Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

আন্তর্জাতিক সম্পর্কের শতবর্ষে ভারত প্রান্তিক রাষ্ট্র থেকে প্রথম দশে, লক্ষ্য শীর্ষস্থান
বিশ্বনাথ চক্রবর্তী

প্রথম বিশ্বযুদ্ধ সমাপ্তির মুখে উড্রো উইলসন সমেত বিশ্বের তাবড় নেতারা প্রথম বিশ্বযুদ্ধের ভয়াবহতা দেখে শঙ্কিত হয়ে পড়েন। যুদ্ধের রাহুর গ্রাস থেকে এই সুন্দর পৃথিবীকে কীভাবে রক্ষা করা যায় তা নিয়ে তাঁরা চিন্তিত ছিলেন। উইলসন বুঝতে পেরেছিলেন মানুষের মগজে রয়েছে যুদ্ধের অভিলাষ। যুদ্ধভাবনা মুছে ফেলে শান্তিভাবনা প্রতিষ্ঠা করা দরকার। আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে শান্তির চর্চা জরুরি। এ থেকেই শান্তি প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্যে জ্ঞানচর্চার বিষয় হিসাবে আনুষ্ঠানিকভাবে ইংল্যান্ডের ওয়েলশ বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের চর্চা শুরু হয়েছিল। কালক্রমে ইংল্যান্ডের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশাপাশি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপের বিভিন্ন দেশে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের চর্চা শুরু হয়েছিল। রাশিয়া সমেত তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলিতে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের চর্চা শুরু হয়েছিল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর।
২০১৯ হল বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্যে জ্ঞানচর্চার বিষয় হিসাবে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের উদ্ভবের শতবর্ষ। একশো বছর আন্তর্জাতিক সম্পর্কের চর্চায় বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠায় কতটুকু অগ্রগতি ঘটেছে? আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে ভারতের অবস্থান কোথায় এসে দাঁড়িয়েছে? আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে ভারতের গতিপথ বারবার কেন পরিবর্তিত হয়েছে? বিশ্বায়নের যুগে ভারতের বিদেশনীতির মূল লক্ষ্যগুলি কী কী? কেন্দ্রের মোদি সরকার ভারতকে আন্তর্জাতিক স্তরে মজবুত আসনে বসাতে কী ধরনের উদ্যোগ নিচ্ছে? এই সমস্ত প্রশ্নকে মাথায় রেখে জ্ঞানচর্চার বিষয় হিসাবে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের শতবর্ষ উদ্‌যাপনের উদ্যোগ নিয়েছে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও প্রতিষ্ঠান। যেমন আন্তর্জাতিক সেমিনার করছে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়, সহযোগিতায় বেঙ্গল ইনস্টিটিউট অফ পলিটিক্যাল স্টাডিজ। দেশ-বিদেশ থেকে শতাধিক গবেষক, অধ্যাপক মিলে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক চর্চার শতবর্ষ উদ্‌যাপন করছে।
