Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

মোদি সরকারের অভূতপূর্ব কাশ্মীর পদক্ষেপ পরবর্তী ভারতীয় কূটনীতির সাফল্য-ব্যর্থতা
গৌরীশঙ্কর নাগ

গত ৫ আগস্ট ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারা লোপ করে মোদি-শাহ জুটি এক অর্থে মাস্টার্স স্ট্রোক দেওয়ার পর একমাস অতিক্রান্ত। অথচ বিতর্কের পারদ নামার লক্ষণ এখনও পর্যন্ত নেই। কেউ বলছেন এটা একতরফা। আবার কেউ আরও কড়া সুরে এটাও বলছেন যে, কাশ্মীর ভারতের অভ্যন্তরীণ উপনিবেশ। সর্বোচ্চ আদালতে কড়া নাড়া থেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রায় প্রতিদিনই কাশ্মীর নিয়ে ঝড় তোলা কোনও না কোনও প্রতিবেদন আমরা দেখতে পাচ্ছি। এই অবস্থায় এটা অস্বীকার করার উপায় নেই যে, ৩৭০ ধারা বিলোপ পর্বের প্রাথমিক অবস্থাটা আমরা অত্যন্ত উৎকণ্ঠার মধ্য দিয়ে অতিক্রম করেছি। এই উদ্বেগের প্রধান কারণ অবশ্যই ভারতের প্রধান শত্রু—পাকিস্তানের দিক থেকে ধেয়ে আসা একের পর এক উস্কানিমূলক বাচনিক শক্তিশেল; তার কথায় আমরা পরে আসব, তবু কেবল সেটাই নয়, বরং চীনা ড্রাগনের কপালেও চিন্তার ভাঁজ ফেলেছে ভারতের এই সাংবিধানিক পরিবর্তন। বস্তুত দক্ষিণ এশিয়ার ভৌগোলিক মানচিত্রে চীন যখন তার অবস্থানকে আরও সুদৃঢ় করতে উদ্‌গ্রীব, তখন ভারতের এই পদক্ষেপে চীনের ইমপেরিয়াল মনোভাব যেন একটা মোক্ষম ধাক্কা খেয়েছে।
সেই ইগোর আঘাত থেকে চীনের দিক থেকে ধেয়ে এসেছে তিনটি প্রতিক্রিয়া: (১) চীন মনে করছে এই পরিবর্তনের ফলে তার ভৌগোলিক সার্বভৌমত্ব ক্ষুণ্ণ হয়েছে, বিশেষত সংখ্যাগুরু বৌদ্ধধর্মাবলম্বী সন্নিবিষ্ট লাদাখ-কে ভারত নতুন কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল বলে ঘোষণা করায় চীনের কাছে মনে হয়েছে ভারতের এই চাল তিব্বত ইস্যুকে ইন্ধন জোগাবে। অথচ খুঁটিয়ে দেখলে আমরা দেখব ভারত স্বাধীনতার পর থেকে তিব্বত নিয়ে যতটা ভেবেছে, তার বিন্দুমাত্র চিন্তাও সে লাদাখ-নীতি প্রণয়নে ব্যয় করেনি। যদি তাই হতো তাহলে পূর্ব লাদাখের বিস্তৃত ক্ষেত্র, এমনকী যা কৈলাসের মানস সরোবর পর্যন্ত সম্প্রসারিত, তাকে নিয়ে এখনকার মতো ভারতকে নতুন করে চিন্তা করতে হতো না। (২) ভারত-পাক বিবাদে চীন খানিকটা বড়দার মতো উভয়পক্ষকে সংযত হতে বলেছে। (৩) এখানেও না থেমে চীন ভারতের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদেও নালিশ ঠুকেছে।
