Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

মহারাষ্ট্র ও হরিয়ানার ভোট: বিধ্বস্ত বিরোধী
বনাম দোর্দণ্ডপ্রতাপ মোদি-অমিত শাহ জুটি
বিশ্বনাথ চক্রবতী

২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির বিপুল জয়ের পর চার মাসের মধ্যে মহারাষ্ট্র ও হরিয়ানার বিধানসভা নির্বাচনের সম্মুখীন মোদি-অমিত শাহ জুটি। এই দুই রাজ্যে পাঁচ বছর শাসন করবার পরও মোদিই বিজেপির প্রধান ভরসার স্থল। কাশ্মীর প্রশ্নে সংবিধানের ৩৭০ ধারা বিলোপ, সংসদে তিন তালাক রদ আইন পাশের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে মোদির যে ভাবমূর্তি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে তার সামনে এখনকার দিশাহীন কংগ্রেস ও অন্য বিরোধী পক্ষ কেমন লড়াই করে সেটাই দেখার।
আসা যাক মহারাষ্ট্রর কথায়। দেবেন্দ্র ফড়নবিশের নিরবিচ্ছিন্নভাবে পাঁচ বছর মহারাষ্ট্র শাসনের মধ্যে দিয়ে রাজ্য রাজনীতিতে বেশ কিছু কাঠামগত পরিবর্তন সূচিত হয়েছে। যেমন—(ক) মহারাষ্ট্রের রাজনীতিতে বিজেপি ছিল শিবসেনার জুনিয়র পার্টনার। গত পাঁচ বছরে শিবসেনা পরিণত হয়েছে বিজেপির জুনিয়র পার্টনারে। এবারের নির্বাচনে রাজ্যে ২৮৮টি আসনের মধ্যে বিজেপি ১৬২ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও, শিবসেনার ভাগ্যে জুটেছে মাত্র ১২৬ আসন। ১০ বছর আগেও সিংহ ভাগ আসনে কিন্তু লড়ত শিবসেনা। (খ) কিছু কাল আগেও বিদর্ভ, মারাঠাওয়ারা অঞলে এনসিপি বা কংগ্রেস ছাড়া বিজেপির তেমন কোনও প্রভাব ছিল না। আখ চাষিদের মধ্যে শারদ পাওয়ারের দলের দশকের পর দশক ধরে প্রভাব ছিল প্রশ্নাতীত। রাজ্যে বিজেপির পাঁচ বছর শাসন করবার পর বিদর্ভ, মারাঠাওয়ারা অঞলে এনসিপি বা কংগ্রেসের শক্তি যেমন একদিকে হ্রাস পেয়েছে, অন্যদিকে ওইসব এলাকাতে বিজেপির প্রভাবও যথেষ্ট বৃদ্ধি পেয়েছে। বিদর্ভ, মারাঠাওয়াড়া অঞলে এনসিপি বা কংগ্রেসের একাধিক আঞলিক নেতা দল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। (গ) শিবাজিকে সামনে রেখে শিবসেনার জাতীয়তাবাদ এখন বিজেপির ঘরের সম্পদ। মোদি-অমিত শাহ-রা লোকসভা নির্বাচনের মতো এবারের বিধানসভা নির্বাচনেও শিবাজির জাতীয়তাবাদকে সামনে রেখে মারাঠিদের প্রভাবিত করতে চাইছেন।