প্রথম বিশ্বযুদ্ধের ভয়াবহতা রাষ্ট্রনায়কদের বাধ্য করেছিল যুদ্ধ পরিহার করে নতুন করে শান্তির পথ খুঁজতে। তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট উড্রো উইলসনের আদর্শবাদী চিন্তাভাবনাকে কেন্দ্র করে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ‘লিগ অফ নেশন’। যদিও সংস্থাটি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ ঠেকাতে ব্যর্থ হয়েছিল। আমাদের দেশ তখন পরাধীন। ঔপনিবেশিক শাসনকালে ভারতের পররাষ্ট্র সম্পর্কিত চিন্তা-ভাবনা যে কয়েকজন জাতীয়তাবাদী নেতার মধ্যে লক্ষ করা গিয়েছিলেন, তাঁদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন পণ্ডিত জওহরলাল নেহরু। কংগ্রেসের বিভিন্ন অধিবেশনগুলিতে নেহরুর উদ্যোগে বিশ্ব-রাজনীতি বিষয়ক প্রস্তাব গ্রহণ করতে দেখা গেছে। উড্রো উইলসনের ন্যায় নেহরুও ছিলেন আদর্শবাদী। বিশ্বশান্তি কামনায় আদর্শগত ভাবনার দ্বারা তাঁর সিদ্ধান্ত বারবার পরিচালিত হয়েছে।
আদর্শবাদী নেতা হিসেবে আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে শান্তিস্থাপনের লক্ষ্যে ভারতের বিশ্বনীতিকে পরিচালনায় পাশাপাশি নেহরু ভারতের স্বাধীন অবস্থান বজায় রাখতে সর্বদাই সচেষ্ট ছিলেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর উদ্ভূত আন্তর্জাতিক কাঠামো নেহরুকে জোট-নিরপেক্ষ অবস্থান নিতে প্রভাবিত করেছিল বলা যায়। তবে, আন্তর্জাতিক তৎকালীন কাঠামোগত উপাদানের পাশাপাশি নেহরুর নিজস্ব ভাবনা-চিন্তাও ভারতের বিদেশনীতি নির্মাণে কার্যকরী ভূমিকা নিয়েছিল। কাশ্মীর নিয়ে ভারতের অবস্থানে নেহরুর নিজস্ব চিন্তার প্রভাব ছিল স্পষ্ট। পাকিস্তানের হানাদারদের অধিকৃত কাশ্মীর থেকে না-সরিয়ে রাষ্ট্রসংঘে চলে যাওয়া আদতেও উচিত ছিল কি না তা আজ বিতর্কের বিষয় নয়। আজ সংখ্যাধিক্য ভারতীয় ভাবনায় কাশ্মীর নিয়ে নেহরুর ভাবনা ভারতের জাতি গঠনে প্রধান অন্তরায় ছিল বলে প্রকাশ পাচ্ছে। সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল নিয়ে সংসদে বিতর্কেও বার বার কাশ্মীর নিয়ে নেহরুর অবস্থান এমপি-রা (মূলত অকংগ্রেসি) সমালোচনা করেছেন। বিশ্বশান্তির প্রবক্তা হিসাবে চীন সমেত প্রতিবেশী রাষ্ট্রগুলোর সঙ্গে পঞ্চশীল নীতির মাধ্যমে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের বন্ধনে বিদেশনীতিকে পরিচালিত করতে চেয়েছিলেন নেহরু। সেইসময় সংখ্যায় কম হলেও কেউ কেউ নেহরুর আদর্শবাদী বিদেশনীতির সমালোচনা করে ভারতকে বাস্তববাদের মাটিতে দাঁড় করিয়ে সামরিক শক্তি অর্জনের উপর জোর দেওয়ার কথা বারবার স্মরণ করেছিলেন। যদিও নেহরু সেই সময় বাস্তববাদীদের ভাবনাকে এক প্রকার উপেক্ষা করেছিলেন বলা যায়।
১৯৫০-এর দশকে নেহরুর প্রণীত বিদেশনীতিতে বিরাট ধাক্কা আসে ১৯৬২ সালে চীনের আক্রমণ এবং ১৯৬৫ সালে পাকিস্তানের আক্রমণের মধ্য দিয়ে। ১৯৬২-এর যুদ্ধে চীনের একতরফা সামরিক আগ্রাসন নেহরুর অনুসৃত ভারতের বিদেশনীতির দুর্বলতাগুলিকে সামনে এনেছিল। ১৯৬২-র যুদ্ধ ছিল ভারতের বিদেশনীতিতে ‘জল বিভাজিকা’। এই প্রথম ভারতের বিদেশনীতিতে আদর্শবাদী ভাবনার পরিবর্তে বাস্তববাদী ভাবনার প্রভাব স্পষ্ট লক্ষ করা গিয়েছে।
ভারতীয় রাজনীতি থেকে নেহরুর বিদায়ের পর প্রথমে লালবাহাদুর শাস্ত্রীর ‘জয় জওয়ান জয় কিষাণ’ স্লোগানের মধ্য দিয়ে এবং পরে ইন্দিরা গান্ধীর নেতৃত্বে ১৯৭১-এর যুদ্ধে ভারতীয় সামরিক বাহিনীর ভূমিকা, সিকিমের ভারত সংযুক্তিকরণ, আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে শান্তিস্থাপনে ভারতীয় সেনাবাহিনীর ক্রমবর্ধমান ভূমিকা পরিলক্ষিত হয়েছিল। আদর্শবাদী ভাবনা থেকে সরে এসে ইন্দিরাজি ভারত-সোভিয়েত বিশেষ কৌশলগত সম্পর্ক, সামরিক ক্ষেত্রে বিপুল বিনিয়োগ এবং পোখরানে পরমাণু বোমার পরীক্ষামূলক বিস্ফোরণের মধ্য দিয়ে ভারতের বিদেশনীতিকে দৃঢ় বাস্তববাদের মাটিতে দাঁড় করিয়েছিলেন। নেহরুর জোট-নিরপেক্ষ নীতি ইন্দিরাজি অনুসরণ করলেও বাস্তববাদী দৃষ্টিকোণ থেকে ভারতের বিদেশনীতিকে পরিচালনা করতে গিয়ে সোভিয়েত দেশের সঙ্গে সামরিক, আর্থিক, রাজনৈতিক ও সামাজিক সম্পর্ক জোরদার করেছিলেন। ৭০-৮০ দশকের মাঝামাঝি পর্যন্ত বিদেশনীতি বহুলাংশেই সোভিয়েতমুখী ছিল।