অবশ্য এসব কিছুকে উপচে ভারতের কপালে চিন্তার ভাঁজ ফেলেছে আরও তিনটি কড়া আন্তর্জাতিক প্রতিক্রিয়া। প্রথমেই বলা যেতে পারে ইরানের কথা। ইরানের কথা আসতেই ভারতের প্রাচীন সভ্যতার সঙ্গে এই অঞ্চলের বাণিজ্যিক যোগসূত্রের প্রসঙ্গটি এসে পড়ে। আবার ভারত বরাবরই তার অপরিশোধিত তেল আমদানির সিংহভাগই ইরানের থেকে করে আসছে। এই ভারত-ইরান বাণিজ্যিক বোঝাপড়া এতটাই উভয় পক্ষের বিশ্বাসের উপর দাঁড়িয়ে রয়েছে যে, ভারতীয় মুদ্রায় তেলের দাম নিতে ইরান রাজি হয়ে যায়। শুধু তাই নয়, পাকিস্তানকে বাইপাস করে আফগানিস্তানে পৌঁছানোর ভারতীয় নকশার বড় সহায় ইরানের চাবাহার বন্দর-শহর। তাছাড়া গত জুলাই মাসে হরমুজ স্ট্রেটে ইরান যখন একটি ব্রিটিশ তৈল জাহাজকে আটক করে, যা নিয়ে পারস্য উপসাগরীয় অঞ্চলে সামরিক তৎপরতা ইরান কর্তৃক মার্কিন নজরদারি ড্রোনকে গুলি করে ভূপতিত করার বিতর্কে নতুন ইন্ধন জোগায়, সেই অবস্থাতেও ভারতীয় বিদেশ মন্ত্রকের আহ্বানে সাড়া দিয়ে রিয়াধ নয়জন ভারতীয় নাবিককে মুক্তি দিয়েছিল। এহেন ইরানের কাছে যেটা প্রত্যাশিত ছিল না, সেই অনভিপ্রেত বার্তাই ধেয়ে আসে যখন ভারত ৩৭০ ধারা লোপ করে। খোমেইনির ইরান ভারতের পদক্ষেপে উষ্মা ব্যক্ত করতে দ্বিধা করেনি।
দ্বিতীয়ত, ভারতের পদক্ষেপকে সমালোচনা করতে দেখা গিয়েছে এরদোগানের তুর্কিকে। তুর্কি কেবল ইউরোপীয় রাষ্ট্রগুলির মধ্যে অনন্য স্থান অধিকার করেই নয়, বরং ইসলামিক রাষ্ট্রগুলির মধ্যেও তার বিশেষ প্রভাব রয়েছে।
তৃতীয়ত, ভারতের দিক থেকে বিশেষ মাথাব্যথার কারণ হয়ে উঠেছিল মার্কিন রাষ্ট্রপ্রধান ট্রাম্পের প্রতিক্রিয়া। দক্ষিণ এশিয়ায়, বিশেষত আফগানিস্তানে তালিবানের উত্থানের সঙ্গে সঙ্গে যখন মার্কিন বিদেশনীতি মুখ থুবড়ে পড়ছে, তখন খানিকটা ইমরানের পাকিস্তানকে তোয়াজ করতেই ট্রাম্প কাশ্মীর নিয়ে মধ্যস্থতার প্রস্তাব দিয়ে বসেন। ভারতের দিক থেকে এর তীব্র প্রতিক্রিয়া ঘটে ট্রাম্পের ২৩ জুলাইয়ের বক্তব্যকে কেন্দ্র করে যখন আমাদের প্রধানমন্ত্রীকে উদ্ধৃত করে বলা হয় মোদির কথাতেই তিনি এমন প্রস্তাব দিয়েছেন। ফলে কাশ্মীরকে কেন্দ্র করে হঠাৎ এতটাই পারদ চড়তে শুরু করেছিল যে, কেবল সামরিক আঁট-দরাজে আর কাজ হচ্ছিল না। সংবিধান সংশোধনের রাজনৈতিক ভাবনার সূত্রপাত সেখান থেকেই।
