Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

সবার উপরে ভোট সত্য
হারাধন চৌধুরী 

সিকি শতক আগের কথা। কর্মসূত্রে মেদিনীপুর শহরে থাকি। গ্রীষ্মের সকাল। ভোটের দিন। ভোটের খবর নিতে বেরনোর আগে চায়ের ভাঁড়ে চুমুক দেব। পঞ্চুরচকে চায়ের দোকানে এসেছি। এক ফেরিওয়ালার সঙ্গে দেখা। বছর চল্লিশ বয়স। ঝাঁকা নামিয়ে রেখে চায়ের অর্ডার দিয়েছেন। জানলাম, বাড়ি তাঁর কেশপুর। বিস্ময়ের সঙ্গে জিগ্যেস করলাম, এত তাড়াতাড়ি ভোট দেওয়া হয়ে গেল! ম্লান মুখে তিনি বললেন, ‘‘ভোট দিইনি।’’ কেন ভোটার লিস্টে নাম নেই? —‘‘আছে। সব বারই থাকে জানি। কিন্তু কোনোদিন ভোট দিইনি। ভোট দিতে কেমন লাগে জানা হল না একবার! ভোট দিতে দেয় না। পার্টির ছেলেরা আগের দিন এসে বলে যায়, এবারও বলে গেছে, কেউ বুথে যাবে না। তোমরা তো সিপিএমকেই ভোট দেবে। সে আমরাই দিয়ে দেব। কাজ কামাই করে, রোদে পুড়ে তোমাদের যাওয়ার দরকার নেই। তোমরা সকাল সকাল যে যার কাজে বেরিয়ে পড়বে। ’’
এই মানুষটি যে কোনও বিচ্ছিন্ন চরিত্র নয়, পাঠক বয়স্ক হলে নিশ্চয় জানেন। অথচ রেজাল্ট বেরনোর পর আমরা অবাক হয়ে দেখতাম কেশপুরের সিপিএম প্রতীকের প্রার্থী রেকর্ড ভোটে জিতেছেন! প্রায় প্রতি ভোটে ভেঙে যেত তার পূর্ববর্তী ভোটের রেকর্ড! দীর্ঘদিন মাঠে ময়দানে নেমে রিপোর্টিং করার সুবাদে দেখেছি—কেশপুর কোনও বিচ্ছিন্ন দ্বীপ নয়, বাংলাজুড়ে তখন কেশপুর আর কেশপুর! যেখানে ভদ্র কথায়, এমনকী চোখ রাঙানিতেও কাজ হয়নি সেখানে সিপিএম রকমারি অত্যাচার নামিয়ে আনত। কোথাও সরাসরি ডান্ডা মারত। বাড়ির মেয়ে বউদের উপর অত্যাচার করত। বাবা মায়ের শ্রাদ্ধানুষ্ঠানে বাগড়া দিত। পুরনো পাকা চাকরি খেত। অত্যন্ত যোগ্য ছেলেমেয়েদের কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি এবং ন্যায্য চাকরি আটকে দিত। মাইনে, পেনশন বন্ধ হতো। কোথাও সবক শেখাত চাষিদের খেতমজুর বয়কট করে। ভূমি আইনের অপব্যাখ্যা করে অনেক সামান্য ব্যক্তির সামান্য জমিজমাও বেদখল করে নিত। ঘর জ্বালাত। মাছ ভরা পুকুরে, জলকরে বিষ ঢেলে দিত। এমনকী ‘হাত’-এ ভোট দেওয়ার অপরাধে হাত কেটে নেওয়ার মতো পৈশাচিক কাণ্ড ঘটিয়েছে সিপিএমের পাপীরা। কলকাতার অদূরে হাওড়ার কান্দুয়া গ্রামে এখনও ঘুরে বেড়াচ্ছেন এমন কয়েকজন জ্যান্ত দৃষ্টান্ত। সব দেখেও পুলিস-প্রশাসনের সব স্তর বোবা কালা অন্ধের ন্যায় আচরণ করত। বস্তুত, পার্টি আর প্রশাসন হরিহর আত্মা হয়ে উঠেছিল।
