Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

জাতির গঠনে জাতীয় শিক্ষানীতি
গৌরী বন্দ্যোপাধ্যায়

অভিধান অনুসরণ করে বলা যায়, পঠন-পাঠন ক্রিয়াসহ বিভিন্ন অভিজ্ঞতালব্ধ মূল্যবোধের বিকাশ ঘটানোর প্রক্রিয়াই শিক্ষা। জ্ঞানকে বলা হচ্ছে অভিজ্ঞতালব্ধ প্রতীতি। শিক্ষা দ্বারা অর্জিত বিশেষ জ্ঞানকে আমরা বিদ্যা বলি। কালের কষ্টিপাথরে যাচাই করে মানুষ আবহমান কাল ধরে নিজ অভিজ্ঞতালব্ধ জ্ঞানরাশিকে পরবর্তী প্রজন্মের জন্য পুস্তকের মধ্যে লিখে সঞ্চিত করে গেছে। বিদ্যাশিক্ষা আমাদের সেই জ্ঞানের সঙ্গে পরিচিত করায়। আমাদের বুদ্ধি মন ইত্যাদিকে গড়ে তোলার সঙ্গে নানা ব্যবহারিক বিদ্যার জ্ঞান মানুষকে জীবিকা নির্বাহ করার উপযোগীও করে তোলে। প্রত্যেক দেশ তার প্রাকৃতিক ও সামাজিক পরিবেশের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে অধিবাসীদের সামগ্রিক বিকাশের লক্ষ্যে নিজেদের শিক্ষানীতি স্থির করে।
শিক্ষাকে জাতির মেরুদণ্ড বলা হয়। তাই দেশের শিক্ষানীতি অত্যন্ত বিচক্ষণতার সঙ্গে স্থির করতে হয়, যাতে জাতির সেই মেরুদণ্ড সবল ও ঋজু হয়। ভারতের মতো বহু ভাষাভাষীর দেশে, এক দেহে লীন হয়ে যাওয়া বহুজাতির দেশে সবার উপযোগী ও জনপ্রিয় এক শিক্ষানীতি স্থির করা অতি কঠিন ব্যাপার। শিক্ষার বিষয় নির্বাচনে তেমন জটিলতা না থাকলেও শিক্ষার মাধ্যম হিসাবে ভাষা নির্বাচনে সর্বভারতীয় শিক্ষানীতি বারবার নানা বাধার সম্মুখীন হয়ে আসছে। এই বিশ্বায়নের যুগে কীভাবে শিক্ষা পেয়ে আমাদের ছেলেমেয়েরা নিজেদের অস্মিতা রক্ষা করে, নিজেদের ব্যক্তিত্বের বিকাশ ঘটিয়ে বিশ্বের সঙ্গে একাত্ম হয়ে উঠতে পারবে তা স্থির করা এক দুরূহ ব্যাপার।
ভাষা মানুষকে যুক্ত করে, ‘বসুধৈব কুটুম্বকম’-এর পথে প্রেরিত করে। পরিস্থিতি ও প্রেক্ষাপটের পরিবর্তনের সঙ্গে মাতৃভাষা ছাড়া অন্য সব ভাষারই গুরুত্বের হ্রাস-বৃদ্ধি ঘটে। যেমন শিক্ষিত ভারতীয়রা আর ফারসি পড়ে না। ভারতে ইংরেজির দাপট থাকলেও ইউরোপের মূল ভূখণ্ডের দেশগুলিতে বা রাশিয়া, চীনসহ মধ্য এশিয়ায় ইংরেজির তেমন দাপট নেই। কথোপকথনের জন্য ভাষার ব্যবধান দূর করতে বর্তমানে নানা প্রযুক্তির উদ্ভব হয়েছে। ভারতে উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে এখনও আমরা ইংরেজির দ্বারস্থ হই, তাই মাধ্যমিক পর্যায়ে এখনও ছাত্রছাত্রীদের এমনভাবে ইংরেজি শেখানো দরকার