Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

সবার হাতে কাজ ছাড়া ‘সবকা বিকাশ’ অসম্ভব, মন্দির-মসজিদে তো পেট ভরবে না
হিমাংশু সিংহ

২০১৯ প্রায় শেষের দিকে। নতুন বছর আসতে আর বাকি দেড় মাসের সামান্য বেশি। বছরের শুরুটায় আপামর দেশবাসী মেতেছিল সাধারণ নির্বাচন নিয়ে। পাঁচবছরের জন্য কে কেন্দ্রে ক্ষমতায় আসবে তা ঘিরে রাজনৈতিক দাপাদাপি আর তরজায় জমজমাট ছিল বছরের শুরুটা। মাঝে নরেন্দ্র মোদির অভূতপূর্ব জয় ও ২০২৪ সাল পর্যন্ত গেরুয়া বাহিনীর দেশ শাসনের ছাড়পত্র পাওয়া নিয়ে মজে থাকা। তারপর নতুন সরকারের প্রথম বাজেট অধিবেশনেই তিন তালাকের মতো বর্বর প্রথা বন্ধে আইন প্রণয়ন ও কাশ্মীরের ৩৭০ ধারার অবলুপ্তি ঘিরে ব্যাপক প্রচার মোদি সরকারের সাহসী পদক্ষেপ হিসেবে সাময়িকভাবে দেশবাসীর সমীহ আদায় করে নিয়েছিল। আর বছরের শেষ পর্বে শুরু হল দীর্ঘ ২৭ বছর পর অযোধ্যার মন্দির-মসজিদ রাজনীতির সমাধানের নয়া অধ্যায়। দীর্ঘ জল্পনার অবসান ঘটিয়ে শনিবার দেশের মহামান্য প্রধান বিচারপতি এক ঐতিহাসিক রায়ে অযোধ্যার বিতর্কিত ২.৭৭ একর জমির উপর রামলালার অধিকারকেই আইনি স্বীকৃতি দিয়েছেন। আদালতের রায়ে ওই জমির মালিকানা যাচ্ছে রামজন্মভূমি ন্যাসের হাতে। আগামী তিন মাসের মধ্যে কেন্দ্রীয় সরকারকে ট্রাস্ট তৈরি করে সেখানে দীর্ঘ দিনের প্রতীক্ষিত রামমন্দির নির্মাণের কাজ শুরুর নির্দেশও দিয়েছে ৫ সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চ। একইসঙ্গে মসজিদ নির্মাণের জন্য মুসলিমদের অন্যত্র সরকারকে ৫ একর জমি দিতেও বলা হয়েছে। অর্থাৎ এই রায়ে একইসঙ্গে মন্দির ও মসজিদ নির্মাণের পথই সুগম হল। নিঃসন্দেহে এরকম দশকের পর দশক চলে আসা একটি সংবেদনশীল মামলায় দুই সম্প্রদায়কে যতটা সম্ভব খুশি রেখে ভারসাম্যের রায় স্বাগত। তার উপর বেঞ্চের ৫ সদস্যই সর্বসম্মত রায় দিয়েছেন। অর্থাৎ রায় নিয়ে মহামান্য বিচারপতিদের মধ্যে কোনও দ্বিমত ছিল না। একমত হয়েই স্বাধীন ভারতের অন্যতম তাৎপর্যপূর্ণ রায়ে পাঁচ মহামান্য বিচারপতি সই করেছেন। প্রাথমিকভাবে সবপক্ষ রায়কে স্বাগত জানালেও দেশজুড়ে আগাম সতর্কতা জারি হয়েছে। বহু জায়গায় আধাসেনা নেমেছে। সংঘাত-সংঘর্ষ এড়িয়ে শান্তি ও সুস্থিতি বজায় রাখাই এই মুহূর্তে প্রতিটি নাগরিকের এবং ক্ষমতাসীন সরকারের একান্ত কর্তব্য হওয়া উচিত। পাশাপাশি প্রতিটি রাজনৈতিক দলের উচিত, রায় নিয়ে জয়-পরাজয়ের সঙ্কীর্ণ রাজনীতি না করা। ফায়দা লুটতে গিয়ে অযথা উত্তেজনায় ইন্ধন দিলে বড় ক্ষতি হয়ে যাবে। যে কোনও মূল্যে তাই মানুষে মানুষে সম্প্রীতি রক্ষা জরুরি। বিশেষ করে অর্থনীতির অবস্থা যখন একেবারে