Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

কলকাতা কি প্রবীণদের জন্য ক্রমশ বিপজ্জনক হয়ে উঠছে?
শুভা দত্ত

বুধবার ভোরের কাগজে চোখ রাখতেই এমন একটা প্রশ্ন যেন বুকের মধ্যে শেল হয়ে বিঁধল। এ কী কাণ্ড সব হচ্ছে! খুনের পর খুন! আর সেই খুনিদের টার্গেট কিনা নিরীহ সাধারণ প্রৌঢ় আর প্রবীণ! কী অপরাধ তাঁদের? অপরাধ তাঁরা বাড়িতে একলা থাকেন, তাঁদের ছেলেমেয়েরা হয়তো চাকরিসূত্রে দেশের অন্য রাজ্যে বা দূর বিদেশে। অপরাধ—তাঁদের একটা ছোট বড় জমি বাড়ি বাগান বা ফ্ল্যাট আছে, আছে সারাজীবন কষ্ট করে রোজগারের কিছু টাকা-পয়সা, ব্যাঙ্ক আমানত, গয়নাগাটি। ব্যাস, এই অপরাধেই তাঁরা অভিযুক্ত এবং টার্গেট! তাঁদের শাস্তি নির্মম নিষ্ঠুর মৃত্যুদণ্ড। কখনও গলা টিপে বা মুখে বালিশ চাপা দিয়ে শ্বাসরোধ করে, কখনও পেছন থেকে মাথায় লোহার রডের বাড়ি মেরে, কখনও কুপিয়ে পুড়িয়ে বা সরাসরি গুলি করে কার্যকর হচ্ছে সে মৃত্যুদণ্ড! সাফল্যে উজ্জ্বল দিন মাস বছরের শেষে এসে চূড়ান্ত মর্মান্তিকভাবে যবনিকাপাত ঘটছে অসহায় প্রবীণ-প্রৌঢ় জীবনগুলিতে! তার চেয়েও দুর্ভাগ্যজনক হল এই যে, অনেক ক্ষেত্রেই হতভাগ্যদের করুণ পরিণতির কথা জানতে বেশ কয়েকদিন কেটে যাচ্ছে প্রতিবেশী প্রিয়জন পুলিসের। শেষে লাশপচা গন্ধে, নয়তো ঘটনাচক্রে জানা যাচ্ছে তাঁদের ভয়াবহ পরিণতির কথা—উদ্ধার হচ্ছে দণ্ডপ্রাপ্তদের বীভৎস পচাগলা দেহ!
কে দিচ্ছে এমন সব পৈশাচিক দণ্ড! কে আবার? সংশ্লিষ্টের জমিবাড়ি সম্পত্তি হাতাতে হতভাগ্যেরই চেনাশোনা কেউ—সে আত্মীয়পরিজন হতে পারে বা পরিবারের ঘনিষ্ঠ বাইরের লোক, বা তাদের কারও প্ররোচনায় কোনও জমি-হাঙর প্রমোটার বা বাড়িতে কাজ করে যাওয়া রাজমিস্ত্রি কি নিত্যদিনের ঠিকে কাজের মেয়ে-পুরুষ সাফাইওয়ালা, দারোয়ান কি ইস্ত্রিওয়ালা—যে কেউ! যে সুযোগ পাচ্ছে সে-ই দণ্ড দিতে ঝাঁপিয়ে পড়ছে! অথচ, মজার ব্যাপারটা এই যে, এদের কাউকেই ওইসব নিহত প্রবীণেরা কোনওদিন সন্দেহভাজনের তালিকায় রাখেননি, বরং গভীর আস্থায় হয়তো তাদের কাউকে কাউকে একান্ত আপনজন ভেবে বলে ফেলেছেন পারিবারিক গোপন কথা, জমিজমা, সম্পত্তির মান-পরিমাণের খবর। ব্যাস! আর যায় কোথায়! অপরাধী মন ছক কষতে শুরু করে দিয়েছে আর সেইসঙ্গেই শুরু হয়ে গিয়েছে সংশ্লিষ্ট প্রবীণ দম্পতি কি একাকী প্রৌঢ় কি অশক্ত কোনও বৃদ্ধ-বৃদ্ধার