৮০-র দশকের মাঝামাঝি সময় থেকে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের কাঠামোতে ব্যাপক পরিবর্তন আসে। সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের ফলে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে চলে আসা ঠান্ডাযুদ্ধের অবসান ঘটে। পাশাপাশি বিশ্ব-রাজনীতিতে মার্কিন প্রভুত্ব প্রতিষ্ঠিত হয়। হঠাৎ করে সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনে ভারতের বিদেশনীতির নীতি নির্ধারণকারীগণ কিছু সময়কালের জন্য দিশাহীন হয়ে পড়েছিলেন। কারণ, ওই পর্যায় পর্যন্ত আন্তর্জাতিক বাণিজ্য সমেত ভারতের সামরিক রসদ জোগানে এবং আন্তর্জাতিক স্তরে কূটনৈতিক ক্ষেত্রে সোভিয়েত ইউনিয়ন ছিল ভারতের প্রধান ভরসাকেন্দ্র। সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙে পড়লে এক মেরু কেন্দ্রিক বিশ্ব-ব্যবস্থায় ভারতের বিদেশনীতি কোন পথে পরিচালিত হবে সে বিষয়ে একাধিক মত উঠে এসেছিল। তবে একই সময়ে বিশ্বায়ন প্রক্রিয়ার অঙ্গ হিসাবে আমাদের দেশে শুরু হয়েছিল উদারীকরণ ও বেসরকারিকরণের উদ্যোগ।
জাতীয় ও আন্তর্জাতিক স্তরে কাঠামোগত পরিবর্তনের প্রেক্ষিতে বাস্তবসম্মত বিদেশনীতির দিশা দেওয়া ছিল ৯০-এর দশকে নীতিনির্ধারণকারীদের কাছে একটি বড় চ্যালেঞ্জ। জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক পরিবর্তনগুলিকে মাথায় রেখে একটি বহুমুখী বিদেশনীতির অভিমুখ প্রস্তুত করা হয়েছিল। সোভিয়েত পতনের ফলে ভারতীয় বাণিজ্যে বিরাট ঘাটতি দেখা দিয়েছিল। সেটা পূরণ করতে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলির সঙ্গে ‘পুবে তাকাও নীতি’ নেওয়া হয়েছিল। বহুমুখী বিদেশনীতির অভিমুখ হিসাবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বিশেষ সম্পর্কের উপর জোর দেওয়া ঠিকই, একইসঙ্গে ব্রিটেন, ফ্রান্স এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের অন্যান্য রাষ্ট্রগুলির সঙ্গে এবং সোভিয়েত ইউনিয়নের উত্তরসূরি রাশিয়ার সঙ্গেও সম্পর্ক জোরদার করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। এই প্রসঙ্গে উল্লেখ করতে হয় প্রধানমন্ত্রী ইন্দ্রকুমার গুজরালের প্রতিবেশী রাষ্ট্রগুলি সম্পর্কে ‘গুজরাল ডকট্রিন’ এবং পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ির ‘সম্প্রসারিত প্রতিবেশী নীতি’র কথা। ভারতের বহুমাত্রিক বিদেশনীতিতে রাষ্ট্রপুঞ্জের ভূমিকাকে সবসময় গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। তেমনি উদ্ভূত আন্তর্জাতিক ইস্যুগুলিকেও। যেমন সন্ত্রাসবাদ, পরিবেশ সংরক্ষণ, মানবাধিকার প্রভৃতি। এগুলি বরং অগ্রাধিকারের তালিকায় রয়েছে।
