Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

ন্যাশনাল মেডিক্যাল কমিশন বিল: কিছু আশঙ্কা 
বিষাণ বসু

চারদিকে বড় হইচই। বিষয় ন্যাশনাল মেডিক্যাল কমিশন বিল। স্বাধীনতার পর থেকেই দেশের মেডিক্যাল শিক্ষার ব্যাপারটা দেখছিলেন এমসিআই, অর্থাৎ মেডিক্যাল কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়া। এমসিআই নিয়ে অভিযোগ ছিল বিস্তর—বিশেষত, তাঁদের কিছু কর্তাব্যক্তিকে নিয়ে। দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার হালটিও ঠিক পাঁচজনকে নেমন্তন্ন করে জানানোর মতো নয়। কিন্তু, দেশের মেডিক্যাল শিক্ষাব্যবস্থা থেকে উৎপাদিত চিকিৎসকদের জ্ঞানগম্যি বা দক্ষতার গুণগত মান নিয়ে প্রশ্ন সেরকম ওঠেনি।
এইবার একেবারে বড়সড় রদবদল। এমসিআই বাতিল করে তার জায়গায় ন্যাশনাল মেডিক্যাল কমিশন, সংক্ষেপে এনএমসি। দেশজুড়ে চিকিৎসকেরা প্রতিবাদ জানাচ্ছেন। এদেশে চিকিৎসকদের সর্ববৃহৎ সংগঠন আইএমএ প্রতিবাদে দেশজুড়ে কর্মবিরতি পালন করলেন। বিভিন্ন কেন্দ্রীয় প্রতিষ্ঠানে জুনিয়র ডাক্তারদের অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি পালন চলছিল—রীতিমতো সরকারি হুমকির পরে কর্মবিরতি প্রত্যাহার হয়। ব্যাপারটা ঠিক কী?
চিকিৎসকদের প্রথম আপত্তি, ব্রিজ কোর্স নিয়ে। দেশে নাকি চিকিৎসকের আকাল। অতএব, তথাকথিত মডার্ন মেডিসিন বাদ দিয়ে চিকিৎসাবিদ্যার বাকি সব ধারা, যেমন আয়ুর্বেদ, হোমিওপ্যাথি ইত্যাদি, যাদেরকে একসঙ্গে আয়ুশ বলা হয়ে থাকে, তাঁদের অল্পকিছুদিনের জন্যে ট্রেনিং দিয়ে মডার্ন মেডিসিনের চিকিৎসকে পরিণত করা হবে। যদিও বিলে সরাসরিভাবে এই ব্রিজ কোর্স চালুর কথা বলা নেই, কিন্তু পথটি খোলা রাখা আছে নিশ্চিত।
পাশাপাশি, তিন লক্ষের বেশি বিশেষভাবে প্রশিক্ষিত স্বাস্থ্যকর্মীর কথা ভাবা হয়েছে, যাঁরা কিনা মুখ্যত প্রাথমিক ও নিবারণী চিকিৎসাটুকু দেবেন। অন্যান্য চিকিৎসা যদি তাঁদের করতে হয়, সেক্ষেত্রে তাঁদের থাকতে হবে মডার্ন মেডিসিনের পাশ করা ডাক্তারের তত্ত্বাবধানে। প্রস্তাবটি আপাতদৃষ্টিতে নিরীহ শুনতে লাগলেও, কিছু প্রশ্ন রয়ে যায়।
যেমন, দেশের প্রাথমিক স্বাস্থ্যের হাল খারাপ। বিভিন্ন স্বাস্থ্যসূচকে আশপাশের বিভিন্ন দেশের তুলনায় আমরা পিছিয়েই চলেছি। বাজেটে স্বাস্থ্যখাতে বরাদ্দ বাড়ানোর কোনও কথা শোনা যাচ্ছে না। যেটুকু বরাদ্দ হচ্ছে, তার সিংহভাগই যাচ্ছে হাই-টেক হেল্‌থ- কেয়ারের পিছনে। দেশের হেল্‌থকেয়ার পুরোপুরিই ইলনেস-কেয়ার। সেইখানে, টিমটিম করে চলা প্রাথমিক স্বাস্থ্যব্যবস্থাকে শুধুমাত্র স্বাস্থ্যকর্মীর হাতে সঁপে দিলে আগামী দিনে ভালো কিছুর আশা কম। হ্যাঁ, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রাথমিক স্বাস্থ্যব্যবস্থায় স্বাস্থ্যকর্মীরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকেন। কিন্তু, এই এনএমসি বিলের কিছুদিন আগেকার নয়া জাতীয় স্বাস্থ্যনীতিতে যেভাবে ঢালাও বেসরকারি- করণের কথা বলা হয়েছে, তাতে প্রাথমিক স্বাস্থ্যকে লাটে তুলে দেওয়ার পরিকল্পনা হচ্ছে, এমন আশঙ্কার যথেষ্ট কারণ রয়েছে।
