Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

বন্ধ হোক মৃত্যুকে রাজনীতির পণ্য বানানো
তন্ময় মল্লিক

জন্মিলে মরিতে হবে, অমর কে কোথা কবে। মাইকেল মধুসূদন দত্ত। শৈশবের গণ্ডি ছাড়াতে না ছাড়াতেই অমর কবির এই কবিতা প্রথম শিখিয়েছিল, জন্ম আর মৃত্যু এক সুতোয় বাঁধা। ভাবসম্প্রসারণ লিখতে গিয়ে শিখেছিলাম, জীবনের অবশ্যম্ভাবী পরিণতিই হল মৃত্যু। আধ্যাত্মিক মনোভাবাপন্ন মানুষের মতে, আত্মার সঙ্গে পরমাত্মার মিলন। জাগতিক জীবন থেকে মুক্ত হয়ে চিরশান্তির জগতে পাড়ি দেওয়ার নামই মৃত্যু, মহাপ্রস্থান। মৃত্যু মানে তো মুক্তি। কিন্তু, সেই মৃত্যু যখন পণ্য হয়, তখন তা হয়ে ওঠে ভয়ঙ্কর যন্ত্রণার। মৃত্যুকে পণ্যে পরিণত করার কৌশল চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিচ্ছেন রাজনীতির কারবারিরা। মৃত্যু অস্বাভাবিক হলেই চোখ জ্বলজ্বল করে। আর খুন হলে তো কথাই নেই। মৃতদেহের দখল নেওয়ার জন্য রাজনীতির কারবারিদের কাড়াকাড়ি দেখে ভাগাড়ের শকুনও বোধ করি লজ্জা পায়।
মুর্শিদাবাদের জিয়াগঞ্জের বন্ধুপ্রকাশ পালকে আমরা আগে কেউ চিনতাম না। না চেনারই কথা। হাজার হাজার শিক্ষকের মতো বন্ধুপ্রকাশবাবুও একজন শিক্ষক। কোটি কোটি মানুষের ভিড়ে সাধারণ মানুষ যেমন মিশে থাকে, বন্ধুপ্রকাশও তেমনই ছিলেন। কিন্তু, দশমীর দুপুরে পুত্র ও স্ত্রী সহ তাঁর নৃশংস হত্যাকাণ্ড রাজ্যে ঝড় তুলে দিল। যতটা না মর্মান্তিকতার নিরিখে, তার চেয়ে অনেক বেশি করে রাজ্য তোলপাড় হয়ে গেল রাজনীতির কারবারিদের সৌজন্যে। আকস্মিক এই ঘটনায় তাঁদের আত্মীয়রা শোকে পাথর। ভেবে পাচ্ছিলেন না, কেন এমন দুধের শিশু সহ তিনজনকে নৃশংসভাবে খুন করা হল। প্রিয়জন হারানোর যন্ত্রণায় আত্মীয়রা যখন দিশাহারা, ঠিক তখনই দাবি উঠে গেল, আরএসএস করার জন্যই পুরো পরিবারটাকে শেষ করে দেওয়া হয়েছে। এই দাবি শুনে চমকে উঠলেন মৃতদের আত্মীয়রা। তাঁরা বারংবার বলার চেষ্টা করলেন, রাজনীতির সঙ্গে বন্ধুপ্রকাশের তেমন কোনও সংস্রব ছিল না। কিন্তু কে শোনে কার কথা! রাজনীতির কারবারিরা তখন জাল হাতে কোমর জলে। ঘোলা জলে মাছ ধরার লোভ সামলে পাড়ে উঠে আসা বড়ই কঠিন। তাই পরিবারের লোকজনকে পাশে না পেলেও রাজনৈতিক ফায়দা লোটার চেষ্টা চালিয়ে গেলেন।
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তাঁর ‘রক্তকরবী’তে দেখিয়েছিলেন, লোভ কীভাবে জীবনের সব সৌন্দর্য ও স্বাভাবিক অধিকারকে অস্বীকার করে মানুষকে যন্ত্র ও উপাদানে পরিণত করে। যক্ষপুরীতে রাজার লোভের আগুনে পুড়ে মরত সোনাখনির কুলিরা। রাজার চোখে সোনাখনির কুলিরা কেউ মানুষ ছিলেন না, হয়ে উঠেছিলেন সংখ্যামাত্র। কেউ ছিলেন ৪৭ক, কেউ ছিলেন ৬৯ফ।
