Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

শুধু উন্নয়ন নয়, ভোটের জন্য চাই ভালো মাস্টার
তন্ময় মল্লিক

মোটা বেতন দিয়ে মাস্টার রাখলেই ছেলেমেয়ে মানুষ হয় না। তেমনটা হলে সব বড়লোকের ছেলেমেয়েই উচ্চশিক্ষিত হতো। কিন্তু, তা তো হয় না। ছাত্রছাত্রীর পড়াশোনায় আগ্রহ, মেধা যেমন থাকা দরকার, তেমনই নজরদারিটাও জরুরি। ফাঁকিবাজি থাকলেই ছাত্র হয় গাড্ডু খাবে, অথবা ‘বিবেচনায়’ পাশ। কথাগুলো কোনও শিক্ষাবিদ বা বিদগ্ধজনের নয়, বাঁকুড়ার মুকুটমণিপুর জলাধার লাগোয়া এক ছোট্ট স্টল মালিকের। জঙ্গলমহল সহ গ্রাম বাংলার পরিকাঠামোয় প্রভূত উন্নয়ন, শান্তি প্রতিষ্ঠা সত্ত্বেও লোকসভা ভোটে তৃণমূলের শোচনীয় ফলের কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়েই তাঁর এই উপমা।
এই ভদ্রলোক ঝুপড়ি থেকে পাকা স্টলের মালিক হয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেসের জামানাতেই। আগে জলাধারের পাশে গুমটিতে ডোকরা, পুঁতি সহ হাতের কাজের মালপত্র নিয়ে বসতেন। সেই সব ঝুপড়ি, গুমটি এখন ঢালাই দেওয়া স্টল। সৌজন্যে মা-মাটি-মানুষের সরকার। মুকুটমণিপুরকে পর্যটকদের কাছে আকর্ষণীয় করতে এবং হস্তশিল্পীদের মাথার উপর ছাদ দিতে ৪০টির মতো স্টল তৈরি করেছে সরকার। সেই স্টলের একটি পেয়েছেন এই ছিপছিপে চেহারার মানুষটি। তৃণমূল পরিচালিত সরকারের বেনিফিশিয়ারি হলেও তাঁর মনে ‘পাওয়ার আনন্দ’ নেই। উল্টে বিস্তর ক্ষোভ।
না, এই স্টল মালিক বিরোধী রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন, এমনটা ভাবার কোনও কারণ নেই। বরং তৃণমূলের সঙ্গে সখ্যের সূত্রেই তাঁর কপালে জুটেছে সরকারি উদ্যোগে তৈরি স্টল। তবুও তাঁর মনে ক্ষোভ। ক্ষোভের কারণ, নিয়ম মেনে স্টল তৈরি না করা।
ওই স্টল মালিক বলছিলেন, দেখুন, এই স্টলগুলির উচ্চতা মাত্র সাত ফুট। সিলিং ফ্যান লাগালে হাত কেটে যাওয়ার ভয়। এমনিতেই বাঁকুড়া, পুরুলিয়ায় গরমে টেকা দায়। তার উপর ছাদের হাইট কম। বুঝতেই পারছেন, কী অবস্থা। যতদিন ব্যবসা করব, ততদিন এই যন্ত্রণা বইতে হবে। অথচ খোঁজ নিয়ে দেখুন, সরকার স্টলের হাইট ১০ ফুট করার কথাই বলেছিল। কিন্তু, কাটমানির লোভ ১০ ফুটকে টেনে করে দিল ৭ ফুট। তাহলে এবার বুঝুন, সরকার আমাদের ভালোর জন্য একটা প্রকল্প তৈরি করল, টাকা দিল। কিন্তু যাদের হাতে পড়ল, তারা এমন কাণ্ড ঘটাল যে সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতার বদলে নেতাদের উপর মানুষ চটে গেল। ঠিকাদার মার্কা নেতাদের কৃতকর্মের সব দায় গিয়ে পড়ল সরকারের উপর।