২০১৪-র বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি এবং শিবসেনা আলাদাভাবে লড়ে বিজেপি ১২২টি আসন এবং শিবসেনা ৬৩টি আসন পায়। সরকার গঠনের সময় শিবসেনা বিজেপির সঙ্গে হাত মেলায়। তবে দেবেন্দ্র ফড়নবিশের সরকারের সঙ্গে থাকলেও শিবসেনাকে বিভিন্ন ইস্যুতে বিজেপির সমালোচনায় সরব হতে দেখা গেছে। এমনকী শিবসেনা নেতাদেরও বারবার নানা ইস্যুতে দিল্লির মোদি সরকারের সমালোচনা করতে দেখা গেছে। লোকসভা নির্বাচনে মোদির বিপুল জয়ের ফলে শিবসেনার পক্ষে বিজেপির সঙ্গে আর দর কষাকষি করবার মতো পরিস্থিতি ছিল না। এবারের নির্বাচনে তাই উদ্ধব ঠাকরেকে বিজেপির শর্তেই আসন সমঝোতায় রাজি হতে হয়েছে।
২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে মহারাষ্ট্রে বিজেপি-শিবসেনা জোট ৪৮টি লোকসভা আসনের মধ্যে ৫০.৮৮ শতাংশের বেশি ভোট পেয়ে ৪১টি আসন লাভ করেছে। এরমধ্যে বিজেপি পেয়েছিল ২৩টি আসন এবং শিবসেনা ১৮টি আসন। পাঁচ বছর শাসনের পর বিজেপি একদিকে যখন স্বচ্ছ দায়বদ্ধ এবং দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসনের সাফল্যের দাবি করছে তখন অন্যদিকে একাধিক এনসিপি নেতা দুর্নীতির অভিযোগে জেলে বন্দি (যেমন ছগন ভুজবল) অথবা দুর্নীতির প্রশ্নে তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে। বিগত পাঁচ বছরে মহারাষ্ট্রের রাজনীতিতে আপেক্ষিকভাবে অচেনা দেবেন্দ্র ফড়নবিশ যখন বিজেপি শিবিরে নিজের কতৃত্ব প্রতিষ্ঠা করে রাজ্য রাজনীতিতে প্রধান মুখ হয়ে উঠেছেন তখন কংগ্রেস-এনসিপি শিবির অন্তর্দ্বন্দ্বে বিদীর্ণ। একের পর এক নেতার দলত্যাগের পাশাপাশি এনসিপি শিবিরে অজিত পাওয়ার এবং সুপ্রিয়া সুলের দলের ভেতরেও ভবিষ্যৎ নেতৃত্ব নিয়ে যেমন বিবাদ রয়েছে তেমন কংগ্রেস শিবিরেও তেমন কোনও বিশ্বাসযোগ্য নেতৃত্ব নেই।
দেবেন্দ্র ফড়নবীশের সরকার একাধিক শহরের মেট্রো প্রকল্পের কাজকে সামনে রেখে উন্নয়নের ধ্বজা প্রচারে ওড়াচ্ছেন। যদিও বিরোধীদের তরফ থেকে সামাজিক নিরাপত্তার অভাব, কৃষকের আত্মহত্যা, বেকারত্বের ইস্যুকে সামনে এনে বিজেপি-শিবসেনার বিরুদ্ধে প্রচার চালান হচ্ছে। ফড়নবিশ বিজেপির মহারাষ্ট্রের মনোহর যোশির পরে দ্বিতীয় মুখ্যমন্ত্রী যিনি ব্রাহ্মণ সম্প্রদায়ভুক্ত হলেও সমাজের অন্যান্য বর্গ—ওবিসি, তফসিলি জাতি, উপজাতি সকলকে একসূত্রে বাধতে সক্ষম হয়েছেন। এক্ষেত্রে বৃহত্তর হিন্দুত্বের যে ভাবনা মোদি, অমিত শাহরা বিজেপির রাজনীতিতে কার্যকর করেছেন তার ফসল দেবেন্দ্র ফড়নবিশ এবারের মহারাষ্ট্র বিধানসভা নির্বাচনের পাবেন বলে সমস্ত প্রাক নির্বাচনী জনমত সমীক্ষায় উঠে এসেছে। লোকসভা নির্বাচনে বিপর্যয়ের পর দিশাহীন কংগ্রেস–এনসিপি জোটের পক্ষে আদতেও লড়াই দেওয়া সম্ভব কিনা তার জন্য চলতি মাসের ২৪ তারিখ ফলাফলের দিকে তাকিয়ে থাকতে হবে।