যুগ বদলেছে, বদলেছে সময়ও। রাজনীতির কারবারিদের কাছে মৃতদেহটাও একটা সংখ্যামাত্র। এই সংখ্যার কলেবর যত বাড়ে রাজনীতিতে বিরোধিতার জোশ ততই টগবগ করে ফোটে। ১০দিনে ন’জনের মৃত্যু। সংখ্যাটা নেহাত মন্দ নয়। সুতরাং ‘দিল্লি চলো’। জিয়াগঞ্জ ইস্যু রাষ্ট্রপতির কানে তুলতে বিজেপির একঝাঁক নেতা ছুটলেন দিল্লি। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী দেবশ্রী চৌধুরীর নেতৃত্বে দেখা করলেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের সঙ্গে। তাঁকে বোঝানোর চেষ্টা হল, পশ্চিমবঙ্গে জঙ্গলের রাজত্ব চলছে। সম্পূর্ণ রাজনৈতিক কারণেই জিয়াগঞ্জে নারকীয় হত্যাকাণ্ড। ১০দিনে তাঁদের ন’জন বিজেপি কর্মী খুন হয়েছেন। রাজ্যপাল এই ইস্যুতে মন্তব্য করায় জিয়াগঞ্জ হত্যাকাণ্ড এক নতুন মাত্রা পেল। উঠল অতিসক্রিয়তার অভিযোগ।
যে কোনও মৃত্যুই অত্যন্ত মর্মান্তিক। আর বন্ধুপ্রকাশবাবুর পরিবারে যে ভয়াবহ ঘটনা ঘটেছে তার নিন্দার কোনও ভাষা নেই। যে কোনও সুস্থ মানুষ এই নারকীয় হত্যাকাণ্ডের তীব্র ধিক্কার জানাতে বাধ্য। এমনকী, এই খুনের ব্যাপারে পুলিস যাকে মূল অভিযুক্ত হিসেবে গ্রেপ্তার করেছে, সেই উৎপল বেহেরাও পুলিসি জেরায় জানিয়েছে, বন্ধুপ্রকাশ পালের স্ত্রী এবং তাঁর শিশুসন্তানকে খুন করে তার অনুতাপ হচ্ছিল। তার নাকি বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে আত্মহত্যা করার ইচ্ছাও হয়েছিল।
পুলিস এখনও পর্যন্ত তদন্ত করে যা জানতে পেরেছে তাতে খুনের পিছনে রয়েছে আর্থিক কারণ। বন্ধুপ্রকাশবাবু জীবনবিমার টাকা নিয়ে তা জমা দেননি। আর সেই কারণেই নাকি তাঁকে সপরিবারে খুন করেছে উৎপল। অর্থাৎ এর সঙ্গে রাজনীতির কোনও সম্পর্ক নেই। কিন্তু, বিজেপি নেতৃত্ব এই খুনের সঙ্গে রাজনীতিকে জড়িয়ে দেওয়ার মরিয়া চেষ্টা চালাল।
এরাজ্যে বিজেপি একটা বিশেষ শক্তি হিসেবে মাথা তুলে দাঁড়িয়েছে। তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা ও কর্মীদের দাম্ভিকতা, দুর্নীতি, জনবিচ্ছিন্নতা সহ নানা কারণেই বিজেপি পায়ের তলায় মাটি পেয়েছে। যথেষ্ট শক্তপোক্ত সেই মাটি। স্রেফ তৃণমূল সম্পর্কে মানুষের হতাশা ও বিরক্তিই তাদের অনেকটা এগিয়ে দিয়েছে। কিন্তু, সেই বিজেপিও যদি মৃত্যু নিয়ে সস্তার রাজনীতিতে জড়িয়ে যায় তাহলে তাদের বিশ্বাসযোগ্যতায় চিড় খাবে না, এমনটা বলা যায় না। মনে রাখতে হবে, রাজনীতিতে বিশ্বাসযোগ্যতা একটা বড় সম্পদ। মানুষ বিশ্বাস করেছিল, নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বই দেশকে মজবুত করতে পারবে। সেই বিশ্বাসে ভর করেই তিনি আজ ভারতের প্রধানমন্ত্রী।
শুধু বিজেপি নয়, মৃত্যু নিয়ে রাজনীতি করে ফায়দা লোটার চেষ্টা এর আগেও প্রায় সব রাজনৈতিক দলই করেছে। কংগ্রেস, সিপিএম, তৃণমূল সকলেই একই পথের পথিক। মৃত্যু নিয়ে সস্তার রাজনীতি করতে গিয়ে রাজনৈতিক নেতাদের অনেকবার প্রবল সমালোচনার মুখেও পড়তে হয়েছে। তবুও ছাড়েনি এই রাস্তা। তবে, মৃত্যু নিয়ে রাজনীতি করতে গিয়ে সম্ভবত সবচেয়ে বেশি নাকানি চোবানি খেয়েছিল কংগ্রেস।
