Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

তাহলে, হাওয়া
এবার কোন দিকে?
মোশারফ হোসেন

দেখতে দেখতে মোট সাত দফা ভোটগ্রহণের পাঁচটি দফাই সম্পূর্ণ হয়ে গেল। গোটা দেশে। আমাদের রাজ্যেও। বাকি দুটি দফায় মাত্র ১১৮টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ হওয়ার কথা। যদিও ওইসব কেন্দ্রের ভোট বেশ কয়েকটি সর্বভারতীয় রাজনৈতিক গুরুত্বের বিচারে অত্যন্ত সংবেদনশীল। ক্ষমতাসীন পক্ষের স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি থেকে শুরু করে বিরোধীপক্ষের বেশ কয়েকজন হেভিওয়েট প্রার্থীর ভাগ্য নির্ধারিত হবে শেষের এই দুটি পর্বে। তবুও গত পাঁচটি পর্বের ভোটের চেহারা দেখে ইতিমধ্যেই দেশজুড়ে ফলাফল নিয়ে গুঞ্জন শুরু হয়ে গিয়েছে। শাসক দলের নেতানেত্রীরা যা দাবি করছেন তার সরল অর্থ হল, এবারও দেশবাসী তাঁদের পক্ষেই ‘রায়দান’ করছেন। ইভিএমের অন্ধকার প্রকোষ্ঠে আপাত বন্দি সেই ‘রায়’কে প্রকাশ্যে আনলেই স্পষ্ট হবে দেশে ফের একবার মোদি সরকার প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে। অন্যদিকে, বিরোধীপক্ষের দাবি সম্পূর্ণ বিপরীত খাতে বইছে। এবারে নরেন্দ্র মোদির সামনে প্রধান দুই চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়ানো ব্যক্তিত্ব রাহুল গান্ধী ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাফ কথা, মানুষের মনের ভাষা তাঁরা পড়তে পারছেন। সিংহভাগ ভারতবাসী এবার মোদি ও তাঁর সাঙ্গোপাঙ্গদের রাজনৈতিক নির্বাসন দেওয়ার ব্যবস্থা করছেন। এই ভোটে মোদি-রাজের অবসান হচ্ছেই।
আবার, অধিকাংশ সাধারণ মানুষ বিশেষত দিন আনা দিন খাওয়া দরিদ্র ভারতবাসী তো বটেই, মধ্যবিত্তদের বড় অংশও এটুকু বোঝেন, ক্ষমতায় যে-ই আসুক না কেন তাঁদের দৈনন্দিন দিনলিপিতে আহামরি কোনও পরিবর্তন হবে না। ভোটের আগে যারা যেমন প্রতিশ্রুতিই দিক না কেন, ভোটের পরে তার অধিকাংশই বিস্মৃতি গভীরে তলিয়ে যায়। বহুক্ষেত্রেই নেতানেত্রীরাও প্রাক-ভোটপর্বে দেওয়া সেই প্রতিশ্রুতিগুলিকে খুব একটা মনে রাখতে চান না। এসবের উদাহরণের অভাব খুব একটা নেই। হাতে গরম উদাহরণ হলেন আমাদের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। পাঁচবছর আগে ভোটভিক্ষার পাত্র হাতে দাঁড়ানো ওই মানুষটি কত রকমের প্রতিশ্রুতিই তো দিয়েছিলেন! বিদেশে পাচার হওয়া রাশি রাশি কালো টাকা ফিরিয়ে এনে প্রতিটি ভারতীয়ের অ্যাকাউন্টে পনেরো লক্ষ করে ভরে দেওয়া থেকে শুরু করে বছরে দু’কোটি চাকরি, সব কা সাথ সব কা বিকাশ, আচ্ছে দিন—তালিকাটি দীর্ঘ। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার টানাপোড়েনে মাঝখানে কোনও অঘটন ঘটেনি। ফলে পুরো পাঁচ বছরের মেয়াদই পূরণ করার সুযোগ পেয়েছিল মোদি সরকার। ফলে গতবার ভোটের আগে দেওয়া প্রতিশ্রুতিগুলি পূরণের যথেষ্ট সুযোগ ছিল তাঁর হাতে। শুধু তাই নয়, সরকার এবং নিজের দলে মোদি এমন একটি অবস্থানে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হয়েছিলেন যাতে তিনি কোনও কাজ করতে চাইলে তাঁকে বাধা দেওয়ার মতো কোনও শক্তি ছিল না। কিন্তু বাস্তবে তিনি কেবল নিজের এবং নিজের পছন্দের কিছু মানুষের বিকাশ ও সমৃদ্ধি ঘটানোর কাজেই আত্মনিয়োগ করেছিলেন। একদা গরিব চাওয়ালা মোদি প্রধানমন্ত্রীর আসনে বসেই ন’লাখ টাকা দামের পোশাকে নিজেকে সজ্জিত করেছেন। স্বাধীন ভারতের অন্য সমস্ত প্রধানমন্ত্রীর সমস্ত রেকর্ডকে ম্লান করে দিয়ে মাত্র সাড়ে চার বছরে প্রায় একশোবার বিদেশ ভ্রমণ করেছেন। তাঁর ওইসব সফরের মূল্য চোকাতে হয়েছে দেশবাসীকেই। কয়েক হাজার কোটি টাকা। তিনি বারে বারে বিদেশে গিয়েছেন, কিন্তু বিদেশ থেকে একটি কালো টাকাও ফিরিয়ে আনতে পারেননি। কারা সেইসব কালো টাকা বিদেশে পাচার করেছিল তাদের নামের তালিকাটুকু পর্যন্ত দেশবাসীর সামনে তুলে ধরতে সক্ষম হননি। বরং নাম জানা বেশ কয়েকজন রাঘব বোয়ালের হাত ধরে দেশের আরও হাজার হাজার কোটি টাকা হাওয়া হয়ে গিয়েছে। মোদিজি ওই অপরাধীদেরও টিকি পর্যন্ত ছুঁতে পারেননি। এগুলো তো বটেই, ভারতের মানুষ নরেন্দ্র মোদির মুখে গত তিন-চার বছরে আরও অনেক প্রতিশ্রুতি, আশ্বাস, আস্ফালন শুনেছেন। কিন্তু সেইসব আশ্বাস, আস্ফালন, প্রতিশ্রুতি কেবল কথার কথা হয়েই রয়ে গিয়েছে। কাজে আসেনি। অন্যদিকে, বহু আশা করে মোদিকে ক্ষমতায় আসতে সাহায্য করা কোটি কোটি সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষের জীবন আরও দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে।
