Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

ন্যাশনাল মেডিক্যাল কমিশন বিল: কিছু আশঙ্কা 
বিষাণ বসু

চারদিকে বড় হইচই। বিষয় ন্যাশনাল মেডিক্যাল কমিশন বিল। স্বাধীনতার পর থেকেই দেশের মেডিক্যাল শিক্ষার ব্যাপারটা দেখছিলেন এমসিআই, অর্থাৎ মেডিক্যাল কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়া। এমসিআই নিয়ে অভিযোগ ছিল বিস্তর—বিশেষত, তাঁদের কিছু কর্তাব্যক্তিকে নিয়ে। দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার হালটিও ঠিক পাঁচজনকে নেমন্তন্ন করে জানানোর মতো নয়। কিন্তু, দেশের মেডিক্যাল শিক্ষাব্যবস্থা থেকে উৎপাদিত চিকিৎসকদের জ্ঞানগম্যি বা দক্ষতার গুণগত মান নিয়ে প্রশ্ন সেরকম ওঠেনি।
এইবার একেবারে বড়সড় রদবদল। এমসিআই বাতিল করে তার জায়গায় ন্যাশনাল মেডিক্যাল কমিশন, সংক্ষেপে এনএমসি। দেশজুড়ে চিকিৎসকেরা প্রতিবাদ জানাচ্ছেন। এদেশে চিকিৎসকদের সর্ববৃহৎ সংগঠন আইএমএ প্রতিবাদে দেশজুড়ে কর্মবিরতি পালন করলেন। বিভিন্ন কেন্দ্রীয় প্রতিষ্ঠানে জুনিয়র ডাক্তারদের অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি পালন চলছিল—রীতিমতো সরকারি হুমকির পরে কর্মবিরতি প্রত্যাহার হয়। ব্যাপারটা ঠিক কী?
চিকিৎসকদের প্রথম আপত্তি, ব্রিজ কোর্স নিয়ে। দেশে নাকি চিকিৎসকের আকাল। অতএব, তথাকথিত মডার্ন মেডিসিন বাদ দিয়ে চিকিৎসাবিদ্যার বাকি সব ধারা, যেমন আয়ুর্বেদ, হোমিওপ্যাথি ইত্যাদি, যাদেরকে একসঙ্গে আয়ুশ বলা হয়ে থাকে, তাঁদের অল্পকিছুদিনের জন্যে ট্রেনিং দিয়ে মডার্ন মেডিসিনের চিকিৎসকে পরিণত করা হবে। যদিও বিলে সরাসরিভাবে এই ব্রিজ কোর্স চালুর কথা বলা নেই, কিন্তু পথটি খোলা রাখা আছে নিশ্চিত।
পাশাপাশি, তিন লক্ষের বেশি বিশেষভাবে প্রশিক্ষিত স্বাস্থ্যকর্মীর কথা ভাবা হয়েছে, যাঁরা কিনা মুখ্যত প্রাথমিক ও নিবারণী চিকিৎসাটুকু দেবেন। অন্যান্য চিকিৎসা যদি তাঁদের করতে হয়, সেক্ষেত্রে তাঁদের থাকতে হবে মডার্ন মেডিসিনের পাশ করা ডাক্তারের তত্ত্বাবধানে। প্রস্তাবটি আপাতদৃষ্টিতে নিরীহ শুনতে লাগলেও, কিছু প্রশ্ন রয়ে যায়।
যেমন, দেশের প্রাথমিক স্বাস্থ্যের হাল খারাপ। বিভিন্ন স্বাস্থ্যসূচকে আশপাশের বিভিন্ন দেশের তুলনায় আমরা পিছিয়েই চলেছি। বাজেটে স্বাস্থ্যখাতে বরাদ্দ বাড়ানোর কোনও কথা শোনা যাচ্ছে না। যেটুকু বরাদ্দ হচ্ছে, তার সিংহভাগই যাচ্ছে হাই-টেক হেল্‌থ- কেয়ারের পিছনে। দেশের হেল্‌থকেয়ার পুরোপুরিই ইলনেস-কেয়ার। সেইখানে, টিমটিম করে চলা প্রাথমিক স্বাস্থ্যব্যবস্থাকে শুধুমাত্র স্বাস্থ্যকর্মীর হাতে সঁপে দিলে আগামী দিনে ভালো কিছুর আশা কম। হ্যাঁ, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রাথমিক স্বাস্থ্যব্যবস্থায় স্বাস্থ্যকর্মীরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকেন। কিন্তু, এই এনএমসি বিলের কিছুদিন আগেকার নয়া জাতীয় স্বাস্থ্যনীতিতে যেভাবে ঢালাও বেসরকারি- করণের কথা বলা হয়েছে, তাতে প্রাথমিক স্বাস্থ্যকে লাটে তুলে দেওয়ার পরিকল্পনা হচ্ছে, এমন আশঙ্কার যথেষ্ট কারণ রয়েছে।