অন্তিম দিনগোনা, তাঁদের জন্য এক নারকীয় পরিণতির গোপন আয়োজন উদযোগ! পরিকল্পনা এমন সুচতুর এবং সাজানো-গোছানো যে, অতি পরিচিত হলেও আততায়ীর অভিসন্ধিও ঘুণাক্ষরে টের পাচ্ছেন না টার্গেট প্রবীণ প্রৌঢ়রা! যখন তা পাচ্ছেন তখন মরণদূত তার যাবতীয় বীভৎসা এবং কষ্টযন্ত্রণা নিয়ে চৌকাঠে এসে দাঁড়িয়েছে! তার কাছে অসহায় আত্মসমর্পণ ছাড়া তখন ওই প্রবীণ প্রৌঢ়দের আর কিছুই করার থাকছে না।
বুধবারের খবরের কাগজে এমন পৈশাচিকতার একাধিক ঘটনা পড়তে পড়তে তাই ওই প্রশ্নটাই মন উঠে এল, বিঁধল বুকে—তাহলে কি কলকাতা প্রবীণদের জন্য ক্রমশ ক্রমশ আরও বিপজ্জনক হয়ে উঠছে?! নাহলে একদিনে একজোড়া দম্পতির খুনের ঘটনা উঠে আসে কাগজের পাতায়! নাহলে বেহালার শিশিরবাগানের বৃদ্ধা শুভ্রা ঘোষদস্তিদার, কড়েয়ার বিশ্বজিৎ বসু, লেক থানা এলাকার শ্যামলী ঘোষের মতো প্রৌঢ় প্রবীণেরা পরের পর এভাবে এমন নৃশংসভাবে খুন হয়ে যান! গত বুধবার যে দুই দম্পতির মর্মান্তিক পরিণতির কথা খবরের কাগজে ছাপা হয়েছে তাঁদের এক পক্ষ থাকতেন দক্ষিণ কলকাতার নেতাজিনগরে নিজের বাড়িতে এবং অন্য দু’জন ছিলেন নরেন্দ্রপুর পঞ্চায়েত এলাকায় একটি বাগানবাড়িতে! নেতাজিনগরে খুনের পরদিন সকালে কলের মিস্ত্রি এসে নিহত দুই প্রবীণ দিলীপ ও স্বপ্না মুখোপাধ্যায়ের নিথর দেহ আবিষ্কার করে। পরে পুলিস এসে দেহ নিয়ে যায়। আর নরেন্দ্রপুরে প্রৌঢ় প্রদীপ ও আলপনা বিশ্বাসের পচাগলা দেহ উদ্ধার হয় খুনের বেশ কিছুদিন পরে! পুলিস এই দুই খুনের ঘটনাতেই কয়েকজনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ চালাচ্ছে, হয়তো আগামী দিনে খুনিও ধরা পড়বে। নাও পড়তে পারে। যেমন বেহালা শিশিরবাগানের খুনি এখনও অধরা, কড়েয়ার বিশ্বজিৎ খুনেরও কিনারা হয়নি। তবে, ফ্ল্যাট হাতাতে লেক থানায় খুন শ্যামলীদেবীর আততায়ী কিন্তু ধরা পড়েছে, খুনের কিনারাও হয়েছে।
কিন্তু, সেটুকুতে কি আজ শহর মহানগর থেকে গ্রাম পঞ্চায়েত কোথাও একা বসবাসকারী প্রবীণ-প্রবীণা, প্রৌঢ়-প্রৌঢ়ারা আর আশ্বস্ত হতে পারছেন? জমি, বাড়ি, ফ্ল্যাট, সম্পত্তি, টাকাকড়ির জন্য লোভ যেভাবে বাড়ছে আর সেই লোভে নরকের কীটেরা যেভাবে সাধারণ গৃহস্থের বাড়িতে হানা দিয়ে অনর্থ ঘটাচ্ছে, নির্মমভাবে খুন করে দিচ্ছে, আত্মহত্যায় প্ররোচনা দিচ্ছে, যেভাবে পশুর মাংসকাটা কসাইদের লাগানো বাড়ছে