চোখের সামনে সাত ফুট উচ্চতায় ঢালাই হচ্ছে দেখেও প্রতিবাদ করতে পারলাম না। মানে সাহসে কুলালো না। কারণ এখানে তো বেশিরভাগ নেতা হয় ঠিকাদার, না হয় সুপারভাইজার। দলটা ঠিকাদার, আর সুপারভাইজারদের দখলে চলে যাওয়াতেই যত বিপত্তি। তাই উন্নয়ন করলেই ভোটে জেতা যায়—এটা ভুল ধারণা। কৌশলী হতে হয়। উন্নয়নটা ঠিকমতো হচ্ছে কি না, সেটা খতিয়ে দেখা দরকার। সেই জন্যই বলছিলাম, শুধু মাস্টারের পিছনে টাকা ঢাললেই ছেলেমেয়ে মানুষ হয় না, নজরদারি ভীষণ জরুরি।
উত্তরবঙ্গের সুদূর কোচবিহার থেকে দক্ষিণবঙ্গের ঝাড়গ্রাম পর্যন্ত লোকসভা ভোটে তৃণমূলের ভয়াবহ বিপর্যয়ের কারণ অনুসন্ধান করলে দেখা যাবে, দলের চার আনা, আট আনা নেতাদের ঠিকাদার ও সুপারভাইজার হয়ে ওঠা এবং তাদের সঙ্গে ‘আত্মীয়তাই’ সবচেয়ে বেশি প্রভাব ফেলেছে। দল যাঁদের মাস্টারি করার দায়িত্ব দিয়েছিল, তাঁদের বেশিরভাগই এলাকায় গিয়ে কর্মীদের সঙ্গে বৈঠক না করে বসতেন ‘ঠিকাদার নেতার’ সঙ্গে ‘আত্মীয়তার সম্পর্ক’ ঝালিয়ে নিতে। আর তাতেই সারা হয়ে যেত পর্যবেক্ষণের কাজ।
ঠিকাদারদের দল হয়ে গেলে পার্টির রসাতলে যেতে যে বেশি সময় লাগবে না—এই ইঙ্গিত দিয়ে গিয়েছিলেন প্রবাদপ্রতিম কমিউনিস্ট নেতা বিনয়কৃষ্ণ চৌধুরী। বর্ধমান টাউনহলে জলসম্পদ দপ্তরের এক অনুষ্ঠানে ফেটে পড়েছিল তাঁর দীর্ঘদিনের জমে থাকা ক্ষোভ। সেই সভায় বিনয়বাবু বলেছিলেন, আমার বলতে কোনও দ্বিধা নেই, সরকার এখন মানুষের জন্য ভাবছে না। সরকার এখন ’ফর দ্য কন্ট্রাক্টর, অফ দ্য কন্ট্রাক্টর, বাই দ্য কন্ট্রাক্টর।’ প্রবীণ কমিউনিস্ট নেতার সতর্কবার্তায় সেদিন সিপিএমের দণ্ডমুণ্ডের কর্তারা কর্ণপাত করেননি। উল্টে চরম অপ্রিয় এবং চরম সত্যি কথাটা বলে ফেলায় দলে তাঁকে তীব্র সমালোচিত হতে হয়েছিল। এমনকী, তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসু পর্যন্ত তাঁকে ভর্ৎসনা করতে ছাড়েননি।
তৃণমূলের আমলে দলের মধ্যে ঠিকাদার ও সুপারভাইজারদের দাপট বেশ বেড়ে গিয়েছিল। আর সেটা মারাত্মক আকার নিয়েছিল ২০১৬ সালে দ্বিতীয়বার ক্ষমতা দখলের পর। প্রায় বিরোধীশূন্য রাজ্যে সর্বত্র তৃণমূলের নেতারা নামে বেনামে ঠিকাদারিতে নেমে পড়েন। ‘টেন্ডার’ শব্দটিই হাওয়া হয়ে গিয়েছিল। গ্রামের মধ্যে ড্রেন তৈরি হয়েছে। কিন্তু, সেই নিকাশি নালার জল কোথায় গিয়ে পড়বে, তা দেখা হয়নি। টাকা খরচ করাটাই উদ্দেশ্য হয়ে গিয়েছিল। কারণ যত উন্নয়ন, তত পকেটমানি।
