Bartaman Patrika
অমৃতকথা
 

 আত্মভোলা বাঙালী জাতি

বাংলার বিশেষ সম্পৎ শক্তির উপাসনা। গৌড়ীয়া-বিদ্যা তন্ত্রের আর এক নাম। বর্ত্তমানে তন্ত্রবিষয়ে গবেষণা বা আলোচনা নাই বলিলেই হয়। আত্মভোলা বাঙালী জাতি নিজ সম্পদ্‌ সম্বন্ধে যদিও একেবারে উদাসীন, তাহা সত্ত্বেও তন্ত্রের সাধনার ধারা একেবারে মৃত নহে। আমাদের স্মরণকালের মধ্যেই রামপ্রসাদ, বামাক্ষেপা ও ঠাকুর রামকৃষ্ণ পরমহংসদেব তন্ত্রধারায় সিদ্ধিলাভ করিয়া এই সাধনাকে উজ্জ্বল করিয়াছেন। শক্তিবাদ তন্ত্রবিজ্ঞানের বিরাট দান। দার্শনিক দ্বৈতবাদ বা অদ্বৈতবাদের মত শক্তিবাদ একটা মতবাদ নহে। কারণ, ইহা বৈজ্ঞানিক ভিত্তির উপর প্রতিষ্ঠিত। দার্শনিক মতবাদের ভিত্তি তর্ক, বিচার ও শাস্ত্রীয় প্রমাণ। বৈজ্ঞানিক মতবাদের ভিত্তি পরীক্ষিত সত্য। ব্যক্তিগত অনুভূতি ও সর্ব্বজনীন অনুভূতি। কোন বিশেষ ব্যক্তির নিজস্ব অনুভূতির সত্যতা প্রতিষ্ঠিত করিতে বিচার, তর্ক ও যুক্তির প্রয়োজন হয়। যাহা সর্ব্বজনীন তাহা ব্যক্তিনিরপেক্ষ, অন্য প্রমাণের অপেক্ষা স্বতঃপ্রমাণ বলিয়া উহা অখণ্ডনীয়। শক্তিবাদ অনুরূপ একটি অখণ্ডনীয় সিদ্ধান্ত।
শক্তিবাদের প্রথম সিদ্ধান্ত শক্তি আছে। ইহা সকলের অনুভববেদ্য। ব্রহ্ম, আত্মা বা ঈশ্বর আছেন ইহা সাধারণের অনুভবের অতীত, যুক্তিতর্কের দ্বারা স্থাপন করিতে হয়—তীক্ষ্ণতর যুক্তির দ্বারা আবার উহা খণ্ডিতও হইতে পারে। শক্তিবাদ সেরূপ নহে, ইহা অখণ্ডনীয়। শক্তি নাই বলিবার সামর্থ্য কাহারও নাই। শক্তি অস্বীকার করিতেও শক্তির প্রয়োজন। শক্তিবাদ খণ্ডন করিতে বুদ্ধিশক্তি, বিচারশক্তি, বাক্‌শ঩ক্তির দ্বারস্থ হইতে হইবে। ভগবান্‌ আ঩ছেন আপত্তি হইতে পারে, শক্তি আছে ইহাতে আপত্তি করা যায় না। সুতরাং দেখা যাইতেছে যে, শক্তিবাদ খণ্ডন করিতে গিয়া যে-বস্তুর আশ্রয় লইতে হইতেছে তাহাও শক্তি। অতএব উহার অস্তিত্ব অনস্বীকার্য্য।