২০১১ সালে বাংলা হল সিপিএমের ‘শেষপুর’। তার আগে বাম জমানার একটা বড় সময়জুড়ে এটাই চলেছে। অথচ, ১৯৭৭ সালে ক্ষমতাসীন হওয়ার আগে সিপিএম গগনভেদী চিৎকার করে তার পূর্বসূরি কংগ্রেসের ২৭ বছরব্যাপী দুঃশাসনের সাতকাহন শুনিয়েছিল, মানুষকে পাশে নিতে। তাদের মূল বক্তব্য ছিল, ১৯৭২-৭৬ পর্বে বাংলায় আধা-ফ্যাসিবাদ চলেছিল। ১১০০ বামপন্থী কর্মী-সমর্থক নিহত হয়েছিলেন কংগ্রেসি গুন্ডাদের হাতে। অথচ, একজনও অপরাধীর বিরুদ্ধে সরকার ব্যবস্থা নেয়নি। জ্যোতি বসু তাঁর ভাষণে এবং লেখাপত্রে কংগ্রেসকে ‘মানুষের শত্রু’ বলে উল্লেখ করেছেন বার বার। কংগ্রেস সম্পর্কে সজাগ করতে গিয়ে ১৯৭২ সালে নির্বিচারে ভোট লুটের কথা স্মরণ করিয়ে দিতেন। পরিস্থিতি সেবার এমন হয়েছিল যে রাস্তায় মিলিটারি পর্যন্ত নামাতে হয়েছিল। প্রতিবাদে বামেরা পাঁচ বছর বিধানসভা বয়কট করেছিলেন। ১৯৭২-৭৫ সালে দেশজুড়ে জরুরি অবস্থা ঘোষণার কালটি গণতন্ত্রের ইতিহাসে সবচেয়ে অন্ধকার এক অধ্যায়।
স্বাধীনতার ভগীরথ হল কংগ্রেস। কংগ্রেসের সঙ্গে সেঁটে রয়েছে গান্ধীজিসহ বহু সংগ্রামী নায়কের নাম। তাঁদের নামের সঙ্গে সমার্থক ঠেকত ‘স্বাধীনতা’ এবং ‘গণতন্ত্র’ শব্দ দুটি। এই পরিচয় ভাঙিয়েই স্বাধীন ভারতের বেশিরভাগটাই কব্জায় এনেছিল কংগ্রেস। কিন্তু, মানুষ দেখেছিল সবটাই ভণ্ডামিমাত্র! কংগ্রেসের এই জনবিরোধী মূর্তি চুরমার করেই জ্যোতি বসু বাংলায় বামফ্রন্ট জমানার সূচনা করেছিলেন।
১৯৭৭ সালের ২৫ আগস্ট বামফ্রন্ট সরকারের প্রথম বাজেট ভাষণে অর্থমন্ত্রী অশোক মিত্র বলেছিলেন, ‘‘আমরা এটাই চাই যে গ্রামের এবং শহরের দরিদ্রতম মানুষটিও যেন এই উপলব্ধিতে স্থিত হতে পারেন যে, এবার ব্যবস্থা পাল্টে গেছে, এখন থেকে সম্পদই সব নয়, তাঁদের যদি সহায়-সম্পদ নাও থাকে তা হ’লেও তাঁরা আর্থিক উন্নতির সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হবেন না। ... যে সাধারণ মানুষ গত তিরিশ বছর ধ’রে বঞ্চিত ও প্রতারিত হয়ে এসেছেন, আমরা এমন এক পরিবেশ সৃষ্টি করতে চেষ্টা ক’রে যাবো যাতে তিনি বুঝতে পারেন আর ভয় নেই, যা তাঁর প্রাপ্য এখন থেকে তা তাঁকে পৌঁছে দেওয়া হবে। ’’