হুগলি জেলার আরামবাগ লোকসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত পুরশুড়া বিধানসভায় তৃণমূলের বিপুল ভোটে পিছিয়ে থাকার পিছনেও এক যুব নেতার ঠিকাদারি ব্যবসা এবং ফুলেফেঁপে ওঠাকেই অনেকে দায়ী করছেন। ওই নেতার দাপটে দলের প্রবীণ এবং আদিদের নাভিশ্বাস ওঠার জোগাড় হয়েছিল। বাঁকুড়ার খাতড়াতেও এক ঠিকাদার নেতার ভূমিকা জঙ্গলমহলে বিরূপ প্রভাব ফেলেছে। বর্ধমান শহরেও এক প্রভাবশালী নেতার দাপট এতটাই বেড়ে গিয়েছিল যে শহরবাসী মুখ ফিরিয়ে নিতে বাধ্য হয়েছেন। শুধু সাধারণ মানুষ নয়, দলের বেশিরভাগ নেতা তাঁর কাজে ক্ষুব্ধ। কিন্তু কিছু করার নেই। কারণ দলের মাস্টারমশাইদের সঙ্গে তাঁর ‘আত্মীয়তার সম্পর্ক’।
বলা দরকার, জায়গার নামগুলি এখানে অপ্রাসঙ্গিক। কারণ রাজ্যের প্রায় সর্বত্রই একই ঘটনা ঘটেছে। প্রায় প্রতিটি জায়গায় এরকম কিছু দাপুটে নেতার জন্যই উন্নয়নের সুফল তৃণমূল ঘরে তুলতে পারেনি। অথচ ভোটের আগে দিস্তা দিস্তা অভিযোগ জমা দিয়েও দাপুটেদের ঠান্ডা করা যায়নি। কারণ দলের মাস্টারমশাইদের সঙ্গে দাপুটেদের সম্পর্ক অতীব ‘মধুর’। ফলে সমস্ত অভিযোগের পিছনেই কাণ্ডারীরা দেখতে পেতেন, ষড়যন্ত্রের গভীর ছায়া। পুলিসি ঘেরাটোপের লালগাড়িতে অভ্যস্ত হয়ে যাওয়া কাণ্ডারীরা ভেবেছিলেন, প্রায় বিরোধীশূন্য রাজ্যে মানুষ হয়তো তাঁদের এভাবেই স্যালুট
জানিয়ে যাবে। তাই ঠান্ডিগাড়িতে বসে গুনগুনিয়ে গাইতেন, ‘এমনি করেই যায় যদি দিন যাক না।’
কিন্তু তাঁরা ভুলে গিয়েছিলেন, ‘চিরদিন কাহারও সমান নাহি যায়’ বলেও একটি গান আছে।
ইতিহাস শিক্ষা দেয়। ইতিহাসকে যাঁরা মনে রাখেন, তাঁদের ভবিষ্যতের পথচলা অনেক মসৃণ হয়। ইতিহাস শিক্ষা দিয়েছে, নেতাদের দলে টেনে নেওয়া যত সহজ, মানুষকে ধরে রাখা ঠিক ততটাই কঠিন। ভালোবাসা আর সম্মানে ঘাটতি হলেই মানুষ ২৩৬ থেকে একটানে ৩৬ করে দিতে পারে। আবার ৩৪ থেকে বাইশও হয়।
অম্বিকানগর, বাঁকুড়া জেলার রানিবাঁধের প্রত্যন্ত এলাকা। অত্যন্ত দুর্গম ও জঙ্গলঘেরা হওয়ায় ইংরেজ আমলে গোরা পুলিসকে ধোঁকা দিতে স্বাধীনতা সংগ্রামীরা এই এলাকায় গা ঢাকা দিতেন। বারিকুলের ছেন্দাপাথর ছিল স্বাধীনতা সংগ্রামীদের নিরাপদ আস্তানা। কথিত আছে, বিপ্লবী ক্ষুদিরাম বসু গোরা পুলিসদের নাগাল এড়াতে এই ছেন্দাপাথরেই আত্মগোপন করেছিলেন।