এইসব খুনে, কেটে খণ্ডখণ্ড করে ব্যাগে পুরে যেভাবে দেহ লোপাটের চল শুরু হয়েছে, তাতে বৃদ্ধবৃদ্ধা কেন, কোনও মানুষই কি নিশ্চিন্তবোধ করতে পারেন!? পারেন না। এবং পারেন যে না সেটা স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্বেগই প্রমাণ করেছে গত বুধবার। সেদিন নবান্নে তিনি সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, এভাবে খুন করে জমি, বাড়ি, সম্পত্তি হাতানো যাবে না। যারা তা করতে যাবে পুলিস-প্রশাসন তাদের জন্য দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করবে।
শুধু তাই নয়, রাজ্যের প্রবীণদের আশ্বস্ত করে তিনি বলেছেন তাঁর সরকার প্রবীণদের নিরাপত্তায় গাফিলতিও কোনওভাবেই বরদাস্ত করবে না। বৃদ্ধবৃদ্ধার নিঃসঙ্গতা অসহায়তার সুযোগ নিয়ে কোনও প্রমোটার বা দুর্বুদ্ধি যদি চাপ দিয়ে জমিবাড়ি কব্জা করতে চায় তাহলেও কঠিন কঠোর পদক্ষেপ করবে পুলিস ও সংশ্লিষ্ট প্রশাসন। মুখ্যমন্ত্রীর এই আশ্বাসে কিছুটা হলেও হয়তো কলকাতা সহ রাজ্যের বয়স্কমহলে নিরাপত্তা নিয়ে বিশ্বাস ফিরবে।
অবশ্য, প্রবীণদের নিরাপত্তা নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী এর আগেও সচেষ্ট হয়েছেন এবং তার ফলশ্রুতিতেই ‘প্রণাম’ বলে একটি প্রবীণ সেবা প্রকল্প অনেকদিন হল সক্রিয়। তাতে ১৪ হাজারের মতো প্রবীণ-প্রবীণা নথিভুক্ত। কিন্তু, কলকাতাতেই আজ নাকি বৃদ্ধ-বৃদ্ধার সংখ্যা তিন লাখ ছাড়িয়ে আর রাজ্যে সংখ্যাটা পৌনে এক কোটির কাছাকাছি। সুতরাং বোঝাই যাচ্ছে সামগ্রিকভাবে যদি প্রবীণ মানুষজনের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করতে হয় তবে আরও বড় পরিকাঠামো এবং আধুনিক প্রযুক্তি লাগবে। এবার মহানগর-শহর-শহরতলির প্রবীণদের নাম, ঠিকানা ইত্যাদি যাবতীয় তথ্য নিয়ে একটি ভাণ্ডার অর্থাৎ ডেটা-বেস গড়ে তোলার উদ্যোগ সেই লক্ষ্যেই মমতা সরকারের আরও একটি সময়োচিত পদক্ষেপ সন্দেহ নেই। তথ্যভিজ্ঞজনেদের মতে, প্রবীণদের জন্য ওই তথ্যভাণ্ডার তৈরি হলে পুলিস-প্রশাসনের পক্ষে নজরদারি যেমন সহজ হবে, তেমনি কোনও সমস্যা হলেও সংশ্লিষ্ট প্রবীণ-প্রবীণার নিকট আত্মীয়ের সঙ্গে যোগাযোগেও বিশেষ সুবিধা হবে।