উত্তরদিনাজপুরের গোয়ালপুকুরের ফরওয়ার্ড ব্লক বিধায়ক রমজান আলির কথা মনে আছে? কলকাতায় এমএলএ হস্টেলে রহস্যজনকভাবে খুন হয়েছিলেন রমজান সাহেব। তখন প্রদেশ কংগ্রেসের সভাপতি সোমেন মিত্র। রমজান আলি খুনের ঘটনায় রাজ্যে আইনশৃঙ্খলার অবনতির অভিযোগ তুলে আচমকা বাংলা বন্‌঩ধের ডাক দিয়েছিলেন সোমেনবাবু। কিন্তু, তদন্ত এগতে কী দেখা গেল? দেখা গেল, সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত কারণে খুন হয়েছিলেন ফরওয়ার্ড ব্লক বিধায়ক। গ্রেপ্তার হয়েছিলেন তাঁর স্ত্রী। খুন নিয়ে সস্তার রাজনীতি করতে গিয়ে মুখ পুড়েছিল কংগ্রেসের।
তবে, মৃতদেহ সামনে রেখে রাজনীতি করার ক্ষেত্রে তৃণমূল কংগ্রেসও কম যায়নি। সিপিএমের সঙ্গে সংঘর্ষে খুন হওয়া একের পর এক তৃণমূল কর্মীর মৃতদেহ কলকাতায় নিয়ে গিয়েছিল। উদ্দেশ্য ছিল, রাজ্যজুড়ে প্রচার পাওয়া। গ্রামের মৃতদেহ কলকাতায় নিয়ে গিয়ে আলোড়ন সৃষ্টির সমালোচনা করেছিল সিপিএম। কিন্তু, তৃণমূলের সেই উদ্দেশ্য কিছুটা সফল হতেই সিপিএমও কয়েকবার সেই রাস্তায় হাঁটার চেষ্টাও করেছিল।
তবে, কৌশলী সিপিএমের মুন্সিয়ানা ছিল মৃতদেহ সামনে আনার চেয়ে তা গায়েব করায়। ছোট আঙারিয়া, বেনাচাপড়া প্রভৃতি এলাকায় একের পর এক গণহত্যা কাণ্ড ঘটিয়েও মৃতদেহ লোপাট করে দিয়েছিল। যে সিবিআইয়ের নামে গোটা ভারত থরহরিকম্প, সেই সেন্ট্রাল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের তাবড় তাবড় অফিসারকে ঘোল খাইয়ে ছেড়েছিল সিপিএম। তদন্তভার হাতে নিয়েও ছোট আঙারিয়া গণহত্যার কিনারা করতে পারেনি তারা। উদ্ধার করতে পারেনি একটি মৃতদেহও। রাজ্যের ক্ষমতা বদল না হলে মানুষ জানতেও পারত না কী করে পাঁচজন মানুষকে খুন করেও হাত ধুয়ে ফেলা যায়।
পৃথিবী যতই হিংসায় উন্মত্ত হোক না কেন, আজও রক্ত দেখে, মৃতদেহ দেখে মানুষ বিচলিত হয়। মৃতদেহ এখনও মানুষের মনে সহানুভূতি জাগায়। মৃত্যুর ভয়াবহতা যে শাসক দলের কফিনে শেষ পেরেকটি ঠুকে দেওয়ার ক্ষমতা রাখে। অনেকেই বিশ্বাস করেন, বর্ধমানের সাঁইবাড়ি হত্যাকাণ্ড দ্বিতীয় যুক্তফ্রন্ট সরকারের কফিনে পেরেক ঠুকে দিয়েছিল। ঠিক একইভাবে ৩৪ বছরের বামফ্রন্ট শাসনের কফিনে শেষ পেরেকটি ঢুকে দিয়েছিল নেতাই গণহত্যা কাণ্ড। মৃত্যু, বর্বরতা যে কোনও শাসন ক্ষমতা বদলের ক্ষেত্রে অন্যতম প্রধান উপাদান হিসেবে কাজ করে। আর সেটা সব চেয়ে ভালো জানে রাজনীতির কারবারিরা।
সেই কারণেই খুন হলেই রাজনীতির কারবারিরাই তার দখল নিতে ঝাঁপিয়ে পড়ে। কিন্তু, একবারও ভেবে দেখে না, মৃতদেহকে রাজনীতির পণ্য হিসেবে কাজে লাগানোর চেষ্টা শোকার্ত পরিবারের প্রতি কী ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির মুখে দাঁড় করায়। মৃতকে নিজের দলের কর্মী বা সমর্থক প্রমাণের জন্য শুরু হয় তাঁর পরিবারের সদস্যদের নিয়ে টানাটানি। ঘণ্টার পর ঘণ্টা মৃতদেহ রাস্তায় ফেলে বিক্ষোভের নামে চলে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা। প্রাকৃতিক নিয়মে মৃতদেহে পচন ধরে। ফুলতে শুরু করে। বিকৃত হয় মুখমণ্ডল। চেনা মানুষটা আপনজনের কাছেও কেমন যেন অচেনা হয়ে যায়। শেষবারের মতো প্রিয় মানুষটাকে বুকে জড়িয়ে ধরে কাঁদার সুযোগটাও কেড়ে নেওয়া হয়। স্রেফ রাজনৈতিক ফায়দা তোলার জন্য।