এতসব সত্ত্বেও মানুষ আশা ছাড়ছে না। কারণ, আশাই তো বাঁচিয়ে রাখে! সেকারণেই এবারের ভোটপর্ব নিয়েও আলাপ আলোচনা, হিসেব নিকেশ চলছে। রাজনৈতিক অরাজনৈতিক দুই আঙিনাতেই। চায়ের ঠেক থেকে অফিস আদালত চত্বরে, ট্রেন বাসে, ঘরোয়া সমাবেশে। বিয়েবাড়ি থেকে যে কোনও সামাজিক অনুষ্ঠানে গোটাকতক মাথা এক হলেই, একটু ফুরসত মিললেই একটাই আলোচনা—তাহলে এবার রেজাল্ট কেমন হতে পারে? না। স্কুল-কলেজে ছেলেমেয়ের পরীক্ষার রেজাল্ট নয়। ভোটের ফল। এবার এনডিএ মোট কতগুলো আসন পেতে পারে? আমাদের রাজ্যে বিজেপি কি আট-দশটা পাবে? কংগ্রেসের ক’টা থাকবে? সিপিএম কি একেবারেই জিরো হয়ে যাবে? দিদির দল কি তাঁর কথা মতো বিয়াল্লিশে বিয়াল্লিশই পাচ্ছে? তাহলে তো দিল্লি দিদির মুঠোয় এসে যাচ্ছে। রাহুলের বদলে বিরোধীরা দিদিকেই সামনে এগিয়ে দিতে চাইবে। হাজার হোক, মহিলার ক্যারিশ্মার ধারে কাছে আর কেউ আসে না। অতবার কেন্দ্রে মন্ত্রী তো হয়েছিলেন! মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর রাজ্যটার ভোলও তো বদলে দিয়েছেন! আর, দাপটটা দেখছেন তো? একা বুক চিতিয়ে লড়ে যাচ্ছেন। একটা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হয়ে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিচ্ছেন মোদির মতো লোককে! উল্টোদিক থেকে কেউ বলে, কিন্তু ওনার কেবল ওইদিকটাই দেখলেন! এই যে এখানে এমন নির্লজ্জের মতো তোষণ করে যাচ্ছেন, এর কোনও মানে হয়! তাছাড়া পাকিস্তানকে সমঝে দেওয়ার ক্ষমতা মোদির মতো আর কার আছে? আর পাঁচটা বছর ক্ষমতা পেলে সবাইকে ঢিট করে দেবে। পাকিস্তান হয়েছে, হিন্দুস্থান হবে না কেন? দেশজুড়ে এবার দেশভক্তির পালে জোর হাওয়া। সেই হাওয়াতেই মোদিজি তরী পার করে দেবেন। পরের বাক্যটি শুরু করার আগেই বক্তাকে থামিয়ে দেন কেউ। বলেন, আরে থামুন থামুন। পাঁচ বছর কোনও কাজ না করে কেবল পাকিস্তানের জুজু দেখিয়ে আর ক’টা অর্ধসত্য, অসত্য বস্তাপচা কাহিনী ফেঁদেই লোকটা পার পেয়ে যাবে! তা কি হয়! যুক্তি-পাল্টা যুক্তি, মন্তব্য আরও এগিয়ে চলে। মন্তব্যের শেষ নেই। প্রশ্নেরও সীমা নেই। বিশেষত বাঙালির ভাণ্ডারে আর যা কিছুরই অভাব থাক না কেন, যুক্তি-পাল্টা যুক্তির কোনও অভাব থাকে না।
ভোট পড়ার হারও এবার হিসেব নিকেশ, অনুমানের একটি বড় ফ্যাক্টর। ভোট পড়ছে ব্যাপক হারে। অধিকাংশ কেন্দ্রেই ৭৫- ৮০ শতাংশ ছাড়িয়ে যাচ্ছে। ভোটের লাইনে হাজার হাজার মহিলা পুরুষ, বৃদ্ধ বৃদ্ধা, তরুণ তরুণী। এমনকী বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন তথা তথাকথিত প্রতিবন্ধীরাও। আমাদের রাজ্যের বীরভূম জেলার বোলপুর কেন্দ্রে তো ৮৬ শতাংশ ভোট পড়ল। সারা ভারতে এটি এবার রেকর্ড। এত মানুষ ভোটের লাইনে। এর মানে কী? এপ্রশ্নেও পরস্পরবিরোধী মতের ছড়াছড়ি। কারও মতে, এ হল অ্যান্টি ইনকাম্বেন্সি অর্থাৎ প্রতিষ্ঠানবিরোধী মতদানের সুযোগের সদ্ব্যবহারের চেষ্টা। তাহলে তো গোটা দেশে মোদি ও তাঁর দলবলের পক্ষেও অশনিসঙ্কেত। একইভাবে এরাজ্যেও শাসকদলের বিরুদ্ধে ভোট দিতেই এত মানুষ বুথের সামনে লাইন দিয়েছিলেন! নাকি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের গত সাতবছরের অক্লান্ত পরিশ্রমকে স্বীকৃতি জানিয়ে, তাঁর উন্নয়নযজ্ঞে মুগ্ধ হয়ে বাংলার অগ্নিকন্যাকে আরও বড় দায়িত্বের দিকে এগিয়ে দিতেই বাংলার কোটি কোটি ভোটারের এমন সক্রিয় ভূমিকা? বাঙালি প্রধানমন্ত্রীর হাওয়া উঠেছে। মমতার কোনও বিকল্প হবে না। বাংলার দিদিই এবার দেশের প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন। কেউ আটকাতে পারবে না।
এসব প্রশ্নের সঠিক জবাব এখনই মেলার কোনও পথ নেই। তার জন্য অপেক্ষা করতে হবে আরও সপ্তাহদুয়েক। ফের একবার মোদি সরকার? নাকি মোদি-বিদায়ের পালা। অথবা দিল্লির তখতে রাহুল গান্ধীর অভিষেক, নাকি বাংলার অগ্নিকন্যার নেতৃত্বে দেশে তথাকথিত জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠিত হবে— এর ফয়সালা হবে আগামী ২৩ মে অথবা তার কয়েকদিনের মধ্যেই।
এপ্রসঙ্গে একটি ঘটনার কথা বলে লেখা শেষ করব। বেশ কয়েকবছর আগে একটি ভোটের মুখে কলকাতার কয়েকজন প্রবীণ সাংবাদিক রাজ্যেরই একটি মফস্‌সল এলাকায় পাড়ি দিয়েছিলেন। উদ্দেশ্য, ভোটের হাওয়া অনুধাবনের চেষ্টা করা। একটি চায়ের দোকানের সামনে বাঁশের বেঞ্চিতে বসে খানিক গল্পগুজবের পর এক সাংবাদিক ওখানে উপস্থিত স্থানীয় এক বৃদ্ধের দিকে প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়েছিলেন, বলুন তো কত্তা, হাওয়া এবার কোনদিকে? গাড়ি চড়ে আসা অপরিচিত সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাব দিতে সেই বৃদ্ধ এক মুহূর্তের বেশি সময় নেননি। তাঁর জবাবটি ছিল, বাবু, হাওয়া এবার চতুর্দিকে। এবার যা বুঝার বুঝে লিন।
এবারও বোধহয় হাওয়া চতুর্দিকেই বইছে। মানুষ খোলসা করে তাঁদের মনের কথা বলতে চাইছেন না। অতএব অপেক্ষা ছাড়া গতি নেই।
11th  May, 2019
কর্পোরেটদের যথেষ্ট সুবিধা দিলেও অর্থনীতির বিপর্যয় রোধে চাহিদাবৃদ্ধির সম্ভাবনা ক্ষীণ
দেবনারায়ণ সরকার

