Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

মহারাষ্ট্র ও হরিয়ানার ভোট: বিধ্বস্ত বিরোধী
বনাম দোর্দণ্ডপ্রতাপ মোদি-অমিত শাহ জুটি
বিশ্বনাথ চক্রবতী

২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির বিপুল জয়ের পর চার মাসের মধ্যে মহারাষ্ট্র ও হরিয়ানার বিধানসভা নির্বাচনের সম্মুখীন মোদি-অমিত শাহ জুটি। এই দুই রাজ্যে পাঁচ বছর শাসন করবার পরও মোদিই বিজেপির প্রধান ভরসার স্থল। কাশ্মীর প্রশ্নে সংবিধানের ৩৭০ ধারা বিলোপ, সংসদে তিন তালাক রদ আইন পাশের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে মোদির যে ভাবমূর্তি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে তার সামনে এখনকার দিশাহীন কংগ্রেস ও অন্য বিরোধী পক্ষ কেমন লড়াই করে সেটাই দেখার।
আসা যাক মহারাষ্ট্রর কথায়। দেবেন্দ্র ফড়নবিশের নিরবিচ্ছিন্নভাবে পাঁচ বছর মহারাষ্ট্র শাসনের মধ্যে দিয়ে রাজ্য রাজনীতিতে বেশ কিছু কাঠামগত পরিবর্তন সূচিত হয়েছে। যেমন—(ক) মহারাষ্ট্রের রাজনীতিতে বিজেপি ছিল শিবসেনার জুনিয়র পার্টনার। গত পাঁচ বছরে শিবসেনা পরিণত হয়েছে বিজেপির জুনিয়র পার্টনারে। এবারের নির্বাচনে রাজ্যে ২৮৮টি আসনের মধ্যে বিজেপি ১৬২ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও, শিবসেনার ভাগ্যে জুটেছে মাত্র ১২৬ আসন। ১০ বছর আগেও সিংহ ভাগ আসনে কিন্তু লড়ত শিবসেনা। (খ) কিছু কাল আগেও বিদর্ভ, মারাঠাওয়ারা অঞলে এনসিপি বা কংগ্রেস ছাড়া বিজেপির তেমন কোনও প্রভাব ছিল না। আখ চাষিদের মধ্যে শারদ পাওয়ারের দলের দশকের পর দশক ধরে প্রভাব ছিল প্রশ্নাতীত। রাজ্যে বিজেপির পাঁচ বছর শাসন করবার পর বিদর্ভ, মারাঠাওয়ারা অঞলে এনসিপি বা কংগ্রেসের শক্তি যেমন একদিকে হ্রাস পেয়েছে, অন্যদিকে ওইসব এলাকাতে বিজেপির প্রভাবও যথেষ্ট বৃদ্ধি পেয়েছে। বিদর্ভ, মারাঠাওয়াড়া অঞলে এনসিপি বা কংগ্রেসের একাধিক আঞলিক নেতা দল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। (গ) শিবাজিকে সামনে রেখে শিবসেনার জাতীয়তাবাদ এখন বিজেপির ঘরের সম্পদ। মোদি-অমিত শাহ-রা লোকসভা নির্বাচনের মতো এবারের বিধানসভা নির্বাচনেও শিবাজির জাতীয়তাবাদকে সামনে রেখে মারাঠিদের প্রভাবিত করতে চাইছেন।