শক্তি আছে, ইহা শক্তিবাদের চরম কথা নহে। শক্তিবাদের অন্তরের কথা, একমাত্র শক্তিই আছে, নিখিল বিশ্বে শক্তি ছাড়া আর কিছুই নাই। জগতের প্রত্যেক বস্তুই শক্তির সমবায় (Conglomeration of energy) বস্তুমাত্রই শক্তি ভিন্ন আর কিছু নহে। এক একটি বস্তু, শক্তির এক এক ধরণের প্রকাশ। ‘যা দেবী সর্ব্বভূতেষু শক্তিরূপেণ সংস্থিতা’—দেবী মহাশক্তি সর্ব্বভূতে শক্তিরূপেই বিরাজিতা— ইহাই তন্ত্রের মহতী ঘোষণা। পাশ্চাত্ত্য বিজ্ঞানের সহিত তন্ত্রের এই সিদ্ধান্তের সাদৃশ্য বিস্ময়কর বলিলেও অত্যুক্তি হয় না। নিউটন সাহেবের সময় হইতে তিনশত বর্ষের জয়যাত্রার মধ্য দিয়া আজ বৈজ্ঞানিকেরা যে সিদ্ধান্তে পৌঁছিয়াছেন, উহা একান্তভাবে তন্ত্রের এই সিদ্ধান্তকে সমর্থন করে। পারমাণবিক আবিষ্ক্রিয়ার ফলে একটি সূক্ষ্মাতিসূক্ষ্ম পরমাণুর মধ্যে যে প্রচণ্ড শক্তির খেলা প্রত্যক্ষ করা যায় তাহাতে বস্তু (matter) সম্বন্ধে আমাদের ধারণার আমূল পরিবর্ত্তন সাধিত হইয়াছে। বস্তুমাত্রই যে শক্তির সমবায় উহাতে এখন আর কাহারও সংশয় নাই।
শক্তিবাদের তৃতীয় কথা, সর্ব্বভূতে অর্থাৎ এই নিখিল বিশ্বচরাচরে একটিমাত্র শক্তিই আছে। বহু যে দেখি—তাপ (heat), আলো (light), বৈদ্যুতিক শক্তি (electricity)—উহা দৃষ্টির ভ্রমবশতঃই। বৈজ্ঞানিক দৃষ্টি লইয়া দেখিলে সবই একই শক্তির অভিব্যক্তি বলিয়া জ্ঞান হয়। কিছুদিন পূর্ব্বেও পরমাণু (atom) জগতের মূল কারণ— বিজ্ঞানের এইরূপ সিদ্ধান্ত ছিল। কিন্তু আজ এই মতের পরিবর্ত্তন হইয়াছে। সকল বস্তুই যে এক শক্তির পরিণতি, ইহা এখন সর্ব্ববাদিসম্মত বৈজ্ঞানিক সিদ্ধান্ত। আলো, তাপ, বিদ্যুৎ প্রভৃতির মূলে যে একটি মাত্র শক্তি বিদ্যমান, ইহা আজ বিশেষভাবে প্রমাণিত হইয়াছে। বহুকালের গবেষণার পর পাশ্চাত্ত্য-বিজ্ঞান আজ যে সিদ্ধান্তে পৌঁছিয়াছে—বিশ্বের মূলে একই শক্তি কাজ করিতেছে, ইহা ভারতীয় তন্ত্রশাস্ত্রী বহু পূর্ব্বেই দ্বিধাহীনকণ্ঠে ঘোষণা করিয়াছে।
মহানামব্রত ব্রহ্মচারীর ‘চণ্ডী চিন্তা’ থেকে
31st  August, 2019
অমৃতকথা