সেই দুর্গমতার জন্যই রানিবাঁধ হয়ে উঠেছিল ‘মাওবাদীদের অভয়ারণ্য’। খুন আর অপহরণের আতঙ্কে রাত জাগত জঙ্গলমহল। সন্ধ্যার আগেই ঝুপ ঝুপ করে পড়ে যেত দোকানের ঝাঁপ। কিন্তু, সেই রানিবাঁধ, সেই বারিকুল, সেই অম্বিকানগর এখন এতটাই মসৃণ যে কোনও রকম ঝাঁকুনি ছাড়াই কলকাতা থেকে চলে আসা যায় মুকুটমণিপুর। নিরাপত্তা এখন এতটাই সুনিশ্চিত যে গভীর রাতেও বাড়ির বাইরে থাকা লোকজনের জন্য পরিবারের দুশ্চিন্তা হয় না। সৌজন্যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নিন্দুকও একথা স্বীকার করে। তবুও...।
লোকসভা ভোটে বহু আসনে হেরেছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল। বিপুল ভোটে। কারণটা শোনা যাক গুরুপদ প্রামাণিকের মুখে। গ্রামের মধ্যে একটা ছোট্ট সেলুনে চুলদাড়ি কেটে তাঁর সংসার চলে। গুরুপদ একজন ছাপোষা মানুষ। গুরুপদর অবস্থা হরিপদ কেরানির চেয়েও খারাপ। কিন্তু, মেরুদণ্ডটা এখনও ঠিকঠাক, সোজা। ভোট বিপর্যয়ের পরেও মার খাওয়ার ভয়ে আত্মগোপন করতে হয়নি। এখনও নিজেকে তৃণমূল কর্মী বলেই দাবি করেন। ভোলও বদলাননি। গুরুপদ কিন্তু এই ফলে অবাক নন।
গুরুপদ বলেন, এটাই তো হওয়ার কথা ছিল। আমাদের এখানে একটা গ্রামে আবাস যোজনার সাতটি বাড়ির অনুমোদন এসেছিল। তিনজন পেয়েছিল, চারজনকে দেওয়া হয়নি। কারণটা কী জানেন, নেতাদের দেওয়ার জন্য ওই চারজনের গোরু বা হাল কিছুই ছিল না, যা ওরা বিক্রি করতে পারত। একেবারে হতদরিদ্র। অথচ যারা কাটমানি দিতে না পারায় ঘর পেল না, তারা কিন্তু আমাদেরই লোক ছিল। এরপরেও ওদের ভোট আশা করা যায়?
১০০ দিনের প্রকল্পে কাজ না করে কত লোকে টাকা পেত। তাতে যারা গতর খাটিয়ে টাকা নিত, তাদের রাগ হয়ে গেল। আমি এসবের প্রতিবাদ করেছিলাম বলে আমাকে ঘর থেকে বেরতে বাধা দিল। কারা বাধা দিল জানেন? এক সময় যারা লালপার্টির লোক ছিল। এরপরেও তৃণমূল জিতলে বা ভালো ফল করলে দলটা শুধরোত না। গুরুপদ চায়ে শেষ চুমুকটা দিয়ে ভাঁড়টা ফেলে দিলেন।
অনেক আগেই সন্ধ্যা নেমেছে। ফেরার জন্য পা বাড়তেই গুরুপদ সেলুন ছেড়ে পিছন পিছন এলেন। বললেন, তবে একটা কথা মনে রাখবেন, মানুষ তৃণমূলকে ফেলতে চায়নি, ধাক্কা দিতে চেয়েছে। এই ধাক্কায় যদি লোহার বিমে লাগা মরচে খসে যায় তাহলে ফের জঙ্গলমহল হাসবে। আর যদি উপর উপর রং করে দেওয়া হয়, তাহলে মরচে একদিন হয়তো গোটা বিমটাকেই খেয়ে ফেলবে।
10th  August, 2019
আম আদমির বাজেট প্রত্যাশা
শান্তনু দত্তগুপ্ত