মৃতদেহ কাড়াকাড়ির লড়াই কখনও কখনও শোকস্তব্ধ পরিবারে ভাঙন ধরায়। স্ত্রীকে যে দল কব্জা করে, তার বিরোধী দল তখন হামলে পড়ে মৃতের বাবা, মায়ের দখল নিতে। কাউকে না পেলেও নিদেনপক্ষে ভাই। চাপ ও প্রলোভনে ব্যতিব্যস্ত মৃতের পরিবার তখন হয়তো শোক ভুলে অঙ্ক কষে। লাভ ক্ষতির অঙ্ক। কার সঙ্গে গেলে লাভ বেশি। সেই অঙ্কে বদলায় বিবৃতি, বদলায় এফআইআরের বয়ান। সকালে মৃত স্বামীকে যে দলের সমর্থক হিসেবে দাবি করে, বিকালে ঠিক তার বিরোধী দলের নেতার পাশে বসে সম্পূর্ণ উল্টো কথা বলেন। রাজনীতির কারবারিদের ফাঁদে পড়ে মৃতের পরিবার সহনুভূতি পাওয়ার বদলে আমজনতার কাছে অনেকসময় হয়ে ওঠে হাসির খোরাক।
মৃতদেহকে পণ্য করে রাজনীতির কারবারিরা ফায়দা লোটার চেষ্টা করেন ঠিকই। কিন্তু, সেই লাভ বড়ই ক্ষণস্থায়ী। এই তাপসী মালিকের পরিবারের কথাই ভাবুন না। সিঙ্গুর জমিরক্ষা আন্দোলনের প্রথম শহিদ হিসেবে এখনও জ্বলজ্বল করে তাপসীর নাম। তাপসীর বাবা মনোরঞ্জনবাবুকে বহু সভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঠিক পাশের চেয়ারে বসতে দেখা গিয়েছে। তৃণমূল সব রকমভাবে ওই পরিবারটির পাশে দাঁড়িয়েছে। তাপসীদের মাটির দেওয়ালের টালির চালার বাড়িটা এখন আর নেই। সেখানে মাথা তুলেছে মার্বেলের বাড়ি। সেই মনোরঞ্জনবাবু গত পঞ্চায়েত ভোটে তৃণমূলের বিরুদ্ধে জেলা পরিষদে নির্দল হয়ে লড়েছেন। অনেকে বলে, তাঁর নাকি গেরুয়া শিবিরের সঙ্গে সখ্য তৈরি হচ্ছে।
হৃদয় ঘোষ, পিতা ঈশ্বর সাগরচন্দ্র ঘোষ। সাকিন, বাঁধনবগ্রাম, থানা-পাড়ুই, জেলা-বীরভূম। ২০১৩ সালের ২১জুলাই বাড়িতে দুষ্কৃতীদের ছোঁড়া বোমা ও গুলিতে মারা গিয়েছিলেন হৃদয় ঘোষের বাবা সাগরবাবু। সেই মৃত্যুর জন্য তৃণমূলের দাপুটে নেতা অনুব্রত মণ্ডলকে দায়ী করে শুরু হয়েছিল লড়াই। হৃদয় ঘোষকে সামনে রেখেই বীরভূমের মাটিতে পা রেখেছিল বিজেপি। প্রতিবাদের মুখ হয়ে উঠেছিলেন হৃদয়বাবু। সেই হৃদয় ঘোষ এখন তৃণমূল কংগ্রেস পরিচালিত বোলপুর-শ্রীনিকেতন পঞ্চায়েত সমিতির কর্মাধ্যক্ষ। শুধু তাই নয়, তিনি এখন অনুব্রতবাবুর অন্যতম ঘনিষ্ঠ সহযোগী।
এসব দেখে কারও বলতে ইচ্ছা করতেই পারে, সত্য সেলুকাস, কী বিচিত্র এই রাজনীতি! হ্যাঁ, রাজনীতি বড়ই বিচিত্র। রাজনীতির কারবারিদের হাতের হ্যাঁচকা টানে আমরা তাঁতের মাকুর মতো আমরা একবার এদিক ছুটি, আর একবার ওদিক। মাকুর টানে কপড়ের মেঝের মতোই জমাট বাঁধে নেতাদের রাজনৈতিক জমি। আর আমরা? আমরা পুতুলনাচের পুতুলের চেয়েও অসহায়। রাজনীতির কারবারিদের অদৃশ্য রশির টানে আমরা নেচে মরি, আমরা পণ্য হই। কিন্তু, আর কতদিন? রাজনীতির কারবারিদের খাতায় মৃত্যু কি কেবলই একটা সংখ্যাই থেকে যাবে? রক্তকরবীর নন্দিনী সংখ্যার পরিচয় মুছে দিয়ে মানুষের স্বীকৃতি আদায় করতে পেরেছিলেন। কিন্তু, আমরা কি পারব? নাকি রাজনীতির কারবারিদের সৌজন্যে মৃত্যু পণ্যই থেকে যাবে? 
02nd  November, 2019
মূল্যবোধের রাজনীতি ও
মহারাষ্ট্রের কুর্সির লড়াই
হিমাংশু সিংহ