কিন্তু, কথা হল—কেবল নিরাপত্তা আঁটোসাঁটে করেই কি রাজ্যের প্রবীণদের এই ঘৃণ্য পিশাচদের আক্রমণ থেকে রক্ষা করা যাবে? সমাজবিজ্ঞানীরা কী বলবেন জানি না, তবে আমাদের মনে হয়—যতক্ষণ না মানুষজন, বিশেষত বয়স্ক নাগরিক তাঁদের নিরাপত্তার ব্যাপারে আরও সচেতন হবেন, আপন আপন বিষয়সম্পত্তির খোঁজখবর কারও কাছে প্রকাশের আগে সতর্ক হবেন, ঘরে ঘরে সিসিটিভি’র ব্যবহার বাড়বে ততক্ষণ বিপদের ভয়টা থেকেই যাবে। কারণ, সরকার যত ব্যবস্থাই নিন, জনে জনে নিরাপত্তা দেওয়া তো সম্ভব নয়। সরকারি নিরাপত্তা ব্যবস্থার সুযোগ নিতেও প্রবীণ নাগরিকদের কিছু ভূমিকা থেকে যায়, যেমন বাড়িতে পরিচারিকা থাকলে তার সম্বন্ধে থানায় তথ্য ছবি দিয়ে রাখা ইত্যাদি।
আসলে, যেদিন থেকে আমরা গোটা বিশ্বের সঙ্গে মিলেমিশে গেছি, হাতের মুঠোয় পেয়ে গেছি পৃথিবীর এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্ত ভোগের চমকদার উপকরণ ও উপায়, যেদিন থেকে সরাসরি আমাদের চোখে মনে মায়াজাল ছড়াতে শুরু করেছে সেদিন থেকে আমাদের লোভ মাত্রাছাড়া হয়ে উঠেছে। সেই লোভ মেটাতে টাকা জোগাড়ে কেউ উদয়াস্ত খাটছে, আর কেউ এভাবে মেরেধরে পরের কষ্টার্জিত হাতিয়ে নিতে লেগেছে। প্রমোটারির মতো কাঁচা টাকার বাণিজ্য গেড়ে বসার পর পরের জমি, বাড়ি, ধনসম্পদ হাতিয়ে নেওয়ার চক্র দিন দিন আরও সক্রিয় হয়েছে। খুন করে লাশ গুম করে কি আত্মহত্যায় বাধ্য করে সাধারণ নিরীহের সবকিছু কেড়েকুড়ে নেওয়ার ভয়াবহ কাণ্ডকারখানার রমরমা দেখা দিয়েছে। আজ সেজন্য একদিকে স্নেহ, মায়া, দয়ার যেমন আকাল পড়েছে, তেমনি বিশ্বাস করাটা হয়ে উঠেছে রীতিমতো বিপজ্জনক। একটু মন খুলে কথা বলা বা বিপদে-আপদে সহযোগিতা চাওয়া অনেক ক্ষেত্রেই হয়ে উঠছে মারাত্মক প্রাণঘাতী।
বিগত বেশ কিছু বছর ধরে, বলা ভালো নতুন শতাব্দীর শুরু থেকেই পরিস্থিতি এমন নেতিবাচক বিপন্নতার দিকে মোড় নিয়েছে। দিনের পর দিন সেই বিপন্নতা বেড়েই চলেছে। নানান সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিয়েও সামলানো যাচ্ছে না। ফেরানো যাচ্ছে না আস্থা, বিশ্বাস, ভালোবাসার সেই পুরনো জগৎ। আর সেজন্যই বাড়ছে প্রতারণা, হিংসা, বাড়ছে গুমখুন গণপ্রহারে খুনের ঘটনা এবং অবশ্যই ঘরে-বাইরে বয়স্ক নাগরিকের নির্যাতন নিগ্রহ নির্মম হত্যা। এই নির্বিবেক ভয়াবহতার হাত থেকে কবে মুক্তি মিলবে সেই চিন্তাতেই এখন আকুল বাংলা, বাংলার বয়স্ক নাগরিক সমাজ। উপায় কী!
04th  August, 2019
এনকাউন্টার, আইন এবং ন্যায়বিচার
শান্তনু দত্তগুপ্ত 