কিন্তু সঙ্গে সঙ্গে যেটা উচিত ছিল তা হল ভারতের নমনীয় শক্তির ব্যবহার তথা কূটনৈতিক কাঠামোর মাধ্যমে এই পদক্ষেপের সমর্থনে পোক্ত জমি তৈরি করা। ৩৭০ ধারার মতো এত বড় মাপের পদক্ষেপ গ্রহণের পূর্ব মুহূর্তে ভারত আমেরিকা, রাশিয়ার মতো বৃহৎ শক্তিগুলিকে অবহিত করলেও ভারতের উচিত ছিল আরও গুছিয়ে ‘হোমওয়ার্ক’ করা। কিন্তু বাস্তবে আমরা দেখলাম এই অসময়ে ভারতের ‘ক্রাইসিস ম্যানেজার’ হিসেবে অবতীর্ণ হলেন বিদেশমন্ত্রী জয়শঙ্কর ও জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল। দোভাল যখন কাশ্মীরে, তখন জয়শঙ্কর কূটনৈতিক দৌত্যের জোয়াল কাঁধে নিয়ে হাজির চীনে। তাতেও যে চিঁড়ে ভেজেনি, তার প্রমাণ মিলল যখন রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হোক—চীনের এমন প্রস্তাবে বেশ বিব্রতভাবেই, যদিও মুখে হাসি নিয়ে, কাশ্মীর প্রসঙ্গে ভারতের অবস্থান অত্যন্ত ঋজুতার সঙ্গে ব্যাখ্যা করলেন ভারতের স্থায়ী প্রতিনিধি সৈয়দ আকবরউদ্দিন।
বস্তুত একটা সময় মনে হয়েছিল সরকার কতটা এই নার্ভের উপর চাপ নিতে প্রস্তুত? কারণ কাশ্মীরকে ঘিরে কেবল উপত্যকার রাজনীতিই যে আবর্তিত হয়েছে—এমনটা নয়, বরং গত সাত দশকে কাশ্মীর নীতি যেভাবে কেন্দ্র-রাজ্য পারস্পরিক দোষারোপের ও রাজনীতির পাশা খেলার একটা মুখ্য ঘুঁটি হয়ে উঠেছিল, তাতে করে কাশ্মীরবাসীর উন্নয়ন তো দূর অস্ত, বরং ‘দশচক্রে ভগবান ভূতের’ মতো অবস্থা হয়েছিল। পরিস্থিতি যে হাতের বাইরে চলে যাচ্ছিল তা বোঝা গিয়েছিল পুলওয়ামায় ভারতীয় সেনা কনভয়ের উপর জঙ্গি-হামলার ঘটনার মধ্য দিয়ে। আফগানিস্তানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শক্তি যতটাই দুর্বল হয়ে পড়ছিল, ততই আমরা দেখছিলাম কাশ্মীরের যে ভাবাবেগ তাকে কাজে লাগিয়ে সেখানে ইসলামিক ক্যালিফেট গড়ে তোলার ভয়ঙ্কর অপচেষ্টা। ফলে কেন্দ্রীয় সরকারের মোক্ষম চালের মাধ্যমে যখন ৩৭০ ধারা রদ হল, তখন অচিরে বোঝাই গিয়েছিল যে সঙ্কট কাটিয়ে অচিরে উপত্যকায় নতুন সূর্যোদয় হবে। কিন্তু বাহ্যিক পরিস্থিতিকে খুব বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে মোকাবিলা করার জন্য মনে হয় না এতটা জোরালো পরিকল্পিত আয়োজন আমাদের ছিল। এর কারণ:
প্রথমত, আমরা বারবার আমেরিকাকে বোঝাতে ব্যর্থ হয়েছি যে, দক্ষিণ এশিয়ায় পাকিস্তানকে ভারতের সঙ্গে এক আসনে বসানো চলে না।
দ্বিতীয়ত, ভারতের এই পদক্ষেপের ঠিক পরে পরেই পাকিস্তানের তরফে একাধিক পদক্ষেপ করা হয়, যার মধ্যে ভারতের সঙ্গে দ্বি-পাক্ষিক বাণিজ্যিক সম্পর্ককে বাতিল করা থেকে ভারতীয় কনভয়ের বহিষ্কার, সমঝোতা এক্সপ্রেস, বাস-সার্ভিস বাতিলের মতো একতরফা শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের হিড়িক আমরা লক্ষ করি। এখানেও না থেমে পাকিস্তান তার ঘনীভূত অর্থনৈতিক সঙ্কট থেকে দৃষ্টি ঘোরাতে ভারতের বিরুদ্ধে পুনরায় জঙ্গি আক্রমণের হুমকি দিতে থাকে। কাশ্মীরের ভাবাবেগকে কাজে লাগিয়ে পাঞ্জাব সীমান্তে কর্তারপুর করিডরকে খালিস্তানি জঙ্গিদের মুক্তাঞ্চলে পরিণত করার চরম হুঁশিয়ারিও দিতে থাকে।
তৃতীয়ত, পরিস্থিতি যথেষ্ট উত্তপ্ত হয়ে উঠলে শেষ অবধি আসরে নামতে দেখা গেল প্রবীণ রাজনাথ সিংকে। মঞ্চে অবতীর্ণ হয়েই তিনি কূটনৈতিক ভঙ্গিমায় এমন বার্তাও দিলেন যে, ভারত প্রয়োজনে পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহারের ক্ষেত্রে তার স্ব-ঘোষিত 'No First use doctrine' থেকে সরে আসতে পারে।
চতুর্থত, উপমহাদেশের রাজনীতিতে কাশ্মীর ইস্যুর মহিমা মালুম হল যখন আমরা দেখলাম ভারতের এ-স্যাট উৎক্ষেপণ ও চন্দ্রযান-২ অভিযান পাবলিক ডোমেনে আলোচনার মধ্যে যে বৌদ্ধিক ঝোঁক সম্প্রতি নিয়ে এসেছিল, তার রং পুরো পাল্টে গেল। পুনরায় আমরা যেন একটা নিরাপত্তা সঙ্কটের মধ্যে বাস করছি এমন হবসীয় বাতাবরণ প্রকাণ্ড পর্দার মতো আমাদের অর্থনীতির স্বাস্থ্য নিয়ে চিন্তা, আঞ্চলিক সহযোগিতা যা বাণিজ্যিক ভ্যালু চেনের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে যুক্ত—এইসব বিষয়গুলোকে মুহূর্তে যেন অন্তরালে ঠেলে দিল। বলা বেশ কঠিন ভারতীয় কূটনীতি সেই মেঘাচ্ছন্ন আকাশে কতটা আলোর দিশা দেখাতে পারবে।
 লেখক অধিকর্তা, অতীশ দীপঙ্কর শ্রীজ্ঞান সেন্টার ফর সাউথ এশিয়ান স্টাডিজ, সিধো-কানহো-বীরসা বিশ্ববিদ্যালয়
14th  September, 2019
মূল্যবোধের রাজনীতি ও
মহারাষ্ট্রের কুর্সির লড়াই
হিমাংশু সিংহ