বিশ্বায়ন, উদারীকরণ ও বেসরকারিকরণের হাত ধরে ভারত আজ চতুর্থ বৃহত্ অর্থনীতিতে পরিণত হয়েছে। ৮০-র দশকে ভারতের অর্থনীতি যেখানে ছিল ফ্রান্সের অর্থনীতির চারভাগের একভাগ, ভারত আজ অর্থনীতির মানদণ্ডে ফ্রান্সকেও ছাপিয়ে গিয়েছে। উৎপাদিত শিল্পের নিরিখে ভারতের স্থান নবম, মেধার বিচারে তৃতীয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সমেত পৃথিবীর গুরুত্বপূর্ণ দেশগুলির কাছে ভারত আজ সমীহ আদায় করে নিতে পেরেছে। জি-সেভেন থেকে শুরু করে পৃথিবীর সমস্ত বড় আর্থিক গোষ্ঠীগুলিতে ভারত আজ অন্তর্ভুক্ত। রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে স্থায়ী সদস্য হওয়ার উল্লেখযোগ্য দাবিদার আজ ভারত। ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন, আশিয়ান, মুসলিম রাষ্ট্রগুলির বিভিন্ন সংগঠন সমেত আফ্রিকা এবং লাতিন আমেরিকার প্রায় সমস্ত আর্থিক সংগঠন ভারতকে নানাভাবে তাদের সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত করেছে। এশিয়ায় ভারতের অবস্থানটি চীনের প্রেক্ষিতেই বিচার করা হচ্ছে। ভারতের বিপুল বাজার পৃথিবীর সমস্ত প্রান্তের অর্থনৈতিক ভূমিকা পালনকারীদের আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে। সামরিক ক্ষেত্রে পরমাণু শক্তিধর রাষ্ট্র হিসাবে বিশ্ব-রাজনীতিতে ভারত আজ স্বতন্ত্র মর্যাদা পাচ্ছে। প্রযুক্তিগত বিকাশে চন্দ্রযান-২-এর মতন অভিযান আন্তর্জাতিক মহলের কাছে ভারত সমীহ আদায় করে নিতে পেরেছে। এরই ফলস্বরূপ সম্প্রতি কাশ্মীর ইস্যুতে শত চেষ্টা করেও পাকিস্তান চীন ছাড়া অন্য কোনও দেশের সমর্থন ভারতের বিরুদ্ধে আদায় করতে পারেনি। কাশ্মীর ইস্যুতে আজ কেবল রাশিয়া ফ্রান্স নয়, ইংল্যান্ড আমেরিকাও ভারতের সঙ্গে রয়েছে। এমনকী উল্লেখযোগ্য ইসলামিক রাষ্ট্রগুলিও পাকিস্তানের পক্ষ নেয়নি। অর্থাৎ, আন্তর্জাতিক স্তরে ভারতের যে গ্রহণযোগ্যতা শতগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।
কেন্দ্রে নরেন্দ্র মোদি সরকার আজকের পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে ভারতের বিদেশনীতিকে চারটি লক্ষ্য অর্জনের জন্য পরিচালিত করছে। এগুলি হল: (ক) আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে নীতিনির্ধারণের স্বাধীনতা বজায় রাখা; (খ) ভারতের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করা; (গ) জাতিগঠন প্রক্রিয়ার অঙ্গ হিসাবে বিদেশনীতিকে পরিচালিত করা এবং (ঘ) বিশ্বের অগ্রগণ্য দেশগুলির সমান মর্যাদা ও অধিকারের স্বীকৃতি সুনিশ্চিত করা। পরাধীন ভারতে নেহরুর যে আদর্শবাদী চিন্তার উপর ভারতের বিদেশনীতি একদিন গড়ে উঠেছিল, আজ সেটা দৃঢ় বাস্তববাদী ভাবনার উপর প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। আন্তর্জাতিক সম্পর্কের একশো বছর চর্চাকালের মধ্যে আমরা লক্ষ করছি—একদা যে-ভারত একটি প্রান্তিক রাষ্ট্রমাত্র ছিল, সেটাই আজ আন্তর্জাতিক আঙিনায় উঠে এসেছে প্রথম দশটি শক্তিশালী রাষ্ট্রের মধ্যে একটি হিসেবে। এই সাফল্য যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ বইকি। আন্তর্জাতিক সম্পর্কের পরবর্তী ৫০ বছরে ভারতের লড়াইটা চলবে প্রথম স্থান অর্জনের জন্য। প্রত্যাশা থাকল আন্তর্জাতিক সম্পর্কের ১৫০ বছর পূর্তির চর্চায় ভারতই থাকবে কেন্দ্রবিন্দুতে।
 লেখক রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক
09th  September, 2019
ক্রীড়া ও বিনোদন অর্থনীতি:
কী ভাবছে সরকার?
হারাধন চৌধুরী

