Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

সভাপতি পদে সোনিয়াজির প্রত্যাবর্তনে কংগ্রেস কি ছন্দ ফিরে পাবে
শুভা দত্ত

ছন্দ তো হারিয়েছে বহুদিন। ছন্দে ফেরার চেষ্টা—সেও শুরু হয়েছে বহুদিন। কিন্তু কিছুতেই যেন সেই পুরনো দমদার ছন্দে ফিরতে পারছে না জাতীয় কংগ্রেস! নেহরু-ইন্দিরার আমল থেকে গান্ধী পরিবারের ছত্রচ্ছায়ায় এবং নেতৃত্বে দলের যে অপ্রতিরোধ্য ছন্দ গোটা দেশকে কংগ্রেসি তেরঙ্গায় বেঁধে রেখেছিল, যে ছন্দ কংগ্রেস প্রতীক ইন্দিরার পাঞ্জার উপর বছরের পর বছর দেশের মানুষের আস্থা বিশ্বাস ও আবেগ ধরে রেখেছিল, জরুরি অবস্থা, নাসবন্দির মতো কাণ্ডের পরও যে ছন্দ ক্ষমতার কেন্দ্রে ফিরিয়ে এনেছিল কংগ্রেসকে, ইন্দিরা এবং ইন্ডিয়া হয়ে উঠেছিলেন সমার্থক—জাতীয় কংগ্রেসের সেই অমিত শক্তি রাজনৈতিক ছন্দ অনেক কাল আগেই ইতিহাসের পাতায় ঠাঁই নিয়েছে। একথা বোধকরি কংগ্রেসের অতি বড় সমর্থকও আজ অস্বীকার করতে পারবেন না। তাঁরা একথাও নিশ্চয়ই মানবেন যে, কয়েক বছরের ব্যবধানে ইন্দিরা গান্ধী এবং তাঁর পুত্র রাজীবের মর্মান্তিক প্রয়াণের পর থেকেই কংগ্রেসের সেই আঁটোসাঁটো ছন্দে শিথিলতা দেখা দিতে শুরু করেছিল এবং আজ যে শিথিলতা একরকম দুর্বলতা হয়েই জেঁকে বসেছে দলের সর্বস্তরে, সব চিন্তা ও কার্যক্রমে। বিশেষ করে গত আড়াই মাসের অধিক সভাপতিহীন কংগ্রেসের চলনে-বলনে সেই দুর্বলতার লক্ষণগুলিই যে আরও প্রকটভাবে দেখা গেল তাতেই বা সন্দেহ কি?
১৯৯১ সালে রাজীব গান্ধীর আকস্মিক অকাল মৃত্যুর পর দলের নিয়ন্ত্রণভার কয়েক বছর নরসীমা রাও সীতারাম কেশরীর মতো পোড়খাওয়া প্রবীণদের হাতে ছিল ঠিকই, কিন্তু সেসময়ের বড় বড় স্পর্শকাতর ঘটনায় কী ভিতরে কী বাইরে কংগ্রেস দলের আচরণ অভিব্যক্তি অনেকের কাছেই অনেক ক্ষেত্রে অচেনা ঠেকেছে! ঘটনাগুলির পরিপ্রেক্ষিতে কংগ্রেসের রাজনৈতিক তৎপরতা ও প্রতিক্রিয়াও দেশের সাধারণ মানুষের প্রত্যাশার সঙ্গেও নানা সময় সামঞ্জস্য বজায় রাখতে পারেনি। আমজনতা কংগ্রেস দলের আচরণে খুঁজে পাননি তাঁদের চিরচেনা রাজনৈতিক ছন্দ। অযোধ্যার কথাই ধরা যাক। ১৯৯২ সালের ডিসেম্বরে অযোধ্যার বিতর্কিত সৌধ যেদিন ভাঙা হল সেদিন কেন্দ্রে নরসিমা রাওয়ের নেতৃত্বে কংগ্রেস সরকার, কংগ্রেস দলের প্রধান পরিচালক সভাপতিও তিনি! অথচ, কী প্রধানমন্ত্রী কী জাতীয় দলের সর্বপ্রধান কর্তা হিসেবে কী করলেন তিনি!? অযোধ্যার বিতর্কিত সৌধ ধূলিসাৎ হল প্রায় নির্বিঘ্নে—ইউপির কল্যাণ সিং সরকারের প্রশাসন-পুলিসের সঙ্গে কেন্দ্রীয়-বাহিনী নির্বিকারভাবে করসেবকদের সৌধনিধন দেখে গেল! এই চূড়ান্ত অপ্রীতিকর ঘটনার অনিবার্য ফলশ্রুতিতে দেশজুড়ে আগুন জ্বলল—ঘর-বাড়ি পুড়ল, মানুষ মরল, কলকাতার মতো শান্ত নগরীতে পর্যন্ত দাঙ্গা পরিস্থিতির সৃষ্টি হল, নামল সেনা—বাংলার সাম্প্রদায়িক প্রীতি ও সংহতির শত শতাব্দীপ্রাচীন ঐতিহ্য কিছুটা হলেও ম্লান হল! দেশের ধর্মনিরপেক্ষতা অখণ্ডতা সংহতি ইত্যাদি নিয়ে নানা মহলে নানান অবাঞ্ছিত প্রশ্ন উঠে গেল!