এবার চোখ রাখা যাক হরিয়ানার নির্বাচনে। হরিয়ানার রাজনীতিতে তিন দশক ধরে চলে আসা দেবীলালের পরিবারতন্ত্র এবং ভূপেন্দ্র সিং হুড্ডার প্রভাব প্রতিহত করে বিজেপি রাজ্যে প্রথমবার ক্ষমতায় আসে। দেবীলালের পরিবারের প্রভাব হ্রাসের সঙ্গে সঙ্গে হরিয়ানায় দীর্ঘদিন ধরে চলা জাঠদের প্রভাব উপেক্ষা করে বিজেপি নেতৃত্ব মনোহরলাল খাট্টারের মতো জাঠ সম্প্রদায়ের বাইরে কাউকে মুখ্যমন্ত্রী করবার সাহস দেখাতে পেরেছিল। বিজেপির অঙ্ক ছিল সমস্ত ওবিসি ও তফসিলি সম্প্রদায়ের ভোটারদের একত্র করে তিন দশক ধরে চলে আসা হরিয়ানার রাজনীতিতে জাঠদের প্রভাব হ্রাস করার পাশাপাশি আই এন এল ডি’কে কোণঠাসা করে রাজ্য রাজনীতিতে কংগ্রেসের বিকল্প শক্তি হিসেবে উঠে আসা। বলাই বাহুল্য ২০১৪ -র বিধানসভা নির্বাচনে মোদি-অমিত শাহ জুটি লক্ষ্য অর্জনে একশ ভাগ সাফল্য পেয়েছিল। ২০১৪-র নির্বাচনে বিজেপি ৩৩ শতাংশ ভোট এবং ৪৭টি বিধানসভা আসন পেয়ে প্রথমবার ক্ষমতা দখল করে। লোকদল ২৪ শতাংশ ভোট পেয়ে ১৯টি এবং কংগ্রেস মাত্র ২১ শতাংশ ভোট পেয়ে ১৫টি আসন পেয়েছিল।
বিধানসভা নির্বাচনের পর রাজ্য রাজনীতিতে অনেক উত্থান পতন পরিলক্ষিত হয়েছে। দেবীলালের পরিবারের ভাঙন এবং পরিবারের একেক জন সদস্যের একেক দলে যোগদানের ফলে আইএনএলডি দুর্বল হয়েছে। অজয় চৌতালা জননায়ক জনতা পাটি (জেজেপি) গঠন করে নির্বাচনে অবতীর্ণ হয়েছেন। এবারের নির্বাচনে জেজেপি লোকদলের অবশিষ্ট ভোট ব্যাঙ্কে থাবা বসাতে পারে। ভাঙন ধরেছে কংগ্রেস ও ভজনলালের গড়া হরিয়ানা জনহিত কংগ্রেসেও। লোকসভা নির্বাচনে বিপর্যয়ের পর কংগ্রেস সমেত বিরোধীরা এবারের নির্বাচনে দিশাহীন মনে হচ্ছে। কংগ্রেস শিবির শেষ লগ্নে সভাপতি পদে ভূপিন্দর সিং হুড্ডাকে এনেছে সঙ্কট সামাল দিতে। তবে রাজ্য রাজনীতিতে ভূপিন্দর সিং হুড্ডার সঙ্গে কুমারী শৈলজার দ্বন্দ্ব সুবেদিত। তার প্রভাব ইতিমধ্যে নির্বাচনে পড়তে শুরু করেছে। ২০১৪ বিধানসভা নির্বাচনে বিভিন্ন দল থেকে জেতা অনেক বিধায়ক নিজ নিজ দলত্যাগ করে বিজেপিতে যোগদান করেছেন। কেবলমাত্র আইএনএলডি থেকে ১৬জন বিধায়ক বিজেপিতে যোগদান করেছেন। এতে বর্তমানে শাসক দলের বিধায়ক সংখ্যা ৪৭ থেকে বেড়ে ৬৩টিতে পৌঁছেছে। অর্থাৎ বিধানসভা নির্বাচনের আগে হরিয়ানায় একদিকে যেমন বিরোধীরা ভেঙে চুরমার হয়েছে, অন্যদিকে শাসক দল বিজেপি রাজ্যে প্রভাব ক্রমশ বাড়িয়ে চলেছে।