‘পশ্চিমবঙ্গ সরকারের নয় বছর’ বইয়ের ভূমিকায় ১৯৮৬ সালের ২১ জুন জ্যোতি বসু লিখেছিলেন, ‘‘আমাদের রাজ্যের সব শ্রেণীর মানুষের ক্ষেত্রেই গণতান্ত্রিক অধিকার ও নাগরিক স্বাধীনতা সুনিশ্চিত করার প্রতি আমরা বিশেষ নজর দিয়েছি। এ সব অধিকার ও স্বাধীনতা গণতন্ত্রের মৌলিক শর্ত, অথচ কংগ্রেস আমলে এগুলি নির্দয়ভাবে অপহৃত হয়েছিল।’’
আর এই সরকারেরই বিরুদ্ধে ভূতপূর্ব কংগ্রেসি প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীর অভিযোগ ছিল—বাংলার গ্রামের উন্নতির জন্য যেখানে এক টাকা খরচ করার কথা বাম রাজত্বে সেখানে সম্ভবত দশ পয়সার বেশি খরচ হয় না। বাকিটা অবৈধ লেনদেনে হাপিস হয়ে যায়। রাজীব গান্ধী যে একটুও ভুল বলেননি তার প্রমাণ, বিদায়কালে বামেরা একটি অত্যন্ত বেহাল বাংলা রেখে গিয়েছিল। দারিদ্রসীমার নীচে বিপুল সংখ্যক মানুষ, শিল্প-ব্যবসা-বাণিজ্য ক্ষেত্রে অলক্ষ্মীর দবদবা, বেকার যুবক-যুবতীদের হাহাকার আর রাস্তাঘাট থেকে শুরু করে সর্বক্ষেত্রের ক্ষয়াটে চেহারা। হয়তো একটু ভুল বলা হল। ব্যতিক্রম ছিল সিপিএম পার্টির কিছু নেতার চেহারা। তাঁদের এককালের চিমড়ে চেহারা অতীত, তাঁরা বিজ্ঞাপনের নাদুস-নুদুস বেবিদের মতো চকচকে। টালির ঘরের জায়গায় দোতলা-তিনতলা বাড়ি তাঁদের। বিড়ি ফেলে দামি সিগারেটে সুখটান দেন। ছেলেমেয়েরা নামী ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে পড়ে। তাদের অনেকে বড় পাশ দিয়ে বিদেশে গবেষণা অথবা চাকরি করে। স্কুল পাঠশালার সবচেয়ে কমা সার্টিফিকেট হাতে নিয়েও সরকারি দপ্তর আলো করা পরিবার নেহাত কম নয়। রাজকোষ খালি করে ক্যাডার পোষার কারবারটি বাম জমানার এক বিরাট আবিষ্কার।
সিপিএম সার বুঝেছিল—কাজ করে, উন্নয়ন করে বার বার ক্ষমতায় ফেরা যায় না। কিছুদিন বাদেই মানুষের চাহিদা বাড়বে, টেস্ট বদলে যাবে। ভোট দেওয়ার সুযোগ পেলেই মানুষ তার সদ্ব্যবহার করতে মরিয়া হয়ে উঠবে। ক্ষমতার মধুভাণ্ড অনন্তকাল অক্ষত রাখতে হলে মুষ্টিমেয় কিছু লোককে পাইয়ে দেওয়ার রাজনীতিটাকেই জাগ্রত রাখতে হবে। এরাই ভোটলুটের সব দায় সামলাবে। ভোটার তালিকা তৈরি থেকে ভোট পূর্ববর্তী সন্ত্রাস এবং ভোটের দিন নানা রঙের ধুন্ধুমার কাণ্ড ঘটানো সবই তারা করবে। মোদ্দা কথা হল, মানুষকে ভোটের লাইনে দাঁড়াতে দেওয়া যাবে না। ভোটের লাইন আলো করে থাকবে শুধু রিগিং আর্টিস্টরা।