এমন এক ভয়াবহ পরিস্থিতিতে নরসিমা সরকারের ভূমিকা খুব বলিষ্ঠ ছিল তা বোধকরি কেউই বলবেন না। বলবেন কীভাবে? অযোধ্যার বিতর্কিত সৌধ বিনাশের ঘটনায় ইনট্যালিজেন্সের ওই নজিরবিহীন ব্যর্থতার পরও নরসিমা সরকার তেমন কোনও কঠিন পদক্ষেপ করেছিলেন কি? কল্যাণ সিং সরকারের বিরুদ্ধেই বা তেমন কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছিল? দেশের ঐক্য ও সংহতি রক্ষায় ভূরিভূরি প্রস্তাব পাঠের অন্ত ছিল না ঠিকই, কিন্তু পরবর্তীতে তার কটা যথাযথভাবে বাস্তবায়িত হয়েছিল? কিছু প্রতিবাদ ছাড়া দেশের শাসক দল হিসেবে কংগ্রেসই বা আর কী করেছিল! এমন আরও ডজন ডজন প্রশ্ন বিস্ময় সেদিনের কংগ্রেস সরকার ও কংগ্রেস দল সম্পর্কে আজও হয়তো দেশের মনের কোণে কাঁটা হয়ে বিঁধে আছে। এইসব প্রশ্নের সামনে দাঁড়ালে কে আর বলতে পারবেন—সেদিন সরকারের ভূমিকা বলিষ্ঠ ছিল। বলতে পারবেন, তৎকালীন কংগ্রেস সভাপতি সৌধ বিনাশকারীদের বিরুদ্ধে দলকে জাগিয়ে তুলে দেশব্যাপী একটা তোলপাড় সাড়া ফেলে দিতে পেরেছিলেন?!
তথ্যভিজ্ঞরা অনেকে অবশ্য বলেন, ঘটনার আকস্মিকতায় কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে পড়েছিল কংগ্রেসের সরকার ও দলের শীর্ষ নেতৃত্ব। তাই, ঘটনার প্রতিক্রিয়া ঠেকাতে তড়িঘড়ি কোনও কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে পারেননি তাঁরা। সেইসঙ্গে অযোধ্যা নিয়ে সরকারে এবং দলে কিছু ভিন্নমতের উদ্‌গম ব্যাপারটাকে আরও গুলিয়ে দিয়েছিল। সব মিলিয়ে নিজেদের স্বাভাবিক রাজনৈতিক ছন্দ হারিয়ে কার্যত দিশেহারা হয়ে পড়েছিল নরসিমা নেতৃত্বাধীন কংগ্রেস। পরবর্তীতে দলের সভাপতি বদলে নরসিমার জায়গায় সীতারাম কেশরীর মতো দুঁদে কংগ্রেসিকে এনেও যে বিশেষ সুরাহা হয়নি ১৯৯৮ সালের মার্চে সোনিয়া গান্ধী স্বয়ং মঞ্চে প্রবেশ করে সভাপতির আসনে আসীন হয়ে সেটা বুঝিয়ে দিয়েছিলেন!
কিন্তু শুরুতে সোনিয়াজিকেও একটা ধাক্কা খেতে হয়েছে। অটলবিহারী আদবানি যোশীর ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) কংগ্রেসকে ক্ষমতাচ্যুত করেছে। প্রথমবার কদিনের জন্য, তারপর ফুলটার্ম রাজত্ব চালিয়েছেন অটলবিহারী বাজপেয়ি। কার্গিল যুদ্ধ থেকে পোখরান পরমাণু বিস্ফোরণ—কত কিছুই না ঘটেছে তাঁর সময়কালে। পোখরানের পর ভারত পরমাণু শক্তিধর দেশ হিসেবে বিশ্বের দরবারে আত্মপ্রকাশ করেছে। তা সত্ত্বেও অবশ্য ২০০৪ সালে পতন ঠেকাতে পারেননি অটলজি