Bartaman Patrika
অমৃতকথা
 

শ্রীগুরু

 প্রশ্ন: শ্রীগুরু তোমাদের জপ-ধ্যান দিলেন কেন?
উত্তর: জপের দ্বারা জীবনে চলার পথে নিয়ম-নীতি-আচরণের মাধ্যমে শৃঙ্খলাবোধ এনে গুরু প্রদত্ত সত্য বস্তুকে রক্ষা করা যায়, অর্থাৎ মনের কলুষ বা আবিলতা নাশ হয় এবং দৃঢ়তা, একাগ্রতা ইত্যাদি বাড়তে থাকে। মন ক্রমশ অনিত্য বস্তুর প্রতি আসক্তি কাটিয়ে সত্যের অনুসন্ধানে তৎপর হয় এবং প্রকৃত সত্যবস্তুর সাথে তার মিলন ঘটে। ধ্যানের ধ্যেয় বস্তু ধাতু সৃষ্টি করে, ক্রমে ওই ধাতু থেকে মন প্রেয় বস্তুকে লাভ করে। গুরু তোমাকে তোমার যে মূর্তি(ধ্যানের বস্তু) দিয়েছেন, ধ্যানের দ্বারা তাকে অঙ্কিত করতে হবে, তবেই গুরুশক্তি সেখানে কাজ করবে।
প্রশ্ন: জ্ঞান কাকে বলে এবং কয় প্রকার? কোথা থেকে লাভ করা যায়?
উত্তর: ভগবানকে জানার জন্য জ্ঞান। জ্ঞান সাধারণত চার প্রকার। মনুষ্যজ্ঞান, দেবজ্ঞান, ঈশ্বরজ্ঞান এবং ব্রহ্মজ্ঞান। এছাড়া সর্বশ্রেষ্ঠ বিশেষ জ্ঞান হলো বিজ্ঞান। সব জ্ঞানই গুরু কাছে পাওয়া যায়।
প্রশ্ন: তুমি কি জানো না যে তোমার কর্মে ও চলার পথে কোথায় ভুল হচ্ছে?
উত্তর: আমরা সবাইকে বলি—আমরা কোথায় ভুল হচ্ছে তা বুঝতে বা ধরতে পারছি না। এটা কিন্তু আদৌ সত্য নয়। কারণ ভাল-মন্দ, সৎ-অসৎ জ্ঞান সকলেরই আছে। তা সত্ত্বেও আমরা গর্হিত কর্ম করি কেন? আমরা মায়ার কাছে দাসখত লিখে দিয়েছি, যার ফলে মোহগ্রস্ত হয়ে অপরাধজনক কর্মে প্রবৃত্ত হই। যাতে বিচার আত্মমুখী হয়, সেই শিক্ষা লাভ করবার জন্যই আমরা গুরুর কাছে আশ্রয় নিই। শ্রীগুরুর অমৃত বাণী শ্রবণ করি বটে, কিন্তু তা ধারণ করে বিচার বা বিশ্লেষণ করি না— এটাই আমাদের মারাত্মক ভুল।
প্রশ্ন: সংযম ধৈর্য কার দ্বারায় আসে এবং কোন কর্মের দ্বারা তা প্রকাশ পায়?
উত্তর: সংযম-ধৈর্য আসে গর্ভধারিণী মায়ের কাছ থেকে। কারণ মা হলেন রজোগুণী। তাই তার স্নেহ পরিচর্যার মাধ্যমে সন্তানের মধ্যে বিশেষ শক্তির উন্মেষ ঘটে। তমোগুণ শক্তি ক্ষয়প্রাপ্ত হয়। ‘যেমন কাঁটা দিয়ে কাঁটা তোলা।’ ওই রূপ মায়াশক্তির দ্বারায় তমোগুণ মায়াশক্তি ক্ষয়প্রাপ্ত হয়ে থাকে।
প্রশ্ন: গুরুর কাছে কিছু চাওয়া উচিত কি?
উত্তর: আমরা গুরুর কাছে সাধারণত বাস্তব অভাব পূরণের দাবী করে থাকি। কিন্তু যিনি প্রকৃত গুরু তিনি জানেন শিষ্যের প্রকৃত অভাব কি? যাতে শিষ্যের কল্যাণ হয়, তা শিষ্য চাইবার আগেই তিনি দিয়ে থাকেন। তাই গুরুর কাছে কিছু চাইতে নেই।
প্রশ্ন: গুরু দক্ষিণা কি? গুরু দক্ষিণা না দিলে কি ফল হতে পারে?
উত্তর: গুরু ইষ্টের মধ্যে অভেদে প্রকাশমান থাকেন। দীক্ষার পর গুরুমুখী ভাবার্থের দ্বারা শিষ্যের মধ্যে যদি ওই ইষ্টের প্রকাশ হয়, তখন গুরু যদি ইষ্টমন্ত্রটি কাছ থেকে দক্ষিণাস্বরূপ ফেরৎ চান, শিষ্য যদি তা প্রত্যার্পণ করে, তাহলে তিনি শিষ্যকে গুরুতে লয় করে নেন। এর ফলে গুরু ঋণ শোধ করা যায়। কিন্তু যে সব শিষ্য ইষ্টমূর্তিতে লয় হয় না, তারা গুরুর কাছে চিরকাল ঋণী থাকে এবং গুরুর আসল কর্ম করতে সমর্থ হয় না।
প্রশ্ন: মন্ত্র গ্রহণের সার্থকতা ও ভাবার্থ কি?
উত্তর: মন্ত্র হলো মনকে জানা বা খাঁটি করা । মন্ত্রের বলে একটি ক্ষেত্র সৃষ্টি হয়। গুরু দীক্ষা বীজ বপন করেন। মন্ত্র হলো শিবশক্তিকে জানা এবং ওই শক্তি বলে ভক্ত শিবত্ব প্রাপ্ত হয়। আর মন্ত্রের ঠিকমত কর্ম করলে তাঁর নাম ও ভাবের মধ্যে ভক্ত ভক্তি রসে ডুবে যায় এবং শিষ্যে পরিণত হয়।
শ্রীশ্রী আচার্য জ্ঞানেশ্বরদেব প্রণীত ‘জ্ঞানেশ্বরোপনিষদ্‌’ (৪র্থ খণ্ড) থেকে
09th  August, 2019
সার্বজনীন মহাধর্ম