তবে মনোহরলাল খাট্টারের সরকার বিগত পাঁচ বছর যে বিরাট কোনও সাফল্য পেয়েছে তা বলা যাবে না। বরং জাঠদের সংরক্ষণ আন্দোলনে নাজেহাল মনোহরলাল খাট্টারের অপসারণের ভাবনা দিল্লিতে পর্যন্ত উঠে এসেছিল। রাম-রহিম-বাবাকে কেন্দ্র করে হরিয়ানা উত্তাল হলে যেভাবে মনোহরলাল খাট্টারের সরকার শেষ পর্যন্ত সামাল দিয়েছিল তা বিজেপির অন্দরমহলে প্রশংসা পেয়েছিল। তবে মনোহরলাল খাট্টার সবসময় বিতর্কিত মন্তব্য করে সর্বদাই সংবাদের শিরোনামে থেকেছেন। কর্মসংস্থানের অভাব, জলকষ্ট, কৃষি সমস্যায় সরকার জর্জরিত। কিন্তু একই সঙ্গে প্রশাসন পরিচালনায় স্বচ্ছতা, দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াইকে কেন্দ্র করে মনোহরলাল খাট্টারের সরকারের জনমনে ভালো ভাবমূর্তি রয়েছে। অতীতে ভজনলাল, দেবীলাল, চৌতালা, হুড্ডা সরকারের বিরুদ্ধে একাধিক দুর্নীতির অভিযোগ উঠলেও মনোহরলাল খাট্টারের সরকারের বিরুদ্ধে কিন্তু পাঁচ বছরে তেমন কোনও বড় দুর্নীতির অভিযোগ নেই। বিজেপি এবারের নির্বাচনে হরিয়ানার রাজনীতিতে চলে আসা পরিবারতন্ত্র এবং ভজনলাল, দেবীলাল, চৌতালা, হুড্ডা সরকারের বিরুদ্ধে ওঠা দুর্নীতির অভিযোগগুলো নিয়ে ব্যাপক প্রচারের পাশাপাশি মনোহরলাল খাট্টারের সরকারের স্বচ্ছ ভাবমূর্তিকেও ভোটারদের সামনে তুলে ধরছে।
লোকসভা নির্বাচনের নিরিখে রাজ্যে ৯০টি বিধানসভার আসনের মধ্যে ৭৯টি আসনে বিজেপি এগিয়ে রয়েছে। বিজেপির প্রাপ্ত ভোট ছিল ৫৮ শতাংশ। অন্যদিকে কংগ্রেস ২৮ শতাংশ ভোট পেয়েছিল ও মাত্র ১০ টি বিধানসভা কেন্দ্রে এগিয়ে ছিল। লোকসভা নির্বাচনের পর কাশ্মীরের ৩৭০ ধারার বিলোপ, তিন তালাক বাতিল বিল সংসদে পাশ করানো, মোদির আমেরিকা সফরের পর হরিয়ানার মানুষ এখনই সরকারের বিরুদ্ধে ভোট দেবেন বলে মনে হয় না। ২১ অক্টোবর হরিয়ানার ১ কোটি ৮৪ লক্ষ ভোটারের অনেকেই রাজ্যে দ্বিতীয়বারের জন্য বিজেপির পক্ষে রায় দিতে পারে বলে সমস্ত জনমত সমীক্ষায় উঠে এসেছে। বিজেপির প্রার্থী তালিকাতেও রয়েছে চমক। দুইজন কুস্তিগির—ববিতা ও যগেশ্বর যেমন রয়েছেন, তেমনি রয়েছেন প্রাক্তন ভারতীয় হকি টিমের ক্যাপ্টেন সন্দীপ সিং। বহুমুখী লড়াইয়ে বিরোধী ভোটের বিভাজনের সুবিধে বিজেপিকে অতিরিক্ত সুবিধা দিতে পারে। ৯০ আসনের বিধানসভায় সর্বমোট ১১৬৮ জন প্রার্থী নির্বাচনী প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অবতীর্ণ হয়েছেন। ফল ২৪ অক্টোবর।
 লেখক রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক
17th  October, 2019
ধর্মীয় গোঁড়ামির কাছে কি শেষে
হার মানবে করোনা বিরোধী লড়াই?
হিমাংশু সিংহ