২০১৪-র বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি এবং শিবসেনা আলাদাভাবে লড়ে বিজেপি ১২২টি আসন এবং শিবসেনা ৬৩টি আসন পায়। সরকার গঠনের সময় শিবসেনা বিজেপির সঙ্গে হাত মেলায়। তবে দেবেন্দ্র ফড়নবিশের সরকারের সঙ্গে থাকলেও শিবসেনাকে বিভিন্ন ইস্যুতে বিজেপির সমালোচনায় সরব হতে দেখা গেছে। এমনকী শিবসেনা নেতাদেরও বারবার নানা ইস্যুতে দিল্লির মোদি সরকারের সমালোচনা করতে দেখা গেছে। লোকসভা নির্বাচনে মোদির বিপুল জয়ের ফলে শিবসেনার পক্ষে বিজেপির সঙ্গে আর দর কষাকষি করবার মতো পরিস্থিতি ছিল না। এবারের নির্বাচনে তাই উদ্ধব ঠাকরেকে বিজেপির শর্তেই আসন সমঝোতায় রাজি হতে হয়েছে।
২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে মহারাষ্ট্রে বিজেপি-শিবসেনা জোট ৪৮টি লোকসভা আসনের মধ্যে ৫০.৮৮ শতাংশের বেশি ভোট পেয়ে ৪১টি আসন লাভ করেছে। এরমধ্যে বিজেপি পেয়েছিল ২৩টি আসন এবং শিবসেনা ১৮টি আসন। পাঁচ বছর শাসনের পর বিজেপি একদিকে যখন স্বচ্ছ দায়বদ্ধ এবং দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসনের সাফল্যের দাবি করছে তখন অন্যদিকে একাধিক এনসিপি নেতা দুর্নীতির অভিযোগে জেলে বন্দি (যেমন ছগন ভুজবল) অথবা দুর্নীতির প্রশ্নে তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে। বিগত পাঁচ বছরে মহারাষ্ট্রের রাজনীতিতে আপেক্ষিকভাবে অচেনা দেবেন্দ্র ফড়নবিশ যখন বিজেপি শিবিরে নিজের কতৃত্ব প্রতিষ্ঠা করে রাজ্য রাজনীতিতে প্রধান মুখ হয়ে উঠেছেন তখন কংগ্রেস-এনসিপি শিবির অন্তর্দ্বন্দ্বে বিদীর্ণ। একের পর এক নেতার দলত্যাগের পাশাপাশি এনসিপি শিবিরে অজিত পাওয়ার এবং সুপ্রিয়া সুলের দলের ভেতরেও ভবিষ্যৎ নেতৃত্ব নিয়ে যেমন বিবাদ রয়েছে তেমন কংগ্রেস শিবিরেও তেমন কোনও বিশ্বাসযোগ্য নেতৃত্ব নেই।
দেবেন্দ্র ফড়নবীশের সরকার একাধিক শহরের মেট্রো প্রকল্পের কাজকে সামনে রেখে উন্নয়নের ধ্বজা প্রচারে ওড়াচ্ছেন। যদিও বিরোধীদের তরফ থেকে সামাজিক নিরাপত্তার অভাব, কৃষকের আত্মহত্যা, বেকারত্বের ইস্যুকে সামনে এনে বিজেপি-শিবসেনার বিরুদ্ধে প্রচার চালান হচ্ছে। ফড়নবিশ বিজেপির মহারাষ্ট্রের মনোহর যোশির পরে দ্বিতীয় মুখ্যমন্ত্রী যিনি ব্রাহ্মণ সম্প্রদায়ভুক্ত হলেও সমাজের অন্যান্য বর্গ—ওবিসি, তফসিলি জাতি, উপজাতি সকলকে একসূত্রে বাধতে সক্ষম হয়েছেন। এক্ষেত্রে বৃহত্তর হিন্দুত্বের যে ভাবনা মোদি, অমিত শাহরা বিজেপির রাজনীতিতে কার্যকর করেছেন তার ফসল দেবেন্দ্র ফড়নবিশ এবারের মহারাষ্ট্র বিধানসভা নির্বাচনের পাবেন বলে সমস্ত প্রাক নির্বাচনী জনমত সমীক্ষায় উঠে এসেছে। লোকসভা নির্বাচনে বিপর্যয়ের পর দিশাহীন কংগ্রেস–এনসিপি জোটের পক্ষে আদতেও লড়াই দেওয়া সম্ভব কিনা তার জন্য চলতি মাসের ২৪ তারিখ ফলাফলের দিকে তাকিয়ে থাকতে হবে।