নিজ গুরুবাক্যে বিশ্বাস এবং শ্রীকৃষ্ণ নামে অনুরক্তি থাকিলে দুর্যোগ তোমাদিগকেও স্পর্শ করিতে পারিবে না। আত্মনির্ভর ভক্ত-শিষ্যদের ইহকালের সাথী আমি আছি ও থাকিব। সঙ্ঘের স্মরণেই সর্ব অমঙ্গল নাশ করে। সঙ্ঘের কর্মে চিত্তশুদ্ধি হয়। সঙ্ঘের ভজনে ইষ্টসিদ্ধি হয়।  বিশদ

শ্রীগুরু সঙ্ঘ

 শ্রীগুরু সঙ্ঘ আমার প্রাণ। শ্রীগুরু সঙ্ঘের জন্য যে প্রাণ দিবে, তার জন্য আমি প্রাণ দিব। শ্রীগুরু সঙ্ঘকে বাঁচাইয়া রাখাই আমার শিষ্যের শিষ্যত্বের লক্ষণ। যে শ্রীগুরু সঙ্ঘকে ভালবাসিতে পারিবে না, তাকে আমি কি ভাবে শিষ্য বলিয়া মনে করিতে পারি?
বিশদ

12th  December, 2019
 বিরহ

 শ্রীরাধা শ্রীকৃষ্ণ-বিরহে দিব্যোন্মাদ অবস্থা প্রাপ্ত হইয়াছেন। সর্বাঙ্গে কম্পাদি বিকারসমূহের উদ্‌গম হইয়াছে। কথা বলিতে গেলে শব্দগুলি লুণ্ঠিত হইতেছে। নয়নযুগল হইতে অশ্রুধারা বিগলিত হইতেছে। তাহাতে ব্রজবন নদীমাতৃক দেশের তুল্য হইয়াছে। বিশদ

11th  December, 2019
ভগবান 

শ্রীভগবান্‌ কোন বিশেষ পদার্থ নন, তিনিই বহুরূপে। এক একটি ব্যষ্টিরূপে এই পৃথিবীতে, তিনিই আবার সমষ্টিরূপে কৈলাসে। তিনি ছাড়া তুমি নাই। তুমি ফুল, তোমার অন্তরের ফল তিনি। আবার ফুল রূপে ভোক্তা হ’য়ে ফলরূপী ভগবান্‌কে ভোগ করছো তুমি। শ্রীভগবান্‌ তোমার অণুতে পরমাণুতে আবদ্ধ।  
বিশদ