আদবানিজির বিজেপি। দেশের মানুষ ফের একবার গান্ধী ফ্যামিলির প্রতি আস্থা বিশ্বাস দেখিয়ে ফিরিয়ে এনেছে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন প্রথম ইউপিএ সরকার। জনতার আশীর্বাদে দ্বিতীয় ইউপিএ সরকারের ক্ষমতায় আসতেও অসুবিধে হয়নি। আর ক্ষমতায় থাকার মাহাত্ম্য এই যে, তখন সব কিছুকেই মনে হয় ‘শুভ্‌ শুভ্‌’ সব ঠিক হ্যায়—ফার্স্ট কেলাস। ফলে কংগ্রেস হাইকমান্ড তথা সভাপতি হিসেবে সোনিয়াজিকে অন্তত ২০১৪ অবধি দলের সর্বস্তরে কর্তৃত্ব বজায় রাখতে বেগ পেতে হয়নি। এমনকী কংগ্রেসি মন্ত্রী নেতাদের দুর্নীতি বা লাগাতার মূল্যবৃদ্ধির মতো ইস্যুতে দেশ যখন উত্তাল তখনও সভাপতি হাইকমান্ড সোনিয়াজির উপর ভরসা রাখতে কসুর করেনি দল। তখন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের কারও কারও মন্তব্য শুনে মনে হতো, সোনিয়া গান্ধীর সভাপতিত্বে কংগ্রেস খানিকটা হলেও তাঁদের হারানো ছন্দ ফিরে পেয়েছে। এবং এতদ্বারা সোনিয়াজি এটাও প্রমাণ করে দিতে পেরেছেন, জাতীয় কংগ্রেসের হাল ধরতে গান্ধী ফ্যামিলির বিকল্প নেই।
কিন্তু, নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে ২০১৪ সালে নবরূপে বিজেপির প্রবল উত্থানের ধাক্কায় কংগ্রেসের আসন যখন সংসদে বিরোধী দলের মর্যাদা আদায়ের ন্যূনতম যোগ্যতা অর্জনে ব্যর্থ হল, এই মহাবিপর্যয়ের কারণ খুঁজতে দিশেহারা দল, তখন যেন সবকিছু ওলটপালট হতে শুরু করল। তার উপর কিছুদিনের মধ্যেই এসে পড়ল সোনিয়াজির অসুস্থতা! কংগ্রেসের সর্বস্তরে যেন একটা বিপর্যস্ত আবহ তৈরি হয়ে গেল। শীর্ষ নেতৃত্ব বুঝতেই পারছিলেন—সোনিয়াজি অব্যাহতি চাইবেন, আর তাই নতুন নেতা চাই অবিলম্বে।
বলা বাহুল্য, অনিবার্য এবং অবধারিত পছন্দ সোনিয়া-পুত্র গান্ধী রাহুল। হলও তাই। প্রাথমিকভাবে গুজরাত সহ বেশ কয়েকটি রাজ্যের বিধানসভা ভোটে কংগ্রেসের নজরকাড়া ফল কিছু সময়ের জন্য হলেও রাহুলের সুযোগ্যতার নির্ণায়ক হিসেবে দেশজনতার মনে জায়গাও পেল। কিন্তু, ২০১৯ সালের লোকসভা ফলে নরেন্দ্র মোদিজির রেকর্ড সাফল্য এবং কংগ্রেসের অবস্থার তেমন কোনও পরিবর্তন না হওয়ায় (৪৪ থেকে ৫২ আসন) রাহুলে মোহভঙ্গ হল অনেকেরই। সেটা আন্দাজ করেই সরে দাঁড়ালেন রাহুল—সাফ জানালেন, আপাতত সভাপতি থাকবেন না তিনি। ব্যাস, ছত্রখান কংগ্রেস। দেখা গেল, তালাক থেকে ৩৭০ রদ—কোনও ইস্যুতেই আর ঘুরে দাঁড়াতে পারছে না কংগ্রেস! বরং, কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা রদ নিয়ে তো কংগ্রেসের অন্দরে-বাহিরে রীতিমতো মতপার্থক্য জনসমক্ষেই চলে এল! উত্তাল মাঝ সমুদ্রে ক্যাপটেনহীন জাহাজের মতো দেশ রাজনীতির গেরুয়া জোয়ারের মুখে রীতিমতো বিপর্যস্ত বিভ্রান্ত দেখাল কংগ্রেসকে! শক্ত হাল ধরার লোক খুঁজতে মুকুল ওয়াসনিক কুমারী শৈলজা থেকে জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া—কত নামই না এল! টিকল না একটাও! ওয়াসনিকের নামটা চূড়ান্ত হয়েও হল না, নিন্দুকেরা বলছেন—স্বয়ং রাহুল নাকি তাঁর নামে সহমত হতে পারেননি। আর প্রিয়াঙ্কাও আপাতত গররাজি।