গণতন্ত্রের এই গৌড়ীয় মার্কসবাদী মডেল অক্ষত রাখতে জ্যোতি বসু স্বয়ং নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে কদর্য লড়াইতে নেমেছিলেন। মুখ্য নির্বাচন কমিশনার টি এন সেশনকে অসংসদীয় ভাষায় আক্রমণ করতে তিনি কুণ্ঠিত হননি। পার্টির অন্যায় স্বার্থকে সামনে রেখে দেশবাসীর সামনে তিনি যেন এটাই প্রমাণে মরিয়া হয়ে উঠেছিলেন, নির্বাচন কমিশন নামক সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানটি আসলে গণতন্ত্রের এক শত্রু!
জ্যোতিবাবুর পার্টির ৩৪ বছরের শাসন প্রমাণ করেছিল, ক্ষমতার আসন আসলেই একটি ‘লঙ্কা’—সেটা যিনিই স্পর্শ করেন তিনিই একটি ‘রাবণ’-এ রূপান্তরিত হয়ে যান—অদ্ভুত কিম্ভুত এক জাদুর নাম ক্ষমতা! আর বৃহত্তর অর্থে ভারতের সমস্ত প্রদেশ ও কেন্দ্রীয় শাসন এবং সমস্ত রাজনৈতিক দল সম্পর্কেই এই প্রবচনটি প্রযোজ্য। কারণ, সব দলই বড় আশা জাগিয়ে মানুষের বিপুল সমর্থন জোগাড় করে একবার ক্ষমতায় আসে। আর সরকারি ক্ষমতা দখল হওয়ার পর থেকে মানুষের মোহভঙ্গের ব্যবধানটা দীর্ঘ হয় না। খুব দ্রুত টের পাওয়া যায় সবাই আসলে মুখোশধারী।
১৯৫১-২০১১। বাংলায় নির্বাচনী গণতন্ত্র অনুশীলনের ছয় দশক খুব উজ্জ্বল নয়। ২০১১ সালে বাংলায় যে ‘পরিবর্তন’ এসেছিল তার মূল সুর ছিল গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার। ২০১১ সালের ২ জুন মহাকরণ থেকে ‘মমতা ব্যানার্জি’র সই করা ‘পশ্চিমবঙ্গ সরকারের সহকর্মীদের জন্য মুখ্যমন্ত্রীর আবেদন’ শিরোনামে একটি লিফলেট বিলি করা হয়েছিল। তার শেষ লাইনটি ছিল এইরকম—‘‘আমরা যেন সংঘবদ্ধ প্রয়াসের মাধ্যমে পশ্চিম বাংলার ভাবমূর্তি উন্নততর করার কাজে ব্রতী হই।’’ সপ্তদশ লোকসভার ভোট শেষ হচ্ছে আগামী ১৯ মে। ইতিমধ্যেই হয়ে গিয়েছে ছয় দফা। প্রচার পর্বে অশান্তি থেকে নানা কায়দায় ভোট লুট, এমনকী খুন জখম পর্যন্ত সমস্ত অশান্তিই হয়ে গিয়েছে। এই মাটিতে তার আগে রয়েছে পঞ্চায়েত এবং পুরভোটের তিক্ত অভিজ্ঞতা। মার্কসবাদী গণতন্ত্রের ছায়া যেন দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হচ্ছে। অতীত, বর্তমানকে সামনে রেখে রাজ্যবাসী ভাবতে বসেছেন বাংলার ভোটের ভবিষ্যৎ নিয়ে—‘ভাবমূর্তি উন্নততর’ করার আর কোনও উপায় কি আমরা সন্ধান করতে পারি না?  
14th  May, 2019
পশ্চিমবঙ্গের ভোট বিশ্লেষণ
শুভময় মৈত্র