যাতে তারা উচ্চশিক্ষা গ্রহণের সময় ইংরেজিতে শেখার অসুবিধায় মাঝপথে পড়া ছেড়ে না দেয় বা হীনম্মন্যতায় ভুগে আত্মহত্যা না করে। ইংরেজি শিক্ষা কোন পর্যায়ে রাখা হবে তা অত্যন্ত বিচক্ষণতার সঙ্গে স্থির করা দরকার। রবীন্দ্রনাথ লিখে গেছেন ইংরেজি কাজের ভাষা, ‘ভাবের ভাষা নয়’। তাঁর মতে সেই কাজের ভাষা বাল্যাবস্থায় শিখতে গিয়ে ‘শিশুরা সব কূল হারায়’। না হয় তাদের ‘প্রকৃতির সত্যরাজ্যে প্রবেশ করিবার অবকাশ’, না হয় তাদের ‘সাহিত্যের কল্পনা রাজ্যে প্রবেশ করার ক্ষমতা’। তিনি স্পষ্ট ভাষায় বলেছেন ‘বাঙালির ভাব ইংরেজের ভাষায় তেমন জীবন্তরূপে প্রকাশিত হয় না’। তার ধারণায় ভাষা শিক্ষার সঙ্গে ভাব যুক্ত হলে সমস্ত জীবনযাত্রাই নিয়মিত হতে পারে। সেই সঙ্গে বাংলা পাঠ্যগ্রন্থের মান সম্পর্কে বলেছেন ‘অনভিজ্ঞ ম্যাকমিলান কোম্পানির রচিত, অতি সংকীর্ণ, অতি দরিদ্র এবং বিকৃত বাংলা পাঠ্যগ্রন্থ পড়িয়া বাঙালি ছেলেকে মানুষ হইতে হইবে... যাহাতে নিরপেক্ষ উদার জ্ঞানচর্চা পলিটিক্যাল প্রয়োজন সিদ্ধির কাছে খণ্ডিত হইয়া যায়।’ উদ্ধৃত রবীন্দ্রনাথের সবকটি উপলব্ধিই এখনও সমভাবে সত্য।
বিদ্যালয়ে প্রাথমিক পর্যায়কে রাখা উচিত প্রধানত মাতৃভাষার ভিত তৈরি করার জন্য। এই পর্যায়ে ইংরেজি অক্ষর পরিচয়, বহু ব্যবহৃত কিছু শব্দের অর্থ জানা ও ছড়ার মাধ্যমে বাক্য গঠনের জ্ঞান হলেই যথেষ্ট। প্রাথমিক পর্যায়ে মাতৃভাষার পাঠ্য এমন হওয়া উচিত যা ছাত্রছাত্রীরা আগ্রহ নিয়ে আনন্দের সঙ্গে পড়বে। ‘পলিটিক্যাল প্রয়োজন সিদ্ধির’ ব্যাপারটি যেন সেখানে কখনওই না আসে। মাতৃভাষার সঙ্গে মানুষের নাড়ির যোগ থাকে। সেই যোগকে ভুলিয়ে দেওয়ার চেষ্টা না করে তাকে বলিষ্ঠ করার শিক্ষার উদ্দেশ্য হওয়া উচিত। এ প্রসঙ্গে আবার রবীন্দ্রনাথের শরণ নিলাম। তিনি লিখছেন বিদ্যার্থীরা যদি আনন্দের সঙ্গে কোনও কিছু পাঠ করে তবে তাঁদের ‘পড়িবার শক্তি অলক্ষিতভাবে বৃদ্ধি পাইতে থাকে; গ্রহণশক্তি, ধারণশক্তি, চিন্তাশক্তি বেশ সহজে এবং স্বাভাবিক নিয়মে বললাভ করে।’ রবীন্দ্রনাথের এই পর্যবেক্ষণ এক চিরকালীন সত্য।
প্রাচীন গুরুকুল, চতুষ্পাঠী ও টোলের শিক্ষাব্যবস্থাকে সরিয়ে রেখে বাংলায় আধুনিক শিক্ষাব্যবস্থার পথিকৃৎ ছিলেন পণ্ডিত ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর মহাশয়। এক অসাধারণ প্রতিভার অধিকারী সেই মানুষটি মাত্র উনিশ বছর বয়সেই বিদ্যাসাগর উপাধি লাভ করেছিলেন। একুশ বছর বয়সে তিনি ফোর্ট উইলিয়ামে হেড পণ্ডিতের পদে নিযুক্ত হন। তিনি বুঝতেন এবং সর্বত্র বলতেন সংস্কৃতের মাধ্যমেই ভারতীয়রা দেশের ঐতিহ্য, জাতিতত্ত্ব, ভাষাতত্ত্ব ও প্রাচীন ইতিহাস নির্ভুলভাবে জানতে পারবে। আমার দেশ সম্বন্ধে অন্যের লেখা পড়ে সঠিক জ্ঞান হয় না। সংস্কৃত কলেজে অধ্যক্ষ থাকাকালীন তিনি সেই কলেজে প্রবেশাধিকার কেবলমাত্র উচ্চবর্ণের জন্য সংরক্ষিত না রেখে সবার জন্য উন্মুক্ত করে দিয়েছিলেন। সংস্কৃত ভাষার গুরুত্ব আধুনিক বিশ্বের অন্যত্রও পণ্ডিতেরা স্বীকার করেন। পৃথিবীর সকল ভাষার মধ্যে সংস্কৃত সর্বাধিক কম্প্যুটার ফ্রেন্ডলি বা সংগণক বান্ধব ভাষা হিসাবে স্বীকৃতি পেয়েছে। তাঁদের মতে একমাত্র এই ভাষার সাহায্যে মূল শব্দের সঙ্গে সম্বন্ধ রেখে অসংখ্য নতুন শব্দের সৃষ্টি করা সম্ভব।
ভারতে প্রায় সমস্ত ভাষারই মূল প্রোথিত রয়েছে সংস্কৃতে। শুধু তাই নয়, সংস্কৃতের সঙ্গে সম্বন্ধিত ভাষা হল গ্রিক, ল্যাটিন, আবেস্তীয় ও প্রাচীন পারসিক ভাষাও। বিন্ধ্য পর্বতের উত্তরে ও দক্ষিণে সমগ্র ভারতকে একাত্ম করতে সক্ষম অন্য কোনও ভাষা নয়—শুধুমাত্র সংস্কৃত। বলা হয় দাক্ষিণাত্যের সঙ্গে উত্তর ভারতের সাংস্কৃতিক মেলবন্ধনের জনক ছিলেন মহামুনি অগস্ত্য। তাঁর দ্বারাই তাম্রপর্ণী নদীর তীরে তামিল ভাষার বিকাশ হয়। আধুনিক তামিল ভাষা দু’হাজার বছরেরও বেশি প্রাচীন। শুধু দ্রাবিড় গোষ্ঠীরই নয়, অধুনা বিকশিত সব ভারতীয় ভাষার মধ্যে তামিলই সর্বপ্রাচীন এক সমৃদ্ধ ভাষা। অধুনা ধ্বনিগত বৈশিষ্ট্যের জন্য দ্রাবিড় গোষ্ঠীর ভাষাগুলিতে সংস্কৃত ও অন্যান্য প্রাকৃত ভাষাগুলির উপস্থিতি পরিচিতি লাগে না। তারা নিজেরাও অনেক সময়ে সংস্কৃত মূলের সঙ্গে নিজেদের যোগ বুঝতে পারে না। সংস্কৃত ভাষা সমগ্র ভারতকে একাত্ম করতে সক্ষম এ কথা বুঝেছিলেন আমাদের সংবিধানের রচয়িতা বাবাসাহেব আম্বেদকরও। তিনি বলেছিলেন ভারতের রাষ্ট্রভাষা হওয়া উচিত সংস্কৃত। সংস্কৃত শিক্ষার ব্যাপারে আমাদের শিক্ষানীতির নির্ধারকদের সজাগ থাকা প্রয়োজন। মাধ্যমিক পর্যায়ে সংস্কৃত সারা দেশে অবশ্যপাঠ্য হওয়া উচিত। এতৎ সঙ্গে দ্রাবিড় অস্মিতাকে উত্তর ভারতে মান্যতা দিয়ে দক্ষিণ ভারতে হিন্দির স্বীকৃতির পথও প্রশস্ত করা প্রয়োজন।