আজকের নির্বাচনী রাজনীতি যে কতটা পঙ্কিল ও নোংরা তারই জ্বলন্ত প্রমাণ আজকের মহারাষ্ট্র। সঙ্কীর্ণ স্বার্থসর্বস্ব রাজনীতিতে ক্ষমতা দখলের নেশায় ছোটবড় প্রতিটি রাজনৈতিক দলই আজ মরিয়া। মহারাষ্ট্রের ফল বেরনোর পর গত তিন সপ্তাহের রাজনীতির নাটকীয় ওঠাপড়া সেই অন্ধকার দিকটাকেই বড় প্রকট করে তুলেছে। ভোটের ফল ও কে মুখ্যমন্ত্রীর কুর্সিতে বসবেন তা নিয়ে দুই পুরনো জোট শরিকের দ্বন্দ্ব যে দেশের বাণিজ্য পীঠস্থান মুম্বই তথা মহারাষ্ট্রকে এমন নজিরবিহীন সঙ্কটে ফেলবে, তা কে জানত? যে জোট পাঁচ বছর ধরে রাজ্য শাসন করল এবং এবারও গরিষ্ঠতা পেল, সেই জোটই ভেঙে খান খান!
বিশদ

ঘর ওয়াপসি ও কিছু প্রশ্ন
তন্ময় মল্লিক

 ঘর ওয়াপসি। ঘরে ফেরা। ‘ভাইজান’ সিনেমার ছোট্ট মুন্নির ঘরে ফেরার কাহিনীর দৌলতে ‘ঘর ওয়াপসি’ এখন আমবাঙালির অতি পরিচিত শব্দ। সেই পরিচিত শব্দটি অতি পরিচিতির মর্যাদা পেয়েছে সাম্প্রতিক রাজনৈতিক নেতাদের একাংশের ঘন ঘন জার্সি বদলের দৌলতে।
বিশদ

16th  November, 2019
জল বেড়েছে, বোধ বাড়েনি
রঞ্জন সেন

 সমুদ্রের জলস্তর বাড়ার ফলে পৃথিবীর বহু উপকূলবর্তী দেশ ও দ্বীপ বিপন্ন হবে বলে পরিবেশবিজ্ঞানীরা আশঙ্কা প্রকাশ করছেন। তাঁরা এটাও বলছেন আমরা সবাই মিলে এবং রাষ্ট্রনায়কেরা চাইলে গ্রিনহাউস গ্যাস নিঃসরণ কমিয়ে এই অবস্থার মোকাবিলা করতে পারি। বিশদ

16th  November, 2019
সংবিধানই পথ
সমৃদ্ধ দত্ত

 তিন বছর ধরে সংবিধান রচনার কাজ অবশেষে যখন সমাপ্ত হল, তখন ১৯৪৯ সালের ২৫ নভেম্বর ভারতীয় সংবিধানের চূড়ান্ত খসড়া পেশ করে সংবিধান-সভায় তাঁর সর্বশেষ বক্তৃতায় সংবিধান রচনা কমিটির চেয়ারম্যান ড.ভীমরাও আম্বেদকর আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন, ভারতের এই সংবিধানের মূল সুর এবং গণতন্ত্র কি আদৌ শেষ পর্যন্ত আগামী দিনে রক্ষা করা সম্ভব হবে? বিশদ

15th  November, 2019
পঞ্চাশোর্ধ্বে বানপ্রস্থ?
অতনু বিশ্বাস

পঞ্চাশ ছুঁই-ছুঁই হয়ে একটা প্রায় বৃদ্ধ-বৃদ্ধ ভাব এসেছে আমার মধ্যে। সেটা খুব অস্বাভাবিক হয়তো নয়। এমনিতেই চারপাশের দুনিয়াটা বদলে গিয়েছে অনেক। চেনা-পরিচিত বাচ্চা বাচ্চা ছেলেমেয়েগুলো হঠাৎ যেন বড় হয়ে গিয়েছে। আমাকে ডাকনাম ধরে ডাকার লোকের সংখ্যাও কমে যাচ্ছে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে। বুড়ো হবার সব লক্ষণ একেবারে স্পষ্ট। 
বিশদ

14th  November, 2019
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দৃঢ় নীতির
কাছে ভারতের স্বার্থটাই সবার উপরে
অমিত শাহ

