Bartaman Patrika
সম্পাদকীয়
 

উন্নতশির বাংলার অর্থনীতি

কোভিড সংক্রমণ ভারতীয় অর্থনীতিকে খাদের কিনারে দাঁড় করিয়ে দিয়েছে। লকডাউনের ফলে মাইনাস ২৩.৯ শতাংশের পতন প্রত্যক্ষ করেছে। এই রেকর্ড সঙ্কোচন থেকে অর্থনীতিকে উদ্ধার করা কতটা কঠিন তা অর্থনীতির পণ্ডিতরা জানেন। যে সরকার তার যে-কোনও রকম ব্যর্থতা অস্বীকার করতে কুণ্ঠিত, এমনকী লজ্জিত নয়, সেই সরকারের অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামনও অবশেষে অর্থনীতির হাড়ির হাল মেনে নিয়েছেন। চলতি অর্থবর্ষে অভ্যন্তরীণ উৎপাদন বা জিডিপি স্বাভাবিক হওয়া নিয়ে তাঁরও সংশয় রয়েছে। তাঁর আশঙ্কা, আর্থিক বৃদ্ধির হার নেগেটিভই থাকবে, উত্তরণ ঘটবে খুব বেশি হলে শূন্যের কাছাকাছি। আনলক পর্বে বৃদ্ধির ইঙ্গিত পাওয়া সত্ত্বেও এটাই বাস্তব।
আসলে কেন্দ্রীয় সরকার এবং বেশিরভাগ রাজ্য কোভিড মোকাবিলা করতে নেমে বাস্তব থেকে অনেক দূরের অবস্থান নিয়েছে। তারা হয়তো ভুলে গিয়েছে, কোভিড আসলে এক যুদ্ধের নাম। স্বাধীনতা-উত্তর ভারত এত বড় যুদ্ধের সামনে এই প্রথম। ভারত-পাকিস্তান, ভারত-চীন প্রভৃতি একাধিক সম্মুখ-সমরের কথা মাথায় রেখেও এই কথা বলতে হচ্ছে। যে-কোনও যুদ্ধজয়ের জন্য প্রধান রসদ হল অর্থ। অর্থবল ছাড়া কোনও যুদ্ধে জেতা যায় না। কোভিডকে পরাস্ত করার ক্ষেত্রেও তার ব্যতিক্রম হওয়ার কথা নয়। পৃথিবীর কোনও দেশই কোভিডের বিপদকে ঠিকঠাক মাপতে পারেনি। চীন, ইউরোপ, আমেরিকা কেউই নয়। নরেন্দ্র মোদিও সেই গড্ডলিকায় গা ভাসিয়েছিলেন। মার্চের শেষদিকে লকডাউন ঘোষণার অব্যবহিত পরে প্রধানমন্ত্রী দাবি করেছিলেন, কোভিড জব্দ করতে তাঁর প্রশাসন তিন সপ্তাহ সময় নেমে। তারপর কোনও ফাঁক দিয়ে তিন মাস পেরিয়ে গিয়েছে, তার হিসেব পাননি ভারতেশ্বর। চীন, আমেরিকা এবং ইউরোপ নিজেদের শুধরে নিতে অযথা দেরি করেনি। বেশিরভাগ বড় অর্থনীতি দিব্যি ঘর গুছিয়ে নিয়েছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে। কিন্তু সাত মাস পরেও নরেন্দ্র মোদিকে পূর্ববৎ দিশেহারা মনে হচ্ছে!
কারণ, অর্থনীতিকে চাঙ্গা রেখে লড়াই করতে হবে—সরকার এটা উপলব্ধি করেনি। আনলকের পাঁচ মাসেও এই বোধ কতটা কাজ করেছে সন্দেহ রয়েছে তা নিয়েও। লকডাউনে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ছোটখাটো শিল্প-ব্যবসা-বাণিজ্য, যাকে এমএসএমই সংজ্ঞাভুক্ত করা যায়। ভারতীয় অর্থনীতির এটাই মেরুদণ্ড। এগারো-বারো কোটি পরিবার এই ক্ষেত্রের উপর নির্ভর করে বেঁচে থাকে। এই ক্ষেত্র জিডিপির প্রায় ৩৬ শতাংশের দায়িত্ব বহন করে। রপ্তানি বাণিজ্যেও এই ক্ষেত্রের অবদান ৪৫ শতাংশের মতো। এমএসএমই সেক্টরই অসংগঠিত কর্মিদলের ভরসা। সাধারণ মানুষের প্রয়োজনের বেশিরভাগ জিনিস ও পরিষেবা এই ক্ষেত্র উৎপাদন করে থাকে। কোভিডের ধাক্কায় এমএসএমই সেক্টর শুয়ে পড়ায় শুধু সংশ্লিষ্ট কাজের বাজার নষ্ট হয়নি, গরিব ও নিম্ন মধ্যবিত্ত মানুষকেও বিশেষ সঙ্কটে পড়তে হয়েছে। কয়েক কোটি পরিযায়ী শ্রমিক যে হেনস্তার শিকার হয়েছিলেন, তা বৃহত্তম গণতন্ত্রের জন্য সবচেয়ে লজ্জার। সারা পৃথিবীর কাছে আমাদের মাথা হেঁট হয়ে গিয়েছে। দ্রুত জোগান বাড়িয়ে নেওয়ার জন্য যে ধরনের ফিসকাল স্টিমুলাসের ব্যবস্থা করা জরুরি ছিল—কেন্দ্র তা অস্বীকার করে গিয়েছে কৌশলে। মোদি-সীতারামনের ধূর্তনীতি আশঙ্কামতোই সৎ অর্থনীতির সমার্থক হয়নি। পশ্চিমবঙ্গসহ কয়েকটি রাজ্য লাগাতার প্রতিবাদ করেও সুরাহা পায়নি, সংবিৎ ফেরাতে পারেনি মোদি সরকারের। নিরুপায় হয়ে কয়েকটি সচেতন রাজ্য তাদের সীমিত ক্ষমতায় বিকল্পভাবে ঘুরে দাঁড়াবার চেষ্টা করে চলেছে। একশো দিনের কাজে গুরুত্ব আরোপ, এমএসএমই সেক্টরে গতিসঞ্চার, সীমিত পরিসরে অতি সাবধানে উৎসবকে আঁকড়ে ধরা প্রভৃতি নানা উপায়ে জোগান বাড়াবার লক্ষ্যে অবিচল রয়েছে। আনলক পর্বে বাংলা যে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে উন্নতির বিশেষ সাক্ষ্য রাখতে পেরেছে—তা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ওই দৃঢ়তার ফসল। গুগল-সহ একাধিক সংস্থার সমীক্ষা রিপোর্ট স্পষ্ট করে দিয়েছে, কোভিড মোকাবিলা করতে নেমে পশ্চিমবঙ্গ ভেঙে পড়েনি। অর্থনীতির চাকায় গতি বজায় রেখেই লড়ে যাচ্ছে। যুদ্ধজয়ের জন্য যেটা ভীষণ জরুরি। তাই এই চরম দুর্দিনেও বাংলাকে সারা ভারতের মধ্যে বিশেষ উজ্জ্বল দেখাচ্ছে—তথাকথিত উন্নত রাজ্যগুলির চেয়েও দীর্ঘ লাগছে। বাংলাকে এই গতি বজায় রেখেই এগতে হবে, তাহলে কোভিড জয় স্রেফ সময়ের অপেক্ষা।    
শারদ শুভেচ্ছা 