অগত্যা সেই সোনিয়াজি! শেষপর্যন্ত গান্ধী ফ্যামিলিতেই আস্থা রাখতে হল কংগ্রেসকে! এবং দলের স্বার্থে অসুস্থতা উপেক্ষা করে সোনিয়াজিকেই অন্তর্বর্তী হিসেবে সভাপতির দায়িত্ব নিতে হল! যুক্তি, বাইরের কেউ হলে দল ভেঙে যাবে। সঙ্গত কারণেই প্রশ্ন উঠছে, সাময়িক হলেও সভাপতি পদে সোনিয়া গান্ধীর এই প্রত্যাবর্তনে কংগ্রেস কি হারানো ছন্দ ফিরে পাবে? কিছুটা তো পাবেই। তার কারণ, যত না সোনিয়াজির ব্যক্তিত্ব ও রাজনৈতিক কলাকৌশল, তার চেয়ে বেশি দলের সর্বস্তরে তাঁর অবিসংবাদী মান্যতা। গান্ধী পরিবারতন্ত্র নিয়ে যাঁরা খোঁচা দেন কংগ্রেসকে, তাঁরা হয়তো এটাকে নতুন সুযোগ ভেবে মজা পাচ্ছেন। কিন্তু, বাস্তবটা হচ্ছে—কংগ্রেস দল এখনও গান্ধী পরিবার নির্ভরতা কাটিয়ে উঠতে পারেনি—কী প্রবীণ কী নবীন কোনও পক্ষই না! কংগ্রেসে গান্ধী পরিবারের প্রতি শর্তহীন আনুগত্যের ট্র্যাডিশন এখনও অব্যাহত।
সেই সুবাদেই হয়তো পরবর্তী স্থায়ী সভাপতি হিসেবে কংগ্রেসি রাজনীতিতে নবাগতা প্রিয়াঙ্কার নাম উঠে আসছে। অদূর ভবিষ্যতে তাঁকে সভাপতির আসনে দেখা যাবে কি যাবে না সেটা সময় বলবে। তবে, এটা নিশ্চিত—চট করে গান্ধী ফ্যামিলির বাইরের লোকের সভাপতির আসন লাভ মুশকিল। আর এক্ষেত্রে কংগ্রেসের সবচেয়ে বড় প্রতিকূলতা কংগ্রেসই। এই প্রতিকূলতা দূর করতে না পারলে কংগ্রেসের সর্বময় কর্তৃত্বে গান্ধীদের একচ্ছত্র আধিপত্য বজায় থাকবে ঠিকই, তবে তাতে দলের পুরনো ছন্দ পুরোপুরি ফিরবে কি না তা নিয়ে দেশরাজ্যের রাজনৈতিক মহলের একাংশে যথেষ্ট সংশয় আছে। তাঁদের বক্তব্য, আজকের রাজনীতিতে গতি এবং ভেদশক্তির তীব্রতা ছাড়া সফল হওয়া মুশকিল। বিশেষ করে নরেন্দ্র মোদি অমিত শাহের মতো জবরদস্ত জুটির সঙ্গে সমানে সমানে লড়তে ওই দুইয়ের বিকল্প নেই। এবং এক্ষেত্রে তাঁরা পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে এর সার্থক দৃষ্টান্ত হিসেবে তুলে ধরছেন। তাঁরা বলছেন, আনুগত্য দিয়ে নিষ্কণ্টক কর্তৃত্ব ভোগ করা চলতে পারে কিন্তু তার সঙ্গে গতি ও ভেদশক্তির সমন্বয় ঘটাতে না পারলে কংগ্রেসের পুরনো ছন্দে ফেরা বা আগামী দিনে সফল হওয়া খুব সহজ হবে না। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা কি খুব ভুল বলছেন?
18th  August, 2019
বিপুল অভ্যর্থনা পেয়ে বিশ্বজয়ী বিবেকানন্দ
কলকাতায় বলেন, এ ঠাকুরেরই ‌জয়জয়কার
হারাধন চৌধুরী