বর্তমানের প্রেক্ষিতে সর্বভারতীয় যোগাযোগের মাধ্যম হিসাবে হিন্দির প্রতিষ্ঠাকে অস্বীকার করা যায় না। সংস্কৃত শেখার সময়েই দেবনাগরী লিপির সঙ্গে পরিচয় হয়ে যায়। হিন্দিতে বার্তালাপের জন্য বিশেষ প্রয়াসের প্রয়োজন আছে বলে মনে হয় না। নানা মাধ্যমের সাহায্যে ভারতের সর্বত্র, এমনকী ঘোর হিন্দি বিরোধী রাজ্য যেমন তামিলনাড়ু বা মণিপুরেও লোকে হিন্দিতে কথা বলতে শিখে যায়। হিন্দি জোর করে চাপিয়ে দেওয়ার প্রয়োজন নেই। হিন্দি বুঝতে, পড়তে (সংস্কৃতের দৌলতে) বা বলতে অসুবিধা না থাকলেই রাষ্ট্রভাষার মর্যাদা হয়ে যায়। তার সঙ্গে হিন্দি সাহিত্যের পরিচয় থাকলে আরও ভালো। হিন্দি সাহিত্যের সর্বাধিক ঋদ্ধ ও কালজয়ী অংশ রয়েছে মধ্যযুগের কবিদের রচনায়। পাঠক্রমের কোনও একটা পর্যায়ে ছাত্রছাত্রীদের সেই রচনাগুলির সঙ্গে পরিচয় হওয়া উচিত। বিদ্যাসাগর সম্পর্কিত একটি রচনায় জানতে পারি ফোর্ট উইলিয়ামে অধ্যাপনা করার সময়ে তিনি যত্নসহকারে হিন্দি ও ইংরেজি শিখেছিলেন।
রবীন্দ্রনাথের উদাহরণ দিয়েই আরও একটি সর্বকালীন সত্যের কথা বলি। তিনি ছিলেন নোবেল পুরস্কারজয়ী, কলিকাতা ও অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ডক্টরেট উপাধিপ্রাপ্ত। কিন্তু তিনি স্কুলের প্রথাগত পাঠ সম্পূর্ণ করতে পারেননি। তিনি পাঠে অমনোযোগী ছিলেন না বা তাঁর ধীশক্তিরও অভাব ছিল না। স্কুলের প্রতি তাঁর বিরাগের কারণ হিসাবে নিজের নানা রচনায় কখনও শিক্ষক, কখনও পাঠ্যপুস্তক আবার কখনও বা প্রতিষ্ঠানকে নিজের বিদ্যালয় বিমুখতার কারণ হিসাবে লিখেছেন। ছাত্রের মনোযোগকে ধরে রাখার জন্য শিক্ষকের ভূমিকা অসীম। বিদ্যালয়গুলি যেন ছাত্রদের মনে বিরাগ ও বিরক্তি উৎপাদন না করে সে ব্যাপারটিও গুরুত্বপূর্ণ। সর্বোপরি পাঠ্যবিষয় নির্বাচনের গুরুত্ব অসীম। নির্বাচকেরা ছাত্রছাত্রীদের জন্য মাতৃভাষা, সংস্কৃত, ইংরেজি ও হিন্দির মধ্যে কোন ভাষা কোন পর্যায়ে পড়ানো হবে তা স্থির করবেন ঠিকই কিন্তু কোনও স্তরেই যেন পাঠ্যবিষয়গুলি পলিটিক্যাল ডামাডোলে নষ্ট না হয়ে যায়। বিদ্যালয়ের শ্রেণীকক্ষেই যেন শিক্ষকেরা নিঃশেষে বিদ্যা দান করেন, অসম্পূর্ণভাবে দেওয়া বিদ্যা প্রাইভেট টিউশনের ক্লাসের জন্য তুলে না রাখেন। কোথাও যেন অসম্পূর্ণভাবে বিদ্যাদানের কারণে শিক্ষা অসম্পূর্ণ না থাকে।
 লেখিকা যোগমায়া দেবী কলেজের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপিকা
09th  September, 2019
পুলিস ও আমরা
তন্ময় মল্লিক