জাতীয় সড়ক ধরে এগলে হালকা হাওয়ায় দুলতে থাকা কাশফুল চোখে পড়ছে। গ্রাম বাংলার আনাচে-কানাচে শিউলি ফুলের গন্ধ জানান দিচ্ছে দেবীপক্ষ শুরু হয়ে গেছে। সেই পুজো মণ্ডপ, সেই আলোর বাহার, সেই একচালা থেকে নানা বিহঙ্গে মায়ের রূপ।   বিশদ

23rd  October, 2020
কেবলই স্তুতি! 

 নানা দেশের স্বাস্থ্য পরিষেবার বেহাল দশাকে সামনে এনে দিয়েছে করোনা মহামারী। ভারতের স্বাস্থ্য পরিষেবার চিত্রটিও করুণ। করোনা সংক্রামিত সঙ্কটাপন্ন প্রতিটি রোগীর জন্য হাসপাতালে চিকিৎসার সুযোগ নেই। এই সুযোগ করে দিতে কেন্দ্রের সরকার ব্যর্থ হয়েছে। কারণ উপযুক্ত পরিকাঠামোর অভাব। নেই প্রয়োজনীয় সংখ্যক চিকিৎসক। বিশদ

22nd  October, 2020
দূর থেকে দুর্গা দর্শন 

করোনা বদলে দিয়েছে জীবনের অনেক কিছুই। বদলে দিয়েছে বহু মানুষের পেশা। করমর্দন আলিঙ্গনের দিনও শেষ। বদলে হাতজোড় করে নমস্কার। জীবনমরণের সমস্যা যেখানে, সেখানে ইচ্ছায় হোক বা অনিচ্ছায় সতর্কীকরণের বিধিনিষেধ মানতেই হবে সকলকে। দেবীপক্ষের শুরুও হয়ে গেছে। মণ্ডপে মণ্ডপে দেবী আরাধনার জন্য প্রস্তুতিপর্ব তুঙ্গে। বিশদ

21st  October, 2020
এবার কি রাষ্ট্রপতি শাসনের জুজু! 