 ১০০ বছর ধরে মাঠ কাঁপাচ্ছে যে দল, সেই লাল-হলুদ ঝড়ের নাম ইস্টবেঙ্গল। এই স্লোগানের সঙ্গে বাঙালি বহু পরিচিত। গত ১ আগস্ট, ইস্টবেঙ্গলের শতবর্ষ পূর্ণ হল। যে-কোনও ক্ষেত্রে সেঞ্চুরির গরিমা কতটা সবাই জানেন। ক্রীড়ামোদী বাঙালি মূলত দুই শিবিরে বিভক্ত—ইস্টবেঙ্গল, মোহনবাগান।
বিশদ

সবুজ হচ্ছে জঙ্গলমহলের প্রকৃতি ও মানুষ
সন্দীপন বিশ্বাস

জঙ্গলমহল হাসছে। এই কথাটা একসময় বহু ব্যবহৃত শব্দবন্ধের মতো হয়ে গিয়েছিল। তারপর সেটা নিয়ে বিরোধীদের বিদ্রুপ করা শুরু হল। কিন্তু এটা ঠিক, ২০১১ সালের আগে যে জঙ্গলমহলের চোখে জল ছিল, তা আর ফিরে আসেনি।
বিশদ

05th  August, 2020
 সমাজ ব্যর্থ হলে অসহায় মানুষের
পাশে দাঁড়াবার রাজনীতিই কাম্য
শুভময় মৈত্র

কোভিডাক্রান্ত ফুসফুসে সাহস জোগাতে সরকারের সহযোগিতায় দলমত নির্বিশেষে আরও কিছুটা উদ্যোগ জরুরি। দ্রুততার সঙ্গে সে কাজ না-হলে আম জনতা বিপদে পড়বে। সমাজ অকৃতকার্য হলে অ্যাম্বুলেন্সে উঠতে না-পেরে অসুস্থের মৃত্যু রুখতে হবে নিঃসহায়ের রাজনীতিকেই।
বিশদ