এবার চোখ রাখা যাক হরিয়ানার নির্বাচনে। হরিয়ানার রাজনীতিতে তিন দশক ধরে চলে আসা দেবীলালের পরিবারতন্ত্র এবং ভূপেন্দ্র সিং হুড্ডার প্রভাব প্রতিহত করে বিজেপি রাজ্যে প্রথমবার ক্ষমতায় আসে। দেবীলালের পরিবারের প্রভাব হ্রাসের সঙ্গে সঙ্গে হরিয়ানায় দীর্ঘদিন ধরে চলা জাঠদের প্রভাব উপেক্ষা করে বিজেপি নেতৃত্ব মনোহরলাল খাট্টারের মতো জাঠ সম্প্রদায়ের বাইরে কাউকে মুখ্যমন্ত্রী করবার সাহস দেখাতে পেরেছিল। বিজেপির অঙ্ক ছিল সমস্ত ওবিসি ও তফসিলি সম্প্রদায়ের ভোটারদের একত্র করে তিন দশক ধরে চলে আসা হরিয়ানার রাজনীতিতে জাঠদের প্রভাব হ্রাস করার পাশাপাশি আই এন এল ডি’কে কোণঠাসা করে রাজ্য রাজনীতিতে কংগ্রেসের বিকল্প শক্তি হিসেবে উঠে আসা। বলাই বাহুল্য ২০১৪ -র বিধানসভা নির্বাচনে মোদি-অমিত শাহ জুটি লক্ষ্য অর্জনে একশ ভাগ সাফল্য পেয়েছিল। ২০১৪-র নির্বাচনে বিজেপি ৩৩ শতাংশ ভোট এবং ৪৭টি বিধানসভা আসন পেয়ে প্রথমবার ক্ষমতা দখল করে। লোকদল ২৪ শতাংশ ভোট পেয়ে ১৯টি এবং কংগ্রেস মাত্র ২১ শতাংশ ভোট পেয়ে ১৫টি আসন পেয়েছিল।
বিধানসভা নির্বাচনের পর রাজ্য রাজনীতিতে অনেক উত্থান পতন পরিলক্ষিত হয়েছে। দেবীলালের পরিবারের ভাঙন এবং পরিবারের একেক জন সদস্যের একেক দলে যোগদানের ফলে আইএনএলডি দুর্বল হয়েছে। অজয় চৌতালা জননায়ক জনতা পাটি (জেজেপি) গঠন করে নির্বাচনে অবতীর্ণ হয়েছেন। এবারের নির্বাচনে জেজেপি লোকদলের অবশিষ্ট ভোট ব্যাঙ্কে থাবা বসাতে পারে। ভাঙন ধরেছে কংগ্রেস ও ভজনলালের গড়া হরিয়ানা জনহিত কংগ্রেসেও। লোকসভা নির্বাচনে বিপর্যয়ের পর কংগ্রেস সমেত বিরোধীরা এবারের নির্বাচনে দিশাহীন মনে হচ্ছে। কংগ্রেস শিবির শেষ লগ্নে সভাপতি পদে ভূপিন্দর সিং হুড্ডাকে এনেছে সঙ্কট সামাল দিতে। তবে রাজ্য রাজনীতিতে ভূপিন্দর সিং হুড্ডার সঙ্গে কুমারী শৈলজার দ্বন্দ্ব সুবেদিত। তার প্রভাব ইতিমধ্যে নির্বাচনে পড়তে শুরু করেছে। ২০১৪ বিধানসভা নির্বাচনে বিভিন্ন দল থেকে জেতা অনেক বিধায়ক নিজ নিজ দলত্যাগ করে বিজেপিতে যোগদান করেছেন। কেবলমাত্র আইএনএলডি থেকে ১৬জন বিধায়ক বিজেপিতে যোগদান করেছেন। এতে বর্তমানে শাসক দলের বিধায়ক সংখ্যা ৪৭ থেকে বেড়ে ৬৩টিতে পৌঁছেছে। অর্থাৎ বিধানসভা নির্বাচনের আগে হরিয়ানায় একদিকে যেমন বিরোধীরা ভেঙে চুরমার হয়েছে, অন্যদিকে শাসক দল বিজেপি রাজ্যে প্রভাব ক্রমশ বাড়িয়ে চলেছে।