জাস্টিস ইজ ডান। নীচে একটা স্মাইলি... প্ল্যাকার্ডে লেখা বলতে শুধু এটাই। কোনও কায়দা নেই। নেই রাজনীতির রং। নেহাতই সাদা কাগজে মোরাদাবাদের স্কুলের ছাত্রীদের হাতে লেখা কাগজগুলো বলছে, এবার হয়তো আমরা নিরাপদ হব।
বিশদ

10th  December, 2019
আর ক’জন ধর্ষিতা হলে রামরাজ্য পাব
সন্দীপন বিশ্বাস 

রাত অনেক হল। মেয়েটি এখনো বাড়ি ফেরেনি। কোথাও আটকে গিয়েছে। অনেক লড়াই করে, পুরুষের সঙ্গে পাশাপাশি ঘাম ঝরিয়ে তাকে বেঁচে থাকতে হয়। বাড়িতে বাবা-মা অস্থির হয়ে ওঠেন।  বিশদ

09th  December, 2019
অর্থনীতিবিদদের ছাড়াই অর্থনীতি
পি চিদম্বরম

প্রত্যেকেই অর্থনীতিবিদ। যে গৃহবধূ পরিবার সামলানোর বাজেট তৈরি করেন, তাঁকে থেকে শুরু করে একজন ডেয়ারি মালিক যিনি দুধ বিক্রির জন্য গোদোহন করেন এবং একজন ছোট উদ্যোগী যিনি বড় নির্মাণ ব্যবসায়ীর জন্য যন্ত্রাংশ তৈরি করেন, সকলেই এই গোত্রে পড়েন।  বিশদ

09th  December, 2019
বাজার আগুন, বেকারত্ব লাগামছাড়া,
শিল্পে মন্দা, সরকার মেতে হিন্দুরাষ্ট্রে
হিমাংশু সিংহ

 দেশভাগ, শরণার্থীর ঢল, বার বার ভিটেমাটি ছাড়া হয়ে উদ্বাস্তু হওয়ার তীব্র যন্ত্রণা আর অভিশাপের মাশুল এই বাংলা বড় কম দেয়নি। ইতিহাস সাক্ষী, সাবেক পূর্ববঙ্গের শত শত নিরাশ্রয় মানুষকে নিজের বুকে টেনে নিতে গিয়ে প্রতি মুহূর্তে তৈরি হয়েছে নতুন নতুন সঙ্কট। বদলে গিয়েছে গোটা রাজ্যের জনভিত্তি।
বিশদ

08th  December, 2019
বাঙালি হিন্দু উদ্বাস্তুর প্রাপ্য অধিকার
জিষ্ণু বসু

 কয়েকদিন আগেই রাজ্যসভায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের কথা বলেছেন। চলতি অধিবেশনেই হয়তো পাশ হবে ঐতিহাসিক নাগরিকত্ব সংশোধনী। এটি আইনে রূপান্তরিত হলে পাকিস্তান, বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান থেকে ধর্মীয় কারণে অত্যাচারিত হয়ে আসা হিন্দু, জৈন, বৌদ্ধ, শিখ, খ্রিস্টান ও পারসিক সম্প্রদায়ের মানুষেরা এদেশের পূর্ণ নাগরিকত্ব পাবেন।
বিশদ

08th  December, 2019
কর্পোরেটদের যথেষ্ট সুবিধা দিলেও অর্থনীতির বিপর্যয় রোধে চাহিদাবৃদ্ধির সম্ভাবনা ক্ষীণ
দেবনারায়ণ সরকার

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তাঁর ‘ক্ষণিকা’ কাব্যগ্রন্থে ‘বোঝাপড়া’ কবিতায় লিখেছিলেন, ‘ভালো মন্দ যাহাই আসুক সত্যেরে লও সহজে।’ কিন্তু কেন্দ্রের অন্যান্য মন্ত্রীরা থেকে শুরু করে অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন ভারতীয় অর্থনীতির চরম বেহাল অবস্থার বাস্তবতা সর্বদা চাপা দিতে ব্যস্ত। 
বিশদ

07th  December, 2019
অণুচক্রিকা বিভ্রাট
শুভময় মৈত্র

সরকারি হাসপাতালে ভিড় বেশি, বেসরকারি হাসপাতালের তুলনায় সুবিধে হয়তো কম। তবে নিম্নবিত্ত মানুষের তা ছাড়া অন্য কোনও পথ নেই। অন্যদিকে এটাও মাথায় রাখতে হবে যে রাজ্যে এখনও অত্যন্ত মেধাবী চিকিৎসকেরা সরকারি হাসপাতালে কাজ করেন। 
বিশদ

06th  December, 2019
সার্ভিল্যান্স যুগের প্রথম পরীক্ষাগার উইঘুর সমাজ
মৃণালকান্তি দাস