দ্বিতীয়ত, যদি ডাক্তারের আকালই হয়ে থাকে, সেক্ষেত্রে এই প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত স্বাস্থ্যকর্মীদের তত্ত্বাবধানের জন্যে যথেষ্ট চিকিৎসক আসবে কোত্থেকে? এই স্বাস্থ্যকর্মীরা প্রাথমিক স্বাস্থ্যপরিষেবা বাদ দিয়ে যদি অন্যান্য চিকিৎসা শুরু করেন, নজরদারি করবেন কে?
দেশে ডাক্তারের আকালটা ঠিক কতখানি? বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলে, সুষ্ঠু স্বাস্থ্যপরিষেবার জন্যে প্রতি হাজার জনসংখ্যা পিছু একজন ডাক্তার থাকা জরুরি। বছর দুয়েক আগে লোকসভাকে সরকার তথ্য দিয়েছিল, দেশে রেজিস্টার্ড এমবিবিএস ডাক্তার রয়েছেন প্রায় সোয়া দশ লক্ষ। জনসংখ্যা কমবেশি একশো তিরিশ কোটি। হাজারে এক হিসেব করতে হলে, প্রয়োজন কমসেকম তেরো লক্ষ। বেশ কথা। তাহলে কি আয়ুশ ডাক্তারদের হিসেবের মধ্যেই আনব না? এঁরা পড়ছেন সরকারি কলেজে, এঁরা নিযুক্ত হচ্ছেন সরকারি স্বাস্থ্যব্যবস্থায়—কিন্তু, সরকার যখন ডাক্তারের সংখ্যা গুনবেন, তাঁরা সেইখানে হিসেবে আসবেন না? এ কেমন দ্বিচারিতা!
প্রশ্ন এটাই, সরকার বাহাদুর স্বয়ং যখন আয়ুশ ব্যবস্থার উপর ভরসা রাখছে না, এবং যেন তেন প্রকারে এঁদের দিয়ে মডার্ন মেডিসিন প্র্যাকটিস করাতে চাইছেন, তাহলে সরকার সরাসরি এইসব চিকিৎসাপদ্ধতি, বিশেষত, এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি তুলে দিয়ে সেই অর্থ মডার্ন মেডিসিনের কলেজ তৈরির পিছনে ঢালছেন না কেন? ব্রিজ কোর্সের প্রস্তাব বা সরকারি খতিয়ানে আয়ুশ চিকিৎসকদের অনুল্লেখ বা দায়সারা উল্লেখ যে এই চিকিৎসাপদ্ধতির প্রতি নিদারুণ অপমান, তা তো বলে দিতে হবে না!!
বিল অনুসারে মডার্ন মেডিসিনের উচ্চতর নিয়ামক কর্তৃপক্ষ নিয়মিত কথোপকথন চালু রাখবেন, বাকি সব ধারার চিকিৎসাপদ্ধতির নিয়ামক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে। সেইখানে কিন্তু ঘুরপথে ব্রিজ কোর্স চালুর সম্ভাবনা রয়েছে। কেননা এই বিল অনুসারে মেডিক্যাল কমিশনের দু’চারজন বাদ দিলে বেশিরভাগই হবেন সরকার মনোনীত এবং অনুমান করাই যায়, সরকার যেমন চাইছেন, তাঁরা তদনুযায়ী আচরণই করবেন।
বিল নিয়ে চিকিৎসকদের দ্বিতীয় বড় আপত্তির জায়গাটা এখানে। সাবেক এমসিআই নিয়ে হাজার অভিযোগের মধ্যেও একটা স্বস্তি ছিল—সেফটি ভাল্‌ভও বলতে পারেন, যে তার প্রতিনিধিরা নির্বাচিত, চিকিৎসকদের ভোটে নির্বাচিত। ঠিক যেমন, দেশের হাল নিয়ে যত আক্ষেপই করি না কেন, গণতন্ত্রের শক্তির উপর আমাদের আস্থা সদা অটুট। এনএমসি বিল সেই আস্থার জায়গাটাই ভেঙে দিয়েছে। প্রস্তাবিত কমিশনের বেশিরভাগ সদস্যই হবেন কেন্দ্রীয় সরকার কর্তৃক মনোনীত। দেশের যুক্তরাষ্ট্রীয় ব্যবস্থায় স্বাস্থ্যে রাজ্যের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা সত্ত্বেও সেই কমিশনে নিয়মিত ভিত্তিতে অধিকাংশ রাজ্যের প্রতিনিধিত্ব থাকার অবকাশ নেই। রাজ্যের প্রতিনিধিরা যেখানে থাকবেন, তাঁদের ভূমিকা মূলত পরামর্শদাতা বা উপদেষ্টার—সেই পরামর্শ অনুসারে চলতেই হবে, কমিশনের এমন বাধ্যবাধকতা নেই।