 এ লেখা যখন আপনারা পড়ছেন, ততক্ষণে বুথফেরত সমীক্ষা আপনাদের হাতে। কিন্তু সমীক্ষা মানেই যে সেটা মিলবে এমনটা নয়। তার কারণ দুটো। এক হল সমস্ত সমীক্ষারই সফল হওয়ার একটা সম্ভাবনা থাকে। ঘুরিয়ে বললে সম্ভাবনা থাকে ব্যর্থ হওয়ারও।
বিশদ

ভোট ও বুথ-ফেরত সমীক্ষার হাল-হকিকত
অতনু বিশ্বাস

ছ’সপ্তাহ-ব্যাপী লোকসভা নির্বাচন। সাত দফায়। তারও প্রায় পাঁচ সপ্তাহ আগে থেকে প্রচার, ইত্যাদি। আর এখন এক ক্লান্তিকর সময়কালের পরিসমাপ্তিতে অপেক্ষ্যমান জনগণ। কলেজ ক্যাম্পাসের মধ্যে ঢুকে বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙার মত অনভিপ্রেত ঘটনার অভিঘাতে বিমূঢ়, রাজনৈতিক চাপান-উতোর আর হানাহানিতে দীর্ণ, এবং সুদীর্ঘ ভোটপর্বের শেষে গোটা ভারতবর্ষ এখন তাকিয়ে আছে বৃহস্পতিবারের দিকে।
বিশদ

অবশেষে সমাপ্ত, তিক্ততাসহ
পি চিদম্বরম

বিজেপি প্রচারের গোড়ায় ‘গিয়ার’ বদলে নিয়েছিল। ‘আচ্ছে দিন’-এর কথা ভুলক্রমেও উচ্চারিত হয়নি। ২০১৪ সালের প্রতিশ্রুতিগুলি বিজেপির জন্য এক বিড়ম্বনায় পরিণত হয়েছিল। নরেন্দ্র মোদি ‘সার্জিকাল স্ট্রাইক’, পুলওয়ামা-বালাকোট এবং জাতীয়তাবাদের ছত্রছায়ায় আশ্রয় নিয়েছিলেন। ‘সার্জিকাল স্ট্রাইক’ হল স্রেফ একটা ক্রস-বর্ডার অ্যাকশন বা সীমান্ত টপকে হানা—যা দিয়ে পাকিস্তানকে কোনোরকমে নিরস্ত করা যায়নি।
বিশদ

20th  May, 2019
নতুন বন্ধুর খোঁজে কংগ্রেস ও বিজেপি
শুভা দত্ত

বিজেপি যদি ২২০ থেকে ২৩০-এর বেশি আসন না পায়, তখন কী হবে? এনডিএ-র শরিকরা একবাক্যে বলবে, মোদির ভুলভাল সিদ্ধান্তের জন্যই ভোটার বিমুখ হয়েছে, সুতরাং তাঁকে আর প্রধানমন্ত্রী করার দরকার নেই। আরএসএস অবশ্য তাঁকে সরাতে চাইবে না। এই অবস্থায় অমিত শাহরা ঝাঁপিয়ে পড়বেন যাতে আরও কয়েকটি দলকে তাঁদের সমর্থনে পাওয়া যায়। বিজেপি যদি ১৪০ থেকে ১৬০-এর মধ্যে আসন পায়? তাহলে নিশ্চিতভাবেই মোদির প্রধানমন্ত্রী হওয়ার সম্ভাবনা জলাঞ্জলি যাবে। যতই নতুন বন্ধু আসুক, দিল্লিতে সরকার গড়া কিছুতেই সম্ভব হবে না। বিজেপিকে বসতে হবে বিরোধী আসনে।
বিশদ