তবে মনোহরলাল খাট্টারের সরকার বিগত পাঁচ বছর যে বিরাট কোনও সাফল্য পেয়েছে তা বলা যাবে না। বরং জাঠদের সংরক্ষণ আন্দোলনে নাজেহাল মনোহরলাল খাট্টারের অপসারণের ভাবনা দিল্লিতে পর্যন্ত উঠে এসেছিল। রাম-রহিম-বাবাকে কেন্দ্র করে হরিয়ানা উত্তাল হলে যেভাবে মনোহরলাল খাট্টারের সরকার শেষ পর্যন্ত সামাল দিয়েছিল তা বিজেপির অন্দরমহলে প্রশংসা পেয়েছিল। তবে মনোহরলাল খাট্টার সবসময় বিতর্কিত মন্তব্য করে সর্বদাই সংবাদের শিরোনামে থেকেছেন। কর্মসংস্থানের অভাব, জলকষ্ট, কৃষি সমস্যায় সরকার জর্জরিত। কিন্তু একই সঙ্গে প্রশাসন পরিচালনায় স্বচ্ছতা, দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াইকে কেন্দ্র করে মনোহরলাল খাট্টারের সরকারের জনমনে ভালো ভাবমূর্তি রয়েছে। অতীতে ভজনলাল, দেবীলাল, চৌতালা, হুড্ডা সরকারের বিরুদ্ধে একাধিক দুর্নীতির অভিযোগ উঠলেও মনোহরলাল খাট্টারের সরকারের বিরুদ্ধে কিন্তু পাঁচ বছরে তেমন কোনও বড় দুর্নীতির অভিযোগ নেই। বিজেপি এবারের নির্বাচনে হরিয়ানার রাজনীতিতে চলে আসা পরিবারতন্ত্র এবং ভজনলাল, দেবীলাল, চৌতালা, হুড্ডা সরকারের বিরুদ্ধে ওঠা দুর্নীতির অভিযোগগুলো নিয়ে ব্যাপক প্রচারের পাশাপাশি মনোহরলাল খাট্টারের সরকারের স্বচ্ছ ভাবমূর্তিকেও ভোটারদের সামনে তুলে ধরছে।
লোকসভা নির্বাচনের নিরিখে রাজ্যে ৯০টি বিধানসভার আসনের মধ্যে ৭৯টি আসনে বিজেপি এগিয়ে রয়েছে। বিজেপির প্রাপ্ত ভোট ছিল ৫৮ শতাংশ। অন্যদিকে কংগ্রেস ২৮ শতাংশ ভোট পেয়েছিল ও মাত্র ১০ টি বিধানসভা কেন্দ্রে এগিয়ে ছিল। লোকসভা নির্বাচনের পর কাশ্মীরের ৩৭০ ধারার বিলোপ, তিন তালাক বাতিল বিল সংসদে পাশ করানো, মোদির আমেরিকা সফরের পর হরিয়ানার মানুষ এখনই সরকারের বিরুদ্ধে ভোট দেবেন বলে মনে হয় না। ২১ অক্টোবর হরিয়ানার ১ কোটি ৮৪ লক্ষ ভোটারের অনেকেই রাজ্যে দ্বিতীয়বারের জন্য বিজেপির পক্ষে রায় দিতে পারে বলে সমস্ত জনমত সমীক্ষায় উঠে এসেছে। বিজেপির প্রার্থী তালিকাতেও রয়েছে চমক। দুইজন কুস্তিগির—ববিতা ও যগেশ্বর যেমন রয়েছেন, তেমনি রয়েছেন প্রাক্তন ভারতীয় হকি টিমের ক্যাপ্টেন সন্দীপ সিং। বহুমুখী লড়াইয়ে বিরোধী ভোটের বিভাজনের সুবিধে বিজেপিকে অতিরিক্ত সুবিধা দিতে পারে। ৯০ আসনের বিধানসভায় সর্বমোট ১১৬৮ জন প্রার্থী নির্বাচনী প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অবতীর্ণ হয়েছেন। ফল ২৪ অক্টোবর।
 লেখক রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক
17th  October, 2019
বিশ্বাসের অভাব
সমৃদ্ধ দত্ত