 বহু বছর আগের কথা। এক আত্মীয়ের মালবাহী গাড়ির কেবিনে বসে কলকাতার দিকে যাচ্ছিলাম। গাড়িতে কাপড় ছিল। ড্রাইভার বড় রাস্তার মোড়ে দাঁড়িয়ে থাকা পুলিসের হাতে টাকা দিচ্ছিলেন। টাকা দেওয়ার কারণ জানতে চাইলে ড্রাইভার বললেন, ‘টাকা না দিলে ঝামেলা করবে।
বিশদ

19th  October, 2019
পশ্চাতে টানিছে সে
রঞ্জন সেন

 অপুষ্টি, অস্বাস্থ্য আর দারিদ্র্যে ব্যাহত হচ্ছে শিশুদের বৃদ্ধি। পাঁচ বছরের নীচে বয়স, দেশের প্রতি তিনজন শিশুর একজনের শরীর স্বাস্থ্যের এমনই হাল। বাড়ের বয়সেই আটকে গেছে এদের বৃদ্ধি। এমন শিশুরা জীবনের রাস্তায় কতটা এগতে পারবে বা আদৌ পারবে কিনা তা বলা সত্যিই খুব কঠিন। বিশদ

19th  October, 2019
রাজনৈতিক জুটি, অন্য সমীকরণ
সমৃদ্ধ দত্ত

গান্ধীজিকে রক্ষা করতে না পারা সরকারের ব্যর্থতা। আর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক সেই দায় এড়াতে পারে না। পুলিস এবং আর্মিও ব্যর্থ। অসংখ্য চিঠি আছড়ে পড়ছে গভর্নর জেনারেল মাউন্টব্যাটেনের অফিসে। প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরুর দপ্তরে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর অফিসে।
বিশদ

18th  October, 2019
মহারাষ্ট্র ও হরিয়ানার ভোট: বিধ্বস্ত বিরোধী
বনাম দোর্দণ্ডপ্রতাপ মোদি-অমিত শাহ জুটি
বিশ্বনাথ চক্রবতী

 ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির বিপুল জয়ের পর চার মাসের মধ্যে মহারাষ্ট্র ও হরিয়ানার বিধানসভা নির্বাচনের সম্মুখীন মোদি-অমিত শাহ জুটি। এই দুই রাজ্যে পাঁচ বছর শাসন করবার পরও মোদিই বিজেপির প্রধান ভরসার স্থল। বিশদ

17th  October, 2019
আফ্রিকায় ‘আবিম্যানিয়া’
মৃণালকান্তি দাস

 ইথিওপিয়ার মানুষ আজ মনে করেন, আবি আহমেদ আলি আর কেউ নন, স্বয়ং ভগবানের দূত! তাদের রক্ষাকর্তা! বিশদ

17th  October, 2019
সোনিয়ার দলে অন্ধকার যুগ, মহারাষ্ট্র-হরিয়ানায় অ্যাডভান্টেজ মোদি বাহিনীই
শান্তনু দত্তগুপ্ত