 মোদিজির নেতৃত্বাধীন উন্নতশির ভারতের কথা বিবেচনা করে আরসিইপি সদস্য রাষ্ট্রগুলি বেশিদিন আমাদের এড়িয়ে থাকতে পারবে না। তারা আমাদের শর্তে ভারতের সঙ্গে বাণিজ্যে রাজি হবে। এর মধ্যে আমরা এফটিএ মারফত আসিয়ান রাষ্ট্রগুলির সঙ্গে অর্থনৈতিক সম্পর্করক্ষায় সফল হয়েছি। আরসিইপি প্রত্যাখ্যান করে চীনের সম্ভাব্য গ্রাস থেকে আমাদের শিল্পকে আমরা দৃঢ়তার সঙ্গে সুরক্ষা দিতে পেরেছি। আমাদের জন্য ভারতের স্বার্থটাই সবার আগে। বিশদ

13th  November, 2019
ভাষা বিতর্কে জেইই মেনস
শুভময় মৈত্র

পশ্চিমবঙ্গের যে সমস্ত ছাত্রছাত্রী এই ধরনের প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় বসেন, তাঁরা মোটামুটি ভালোভাবেই ইংরেজি পড়তে পারেন। তার জন্যে কংগ্রেস, সিপিএম, তৃণমূল বা বিজেপির কোনও কৃতিত্ব নেই। সারা দেশের মধ্যে বাঙালিরা যে শিক্ষা সংস্কৃতিতে বেশ এগিয়ে আছে সেটা বোঝার জন্যে প্রচুর পরিসংখ্যান আছে, যেগুলো জায়গামতো ছাপা হয় না। বিশেষ করে বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে এরাজ্যের ছেলেমেয়েরা ঐতিহ্যগতভাবে ভালো, ঔপনিবেশিক কারণে ইংরেজিতেও। সেখানে জেইই মেনসের মতো পরীক্ষার প্রশ্ন বাংলায় করতে হবে বলে বাংলার পরীক্ষার্থীদের না গুলিয়ে দেওয়াই মঙ্গল। বিশদ

13th  November, 2019
অস্তাচলে মন্দির রাজনীতি
শান্তনু দত্তগুপ্ত 

সালটা ১৯৯২। লালকৃষ্ণ আদবানির ‘রথযাত্রা’ শুরু হওয়ার ঠিক আগের কথা...। কথোপকথন চলছে বিজেপি নেতার সঙ্গে বজরং দলের এক নেতার। ‘বাবরির কলঙ্ক মুছে দিতে পারবে না?’ বজরং দলের সেই নেতা উত্তর দিলেন ‘আপনার নির্দেশের অপেক্ষাতেই তো বসে আছি। 
বিশদ

12th  November, 2019
প্রেমময় শ্রীকৃষ্ণের মধুর রাসলীলা
চিদানন্দ গোস্বামী

বিশারদ সর্ব বিষয়ে। বাঁশিতে, রথ চালনায়, চৌর্যকর্ম, কূটনীতি, যুদ্ধবিদ্যা, ছলচাতুরি—সবকিছুতেই বিশারদ। আর প্রেমপিরিতে তো মহা বিশারদ। এবং, কলহ বিতর্ক বাগযুদ্ধ যুক্তি জাদু, অপমান উপেক্ষা করতেও কম যায় না। অথচ পরমতম প্রেমিক পুরুষ। হ্যাঁ, এমন প্রেম জানে ক’জনা! আর, সেই প্রেমেও কত না কাণ্ড!  
বিশদ

11th  November, 2019
ক্ষমতায় ফিরে আসার লক্ষ্যে কমনিষ্ঠ পার্টি অব মৃত্যুলোকের নয়া পরিকল্পনা
সন্দীপন বিশ্বাস

হাতের চুরুটটা নিভতে নিভতেও আগুন ছুঁয়ে আছে। আর কমরেট প্রমোদিয়েভ ঝিমোতে ঝিমোতেও জেগে আছেন। ওদিকে কমরেট জ্যোতোভস্কি আরাম কেদারায় হেলান দিয়ে টেবিলে পা তুলে দিয়ে টিভি দেখছেন। একটা গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণার দিকে তাকিয়ে আছেন তিনি। এখনও অন্য কমরেটরা আসেননি। 
বিশদ