 বিগত তিন বছর ধরে ভারতের সিংহভাগ সাধারণ মানুষ নিজেদের সঞ্চয়ের টাকা জমা রাখছে বেসরকারি ব্যাঙ্কে। সরকারি তথা রাষ্ট্রায়ত্ত্ব ব্যাঙ্কে নয়। দেশের আটটি সরকারি এবং আটটি বেসরকারি ব্যাঙ্কের অ্যাকাউন্ট বিশ্লেষণ করে এই তথ্য জানা গিয়েছে। যার ফলশ্রুতি হল সরকারি ব্যাঙ্কে যে টাকা জমা রয়েছে তার সিংহভাগই আগে থেকে জমা হয়ে থাকা ফিক্সড ডিপোজিট।
বিশদ

21st  February, 2020
মুখ চাই মুখ
মেরুনীল দাশগুপ্ত

মুখ হয়তো অনেক আছে। কিন্তু, ঠিক সেই মুখটির দেখা এখনও মেলেনি। কোন মুখটি? যে মুখটি সৌজন্যে পরাক্রমে রাজনৈতিক কূটকৌশলে এবং অবশ্যই জনপ্রীতিতে পাল্লা দিতে পারে বাংলার একচ্ছত্র নেত্রীকে, ২০২১ বিধানসভার রণাঙ্গনে ছুঁড়ে দিতে পারে চ্যালেঞ্জ, জাগাতে পারে আর এক মহাবিজয়ের সম্ভাবনা। সেই মুখ কোথায় পদ্মশিবিরে? 
বিশদ

20th  February, 2020
বিপুল অভ্যর্থনা পেয়ে বিশ্বজয়ী বিবেকানন্দ
কলকাতায় বলেন, এ ঠাকুরেরই ‌জয়জয়কার
হারাধন চৌধুরী

ঠাকুর শ্রীরামকৃষ্ণ বলেছিলেন, ‘‘নরেন শিক্ষে দেবে।’’ ঠাকুরের কথা ফলিয়ে দেওয়ার জন্য তাঁর মানসপুত্রটি বেছে নিয়েছিলেন পাশ্চাত্যের মাটি। কারণ, যে-কোনও জিনিস পাশ্চাত্যের মানুষ গ্রহণ করার পরেই যে ভারতের মানুষ তা গ্রহণে অভ্যস্ত! স্বামী বিবেকানন্দের সামনে সেই সুযোগ এনে দিয়েছিল শিকাগো বিশ্ব ধর্ম মহাসভা।
বিশদ

19th  February, 2020
ট্রাম্পের ভারত সফর এবং প্রাপ্তিযোগের অঙ্ক 

শান্তনু দত্তগুপ্ত: সফর মাত্র দু’ঘণ্টার। আর তাতে আয়োজন পাহাড়প্রমাণ। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলে কথা! তাই এতটুকু ফাঁক রাখতে নারাজ গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী বিজয় রূপানি (বা বেসরকারিভাবে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি)।  বিশদ

18th  February, 2020
টুকরে টুকরে গ্যাং-ই জিতল
পি চিদম্বরম

 গত ১১ ফেব্রুয়ারি লোকসভার কার্যবিবরণীতে নথিভুক্ত নিম্নলিখিত প্রশ্নোত্তরগুলি আনন্দের কারণ হতে পারত যদি না বিষয়টি বিজেপি নেতাদের (এই পঙ্‌ক্তিতে আছেন প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং অন্য মন্ত্রীরাও) দুঃখের ধারাবিবরণীতে পরিণত হতো: বিশদ

17th  February, 2020
স্বর্গলোকে মহাত্মা ও
গুরুদেবের সাক্ষাৎকার
সন্দীপন বিশ্বাস

 অনেকদিন পর আবার দেখা হল মহাত্মা এবং গুরুদেবের। মর্ত্যে দু’জনের প্রথম সাক্ষাৎ ঘটেছিল শান্তিনিকেতনে ১৯১৫ সালে আজকের দিনে অর্থাৎ ১৭ ফেব্রুয়ারি। তারপর বেশ কয়েকবার তাঁদের দেখা হয়েছিল। কবিগুরু সবরমতী আশ্রমে গিয়েছিলেন ১৯২০ সালে। বিশদ