তলানিতে, তখন এ ধরনের সংবেদনশীল ইস্যুতে অশান্তি কোনওমতেই বরদাস্ত করা যায় না। আর্থিক মন্দার বাজারে এমনিতেই বর্তমানে কর্মসংস্থানের অবস্থা তথৈবচ। নোটবন্দির পর তিনবছর কেটে গেলেও সেই দগদগে ক্ষত সারিয়ে এখনও বিধ্বস্ত আর্থিক কাঠামোর সুস্থ হওয়ার যেন লক্ষণই নেই, তার প্রমাণ ছড়িয়ে রয়েছে সর্বত্র। বেশি খোঁজার দরকার নেই। সরকার প্রথমটায় না মানলেও, এখন ধীরে ধীরে নিজের অজান্তেই তা স্বীকার করতে বাধ্য হচ্ছে। অর্থমন্ত্রীর ঘনঘন উদ্বিগ্ন সাংবাদিক সম্মেলন ও কিছু বেপরোয়া ঘোষণা তারই অকাট্য প্রমাণ বহন করছে। সাধারণ মানুষের হাতে কাজ না থাকলে, মানুষ আর্থিকভাবে বিপন্ন হলে মন্দির মসজিদ দিয়ে ভুলিয়ে রাখা কি সম্ভব?
তিনবছর আগে প্রথমে নোটবন্দির ধাক্কা, আর তার পরে জিএসটির সাঁড়াশি চাপে সেই যে বাজার ঘুমিয়ে পড়েছে, তা আজও কাটেনি। সব হাতে কাজ নেই। সদ্যসমাপ্ত অক্টোবর মাসের বেকারত্বের হার রেকর্ড পরিমাণ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮.৫ শতাংশে। ঠিক তার আগের মাসে এই হার ছিল ৭.২ শতাংশ। নোটবন্দির পর ২০১৭ সাল থেকেই দেশে বেকারত্বের হার ক্রমে বাড়তে থাকে। ওই বছর হার ছিল ৬.১ শতাংশ। একটি পরিসংখ্যান বলছে ৪৫ বছরে দেশে এমন বেকারত্ব দেখা যায়নি। এমনকী, জিএসটি থেকে আদায় প্রথম দিকে কিছু বাড়লেও এই উৎসবের মাসে সেটাও ৫.৩ শতাংশে নেমে এসেছে। আর এইখানেই সবচেয়ে বেশি উদ্বেগ দেখা দিচ্ছে। অথচ, সরকারটা কিন্তু বেমালুম চলছে বিরোধীদের সবক্ষেত্রে কোণঠাসা করে। এমনকী, খোদ গান্ধী পরিবারের এসপিজি নিরাপত্তা পর্যন্ত পত্রপাঠ প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে, যা নিয়ে বিতর্ক কিছু কম হচ্ছে না। বিরোধীদের অসম্মান করে, কোণঠাসা করে প্রকৃত গণতন্ত্র
বাঁচতে পারে না। একদা কংগ্রেসও এই একই ভুল করেছে। আজও সেই ট্র্যাডিশন সমানে চলেছে। সেটাই একান্ত দুঃখের।
তবে ধুরন্ধর শাসক যতই ফন্দি ফিকির করুন না কেন রাজনীতির সাফল্য তখনই সম্ভব হয় যখন অর্থনীতি চাঙ্গা থাকে। মরা, এমনকী ঝিমিয়ে পড়া অর্থনীতিও দেশকে, দেশের মানুষকে কোনওদিন ভালো রাখতে পারে না। দেশকে ভালো রাখতে শিল্পোৎপাদন বাড়ানো তাই একান্ত জরুরি। আর সামগ্রিক চাহিদা বাড়লে তবেই উৎপাদন বাড়ানো সম্ভব। একমাত্র তখনই নতুন করে বিনিয়োগে আগ্রহী হন লগ্নিকারীরা। লগ্নি বাড়লে কর্মসংস্থানের পরিবেশও সুগম হয়। কিন্তু, নোটবন্দি ও জিএসটির জোড়া সঙ্কটে শিল্পের পরিবেশ ক্রমেই সঙ্কটজনক হয়ে দাঁড়াচ্ছে। শিল্পোৎপাদন কমছে। চাহিদা কমছে। এর ফলে মোট অভ্যন্তরীণ উৎপাদন আর বৃদ্ধির জায়গায় নেই। শিল্প ও উৎপাদন মার খেলে দেশের খেটে-খাওয়া শ্রমিক-কর্মচারীরা