Bartaman Patrika
অমৃতকথা
 

মহাপ্রভুর মহাজাতি গঠন 

মহাপ্রভুর অনবদ্যরূপ, অনুপম গুণ, সুচিশুদ্ধ চরিত্র ও অনির্বচনীয় মাধুর্যে সে যুগের প্রত্যেকটি মানুষ আকৃষ্ট হইয়াছিল। তাঁহার স্পর্শে ক্রূর শ্বাপদও হিংসা ভুলিয়াছিল। দুর্বৃত্ত, পাষণ্ড, দস্যু ও লম্পট বহু ব্যক্তি তাঁহার সংস্পর্শে ধর্মাত্মা হইল। সমাজের সকল আত্মিক দৈন্য ও নীচতার বেদনা তিনি দূরীভূত করিলেন এবং বৈষম্যছিন্ন অগণিত নরনারীকে এক মহাসাম্যের ভূমিকায় উন্নীত করিতে প্রভূত যত্ন করিলেন। অশান্তির হাহাকারে ব্যাকুল জীবকুলকে ডাকিয়া ডাকিয়া থাকিয়া থাকিয়া শাশ্বত শান্তির সন্ধান দিলেন। তিনি অবতীর্ণ হইয়াছিলেন নদীয়ায় কিন্তু তিনি সমগ্র বাংলাদেশ ও ভারতবর্ষের এবং সমগ্র জগতের সর্ব মানবের। বিশ্ব পৃথিবীর ইতিহাসে এমন একটি মহাপ্রাণ মহাপুরুষের আর সন্ধান নাই। যাঁহাকে সেই যুগে আপামর সকলে রাজা প্রজা ধনী দরিদ্র উচ্চবর্ণ নিম্নবর্ণ অন্ত্যজ পণ্ডিত মূর্খ পুরুষ নারী সকলেই আন্তরিক ভালোবাসিয়াছে এবং তাঁহাকে পরম হিতৈষী ভাবিয়া তাঁহার শিক্ষা মস্তকে ধারণ করিয়াছে। মহাপ্রভু তৎকালে প্রচলিত হিন্দুর বর্ণাশ্রম বা মুসলমানের বা অন্য জাতির কোনও ধর্মের নিন্দা করেন নাই বা কাহাকেও ধর্মান্তরিত করার জন্য কখনও চেষ্টা করেন নাই। কিন্তু তিনি এমন এক বিশুদ্ধ ও উদার পরমধর্ম বা আত্মধর্মের বাণী প্রচার করিয়াছেন যাহার মধ্যে হিন্দুর বর্ণাশ্রমী, অন্ত্যজ, মুসলমান, খৃষ্টান, বৌদ্ধ, শিখ এবং অন্যান্য সকল ধর্মাবলম্বীর স্থান আছে এবং কাহারও প্রত্যাখ্যান নাই। যে ধর্মের মধ্যে সকল আত্মার অধিকার আছে এবং যাহা বর্ণাশ্রমাদি সকল অনাত্মধর্ম বা নৈমিত্তিকধর্মের উপর বিরাজমান তাহাই নির্গুণ ও নিত্য আত্মধর্ম। তাহা জীবমাত্রেই নিত্যধর্ম। মহাপ্রভু সেই বিমল প্রেমধর্মের প্রতি মানবজাতির সকল ধর্মাবলম্বীরই দৃষ্টি আকর্ষণ করিলেন এবং সহজ সরলভাবে এক অখণ্ড মানব মহাজাতি স্থায়ীভাবে গঠনের উদ্বোধন করিয়া গেলেন, যাহা ইতিপূর্বে পৃথিবীতে অন্যকোনও মহাপুরুষ করেন নাই।