17th  February, 2020
এবার হ্যাটট্রিকের দোরগোড়ায় অগ্নিকন্যা
হিমাংশু সিংহ

তবে কি দিল্লিতে হেরে বোধোদয় হল অমিত শাহদের? নাকি ভোট জেতার নামে ঘৃণা ছড়ানো ঠিক হয়নি বলাটা আরও বড় কোনও নাটকের মহড়ারই অংশ? বোঝা কঠিন, তুখোড় রাজনীতিকরা কোন উদ্দেশ্যে কখন কোন খেলাটা খেলেন! আর সেই তালে অসহায় জনগণকে তুর্কি নাচন নাচানো চলে অবলীলায়। 
বিশদ

16th  February, 2020
শাহিনবাগে যেসব কথা জানানো হয়নি

 ‘যত্র নার্যস্তু পূজ্যন্তে রমন্তে তত্র দেবতাঃ’, যেখানে মহিলারা পূজিতা হন সেখানেই ভগবান অবস্থান করেন। ভারতবর্ষের মানুষ হাজার বছর ধরে এই শ্লোক আবৃত্তি করে এসেছে। গত একমাসের বেশি সময় ধরে দিল্লির শাহিনবাগে শিশু থেকে বৃদ্ধা বিভিন্ন বয়সের মহিলাদের কষ্ট দেওয়া হয়েছে। বিশদ

15th  February, 2020
মাফলার ম্যানের দিল্লি জয়
মৃণালকান্তি দাস 

ঠেকে শিখেছেন তিনি। ‌‌‌‌পদস্থ আমলা থেকে রাজনীতিক এবং প্রশাসক হিসেবে পরিণত হয়েছেন। বুঝেছেন, এ দেশের আমআদমি বাড়ির কাছে ভালো স্কুল, কলেজ, হাসপাতাল চান। বাড়ির মেয়েদের নিরাপত্তা নিয়েই তাঁদের উদ্বেগ। 
বিশদ

14th  February, 2020
রাজনীতির কাছে মানুষের চাহিদাটাই
বদলে দিল দিল্লির এই ভোট-সংস্কৃতি
হারাধন চৌধুরী

 প্রতিমা গড়ে পুজো করা আর ভগবানকে লাভ করা এক নয়। প্রতিমা সাজিয়ে পুজো যে-কেউ করতে পারে। কিন্তু, ভগবান লাভ? মানুষ চিরদিন মনে করে এসেছে, সে শুধু সাচ্চা সাধকের পক্ষেই সম্ভব। কিন্তু, ঠাকুর শ্রীরামকৃষ্ণ এসে একেবারে অন্যকথা বললেন।
বিশদ

13th  February, 2020
সেনাবাহিনীও যখন রাজনীতির অস্ত্র
শান্তনু দত্তগুপ্ত

লঞ্চপ্যাড মাত্র ৫০ মিটার দূরে... অন্ধকারের মধ্যেই তাঁর চোখ দু’টো খুঁজে চলেছে... নজরে এসেও গেল দুই জঙ্গি... ছায়ার মতো সেঁটে আছে লঞ্চপ্যাডের অন্ধকারে। নাইট ভিশন গ্লাস চোখে লাগিয়ে নিশ্চিত হলেন মেজর মাইক ট্যাঙ্গো। আগেভাগে নিশ্চিত হয়ে নেওয়ার কারণ আরও ছিল তাঁর কাছে।
বিশদ