যতদূর মনে পড়ে সময়টা ১৯৯৬। সর্বভারতীয় একটি ইংরেজি দৈনিকে মোহিত সেনের নিবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। বিষয়বস্তু তোলপাড় ফেলে দেওয়ার মতো। তাঁর বিশ্লেষণ, সোনিয়া গান্ধীর সক্রিয় রাজনীতিতে এসে কংগ্রেসের হাল ধরা উচিত। এই প্রসঙ্গে তিনি কংগ্রেসের প্রথম মহিলা প্রেসিডেন্টের কথা উল্লেখ করেছেন। অ্যানি বেসান্ত। বিশদ

15th  October, 2019
শেখ হাসিনার দিল্লি সফর: ভারত-বাংলাদেশ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের সোনালি অধ্যায়
গৌরীশংকর নাগ 

দুঁদে কূটনীতিক মুচকুন্দ দুবের মতে, সামঞ্জস্যের প্রত্যাশা না করেও যদি এক্ষেত্রে ভারতকে তার স্বার্থ সামান্য বিসর্জন দিতেও হয় তাও ভেবে দেখা যেতে পারে। কারণ বাংলাদেশের সমৃদ্ধি ও অভ্যন্তরীণ স্থিরতা ভারতের সুরক্ষা তথা শক্তিকেই সুনিশ্চিত করবে। সুতরাং ভারতের উচিত অর্থনৈতিক বিষয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে যথাসম্ভব তালমিল রেখে কাজ করা।
বিশদ

14th  October, 2019
বদলে যাচ্ছে পুজো
শুভময় মৈত্র

পুজো এখন এক লক্ষ কোটি টাকা কিংবা তার থেকেও বেশি অঙ্কের ব্যবসা। এমনটা সব ধর্মেই হয়। মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ যে বিভিন্ন সময় উৎসব করেন তারও একটা বাজার আছে। রোজার সময় সন্ধেবেলা জিভে জল আনা খাবারের গন্ধ বিনা পয়সায় শোঁকা যেতেই পারে, কিন্তু কিনে খেতে গেলে পয়সা লাগবেই। ফলে ব্যবসা সেখানে অবধারিত। 
বিশদ

12th  October, 2019
সাচ্চা ক্যাপিটালিস্ট হওয়ার পাঠ শেখাচ্ছে সত্তর বছরের গণচীন
মৃণালকান্তি দাস

এখন সাধারণ পোশাক পরা মাও বা টায়ারের চপ্পল পায়ে হো চি মিনরা আর সমাজতান্ত্রিক নেতৃত্বে নেই। এখন স্যুট টাই পরা বিলাসী সাহেবরা নেতৃত্বে। কমিউনিস্ট নাম ধারণ করে আছে শুধু রাষ্ট্রীয় কাঠামোতে দলীয় একনায়কতন্ত্র অব্যাহত রাখার গরজে। ব্রিটিশরা যেমন বলে থাকেন আওয়ার কিং ইজ ডেড, লং লিভ আওয়ার কিং। ঠিক তেমনই। আগে ধনতন্ত্র পরে সমাজতন্ত্র। তার জন্য জানলা খুললে কিছু মাছি-মশা আসবে। কথাটা বলেছিলেন দেং নিজেই। অবশ্য এই মাছি-মশা নিয়ে তাঁদের কোনও ভ্রুক্ষেপ নেই। কী করে সাচ্চা ক্যাপিটালিস্ট হতে হয় সেটাও শেখাচ্ছে চীন! 
বিশদ