11th  November, 2019
সবার হাতে কাজ ছাড়া ‘সবকা বিকাশ’ অসম্ভব, মন্দির-মসজিদে তো পেট ভরবে না
হিমাংশু সিংহ

২০১৯ প্রায় শেষের দিকে। নতুন বছর আসতে আর বাকি দেড় মাসের সামান্য বেশি। বছরের শুরুটায় আপামর দেশবাসী মেতেছিল সাধারণ নির্বাচন নিয়ে। পাঁচবছরের জন্য কে কেন্দ্রে ক্ষমতায় আসবে তা ঘিরে রাজনৈতিক দাপাদাপি আর তরজায় জমজমাট ছিল বছরের শুরুটা। বিশদ

10th  November, 2019
পঞ্চাশোর্ধ্বে বানপ্রস্থ?
অতনু বিশ্বাস

 পঞ্চাশ ছুঁই-ছুঁই হয়ে একটা প্রায় বৃদ্ধ-বৃদ্ধ ভাব এসেছে আমার মধ্যে। সেটা খুব অস্বাভাবিক হয়তো নয়। এমনিতেই চারপাশের দুনিয়াটা বদলে গিয়েছে অনেক। চেনা-পরিচিত বাচ্চা বাচ্চা ছেলেমেয়েগুলো হঠাৎ যেন বড় হয়ে গিয়েছে। আমাকে ডাকনাম ধরে ডাকার লোকের সংখ্যাও কমে যাচ্ছে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে।
বিশদ

09th  November, 2019
একনজরে
সংবাদদাতা, আরামবাগ: বিভিন্ন দাবিতে শনিবার আরামবাগে মিছিল করে সিপিএম। সিপিএমের-১ ও ২ নম্বর এরিয়া কমিটির উদ্যোগে এদিন একটি পথসভাও হয়। আরামবাগের ধামসা বাসস্ট্যান্ডে প্রথমে পথসভা ...

ইন্দোর, ১৬ নভেম্বর: ইনিংস জয়ের হ্যাটট্রিক করে ফেলল ‘টিম ইন্ডিয়া’। গত সিরিজে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে দ্বিতীয় ও তৃতীয় টেস্ট ইনিংসের ব্যবধানে জিতেছিল কোহলি বাহিনী। সাফল্য ...

 কলম্বো, ১৬ নভেম্বর: অপ্রীতিকর নানা ঘটনার মধ্যেই শনিবার সম্পন্ন হল শ্রীলঙ্কার ভোট। আর এই ভোটে শ্রীলঙ্কার দিকে বিশেষ নজর ছিল ভারতের। ভারতের মূল চিন্তা মহিন্দা রাজাপাকসে। যদি তাঁর দল পুনরায় ক্ষমতায় ফেরে, তাহলে তা ভারতের জন্য খুব ভালো হবে না, ...

 দীপ্তিমান মুখোপাধ্যায়। হাওড়া: এবার আর ব্লক অফিসে নয়, গ্রাম পঞ্চায়েতস্তরে জেলা প্রশাসনের সমস্ত বিভাগকে নিয়ে গিয়ে বৈঠক করতে হবে জেলাশাসকদের। বছরে প্রতিটি গ্রাম পঞ্চায়েতে অন্তত তিন থেকে চারবার যাতে এই বৈঠক করা হয়, তা নিশ্চিত করতে হবে। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

উচ্চতর বিদ্যায় আগ্রহ বাড়বে। মনোমতো বিষয় নিয়ে পঠন-পাঠন হবে। ব্যবসা স্থান শুভ। পৈতৃক ব্যবসায় যুক্ত ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