ঠাকুর শ্রীরামকৃষ্ণ বলেছিলেন, ‘‘নরেন শিক্ষে দেবে।’’ ঠাকুরের কথা ফলিয়ে দেওয়ার জন্য তাঁর মানসপুত্রটি বেছে নিয়েছিলেন পাশ্চাত্যের মাটি। কারণ, যে-কোনও জিনিস পাশ্চাত্যের মানুষ গ্রহণ করার পরেই যে ভারতের মানুষ তা গ্রহণে অভ্যস্ত! স্বামী বিবেকানন্দের সামনে সেই সুযোগ এনে দিয়েছিল শিকাগো বিশ্ব ধর্ম মহাসভা।
বিশদ

ট্রাম্পের ভারত সফর এবং প্রাপ্তিযোগের অঙ্ক 

শান্তনু দত্তগুপ্ত: সফর মাত্র দু’ঘণ্টার। আর তাতে আয়োজন পাহাড়প্রমাণ। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলে কথা! তাই এতটুকু ফাঁক রাখতে নারাজ গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী বিজয় রূপানি (বা বেসরকারিভাবে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি)।  বিশদ

18th  February, 2020
টুকরে টুকরে গ্যাং-ই জিতল
পি চিদম্বরম

 গত ১১ ফেব্রুয়ারি লোকসভার কার্যবিবরণীতে নথিভুক্ত নিম্নলিখিত প্রশ্নোত্তরগুলি আনন্দের কারণ হতে পারত যদি না বিষয়টি বিজেপি নেতাদের (এই পঙ্‌ক্তিতে আছেন প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং অন্য মন্ত্রীরাও) দুঃখের ধারাবিবরণীতে পরিণত হতো: বিশদ

17th  February, 2020
স্বর্গলোকে মহাত্মা ও
গুরুদেবের সাক্ষাৎকার
সন্দীপন বিশ্বাস

 অনেকদিন পর আবার দেখা হল মহাত্মা এবং গুরুদেবের। মর্ত্যে দু’জনের প্রথম সাক্ষাৎ ঘটেছিল শান্তিনিকেতনে ১৯১৫ সালে আজকের দিনে অর্থাৎ ১৭ ফেব্রুয়ারি। তারপর বেশ কয়েকবার তাঁদের দেখা হয়েছিল। কবিগুরু সবরমতী আশ্রমে গিয়েছিলেন ১৯২০ সালে। বিশদ