কর্পোরেট কর ২৫ শতাংশ, আর ব্যক্তিগত আয়কর ৩০ শতাংশ... এটা তো হতে পারে না! কাজেই আসন্ন বাজেটে ব্যক্তিগত আয়করের দিক থেকে সাধারণ চাকরিজীবীরা লাভবান হতে পারেন। তাও বিষয়টা সম্ভাবনা আকারেই আছে। তার কারণ, লোকসভা নির্বাচন সদ্য শেষ হয়েছে। আগামী চার বছর তো মোদি সরকার নিশ্চিন্ত! এখনই আয়করে বড় ছাড়ের মতো ঘোষণা করে দিলে ভোটের আগে কী হবে?এই প্রশ্ন আপাতত শনিবার পর্যন্ত সিন্দুকে তোলা থাক।
বিশদ

সবচেয়ে ভালোর জন্য আশা করে সবচেয়ে খারাপের জন্য প্রস্তুতি
পি চিদম্বরম

আর একটি বছর শুরু হল, আর একটি বাজেট পেশের অপেক্ষা, এবং এটি ভারতীয় অর্থনীতির আর একটি গুরুতর বছর। ২০১৬-১৭ সাল থেকে প্রতিটি বছর আমাদের জন্য অনেক বিস্ময় এবং ব্যথা নিয়ে এসেছে। ২০১৬-১৭ গিয়েছে সর্বনাশা নোটবন্দির বছর। ত্রুটিপূর্ণ জিএসটি এবং সেটা তড়িঘড়ি রূপায়ণের বছর গিয়েছে ২০১৭-১৮।  বিশদ

26th  January, 2020
সংবিধান ও গণতন্ত্রের ভিত দুর্বল হলে ভারতের আত্মাও বিপন্ন হতে বাধ্য
হিমাংশু সিংহ

১৫ আগস্ট যদি দেশের জন্মদিন হয়, তাহলে ২৬ জানুয়ারি হচ্ছে কোন মতাদর্শ ও আইন মেনে কীসের ভিত্তিতে দেশ পরিচালিত হবে, তার লিখিত বয়ান চূড়ান্ত করার বর্ণাঢ্য উদযাপনের শুভ মুহূর্ত। নবজাতক শিশু স্কুলে ভর্তি হলে একটা নির্দিষ্ট নিয়ম শৃঙ্খলা মেনে ধীরে ধীরে পরিণত হয়। 
বিশদ

26th  January, 2020
১৬০০ কোটি টাকায় কী হতে পারে?
মৃণালকান্তি দাস

শুধুমাত্র অসমে এনআরসি প্রক্রিয়া করতে গিয়েই সরকার খরচ করে ফেলেছে ১৬০০ কোটি টাকা! এত টাকা কীভাবে খরচ হল সেটা খতিয়ে দেখতে দাবি উঠেছে সিবিআই তদন্তের। শুধু তাই-ই নয়, এই এনআরসি করতে বিপুল আর্থিক দুর্নীতি হয়েছে, এই অভিযোগ তুলেছেন অসমের বিজেপি নেতা তথা অর্থমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা। সেই দুর্নীতির কথা ধরা পড়েছে ক্যাগের প্রতিবেদনেও। এনআরসির মুখ্য সমন্বয়কারী প্রতীক হাজেলাকে মধ্যপ্রদেশে বদলি করে দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। মুখ লুকোনোর জায়গা পাচ্ছে না বিজেপি।
বিশদ

25th  January, 2020
মুখ হয়ে ওঠার নিরন্তর প্রয়াস
তন্ময় মল্লিক

কথায় আছে, মুখ হচ্ছে মনের আয়না। আবার কেউ কেউ মনে করেন, সুন্দর মুখের জয় সর্বত্র। তাই অনেকেরই ধারণা, সাফল্য লাভের গুরুত্বপূর্ণ উপাদানই হল মুখ। রাজনীতিতেও সেই মুখের গুরুত্ব অপরিসীম। তবে রাজনীতিতে সৌন্দর্য অপেক্ষা অধিকতর প্রাধান্য পেয়ে থাকে মুখের কথা, ভাষাও।  
বিশদ