10th  December, 2019
অমৃতকথা 

ঊনবিংশ শতাব্দী ভারতবর্ষের ইতিহাসে সর্বপ্রকারে এক স্মরণীয় যুগ। এই শতকে ভারতবর্ষ বহুবিধ কারণে জীবনমরণের সন্ধিক্ষণে আসিয়া উপনীত হয়। ধর্ম, সমাজ, সাহিত্য ইত্যাদি সকল ক্ষেত্রেই নিদারুণ পরিবর্তন ঘটে।  বিশদ

09th  December, 2019
 বৈরাগ্য

 বৈরাগ্যের ভাব জাগাইবার জন্য যোগবাশিষ্টের মতো আর কোন পুস্তক নাই। বিরল কোন বৈরাগ্যবান্‌, বা মুমুক্ষু আছেন, যে যোগবাশিষ্ট পড়েন না। যোগবাশিষ্টের সহায়ে বিরাগী মন মুহূর্ত্তের ভিতর অন্তর্জগতে চলিয়া যায়। বৈরাগ্যমূলক এই অপূর্ব গ্রন্থখানা পড়িতে পড়িতে মৃত্যুর চিত্র, ক্ষণভঙ্গুর এই সংসারের চিত্র চোখের সামনে ভাসিতে থাকে।
বিশদ

08th  December, 2019
শ্রীমান্‌ উদ্ধব

যখন মথুরা হইতে ব্রজে যাত্রা করেন শ্রীমান্‌ উদ্ধব, তখন তিনি আপন মনে ভাবনা করিয়াছিলেন নন্দরাজার কথা। যাঁদের কথা বলিতে শ্রীকৃষ্ণের মত ব্যক্তির এত বিহ্বলতা, না জানি তাঁদের কৃষ্ণপ্রীতি কত গভীর! এই গভীরতার একটা মানসিক অনুমতি ছিল উদ্ধবের অন্তরে। 
বিশদ

07th  December, 2019
ধর্ম

শ্রীরামকৃষ্ণ কোন ধর্মকে নিন্দা বা উপেক্ষা করেন নাই। কোন ধর্ম ভাঙ্গিতে তিনি আসেন নাই, নূতন কোন সম্প্রদায় গড়িতেও তিনি আসেন নাই। তিনি বুঝাইয়া দিতে আসিয়াছিলেন,—সকল ধর্মেই সত্য নিহিত আছে, প্রত্যেক মানুষ স্বধর্মে থাকিয়া সত্যকর্ম আচরণ করিবে। 
বিশদ

06th  December, 2019
 কর্মশক্তি

“সতত মনে রাখিও তোমার কর্মশক্তি কাহারও হইতে কম নহে, ইহার পরিচয় এবার পাইয়াছ তোমার কর্মশক্তিই যেন তোমার আশ্রয়দাতার শুভাশীর্বাদ আনয়ন করিয়া তোমাকে মহামুক্তির পথে পরিচালনা করিতে পারে।...” সঙ্ঘগীতায় কর্মশক্তির পরিচয়ের কথা যাহা বলিলেন, তাহা এমন কিছুই নয়। বাংলার বাইরে হিন্দী ভাষীদের নিকট যাইয়া প্রথম একা আদায়, এই যা। যাহা ঘটিয়াছিল তাহা এই—ডালটনগঞ্জে [বিহার] একা কালেক্‌সনে গিয়াছি।
বিশদ

05th  December, 2019
 ঈশ্বর

 ‘সংসারের ভোগ হয়ে গেলে ঈশ্বরের জন্য প্রাণ ব্যাকুল হয়। কি করে তাঁকে পাব, কেবল এই চিন্তা হয়। যে যা বলে তাই শুনে। তিনি তো ধর্ম-মা নন, তিনি আপনারই মা, ব্যাকুল হয়ে মার কাছে আবদার কর। বিশদ

04th  December, 2019
বৈষ্ণব ভক্ত

এক বৈষ্ণব ভক্তের কথা শুনলাম—তিনি তোমার মূর্ত্তি ছাড়া অন্য মূর্ত্তি দর্শন করেন না। তাঁর গৃহে একখানি কালীর ছবি ছিল, তিনি সেখানি গৃহ হতে ফেলে দিয়ে নিশ্চিন্ত হয়েছেন। শক্তির প্রসাদ পর্য্যন্ত গ্রহণ করেন না। আমি ভক্তিহীন—সেজন্য “আমি শ্যাম, আমি শ্যামা” বলে বুঝলে, তাঁদের ত বুঝাতে পারি না।  
বিশদ