সুষ্ঠু পরিচালনার জন্যে ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ যেখানে শ্রেয় বলে সর্বত্র মেনে নেওয়া হচ্ছে, সেইখানে এই বিল ক্ষমতার কেন্দ্রীকরণের পক্ষে। চিকিৎসকের বিরুদ্ধে অভাব-অভিযোগের চূড়ান্ত নিয়ামক এই কমিশন, এবং রাজ্যের সর্বোচ্চ কর্তৃপক্ষ কমিশনের সিদ্ধান্ত মানতে বাধ্য।
চিকিৎসকদের তৃতীয় বড় আপত্তির জায়গা, চিকিৎসাশিক্ষার বেসরকারিকরণের ইঙ্গিতটি নিয়ে। প্রাইভেট মেডিক্যাল কলেজ খোলার ব্যাপারে ঢালাও উৎসাহ দেওয়া হয়েছে—মাত্র একবার খতিয়ে দেখার পরেই বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজের ছাড়পত্র মিলবে। পরিকাঠামো ঠিকঠাক আছে কি না, বারবার খুঁটিয়ে যাচাই করা হবে না। কলেজ চালু হওয়ার বছর কয়েকের মধ্যেই কর্তৃপক্ষ সিট বাড়াতে পারবেন, খুলতে পারবেন নতুন পোস্টগ্র্যাজুয়েট কোর্স—নতুন করে পরিদর্শন বা ছাড়পত্র লাগবে না। আসন সংখ্যার পঞ্চাশ শতাংশের ফিজ বেঁধে দেবেন কমিশন, বাকি পঞ্চাশ শতাংশের ক্ষেত্রে মালিক-কর্তৃপক্ষ যথেচ্ছ অর্থমূল্য ধার্য করতে পারেন।
দেখুন, নতুন এই যে এনএমসি বিল, তার প্রস্তাবগুলিকে যদি আলাদা আলাদা করে, একটি একটি করে দেখেন, খুব একটা অযৌক্তিক বলে হয়তো বোধ হবে না। প্রাথমিক স্বাস্থ্যে ডাক্তার পাওয়া যাচ্ছে না, তাই প্রশিক্ষিত স্বাস্থ্যকর্মীর ব্যবস্থা। তাই আরও বেশি ডাক্তার তৈরি করে দীর্ঘমেয়াদি সমাধান খোঁজা। বেশি ডাক্তার তৈরি করতে বেসরকারি উদ্যোগের দ্বারস্থ হওয়া, ‘লাইসেন্সরাজ’ এড়িয়ে দ্রুত সিদ্ধান্ত গ্রহণ। কিন্তু, একটি একটি করে গাছের দিকে চেয়ে দেখতে থাকলে এই অরণ্যের ভয়াবহতার রূপটি আপনার চোখের আড়ালেই রয়ে যাবে।
দেশে ডাক্তারের অভাব কতখানি, সেটা তর্কযোগ্য হলেও প্রত্যন্ত অঞ্চলে ডাক্তারের অভাব নিয়ে প্রশ্নের অবকাশ নেই কিন্তু সেসব অঞ্চলে স্বাস্থ্য পরিকাঠামোর হাল? প্রশিক্ষিত স্বাস্থ্যকর্মী দিয়ে ক্ষতস্থানের মুখটা ব্যান্ডেজ দিয়ে লুকানো হয়তো যাবে। তারপর? সেনাবাহিনীর সঙ্গে যুক্ত ডাক্তারেরা দুর্গম জায়গায় পোস্টেড হলেও যেতে আপত্তি করেন না। কিন্তু, গ্রামে ডাক্তার অমিল কেন? শুধু ডাক্তারদের উপর দোষ চাপালে হবে? লক্ষ লক্ষ টাকা ব্যয়ে প্রাইভেট মেডিক্যাল কলেজ থেকে পাশ করা ডাক্তারেরা প্রান্তিক মানুষের স্বাস্থ্যপরিষেবা জোগাবেন?
আপাতনিরীহ কিছু প্রস্তাবনার মাধ্যমেই খুলেছিল শিক্ষার বেসরকারিকরণের পথ। তার সম্পূর্ণ সামাজিক অভিঘাত এখনও পুরোপুরি স্পষ্ট না হলেও অনেকখানি অনুভব করা যায়, দেখা যায় সরকারি স্কুলের বেহাল দশা। স্বাস্থ্যশিক্ষার বেসরকারিকরণের পথে হাঁটার অভিঘাত হবে আরও অনেক বেশি গভীর। পোস্ট-গ্র্যাজুয়েট এন্ট্রান্স পরীক্ষায় বেসরকারি কলেজ থেকে কৃতকার্য হওয়া ছাত্রের সংখ্যা ছিল লক্ষণীয়ভাবে কম—কারণ অনুমানযোগ্য। ডাক্তারি পাশ করার কমন এক্সিট টেস্ট-এর ফলের সঙ্গে পোস্টগ্র্যাজুয়েশনে ঢোকাকে জুড়ে দিয়ে সেই বাধা অতিক্রম করার প্রয়াস কেন?
এই এনএমসি বিল-এর কতখানি শেষমেশ লাগু হবে, আর কতখানি পুনর্বিবেচিত—দেখার বিষয়। কিন্তু, আপাতত যে বিলটি প্রস্তাবিত, তার অভিঘাত, দেশের স্বাস্থ্যব্যবস্থা এবং বৃহত্তর সামাজিক ক্ষেত্রের পক্ষে সুবিধের হবে না, এমন আশঙ্কা অন্যায্য নয়।
 লেখক বিশিষ্ট চিকিৎসক 
20th  August, 2019
গুরু কে, কেনই বা গুরুপূর্ণিমা?
জয়ন্ত কুশারী