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তাঁর ‘ক্ষণিকা’ কাব্যগ্রন্থে ‘বোঝাপড়া’ কবিতায় লিখেছিলেন, ‘ভালো মন্দ যাহাই আসুক সত্যেরে লও সহজে।’ কিন্তু কেন্দ্রের অন্যান্য মন্ত্রীরা থেকে শুরু করে অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন ভারতীয় অর্থনীতির চরম বেহাল অবস্থার বাস্তবতা সর্বদা চাপা দিতে ব্যস্ত। 
বিশদ

অণুচক্রিকা বিভ্রাট
শুভময় মৈত্র

সরকারি হাসপাতালে ভিড় বেশি, বেসরকারি হাসপাতালের তুলনায় সুবিধে হয়তো কম। তবে নিম্নবিত্ত মানুষের তা ছাড়া অন্য কোনও পথ নেই। অন্যদিকে এটাও মাথায় রাখতে হবে যে রাজ্যে এখনও অত্যন্ত মেধাবী চিকিৎসকেরা সরকারি হাসপাতালে কাজ করেন। 
বিশদ

06th  December, 2019
সার্ভিল্যান্স যুগের প্রথম পরীক্ষাগার উইঘুর সমাজ
মৃণালকান্তি দাস

চীনের সংবাদ মানেই তো যেন সাফল্যের খবর। সমুদ্রের উপর ৩৪ মাইল লম্বা ব্রিজ, অতিকায় যাত্রী পরিবহণ বিমান তৈরি, প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে নয়া উদ্ভাবন, চাঁদের অপর পিঠে অবতরণ...। মিহিরগুল তুরসুনের ‘গল্প’ সেই তালিকায় খুঁজেও পাবেন না। ১৪১ কোটি জনসংখ্যার চীনে মিহিরগুল মাত্র সোয়া কোটি উইঘুরের প্রতিনিধি। 
বিশদ

06th  December, 2019
আর ঘৃণা নিতে পারছে না বাঙালি
হারাধন চৌধুরী

 এটাই বোধহয় আমার শোনা প্রথম কোনও ছড়া। আজও ভুলতে পারিনি। শ্রবণ। দর্শন। স্পর্শ। প্রথম অনেক জিনিসই ভোলা যায় না। জীবনের উপান্তে পৌঁছেও সেসব অনুভবে জেগে থাকে অনেকের। কোনোটা বয়ে বেড়ায় সুখানুভূতি, কোনোটা বেদনা। এই ছড়াটি আমার জীবনে তেমনই একটি। যখন প্রথম শুনেছি তখন নিতান্তই শিশু। বিশদ

05th  December, 2019
আগামী ভোটেও বিজেপির গলার কাঁটা এনআরসি
বিশ্বনাথ চক্রবর্তী

রাজ্যের তিন বিধানসভা কেন্দ্রে বিজেপির বিপর্যয় বিশ্লেষণ করতে গিয়ে যখন ওই প্রার্থীদের পরাজয়ের ব্যাপারে সকলেই একবাক্যে এনআরসি ইস্যুকেই মূল কারণ হিসেবে চিহ্নিত করেছেন, তখনও বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব এনআরসিতে অটল। তিন বিধানসভা কেন্দ্রের বিপর্যয়ের পর আবারও অমিত শাহ এনআরসি কার্যকর করবার হুংকার ছেড়েছেন।  
বিশদ

03rd  December, 2019
সিঁদুরে মেঘ ঝাড়খণ্ডেও
শান্তনু দত্তগুপ্ত

ভারতের গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে একটা কথা বেশ প্রচলিত... এদেশের ভোটাররা সাধারণত পছন্দের প্রার্থীকে নয়, অপছন্দের প্রার্থীর বিরুদ্ধে ভোট দিয়ে থাকেন। ২০১৪ সালে যখন নরেন্দ্র মোদিকে নির্বাচনী মুখ করে বিজেপি আসরে নামল, সেটা একটা বড়সড় চমক ছিল। 
বিশদ

03rd  December, 2019
আচ্ছে দিন আনবে তুমি এমন শক্তিমান!
সন্দীপন বিশ্বাস

আমাদের সঙ্গে কলেজে পড়ত ঘন্টেশ্বর বর্ধন। ওর ঠাকুর্দারা ছিলেন জমিদার। আমরা শুনেছিলাম ওদের মাঠভরা শস্য, প্রচুর জমিজমা, পুকুরভরা মাছ, গোয়ালভরা গোরু, ধানভরা গোলা সবই ছিল। দেউড়িতে ঘণ্টা বাজত। ছিল দ্বাররক্ষী। কিন্তু এখন সে সবের নামগন্ধ নেই। ভাঙাচোরা বাড়ি আর একটা তালপুকুর ওদের জমিদারির সাক্ষ্য বহন করত। 
বিশদ

02nd  December, 2019
বিজেপির অহঙ্কারের পতন
হিমাংশু সিংহ

সবকিছুর একটা সীমা আছে। সেই সীমা অতিক্রম করলে অহঙ্কার আর দম্ভের পতন অনিবার্য। সভ্যতার ইতিহাস বারবার এই শিক্ষাই দিয়ে এসেছে। আজও দিচ্ছে। তবু ক্ষমতার চূড়ায় বসে অধিকাংশ শাসক ও তার সাঙ্গপাঙ্গ এই আপ্তবাক্যটা প্রায়শই ভুলে যায়।  বিশদ