05th  August, 2020
নয়া নীতিতে শিক্ষা
আমাদের ‘বাহন’ হবে তো?
শান্তনু দত্তগুপ্ত

নরেন্দ্র মোদি সরকার নয়া শিক্ষানীতি ঘোষণা করার পর দিকে দিকে কেমন একটা হুলস্থুল পড়ে গিয়েছে। বিষয়ে নতুনত্ব আছে। আর তা অস্বীকার করার জায়গা নেই। সরকারি স্কুলে প্লে-গ্রুপ ও কিন্ডারগার্টেন, ১০+২ এর ধারণা পিছনে ফেলে ফুটবলের মতো ৫+৩+৩+৪ ছকে স্কুলশিক্ষাকে সাজানো এবং সায়েন্স, আর্টস, কমার্স উঠে যাওয়া... নড়েচড়ে বসার মতো পরিস্থিতি বটে।
বিশদ

04th  August, 2020
রাজ্য-রাজনীতির বর্ণময় চরিত্র
সোমেন মিত্রের কিছু স্মরণীয় মুহূর্ত 
প্রবীর ঘোষাল

২০০০ সালের মার্চ মাস। রাজ্য কংগ্রেস রাজনীতিতে ঘোর সঙ্কট। দু’বছর আগে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তৃণমূল কংগ্রেস গঠন করে ঝড় তুলে দিয়েছেন। দু’-দু’টি লোকসভা নির্বাচনে জোড়াফুলের সাফল্য গোটা দেশকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে। এই সময় এল পশ্চিমঙ্গে রাজ্যসভা নির্বাচন।  
বিশদ

03rd  August, 2020
করুণ কাহিনীতে কোনও ‘সমাপ্ত’ হয় না 
পি চিদম্বরম

গত বছরের ৫ আগস্ট ভারতের সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল করা হয়। তারপর থেকে লিখিত আদেশ ছাড়াই জম্মু ও কাশ্মীরের অনেক ব্যক্তিকে ‘গৃহবন্দি’ করা হয়েছে। এরকমই একজন গৃহবন্দি রাজনৈতিক নেতা বলেন যে, ‘জম্মু ও কাশ্মীর একটা বিরাট বন্দিশালা’। 
বিশদ

03rd  August, 2020
৫ আগস্ট ও নরেন্দ্র
মোদির ভোট অঙ্ক
হিমাংশু সিংহ 

২৯ বছর আগে ছবিটা তুলেছিলেন মহেন্দ্র ত্রিপাঠি। করোনা আবহে সেই ছবিই গোটা দেশে আজ হঠাৎ ভাইরাল। মহেন্দ্র পেশায় শখের ফটোগ্রাফার। ছোট্ট একটা স্টুডিও আছে অযোধ্যার প্রস্তাবিত রামমন্দির চত্বরের কাছেই।   বিশদ

02nd  August, 2020
ভাবনা বদলালেই সহজ
হবে করোনা মোকাবিলা
তন্ময় মল্লিক 

‘আমারই চেতনার রঙে পান্না হল সবুজ, চুনি উঠল রাঙা হয়ে। আমি চোখ মেললুম আকাশে, জ্বলে উঠল আলো পুবে-পশ্চিমে।’—রবীন্দ্রনাথ। ‘শিক্ষা আনে চেতনা, চেতনা আনে বিপ্লব, বিপ্লব আনে মুক্তি।’—লেনিন।   বিশদ

01st  August, 2020
বন্ধু চীনই এখন
আমেরিকার বড় শত্রু
মৃণালকান্তি দাস 

পঞ্চাশ বছরের ‘সম্পর্ক’ মাত্র চার বছরে উল্টে গিয়েছে! এই সেদিনও চীন-আমেরিকা নিজেদের বলত ‘কৌশলগত বন্ধু’। ১৯৭১ সালে বেজিং সফরে গিয়ে ধুরন্ধর মার্কিন বিদেশসচিব হেনরি কিসিঞ্জার সেই ‘বন্ধুত্বে’র চারা লাগিয়ে এসেছিলেন।   বিশদ