তাঁহার শিক্ষার মধ্যে আছে নীতি ও দৈবীসম্পদের শিক্ষালাভসহ বিশুদ্ধ ঈশ্বরভক্তির উপদেশ। সংযম সহিষ্ণুতা বিনয় প্রভৃতি নীতিধর্মসহ ভক্তি ও সত্যধর্মের অপূর্ব সমন্বয়ের এইরূপ উদার বাণী, এই মহাদান, এইরূপ ঈশ্বরপ্রেম ভিত্তিক স্থায়ী ও আন্তরিক বিশ্বজীবের প্রতি প্রেমের বিতরণ, পৃথিবীর ধর্মেতিহাসে ইহাই সর্বপ্রথম। মহাপ্রভু প্রবর্তিত এই প্রেমধর্মই বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ঠ ধর্ম, যাহাতে নাই কোনও সঙ্কীর্ণতা, কোনও জাতীয় গণ্ডি, কোনও উচ্চ নীচ ভেদ। ইহাই পৃথিবীতে এক অখণ্ড মহাজাতি বা মানবসমাজ গঠনের সর্বশ্রেষ্ঠ ভিত্তি। এক বিশ্ব নামের বিশ্বস্থিত সকল সন্তানই এক অখণ্ড পরিবারের জন এবং তাঁহার প্রতি অন্তরের প্রেম ভক্তি বিশ্বধর্ম।
এই ঈশ্বরপ্রেমই ঘনীভূত হইয়া প্রকৃত জীবপ্রেমরূপে প্রকাশিত হয়। কেবল সংবাদপত্রে লিখিলে বা বক্তৃতা দিলে বা জাতীয় স্বার্থে কাজ করিলে বিশ্বপ্রেম হয় না। সকল জাতি ও ধর্মের ঊর্ধ্বে ঈশ্বরপ্রেমের বাণী মহাপ্রভুর শ্রেষ্ঠ অবদান। ইহাই প্রকৃত ধর্মবিপ্লব। এই ধর্মবিপ্লবের গৌরচন্দ্রিকা হইয়াছিল গৌরাঙ্গের অবতীর্ণ হইবার পূর্বে, যেদিন শান্তিপুরের পণ্ডিত শ্রেণী ভক্তকুলপতি শ্রীল অদ্বৈতাচার্য প্রভুভক্তির ভূমিকাকে সর্বশ্রেষ্ঠ স্থান দিয়া তৎকালের সমাজের চিরাচরিত নিয়মকে উপেক্ষা করিয়া নামাচার্য হরিদাস ঠাকুরকে পিতৃশ্রাদ্ধের অন্নপাত্র ভোজন করাইলেন। মহাপ্রভু অবতীর্ণ হইয়া অদ্বৈতাচার্য, নিত্যানন্দ প্রভু ও হরিদাস ঠাকুর প্রভৃতি সেনাপতিসহ প্রেমের যুদ্ধ করিয়া বিশ্বজয়ী হইলেন। শ্রীল নিত্যানন্দ প্রভু হরিনাম প্রচারে, মহোৎসবে ও প্রেমধর্মের আকর্ষণে পক্ষাঘাতগ্রস্ত মানবসমাজে নতুন সঞ্জীবনী শক্তি সঞ্চারিত হইল। মনুষ্যসমাজ হতাশার গহ্বর হইতে উত্থিত হইয়া নতুন জীবন লাভ করিল। মানবজাতির অমূল্য জীবনের তাৎপর্য সকলে বুঝিতে পারিল। মহাভারত ও ভাগবত প্রভৃতি ধর্মশাস্ত্রে যে-কোনও জাতি ধর্মের ঈশ্বরভক্তের যেরূপ উৎকর্ষ ও ভক্তিহীন উচ্চবর্ণের যেরূপ নিন্দার কথা আছে তাহা মহাপ্রভুর পূর্বে সমাজে তেমন প্রচারিত হয় নাই। মহাপ্রভু ও তাঁহার পার্ষদগণ দ্বারে দ্বারে গ্রামে গ্রামে ভক্তিধর্মের সর্বোৎকর্ষের বাণী প্রচার করিলেন। তাহাতে সকল জাতির ব্যক্তিগণ নিজেদের মানবজন্মের দুর্লভতা বুঝিয়া ভক্তিধর্মে প্রবেশ করিয়া ধন্য হইলেন। বলপ্রয়োগ, সমাজের উৎপীড়নে বা অর্থলোভে বা রাজনৈতিক কারণে বহু হিন্দু ধর্মান্তর গ্রহণ করিয়াছেন কিন্তু হিন্দুধর্মের মহিমার আকর্ষণ ভিন্ন অন্য কারণে অন্যধর্মী কেহই হিন্দুধর্মে প্রবেশ করেন নাই।
পণ্ডিতপ্রবর জ্যোতির্ময় নন্দের ‘জ্যোতির্ময় রচনাঞ্জলি’ থেকে 
08th  March, 2020
অমৃতকথা 