কোনওভাবেই ভালো থাকতে পারে না। অর্থনীতির এটাই সহজ পাঠ। তাই বিশ্বব্যাঙ্ক, আইএমএফ, রিজার্ভ ব্যাঙ্ক কেউই এই কঠিন সময়ে কোনও স্বস্তি দিতে পারছে না। হঠাৎই গাড়ি শিল্পে এক ভয়ঙ্কর মন্দা নেমে এসেছে। কয়েক লক্ষ লোক এই উৎসবের মরশুমেই কাজ হারিয়ে বেকার। একই অবস্থা নির্মাণ ও আবাসন শিল্পেও। সেখানেও হাজার হাজার অসমাপ্ত প্রকল্প শত শত শ্রমিক কর্মচারীর মুখের গ্রাস কেড়ে নিয়েছে। বোনাস পাওয়া তো দূর অস্ত, প্রতি মাসে তাঁরা বেতনটুকুও পাচ্ছেন না। বিরোধীদের অভিযোগ, আসল সমস্যার সমাধান করতে না পেরেই ক্রমাগত অন্যদিকে নজর ঘুরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে সরকার। এবারও একদিকে যখন কাশ্মীরি ৩৭০ ধারার অবলুপ্তি ঘিরে মোদি সরকার স্বপ্ন দেখাতে শুরু করেছে, তখনই আবাসন শিল্পের এই মন্দা হাজার হাজার শ্রমিককে বেকারত্বের দিকে ঠেলে দিয়েছে। বহু প্রথম সারির কর্পোরেট সংস্থায় ব্যাপক ছাঁটাই পর্যন্ত শুরু হয়ে গিয়েছে।
মাঝেমধ্যে শেয়ার বাজার চাঙ্গা হওয়ার খবরে একশ্রেণীর বড়লোক খুশি হলেও এর কোনও প্রভাব খেটে খাওয়া আম জনতার কাছে পৌঁছয় না। গাড়ি শিল্পে যেমন ব্যাপক কর্মচ্যুতির সঙ্কট নেমে এসেছে, তেমনি নির্মাণ ও আবাসনের মতো অসংগঠিত ক্ষেত্রেও অবস্থা তথৈবচ। এমএ, পিএইচডি করেও বহু কৃতী ছেলেমেয়ে কম বেতনে অল্প যোগ্যতার চাকরিতে যোগ দিতে বাধ্য হচ্ছে। এই অবস্থায় সরকার ও রিজার্ভ ব্যাঙ্ক ২৫ হাজার কোটি টাকার একটি তহবিল তৈরি করছে নির্মাণ ও আবাসন শিল্পকে কিছুটা চাঙ্গা করতে। এই প্রকল্পে কেন্দ্রীয় সরকার সরাসরি দেবে ১০ হাজার কোটি টাকা। আর স্টেট ব্যাঙ্ক ও এলআইসি দেবে বাকি ১৫ হাজার কোটি টাকা। অর্থমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী, সারা দেশে আটকে থাকা বা অসমাপ্ত ১৬০০টি আবাসন প্রকল্পে প্রায় সাড়ে চার লক্ষ ফ্ল্যাট এই নয়া প্রক্রিয়ায় সম্পূর্ণ হতে পারবে। কিন্তু, এনপিএ বা দেউলিয়া হয়ে যাওয়া আবাসন প্রকল্পে টাকা ঢেলে নতুন করে কি কোনও সুরাহা মিলবে, নাকি ফের ওই টাকাও জলে যাবে—তা নিয়ে প্রশ্ন কিন্তু থেকেই যাচ্ছে। এর উপর বেসরকারি ক্ষেত্রে যখন পরিস্থিতি সঙ্কটজনক তখনই বিএসএনএল-কে বাঁচাতে কেন্দ্রীয় সরকার এক স্বেচ্ছাবসর কর্মসূচি চালু করেছে। এটা একদা সরকারের অত্যন্ত লাভজনক সংস্থা বিএসএনএল-কে বাঁচানোর শেষ চেষ্টা। এই পদক্ষেপ যদি ব্যর্থ হয়, তাহলে সামগ্রিকভাবে সরকারের মুখ পুড়তে বাধ্য। সব হাতে কাজ না-থাকলে সবার বিকাশ সম্ভব নয়। কাশ্মীর, ৩৭০ ধারা ও ৩৫এ ধারার অবলুপ্তি গত আগস্ট মাস থেকে কেন্দ্রীয় সরকারকে নিঃসন্দেহে একটা গতি দিয়েছে, তার সংস্কারমুখী ভাবমূর্তিকে উজ্জ্বল