কে দেখাবেন আলোর পথ? পথ অন্ধকারাচ্ছন্নই বা কেন? এই অন্ধকার, মনের। মানসিকতারও। চিন্তার। আবার চেতনারও। এই অন্ধকার কুসংস্কারের। আবার অশিক্ষারও। অথচ আমরা প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষায় উচ্চশিক্ষিত এক একজন।   বিশদ

জাতির উদ্দেশে ভাষণের চরম অবমূল্যায়ন
হিমাংশু সিংহ

অনেক প্রত্যাশা জাগিয়েও মাত্র ১৬ মিনিট ৯ সেকেন্ডেই শেষ। দেশবাসীর প্রাপ্তি বলতে আরও পাঁচ মাস বিনামূল্যে রেশন। শুধু ওইটুকুই। ছাপ্পান্ন ইঞ্চি বুক ফুলিয়ে চীনকে কোনও রণহুঙ্কার নয়, নিহত বীর জওয়ানদের মৃত্যুর বদলা নয় কিম্বা শূন্যে নেমে যাওয়া অর্থনীতিকে টেনে তোলার সামান্যতম অঙ্গীকারও নয়। ১৬ মিনিটের মধ্যে ১৩ মিনিটই উচ্চকিত আত্মপ্রচার।   বিশদ