25th  January, 2020
নিরপেক্ষ রাজনৈতিক চেতনার অভাব
সমৃদ্ধ দত্ত

 আজকাল একটি বিশেষ শ্রেণীর কাছে দুটি শব্দ খুব অপছন্দের। সেকুলার এবং ইন্টেলেকচুয়াল। ওই লোকটিকে আমার পছন্দ নয়, কারণ লোকটি সেকুলার। ওই মানুষটি আসলে সুবিধাবাদী এবং খারাপ, কারণ তিনি ইন্টেলেকচুয়াল। সমাজের এই অংশের উচ্চকিত তর্জন গর্জন হাসি ঠাট্টা কটাক্ষ শুনলে মনে হবে, সেকুলার হওয়া বোধহয় সাংঘাতিক অপরাধ। বিশদ

24th  January, 2020
বাজেটের কোনও অঙ্কই মিলছে না, আসন্ন বাজেটে বৃদ্ধিতে গতি ফিরবে কীভাবে?
দেবনারায়ণ সরকার

বস্তুত, বর্তমান অর্থবর্ষে ভারতের অর্থনীতির চিত্র যথেষ্ট বিবর্ণ। সমৃদ্ধির হার ক্রমশ কমে ৫ শতাংশে নামার ইঙ্গিত, যা ১১ বছরে সর্বনিম্ন। মুদ্রাস্ফীতি গত ৩ বছরে সর্বাধিক। শিল্পে সমৃদ্ধির হার ৮ বছরে সর্বনিম্ন। পরিকাঠামো শিল্পে বৃদ্ধির হার ১৪ বছরে সর্বনিম্ন। বিদ্যুতের চাহিদা ১২ বছরে সর্বনিম্ন। বেসরকারি লগ্নি ১৬ বছরে সর্বনিম্ন। চাহিদা কমায় বাজারে ব্যাঙ্ক লগ্নি কমেছে, যা গত ৫৮ বছরে সর্বনিম্ন। রপ্তানিও যথেষ্ট ধাক্কা খাওয়ার ইঙ্গিত বর্তমান বছরে। এর উপর ভারতে বেকারত্বের হার গত ৪৫ বছরে সর্বনিম্ন।
বিশদ

24th  January, 2020
ক্ষমা করো সুভাষ
জয়ন্ত চৌধুরী

মুক্তিপথের অগ্রদূত তিনি। অখণ্ড ভারত সাধনার নিভৃত পথিক সুভাষচন্দ্রের বৈপ্লবিক অভিঘাত বাধ্য করেছিল দ্রুত ক্ষমতা হস্তান্তরের পটভূমি রচনা করতে। দেশি বিদেশি নিরপেক্ষ ঐতিহাসিকদের লেখনীতে আজাদ হিন্দের অসামান্য আত্মত্যাগ স্বীকৃত হয়েছে। সর্বাধিনায়কের হঠাৎ হারিয়ে যাবার বেদনা তাঁর জন্মদিনেই বড় বেশি স্পর্শ করে যায়।  
বিশদ

23rd  January, 2020
স্বামীজি, বিশ্বকবি ও নেতাজির খিচুড়ি-বিলাস
বিকাশ মুখোপাধ্যায়

মঙ্গলকাব্য থেকে কাহিনীটা এভাবে শুরু করা যেতে পারে।
সকাল সকাল ঘুম থেকে উঠেই মা দুর্গা নন্দিকে তলব করেছেন, যাও ডাব পেড়ে নিয়ে এসো।
নন্দির তখনও গতরাতের গাঁজার খোঁয়ার ভাঙেনি। কোনওরকমে জড়ানো স্বরে বলল, ‘এত্তো সকালে মা?’  বিশদ

23rd  January, 2020
‘যে আপনকে পর করে...’
শান্তনু দত্তগুপ্ত

মহাত্মা গান্ধী একটা কথা বলতেন, মনপ্রাণ দিয়ে দেশের সেবা যিনি করেন, তিনিই সত্যিকারের নাগরিক। নাগরিক কাহারে কয়? বা নাগরিক কয় প্রকার ও কী কী? এই জাতীয় প্রশ্ন এখন দেশে সবচেয়ে বেশি চর্চিত। সবাই নিজেকে প্রমাণে ব্যস্ত। ভালো নাগরিক হওয়ার চেষ্টাচরিত্র নয়, নাগরিক হতে পারলেই হল। তার জন্য কাগজ লাগবে। এক টুকরো কাগজ প্রমাণ করবে, আপনি আমি ভারতের বাসিন্দা।   বিশদ