‘ধৃ’ ধাতুর উত্তর ‘মন্‌’ প্রত্যয় করে ‘ধর্ম’ শব্দের উৎপত্তি। ধর্ম মানে যা ধারণ করে থাকে বা যাকে ধারণ করে রাখা হয়। যেমন অগ্নি— অগ্নির ধর্ম দহন করা। প্রতিটি সত্তার ‘ধর্ম’ আছে আর তার দ্বারাই তার অস্তিত্ত্ব সূচিত হয়, অস্তিত্ত্ব নির্ধারিত হয়।   বিশদ

  ঠাকুর

ঠাকুরই ছদ্মবেশে শান্তির পথ দেখাবার জন্য, মূর্খের সাজে এসেছিলেন। পাণ্ডিত্যের গর্ব্ব চূর্ণ করিবার জন্যই তাঁর আবির্ভাব। হও সরল, মন মুখ এক করে তাঁর চিন্তা কর। এই শরীরেই প্রভুর দর্শন লাভ ক’রে ধন্য হতে হবে তোমাদের। তাঁর নামে অসীম শক্তি অনুভব কর্‌বে।
বিশদ

01st  April, 2020
 ঘুম

শুরুতেই মনে রাখা দরকার যে আমাদের জীবনের এক তৃতীয়াংশেরও বেশী ঘুমের মধ্যে কেটে যায়—কাজেই, যে সময়টা ঘুমে অতিবাহিত করি তার সম্বন্ধে বিশেষভাবে আমাদের দৃষ্টি দেওয়া উচিত।
বিশদ

31st  March, 2020
ভগবান

তোমার জীবনের অর্ঘ্য ভগবানের পায়ে অর্পণ কর। ইহা তোমার জীবনের প্রথম এবং প্রধান কর্ত্তব্য। তার পরে ইহা নির্ম্মাল্য হইয়া জগতের প্রতিজনের সংস্পর্শে আসুক। অকপটে যে জীবন ভগবানে উৎসর্গীকৃত হইয়াছে, সে জীবনের সংস্পর্শে যে যখনি আসুক, নির্ম্মাল্যের পবিত্রতাকে সম্মান করিয়া চলিতে সে বাধ্য হইবে।
বিশদ

30th  March, 2020
 ভগবান

একমাত্র ভগবানে বিশ্বাস করিলেই যে সব গোল মিটিয়া যায়। সাধুদের তোমার প্রতি কৃপা আছেই জানিবে। আর ভগবান্‌ অন্তর্য্যামী, তিনি সকলই দেখিতেছেন। সরল অকপটভাবে তাঁহার কাছে সমস্ত আব্‌দার আবেদন করিবে।
বিশদ

29th  March, 2020
 মানুষের বৃত্তি

মানুষের যে স্বাভাবিক বৃত্তি, স্থিতি, ভাব তৈরী হয় সেটি তৈরী হওয়ার পিছনে কিছু কারণ থাকে, তার মধ্যে আহারও একটি কারণ। কথিত আছে যে, ‘‘যেমন অন্ন খাবে, তেমন মন হবে।’’
বিশদ