সত্ত্বের ভূমি expansion–এর ভূমি, প্রাণের ভূমি। সব কিছুর ভেতর তিনি (ভগবান) আছেন প্রথম অবস্থায় এটা আরোপ করতে হবে। সত্ত্বে প্রতিষ্ঠিত হলে উহা ঠিক ঠিক উপলব্ধি হয়। সত্ত্বের ভূমিতে না উঠলে তাঁতে (ভগবানে) মনও যায় না, কেন বলতো? ত্রিগুণাতীতের তো আর দেহ ধারণ হয় না। বিশদ

পূর্ণতাপ্রাপ্তির আকুতি

একজন ব্যক্তিমানুষের হৃদয়ের যে-কামনা তা হলো, আধুনিক মনোবিজ্ঞানের মতে, আসলে একটা পূর্ণতাপ্রাপ্তির আকুতি। আমাদের প্রত্যেক কামনার পেছনে রয়েছে হৃদয়ের একটা শূন্যতা, যা পূর্ণতা লাভের জন্য ব্যাকুল। অতএব, প্রত্যেক কামনাই আমাদের হৃদয়ের কোন-না-কোন শূন্যতার ইঙ্গিতবাহী। ভেতরের এই শূন্যতাকে পূর্ণ করতে হলে বাইরে কোন কাজ করা দরকার। বিশদ

03rd  December, 2020
বোধ

মানুষের কাছে যে আচরণ তোমরা প্রত্যাশা কর, সেরূপ আচরণ তোমরা অপরের প্রতি করবে। এই হল বিধি ব্যবস্থার মূল কথা। যীশু এখানে সকল ধর্মের সার্বজনীন তত্ত্বের উপদেশ দিয়েছেন। এই হচ্ছে সনাতন রীতি এবং মনুষ্যসমাজে আচরণবিধি নিয়ামক। মহাভারতে অনুরূপ উপদেশের উল্লেখ আছে: ‘‘নিজের প্রতি যেমন ব্যবহার আশা কর অপরের প্রতি তেমন ব্যবহার করবে।’’ বিশদ

02nd  December, 2020
বিদ্যা

যেমন আলোর আবির্ভাবে অন্ধকার পালায়, তেমনি বিদ্যা লাভ হলে সমস্ত অবিদ্যা পালায়—অর্থাৎ কাম ক্রোধ, লোভ লাভ, পূজা প্রতিষ্ঠা ইত্যাদি অবিদ্যা দূর হয়।
‘‘প্রভু কহে বিদ্যা মধ্যে কোন বিদ্যা সার। বিশদ

01st  December, 2020
স্বাধীন ইচ্ছা

মানুষ কোন অবস্থাতেই স্বাধীন নয়। প্রথম তো প্রকৃতির অধীন তারপরই ঈশ্বরাধীন। প্রকৃতির অধীন থেকে ঈশ্বরাধীন হয়ে যদি কাজ করতে পার—যদি আমার নিমিত্ত মাত্র হয়ে কাজ করতে পার তাহলে বেঁচে গেলে। এই প্রকৃতির পেছনেও তিনিই রয়েছেন। বলছেন, ‘মম মায়া।’ বিশদ

30th  November, 2020
ওঙ্কার

ধারণার্থক ‘ধূ’ ধাতুর উত্তর ‘মন‌‌‌’ প্রত্যয় ক’রে ‘ধর্ম’ শব্দটির উৎপত্তি হয়েছে। ধর্মের ব্যুৎপত্তিগত অর্থ হ’ল—যা ধারণ করে; রক্ষণার্থক ‘অব’ ধাতুর উত্তর ঐ ‘মন্‌’ প্রত্যয় করেই আমরা ‘ওম্‌’ শব্দটি পাই। ওম্‌ এর অর্থ হ’ল যিনি রক্ষা করেন, অর্থাৎ ঈশ্বর। বিশদ

29th  November, 2020
মা

৬ অক্টোবর স্বামীজী ক্ষীরভবানী থেকে ফিরে এলেন। হাতে এক ছড়া গাঁদা ফুলের মালা। অপূর্ব জ্যোতি ও পবিত্রতা তাঁর চেহারায় উদ্‌ভা঩সিত। ভগবদ্‌দর্শনলাভে কৃতকৃতার্থ ভক্তের যে আনন্দে উদ্‌঩ভাসিত প্রশান্ত আনন হওয়া সম্ভব তাই তখন স্বামীজীকে দেখে মনে হচ্ছিল। বিশদ