31st  July, 2020
মমতাকে স্বস্তি দিচ্ছে
বিজেপির এই রাজনীতি
হারাধন চৌধুরী 

যদি ক্যুইজে প্রশ্ন করা হয়, পশ্চিমবঙ্গের প্রথম মুখ্যমন্ত্রী কে? প্রফুল্লচন্দ্র ঘোষের নাম ক’জনের মাথায় আসবে সংশয় রয়েছে। বেশিরভাগ উত্তরদাতার ঠোঁটের ডগায় তৈরি থাকবে বিধানচন্দ্র রায়ের নামটা।   বিশদ

30th  July, 2020
মোদিজি, ভাণ্ডারে তব বিবিধ রতন
সন্দীপন বিশ্বাস 

কতটা লড়াইয়ের পর করোনার মতো এমন ভয়ঙ্কর ভাইরাসকে নিঃশেষ করা যাবে, আমরা জানি না। কতদিনে আমরা এর ওষুধ বের করতে পারব, তাও জানি না! কোভিড ওষুধ নিয়ে আমাদের দেশের ও বিশ্বের বিজ্ঞানীদের গবেষণা এখন ঠিক কোন পর্যায়ে, সেটাও আমরা জানি না।   বিশদ

29th  July, 2020
পাঁপড়ভাজা খেলে ভ্যাকসিন
বানানোর দরকারটা কী?
শান্তনু দত্তগুপ্ত

ফিদেল কাস্ত্রোর ইন্টারভিউ নিতে গিয়েছেন এক সাংবাদিক। শুরুতেই কাস্ত্রো পাল্টা একটা প্রশ্ন ছুঁড়লেন... ‘দ্য ফোর্থ ভার্টিব্রা পড়েছেন? ফিনিশ লেখক না?... দারুণ লেখা কিন্তু।’ মার্কিনিদের জীবনযাত্রা ছিল ‘দ্য ফোর্থ ভার্টিব্রা’র বিষয়বস্তু।   বিশদ

28th  July, 2020
একনজরে
অধিনায়ক হিসেবে দল পরিচালনার ক্ষেত্রে অদ্ভুত এক তত্ত্ব মেনে চলেন রোহিত শর্মা। ‘হিটম্যান’ জানিয়েছেন, নেতৃত্বভার কাঁধে থাকলে ড্রেসিং রুমে নিজেকেই সবচেয়ে কম গুরুত্বপূর্ণ সদস্য বলে ...

ভিসা ও অন্যান্য নথির মেয়াদ ফুরনোয় সৌদি আরবে এখন জেলবন্দি রয়েছেন প্রায় ৪৫০ জন ভারতীয়। তার মধ্যে অনেকেই এই বাংলার আদি বাসিন্দা। ...

ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে যেসব সংস্থার শেয়ার গতকাল লেনদেন হয়েছে, সেগুলির কয়েকটির বাজার বন্ধকালীন দর। ...

অযোধ্যায় রামমন্দিরের ভূমিপুজো অনুষ্ঠানের রং লাগল সুদূর আমেরিকাতেও। সেখানকার ভারতীয় বংশোদ্ভূতরা রামমন্দিরের একটি ডিজিটাল ছবি নিয়ে ট্যাবলো সাজিয়ে রীতিমতো শহর পরিক্রমা করলেন। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

উচ্চবিদ্যার ক্ষেত্রে বাধার মধ্য দিয়ে অগ্রসর হতে হবে। কর্মপ্রার্থীদের ক্ষেত্রে শুভ যোগ। ব্যবসায় যুক্ত হলে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

হিরোশিমা দিবস
১৮৬৫ - চার্লি চ্যাপলিনের মা তথা ইংরেজ অভিনেত্রী, গায়িকা ও নৃত্যশিল্পী হান্নাহ চ্যাপলিনের জন্ম
১৮৮১- পেনিসিলিনের আবিষ্কারক ফ্লেমিংয়ের জন্ম
১৯০৫- দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাস প্রকাশ করলেন বন্দে মাতরম পত্রিকা
১৯০৬ - বিপিনচন্দ্র পালের সম্পাদনায় বন্দে মাতরম্ (সংবাদপত্র) প্রথম প্রকাশিত হয়।
১৯১৪ - কলকাতা থেকে দৈনিক বসুমতী প্রথম প্রকাশিত হয়।
১৯২৫ - বিশিষ্ট স্বাধীনতা সংগ্রামী স্যার সুরেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায়ের মৃত্যু
১৯৪৫-হিরোশিমায় পরমাণু বোমা ফেলল আমেরিকা