 এই ভয়ঙ্কর মহামারীর দিনে দিল্লির নিজামুদ্দিনে লকডাউন ভেঙে প্রায় সাড়ে তিন হাজার মানুষের জমায়েত থেকে মানবসভ্যতার কী লাভ হল? কিংবা গত বৃহস্পতিবার বালুরঘাটে রামনবমীর ভিড়ে ঠাসা মেলায়? সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউয়ের রামমন্দিরের সামনে মানুষের লম্বা লাইনে?
বিশদ

আত্মঘাতী খেলা
তন্ময় মল্লিক

লড়াইটা আমরা কি ক্রমশই কঠিন করে ফেলছি। লকডাউন ঘোষণার পর সপ্তাহ ঘুরতে না ঘুরতেই লড়াইকে হাল্কা চালে নেওয়ার প্রবণতা স্পষ্ট। আর সেটা এই মুহূর্তে রুখে দিতে না পারলে সর্বনাশ অনিবার্য। ইতালি, আমেরিকা, স্পেনের রিপ্লে দেখতে হবে ভারতেও। প্রথমদিকে লকডাউন মানার যে মানসিক দৃঢ়তা আমরা দেখাতে পেরেছিলাম, দিন দিন তা শিথিল হচ্ছে।
বিশদ

04th  April, 2020
হাঁটার গল্প
সমৃদ্ধ দত্ত 

অনেকবার আবেদন করেও আধার কার্ড পায়নি রতু লাল। রেশন কার্ডের সঙ্গে আধার কার্ড যুক্ত না করা হলে রেশনও পাওয়া যায় না। সুতরাং সে রেশন পায় না। তার খুব দুঃখ ছিল, সরকারের কোনও কাগজ তার কাছে নেই বলে। সেই কষ্ট ঘুচল। অবশেষে করোনা ভাইরাসের দৌলতে এই প্রথম সরকারিভাবে একটি স্বীকৃতি পেল রতু লাল। কোনও কাগজ, সার্টিফিকেট নয়। আরও স্পষ্ট, আরও সোজাসুজি।   বিশদ

03rd  April, 2020
তাল কেটে দিল দিল্লি একাই
হারাধন চৌধুরী

একটি মাত্র শব্দ। করোনা। সারা পৃথিবীর শিরোনাম দখল করেছে। খবরের কাগজের প্রথম পাতা। বিনোদনের পাতা। খেলার পাতা। টেলিভিশনের নিউজ চ্যানেল। সব রকম সোশ্যাল মিডিয়া। এমনকী সরকারি, বেসরকারি বিজ্ঞাপনগুলিও আজ করোনাময়! সকাল থেকে ঘুমোতে যাওয়ার আগে পর্যন্ত আমাদের কুশলাদি বিনিময়ের বিস্তৃত সংস্কৃতিতেও করোনা ভাগ বসিয়েছে পুরোমাত্রায়।  বিশদ

02nd  April, 2020
লকডাউনেই থামবে করোনার অশ্বমেধের ঘোড়া
সন্দীপন বিশ্বাস

 এ এক অন্য পৃথিবী। এই পৃথিবী দেখার জন্য আমরা কেউই প্রস্তুত ছিলাম না। কিন্তু হঠাৎই বিনা মেঘে বজ্রপাতের মতো অতি দ্রুত আমরা মুখোমুখি হলাম এই অন্য পৃথিবীর। যেখানে গাছের পাতা ঝরার মতোই ঝরে পড়ছে মানুষের প্রাণ। বিশদ

01st  April, 2020
ঘরে থাকতে অক্ষম যে ভারত
শান্তনু দত্তগুপ্ত

 রণবীর সিং। বয়স ৩৮ বছর। ডেলিভারি এজেন্টের কাজ করতেন দিল্লিতে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দেশজুড়ে লকডাউন ঘোষণার পর হাঁটতে শুরু করেছিলেন তিনি। জাতীয় সড়ক ধরে। যেভাবে হোক গ্রামে পৌঁছতে হবে। গ্রাম মানে মধ্যপ্রদেশের কোথাও একটা... দিল্লি থেকে বহুদূর।
বিশদ

31st  March, 2020
ভীরু এবং আধখেঁচড়া
ব্যবস্থা, তবু স্বাগত
পি চিদম্বরম

গত ১৯ মার্চ, শুক্রবার প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা করলেন যে ২২ মার্চ, রবিবার দেশজুড়ে ‘জনতা কার্ফু’ পালন করা হবে। আমি ভেবেছিলাম প্রধানমন্ত্রী জল মাপছেন, জনতা কার্ফুর শেষে তিনি নানা ধরনের লকডাউন ঘোষণা করবেন। কিন্তু রবিবার কোনও ঘোষণা শোনা গেল না। বিশদ

30th  March, 2020
 করোনা যুদ্ধের অক্লান্ত সৈনিক ডাক্তারবাবুরা,
দোহাই ওদের গায়ে আর কেউ হাত তুলবেন না
হিমাংশু সিংহ

পৃথিবীব্যাপী এক ভয়ঙ্কর যুদ্ধ চলছে। অদৃশ্য জৈবযুদ্ধ। এলওসিতে দাঁড়িয়ে মেশিনগান হাতে কোনও সেনা নয়, রাফাল নিয়ে শত্রু ঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলাও নয়। হাসপাতালের আইসিইউতে নিরস্ত্র ডাক্তারবাবুরা বুক চিতিয়ে এই নির্ণায়ক যুদ্ধ লড়ছেন রাতের পর রাত ক্লান্তিহীন। বিশদ