করেছে। যদিও ব্যাপক প্রচার চললেও তার কোনও প্রতিফলন আমরা মহারাষ্ট্র ও হরিয়ানার নির্বাচনের ফলে দেখিনি। এখন আবার অযোধ্যার রায় এসে গিয়েছে। আগামী কিছুদিন তাই অযোধ্যা নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের রায়ই জাতীয় রাজনীতির মূল চালিকা শক্তি হয়ে দাঁড়াবে। মানুষ ভুলে যাবে অর্থনীতির সঙ্কটের কথা। ব্যাপক মূল্যবৃদ্ধির কথা। পেঁয়াজের দাম যে কোন জাদুতে ৮০ টাকা কেজি হল, সেই রহস্যের কথা। বেকারত্ব, কাজহারা মানুষের বিলাপ, আর্তনাদ
এসব ছাপিয়ে আবার মন্দির-মসজিদ নিয়ে আমরা মেতে উঠব! রাজনৈতিক নেতা-নেত্রীরাও তার ফায়দা তুলতে কসুর করবেন না। কিন্তু, সাধারণ খেটে-খাওয়া মানুষ যে তিমিরে সেই তিমিরেই দিন কাটাবে। এই পরিস্থিতিতে অর্থনীতি আগামী তিন-চার মাস কোন পথে চলে, তা অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ এক প্রতীক্ষা।
নরেন্দ্র মোদি-অমিত শাহ জুটি মুখে যাই বলুন, বেকারত্ব বৃদ্ধি নিয়ে তাঁরাও যে উদ্বিগ্ন তার হাতে গরম প্রমাণ ইতিমধ্যেই মিলেছে। আর সেই উদ্বেগের ধাক্কাতেই চাকরি ও কর্মসংস্থান নিয়ে মোদি সরকার সম্প্রতি ব্যাংককে মুক্ত বাণিজ্য চুক্তিতে সই করা থেকে পিছু হটেছে।
১৬টি দেশের গুরুত্বপূর্ণ ওই সম্মেলনে ভারতের প্রধানমন্ত্রী উপস্থিত হয়েও শেষ পর্যন্ত ওই চুক্তিতে সই করবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন। সবাইকে অবাক করেই তিনি জানিয়ে দিয়েছেন, অন্তরাত্মার ডাকেই একাজ করতে বাধ্য হচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রী যতই জাহির করুন না কেন, বিরোধীদের চাপ এবং অর্থনৈতিক মন্দার কারণেই তিনি যে শেষ পর্যন্ত পিছু হটতে বাধ্য হয়েছেন, তা দিনের আলোর মতোই পরিষ্কার। অন্যথায় চীনাসহ অন্যসব বিদেশি সামগ্রীতে বাজার আরও ছেয়ে যেত। ভারতীয় জিনিস কেনার আর কেউ থাকত না। কাজ হারাত এ দেশেরই অসহায় শ্রমিকরা। যে ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’র ডাক দিয়ে নরেন্দ্র মোদি দেশীয় শিল্পকে নতুন করে উৎসাহ দেওয়ার কৌশল নিয়েছিলেন তা মাঠে মারা যেত। তবে আগামী দিন যে অত্যন্ত ভয়ঙ্কর হতে চলেছে তার ইঙ্গিত দেশের আম জনতা, খেটে-খাওয়া মানুষ ইতিমধ্যেই পেতে শুরু করে দিয়েছে। অযোধ্যা বা মন্দির-মসজিদ দিয়ে ভোটের আসর সাময়িক মাত করা যায়, কিন্তু তা দিয়ে গরিবের পেট ভরে না। এই আপ্তবাক্য আমাদের দেশের রাজনৈতিক নেতারা কবে বুঝতে পারবেন? ভোটের নাগপাশ থেকে বেরিয়ে কবে তাঁরা মানুষের স্বার্থে উন্নয়ন ও শান্তি প্রতিষ্ঠার রাজনীতি করবেন, তা ঈশ্বরই জানেন।  
10th  November, 2019
১৬০০ কোটি টাকায় কী হতে পারে?
মৃণালকান্তি দাস