01st  December, 2019
উপনির্বাচনের ফল ও বঙ্গ রাজনীতির অভিমুখ
তন্ময় মল্লিক

জনতা জনার্দন। ফের প্রমাণ হয়ে গেল। মাত্র মাস ছয়েক আগে লোকসভা নির্বাচনে ১৮টি আসন দখল করে গেরুয়া শিবির মনে করেছিল, গোটা রাজ্যটাকেই তারা দখল করে নিয়েছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিদায় শুধু সময়ের অপেক্ষা। সেই বঙ্গেই তিন বিধানসভা আসনের উপনির্বাচনে একেবারে উল্টো হওয়া বইয়ে দিল মানুষ।
বিশদ

30th  November, 2019
ওভার কনফিডেন্স
সমৃদ্ধ দত্ত

নরেন্দ্র মোদি এবং অমিত শাহের সব থেকে প্রিয় হবি হল পরিবর্তন। তাঁরা স্থিতাবস্থায় বিশ্বাস করেন না। তাঁরা বদলের বন্দনাকারী। পরিবর্তন কি খারাপ জিনিস? মোটেই নয়। বরং পরিবর্তনই তো সভ্যতার স্থাণু হয়ে না থেকে এগিয়ে চলার প্রতীক।   বিশদ

29th  November, 2019
উপনির্বাচনী ফল: বঙ্গজুড়ে পারদ চড়ছে কৌতূহলের
মেরুনীল দাশগুপ্ত

আজ রাজ্যের তিন বিধানসভা আসনের উপনির্বাচনী ফল বেরচ্ছে। কথায় বলে, ফলেই পরিচয়। ফলেন পরিচীয়তে। আজ সেই ফলের জন্য উদ্‌গ্রীব বাংলা, বাংলার রাজনৈতিকমহল। নানান জনের নানা প্রত্যাশা চতুর্দিকে ঘুরে বেড়াচ্ছে। অবশ্য সেজন্য আসমুদ্রহিমাচল বাংলা টানটান উত্তেজনায় কাঁপছে বললে হয়তো অত্যুক্তি হবে। বিশদ

28th  November, 2019
পাওয়ারের শক্তিপরীক্ষা
শান্তনু দত্তগুপ্ত

এখন সত্যিই জানতে ইচ্ছে হচ্ছে, বালাসাহেব থ্যাকারে বেঁচে থাকলে কী করতেন! আগের রাতে শুনে ঘুমাতে গেলেন, শিবসেনার জোট সরকার হচ্ছে এবং ছেলে উদ্ধব সেখানে মুখ্যমন্ত্রী। কিন্তু পরদিন সাতসকালে ঘুম ভেঙে দেখলেন, দেবেন্দ্র ফড়নবিশ মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়ে ফেলেছেন।
বিশদ

26th  November, 2019
একনজরে
নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ভারতীয় দলের কোচ রবি শাস্ত্রীর সঙ্গে সৌরভ গাঙ্গুলির সম্পর্ক যে ভালো নয়, তা সবারই জানা। ২০১৬ সালে ‘টিম ইন্ডিয়া’র কোচ নির্বাচন ঘিরে ...

বিএনএ, মালদহ: উত্তর-পূর্ব ভারত থেকে বাংলাদেশে পাচার করা হচ্ছে মাদক ট্যাবলেট। আর সেই পাচারের রুট হিসেবে এখন দুষ্কৃতীদের পছন্দের তালিকায় উঠে এসেছে মালদহ সহ উত্তরবঙ্গের ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: সাইনি হুন্ডাইয়ের উদ্যোগে ২৯তম ফ্রি কার কেয়ার ক্লিনিকের আয়োজন করা হয়েছে। শুক্রবার থেকে সেই ক্লিনিক শুরু হয়েছে। তা চলবে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত। ...

