদার।  স্বামীজির বিজয়কীর্তিকে ধূলিসাৎ করতে নিজের ‘ইউনিটি অ্যান্ড দি মিনিস্টার’ পত্রিকায় স্বামীজিকে ‘নবহিন্দু বাবু নরেন্দ্রনাথ দত্ত’ সম্বোধন করে বলা হয় যে, তিনি নাকি যুবাবয়সে ব্রাহ্মসমাজে আসেন  শুধুমাত্র  ‘নববৃন্দাবন’ থিয়েটারে অভিনয়ের জন্য।  
বিশদ

17th  January, 2020
প্রধানমন্ত্রীর সফর এবং হিন্দু ভোটের ভাগাভাগি
শুভময় মৈত্র

সম্প্রতি (১১-১২ জানুয়ারি) প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কলকাতা ভ্রমণকে ঘিরে উত্তেজনা তুঙ্গে উঠেছিল। সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) সংক্রান্ত বিতর্কে হইচই চলছে সারা দেশে। কলকাতার এক বড় অংশের বামমনা বুদ্ধিজীবী মানুষ এর বিরুদ্ধে পথে নেমেছেন। প্রথম থেকেই তৃণমূল সিএএ বিরোধী আন্দোলন করছে।  
বিশদ

16th  January, 2020
উপমহাদেশে সহিষ্ণুতার আন্দোলনের ক্ষতি হচ্ছে
হারাধন চৌধুরী

সিএএ, এনআরসি প্রভৃতি ভারতের মানুষ গ্রহণ করবেন কি করবেন না, তা নিশ্চিত করে বলার সময় এখনও হয়নি। তবে, এটুকু বলা যেতে পারে—এই ইস্যুতে ব্যাহত হচ্ছে আমাদের উন্নয়ন কর্মসূচিগুলি। অর্থনৈতিকভাবে আমরা দ্রুত পিছিয়ে পড়ছি। পাশাপাশি এই অধ্যায় বহির্ভারতে নেতিবাচক বার্তা দিচ্ছে। আমাদের এমন কিছু করা উচিত হবে না যার দ্বারা অন্তত বাংলাদেশে মৌলবাদের বিরুদ্ধে লড়াইটা কোনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং উদ্বাহু নৃত্য করে পাকিস্তানের মৌলবাদী শক্তি। 
বিশদ

16th  January, 2020
একনজরে
 অর্পণ সেনগুপ্ত, কলকাতা: টানা ওষুধ খেলে শরীরে জমে ‘বিষ’। এবার সহজেই সেই ‘বিষ’ সাফ হতে পারে। আশার আলো দেখাচ্ছে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের একটি গবেষণা। কিছু রোগ আছে, যেগুলির জন্য সারাজীবন ওষুধ খেয়ে যেতে হয়। তার একটি ক্ষতিকর দিকও থাকে। ...