চীনের সংবাদ মানেই তো যেন সাফল্যের খবর। সমুদ্রের উপর ৩৪ মাইল লম্বা ব্রিজ, অতিকায় যাত্রী পরিবহণ বিমান তৈরি, প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে নয়া উদ্ভাবন, চাঁদের অপর পিঠে অবতরণ...। মিহিরগুল তুরসুনের ‘গল্প’ সেই তালিকায় খুঁজেও পাবেন না। ১৪১ কোটি জনসংখ্যার চীনে মিহিরগুল মাত্র সোয়া কোটি উইঘুরের প্রতিনিধি। 
বিশদ

06th  December, 2019
আর ঘৃণা নিতে পারছে না বাঙালি
হারাধন চৌধুরী

 এটাই বোধহয় আমার শোনা প্রথম কোনও ছড়া। আজও ভুলতে পারিনি। শ্রবণ। দর্শন। স্পর্শ। প্রথম অনেক জিনিসই ভোলা যায় না। জীবনের উপান্তে পৌঁছেও সেসব অনুভবে জেগে থাকে অনেকের। কোনোটা বয়ে বেড়ায় সুখানুভূতি, কোনোটা বেদনা। এই ছড়াটি আমার জীবনে তেমনই একটি। যখন প্রথম শুনেছি তখন নিতান্তই শিশু। বিশদ

05th  December, 2019
আগামী ভোটেও বিজেপির গলার কাঁটা এনআরসি
বিশ্বনাথ চক্রবর্তী

রাজ্যের তিন বিধানসভা কেন্দ্রে বিজেপির বিপর্যয় বিশ্লেষণ করতে গিয়ে যখন ওই প্রার্থীদের পরাজয়ের ব্যাপারে সকলেই একবাক্যে এনআরসি ইস্যুকেই মূল কারণ হিসেবে চিহ্নিত করেছেন, তখনও বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব এনআরসিতে অটল। তিন বিধানসভা কেন্দ্রের বিপর্যয়ের পর আবারও অমিত শাহ এনআরসি কার্যকর করবার হুংকার ছেড়েছেন।  
বিশদ

03rd  December, 2019
সিঁদুরে মেঘ ঝাড়খণ্ডেও
শান্তনু দত্তগুপ্ত

ভারতের গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে একটা কথা বেশ প্রচলিত... এদেশের ভোটাররা সাধারণত পছন্দের প্রার্থীকে নয়, অপছন্দের প্রার্থীর বিরুদ্ধে ভোট দিয়ে থাকেন। ২০১৪ সালে যখন নরেন্দ্র মোদিকে নির্বাচনী মুখ করে বিজেপি আসরে নামল, সেটা একটা বড়সড় চমক ছিল। 
বিশদ

03rd  December, 2019
আচ্ছে দিন আনবে তুমি এমন শক্তিমান!
সন্দীপন বিশ্বাস

আমাদের সঙ্গে কলেজে পড়ত ঘন্টেশ্বর বর্ধন। ওর ঠাকুর্দারা ছিলেন জমিদার। আমরা শুনেছিলাম ওদের মাঠভরা শস্য, প্রচুর জমিজমা, পুকুরভরা মাছ, গোয়ালভরা গোরু, ধানভরা গোলা সবই ছিল। দেউড়িতে ঘণ্টা বাজত। ছিল দ্বাররক্ষী। কিন্তু এখন সে সবের নামগন্ধ নেই। ভাঙাচোরা বাড়ি আর একটা তালপুকুর ওদের জমিদারির সাক্ষ্য বহন করত। 
বিশদ

02nd  December, 2019
একনজরে
বিএনএ, আসানসোল: ডিসেম্বরের শুরুতে জাঁকিয়ে শীত না পড়লেও দুর্গাপুর ব্যারেজ সহ চিত্তরঞ্জনের নানা ঝিল ও মাইথন জলাধারে পরিযায়ী পাখির দল ভিড় জমাতে শুরু করেছে। বেশ কয়েক বছর আগে পরিযায়ী পাখির আগমন উল্লেখযোগ্যভাবে কমে গেলেও ফের তাদের সংখ্যা বাড়ছে।   ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, হাওড়া: রোগীকে অন্য হাসপাতালে স্থানান্তর করার প্রক্রিয়া হতে দেরি হওয়ার অভিযোগে বুধবার বিকেলে ফুলেশ্বরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভাঙচুর চালাল রোগীর আত্মীয়রা। এই ঘটনাকে ...

 ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে যেসব সংস্থার শেয়ার গতকাল লেনদেন হয়েছে শুধু সেগুলির বাজার বন্ধকালীন দরই নীচে দেওয়া হল। ...

 রাষ্ট্রসঙ্ঘ, ১১ ডিসেম্বর (পিটিআই): রাষ্ট্রসঙ্ঘের প্রধান অ্যান্তোনিও গুতেইরেস চান, কোনও দেশের সরকারই যেন বিভেদমূলক আইন কার্যকর না করে। তবে, ভারতের লোকসভায় পাশ হওয়া নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল সম্পর্কে তিনি কোনও মন্তব্য করতে চান না। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
aries

আত্মবিশ্বাস এত বৃদ্ধি পাবে যে, কোনও কাজই কঠিন মনে হবে না। সঞ্চয় বেশ ভালো হবে। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯১১: রদ হল বঙ্গভঙ্গ
১৯১১: নতুন রাজ্য হল বিহার ও ওড়িশা
১৯১১: কলকাতা থেকে রাজধানী স্থানান্তরিত হল দিল্লিতে
১৯৫০: অভিনেতা রজনীকান্তের জন্ম
১৯৫৭: পূর্ব রেলে ইএমইউ ট্রেনযাত্রা চালু
২০০৫: পরিচালক রামানন্দ সাগরের মূত্যু





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.০৪ টাকা ৭১.৭৪ টাকা
পাউন্ড ৯১.৪৭ টাকা ৯৪.৮০ টাকা
ইউরো ৭৭.১৫ টাকা ৮০.১৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,২৭৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,৩১৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৬,৮৬০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৩,৬০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৩,৭০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, পূর্ণিমা ১১/১৯ দিবা ১০/৪২। রোহিণী ০/২৮ দিবা ৬/২২। সূ উ ৬/১০/৪৫, অ ৪/৪৯/১৯, অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৫ মধ্যে পুনঃ ১/১৬ গতে ২/৪১ মধ্যে। রাত্রি ৫/৪২ গতে ৯/১৬ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৬ গতে ৩/৩০ মধ্যে পুনঃ ৪/২৪ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ২/১০ গতে অস্তাবধি, কালরাত্রি ১১/২৯ গতে ১/৯ মধ্যে।
২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, পূর্ণিমা ১১/৫৬/৫১ দিবা ১০/৫৯/৫। রোহিণী ২/৩৮/১৪ দিবা ৭/১৫/৩৯, সূ উ ৬/১২/২১, অ ৪/৪৯/৪১, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৭ মধ্যে ও ১/২৩ গতে ২/৪৮ মধ্যে এবং রাত্রি ৫/৪৮ গতে ৯/২৩ মধ্যে ও ১২/৪ গতে ৩/৩৯ মধ্যে ও ৪/৩৩ গতে ৬/১৩ মধ্যে, কালবেলা ২/১০/২১ গতে ৩/৩০/১ মধ্যে, কালরাত্রি ১১/৩১/১ গতে ১/১১/২১ মধ্যে।
১৪ রবিয়স সানি

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
গুয়াহাটি, ডিব্রুগড়গামী বিমানের টিকিট ক্যানসেল করলে মিলবে রিফান্ড, জানাল স্পাইসজেট 
নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল নিয়ে উত্তপ্ত অসম। চলছে কার্ফু। তার জেরে ...বিশদ

11:12:00 AM

কলকাতা বিমানবন্দর থেকে ডিব্রুগড়গামী সমস্ত উড়ান বাতিল করা হল 

10:45:14 AM

বিহারের মজফ্ফরপুরে নাবালিকাকে গণধর্ষণের অভিযোগ ৩ জনের বিরুদ্ধে 

10:41:00 AM

হিমাচলের সিমলায় ব্যাপক তুষারপাত 

10:36:00 AM

এনআরসির প্রতিবাদে বীরভূমের মুরারই স্টেশনে রেল অবরোধ 

10:31:00 AM

হরিয়ানায় নাবালিকাকে গণধর্ষণের অভিযোগে আটক ৪ 

10:27:00 AM