11th  October, 2019
এক কাপ চায়ে 
অতনু বিশ্বাস

এক কাপ চা, কত গল্প বলে সকাল, বিকেল, সন্ধে বেলা...।
এ গানের লিরিকের মতোই চা নিয়ে এবং চায়ের টেবিলে গল্পেরও কোনও শেষ নেই। এক কাপ চায়ে আমেজ আছে নিশ্চয়ই। দার্শনিক কিংবা কবি এক কাপ চায়ে খুঁজে পেতে পারে জীবনের জয়ধ্বনি, অবরুদ্ধ আবেগ, অনাবিল অনুভূতি, মুক্তির আনন্দ কিংবা উল্লাস। এমনকী গণতন্ত্রও।  
বিশদ

10th  October, 2019
জল সঙ্কট নিরসনে: শারদীয়া দুর্গোৎসবের বার্তা
জয়ন্ত কুশারী
 

শারদীয়া দুর্গোৎসব বাঙালির প্রধান উৎসব। বাঙালি দুর্গোৎসবকে কলিযুগের অশ্বমেধযজ্ঞ বলে মনে করেন। দেবীপুরাণের পুজো প্রকরণেও এ প্রসঙ্গে বলা হয়েছে—অশ্বমেধমবাপ্নোতি ভক্তিনা সুরসত্তমঃ, মহানবম্যাং পূজেয়ং সর্বকামপ্রদায়িকা।
বিশদ

05th  October, 2019
‘দিদিকে বলো’ কোনও ম্যাজিক নয়
তন্ময় মল্লিক
 

প্রশান্ত কিশোরের ‘দিদিকে বলো’ দাওয়াই তৃণমূল কংগ্রেসকে কতটা বেনিফিট দেবে, তা জানা যাবে ২০২১ সালে। কিন্তু বঙ্গ রাজনীতিতে ‘পিকে’ যে আলোড়ন ফেলে দিয়েছেন, তাতে কোনও সন্দেহ নেই। বিধায়কদের দলীয় কর্মীর বাড়িতে নিশিযাপন, মানুষের মুখোমুখি হওয়ার টোটকায় অনেক বিধায়ক মাটিতে আছাড় খাচ্ছেন। কৃতকর্মের জবাবদিহি করতে না পারলেই অভিমান সীমা অতিক্রম করছে।  
বিশদ

05th  October, 2019
একনজরে
 ওয়াশিংটন, ১৯ অক্টোবর (পিটিআই): ভারতের অর্থনীতির পূর্বভাস নিয়ে অশনি সঙ্কেত দিলেও কর্পোরেট সংস্থাকে কর ছাড়ের প্রশংসা আগেই করেছিল বিশ্বব্যাঙ্ক। এবার একই সুর শোনা গেল আন্তর্জাতিক অর্থভাণ্ডারের (আইএমএফ) কথায়। ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: কালীপুজোয় আলোয় ভাসবে রাজারহাট। বেশ কয়েকটি ক্লাবের উদ্যোগে এখানে দশকের পর দশক চোখ ধাঁধানো মণ্ডপ তৈরি হয়। এবার সেই রেশের পারদকে আরও চড়িয়ে রাজারহাট-নিউটাউনের কালীপুজোয় থিমের চমক দর্শকদের মন ভরাবে। ক্লাবগুলি থিমের উদ্ভাবনীতে একে অপরকে টেক্কা দিতে ...

বিএনএ, মেদিনীপুর: শনিবার মেদিনীপুর কোতোয়ালি থানার সদর ব্লকের খাঙ্গারডিহি এলাকায় বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষে এলাকায় উত্তেজনা ছড়ায়। ঘটনায় দু’পক্ষের ছ’জন কর্মী সমর্থক জখম হন।  ...