শুধুমাত্র অসমে এনআরসি প্রক্রিয়া করতে গিয়েই সরকার খরচ করে ফেলেছে ১৬০০ কোটি টাকা! এত টাকা কীভাবে খরচ হল সেটা খতিয়ে দেখতে দাবি উঠেছে সিবিআই তদন্তের। শুধু তাই-ই নয়, এই এনআরসি করতে বিপুল আর্থিক দুর্নীতি হয়েছে, এই অভিযোগ তুলেছেন অসমের বিজেপি নেতা তথা অর্থমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা। সেই দুর্নীতির কথা ধরা পড়েছে ক্যাগের প্রতিবেদনেও। এনআরসির মুখ্য সমন্বয়কারী প্রতীক হাজেলাকে মধ্যপ্রদেশে বদলি করে দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। মুখ লুকোনোর জায়গা পাচ্ছে না বিজেপি।
বিশদ

মুখ হয়ে ওঠার নিরন্তর প্রয়াস
তন্ময় মল্লিক

কথায় আছে, মুখ হচ্ছে মনের আয়না। আবার কেউ কেউ মনে করেন, সুন্দর মুখের জয় সর্বত্র। তাই অনেকেরই ধারণা, সাফল্য লাভের গুরুত্বপূর্ণ উপাদানই হল মুখ। রাজনীতিতেও সেই মুখের গুরুত্ব অপরিসীম। তবে রাজনীতিতে সৌন্দর্য অপেক্ষা অধিকতর প্রাধান্য পেয়ে থাকে মুখের কথা, ভাষাও।  
বিশদ

নিরপেক্ষ রাজনৈতিক চেতনার অভাব
সমৃদ্ধ দত্ত

 আজকাল একটি বিশেষ শ্রেণীর কাছে দুটি শব্দ খুব অপছন্দের। সেকুলার এবং ইন্টেলেকচুয়াল। ওই লোকটিকে আমার পছন্দ নয়, কারণ লোকটি সেকুলার। ওই মানুষটি আসলে সুবিধাবাদী এবং খারাপ, কারণ তিনি ইন্টেলেকচুয়াল। সমাজের এই অংশের উচ্চকিত তর্জন গর্জন হাসি ঠাট্টা কটাক্ষ শুনলে মনে হবে, সেকুলার হওয়া বোধহয় সাংঘাতিক অপরাধ। বিশদ

24th  January, 2020
বাজেটের কোনও অঙ্কই মিলছে না, আসন্ন বাজেটে বৃদ্ধিতে গতি ফিরবে কীভাবে?
দেবনারায়ণ সরকার

বস্তুত, বর্তমান অর্থবর্ষে ভারতের অর্থনীতির চিত্র যথেষ্ট বিবর্ণ। সমৃদ্ধির হার ক্রমশ কমে ৫ শতাংশে নামার ইঙ্গিত, যা ১১ বছরে সর্বনিম্ন। মুদ্রাস্ফীতি গত ৩ বছরে সর্বাধিক। শিল্পে সমৃদ্ধির হার ৮ বছরে সর্বনিম্ন। পরিকাঠামো শিল্পে বৃদ্ধির হার ১৪ বছরে সর্বনিম্ন। বিদ্যুতের চাহিদা ১২ বছরে সর্বনিম্ন। বেসরকারি লগ্নি ১৬ বছরে সর্বনিম্ন। চাহিদা কমায় বাজারে ব্যাঙ্ক লগ্নি কমেছে, যা গত ৫৮ বছরে সর্বনিম্ন। রপ্তানিও যথেষ্ট ধাক্কা খাওয়ার ইঙ্গিত বর্তমান বছরে। এর উপর ভারতে বেকারত্বের হার গত ৪৫ বছরে সর্বনিম্ন।
বিশদ