দ্বিতীয়ত, যদি ডাক্তারের আকালই হয়ে থাকে, সেক্ষেত্রে এই প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত স্বাস্থ্যকর্মীদের তত্ত্বাবধানের জন্যে যথেষ্ট চিকিৎসক আসবে কোত্থেকে? এই স্বাস্থ্যকর্মীরা প্রাথমিক স্বাস্থ্যপরিষেবা বাদ দিয়ে যদি অন্যান্য চিকিৎসা শুরু করেন, নজরদারি করবেন কে?
দেশে ডাক্তারের আকালটা ঠিক কতখানি? বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলে, সুষ্ঠু স্বাস্থ্যপরিষেবার জন্যে প্রতি হাজার জনসংখ্যা পিছু একজন ডাক্তার থাকা জরুরি। বছর দুয়েক আগে লোকসভাকে সরকার তথ্য দিয়েছিল, দেশে রেজিস্টার্ড এমবিবিএস ডাক্তার রয়েছেন প্রায় সোয়া দশ লক্ষ। জনসংখ্যা কমবেশি একশো তিরিশ কোটি। হাজারে এক হিসেব করতে হলে, প্রয়োজন কমসেকম তেরো লক্ষ। বেশ কথা। তাহলে কি আয়ুশ ডাক্তারদের হিসেবের মধ্যেই আনব না? এঁরা পড়ছেন সরকারি কলেজে, এঁরা নিযুক্ত হচ্ছেন সরকারি স্বাস্থ্যব্যবস্থায়—কিন্তু, সরকার যখন ডাক্তারের সংখ্যা গুনবেন, তাঁরা সেইখানে হিসেবে আসবেন না? এ কেমন দ্বিচারিতা!
প্রশ্ন এটাই, সরকার বাহাদুর স্বয়ং যখন আয়ুশ ব্যবস্থার উপর ভরসা রাখছে না, এবং যেন তেন প্রকারে এঁদের দিয়ে মডার্ন মেডিসিন প্র্যাকটিস করাতে চাইছেন, তাহলে সরকার সরাসরি এইসব চিকিৎসাপদ্ধতি, বিশেষত, এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি তুলে দিয়ে সেই অর্থ মডার্ন মেডিসিনের কলেজ তৈরির পিছনে ঢালছেন না কেন? ব্রিজ কোর্সের প্রস্তাব বা সরকারি খতিয়ানে আয়ুশ চিকিৎসকদের অনুল্লেখ বা দায়সারা উল্লেখ যে এই চিকিৎসাপদ্ধতির প্রতি নিদারুণ অপমান, তা তো বলে দিতে হবে না!!
বিল অনুসারে মডার্ন মেডিসিনের উচ্চতর নিয়ামক কর্তৃপক্ষ নিয়মিত কথোপকথন চালু রাখবেন, বাকি সব ধারার চিকিৎসাপদ্ধতির নিয়ামক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে। সেইখানে কিন্তু ঘুরপথে ব্রিজ কোর্স চালুর সম্ভাবনা রয়েছে। কেননা এই বিল অনুসারে মেডিক্যাল কমিশনের দু’চারজন বাদ দিলে বেশিরভাগই হবেন সরকার মনোনীত এবং অনুমান করাই যায়, সরকার যেমন চাইছেন, তাঁরা তদনুযায়ী আচরণই করবেন।
বিল নিয়ে চিকিৎসকদের দ্বিতীয় বড় আপত্তির জায়গাটা এখানে। সাবেক এমসিআই নিয়ে হাজার অভিযোগের মধ্যেও একটা স্বস্তি ছিল—সেফটি ভাল্‌ভও বলতে পারেন, যে তার প্রতিনিধিরা নির্বাচিত, চিকিৎসকদের ভোটে নির্বাচিত। ঠিক যেমন, দেশের হাল নিয়ে যত আক্ষেপই করি না কেন, গণতন্ত্রের শক্তির উপর আমাদের আস্থা সদা অটুট। এনএমসি বিল সেই আস্থার জায়গাটাই ভেঙে দিয়েছে। প্রস্তাবিত কমিশনের বেশিরভাগ সদস্যই হবেন কেন্দ্রীয় সরকার কর্তৃক মনোনীত। দেশের যুক্তরাষ্ট্রীয় ব্যবস্থায় স্বাস্থ্যে রাজ্যের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা সত্ত্বেও সেই কমিশনে নিয়মিত ভিত্তিতে অধিকাংশ রাজ্যের প্রতিনিধিত্ব থাকার অবকাশ নেই। রাজ্যের প্রতিনিধিরা যেখানে থাকবেন, তাঁদের ভূমিকা মূলত পরামর্শদাতা বা উপদেষ্টার—সেই পরামর্শ অনুসারে চলতেই হবে, কমিশনের এমন বাধ্যবাধকতা নেই।