28th  March, 2020
 বাসনা

বর্ষাকালে বায়ুর দ্বারা চালিত হইয়া মেঘ যেমন শত অনর্থের সৃষ্টি করে, সেই প্রকাপে মহাশক্তিশালী অহংকার মূলসহিত কর্তিত হইলেও মনের দ্বারা যদি ক্ষণকালের জন্যও স্মৃত হয় তো পুনরায় বাঁচিয়া উঠিয়া শত শত চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে।
বিশদ

27th  March, 2020
 ভাল দিন-খারাপ দিন

 প্রশ্ন: ভাল দিন আর খারাপ দিন কোন্‌টি?
উত্তর:‘যদচ্যুতকথালাপরসপীযূষবর্জিতম্‌।
তদ্দিনং দুর্দিনং মন্যে মেঘাচ্ছন্নৎ ন দুর্দিনম্‌।।’ —(শ্রীমদ্‌ভাগবতম্‌) বিশদ

25th  March, 2020
আলো 

মানুষের সূক্ষ্মদেহের হৃদয়ে সার্চ্চ লাইটের মত আলো আছে। ওই আলোতে সাধারণতঃ নীচের তিনটি পদ্ম আলোকিত থাকে। মূলাধার হতে যখন ওই আলো সংহরণ করা যায়, তখন তন্দ্রাবস্থা আসে; যখন স্বাধিষ্ঠানে আনা যায়, তখন স্বপ্নাবস্থা হয়; যখন মণিপুরে আসে সুষুপ্তি অবস্থা।  
বিশদ

23rd  March, 2020
গীতা

 গীতায় অষ্টাদশ অধ্যায়ে পাওয়া যায় যে সর্বভূতে হৃদয় প্রদেশে ঈশ্বর বিরাজ করেন এবং সেখান হইতে মায়ারজ্জুর দ্বারা সর্বভূতকে সঞ্চালন করেন। এই স্থলে ‘হৃদয়’ শব্দের কি তাৎপর্য এবং সেখানে ঈশ্বরের অবস্থান কি প্রকার জানিতে ইচ্ছা হয়। সাধকের সাধনপথে হৃদয়ের জ্ঞান কতটা আবশ্যক তাহা আমার জিজ্ঞাস্য।
বিশদ

22nd  March, 2020
দক্ষিণেশ্বরে ঠাকুর যখন যেভাবে
ভবতারিণীর পূজা করিতেন

 অগ্রজের মৃত্যুর পর ঠাকুর শ্রীশ্রীজগদম্বার পূজায় অধিকতর মনোনিবেশ করিয়াছেন এবং তাঁহার দর্শনলাভের জন্য যাহাই অনুকূল বলিয়া বুঝিতেছেন তাহাই বিশ্বস্তচিত্তে ব্যগ্র হইয়া সম্পন্ন করিতেছেন। এই সময়ে যথারীতি পূজা সমাপনান্তে দেবীকে নিত্য রামপ্রসাদ প্রমুখ সিদ্ধ ভক্তদিগের রচিত সঙ্গীত সমূহ শ্রবণ করান তিনি পূজাঙ্গের অন্যতম বলিয়া ধারণা করিয়াছিলেন। বিশদ

21st  March, 2020
অমৃতকথা 

দিন যায়। জীবন তো নিরন্তর মরণ-সিন্ধুপানে ব’য়ে যায়। কিন্তু প্রভো! আজও তোমায় জীবনে বরণ ক’রে নিলাম কই? আন্তরিক প্রেম-প্রীতি-অনুরাগ, ভক্তি-শ্রদ্ধা-ব্যাকুলতা নিয়ে তোমার শ্রীচরণে আত্মসমর্পণ করলাম কোথায়?  বিশদ