24th  January, 2020
ক্ষমা করো সুভাষ
জয়ন্ত চৌধুরী

মুক্তিপথের অগ্রদূত তিনি। অখণ্ড ভারত সাধনার নিভৃত পথিক সুভাষচন্দ্রের বৈপ্লবিক অভিঘাত বাধ্য করেছিল দ্রুত ক্ষমতা হস্তান্তরের পটভূমি রচনা করতে। দেশি বিদেশি নিরপেক্ষ ঐতিহাসিকদের লেখনীতে আজাদ হিন্দের অসামান্য আত্মত্যাগ স্বীকৃত হয়েছে। সর্বাধিনায়কের হঠাৎ হারিয়ে যাবার বেদনা তাঁর জন্মদিনেই বড় বেশি স্পর্শ করে যায়।  
বিশদ

23rd  January, 2020
স্বামীজি, বিশ্বকবি ও নেতাজির খিচুড়ি-বিলাস
বিকাশ মুখোপাধ্যায়

মঙ্গলকাব্য থেকে কাহিনীটা এভাবে শুরু করা যেতে পারে।
সকাল সকাল ঘুম থেকে উঠেই মা দুর্গা নন্দিকে তলব করেছেন, যাও ডাব পেড়ে নিয়ে এসো।
নন্দির তখনও গতরাতের গাঁজার খোঁয়ার ভাঙেনি। কোনওরকমে জড়ানো স্বরে বলল, ‘এত্তো সকালে মা?’  বিশদ

23rd  January, 2020
‘যে আপনকে পর করে...’
শান্তনু দত্তগুপ্ত

মহাত্মা গান্ধী একটা কথা বলতেন, মনপ্রাণ দিয়ে দেশের সেবা যিনি করেন, তিনিই সত্যিকারের নাগরিক। নাগরিক কাহারে কয়? বা নাগরিক কয় প্রকার ও কী কী? এই জাতীয় প্রশ্ন এখন দেশে সবচেয়ে বেশি চর্চিত। সবাই নিজেকে প্রমাণে ব্যস্ত। ভালো নাগরিক হওয়ার চেষ্টাচরিত্র নয়, নাগরিক হতে পারলেই হল। তার জন্য কাগজ লাগবে। এক টুকরো কাগজ প্রমাণ করবে, আপনি আমি ভারতের বাসিন্দা।   বিশদ

21st  January, 2020
আইন ও বাস্তব
পি চিদম্বরম

আপনি যখন এই লেখা পড়ছেন তখন ইন্টারনেট, আন্দোলন, জনসমাবেশ, রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড, ভাষণ ও লেখালেখি এবং কাশ্মীর উপত্যকার পর্যটকদের উপর নিয়ন্ত্রণ জারি রয়েছে। কোনোরকম ‘চার্জ’ ছাড়াই রাজনৈতিক নেতাদের হেপাজতবাসও চলছে যথারীতি। সুতরাং প্রশ্ন উঠছে—আদালতের রায়ের পরেও বাস্তবে কিছু পরিবর্তন হয়েছে কি?
বিশদ

20th  January, 2020
নেতাজি—আঁধারপথে অনন্ত আলোর দীপ্তি
সন্দীপন বিশ্বাস

স্বাধীনতার পর অতিক্রান্ত বাহাত্তর বছর। কিন্তু আজও যেন তার নাবালকত্ব ঘুচল না। আসলে দেশের যাঁরা হাল ধরেন, তাঁরাই যদি নাবালকের মতো আচরণ করেন, তাহলে দেশও নাবালকই থেকে যায়। এই নাবালকত্ব আসলে এক ধরনের অযোগ্যতা। সেই অযোগ্যতার পথ ধরেই দেশ ডুবে আছে অসংখ্য সঙ্কটে। দুর্নীতিই হল সেই সঙ্কটের মধ্যমণি।  
বিশদ