সুষ্ঠু পরিচালনার জন্যে ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ যেখানে শ্রেয় বলে সর্বত্র মেনে নেওয়া হচ্ছে, সেইখানে এই বিল ক্ষমতার কেন্দ্রীকরণের পক্ষে। চিকিৎসকের বিরুদ্ধে অভাব-অভিযোগের চূড়ান্ত নিয়ামক এই কমিশন, এবং রাজ্যের সর্বোচ্চ কর্তৃপক্ষ কমিশনের সিদ্ধান্ত মানতে বাধ্য।
চিকিৎসকদের তৃতীয় বড় আপত্তির জায়গা, চিকিৎসাশিক্ষার বেসরকারিকরণের ইঙ্গিতটি নিয়ে। প্রাইভেট মেডিক্যাল কলেজ খোলার ব্যাপারে ঢালাও উৎসাহ দেওয়া হয়েছে—মাত্র একবার খতিয়ে দেখার পরেই বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজের ছাড়পত্র মিলবে। পরিকাঠামো ঠিকঠাক আছে কি না, বারবার খুঁটিয়ে যাচাই করা হবে না। কলেজ চালু হওয়ার বছর কয়েকের মধ্যেই কর্তৃপক্ষ সিট বাড়াতে পারবেন, খুলতে পারবেন নতুন পোস্টগ্র্যাজুয়েট কোর্স—নতুন করে পরিদর্শন বা ছাড়পত্র লাগবে না। আসন সংখ্যার পঞ্চাশ শতাংশের ফিজ বেঁধে দেবেন কমিশন, বাকি পঞ্চাশ শতাংশের ক্ষেত্রে মালিক-কর্তৃপক্ষ যথেচ্ছ অর্থমূল্য ধার্য করতে পারেন।
দেখুন, নতুন এই যে এনএমসি বিল, তার প্রস্তাবগুলিকে যদি আলাদা আলাদা করে, একটি একটি করে দেখেন, খুব একটা অযৌক্তিক বলে হয়তো বোধ হবে না। প্রাথমিক স্বাস্থ্যে ডাক্তার পাওয়া যাচ্ছে না, তাই প্রশিক্ষিত স্বাস্থ্যকর্মীর ব্যবস্থা। তাই আরও বেশি ডাক্তার তৈরি করে দীর্ঘমেয়াদি সমাধান খোঁজা। বেশি ডাক্তার তৈরি করতে বেসরকারি উদ্যোগের দ্বারস্থ হওয়া, ‘লাইসেন্সরাজ’ এড়িয়ে দ্রুত সিদ্ধান্ত গ্রহণ। কিন্তু, একটি একটি করে গাছের দিকে চেয়ে দেখতে থাকলে এই অরণ্যের ভয়াবহতার রূপটি আপনার চোখের আড়ালেই রয়ে যাবে।
দেশে ডাক্তারের অভাব কতখানি, সেটা তর্কযোগ্য হলেও প্রত্যন্ত অঞ্চলে ডাক্তারের অভাব নিয়ে প্রশ্নের অবকাশ নেই কিন্তু সেসব অঞ্চলে স্বাস্থ্য পরিকাঠামোর হাল? প্রশিক্ষিত স্বাস্থ্যকর্মী দিয়ে ক্ষতস্থানের মুখটা ব্যান্ডেজ দিয়ে লুকানো হয়তো যাবে। তারপর? সেনাবাহিনীর সঙ্গে যুক্ত ডাক্তারেরা দুর্গম জায়গায় পোস্টেড হলেও যেতে আপত্তি করেন না। কিন্তু, গ্রামে ডাক্তার অমিল কেন? শুধু ডাক্তারদের উপর দোষ চাপালে হবে? লক্ষ লক্ষ টাকা ব্যয়ে প্রাইভেট মেডিক্যাল কলেজ থেকে পাশ করা ডাক্তারেরা প্রান্তিক মানুষের স্বাস্থ্যপরিষেবা জোগাবেন?
আপাতনিরীহ কিছু প্রস্তাবনার মাধ্যমেই খুলেছিল শিক্ষার বেসরকারিকরণের পথ। তার সম্পূর্ণ সামাজিক অভিঘাত এখনও পুরোপুরি স্পষ্ট না হলেও অনেকখানি অনুভব করা যায়, দেখা যায় সরকারি স্কুলের বেহাল দশা। স্বাস্থ্যশিক্ষার বেসরকারিকরণের পথে হাঁটার অভিঘাত হবে আরও অনেক বেশি গভীর। পোস্ট-গ্র্যাজুয়েট এন্ট্রান্স পরীক্ষায় বেসরকারি কলেজ থেকে কৃতকার্য হওয়া ছাত্রের সংখ্যা ছিল লক্ষণীয়ভাবে কম—কারণ অনুমানযোগ্য। ডাক্তারি পাশ করার কমন এক্সিট টেস্ট-এর ফলের সঙ্গে পোস্টগ্র্যাজুয়েশনে ঢোকাকে জুড়ে দিয়ে সেই বাধা অতিক্রম করার প্রয়াস কেন?
এই এনএমসি বিল-এর কতখানি শেষমেশ লাগু হবে, আর কতখানি পুনর্বিবেচিত—দেখার বিষয়। কিন্তু, আপাতত যে বিলটি প্রস্তাবিত, তার অভিঘাত, দেশের স্বাস্থ্যব্যবস্থা এবং বৃহত্তর সামাজিক ক্ষেত্রের পক্ষে সুবিধের হবে না, এমন আশঙ্কা অন্যায্য নয়।
 লেখক বিশিষ্ট চিকিৎসক 
20th  August, 2019
হিসেব মেলানো ভার
শান্তনু দত্তগুপ্ত