20th  May, 2019
শেষ দফার ভোটে শান্তি বজায় রাখাই
আজ কমিশনের সামনে বড় চ্যালেঞ্জ

শুভা দত্ত

দেখতে দেখতে সাত দফার লম্বা ভোটযুদ্ধ শেষ হয়ে এল। আজ সপ্তম, তথা শেষ দফা। তারপরই শুরু হয়ে যাবে লোকসভা মহাযুদ্ধের চূড়ান্ত ফলাফলের জন্য কাউন্টডাউন। রাজ্যের ৪২টি লোকসভা আসনের মধ্যে ৩৩টির ভোটগ্রহণ ইতিমধ্যেই সম্পন্ন হয়েছে। কলকাতা উত্তর, কলকাতা দক্ষিণ, যাদবপুর সমেত বাকি ন’টি আসনের ভাগ্য নির্ধারিত হবে আজ। 
বিশদ

19th  May, 2019
ভোট কেন দেশের
নামে হল না?
শান্তনু দত্তগুপ্ত

ভোটগ্রহণ কেন্দ্রের সামনে একটি প্লাইউডের কাটআউট। মাঝখানটা জানালার মতো কেটে জায়গা করা। সেলফি জোন বা সেলফি পয়েন্ট। অবশ্য সেটা নামেই। নিজে ছবি তুললে ইমপ্যাক্ট পড়বে না। বরং বিষয়টা এমন, ভোট দিয়ে বেরিয়ে ভোটার সেখানে দাঁড়াবেন... উল্টোদিক থেকে কেউ ছবি তুলবে।
বিশদ

18th  May, 2019
এবার ভোটে যে-কথা কেউ বলেনি
শুভা দত্ত

 ভোটপর্ব শেষ হয়ে এল। সামনের রবিবারেই ভোটগ্রহণ শেষ। প্রচারও শেষ হল। বৈশাখের দহন জ্বালা যত বাড়ছে, তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে রাজনীতির উত্তাপ। মারদাঙ্গা, ভাঙচুর, ব্যক্তিগত আক্রমণ, সবই চলছে। এবার একটা বড় ইস্যু দেশের সুরক্ষা। তার সঙ্গে দুর্নীতি, বেকারত্ব, চাষিদের দুর্দশা এসবও আছে। কিন্তু একটা ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে কেউ কথা বলেনি। বিষয়টি হল বায়ুদূষণ। বিশদ

17th  May, 2019
বিদ্যাসাগর ও স্বাজাত্যবোধ
সমৃদ্ধ দত্ত

 শুধু রেগে গেলে চলবে কেন? একটু বুঝতেও তো হবে। মূর্তি ভাঙা তো একটা কার্য। প্রতিটি কার্যের পিছনে একটি কারণও থাকে। ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙার মধ্যে অনেক অবদমিত অপ্রাপ্তি ও দীর্ঘকালের ক্ষোভ রয়েছে। সেই ক্ষোভের আবেগকে উড়িয়ে দিলে তো হবে না। একটু সহানুভূতির সঙ্গে বিশ্লেষণ করতে হবে।
বিশদ

17th  May, 2019
ভোট গণনার সেকাল
একাল ও নতুন চ্যালেঞ্জ
বিশ্বনাথ চক্রবর্তী

পৃথিবীর বৃহত্তম গণতন্ত্রের নির্বাচনী রাজসূয় যজ্ঞের চূড়ান্ত পর্বে ভোট গণনা ও ফলাফলের দিকে তাকিয়ে রয়েছে সমগ্র ভারতবাসী তথা বিশ্ববাসী। বিগত কয়েক মাস ধরে চলা রাজনীতির ঘাত-প্রতিঘাত, চাপানউতোর, দাবি, পাল্টা দাবির সত্যতা উঠে আসবে গণনার মধ্য দিয়ে।
বিশদ