আজকের নির্বাচনী রাজনীতি যে কতটা পঙ্কিল ও নোংরা তারই জ্বলন্ত প্রমাণ আজকের মহারাষ্ট্র। সঙ্কীর্ণ স্বার্থসর্বস্ব রাজনীতিতে ক্ষমতা দখলের নেশায় ছোটবড় প্রতিটি রাজনৈতিক দলই আজ মরিয়া। মহারাষ্ট্রের ফল বেরনোর পর গত তিন সপ্তাহের রাজনীতির নাটকীয় ওঠাপড়া সেই অন্ধকার দিকটাকেই বড় প্রকট করে তুলেছে। ভোটের ফল ও কে মুখ্যমন্ত্রীর কুর্সিতে বসবেন তা নিয়ে দুই পুরনো জোট শরিকের দ্বন্দ্ব যে দেশের বাণিজ্য পীঠস্থান মুম্বই তথা মহারাষ্ট্রকে এমন নজিরবিহীন সঙ্কটে ফেলবে, তা কে জানত? যে জোট পাঁচ বছর ধরে রাজ্য শাসন করল এবং এবারও গরিষ্ঠতা পেল, সেই জোটই ভেঙে খান খান!
বিশদ

ঘর ওয়াপসি ও কিছু প্রশ্ন
তন্ময় মল্লিক

 ঘর ওয়াপসি। ঘরে ফেরা। ‘ভাইজান’ সিনেমার ছোট্ট মুন্নির ঘরে ফেরার কাহিনীর দৌলতে ‘ঘর ওয়াপসি’ এখন আমবাঙালির অতি পরিচিত শব্দ। সেই পরিচিত শব্দটি অতি পরিচিতির মর্যাদা পেয়েছে সাম্প্রতিক রাজনৈতিক নেতাদের একাংশের ঘন ঘন জার্সি বদলের দৌলতে।
বিশদ

16th  November, 2019
জল বেড়েছে, বোধ বাড়েনি
রঞ্জন সেন

 সমুদ্রের জলস্তর বাড়ার ফলে পৃথিবীর বহু উপকূলবর্তী দেশ ও দ্বীপ বিপন্ন হবে বলে পরিবেশবিজ্ঞানীরা আশঙ্কা প্রকাশ করছেন। তাঁরা এটাও বলছেন আমরা সবাই মিলে এবং রাষ্ট্রনায়কেরা চাইলে গ্রিনহাউস গ্যাস নিঃসরণ কমিয়ে এই অবস্থার মোকাবিলা করতে পারি। বিশদ

16th  November, 2019
সংবিধানই পথ
সমৃদ্ধ দত্ত

 তিন বছর ধরে সংবিধান রচনার কাজ অবশেষে যখন সমাপ্ত হল, তখন ১৯৪৯ সালের ২৫ নভেম্বর ভারতীয় সংবিধানের চূড়ান্ত খসড়া পেশ করে সংবিধান-সভায় তাঁর সর্বশেষ বক্তৃতায় সংবিধান রচনা কমিটির চেয়ারম্যান ড.ভীমরাও আম্বেদকর আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন, ভারতের এই সংবিধানের মূল সুর এবং গণতন্ত্র কি আদৌ শেষ পর্যন্ত আগামী দিনে রক্ষা করা সম্ভব হবে? বিশদ