মধ্যবিত্তের লড়াই শুরু হল
শুভময় মৈত্র 

কোভিড পরিস্থিতি চীনে শুরু হয়েছে গত বছরের শেষে। মার্চ থেকেই আমাদের দেশে হইচই। শুরুতেই ভীষণ বিপদে পড়েছেন নিম্নবিত্ত মানুষ। পরিযায়ী শ্রমিকদের অবর্ণনীয় দুর্দশার কথা এখন সকলেই জানেন।  বিশদ

04th  July, 2020
রাজধর্ম
তন্ময় মল্লিক 

যেমন কথা তেমন কাজ। উম-পুন সুপার সাইক্লোনে ক্ষতিপূরণ নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ উঠতেই মুখ্যমন্ত্রী জানিয়ে দিয়েছিলেন, টাঙিয়ে দেওয়া হবে ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা। ফেরানো হবে অবাঞ্ছিতদের হাতে যাওয়া ক্ষতিপূরণ।   বিশদ

04th  July, 2020
উন্নয়ন  ও  চীনা  আগ্রাসনের  উত্তর  একসুতোয় গাঁথা
নীলাশিস  ঘোষদস্তিদার 

আমরা ভারতীয়রা চীনা পণ্য বয়কট করব কি না, এই প্রশ্নে অনেকেই বেশ দ্বিধায়। এই কারণে যে এত সস্তায় কেনা সাধের চীনা অ্যান্ড্রয়েড ফোনটি ছেড়ে কি দামি আই-ফোন বা অকাজের দেশি ফোন কিনতে হবে?   বিশদ

03rd  July, 2020
ভার্চুয়াল স্ট্রাইক নাকি ড্যামেজ কন্ট্রোল!
মৃণালকান্তি দাস

ভারতের কোনও রাষ্ট্রনেতা তাঁর মতো বিদেশ সফর করেননি। প্রধানমন্ত্রী হওয়ার আগেও বিনিয়োগ টানতে চীনে গিয়েছেন অনেকবার। তখন তিনি গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী। দশ বছরে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং চীনে গিয়েছেন ২ বার।  বিশদ

03rd  July, 2020
চীনের নতুন পুতুলের নাম পাকিস্তান
হারাধন চৌধুরী 

পাকিস্তান ছিল আমেরিকার পুতুল। এবার সেটা হাত বদলে চীনের হয়েছে। চীনের কোনও কিছুর গ্যারান্টি নেই। যেমন তাদের কথা আর বিশ্বাসের মূল্য, তেমনি চীনা প্রোডাক্টের আয়ু। এ নিয়ে চালু রসিকতাও কম নয়।  বিশদ

02nd  July, 2020
‘শোলে’ ছবির পুনর্নির্মাণ
সন্দীপন বিশ্বাস

দৃশ্য ১
রামগড়ের পাহাড়ের কোলে নিজের ডেরায় রাগে ফুঁসছেন গব্বর সিং। হাতের লোহার বেল্টটা পাথুরে মাটিতে ঘষতে ঘষতে এদিক ওদিক করছেন। চোখ মুখ দিয়ে তাঁর রাগ উথলে পড়ছে। চারপাশে গব্বর সিংয়ের চ্যালা কালিয়া, সাম্ভারা মাথা নিচু করে দাঁড়িয়ে আছে। একটু পরে গব্বর সিং বললেন, ‘হুম, সীমান্তে ওরা কতজন ছিল?’ কালিয়া ভয়ে মুখ কাঁচুমাচু করে বলল, ‘ওরা অনেকেই ছিল সর্দার। হাতে ওদের অনেক অস্ত্রশস্ত্রও ছিল।’
বিশদ