16th  May, 2019
অর্থনীতি ‘ডেঞ্জার জোন’-এ প্রবেশ করেছে
পি চিদম্বরম

 ২০১৪-র নির্বাচনে পাল্লা দিতে নেমে নরেন্দ্র মোদি অর্থনীতি বিষয়ে একটি হঠকারী মন্তব্য করে বসেছিলেন। প্রতিক্রিয়ায় আমি বলেছিলাম, ‘‘মোদিজির অর্থনৈতিক জ্ঞানটা একটি ডাক টিকিটের পিছনেই লিখে ফেলা যেতে পারে।’’ আমার মন্তব্যটি নির্দোষ ছিল, কিন্তু আমার বিশ্বাস, ওই মন্তব্যের কারণে মোদিজি আমাকে ক্ষমা করেননি!
বিশদ

13th  May, 2019
মমতার নেতৃত্ব মানতে কংগ্রেসি অনীহা কি আখেরে মোদিজির সুবিধে করে দিল?
শুভা দত্ত

প্রবল তাপে পুড়ছে রাজ্য। আকশে মেঘের চিহ্নমাত্র নেই। ঘূর্ণিঝড় ফণীর হাত থেকে এ যাত্রায় রেহাই মিললেও কাঠফাটা রোদ আর মাথা ঘোরানো গরমের হাত থেকে রেহাই মিলছে না। বাঁকুড়া-পুরুলিয়ার মতো রুখু জেলাগুলো ইতিমধ্যেই চল্লিশ ছাড়িয়েছে, মহানগরী কলকাতাও বসে নেই। সেও প্রায় চল্লিশের ঘরে!
বিশদ

12th  May, 2019
তাহলে, হাওয়া
এবার কোন দিকে?
মোশারফ হোসেন

দেখতে দেখতে মোট সাত দফা ভোটগ্রহণের পাঁচটি দফাই সম্পূর্ণ হয়ে গেল। গোটা দেশে। আমাদের রাজ্যেও। বাকি দুটি দফায় মাত্র ১১৮টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ হওয়ার কথা। যদিও ওইসব কেন্দ্রের ভোট বেশ কয়েকটি সর্বভারতীয় রাজনৈতিক গুরুত্বের বিচারে অত্যন্ত সংবেদনশীল।
বিশদ

11th  May, 2019
একনজরে
  বিএনএ, বাঁকুড়া: আজ, মঙ্গলবার সকাল ১০টা থেকে বাঁকুড়ায় মাধ্যমিকের মার্কশিট ও শংসাপত্র বিলির কাজ শুরু হবে। জেলার তিন মহকুমায় একটি করে স্কুল থেকে তা বিলি করা হবে। ১১টা নাগাদ ছাত্রছাত্রীরা তা বিদ্যালয় থেকে সংগ্রহ করতে পারবে বলে বাঁকুড়ার জেলা ...

 কাজল মণ্ডল  ইসলামপুর, সংবাদদাতা: ইসলামপুর বিধানসভা উপনির্বাচনের ভোট গ্রহণ শেষ হতেই জয় নিশ্চিত বলে দাবি করলেন তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী আবদুল করিম চৌধুরী। ভোটগ্রহণ হয়েছে ...

 সংবাদদাতা, কুমারগ্রাম: ইস্ট ইন্ডিয়ানিনজা স্পোর্টস মিটে অংশ নিয়ে অন্যান্য রাজ্যগুলির খেলোয়াড়দের সঙ্গে প্রতিযোগিতার আসরে নেমে আলিপুরদুয়ার জেলার১৬ জন প্রতিযোগী সোনার পদক, ১০জন প্রতিযোগী রুপার পদক এবং ৪জন প্রতিযোগী ব্রোঞ্জ পদক জিতে নিয়েছে।  ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ভোট পরবর্তী হিংসা নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসকে চরম বার্তা দিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সোমবার দলীয় কার্যালয়ে এক সাংবাদিক সম্মেলনে দিলীপের হুঁশিয়ারি, ২৩ মে ভোটের ফল বেরনোর পর শাসকদলের দুষ্কৃতীরা হিংসা ছড়ালে তার ভয়ঙ্কর পরিণামের জন্য তৈরি ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