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৪.১৪ টাকা ৭৫.৮৬ টাকা
পাউন্ড ৯৬.৪৬ টাকা ৯৯.৮৭ টাকা
ইউরো ৮৭.০৪ টাকা ৯০.২০ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৫৪,৬৭০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৫১,৮৭০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৫২,৬৫০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬৫,০৮০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬৫,১৮০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
05th  August, 2020

দিন পঞ্জিকা

২১ শ্রাবণ ১৪২৭, বৃহস্পতিবার, ৬ আগস্ট ২০২০, তৃতীয়া ৪৭/৩৪ রাত্রি ১২/১৫। শতভিষানক্ষত্র ১৫/১১ দিবা ১১/১৮। সূর্যোদয় ৫/১৩/৪৮, সূর্যাস্ত ৬/১১/৬। অমৃতযোগ দিবা ১২/৪৮ গতে ৩/১ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ৬/৫৭ মধ্যে পুনঃ ১০/২৪ গতে ১২/৫৯ মধ্যে। বারবেলা ২/৫৭ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ১১/৪২ গতে ১/৫ মধ্যে।
২১ শ্রাবণ ১৪২৭, বৃহস্পতিবার, ৬ আগস্ট ২০২০, তৃতীয়া রাত্রি ১১/২। শতভিষানক্ষত্র দিবা ১১/২১। সূর্যোদয় ৫/১৩, সূর্যাস্ত ৬/১৪। অমৃতযোগ রাত্রি ১২/৪৭ গতে ৩/৩ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ৭/০ মধ্যে ও ১০/২৩ গতে ১২/৫৫ মধ্যে। কালবেলা ২/৫৯ গতে ৬/১৪ মধ্যে। কালরাত্রি ১১/৪৩ গতে ১/৬ মধ্যে।
১৫ জেলহজ্জ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
ফের এক অভিনেতার রহস্যমৃত্যু
সুশান্তের পর আরও এক অভিনেতা। রহস্যমৃত্যু ছোটপর্দার জনপ্রিয় অভিনেতা তথা ...বিশদ

01:30:40 PM

মুর্শিদাবাদে রিভলবার দেখিয়ে পেট্রল ভরে গ্রেপ্তার ১
মুর্শিদাবাদে রিভলবার দেখিয়ে বাইকে পেট্রল ভরে গ্রেপ্তার হল এক দুষ্কৃতী। ...বিশদ

01:25:39 PM

করোনা: আপনার জেলার হাল কী, জানুন... 
রাজ্যে নতুন করে আরও ২,৮১৬ জনের শরীরে মিলেছে করোনা ভাইরাস। ...বিশদ

12:26:35 PM

রেপো রেট ও রিভার্স রেপো রেট অপরিবর্তিতই:আরবিআই
রেপো রেট (৪%)ও রিভার্স রেপো রেট (৩.৩%)অপরিবর্তিতই রাখল রিজার্ভ ব্যাঙ্ক ...বিশদ

12:13:21 PM

ট্রাম্পের ভিডিও ডিলিট করল ফেসবুক-ট্যুইটার
মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের একটি ভিডিও পোস্ট তাঁর পেজ থেকে ...বিশদ

12:02:14 PM

শঙ্করপুরে সমুদ্রের জলোচ্ছ্বাসে বাঁধ ভেঙে প্লাবিত গ্রাম 
নিম্নচাপ ও প্রবল জলোচ্ছ্বাসে ভেঙে যাচ্ছে শঙ্করপুরের সমুদ্রবাঁধ। জলোচ্ছ্বাসে বাঁধ ...বিশদ

11:49:17 AM