11th  February, 2020
রাজস্ব-শৃঙ্খলা অক্ষুণ্ণ রেখেই জনমুখী বাজেট
দেবনারায়ণ সরকার

২০২১-এর বিধানসভা নির্বাচনের আগে এটাই অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্রের শেষ পূর্ণাঙ্গ বাজেট। এই বাজেট নিঃসন্দেহে জনমুখী, তবে রাজস্ব-শৃঙ্খলা (ফিসকাল ডিসিপ্লিন) যথেষ্ট বজায় রেখে জনমুখী বাজেট পেশ করলেন অমিতবাবু। প্রথমে রাজস্ব-শৃঙ্খলার প্রসঙ্গে আসা যাক। বিশদ

11th  February, 2020
একনজরে
নাগপুর, ২১ ফেব্রুয়ারি (পিটিআই): বুধবার বম্বে হাইকোর্টের নাগপুর শাখা গুরুত্বপূর্ণ রায় ঘোষণা করল। আগামী ২২ ফেব্রুয়ারি ভীম আর্মি রেশিমবাগ ময়দানে শর্তসাপেক্ষে কর্মী সমাবেশের আয়োজন করতে পারবে বলে জানিয়ে দিল কোর্ট। সুনীল শুক্রে এবং মাধব জমদার দ্বারা গঠিত ডিভিশন বেঞ্চ এই ...

বাংলা নিউজ এজেন্সি: শুক্রবার বীরভূম জেলাজুড়ে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হয়। শান্তিনিকেতনের অনুষ্ঠানে বিশ্বভারতীর উপাচার্ষ বিদ্যুৎ চক্রবর্তীর বক্তব্য ঘিরে বিতর্ক শুরু হয়েছে।  ...

বাংলা নিউজ এজেন্সি: দুই দিনাজপুরে ধুমধাম করে পালিত হল শিবরাত্রি। এদিন উত্তর ও দক্ষিণ দিনাজপুরের একাধিক মন্দিরে সকাল থেকেই ভক্তদের ভিড় উপচে পড়ে।   ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী সপ্তাহ থেকেই ফের টানেল কাটার কাজ শুরু করবে ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রো কর্তৃপক্ষ। দ্বিতীয় বোরিং মেশিন দিয়ে সামগ্রিকভাবে বাকি থাকা টানেল কাটার কাজ আগামী বছরের মার্চ-এপ্রিল মাসের মধ্যেই শেষ হওয়ার সম্ভাবনা।  ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যার্থীদের অধিক পরিশ্রম করতে হবে। অন্যথায় পরীক্ষায় ভালো হবে না। প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় ভালো ফল হবে।প্রতিকার: ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

আন্তর্জাতিক ভাষা দিবস
১৮৪৮: কার্ল মার্ক্স প্রকাশ করেন কমিউনিস্ট ম্যানিফেস্টো
১৮৭৮ - মিরা আলফাসা ভারতের পণ্ডিচেরি অরবিন্দ আশ্রমের শ্রীমার জন্ম
১৮৯৪: ডাঃ শান্তিস্বরূপ ভাটনগরের জন্ম
১৯৩৭: অভিনেত্রী সাবিত্রী চট্টোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯৫২: পূর্ব পাকিস্তানে (বর্তমান বাংলাদেশ) ভাষা আন্দোলনে প্রাণ দিলেন চারজন
১৯৬১: নোবেলজয়ী ভারতীয় বংশোদ্ভূত আমেরিকান বাঙালি অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯৭০ - অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটার মাইকেল স্লেটারের জন্ম
১৯৯১: অভিনেত্রী নূতনের মৃত্যু
১৯৯৩ - বিশিষ্ট শিশু সাহিত্যিক ও কবি অখিল নিয়োগীর (যিনি স্বপনবুড়ো ছদ্মনামে পরিচিত) মৃত্যু
২০১৩: হায়দরাবাদে জোড়া বোমা বিস্ফোরণে ১৭জনের মৃত্যু

১৭৩২: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম রাষ্ট্রপতি জর্জ ওয়াশিংটনের জন্ম
১৯০৬: অভিনেতা পাহাড়ি সান্যালের জন্ম
১৯৪৪: মহাত্মা গান্ধীর স্ত্রী কস্তুরবা গান্ধীর মৃত্যু
১৯৫৮: স্বাধীনতা সংগ্রামী আবুল কালাম আজাদের মৃত্যু
২০১৫: বাংলাদেশে নৌকাডুবি, মৃত ৭০