যারা বিদ্যার্থী তাদের মানসিক অস্থিরতা বৃদ্ধি পাবে। নানা বিষয়ে খুঁতখুঁতে ভাব জাগবে। গোপন প্রেম থাকলে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৩৫: কবি বিহারীলাল চক্রবর্তীর জন্ম
১৯২১: নোবেলজয়ী সোভিয়েত বিজ্ঞানী আন্দ্রে শাখারভের জন্ম
১৯৯১: ভারতের ষষ্ঠ প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীর মৃত্যু





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৮.৬৫ টাকা ৭০.৩৪ টাকা
পাউন্ড ৮৬.৮৮ টাকা ৯০.১১ টাকা
ইউরো ৭৬.০৬ টাকা ৭৮.৯৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩২,০৬৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩০,৪২০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩০,৮৭৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৬,১৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৬,২৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ২১ মে ২০১৯, মঙ্গলবার, তৃতীয়া ৫১/৪৭ রাত্রি ১/৪১। মূলা ৫৬/২৩ রাত্রি ৩/৩১। সূ উ ৪/৫৮/১২, অ ৬/৮/০, অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৭ মধ্যে পুনঃ ৯/২২ গতে ১১/৫৯ মধ্যে পুনঃ ৩/২৯ গতে ৪/২২ মধ্যে। রাত্রি ৬/৫১ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৫ গতে ২/৫ মধ্যে, বারবেলা ৬/৩৭ গতে ৮/১৬ মধ্যে পুনঃ ১/১২ গতে ২/৫১ মধ্যে, কালরাত্রি ৭/৩০ গতে ৮/৫০ মধ্যে।
৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ২১ মে ২০১৯, মঙ্গলবার, তৃতীয়া ৫২/৪৪/৩৭ রাত্রি ২/৩/৪০। মূলানক্ষত্র ৫৮/১১/৫৫ শেষরাত্রি ৪/১৪/৩৫, সূ উ ৪/৫৭/৪৯, অ ৬/১০/৫, অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৬ মধ্যে ও ৯/২২ গতে ১২/২ মধ্যে ও ৩/৩৬ গতে ৪/৩০ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/৫৮ মধ্যে ও ১১/৫৮ গতে ২/৪ মধ্যে, বারবেলা ৬/৩৬/৫১ গতে ৮/১৫/৫৩ মধ্যে, কালবেলা ১/১২/৫৯ গতে ২/৫২/১ মধ্যে, কালরাত্রি ৭/৩১/৩ গতে ৮/৫২/১ মধ্যে।
১৫ রমজান
এই মুহূর্তে
মাধ্যমিকের প্রথম সৌগতকে সাহায্যের আশ্বাস পার্থর
আজ মাধ্যমিকের ফল ঘোষণার পর প্রথম স্থানাধিকারী সৌগত দাসকে ফোন ...বিশদ

04:54:19 PM

১২৮১০ হাওড়া-মুম্বই (সিএসএমটি) মেল আজ রাত ৮টার বদলে রাত ৯:১৫ মিনিটে হাওড়া স্টেশন থেকে ছাড়বে 

03:53:16 PM

মাধ্যমিকে অকৃতকার্য হওয়ায় পূঃ বর্ধমানের গোপালপুরে আত্মঘাতী ছাত্রী  

03:34:10 PM

খড়্গপুরের আইটিআইয়ের কাছে যুবককে গুলি করে খুন

03:31:00 PM

সোপিয়ানে সেনা-জঙ্গি গুলির লড়াই 

03:21:02 PM

৫০০ পয়েন্ট পড়ল সেনসেক্স 

03:05:01 PM