20th  March, 2020
  কুণ্ডলীশক্তি

“মস্তিষ্ক-মধ্যগত ব্রহ্মরন্ধ্রস্থ অবকাশ বা আকাশে অখণ্ড-সচ্চিদানন্দস্বরূপ পরমাত্মার বা শ্রীভগবানের জ্ঞানস্বরূপে অবস্থান। তাঁহার প্রতি কুণ্ডলীশক্তির বিশেষ অনুরাগ, অথবা শ্রীভগবান তাঁহাকে নিরন্তর আকর্ষণ করিতেছেন।” এই আকর্ষণ কিরূপে বুঝিতে বা অনুভব করিতে পারা যায়? বিশদ

19th  March, 2020
আত্মকর্ম্ম

আত্মকর্ম্মের দ্বারা আত্মিক স্থিতির উৎকর্ষ-সাধন ঘটিয়া থাকে। তীব্রতা অনুসারে কর্ম্মকে তিন ভাগে বিভক্ত করা যাইতে পারে। আত্মকর্ম্ম ততক্ষণ পর্য্যন্ত সম্পন্ন হইতে পারে না যতক্ষণ পর্য্যন্ত দেহে চৈতন্য শক্তির উন্মেষ না হয়। প্রতি মনুষ্যদেহে এই শক্তি কুলকুণ্ডলিনী নামে নিহিত রহিয়াছে।
বিশদ

18th  March, 2020
 ব্রহ্ম

রামানুজ জগৎপ্রপঞ্চকে চিৎ (জীবাত্মা বা প্রাণী), অচিৎ (জড় প্রকৃতি) এবং ঈশ্বর—এই তিন ভাগে ভাগ করেছেন; অথবা চেতন, অবচেতন ও অধিচেতন—এই তিন ভাগ। শঙ্কর কিন্তু বলেন: (জীবাত্মা) চিৎ ও (পরমাত্মা) ঈশ্বর বা ব্রহ্ম এক বস্তু। ব্রহ্ম সত্যস্বরূপ, জ্ঞানস্বরূপ, অনন্তস্বরূপ; ঐ সত্য, জ্ঞান ও অনন্ত তাঁর গুণ নয়।
বিশদ

17th  March, 2020
ঈশ্বর 

রাতের আকাশে অগণিত নক্ষত্র দৃষ্টিগোচর হয়, আবার সূর্যোদয়ের সাথে সাথেই অদৃশ্য হয়। তখন আর তোমরা তাদের দেখতে পাও না। এজন্য কি বলতে পারো দিনের বেলায় আকাশে নক্ষত্র নেই?  
বিশদ

16th  March, 2020
একনজরে
সংবাদদাতা, গঙ্গারামপুর: বুধবার দিল্লি থেকে হরিরামপুরে ফিরলেন চারজন। তাঁরা প্রত্যেকেই দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার হরিরামপুর ব্লকের হাড়িপুকর এলাকার বাসিন্দা। ভিনরাজ্যে কাজের জন্য গিয়েছিলেন।   ...

নয়াদিল্লি ও নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা, ১ এপ্রিল: করোনা সঙ্কট মোকাবিলায় যৌথভাবে ১ হাজার ১২৫ কোটি টাকা খরচ করার কথা জানাল তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থা উইপ্রো লিমিটেড, উইপ্রো এন্টারপ্রাইজেস লিমিটেড এবং সংস্থার কর্ণধারের নামাঙ্কিত আজিম প্রেমজি ফাউন্ডেশন।   ...

লন্ডন, ১ এপ্রিল: কোভিড-১৯ থমকে দিয়েছে গোটা বিশ্বকে। স্তব্ধ হয়ে গিয়েছে খেলার দুনিয়াও। গৃহবন্দি দশায় হাঁপিয়ে উঠেছেন খেলোয়াড়রা। আর তার থেকে খানিক মুক্তি পেতে অভিনব ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করতে এগিয়ে এল ওয়েস্ট বেঙ্গল স্মল ইন্ডাস্ট্রিজ ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন লিমিটেড। এখনও পর্যন্ত তারা সরকারি বিভিন্ন দপ্তরে ৮০ হাজার লিটার স্যানিটাইজার সরবরাহ করেছে।   ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মপ্রার্থীদের ধৈর্য্য ধরতে হবে। প্রেম-প্রণয়ে আগ্রহ বাড়বে। নিকটস্থানীয় কারও প্রতি আকর্ষণ বাড়বে। পুরোনো কোনও বন্ধুর ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯০২: ওস্তাদ বড়ে গুলাম আলি খানের জন্ম
১৯৩৩: ক্রিকেটার রনজিৎ সিংজির মৃত্যু
১৯৬৯: অভিনেতা অজয় দেবগনের জন্ম 