28th  November, 2020
শক্তিপূজা

প্রাগৈতিহাসিক যুগ হইতে ভারতে শক্তিপূজা প্রচলিত। পাঁচসহস্রাধিক বৎসর পূর্বে পঞ্জাবের হারাপ্পা এবং সিন্ধুদেশের মহেঞ্জোদারো নগরে দেবীপূজা হইত। উক্ত প্রাচীন নগরদ্বয়ের যে ধ্বংসাবশেষ সিন্ধুনদের তীরে ভূগর্ভ হইতে আবিষ্কৃত হইয়াছে তাহাতে অসংখ্য মৃন্ময়ী দেবীমুর্তি পাওয়া গিয়াছে। দেবী ছিলেন উক্ত দুই নগরের অধিবাসিগণের প্রধান দেবতা। বিশদ

27th  November, 2020
চৈতন্যদেব

ভারতবর্ষের ঐতিহ্যময় তীর্থ শ্রীবৃন্দাবনের প্রতি চৈতন্যদেবের অন্তরে সঞ্চিত ছিল নিবিড় শ্রদ্ধা। বৃন্দাবনের লুপ্তপ্রায় সংস্কৃতি ও মাহাত্ম্যকে পুনরুদ্ধার করেছিলেন যিনি তিনি স্বয়ং চৈতন্যদেব। তাঁর ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় বৃন্দাবন পুনরায় তীর্থক্ষেত্ররূপে প্রসিদ্ধি লাভ করে। বিশদ

26th  November, 2020
আত্মা

‘মনের স্থিরতার উপর সমুদয় জ্ঞান নির্ভর করছে।’ ‘যিনি সমস্ত জগৎপ্রপঞ্চে পূর্ণভাবে বিরাজ করছেন, যিনি আত্মার মধ্যে আত্মস্বরূপ, তাঁকে আমি নমস্কার করি কিরূপে?’ আত্মাকে আমার নিজের স্বভাব—নিজের স্বরূপ বলে জানাই পূর্ণজ্ঞান এবং প্রত্যক্ষানুভূতি। ‘আমিই তিনি; এ বিষয়ে কিছুমাত্র সংশয় নেই।’ বিশদ

25th  November, 2020
নারীমুক্তি

নিবেদিতার প্রতি স্বামীজীর নির্দেশ ছিল—ভারতীয় মেয়েদের জাতীয়ভাবে দেশীয় ঐতিহ্য বজায় রেখেই শিক্ষা দিতে হবে। তিনি আরও স্মরণ করিয়ে দিয়েছিলেন, শ্রীরামকৃষ্ণ শুধুমাত্র নারীমুক্তির জন্য আসেননি, তিনি জনগণেরও ত্রাণকর্তা। বিশদ

24th  November, 2020
শ্রীমা সারদা

শ্রীরামকৃষ্ণের পিতৃবন্ধু কামারপুকুরের জমিদার ধর্মদাস লাহার কন্যা প্রসন্নময়ী। বালবিধবা সর্বজনমানিতা ও পূতচরিত্রা প্রসন্নময়ী। স্বামীহারা শ্রীমায়ের হাতে বালা ও সরু লালপেড়ে বস্ত্র ব্যবহারে পল্লীবাসিনী মহিলাদের কলরবে মুখরিতা কামারপুকুর। বিশদ

23rd  November, 2020
শিক্ষা ও তার উদ্দেশ্য

স্বামী বিবেকানন্দ শিক্ষার মূলতত্ত্ব সম্বন্ধে বলেছেন, সমস্ত জ্ঞান ও সমস্ত শক্তি অন্তর্নিহিত রয়েছে, বাইরে নয়। যা’কে আমরা প্রকৃতি বলি, তা একখানি প্রতিচ্ছবির আরশি। আমরা যাকে শক্তি প্রকৃতির রহস্য এবং বল বলি, সমস্তই অন্তর্নিহিত। বিশদ