20th  January, 2020
মানুষকে সঙ্কটে ফেলা ছাড়া নোটবাতিলের
আর কোনও উদ্দেশ্যই সফল হয়নি 
হিমাংশু সিংহ

আর-একটা সাধারণ বাজেট পেশ হতে চলেছে দু’সপ্তাহের মধ্যে। নিঃসন্দেহে এবারের বাজেটের প্রধান লক্ষ্য, বেনজির আর্থিক মন্দার মোকাবিলা করা, নতুন কাজের সুযোগ সৃষ্টি করা এবং একইসঙ্গে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পকে চাঙ্গা করা। ছাপ্পান্ন ইঞ্চি ছাতির নরেন্দ্র মোদি যতই নিজের ঢাক পেটান না কেন, দেশের অর্থনীতি এই মুহূর্তে ভয়ঙ্কর সঙ্কটে জর্জরিত। 
বিশদ

19th  January, 2020
প্রধানমন্ত্রীর সফর এবং হিন্দু ভোটের ভাগাভাগি
শুভময় মৈত্র

সম্প্রতি (১১-১২ জানুয়ারি) প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কলকাতা ভ্রমণকে ঘিরে উত্তেজনা তুঙ্গে উঠেছিল। সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) সংক্রান্ত বিতর্কে হইচই চলছে সারা দেশে। কলকাতার এক বড় অংশের বামমনা বুদ্ধিজীবী মানুষ এর বিরুদ্ধে পথে নেমেছেন। প্রথম থেকেই তৃণমূল সিএএ বিরোধী আন্দোলন করছে। 
বিশদ

18th  January, 2020
নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদ: পুতুলনাচের ইতিকথা
জিষ্ণু বসু

নাচায় পুতুল যথা দক্ষ বাজিকরে/ নাচাও তেমনি তুমি অর্বাচীন নরে। —কবি নবীনচন্দ্র সেনের এই বিখ্যাত পঙ্‌ক্তি আজ ভীষণ প্রাসঙ্গিক মনে হয়। গত মাসাধিক কাল সামান্য কিছু অতি বুদ্ধিমান আমাদের মতো অর্বাচীনদের পুতুলের মতো নাচাচ্ছেন। জাতীয় ও আঞ্চলিক প্রচার মাধ্যমও অতি যত্নসহকারে তা পরিবেশন করছে। 
বিশদ

18th  January, 2020
একনজরে
জীবানন্দ বসু, কলকাতা: সংঘাতের আবহেই কি আগামীকাল রবিবার সাধারণতন্ত্র দিবসে রাজ্যপাল জগদীপ ধনকার ও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মুখোমুখি হতে চলেছেন? সাংবিধানিক রীতি ও সৌজন্যের কারণেই কি তাঁদের দু’জনকে কাল পাশাপাশি দেখা যাবে? ...

মুম্বই, ২৪ জানুয়ারি (পিটিআই): বিধানসভা নির্বাচনের সময় মহারাষ্ট্রের অবিজেপি নেতাদের ফোন ট্যাপ করা হয়েছিল। সরকারি পরিকাঠামোর অপব্যবহার করে এই কাজ করেছিল তৎকালীন বিজেপি সরকার। বৃহস্পতিবার এমনই অভিযোগ করেছেন মহারাষ্ট্রের বর্তমান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনিল দেশমুখ। এই কাণ্ডে তদন্তের নির্দেশও দেওয়া হয়েছে ইতিমধ্যে।  ...

সংবাদদাতা, পুরাতন মালদহ: দক্ষিণবঙ্গ থেকে ভোজ্য তেল নিয়ে এসে কালিয়াচকের ডাঙা এলাকায় একটি গোডাইনে মজুত করেছিল পাচারকারীরা। কিন্তু শেষরক্ষা হয়নি। তার কিছুক্ষণের মধ্যেই সেই তেল পাচারকারী লরির চালক ও খালাসিকে গ্রেপ্তার করে পুলিস।  ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: বছরের শুরুতেই ফের বাস ভাড়া বৃদ্ধির দাবিতে সুর চড়াচ্ছেন মালিক সংগঠনের নেতারা। একাধিক সংগঠন এ নিয়ে ইতিমধ্যেই নিজেদের মধ্যে বৈঠক করেছে। কয়েকটি সংগঠন আবার আরও এগিয়ে পরিবহণ দপ্তরে চিঠিও দিয়েছে ভাড়া বৃদ্ধির দাবি জানিয়ে।   ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