21st  January, 2020
আইন ও বাস্তব
পি চিদম্বরম

আপনি যখন এই লেখা পড়ছেন তখন ইন্টারনেট, আন্দোলন, জনসমাবেশ, রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড, ভাষণ ও লেখালেখি এবং কাশ্মীর উপত্যকার পর্যটকদের উপর নিয়ন্ত্রণ জারি রয়েছে। কোনোরকম ‘চার্জ’ ছাড়াই রাজনৈতিক নেতাদের হেপাজতবাসও চলছে যথারীতি। সুতরাং প্রশ্ন উঠছে—আদালতের রায়ের পরেও বাস্তবে কিছু পরিবর্তন হয়েছে কি?
বিশদ

20th  January, 2020
নেতাজি—আঁধারপথে অনন্ত আলোর দীপ্তি
সন্দীপন বিশ্বাস

স্বাধীনতার পর অতিক্রান্ত বাহাত্তর বছর। কিন্তু আজও যেন তার নাবালকত্ব ঘুচল না। আসলে দেশের যাঁরা হাল ধরেন, তাঁরাই যদি নাবালকের মতো আচরণ করেন, তাহলে দেশও নাবালকই থেকে যায়। এই নাবালকত্ব আসলে এক ধরনের অযোগ্যতা। সেই অযোগ্যতার পথ ধরেই দেশ ডুবে আছে অসংখ্য সঙ্কটে। দুর্নীতিই হল সেই সঙ্কটের মধ্যমণি।  
বিশদ

20th  January, 2020
একনজরে
সংবাদদাতা, আলিপুরদুয়ার: নির্বাচনে কংগ্রেসের সঙ্গে জোট প্রশ্নে ফ্রন্টের বড় শরিক সিপিএমের সঙ্গে আর কোনও তিক্ততা নয়। তাই আসন্ন আলিপুরদুয়ার পুরভোটে বামফ্রন্টের সঙ্গে কংগ্রেস থাকলেও শরিক আরএসপি’র কোনও অসুবিধা নেই।   ...

সংবাদদাতা, গুসকরা: গোরুর বাঁটে মুখ লাগিয়ে দিব্যি দুধ খাচ্ছে ছাগলের বাচ্চা। এমনই ঘটনা দেখতে সোমবার নিমেষের মধ্যে ভিড় জমে যায় আউশগ্রামের বেরেণ্ডা পঞ্চায়েত এলাকার কুরুম্বার ...

বিএনএ, বহরমপুর: এবার প্রতিটি বিধানসভা কেন্দ্রে তিনজন করে পিওসি (পয়েন্ট অব কন্ট্রাক্ট) নিয়োগ করবে টিম পিকে। প্রতিটি জেলা থেকে বিধায়ক এবং ব্লক সভাপতিদের কাছ থেকে বিধানসভা কেন্দ্রভিত্তিক তিনজনের নাম চেয়ে পাঠানো হয়েছিল। সেইমতো জেলা থেকে নাম পাঠানো হয়েছে।   ...

লুজিওবেলজানা, ২৭ জানুয়ারি (এএফপি): পদত্যাগের কথা ঘোষণা করলেন স্লোভানিয়ার প্রধানমন্ত্রী মারযান সারেক। সোমবার তিনি নতুন করে নির্বাচনের ডাক দেন। ২০১৮ সালে স্লোভানিয়ার প্রধানমন্ত্রী হন সারেক। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

শিক্ষার জন্য দূরে কোথাও যেতে পারেন। প্রেম-প্রণয়ে নতুন যোগাযোগ হবে। বিবাহের কথাবার্তাও পাকা হতে পারে। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৫৫৬:দ্বিতীয় মোঘল সম্রাট হুমায়ুনের মৃত্যু
১৮৬৫: স্বাধীনতা সংগ্রামী পাঞ্জাব কেশরী লালা লাজপত রাইয়ের জন্ম
১৮৯৮: ভারতের মাটিতে পা রাখলেন ভগিনী নিবেদিতা
১৯২৫: বিজ্ঞানী রাজা রামান্নার জন্ম
১৯৩০: গায়ক যশরাজের জন্ম
১৯৩৭: গায়িকা সুমন কল্যাণপুরের জন্ম