03rd  December, 2019
নাম

নীরব কেন? নাম কর্‌! এই রাম নাম—এই কৃষ্ণ নাম—মধুর হতেও মধুর, একথা কি জন্য বলছি জানিস্‌? দেখ্‌, মধুর কোন দ্রব্য জিহ্বায় রাখলে তার মাধুর্য্য অল্পক্ষণ থাকে, কিছুক্ষণ পরে আর জিহ্বাতে স্বাদ থাকে না; কিন্তু এই যে নাম—প্রথম বৈখরীতে জিহ্বায় রাখ, জিহ্বায় জপ করতে করতে এর মধুরত্ব শতগুণ বৃদ্ধি পাবে, জিহ্বা কৃতার্থ হবে, কণ্ঠ ধন্য হবে।  বিশদ

01st  December, 2019
 দেহ

দেখ্‌, আমার এ নাম প্রাণপ্রয়াণের পাথেয়। তুই নাম কর্‌। আজ তোর দেহে প্রাণ আছে, কিন্তু চিরদিন তো থাকবে না। তোর এমন একটা দিন আসছে যেদিন তোর হস্তপদাদি সঞ্চালনের শক্তি থাকবে না, তোর চক্ষু আর কিছু দেখবে না, তোর জিহ্বা রস গ্রহণ করতে পারবে না বা কোন শব্দ উচ্চারণ করতে পারবে না। প্রাণ তোর দেহকে ত্যাগ করে চলে যাবে।
বিশদ

30th  November, 2019
শিক্ষা

বাহ্যিক স্নেহ-প্রেম-ভালবাসা ও আদর-আপ্যায়ন তাহাদের জন্যই প্রয়োজন অধিক। কিন্তু, যাঁরা উচ্চকোটী সাধক, আচার্য্যদেব তাঁহাদিগকে করুণা করেন ভাল খাওয়াইয়া ভাল পরাইয়া নয়; পরন্তু অন্যভাবে।  বিশদ

29th  November, 2019
কর্ম

 এ জগৎ কর্মময়। এখানে মানুষ কর্ম করিতে আসে। তবে প্রকৃত কর্ম কি, এ সম্বন্ধে পণ্ডিতগণও মোহগ্রস্থ হন। প্রকৃত কর্মের সন্ধান না পাইলে উদ্দেশ্য বিহীন ভাবে কর্ম করিয়াও কোন লাভ হয় না। এইরূপ সম্মেলনের মাধ্যমেই সেই প্রকৃত কর্মের সন্ধান পাওয়া যায়।
বিশদ

28th  November, 2019
উচ্চকীর্ত্তন ও নামজপ 

‘‘মহাপ্রভু শ্রীগৌরাঙ্গ নাম-কীর্ত্তনের দ্বারা জীবের মুক্তি বিধান করিতে চাহিয়াছেন, ইহা সত্য। তিনি নিজেই ত্রিসত্য করিয়া বলিয়া গিয়াছেন,—হরের্নাম হরের্নাম হরের্নামৈব কেবলম্‌, কলৌ নাস্ত্যেব নাস্ত্যেব নাস্ত্যেব গতিরন্যথা।   বিশদ

27th  November, 2019
একনজরে
শীর্ষেন্দু দেবনাথ, কৃষ্ণনগর, বিএনএ: গত পাঁচ বছরে কৃষ্ণনগরের পকসো আদালতে প্রায় ৫০০ মামলা নথিভুক্ত হয়েছে। ২০১২ সালে ‘প্রিভেনশন অব চিলড্রেন ফ্রম সেক্সুয়াল অফেন্সসেস’ বা পকসো আইন চালু হয়েছে। কৃষ্ণনগরে এই বিশেষ আদালত চালু হয়েছে ২০১৪ সালে। ...

ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে যেসব সংস্থার শেয়ার গতকাল লেনদেন হয়েছে শুধু সেগুলির বাজার বন্ধকালীন দরই নীচে দেওয়া হল।  ...

পাটনা, ১২ ডিসেম্বর (পিটিআই): নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল (ক্যাব) সমর্থন না করায় ইতিমধ্যেই দলের অন্দরে কোণঠাসা হয়ে গিয়েছেন জেডিইউয়ের সহ সভাপতি প্রশান্ত কিশোর। তবে তা সত্ত্বেও তিনি নিজের অবস্থানে অনড়ই থাকলেন। বৃহস্পতিবার তিনি বলেন, ওই বিলের মাধ্যমে সরকার ধর্মের ভিত্তিতে মানুষকে ...