নয়াদিল্লি, ৬ ডিসেম্বর (পিটিআই): একমাত্র পশ্চিমবঙ্গ ছাড়া সব রাজ্যই প্রধানমন্ত্রী কিষান যোজনার সুফল নিয়েছে। শুক্রবার রাজ্যসভায় এ কথা জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমার। তিনি বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী কিষান যোজনায় বছরে বরাদ্দ ছ’হাজার কোটি টাকা।  ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
aries

মানসিক অস্থিরতা দেখা দেবে। বন্ধু-বান্ধবদের থেকে দূরত্ব বজায় রাখা দরকার। কর্মে একাধিক শুভ যোগাযোগ আসবে। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৭২: কলকাতায় প্রতিষ্ঠিত হল ন্যাশনাল থিয়েটার
১৯৪১: দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে পার্ল হারবারে বোমাবর্ষণ
১৯৮৪: বরুণ সেনগুপ্তের সম্পাদনায় আত্মপ্রকাশ করল ‘বর্তমান’  





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৪৯ টাকা ৭২.১৯ টাকা
পাউন্ড ৯২.২০ টাকা ৯৫.৫৪ টাকা
ইউরো ৭৭.৭৫ টাকা ৮০.৭৪ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,৬৫০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,৬৭০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৭,২২০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৪,২৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৪,৩৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৭ ডিসেম্বর ২০১৯, শনিবার, দশমী ১/৭ দিবা ৬/৩৪। রেবতী ৪৭/৫০ রাত্রি ১/২৮। সূ উ ৬/৭/৩৪, অ ৪/৪৮/২, অমৃতযোগ দিবা ৬/৫১ মধ্যে পুনঃ ৭/৩৩ গতে ৯/৪১ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৯ গতে ২/৪০ মধ্যে পুনঃ ৩/২৩ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ১২/৪৮ গতে ২/৩৫ মধ্যে, বারবেলা ৭/২৭ মধ্যে পুনঃ ১২/৪৭ গতে ২/৮ মধ্যে পুনঃ ৩/২৮ গতে অস্তাবধি, কালরাত্রি ৬/২৮ মধ্যে পুনঃ ৪/২৬ গতে উদয়াবধি। 
২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৭ ডিসেম্বর ২০১৯, শনিবার, একাদশী ৬০/০/০ অহোরাত্র। রেবতী ৪৭/৫০/২৭ রাত্রি ১/১৭/৯, সূ উ ৬/৮/৫৮, অ ৪/৪৮/৩৬, অমৃতযোগ দিবা ৭/১ মধ্যে ও ৭/৪৩ গতে ৯/৫০ মধ্যে ও ১১/৫৭ গতে ২/৫২ মধ্যে ও ৩/২৭ গতে ৪/৪৯ মধ্যে এবং রাত্রি ১২/৫৬ গতে ২/৪৩ মধ্যে, কালবেলা ৭/২৮/৫৫ মধ্যে ও ৩/২৮/৩৮ গতে ৪/৪৮/৩৬ মধ্যে, কালরাত্রি ৬/২৮/৩৯ মধ্যে ও ৪/২৮/৫৬ গতে ৬/৯/৩৭ মধ্যে। 
৯ রবিয়স সানি

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে সিরিজের প্রথম টি-২০ জিতল ভারত

06-12-2019 - 10:31:05 PM

 প্রথম টি২০: ভারত ১৭৭/২ (১৬ ওভার)

06-12-2019 - 10:13:22 PM

প্রথম টি২০: ভারত ৮৯/১ (১০ ওভার) 

06-12-2019 - 09:34:38 PM

প্রথম টি২০: ভারতকে ২০৮ রানের টার্গেট দিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ 

06-12-2019 - 08:34:59 PM

প্রথম টি২০: ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৪৪/৩ (১৫ ওভার) 

06-12-2019 - 08:09:22 PM

প্রথম টি২০: ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১০১/২ (১০ ওভার) 

06-12-2019 - 07:47:55 PM