 প্রসেনজিৎ কোলে, কলকাতা: রেল মন্ত্রক প্রতিটি জোনকেই ভাড়া ছাড়া অন্যান্য খাতে আয় বৃদ্ধির রাস্তা খুঁজতে নির্দেশ দিয়েছিল। সেই পথে চলে বিজ্ঞাপন সহ বিভিন্ন খাতে ইতিমধ্যেই আয় বাড়িয়েছে একাধিক জোন। ভাড়া ছাড়া অন্য খাতে আয় বৃদ্ধিতে এবার অব্যবহৃত জমিতে পুকুর কেটে ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মরতদের সহকর্মীদের সঙ্গে সম্পর্ক ভালো থাকবে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা ও ব্যবহারে সংযত থাকা দরকার। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

 বিশ্ব পরিসংখ্যান দিবস
১৮৭১: কবি ও গীতিকার অতুলপ্রসাদ সেনের জন্ম
১৯৭৮: ক্রিকেটার বীরেন্দ্র সেওয়াগের জন্ম





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৩৪ টাকা ৭২.০৪ টাকা
পাউন্ড ৮৯.৮৬ টাকা ৯৩.১৫ টাকা
ইউরো ৭৭.৭৩ টাকা ৮০.৬৮ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
19th  October, 2019
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,৯২৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,৯৩০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৭,৪৮৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৫,৬৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৫,৭৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২ কার্তিক ১৪২৬, ২০ অক্টোবর ২০১৯, রবিবার, ষষ্ঠী ৪/৩৯ দিবা ৭/৩০। আর্দ্রা ৩০/৩৪ সন্ধ্যা ৫/৫২। সূ উ ৫/৩৮/৩৫, অ ৫/৪/৩৯, অমৃতযোগ দিবা ৬/২৫ গতে ৮/৪২ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৪ গতে ২/৪৫ মধ্যে। রাত্রি ৭/৩৫ গতে ৯/১৬ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৭ গতে ১/২৮ মধ্যে পুনঃ ২/১৮ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ৯/৫৬ গতে ১২/৪৭ মধ্যে, কালরাত্রি ১২/৫৬ গতে ২/৩০ মধ্যে।
২ কার্তিক ১৪২৬, ২০ অক্টোবর ২০১৯, রবিবার, সপ্তমী ৫৩/৪/১৩ রাত্রি ২/৫২/৫২। আর্দ্রা ২৪/৪১/৫৯ দিবা ৩/৩১/৫৯, সূ উ ৫/৩৯/১১, অ ৫/৫/৫১, অমৃতযোগ দিবা ৬/৩২ গতে ৮/৪৫ মধ্যে ও ১১/৪২ গতে ২/৪০ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/২৮ গতে ৯/১১ মধ্যে ও ১১/৪৬ গতে ১/২৯ মধ্যে ও ২/২১ গতে ৫/৪০ মধ্যে, বারবেলা ৯/৫৬/৪১ গতে ১১/২২/৩১ মধ্যে, কালবেলা ১১/২২/৩১ গতে ১২/৪৮/২১ মধ্যে, কালরাত্রি ১২/৫৬/৪১ গতে ২/৩০/৫১ মধ্যে।
২০ শফর

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আইএসএল: প্রথম ম্যাচে এটিকের বিরুদ্ধে ২-১ গোলে জয়ী কেরালা ব্লাস্টার্স এফসি 

09:37:34 PM

আইএসএল: কেরালা ব্লাস্টার্স এফসি ২ - এটিকে ১ (বিরতি) 

08:29:36 PM

কোচবিহারের দিনহাটার নারায়ণগঞ্জে ৭১ কেজি গাঁজা উদ্ধার 

06:16:00 PM

করণদিঘিতে ব্যবসায়ী খুনে ৫ অভিযুক্ত গ্রেপ্তার, উদ্ধার আগ্নেয়াস্ত্র 

05:47:32 PM

শ্রীরামপুরে লকেটের গাড়ি আটকানোর অভিযোগ কংগ্রেসের বিরুদ্ধে 
সংকল্প যাত্রায় অংশগ্রহণের পথে শ্রীরামপুরের বটতলায় লকেট চট্টোপাধ্যায়ের গাড়ি আটকানোর ...বিশদ

04:32:00 PM

রাঁচি টেস্ট: কম লাইটের জন্য খেলা বন্ধ, দঃ আফ্রিকা ৯/২ (প্রথম ইনিংস) 

04:19:41 PM