আন্তর্জাতিক সহনশীলতা দিবস
১৮১২ - ‘দ্য টাইমস’ পত্রিকার প্রতিষ্ঠাতা জন ওয়ালটারের মৃত্যু ।
১৮৯০ -অবিভক্ত ভারতে প্রথম সিরাম ভ্যাকসিন ও পেনিসিলিন প্রস্তুতকারক বিশিষ্ট ভেষজ বিজ্ঞানী ও চিকিৎসক হেমেন্দ্রনাথ ঘোষের জন্ম।
১৯৪৬ - বিশ্বে প্রথমবারের মত কৃত্রিমভাবে বৃষ্টিপাত সৃষ্টি করা হয়।
১৯৬৩: ঝাড়খণ্ডে জন্মগ্রহণ করেন অভিনেত্রী মীনাক্ষি শেষাদ্রি
১৯৭১: পাকিস্তানের ক্রিকেটার ওয়াকার ইউনিসের জন্ম
১৯৮৮: এক দশকেরও বেশি সময় পর পাকিস্তানে অনুষ্ঠিত হল অবাধ নির্বাচন। সেই নির্বাচনে দেশের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হলেন বেনজির ভুট্টো

16th  November, 2019




ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.০২ টাকা ৭৩.৫৬ টাকা
পাউন্ড ৯০.০৫ টাকা ৯৪.৯০ টাকা
ইউরো ৭৭.১৩ টাকা ৮১.২৮ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
16th  November, 2019
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,৭৪০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,৭৫৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৭,৩০৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৪,৭০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৪,৮০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৩০ কার্তিক ১৪২৬, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, রবিবার, পঞ্চমী ৩১/১৫ রাত্রি ৬/২৩। পুনর্বসু ৪২/৪৪ রাত্রি ১০/৫৯। সূ উ ৫/৫৪/৩, অ ৪/৪৮/৫৭, অমৃতযোগ দিবা ৬/৩৭ গতে ৮/৪৮ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৩ গতে ২/৩৮। রাত্রি ৭/২৬ গতে ৯/১১ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৮ গতে ১/৩৩ মধ্যে পুনঃ ২/২৪ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ১০/০ গতে ১২/৪৩ মধ্যে, কালরাত্রি ১২/৫৯ গতে ২/৩৯ মধ্যে।
৩০ কার্তিক ১৪২৬, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, রবিবার, পঞ্চমী ২৮/২৫/৫০ সন্ধ্যা ৫/১৭/৫৯। পুনর্বসু ৪১/৫৬/২২ রাত্রি ১০/৪২/১২, সূ উ ৫/৫৫/৩৯, অ ৪/৪৯/১৪, অমৃতযোগ দিবা ৬/৫০ গতে ৮/৫৭ মধ্যে ও ১১/৪৮ গতে ২/৩৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/২৭ গতে ৯/১৪ মধ্যে ১১/৫৩ গতে ১/৪০ মধ্যে ও ২/৩৩ গতে ৫/৫৭ মধ্যে, বারবেলা ১০/০/৪৫ গতে ১১/২২/২৬ মধ্যে, কালবেলা ১১/২২/২৬ গতে ১২/৪৪/৮ মধ্যে, কালরাত্রি ১/০/৪৫ গতে ২/৩৯/৩ মধ্যে।
১৯ রবিয়ল আউয়ল

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
ফের সংঘর্ষবিরতি লঙ্ঘন, জম্মু ও কাশ্মীরের পুঞ্চ সীমান্তে পাক সেনার গোলাগুলি 

12:07:51 PM

হিমাচলের মাণ্ডিতে গাড়ি দুর্ঘটনায় ৩ জনের মৃত্যু 

11:25:00 AM

কসবায় বাইক দুর্ঘটনায় আরোহীর মৃত্যু, জখম আরও ১ 

10:27:59 AM

বিশাখাপত্তনমে গাড়ি দুর্ঘটনা, মৃত ১, জখম ৪ 

10:27:00 AM

শহরে ট্রাফিকের হাল

আজ, রবিবার সকালে শহরের রাস্তাঘাটে যান চলাচল মোটের উপর স্বাভাবিক। ...বিশদ

10:23:00 AM

আজ উত্তরবঙ্গের একাধিক জেলায় বিক্ষিপ্ত বৃষ্টির সম্ভাবনা

09:39:00 AM