ব্যবসাসূত্রে উপার্জন বৃদ্ধি। বিদ্যায় মানসিক চঞ্চলতা বাধার কারণ হতে পারে। গুরুজনদের শরীর-স্বাস্থ্য নিয়ে সচেতন থাকা ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

জাতীয় ভোটদাতা দিবস
১৮৫০: অভিনেতা অর্ধেন্দু শেখর মুস্তাফির জন্ম
১৮৫৬: সমাজসেবক ও লেখক অশ্বিনীকুমার দত্তের জন্ম
১৮৭৪: ইংরেজ লেখক সামারসেট মমের জন্ম  





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৫১ টাকা ৭২.২১ টাকা
পাউন্ড ৯১.৯৮ টাকা ৯৫.৩২ টাকা
ইউরো ৭৭.৩৮ টাকা ৮০.৩৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪০,৭১০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৮,৬২৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৯,২০৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৬,৪০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৬,৫০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১০ মাঘ ১৪২৬, ২৫ জানুয়ারি ২০২০, শনিবার, প্রতিপদ ৫৫/২৪ রাত্রি ৪/৩২। শ্রবণা ৫৫/৩৩ রাত্রি ৪/৩৬। সূ উ ৬/২২/৭, অ ৫/১৫/৩১, অমৃতযোগ দিবা ১০/০ গতে ১২/৫৩ মধ্যে। রাত্রি ৭/৫২ গতে ১০/৩০ মধ্যে পুনঃ ১২/১৪ গতে ২/০ মধ্যে পুনঃ ২/৫২ গতে ৪/৩৭ মধ্যে। বারবেলা ৭/৪৩ মধ্যে পুনঃ ১/১০ গতে ২/৩২ মধ্যে পুনঃ ৩/৫৪ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ৬/৫৪ মধ্যে পুনঃ ৪/৪৪ গতে উদয়াবধি। 
১০ মাঘ ১৪২৬, ২৫ জানুয়ারি ২০২০, শনিবার, প্রতিপদ ৫২/৪৫/৪২ রাত্রি ৩/৩১/৩১। শ্রবণা ৫৪/৮/১ শেষরাত্রি ৪/৪/২৬। সূ উ ৬/২৫/১৪, অ ৫/১৪/৮, অমৃতযোগ দিবা ৯/৫৮ গতে ১২/৫৭ মধ্যে ও রাত্রি ৭/৫৮ গতে ১০/৩৩ মধ্যে ও ১২/১৬ গতে ১/৫৮ মধ্যে ও ২/৫০ গতে ৪/৩৩ মধ্যে। কালবেলা ৭/৪৬/২১ মধ্যে ও ৩/৫৪/২ গতে ৫/১৪/৮ মধ্যে, কালরাত্রি ৬/৫৪/১ মধ্যে ও ৪/৪৬/২০ গতে ৬/২৪/৫৫ মধ্যে। 
২৯ জমাদিয়ল আউয়ল  

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আগামী ৫ ফেব্রুয়ারি ব্লকগুলিতে মানববন্ধন কর্মসূচি, জানালেন মুখ্যমন্ত্রী 
আজ সিএএ, এনআরসি ইস্যু নিয়ে দলীয় বৈঠক করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ...বিশদ

24-01-2020 - 06:32:00 PM

২২৬ পয়েন্ট উঠল সেনসেক্স 

24-01-2020 - 04:16:17 PM

প্রথম টি-২০: নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে ৬ উইকেটে ম্যাচ জিতল ভারত 

24-01-2020 - 03:48:28 PM

বিধাননগর পুরসভায় অভিযান বিজেপির
 

ডেঙ্গু রোধে খাল পরিষ্কার, বেআইনি পার্কিং বন্ধ সহ একাধিক দাবিতে ...বিশদ

24-01-2020 - 03:39:00 PM

প্রথম টি-২০: ভারত ১৫১/৪ (১৫ ওভার) 

24-01-2020 - 03:31:02 PM

প্রথম টি-২০: ভারত ১৪২/৩ (১৩ ওভার)
 

24-01-2020 - 03:20:26 PM