 সাত দু’গুণে কত হয়? উঁহু, ১৪ নয়। আপনি কখন বলছেন, তার উপর নির্ভর করছে। মানে, কাকেশ্বর কুচ্‌কুচে যদি মনে করে, আপনি বলার সময় ১৩ টাকা ১৪ আনা ৩ পাই হয়েছিল... মানে পুরোপুরি ১৪ হয়নি, তাহলে সেটাই। অর্থাৎ, হাতে একটা পেনসিল থাকছেই। বিশদ

সতর্ক প্রহরী
পি চিদম্বরম

ব্যারিস্টার ভি জি রো মাদ্রাজ হাইকোর্টের আইনজীবী ছিলেন। তিনি ছিলেন বাম-মনস্ক উদার। সমস্ত ধরনের বিজ্ঞানের ব্যবহারিক জ্ঞান, রাজনৈতিক শিক্ষা এবং শিল্প, সাহিত্য, নাটক প্রভৃতিকে জনপ্রিয় করে তুলতে তিনি পিপলস এডুকেশন সোসাইটি গড়েছিলেন।
বিশদ

01st  June, 2020
একটু সময় দিন,
পাশে দাঁড়ান
হিমাংশু সিংহ

বামফ্রন্ট সরকার ১৯৭৭ সালে ক্ষমতায় আসার পরের বছরই ভয়াবহ বন্যার মুখোমুখি হয়েছিল বাংলা। ভেসে গিয়েছিল একের পর এক জেলা, দক্ষিণবঙ্গের বড় বড় শহর। কলকাতাও রেহাই পায়নি সেই বিপর্যয়ের হাত থেকে।
বিশদ