29th  March, 2020
এ লড়াই বাঁচার লড়াই,
এ লড়াই জিততে হবে
তন্ময় মল্লিক

 এখন দোষারোপের সময় নয়। এখন আঙুল তোলার সময় নয়। এখন সমালোচনার সময় নয়। এখন লড়াইয়ের সময়। এ এক কঠিন লড়াই। এ লড়াই বাঁচার লড়াই। এ লড়াই জিততে হবে।
বিশদ

28th  March, 2020
মিসাইল বানানোর চেয়ে ডাক্তার
তৈরি অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ
মৃণালকান্তি দাস

লিউয়েনহুক যখন সাড়ে তিনশো বছর আগে আতশ কাঁচের নীচে কিলবিল করা প্রাণগুলোকে দেখতে পেয়েছিলেন, তখনও তিনি জানতেন না যে তিনি এক নতুন দুনিয়ার সন্ধান পেয়ে গিয়েছেন। তিনিই প্রথম আণুবীক্ষণিক প্রাণের দুনিয়াকে মানুষের সামনে উন্মোচিত করেন। ওই ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র প্রাণগুলোর নাম দেন ‘অ্যানিম্যালকুলস’। বিশদ

27th  March, 2020
করোনা ছুটছে গণিতের অঙ্ক মেনে,
থামাতে হবে ‘হাতুড়ি’র ঘা দিয়েই
ডাঃ সৌমিত্র ঘোষ

 জানেন কি, গণিতের নিয়ম মেনেই ভারত সহ গোটা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ছে নোভেল করোনা ভাইরাস? একজন আক্রান্ত থেকে গুণিতক হারে অন্যদের মধ্যে ছড়াচ্ছে এই মারণ ভাইরাস! আর অসতর্কতার কারণে মাত্র এক-দু’সপ্তাহে আক্রান্তের সংখ্যা এক ঝটকায় অনেকটা বাড়ছে। ঠিক যেমন হয়েছে চীন, ইতালি, স্পেনের মতো দেশগুলিতে।
বিশদ

27th  March, 2020
পাহাড়প্রমাণ চ্যালেঞ্জ, অস্ত্র নাগরিক সচেতনতা
শান্তনু দত্তগুপ্ত

ডাঃ সুশীলা কাটারিয়া। জাতির উদ্দেশে ভাষণে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি যাঁদের জন্য পাঁচটা মিনিট সময় বের করার আর্জি জানিয়েছিলেন, ডাঃ কাটারিয়া তাঁদেরই মধ্যে একজন। গুরুগ্রামে একটি হাসপাতালের ইন্টারনাল মেডিসিনের ডিরেক্টর তিনি। বয়স ৪২ বছর। গত ৪ মার্চ যখন তাঁকে বলা হয়েছিল, আপনার দায়িত্বে ১৪ জন ইতালীয় পর্যটককে ভর্তি করা হচ্ছে, তখনও তিনি রোগের নাড়িনক্ষত্র ভালোভাবে জানেন না। 
বিশদ

24th  March, 2020
একনজরে
সংবাদদাতা, রায়গঞ্জ: করোনায় মৃতদের দেহ দাহ করা হবে স্থানীয় শ্মশানে, এই আশঙ্কায় শ্মশানঘাটের চারদিকের রাস্তা আটকে ঘণ্টা দুয়েক বিক্ষোভ দেখালেন স্থানীয় বাসিন্দারা। শনিবার সকালে ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর দিনাজপুর জেলার রায়গঞ্জে। পরে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের হস্তক্ষেপে অবরোধ উঠে যায়।   ...

  নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও ছড়িয়েছিল। সেটিকে অবশ্য সরকারি মহল থেকেই ‘ভুয়ো’ বলা হয়েছে। ওই ভিডিওতে ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব করোনা তাড়ানোর জন্য কয়েকজন সাধুর সঙ্গে নাচ-গান করছেন বলে দেখানো হয়। ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: করোনা বিপর্যয়ের জেরে এ রাজ্যের বাসিন্দা প্রায় দু’লক্ষ মানুষ আটকে রয়েছেন দেশের বিভিন্ন প্রান্তে। এদের মধ্যে পরিযায়ী শ্রমিকের সংখ্যা দেড় লাখের কাছাকাছি। ...