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৬৪ টাকা ৭২.৩৪ টাকা
পাউন্ড ৯১.৭৩ টাকা ৯৫.০২ টাকা
ইউরো ৭৭.৩৫ টাকা ৮০.৩৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪১,৩২০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৯,২০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৯,৭৮০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৭,৪৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৭,৫৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১৩ মাঘ ১৪২৬, ২৮ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার, (মাঘ শুক্লপক্ষ) তৃতীয়া ৫/৩ দিবা ৮/২২। শতভিষা ৭/৩৪ দিবা ৯/২৩। সূ উ ৬/২১/২১, অ ৫/১৭/৩৫, অমৃতযোগ দিবা ৮/৩২ গতে ১০/৪৩ মধ্যে পুনঃ ১২/৫৪ গতে ২/২২ মধ্যে পুনঃ ৩/৫ গতে ৪/৩৩ মধ্যে। রাত্রি ৬/৯ মধ্যে পুনঃ ৮/৪৬ গতে ১১/২২ মধ্যে পুনঃ ২/০ গতে ৩/৪৪ মধ্যে। বারবেলা ৭/৪৩ গতে ৯/৫ মধ্যে পুনঃ ১/১২ গতে ২/৩৪ মধ্যে। কালরাত্রি ৬/৫৬ গতে ৮/৩৪ মধ্যে।
১৩ মাঘ ১৪২৬, ২৮ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার, তৃতীয়া ০/৪৫/৪৫ প্রাতঃ ৬/৪২/৩৩। শতভিষা ৪/৩৯/৩৪ দিবা ৮/১৬/৫। সূ উ ৬/২৪/১৫, অ ৫/১৬/২৮, অমৃতযোগ দিবা ৮/৩১ গতে ১০/৪৩ মধ্যে ও ও ১২/৫৬ গতে ২/২৫ মধ্যে ও ৩/৯ গতে ৪/৩৭ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/১৩ মধ্যে ও ৮/৪৯ গতে ১১/২৫ মধ্যে। কালবেলা ১/১১/৫৩ গতে ২/৩৩/২৫ মধ্যে। কালরাত্রি ৬/৫৪/৫৬ গতে ৮/৩৩/২৫ মধ্যে।
২ জমাদিয়স সানি

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
 ফের বিক্ষোভের মুখে রাজ্যপাল
ফের বিক্ষোভের মুখে পড়তে হল রাজ্যপাল জগদীপ ধনকারকে। আজ, মঙ্গলবার ...বিশদ

01:05:56 PM

 আদনান সামিকে পদ্মশ্রী: কেন্দ্রকে তোপ এনসিপির, পাল্টা বিজেপিও
পাক বংশোদ্ভূত গায়ক আদনান সামিকে পদ্মশ্রী পুরস্কার দেওয়া নিয়ে কেন্দ্রকে ...বিশদ

12:13:56 PM

কালনায় নৌকাডুবি
কালনা ফেরিঘাটে একটি চাল বোঝাই নৌকা ডুবে যাওয়ার ঘটনা ঘটল। ...বিশদ

12:07:00 PM

বাঁকুড়ায় ঝগড়া থামাতে বলায় শ্বাসরোধ করে খুন বৃদ্ধাকে
প্রতিবেশীর সঙ্গে ঝগড়া থামাতে বলায় এক বৃদ্ধাকে শ্বাসরোধ করে খুন ...বিশদ

11:59:05 AM

  উত্তর ২৪ পরগনায় প্রথম সরকারি ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের উদ্বোধন আজ
উত্তর ২৪ পরগনা জেলায় প্রথম সরকারি ইংরেজি মাধ্যম উচ্চ মাধ্যমিক ...বিশদ

11:45:23 AM

সাতসকালেই গুলি চলল চোপড়ায়
সাতসকালেই গুলি চলল উত্তর দিনাজপুরের চোপড়ায়। গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর জখম ...বিশদ

11:33:40 AM