31st  May, 2020
বিশ্বাসযোগ্যতা ও বলিষ্ঠ
পদক্ষেপের এক বছর
রাজনাথ সিং

যে কোনও দেশের ইতিহাসে পাহাড়প্রমাণ পরিবর্তন দেখার সুযোগ খুব কমই আসে। ২০১৪ সালে ভারতের রাজনৈতিক ইতিহাসে এরকমই একটি বিরাট পরিবর্তন এসেছিল। দেশের মানুষ দুর্বল এবং দুর্নীতিগ্রস্ত প্রশাসনের হাত থেকে রেহাই পেতে চেয়েছিলেন।
বিশদ

30th  May, 2020
বন্দি যখন শিশুমন
তন্ময় মল্লিক

 ‘উফ, আর পারা যাচ্ছে না। কবে যে মুক্তি পাব?’ ‘কতদিন বাজার যাইনি। এইভাবে দমবন্ধ অবস্থায় থাকা যায়?’ ‘দিনরাত গাধার খাটুনি খাটছি। তার উপর তোদের জ্বালাতন। এবার ঠাস ঠাস করে চড়িয়ে দেব।’ লকডাউনের গৃহবন্দি জীবনে এমন সংলাপ আজ প্রায় ঘরে ঘরে।
বিশদ

30th  May, 2020
বাংলার দুর্ভাগ্য
সমৃদ্ধ দত্ত

এত বড় একটা সাইক্লোনে একটি রাজ্যের বৃহৎ অংশ একপ্রকার বিধ্বস্ত হয়ে গেল, অথচ গোটা দেশের কোনও দোলাচল নেই? প্রথমদিন ট্যুইটারে সমবেদনা জানিয়েই সকলে যে যার স্বাভাবিক জীবনে ফিরে গেল? কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে ঝাঁপিয়ে পড়ে এই ধ্বংসস্তূপ থেকে রাজ্যটাকে পুনরায় মাথা তুলে দাঁড়ানোর কোনও দৃপ্ত সহায়তা প্রতিজ্ঞাও তো দেখতে পাওয়া যাচ্ছে না।
বিশদ

29th  May, 2020
ভাবুন, সুন্দরবন নেই আর উম-পুন
বয়ে গিয়েছে কলকাতার উপর দিয়ে!
হারাধন চৌধুরী

ভাঙা যায়নি অনুন্নয়নের ট্র্যাডিশন। সামান্য উন্নয়নেও তীব্র বৈষম্য। ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যা। চাকরিপ্রার্থীর সংখ্যাও ক্রমবর্ধমান। পরিণামে কোটি কোটি মানুষ কাজের খোঁজে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যাচ্ছেন শত শত মাইল দূরে—চরম অনিশ্চয়তা আর বিপদকে সঙ্গী করে। অন্যদিকে, সঙ্কীর্ণ রাজনীতির বোড়ে হয়ে উঠেছেন দেশবাসীর প্রায় সকলে।
বিশদ

28th  May, 2020
‘আত্মসম্মান’ খ্যাত এক ভাঁড়ের রসিকতা
সন্দীপন বিশ্বাস 

অন্য দেশের রাজাদের মতো হবুরও আছে বিদূষক। অনেক বিদূষক তাঁর। তাঁদের তিনি ছড়িয়ে রেখেছেন বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে। তাঁরা সেই সব রাজ্যের প্রপালক। তাঁদের কাজ হল মহারাজ হবুর মুৎসুদ্দি করা। আর নানা ধরনের মন্তব্য করে অঙ্গরাজ্যের জনগণকে আনন্দ বিতরণ করা।  বিশদ

27th  May, 2020
মানবিকতার উপর
বিশ্বাসটা যেন রাখতে পারি
শান্তনু দত্তগুপ্ত

একটা ঝড়... যা পথে বসিয়েছিল সরযূ মণ্ডলকে। জানতেও পারেননি, কোথায় উড়ে গিয়ে পড়েছিল তাঁর ছাদটা। কিন্তু সে দুঃখ ছাপিয়ে গিয়েছিল এক অন্য আতঙ্ক... নির্জলা মরতে হবে না তো? জলেই তার বসত, অথচ সে জল মুখে দেওয়া যায় না... তেষ্টা মেটে না।   বিশদ