21st  February, 2020




ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৯৪ টাকা ৭২.৬৫ টাকা
পাউন্ড ৯০.৯৮ টাকা ৯৪.৩০ টাকা
ইউরো ৭৬.০৫ টাকা ৭৯.০১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
21st  February, 2020
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪২,৯৪৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪০,৭৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪১,৩৬০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৮,৫০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৮,৬০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৯ ফাল্গুন ১৪২৬, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, শনিবার, (মাঘ কৃষ্ণপক্ষ) চতুর্দ্দশী ৩২/১৮ রাত্রি ৭/৩। শ্রবণা ১২/৫৮ দিবা ১১/১৯। সূ উ ৬/৮/৯, অ ৫/৩২/৩৫, অমৃতযোগ দিবা ৯/৫৬ গতে ১২/৫৮ মধ্যে। রাত্রি ৮/৩ গতে ১০/৩৪ মধ্যে পুনঃ ১২/১৫ গতে ১/৫৬ মধ্যে পুনঃ ২/৪৬ গতে ৪/২৬ মধ্যে। বারবেলা ৭/৩৩ মধ্যে ১/১৫ গতে ২/৪১ মধ্যে পুনঃ ৪/৭ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ৭/৭ মধ্যে পুনঃ ৪/৩৩ গতে উদয়াবধি। 
৯ ফাল্গুন ১৪২৬, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, শনিবার, চতুর্দ্দশী ৩১/৮/৪২ রাত্রি ৬/৩৮/৫১। শ্রবণা ১৩/৩/৪১ দিবা ১১/২৪/৫০। সূ উ ৬/১১/২২, অ ৫/৩১/২৫। অমৃতযোগ দিবা ৯/৪৯ গতে ১২/৫৭ মধ্যে এবং রাত্রি ৮/৬ গতে ১০/৩৩ মধ্যে ও ১২/১২ গতে ১/৪৯ মধ্যে ও ২/৩৮ গতে ৪/১৭ মধ্যে। কালবেলা ৭/৩৬/২২ মধ্যে ও ৪/৬/২৪ গতে ৫/৩১/২৫ মধ্যে। কালরাত্রি ৭/৬/২৫ মধ্যে ও ৪/৩৬/২৩ গতে ৬/১০/৩৪ মধ্যে। 
২৭ জমাদিয়স সানি  

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
হোলির পরেই ইপিএফের সুদের হার নির্ধারণে বৈঠকের সম্ভাবনা 
হোলির পরেই কর্মচারী প্রভিডেন্ড ফান্ডের (ইপিএফ) সুদের হার নির্ধারণে বৈঠকে ...বিশদ

09:51:37 AM

 ট্রাফিক নিয়ে অভিযোগ: বিশেষ নম্বর
ট্রাফিক নিয়ে সাধারণ মানুষের কোনও অভিযোগ থাকলে তা যাতে তাঁরা ...বিশদ

09:18:56 AM

রণথম্ভোর থেকে উধাও ২৬ বাঘ 
রণথম্ভোর জাতীয় উদ্যান থেকে ২৬টি বাঘ নিখোঁজ হয়ে গিয়েছে। এমনই ...বিশদ

09:15:00 AM

অবসরপ্রাপ্ত স্কুল শিক্ষকদের বর্ধিত পেনশনের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ 
অবশেষে স্বস্তি পেলেন অবসরপ্রাপ্ত স্কুল শিক্ষকরা। ষষ্ঠ বেতন কমিশনের সুপারিশ ...বিশদ

09:00:00 AM

অবসরের দিনই পিএফের টাকা মেটাতে চায় কেন্দ্র 
গ্রাহকরা যাতে অবসরের দিনই তাঁর প্রাপ্য টাকা পেতে পারেন, তার ...বিশদ

08:48:52 AM

পুলকার দুর্ঘটনা: লড়াই শেষ, মৃত্যু ঋষভের 
এক সপ্তাহের দীর্ঘ লড়াই শেষ। মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ল পোলবায় ...বিশদ

08:33:00 AM