15th  November, 2019
পঞ্চাশোর্ধ্বে বানপ্রস্থ?
অতনু বিশ্বাস

পঞ্চাশ ছুঁই-ছুঁই হয়ে একটা প্রায় বৃদ্ধ-বৃদ্ধ ভাব এসেছে আমার মধ্যে। সেটা খুব অস্বাভাবিক হয়তো নয়। এমনিতেই চারপাশের দুনিয়াটা বদলে গিয়েছে অনেক। চেনা-পরিচিত বাচ্চা বাচ্চা ছেলেমেয়েগুলো হঠাৎ যেন বড় হয়ে গিয়েছে। আমাকে ডাকনাম ধরে ডাকার লোকের সংখ্যাও কমে যাচ্ছে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে। বুড়ো হবার সব লক্ষণ একেবারে স্পষ্ট। 
বিশদ

14th  November, 2019
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দৃঢ় নীতির
কাছে ভারতের স্বার্থটাই সবার উপরে
অমিত শাহ

 মোদিজির নেতৃত্বাধীন উন্নতশির ভারতের কথা বিবেচনা করে আরসিইপি সদস্য রাষ্ট্রগুলি বেশিদিন আমাদের এড়িয়ে থাকতে পারবে না। তারা আমাদের শর্তে ভারতের সঙ্গে বাণিজ্যে রাজি হবে। এর মধ্যে আমরা এফটিএ মারফত আসিয়ান রাষ্ট্রগুলির সঙ্গে অর্থনৈতিক সম্পর্করক্ষায় সফল হয়েছি। আরসিইপি প্রত্যাখ্যান করে চীনের সম্ভাব্য গ্রাস থেকে আমাদের শিল্পকে আমরা দৃঢ়তার সঙ্গে সুরক্ষা দিতে পেরেছি। আমাদের জন্য ভারতের স্বার্থটাই সবার আগে। বিশদ

13th  November, 2019
ভাষা বিতর্কে জেইই মেনস
শুভময় মৈত্র

পশ্চিমবঙ্গের যে সমস্ত ছাত্রছাত্রী এই ধরনের প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় বসেন, তাঁরা মোটামুটি ভালোভাবেই ইংরেজি পড়তে পারেন। তার জন্যে কংগ্রেস, সিপিএম, তৃণমূল বা বিজেপির কোনও কৃতিত্ব নেই। সারা দেশের মধ্যে বাঙালিরা যে শিক্ষা সংস্কৃতিতে বেশ এগিয়ে আছে সেটা বোঝার জন্যে প্রচুর পরিসংখ্যান আছে, যেগুলো জায়গামতো ছাপা হয় না। বিশেষ করে বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে এরাজ্যের ছেলেমেয়েরা ঐতিহ্যগতভাবে ভালো, ঔপনিবেশিক কারণে ইংরেজিতেও। সেখানে জেইই মেনসের মতো পরীক্ষার প্রশ্ন বাংলায় করতে হবে বলে বাংলার পরীক্ষার্থীদের না গুলিয়ে দেওয়াই মঙ্গল। বিশদ

13th  November, 2019
অস্তাচলে মন্দির রাজনীতি
শান্তনু দত্তগুপ্ত 

সালটা ১৯৯২। লালকৃষ্ণ আদবানির ‘রথযাত্রা’ শুরু হওয়ার ঠিক আগের কথা...। কথোপকথন চলছে বিজেপি নেতার সঙ্গে বজরং দলের এক নেতার। ‘বাবরির কলঙ্ক মুছে দিতে পারবে না?’ বজরং দলের সেই নেতা উত্তর দিলেন ‘আপনার নির্দেশের অপেক্ষাতেই তো বসে আছি। 
বিশদ

12th  November, 2019
প্রেমময় শ্রীকৃষ্ণের মধুর রাসলীলা
চিদানন্দ গোস্বামী

বিশারদ সর্ব বিষয়ে। বাঁশিতে, রথ চালনায়, চৌর্যকর্ম, কূটনীতি, যুদ্ধবিদ্যা, ছলচাতুরি—সবকিছুতেই বিশারদ। আর প্রেমপিরিতে তো মহা বিশারদ। এবং, কলহ বিতর্ক বাগযুদ্ধ যুক্তি জাদু, অপমান উপেক্ষা করতেও কম যায় না। অথচ পরমতম প্রেমিক পুরুষ। হ্যাঁ, এমন প্রেম জানে ক’জনা! আর, সেই প্রেমেও কত না কাণ্ড!  
বিশদ