22nd  November, 2020
জীবনমুক্তি

‘জীবনমুক্তি’ শব্দটির সহজ অর্থ জীবদ্দশায় মুক্ত হওয়া বা বাঁচিয়া থাকিতে থাকিতে মোহমুক্ত হওয়া। কিন্তু এই প্রসঙ্গে ইহা অতিশয়োক্তি হইবে না যে উপরোক্ত “জীবন্মুক্তি” শব্দটির অর্থ বা তাৎপর্য্য গ্রহণে অসমর্থ মানবমন সর্বাগ্রেই প্রশ্ন করিয়া বসিবে, “ইহা আদৌ সম্ভব কি না?” বিশদ

21st  November, 2020
ঈশ্বর 

ঈশ্বরই সত্য, আর সব অনিত্য। জীবন, জগৎ, বাড়ি, ঘর-দ্বার, ছেলে, পিলে—এসব বাজিকরের ভেলকি। বাজিকরই সত্য; তার খেলা সব অনিত্য—স্বপ্নের মতো। সব লোক বাবুর বাগান দেখেই অবাক—কেমন গাছ, কেমন ফুল, কেমন ঝিল, কেমন বৈঠকখানা, কেমন তার ভেতর ছবি, এই সব দেখেই অবাক। কিন্তু কই, বাগানের মালিক যে বাবু তাঁকে খোঁজে ক-জন? বাবুকে খোঁজে দুই-একজনা।  
বিশদ

20th  November, 2020
মূর্তি 

সর্বেশ্বর ব্রহ্ম ও সর্বেশ্বরী মহামায়া আদিমিথুনকেই পুরুষ-প্রকৃতি, রাধা-শ্যাম, লক্ষ্মী-নারায়ণ, সীতা-রাম, শিব-কালী, হর-পার্বতী প্রভৃতি যুগল মূর্তি রূপে ভক্তবৃন্দ নিজ রুচিভেদে সকাম বা নিষ্কাম ভাবে আরাধনা করেন। সব উপাসনাই একই ব্রহ্মের উপাসনা।  
বিশদ

19th  November, 2020
একনজরে
সংবাদদাতা, দিনহাটা: এক বছর আগে মৃত্যু হয়েছে মায়ের। গরিব, অসহায় ছেলে সরকারি সুবিধার আশায় মায়ের মৃত্যুর সরকারি নথির জন্য হন্যে হয়ে ঘুরছেন বছরভর। এখনও মেলেনি ডেথ সার্টিফিকেট।   ...

সন্ত্রাসে আর্থিক মদত দেওয়ার অভিযোগে জামাত উদ দাওয়ার মুখপাত্র ইয়াহিয়া মুজাহিদকে ১৫ বছরের কারাদণ্ড দিল পাকিস্তানের একটি সন্ত্রাস দমন আদালত। মুজাহিদ ছাড়াও বুধবার জামাতের শীর্ষ নেতা জাফর ইকবালকে ১৫ বছর এবং হাফিজের শ্যালক আব্দুল রহমান মাক্কিকে ছ’মাসের কারাদণ্ড দিয়েছে লাহোরের ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, বর্ধমান: ভাঙা রাস্তায় মর্নিং ওয়াকে বেরিয়ে হোঁচট খাচ্ছেন বৃদ্ধ-বৃদ্ধারা। বাচ্চাদের নিয়ে অত্যন্ত সাবধানে যাতায়াত করতে হয়। বেহাল রাস্তায় গাড়ির গতি একটু বেশি হলেই রয়েছে দুর্ঘটনার সম্ভাবনা।  ...

চীন সহ যে কোনও দেশের হুমকি মোকাবিলায় প্রস্তুত ভারতীয় নৌবাহিনী। বৃহস্পতিবার নৌসেনা দিবস উপলক্ষে এক সাংবাদিক বৈঠকে এমনটাই জানিয়েছেন ভারতীয় নৌবাহিনীর প্রধান অ্যাডমিরাল করমবীর সিং। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

অতি সত্যকথনের জন্য শত্রু বৃদ্ধি। বিদেশে গবেষণা বা কাজকর্মের সুযোগ হতে পারে। সপরিবারে দূরভ্রমণের যোগ। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