17th  February, 2020
এবার হ্যাটট্রিকের দোরগোড়ায় অগ্নিকন্যা
হিমাংশু সিংহ

তবে কি দিল্লিতে হেরে বোধোদয় হল অমিত শাহদের? নাকি ভোট জেতার নামে ঘৃণা ছড়ানো ঠিক হয়নি বলাটা আরও বড় কোনও নাটকের মহড়ারই অংশ? বোঝা কঠিন, তুখোড় রাজনীতিকরা কোন উদ্দেশ্যে কখন কোন খেলাটা খেলেন! আর সেই তালে অসহায় জনগণকে তুর্কি নাচন নাচানো চলে অবলীলায়। 
বিশদ

16th  February, 2020
শাহিনবাগে যেসব কথা জানানো হয়নি

 ‘যত্র নার্যস্তু পূজ্যন্তে রমন্তে তত্র দেবতাঃ’, যেখানে মহিলারা পূজিতা হন সেখানেই ভগবান অবস্থান করেন। ভারতবর্ষের মানুষ হাজার বছর ধরে এই শ্লোক আবৃত্তি করে এসেছে। গত একমাসের বেশি সময় ধরে দিল্লির শাহিনবাগে শিশু থেকে বৃদ্ধা বিভিন্ন বয়সের মহিলাদের কষ্ট দেওয়া হয়েছে। বিশদ

15th  February, 2020
মাফলার ম্যানের দিল্লি জয়
মৃণালকান্তি দাস 

ঠেকে শিখেছেন তিনি। ‌‌‌‌পদস্থ আমলা থেকে রাজনীতিক এবং প্রশাসক হিসেবে পরিণত হয়েছেন। বুঝেছেন, এ দেশের আমআদমি বাড়ির কাছে ভালো স্কুল, কলেজ, হাসপাতাল চান। বাড়ির মেয়েদের নিরাপত্তা নিয়েই তাঁদের উদ্বেগ। 
বিশদ

14th  February, 2020
রাজনীতির কাছে মানুষের চাহিদাটাই
বদলে দিল দিল্লির এই ভোট-সংস্কৃতি
হারাধন চৌধুরী

 প্রতিমা গড়ে পুজো করা আর ভগবানকে লাভ করা এক নয়। প্রতিমা সাজিয়ে পুজো যে-কেউ করতে পারে। কিন্তু, ভগবান লাভ? মানুষ চিরদিন মনে করে এসেছে, সে শুধু সাচ্চা সাধকের পক্ষেই সম্ভব। কিন্তু, ঠাকুর শ্রীরামকৃষ্ণ এসে একেবারে অন্যকথা বললেন।
বিশদ

13th  February, 2020
সেনাবাহিনীও যখন রাজনীতির অস্ত্র
শান্তনু দত্তগুপ্ত

লঞ্চপ্যাড মাত্র ৫০ মিটার দূরে... অন্ধকারের মধ্যেই তাঁর চোখ দু’টো খুঁজে চলেছে... নজরে এসেও গেল দুই জঙ্গি... ছায়ার মতো সেঁটে আছে লঞ্চপ্যাডের অন্ধকারে। নাইট ভিশন গ্লাস চোখে লাগিয়ে নিশ্চিত হলেন মেজর মাইক ট্যাঙ্গো। আগেভাগে নিশ্চিত হয়ে নেওয়ার কারণ আরও ছিল তাঁর কাছে।
বিশদ

11th  February, 2020
রাজস্ব-শৃঙ্খলা অক্ষুণ্ণ রেখেই জনমুখী বাজেট
দেবনারায়ণ সরকার

২০২১-এর বিধানসভা নির্বাচনের আগে এটাই অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্রের শেষ পূর্ণাঙ্গ বাজেট। এই বাজেট নিঃসন্দেহে জনমুখী, তবে রাজস্ব-শৃঙ্খলা (ফিসকাল ডিসিপ্লিন) যথেষ্ট বজায় রেখে জনমুখী বাজেট পেশ করলেন অমিতবাবু। প্রথমে রাজস্ব-শৃঙ্খলার প্রসঙ্গে আসা যাক। বিশদ

11th  February, 2020
মানুষ কী চায়, বুঝিয়ে দেবে দিল্লির ভোটের ফল
সন্দীপন বিশ্বাস

বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় তাঁর ‘বাহুবল ও বাক্যবল’ নিবন্ধে দুই প্রকার বলের প্রভূত ব্যাখ্যা করেছেন। যদিও তিনি বলেছেন, বাহুবল পশুর বল এবং বাক্যবল মানুষের বল, তা সত্ত্বেও মনুষ্য সমাজে বাহুবলের প্রয়োগ অনবরত দেখা যায়। মানুষের বল সমাজ গঠনে কখনও কখনও নিশ্চয়ই কাজে লাগে। কিন্তু দেখা যায় বেশিরভাগ ক্ষেত্রে মানুষ আপন স্বার্থে এই বাহুবলকে ব্যবহার করে। 
বিশদ

10th  February, 2020
সরকার দিশেহারা এবং ভীত
পি চিদম্বরম

অর্থমন্ত্রী বাধ্য হয়েছেন সরকারি ব্যয় নামক একমাত্র ‘ইঞ্জিন’-এর উপর আস্থা রাখতে। কিন্তু এই ইঞ্জিনটাও যে জ্বালানি সঙ্কটে ভুগছে এবং নড়বড়ে রাজকোষের ভূতের ছায়াটিও পড়ছে সরকারের উপর! তীব্র বেকারত্ব এবং ব্যাপক হারে ছোট ও মাঝারি শিল্প-ব্যবসা চৌপাট হয়ে যাওয়ার মতো দুটি ভয়ঙ্কর ইস্যুও অস্বীকার করেছেন অর্থমন্ত্রী। সাম্প্রতিককালে ভারতের অর্থনীতিকে সবচেয়ে কঠিন যে চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হয়েছে সেটা হল—স্বঘোষিত শক্তিমান এবং নির্ণায়ক (ডিসিসিভ) সরকার—যে সরকার নিজেকে দিশেহারা এবং ভীত বলেই প্রতিপন্ন করেছে।
বিশদ

10th  February, 2020
একনজরে
সৌম্যজিৎ সাহা, কলকাতা: শিক্ষাকর্মী নিয়োগ করতে চলেছে রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়। তার মধ্যে দীর্ঘ এক দশকেরও বেশি সময় পর ক্লারিকাল পদ এবং প্রায় সাত বছর পর গ্রুপ ডি পদে নিয়োগ হবে। তার লিখিত পরীক্ষার জন্য এই প্রথম একটি বাইরের এজেন্সিকে দায়িত্ব দিল ...

 করাচি, ১৮ ফেব্রুয়ারি (পিটিআই): পাকিস্তানের করাচিতে রহস্যময় বিষাক্ত গ্যাসে মৃত্যু হল কমপক্ষে ১৪ জনের। গুরুতর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন বহু মানুষ। মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছে করাচির প্রশাসন। ...

সংবাদদাতা, শিলিগুড়ি: উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে কিরণচন্দ্র মেমোরিয়াল আন্তঃকলেজ টি-২০ ক্রিকেট প্রতিযোগিতায় মঙ্গলবার প্রথম খেলায় বাগডোগরার কালীপদ ঘোষ তরাই মহাবিদ্যালয় ৬ উইকেটে পরাজিত করে বানারহাট কার্তিক ওঁরাও হিন্দি কলেজকে। এদিন টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় কালীপদ ঘোষ তরাই মহাবিদ্যালয়।  ...

থানে, ১৮ ফেব্রুয়ারি (পিটিআই): মহারাষ্ট্রের কল্যাণ ডোম্বিভালি পুরসভার এক বরিষ্ঠ আধিকারিকের বিরুদ্ধে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল। আর তার ভিত্তিতে সোমবার দুর্নীতি দমন শাখার পক্ষ থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। বালাসাহেব যাদব পেশায় পুরসভার এক্সিকিউটিভ ইঞ্জিনিয়র। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