11th  November, 2019
ক্ষমতায় ফিরে আসার লক্ষ্যে কমনিষ্ঠ পার্টি অব মৃত্যুলোকের নয়া পরিকল্পনা
সন্দীপন বিশ্বাস

হাতের চুরুটটা নিভতে নিভতেও আগুন ছুঁয়ে আছে। আর কমরেট প্রমোদিয়েভ ঝিমোতে ঝিমোতেও জেগে আছেন। ওদিকে কমরেট জ্যোতোভস্কি আরাম কেদারায় হেলান দিয়ে টেবিলে পা তুলে দিয়ে টিভি দেখছেন। একটা গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণার দিকে তাকিয়ে আছেন তিনি। এখনও অন্য কমরেটরা আসেননি। 
বিশদ

11th  November, 2019
সবার হাতে কাজ ছাড়া ‘সবকা বিকাশ’ অসম্ভব, মন্দির-মসজিদে তো পেট ভরবে না
হিমাংশু সিংহ

২০১৯ প্রায় শেষের দিকে। নতুন বছর আসতে আর বাকি দেড় মাসের সামান্য বেশি। বছরের শুরুটায় আপামর দেশবাসী মেতেছিল সাধারণ নির্বাচন নিয়ে। পাঁচবছরের জন্য কে কেন্দ্রে ক্ষমতায় আসবে তা ঘিরে রাজনৈতিক দাপাদাপি আর তরজায় জমজমাট ছিল বছরের শুরুটা। বিশদ

10th  November, 2019
পঞ্চাশোর্ধ্বে বানপ্রস্থ?
অতনু বিশ্বাস

 পঞ্চাশ ছুঁই-ছুঁই হয়ে একটা প্রায় বৃদ্ধ-বৃদ্ধ ভাব এসেছে আমার মধ্যে। সেটা খুব অস্বাভাবিক হয়তো নয়। এমনিতেই চারপাশের দুনিয়াটা বদলে গিয়েছে অনেক। চেনা-পরিচিত বাচ্চা বাচ্চা ছেলেমেয়েগুলো হঠাৎ যেন বড় হয়ে গিয়েছে। আমাকে ডাকনাম ধরে ডাকার লোকের সংখ্যাও কমে যাচ্ছে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে।
বিশদ

09th  November, 2019
একনজরে
 দীপ্তিমান মুখোপাধ্যায়। হাওড়া: এবার আর ব্লক অফিসে নয়, গ্রাম পঞ্চায়েতস্তরে জেলা প্রশাসনের সমস্ত বিভাগকে নিয়ে গিয়ে বৈঠক করতে হবে জেলাশাসকদের। বছরে প্রতিটি গ্রাম পঞ্চায়েতে অন্তত তিন থেকে চারবার যাতে এই বৈঠক করা হয়, তা নিশ্চিত করতে হবে। ...

সংবাদদাতা, গাজোল: চড়া দামের ঠেলায় পড়ে এবার ভাতের হোটেলগুলিতেও কোপ পড়েছে ‘ফ্রি পেঁয়াজ’-এর উপর। সেইসঙ্গে চাউমিন বা এগরোলের মধ্যেও কমেছে পেঁয়াজের পরিমাণ। শসার পরিমাণ বাড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে জোড়াতালি।  ...

 কলম্বো, ১৬ নভেম্বর: অপ্রীতিকর নানা ঘটনার মধ্যেই শনিবার সম্পন্ন হল শ্রীলঙ্কার ভোট। আর এই ভোটে শ্রীলঙ্কার দিকে বিশেষ নজর ছিল ভারতের। ভারতের মূল চিন্তা মহিন্দা রাজাপাকসে। যদি তাঁর দল পুনরায় ক্ষমতায় ফেরে, তাহলে তা ভারতের জন্য খুব ভালো হবে না, ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: কলকাতা মেট্রোপলিটন এলাকায় লজিস্টিকস বা পণ্য পরিবহণ ও মজুত রাখা সংক্রান্ত পরিকাঠামো গড়তে উৎসাহী বিশ্ব ব্যাঙ্ক। এই বিষয়ে ইতিমধ্যেই রাজ্যের সঙ্গে প্রাথমিক কথাবার্তা হয়েছে তাদের। ওই প্রকল্পের মাস্টার প্ল্যান আগামী সপ্তাহে চূড়ান্ত হতে পারে বলে শনিবার দাবি ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

উচ্চতর বিদ্যায় আগ্রহ বাড়বে। মনোমতো বিষয় নিয়ে পঠন-পাঠন হবে। ব্যবসা স্থান শুভ। পৈতৃক ব্যবসায় যুক্ত ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