বিএনএ, তমলুক: লকডাউনের মধ্যেই শুক্রবার রাতে চণ্ডীপুর থানার হাঁসচড়ায় একটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের ভল্ট খুলে ৩৪লক্ষ টাকা চুরি করে দুষ্কৃতীরা চম্পট দেয়। চাবি ব্যাঙ্কে থাকায় দুষ্কৃতীদের ভল্ট ভাঙতে হয়নি।   ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যার্থীরা পড়াশোনার ক্ষেত্রে বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা পাবে। নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস বাড়বে। অতিরিক্ত চিন্তার জন্য উচ্চ ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯০৮- রাজনীতিক জগজীবন রামের জন্ম
১৯১৬- মার্কিন অভিনেতা গ্রেগরি পেকের জন্ম
১৯৩২ - বিশিষ্ট বাঙালী সাহিত্যিক প্রভাতকুমার মুখাপাধ্যায়ের মত্যু
১৯৫৭- কেরলে প্রথম ক্ষমতায় এলেন কমিউনিস্টরা
১৯৯৩- বলিউডের অভিনেত্রী দিব্যা ভারতীর মৃত্যু
২০০০- রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী কণিকা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মৃত্যু
২০০৭- সাহিত্যিক লীলা মজুমদারের মৃত্যু





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৫.২৪ টাকা ৭৬.৯৬ টাকা
পাউন্ড ৯২.৫১ টাকা ৯৫.৮২ টাকা
ইউরো ৮১.০৩ টাকা ৮৪.০৪ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
04th  April, 2020
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪১,৮৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৯,৭৩০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪০,৩৩০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৮,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৮,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
22nd  March, 2020

দিন পঞ্জিকা

২২ চৈত্র ১৪২৬, ৫ এপ্রিল ২০২০, রবিবার, (চৈত্র শুক্লপক্ষ) দ্বাদশী ৩৪/৫০ রাত্রি ৭/২৫। মঘা ২৩/৪০ দিবা ২/৫৭। সূ উ ৫/২৯/১৫, অ ৫/৪৯/৩৫, অমৃতযোগ দিবা ৬/১৮ গতে ৯/৩৬ মধ্যে। রাত্রি ৭/২২ গতে ৮/৫৬ মধ্যে। বারবেলা ১০/৭ গতে ১/১২ মধ্যে। কালরাত্রি ১/৬ গতে ২/৩৪ মধ্যে।
২২ চৈত্র ১৪২৬, ৫ এপ্রিল ২০২০, রবিবার, দ্বাদশী ২৫/৩১/০ দিবা ৩/৪৩/১২। মঘা ১৪/৫০/৩৮ দিবা ১১/২৭/৩। সূ উ ৫/৩০/৪৮, অ ৫/৫০/৫। অমৃতযোগ দিবা ৬/১৫ মধ্যে ও ১২/৫২ গতে ১/৪১ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/২২ গতে ৮/৫৬ মধ্যে। বারবেলা ১০/৮/২ গতে ১১/৪০/২৭ মধ্যে, কালবেলা ১১/৪০/২৭ গতে ১/১২/৫১ মধ্যে।
 ১১ শাবান

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
ভূমিকম্প অনুভুত অসমে 
বিশ্বজুড়ে করোনা আতঙ্কের মাঝে এবার ভূমিকম্প অনুভুত হল অসমে। রিখটার ...বিশদ

11:39:32 PM

নিরোর কথা শুনেছিলাম, প্রধানমন্ত্রীকে দেখলাম, ট্যুইট ফিরহাদ হাকিমের 
প্রধানমন্ত্রীর ডাকে রবিবার রাত ন’টার সময় ন’মিনিট ঘরের আলো জ্বালিয়ে ...বিশদ

10:04:34 PM

৯ মিনিটের ‘লাইট আউট’-এর জন্য বিদ্যুৎ গ্রিডে কোনও প্রভাব পড়েনি: কেন্দ্রীয় বিদ্যুৎমন্ত্রী আর কে সিং 

09:45:20 PM

দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৪১১১, মৃত ১২৬: পিটিআই 

09:20:30 PM

করোনা মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে জোটবদ্ধ হয়ে লড়াই করুন, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্দেশে বার্তা রাজ্যপাল জগদীপ ধনকারের 

09:18:00 PM

করোনা: উত্তরপ্রদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ৪৪
উত্তরপ্রদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন আরও ...বিশদ

08:33:36 PM