01st  July, 2020
সুদিনের আশায়
গ্রামীণ পর্যটন
দেবাশিস ভট্টাচার্য

 ক’দিন আগে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আমাদের গ্লোবাল হওয়ার কথা বললেন। বললেন দেশীয় উৎপাদন ও সম্পদকে আন্তর্জাতিক রূপ দিতে হবে। মেড ইন ইন্ডিয়া, মেড ফর ওয়ার্ল্ড। ব্যাপারটাকে আমরা লোকাল টু গ্লোবাল হিসেবে দেখতে পারি। বিশদ

01st  July, 2020
‘সাম্রাজ্যবাদী’ জিনপিং...
শেষের এটাই শুরু নয় তো?
শান্তনু দত্তগুপ্ত

তরুণ বয়সে মাও সে তুং লিখেছিলেন... চীনকে ধ্বংস করতে হবে, আর সেই ধ্বংসস্তূপের উপর গড়ে তুলতে হবে নতুন দেশ। বিপ্লব—এটাই ছিল তাঁর লক্ষ্য... এবং স্বপ্নও। ভেবেছিলেন, কমিউনিজমই পারবে এই বিপ্লব আনতে। শত শত আইডিয়া ঘোরাফেরা করত তাঁর মাথায়। কিন্তু গা করেনি কেউ। বিশদ

30th  June, 2020
আপনি কি আর্থিক পুনরুজ্জীবনের লক্ষণ দেখছেন?
পি চিদম্বরম

 কিছু মানুষের দূরদৃষ্টি নিখুঁত। কিছু মানুষ অন্যদের চেয়ে ভালো দেখেন। তাঁরা দ্রষ্টা। সাধারণ মরণশীল মানুষ দেখতে পায় না এমন জিনিসও তাঁরা দেখতে পান। কিছু মানুষের দৃষ্টিশক্তি আমাদের ভাবনার চেয়েও উন্নত। তাঁরা মহাজ্ঞানী। তাঁরা ভবিষ্যৎ বলে দিতে পারেন। গড়পড়তা মানুষের যা অসাধ্য।
বিশদ

29th  June, 2020
মোদির তেল রাজনীতি ও
মমতার মানবিক প্যাকেজ
হিমাংশু সিংহ

 ডাক নাম মধু। বেসরকারি বাসের কন্ডাকটর। রোজ চুঁচুড়া থেকে ধর্মতলা পর্যন্ত বাসের পাদানিতে দাঁড়িয়ে লোক নিয়ে যাওয়া নিয়ে আসাই তাঁর পেশা। গত এপ্রিল-মে মাসে বাস চলেনি বলে মালিকও বেতনের পুরো টাকা দেননি। অনুনয় বিনয়ের পর সামান্য কিছু ঠেকিয়েছেন।
বিশদ

28th  June, 2020
একনজরে
নিউ ইয়র্ক: হাতে ‘বয়কট চীন’ প্ল্যাকার্ড। মুখে চীনের সঙ্গে বাণিজ্য বয়কটের ডাক। শনিবার নিউ ইয়র্কের টাইমস স্কোয়ারে জমায়েত হয়ে চীনা আগ্রাসনের বিরুদ্ধে সোচ্চার হলেন ভারতীয় ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: করোনা আতঙ্ক এবার সিএবি’তে। সংস্থার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের এক অস্থায়ী কর্মীর কোভিড-১৯ টেস্টের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। তাই সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে আপাতত এক সপ্তাহ বন্ধ থাকবে সিএবি।   ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: রাজ্যের স্বাস্থ্য বিজ্ঞান বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬ জুলাই থেকে শুরু হতে চলা ‘প্রফেশনাল আয়ুর্বেদাচার্য’ বা বিএএমএস পরীক্ষা ৩১ জুলাই পর্যন্ত স্থগিত ঘোষণা করল কলকাতা হাইকোর্ট।   ...