আন্তর্জাতিক সহনশীলতা দিবস
১৮১২ - ‘দ্য টাইমস’ পত্রিকার প্রতিষ্ঠাতা জন ওয়ালটারের মৃত্যু ।
১৮৯০ -অবিভক্ত ভারতে প্রথম সিরাম ভ্যাকসিন ও পেনিসিলিন প্রস্তুতকারক বিশিষ্ট ভেষজ বিজ্ঞানী ও চিকিৎসক হেমেন্দ্রনাথ ঘোষের জন্ম।
১৯৪৬ - বিশ্বে প্রথমবারের মত কৃত্রিমভাবে বৃষ্টিপাত সৃষ্টি করা হয়।
১৯৬৩: ঝাড়খণ্ডে জন্মগ্রহণ করেন অভিনেত্রী মীনাক্ষি শেষাদ্রি
১৯৭১: পাকিস্তানের ক্রিকেটার ওয়াকার ইউনিসের জন্ম
১৯৮৮: এক দশকেরও বেশি সময় পর পাকিস্তানে অনুষ্ঠিত হল অবাধ নির্বাচন। সেই নির্বাচনে দেশের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হলেন বেনজির ভুট্টো

16th  November, 2019




ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.০২ টাকা ৭৩.৫৬ টাকা
পাউন্ড ৯০.০৫ টাকা ৯৪.৯০ টাকা
ইউরো ৭৭.১৩ টাকা ৮১.২৮ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
16th  November, 2019
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,৭৪০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,৭৫৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৭,৩০৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৪,৭০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৪,৮০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৩০ কার্তিক ১৪২৬, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, রবিবার, পঞ্চমী ৩১/১৫ রাত্রি ৬/২৩। পুনর্বসু ৪২/৪৪ রাত্রি ১০/৫৯। সূ উ ৫/৫৪/৩, অ ৪/৪৮/৫৭, অমৃতযোগ দিবা ৬/৩৭ গতে ৮/৪৮ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৩ গতে ২/৩৮। রাত্রি ৭/২৬ গতে ৯/১১ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৮ গতে ১/৩৩ মধ্যে পুনঃ ২/২৪ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ১০/০ গতে ১২/৪৩ মধ্যে, কালরাত্রি ১২/৫৯ গতে ২/৩৯ মধ্যে।
৩০ কার্তিক ১৪২৬, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, রবিবার, পঞ্চমী ২৮/২৫/৫০ সন্ধ্যা ৫/১৭/৫৯। পুনর্বসু ৪১/৫৬/২২ রাত্রি ১০/৪২/১২, সূ উ ৫/৫৫/৩৯, অ ৪/৪৯/১৪, অমৃতযোগ দিবা ৬/৫০ গতে ৮/৫৭ মধ্যে ও ১১/৪৮ গতে ২/৩৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/২৭ গতে ৯/১৪ মধ্যে ১১/৫৩ গতে ১/৪০ মধ্যে ও ২/৩৩ গতে ৫/৫৭ মধ্যে, বারবেলা ১০/০/৪৫ গতে ১১/২২/২৬ মধ্যে, কালবেলা ১১/২২/২৬ গতে ১২/৪৪/৮ মধ্যে, কালরাত্রি ১/০/৪৫ গতে ২/৩৯/৩ মধ্যে।
১৯ রবিয়ল আউয়ল

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
সুপ্রিম কোর্টে অযোধ্যা মামলার রায় পুনর্বিবেচনার আর্জি জানাবে অল ইন্ডিয়া মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ড 

04:12:19 PM

জম্মু ও কাশ্মীরের আমিরাবাদ গ্রামে ট্রাকে আগুন লাগাল জঙ্গিরা 

03:21:29 PM

আইসিসি টেস্ট বোলারদের তালিকায় প্রথম দশে স্থান পেলেন মহঃ সামি 

03:21:00 PM

ইকো পার্কে জলে ডুবে শিশু মৃত্যুর ঘটনায় তদন্তের নির্দেশ পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের 

03:11:00 PM

কলকাতায় নিয়ে আসা হচ্ছে উত্তরবঙ্গ উন্নয়নমন্ত্রীকে
চিকিৎসার জন্য কলকাতায় নিয়ে আসা হচ্ছে উত্তরবঙ্গ উন্নয়নমন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষকে। ...বিশদ

02:56:00 PM

পঃ বর্ধমানে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর মূর্তি ভাঙার অভিযোগ
শনিবার রাতে পশ্চিম বর্ধমানের মানকর স্টেশন রোড এলাকায় প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ...বিশদ

01:23:59 PM