 রাঁচি, ২২ জানুয়ারি (পিটিআই): ঝাড়খণ্ডে ফের মাথাচাড়া দিয়ে উঠল পাথালগড়ি আন্দোলন। মঙ্গলবার রাতে পাথালগড়ি সমর্থকদের হাতে খুন হলেন সাতজন গ্রামবাসী। তাঁদের মধ্যে একজন পঞ্চায়েতের সদস্যও রয়েছেন। পশ্চিম সিংভূম জেলার বুরুগুলিকেরা গ্রামে ওই ঘটনা ঘটে। ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ইরান-আমেরিকার যুদ্ধ হলে ভারতে তার বিরাট প্রভাব পড়বে। আফগানিস্তান, ইরাকে আমেরিকার যুদ্ধের সময় যতটা হয়নি, তার চেয়ে অনেক বেশি হবে। ইরান ভারতের কাছে খুব গুরুত্বপূর্ণ দেশ। ইরান থেকে ভারত তেল পায়। ভারতের চা সেখানে রপ্তানি হয়। ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ডার্বি জয়ের পর অতীতে একাধিকবার মুখ থুবড়ে পড়েছে মোহন বাগান। বিশেষজ্ঞরা বলে থাকেন, আত্মতুষ্টিই নাকি এর অন্যতম কারণ। দীর্ঘ কোচিং কেরিয়ারের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যার্থীরা শুভ ফল লাভ করবে। মাঝে মাঝে হঠকারী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করায় ক্ষতি হতে পারে। নতুন ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৯৪- সাহিত্যিক জ্যোতির্ময়ীদেবীর জন্ম
১৮৯৭- মহাবিপ্লবী নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর জন্ম
১৯০৯ - কবি নবীনচন্দ্র সেনের মৃত্যু
১৯২৬- শিবসেনার প্রতিষ্ঠাতা বাল থ্যাকারের জন্ম
১৯৩৪- সাংবাদিক তথা ‘বর্তমান’ এর প্রাণপুরুষ বরুণ সেনগুপ্তর জন্ম
১৯৭৬- গায়ক পল রোবসনের মৃত্যু
১৯৮৪ – নেদারল্যান্ডের ফুটবল খেলোয়াড় আর্ইয়েন রবেনের জন্ম
১৯৮৯ - স্পেনীয় চিত্রকর সালভাদর দালির মৃত্যু
২০০২ - পাকিস্তানের করাচীতে সাংবাদিক ড্যানিয়েল পার্ল অপহৃত হন এবং পরবর্তীকালে নিহত হন।





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৩৫ টাকা ৭২.০৫ টাকা
পাউন্ড ৯১.২১ টাকা ৯৪.৪৯ টাকা
ইউরো ৭৭.৪২ টাকা ৮০.৪১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪০,৫৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৮,৫০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৯,০৮০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৬,২০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৬,৩০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৮ মাঘ ১৪২৬, ২৩ জানুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার, চতুর্দশী ৪৯/৪৮ রাত্রি ২/১৮। পূর্বাষা‌ঢ়া ৪৭/২৫ রাত্রি ১/২১। সূ উ ৬/২২/৩১, অ ৫/১৪/৭, অমৃতযোগ রাত্রী ১/৭ গতে ৩/৪৪ মধ্যে। বারবেলা ২/৩১ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ১১/৪৮ গতে ১/২৭ মধ্যে। 
৮ মাঘ ১৪২৬, ২৩ জানুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার, চতুর্দশী ৪৯/১৬/২৩ রাত্রী ২/৮/২৩। পূর্বাষাঢ়া ৪৭/৫৬/৪৫ রাত্রি ১/৩৬/৩২। সূ উ ৬/২৫/৫০, অ ৫/১২/৩২, অমৃতযোগ দিবা ১/৭ গতে ৩/৪২ মধ্যে। কালবেলা ২/৩০/৫২ গতে ৩/৫১/৪২ মধ্যে, কালরাত্রি ১১/৪৯/১১ গতে ১/২৮/২১ মধ্যে। 
২৭ জমাদিয়ল আউয়ল 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
কলকাতার একটি হোটেল থেকে বাঘের চামড়াসহ গ্রেপ্তার ৩

06:28:27 PM

উত্তরপ্রদেশের সর্দারপুরে যান্ত্রিক গোলযোগের জন্য সড়কে ইমার্জেন্সি ল্যান্ডিং এয়ারক্র্যাফ্টের 

04:08:00 PM

২৭১ পয়েন্ট উঠল সেনসেক্স 

04:05:17 PM

আইলিগে মোহন বাগান ৩-০ গোলে হারাল নেরোকা এফসিকে 

04:04:09 PM

লাভপুর কাণ্ডে মুকুল রায়কে ডেকে পাঠাল সিউড়ি থানার পুলিস 
লাভপুর খুন কাণ্ডে আজ মুকুল রায়কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডেকে পাঠাল ...বিশদ

04:04:00 PM

নাদনঘাটে এক হোটেল কর্মীর পচাগলা দেহ উদ্ধার 
পূর্ব বর্ধমানের নাদনঘাট থানার এস টি কে কে রোড সংলগ্ন ...বিশদ

03:58:49 PM