26th  May, 2020
ব্যয় করো, ঋণ করো, টাকার জোগান বাড়াও 

পি চিদম্বরম: প্রধানমন্ত্রী গত ১২ মে ২০ লক্ষ কোটি টাকার যে স্টিমুলাস প্যাকেজ ঘোষণা করেছিলেন, গত সপ্তাহে আমি সেটার বিশ্লেষণ করেছিলাম। বিগত সপ্তাহে অর্থমন্ত্রী পাঁচ দফায় বিস্তারিতভাবে যে ঘোষণা করেছিলেন বিশেষজ্ঞ এবং অর্থনীতিবিদরা পরে সেসব কাটাছেঁড়া করেছেন।   বিশদ

25th  May, 2020
মহামারীর সঙ্গে মহাপ্রলয়,
তবু বাংলা জিতবেই
হিমাংশু সিংহ

ইতিহাসের অন্যতম কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে বাংলা। আমাদের বঙ্গভূমি। দেশভাগ, মন্বন্তর, বন্যা, মহামারী কিছুই আমাদের জীবনীশক্তিকে নিঃশেষ করতে পারেনি। ভেঙে গিয়েও আবার ঠিক ঘুরে দাঁড়িয়েছি আমরা। নতুন ভোরের স্বপ্নে শুরু হয়েছে ফের পথ চলা।
বিশদ

24th  May, 2020
আত্মকেন্দ্রিক হোন,
কিন্তু স্বার্থপর নয়
তন্ময় মল্লিক

 করোনাকে নিয়েই আমাদের বাঁচতে হবে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা হু এমনটাই জানিয়ে দিয়েছে। হু-এর এই ঘোষণার পিছনে যথেষ্ট যুক্তি আছে। চীন, জাপান, আমেরিকা, জার্মানি, ইতালি, ইজরায়েল যাই দাবি করুক না কেন, বাস্তবটা হল, করোনা ভ্যাকসিন নাগালের ধারেকাছে নেই।
বিশদ

23rd  May, 2020
একনজরে
 মাদ্রিদ, ১ জুন: করোনার ধাক্কা সামলে স্প্যানিশ লিগের পরিবর্তিত সূচি ঘোষণা করল লিগ কমিটি। ১১ জুন সেভিয়া ডার্বি দিয়ে বন্ধ হওয়া লিগ শুরু হবে। ঘরের মাঠে সেভিয়া মুখোমুখি হবে রিয়াল বেতিসের। ১৩ জুন মাঠে নামবে গতবারের চ্যাম্পিয়ন বার্সেলোনা। ...

  নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: লকডাউনের জন্য ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর সল্টলেক স্টেডিয়াম থেকে ফুলবাগান পর্যন্ত সম্প্রসারিত পথে কমিশনার অফ রেলওয়ে সেফটির ইন্সপেকশন থমকে গিয়েছিল। মেট্রো রেল সূত্রের খবর, জুন মাসের মধ্যে এই ইন্সপেকশন হবে। ...

  কাঠমাণ্ডু, ১ জুন (পিটিআই): নেপালে মর্মান্তিক বাস দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন ১১ জন যাত্রী। আহতের সংখ্যা ২২। পুলিস সূত্রে জানা গিয়েছে, ভারতে আটকে পড়া প্রায় ৩০ জন পরিযায়ী শ্রমিকদের নিয়ে একটি বাস নেপালের উদ্দেশে রওনা হয়। ...

  নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: করোনা খাতে কেন্দ্রের কাছে ৩০০ কোটি টাকা চাইল শিক্ষা দপ্তর। চিঠি দিয়ে তা জানানো হয়েছে। সুস্বাস্থ্য ও পরিবেশ বজায় রাখার জন্য স্কুলগুলিকে জীবাণুমুক্ত করা থেকে শুরু করে অন্যান্য নানা কাজের জন্যই এই বিপুল অর্থের প্রয়োজন। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যার্থীরা কোনও বৃত্তিমূলক পরীক্ষার ভালো ফল করবে। বিবাহার্থীদের এখন ভালো সময়। ভাই ও বোনদের কারও ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৪৭: লর্ড মাউন্টব্যাটেনের ভারতকে দ্বিখণ্ড করার পরিকল্পনা মেনে নিল কংগ্রেস ও মুসলিম লিগ
১৯৬৫ - অস্ট্রেলীয় প্রাক্তন ক্রিকেটার মার্ক ওয়ার জন্ম।
১৯৭৫ - বিশিষ্ট পদার্থ বিজ্ঞানী দেবেন্দ্র মোহন বসুর মৃত্যু
১৯৮৭: বলিউড অভিনেত্রী সোনাক্ষি সিনহার জন্ম
১৯৮৮: অভিনেতা ও নির্দেশক রাজ কাপুরের মৃত্যু
২০১১: গায়ক অমৃক সিং আরোরার মৃত্যু
২০১১: বিশিষ্ট সংবাদ পাঠক তথা আবৃত্তিকার তথা বাচিক শিল্পী দেবদুলাল বন্দ্যোপাধ্যায়ের মৃত্যু



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৪.৫২ টাকা ৭৬.২৩ টাকা
পাউন্ড ৯১.৭৩ টাকা ৯৫.০২ টাকা
ইউরো ৮২.৩৮ টাকা ৮৫.৪৫ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪১,৮৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৯,৭৩০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪০,৩৩০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৮,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৮,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
22nd  March, 2020

দিন পঞ্জিকা

১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ২ জুন ২০২০, মঙ্গলবার, একাদশী ১৭/৫৪ দিবা ১২/৫। চিত্রা নক্ষত্র ৪৪/৫৮ রাত্রি ১০/৫৫। সূর্যোদয় ৪/৫৫/২৮, সূর্যাস্ত ৬/১৩/৪৪। অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৪ মধ্যে পুনঃ ৯/২১ গতে ১২/০ মধ্যে পুনঃ ৩/৩৩ গতে ৪/২৬ মধ্যে। রাত্রি ৬/৫৬ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৫ গতে ২/৪ মধ্যে। বারবেলা ৬/৩৬ গতে ৮/১৫ মধ্যে পুনঃ ১/১৪ গতে ২/৫৪ মধ্যে। কালরাত্রি ৭/৩৪ গতে ৮/৫৪ মধ্যে।
 ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ২ জুন ২০২০, মঙ্গলবার, একাদশী দিবা ৯/৪৬। চিত্রা নক্ষত্র রাত্রি ৯/২১। সূর্যোদয় ৪/৫৬, সূর্যাস্ত ৬/১৫। অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৬ মধ্যে ও ৯/২৪ গতে ১২/৪ মধ্যে ও ৩/৩৮ গতে ৪/৩২ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/২ মধ্যে ও ১১/৫৮ গতে ২/৬ মধ্যে। বারবেলা ৬/৩৬ গতে ৮/১৬ মধ্যে ও ১/১৫ গতে ২/৫৫ মধ্যে। কালরাত্রি ৭/৩৫ গতে ৮/৫৫ মধ্যে।
৯ শওয়াল।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
করোনা: কোন কোন দেশ বেশি আক্রান্ত? 
করোনায় আক্রান্তের বিচারে তালিকায় শীর্ষে রয়েছে আমেরিকা। এদেশে করোনায় আক্রান্ত ...বিশদ

11:20:33 AM

বর্ণ বিদ্বেষের বাইরে নয় ক্রিকেটও: গেইল
শুধু ফুটবল নয়, বর্ণ বিদ্বেষের বাইরে নয় ক্রিকেটও। আজ ...বিশদ

11:17:50 AM

করোনা:আপনার জেলার হাল কী, জানুন 
রাজ্যে নতুন করে আরও ২৭১ জনের শরীরে মিলল করোনা ভাইরাস। ...বিশদ

10:01:00 AM

গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে করোনা আক্রান্ত ৮,১৭১
গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে ৮,১৭১ । ...বিশদ

09:44:00 AM

শিলিগুড়ির ডি আই মার্কেটের ৭ টি দোকানে আগুন 
শিলিগুড়িতে নতুন করে দুইটি দোকান সহ ৭ টি দোকানে আগুন ...বিশদ

09:21:00 AM

ভারত না ইন্ডিয়া, শুনানি আজ 
ভারতের ইংরেজি শব্দ ‘ইন্ডিয়া’। কিন্তু সেই শব্দে আপত্তি জানিয়েছেন নামাহ ...বিশদ

09:06:18 AM