মানসিক অস্থিরতার জন্য পঠন-পাঠনে আগ্রহ কমবে। কর্মপ্রার্থীদের যোগাযোগ থেকে উপকৃত হবেন। ব্যবসায় যুক্ত হলে শুভ। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৪৭৩: জ্যোতির্বিজ্ঞানী কোপারনিকাসের জন্ম
১৬৩০: মারাঠারাজ ছত্রপতি শিবাজির জন্ম
১৮৬১: দক্ষিণেশ্বরে কালীমন্দিরের প্রতিষ্ঠাতা রানি রাসমণির মৃত্যু
১৮৯১: দৈনিক হিসেবে প্রকাশিত হল অমৃতবাজার পত্রিকা
১৯১৫ : ভারতীয় রাজনীতিবিদ গোপালকৃষ্ণ গোখলের মৃত্যু
১৯৭৮: রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী পঙ্কজকুমার মল্লিকের মৃত্যু
১৯৮৬: কম্পিউটার রিজার্ভেশন ব্যবস্থা চালু করল রেল





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৫৯ টাকা ৭২.২৯ টাকা
পাউন্ড ৯১.২৪ টাকা ৯৪.৫৬ টাকা
ইউরো ৭৫.৯২ টাকা ৭৮.৮৭ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪১,৬৪৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৯,৫১০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪০,১০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৬,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৬,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৬ ফাল্গুন ১৪২৬, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বুধবার, (মাঘ কৃষ্ণপক্ষ) একাদশী ২২/১১ দিবা ৩/৩। পূর্বাষাঢ়া অহোরাত্র। সূ উ ৬/১০/১৮, অ ৫/৩১/৪, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪০ মধ্যে পুনঃ ৯/৫৭ গতে ১১/২৮ মধ্যে পুনঃ ৩/১৫ গতে ৪/৪৬ মধ্যে। রাত্রি ৬/২২ গতে ৮/৫৪ মধ্যে পুনঃ ১/৫৭ গতে উদায়াবধী। বারবেলা ৯/০ গতে ১০/২৫ মধ্যে পুনঃ ১১/৫০ গতে ১/১৫ মধ্যে। কালরাত্রি ৩/০ গতে ৪/৩৫ মধ্যে।
৬ ফাল্গুন ১৪২৬, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বুধবার, একাদশী ২৭/৪২/৫৮ সন্ধ্যা ৫/১৮/৩৯। মূলা ৬/২৭/৫৬ দিবা ৮/৪৮/৩৮। সূ উ ৬/১৩/২৮, অ ৫/২৯/৫৬। অমৃতযোগ দিবা ৭/৩১ মধ্যে ও ৯/৫১ গতে ১১/২৪ মধ্যে ও ৩/১৮ গতে ৪/৫১ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/২৭ গতে ৮/৫৫ মধ্যে ও ১/৫১ গতে ৬/১৩ মধ্যে। কালবেলা ৯/২/৩৫ গতে ১০/২৭/৮ মধ্যে। কালরাত্রি ৩/২/৩৫ গতে ৪/৩৮/২ মধ্যে।
২৪ জমাদিয়স সানি

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
দেশজুড়ে স্বচ্ছ ভারত অভিযানের দ্বিতীয় ভাগ শুরু করার অনুমোদন দিল কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা 

04:10:17 PM

নিউটাউনে শিশুকন্যাকে নির্যাতনের অভিযোগ
বছর তিনেকের এক শিশুকন্যাকে নির্যাতনের অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হল এক ...বিশদ

04:01:00 PM

নিউটাউনে বধূকে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগ স্বামী ও শাশুড়ির বিরুদ্ধে
নিউটাউনে বধূকে আত্নহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগ উঠল স্বামী ও শাশুড়ির ...বিশদ

03:45:00 PM

মাধ্যমিক: চাঁচলে প্রশ্ন ফাঁস করতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পড়ল পরীক্ষার্থী 
মোবাইলের মাধ্যমে ছবি তুলে প্রশ্ন ফাঁস করতে গিয়ে ধরা পড়ল ...বিশদ

03:14:30 PM

মালদহে টিকটকের মাধ্যমে মাধ্যমিকের প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ 
হোয়াটসঅ্যাপের পর এবার টিকটকের মাধ্যমে মাধ্যমিকের প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ উঠল। ...বিশদ

03:10:22 PM

মাধ্যমিকের দ্বিতীয় দিনও প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ 
মধ্যশিক্ষা পর্ষদের কড়া ব্যবস্থা। প্রশাসনিক নজরদারি সত্ত্বেও ফের মাধ্যমিকের প্রশ্ন ...বিশদ

01:49:16 PM