ভারতীয় নৌ দিবস
১১৩১- পারস্যের কবি ও দার্শনিক ওমর খৈয়ামের মৃত্যু
১৮২৯- সতীদাহ প্রথা রদ করলেন লর্ড বেন্টিঙ্ক
১৮৮৪- ঐতিহাসিক রমেশচন্দ্র মজুমদারের জন্ম
১৯১০- ভারতের ষষ্ঠ রাষ্ট্রপতি আর বেঙ্কটরামনের জন্ম
১৯২৪- মুম্বইয়ে গেটওয়ে অব ইন্ডিয়ার উদ্বোধন হল
১৯৭৭- ক্রিকেটার অজিত আগরকরের জন্ম  



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭২.৯৯ টাকা ৭৪.৭০ টাকা
পাউন্ড ৯৭.১৫ টাকা ১০০.৫৫ টাকা
ইউরো ৮৭.৯২ টাকা ৯১.১০ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৫০, ০৬০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৭, ৫০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৮, ২১০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬৩, ৬০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬৩, ৭০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১৮ অগ্রহায়ণ, ১৪২৭, শুক্রবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২০, চতুর্থী ৩৪/৫৫ রাত্রি ৮/৪। পুনর্বসু নক্ষত্র ১৮/৫২ দিবা ১/৩৯। সূর্যোদয় ৬/৬/৩, সূর্যাস্ত ৪/৪৭/৩৯। অমৃতযোগ দিবা ৬/৪৮ মধ্যে পুনঃ ৭/৩২ গতে ৯/৪০ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৮ গতে ২/৩৯ মধ্যে পুনঃ ৩/২৩ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ৫/৪১ গতে ৯/১৪ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৪ গতে ৩/২৭ মধ্যে পুনঃ ৪/২০ গতে উদয়াবধি। বারবেলা ৮/৪৫ গতে ১১/২৬ মধ্যে। কালরাত্রি ৮/৬ গতে ৯/৪৬ মধ্যে।
১৮ অগ্রহায়ণ, ১৪২৭, শুক্রবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২০, চতুর্থী রাত্রি ৫/৪৫। পুনর্বসু নক্ষত্র দিবা ১২/২৮। সূর্যোদয় ৬/৭, সূর্যাস্ত ৪/৪৮। অমৃতযোগ দিবা ৭/২ মধ্যে ও ৭/৪৪ গতে ৯/৫০ মধ্যে ও ১১/৫৭ গতে ২/৫১ মধ্যে ও ৩/২৭ গতে ৪/৪৮ মধ্যে এবং রাত্রি ৫/৪৫ গতে ৯/২১ মধ্যে ও ১২/৩ গতে ৩/৩৮ মধ্যে ও ৪/৩২ গতে ৬/৮ মধ্যে। বারবেলা ৮/৪৭ গতে ১১/২৮ মধ্যে। কালরাত্রি ৮/৮ গতে ৯/৪৮ মধ্যে। 
১৮ রবিয়ল সানি।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আইএসএল: চেন্নাইকে ১-০ গোলে হারাল বেঙ্গালুরু 

09:32:56 PM

আইএসএল: চেন্নাই ০ বেঙ্গালুরু ১ (৫৫ মিনিট) 

08:52:01 PM

ফ্রান্সে বিজয় মালিয়ার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত
ফ্রান্সে বিজয় মালিয়ার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করল ইডি। যার আনুমানিক মূল্য ...বিশদ

07:31:00 PM

প্রথম টি-২০: অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ১১ রানে জিতল ভারত

05:33:31 PM

পূর্ব মেদিনীপুরের নতুন পুলিস সুপার প্রবীণ প্রকাশ 
মাত্র পাঁচ মাসের ব্যবধানে বদলি হলেন পূর্ব মেদিনীপুরের পুলিস সুপার ...বিশদ

05:30:18 PM

প্রথম টি-২০: অস্ট্রেলিয়া ১১৩/৪ (১৫ ওভার) 

05:08:30 PM