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৪.৬৪ টাকা ৭৬.৩৬ টাকা
পাউন্ড ৭৬.৩৬ টাকা ৯৪.৮৪ টাকা
ইউরো ৮১.৭৩ টাকা ৮৪.৭৬ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
01st  April, 2020
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪১,৮৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৯,৭৩০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪০,৩৩০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৮,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৮,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
22nd  March, 2020

দিন পঞ্জিকা

১৮ চৈত্র ১৪২৬, ১ এপ্রিল ২০২০, বুধবার, (চৈত্র শুক্লপক্ষ) অষ্টমী ৫৫/১৯ রাত্রি ৩/৪১। আর্দ্রা ৩৪/৫০ রাত্রি ৭/২৯। সূ উ ৫/৩৩/১, অ ৫/৪৮/১১, অমৃতযোগ দিবা ৭/১২ মধ্যে পুনঃ ৯/৩৮ গতে ১১/১৬ মধ্যে পুনঃ ৩/২১ গতে ৪/২৯ মধ্যে। রাত্রি ৬/৩৫ গতে ৮/৫৬ মধ্যে ১০/৩০ মধ্যে। বারবেলা ৮/৩৬ গতে ১০/৮ মধ্যে পুনঃ ১১/৪১ গতে ১/১৩ মধ্যে। কালরাত্রি ২/৩৬ গতে ৪/৪ মধ্যে।
১৮ চৈত্র ১৪২৬, ১ এপ্রিল ২০২০, বুধবার, অষ্টমী ৪১/১৫/৩৫ রাত্রি ১০/৪/৫৮। আর্দ্রা ২২/৩০/৫২ দিবা ২/৩৫/৫। সূ উ ৫/৩৪/৪৪, অ ৫/৪৮/৩১। অমৃতযোগ দিবা ৭/১২ মধ্যে ও ৯/৩২ গতে ১১/১২ মধ্যে ও ৩/২১ গতে ৫/১ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/২৭ গতে ৮/৫৫ মধ্যে ও ১/৩২ গতে ৫/৩৪ মধ্যে। কালবেলা ৮/৩৮/১১ গতে ১০/৯/৫৪ মধ্যে।
 ৭ শাবান

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
মধ্যপ্রদেশে করোনা আক্রান্ত মহিলার মৃত্যু 

11:47:50 AM

পূঃ বর্ধমানের মন্তেশ্বরে একটি বাড়ি থেকে প্রচুর বেআইনি মদ উদ্ধার, গ্রেপ্তার ১ 

11:21:00 AM

করোনা: হরিয়ানার প্রথম মৃত্যু 
হরিয়ানায় প্রথম প্রাণ কাড়ল করোনা ভাইরাস। আম্বালায় মারণ ভাইরাসে আক্রান্ত ...বিশদ

11:20:06 AM

সিউড়ির প্যাটেলনগরে প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়কের বাড়ি লক্ষ্য করে বোমাবাজির অভিযোগ, চাঞ্চল্য 

10:58:00 AM

করোনা: গত ১২ ঘণ্টায় দেশে আক্রান্ত ১৩১ জন, মোট সংখ্যা ১৯৬৫  

10:57:49 AM

করোনা: অন্ধ্রপ্রদেশে ২১ জন আক্রান্ত, মোট সংখ্যা ১৩২ 

10:55:05 AM