সংবাদদাতা, কান্দি: শনিবার সকালে ফরাক্কা-হলদিয়া বাদশাহী সড়কের বড়ঞা থানার করালীতলার কাছে একটি কুকুরকে বাঁচাতে গিয়ে বাইক দুর্ঘটনায় মারাত্মকভাবে জখম হলেন এক ব্যক্তি।   ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

শারীরিক কারণে কর্মে বাধা দেখা দেবে। সন্তানরা আপনার কথা মেনে না চলায় মন ভারাক্রান্ত হবে। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৪৪: অভিনেতা দীপঙ্কর দের জন্ম
১৯৪৬: রাজনীতিক রামবিলাস পাসোয়ানের জন্ম
২০০৫: ক্রিকেটার বালু গুপ্তের মূত্যু
২০০৭: অভিনেতা শুভেন্দু চট্টোপাধ্যায়ের মৃত্যু 



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৩.৮৯ টাকা ৭৫.৬১ টাকা
পাউন্ড ৯১.৭০ টাকা ৯৪.৯৭ টাকা
ইউরো ৮২.৫৭ টাকা ৮৫.৬৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৮, ৯৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৬, ৪৭০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৭, ১৭০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৯, ২৭০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৯, ৩৭০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১৯ আষাঢ় ১৪২৭, ৩ জুলাই ২০২০, শুক্রবার, ত্রয়োদশী ২০/৪২ দিবা ১/১৭। জ্যেষ্ঠা ৪৭/৫০ রাত্রি ১২/৮। সূর্যোদয় ৫/০/৬, সূর্যাস্ত ৬/২১/২২। অমৃতযোগ দিবা ১২/২৭ গতে ২/৪৭ মধ্যে। রাত্রি ৮/২৯ মধ্যে পুনঃ ১২/৪৪ গতে ২/৫২ মধ্যে পুনঃ ৩/৩/৩৫ গতে উদয়াবধি। বারবেলা ৮/২০ গতে ১১/৪১ মধ্যে। কালরাত্রি ৯/১ গতে ১০/২১ মধ্যে। 
১৮ আষাঢ় ১৪২৭, ৩ জুলাই ২০২০, শুক্রবার, ত্রয়োদশী দিবা ১২/৫০। জ্যেষ্ঠা নক্ষত্র রাত্রি ১২/২৭। সূযোদয় ৫/০, সূর্যাস্ত ৬/২৩। অমৃতযোগ দিবা ১২/৯ গতে ২/৪৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৮/৩০ মধ্যে ও ১২/৪৬ গতে ২/৫৫ মধ্যে ও ৩/৩৭ গতে ৫/০ মধ্যে। বারবেলা ৮/২১ গতে ১১/৪২ মধ্যে। কালরাত্রি ৯/২ গতে ১০/২২ মধ্যে। 
১১ জেল্কদ 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
মহারাষ্ট্রে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২ লক্ষ ছাড়াল 
মহারাষ্ট্রে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দু’লক্ষ ছাড়িয়ে গেল। শনিবার রাতে ...বিশদ

04-07-2020 - 09:57:35 PM

বেলভেড়িয়া রোডে বহুতলে আগুন, অকুস্থলে দমকলের ৫টি ইঞ্জিন 

04-07-2020 - 09:25:00 PM

গুলিবিদ্ধ উত্তর বারাকপুরের কাউন্সিলার 
উত্তর বারাকপুরের তৃণমূল কাউন্সিলারকে গুলি করে খুনের চেষ্টা। গুলিবিদ্ধ কাউন্সিলার ...বিশদ

04-07-2020 - 09:23:35 PM

কর্ণাটকে করোনা পজিটিভ আরও ১,৮৩৯ জন, মোট আক্রান্ত ১১,৯৬৬ 

04-07-2020 - 08:58:07 PM

করোনা: একদিনে রাজ্যে রেকর্ড সংক্রমণ 
রাজ্যে একদিনে রেকর্ড সংক্রমণ। গত ২৪ ঘণ্টায় ৭৪৩ জনের শরীরে ...বিশদ

04-07-2020 - 08:06:31 PM

দিল্লিতে করোনা পজিটিভ আরও ২,৫০৫ জন, মোট আক্রান্ত ৯৭,২০০ 

04-07-2020 - 07:25:52 PM