সংবাদদাতা, উলুবেড়িয়া: ডেঙ্গু প্রতিরোধের পাশাপাশি প্লাস্টিক বর্জন ও জল অপচয়ের বিরুদ্ধে এবার পথে নামল উলুবেড়িয়া পুরসভা। বৃহস্পতিবার এই উপলক্ষে পুরসভার তরফে জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে এক পদযাত্রার আয়োজন করা হয়। পাশাপাশি পুরসভার ২২নং ওয়ার্ডটিও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করা হয়।  ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
aries

শারীরিক দিক থেকে খুব ভালো যাবে না। মনে একটা অজানা আশঙ্কার ভাব থাকবে। আর্থিক দিকটি ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৩০: রাইটার্সে অলিন্দ যুদ্ধের সেনানী বিনয় বসুর মৃত্যু
১৯৮৬: অভিনেত্রী স্মিতা পাতিলের মূত্যু
২০০১: ভারতের সংসদে জঙ্গি হামলা
২০০৩: তিকরিত থেকে গ্রেপ্তার হলেন সাদ্দাম হুসেন





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৯.৮৫ টাকা ৭১.৫৪ টাকা
পাউন্ড ৯১.৮৫ টাকা ৯৫.১৫ টাকা
ইউরো ৭৭.২৯ টাকা ৮০.২৭ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,৩৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,৪১৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৬,৯৬০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৩,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৩,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, প্রতিপদ ৯/২৪ দিবা ৯/৫৭। মৃগশিরা ০/১৮ দিবা ৬/১৮ পরে আর্দ্রা ৫৯/৯ শেষরাত্রি ৫/৫১। সূ উ ৬/১১/২, অ ৪/৪৯/৩৩, অমৃতযোগ দিবা ৬/৫৪ মধ্যে পুনঃ ৭/৩৬ গতে ৯/৪৪ মধ্যে পুনঃ ১১/৫২ গতে ২/৪২ মধ্যে পুনঃ ৩/২৫ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ৫/৪৩ গতে ৯/১৭ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৮ গতে ৩/৩২ মধ্যে পুনঃ ৪/২৫ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ৮/৫০ গতে ১১/৩০ মধ্যে, কালরাত্রি ৮/৯ গতে ৯/৪৯ মধ্যে। 
২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, প্রতিপদ ১০/৫৮/৫৭ দিবা ১০/৩৬/৩৮। মৃগশিরা ৩/১৮/৩৯ দিবা ৭/৩২/৩১, সূ উ ৬/১৩/৩, অ ৪/৪৯/৫৫, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪ মধ্যে ও ৭/৪৬ গতে ৯/৫৩ মধ্যে ও ১২/০ গতে ২/৪৯ মধ্যে ও ৩/৩২ গতে ৪/৫০ মধ্যে এবং রাত্রি ৫/৫০ গতে ৯/২৫ মধ্যে ও ১২/৬ গতে ৩/৪০ মধ্যে ও ৪/৩৪ গতে ৬/১৪ মধ্যে, কালবেলা ১০/১১/৫৩ গতে ১১/৩১/২৯ মধ্যে, কালরাত্রি ৮/১০/৪২ গতে ৯/৫১/৫ মধ্যে। 
১৫ রবিয়স সানি 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
বারুইপুরে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের পক্ষে মিছিল বিজেপির 

05:30:00 PM

সান্দাকফুতে মরশুমের প্রথম তুষারপাত 
রাজ্যের উচ্চতম পয়েন্ট সান্দাকফুতে মরশুমের প্রথম তুষারপাত শুরু হল। আজ ...বিশদ

05:25:42 PM

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন: মুর্শিদাবাদের রঘুনাথগঞ্জে টায়ার জ্বালিয়ে পথ অবরোধ  

05:09:18 PM

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন: প্রতিবাদে বিজেপি ছাড়লেন দক্ষিণ দিনাজপুরের পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ 
নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের প্রতিবাদ জানিয়ে বিজেপি ছাড়লেন দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা ...বিশদ

05:03:32 PM

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন: প্রতিবাদ ঘিরে রণক্ষেত্র মুর্শিদাবাদের বেলডাঙা

04:54:00 PM

উলুবেড়িয়ায় দূরপাল্লার ট্রেনে ভাঙচুর, অবরোধ 
নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের প্রতিবাদে উলুবেড়িয়ায় দাঁড়িয়ে থাকা হাওড়া-চেন্নাই মেলে ভাঙচুর ...বিশদ

04:48:00 PM