 শাসক এবং বিরোধীদল, সকলেরই এখন পাখির চোখ বাংলার ভোট। তাই উৎসবের আবহে ভোটের জন্য জমি তৈরির কাজও শুরু করে দিয়েছে রাজনৈতিক দলগুলি। শাসকদল তৃণমূল চাইছে ভোট ব্যাঙ্ক অক্ষত রেখে ফের ক্ষমতায় ফিরতে। আর বিরোধীরা, বিশেষত বিজেপি স্বপ্ন দেখছে বাংলা জয়ের। বিশদ

20th  October, 2020
‘সবকা’ নয়, ধনীদের বিকাশ 

ব্যক্তিগত অর্থ সম্পদে তাঁর নাকি বিন্দুমাত্র আসক্তি নেই। তিনি দেশবাসীর ‘সেবক’ হিসেবে নিজেকে প্রচারের আলোয় আনতে ভালোবাসেন। সেই তাঁর সরকারের ‘কল্যাণেই’ বিশ্ব ক্ষুধা সূচকের নিরিখে বাংলাদেশের চেয়েও নীচে নেমে গেল ভারত। ‘সবকা বিকাশ’ এমনই হল যে ধনী আরও ধনী হল। গরিব হল আরও গরিব। ‘আচ্ছে দিনের’ স্বপ্ন দেখানো প্রধানমন্ত্রী মোদির জমানায় ক্ষুধা সূচকে ১০৭টি দেশের মধ্যে ৯৪তম স্থানে ভারত।   বিশদ

19th  October, 2020
কোভিড নিয়ে রাজনীতি নয় 

তৃণমূল সরকারকে বেকায়দায় ফেলার মতো কোনও জুতসই ইস্যু বোধহয় এখন খুঁজে পাচ্ছে না বিরোধীরা। বিশেষত বিজেপি। সেভাবে তুলতে পারছে না অনুন্নয়নের অভিযোগ। রাজ্যে আইনশৃঙ্খলার অবনতির অভিযোগে যে সরব হবে সে উপায়ও প্রায় নেই। কারণ এই অভিযোগ করলেই এসে পড়বে বিজেপি শাসিত রাজ্য উত্তরপ্রদেশের প্রসঙ্গ।  
বিশদ

18th  October, 2020
সুরক্ষাবিধি মেনে পুজো 

পুজোর বাদ্যি বেজে গেল। ভার্চুয়ালি পুজোর উদ্বোধন পর্ব শুরু। করোনা সংক্রমণ বাঁচিয়ে সতর্কতার সঙ্গে পুজো করার পরামর্শ দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সব ধর্ম সব মত একাকার হয়ে সম্প্রীতির বাতাবরণ তৈরি হয় বাঙালির এই সবচেয়ে বড় উৎসব দুর্গাপুজোয়। 
বিশদ

17th  October, 2020
অপরাধীদের স্বর্গরাজ্য! 

কুর্সি দখলের লড়াইয়ে যে কোনও ভোটারের ভোটই সমান মূল্যবান। সেক্ষেত্রে ধনী-দরিদ্র বা উচ্চবর্ণ-দলিত বিচার করাটা মূর্খামি। দক্ষ রাজনীতিবিদরা ভোটের আগে তাই কাউকেই চটাতে চান না। সে পথেই এখন হাঁটতে চাইছে গেরুয়া শিবির।  
বিশদ

16th  October, 2020
বাংলা পথ দেখাল 

দেশে অভাবী মানুষের সংখ্যা নেহাত কম নয়। খুব বেশি আগের ঘটনা নয়। দিল্লিতে অনাহারে অপুষ্টিতে মা ও শিশুসন্তানের মৃত্যুর ঘটনায় দেশবাসী চমকে উঠেছিল সেদিন। যা দেশের লজ্জা, শাসকের ব্যর্থতা। প্রতিটি দেশবাসীকে খাদ্যের সংস্থান করে দেওয়ার দায়িত্ব সরকারের।  
বিশদ

15th  October, 2020
প্যাঁচের প্যাকেজ 

দেশের অর্থনীতির হাল বেহাল হলেও ভবি ভোলবার নয়। এবার উৎসব মরশুমে অর্থনীতি চাঙ্গা করার যে দাওয়াই দিল মোদি সরকার তাতে অর্থনীতির পুনরুজ্জীবন আদৌ ঘটবে কি না সন্দেহ। প্যাকেজের নামে শর্তাবলি চাপানো ফেস্টিভ্যাল অফারে দেশের অধিকাংশ মানুষের, বিশেষত গরিব মানুষের কোনও লাভ হল না।  
বিশদ

14th  October, 2020
ড্যামেজ কন্ট্রোলের কৌশল 

একদিকে দলিত মহিলা নির্যাতন, অন্যদিকে কৃষি আইন—এই জোড়া ফলায় বিদ্ধ কেন্দ্রের শাসক শিবির। বিহার ভোটের আগে তাদের একেবারে বেসামাল অবস্থা। তবে ‘হ্যাঁ’ কে ‘না’ এবং ‘না’ কে ‘হ্যাঁ’ করতে পটু দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বিলক্ষণ জানেন, দলিত বঞ্চনার ইস্যু এবং দেশজুড়ে কৃষক আন্দোলনের প্রভাব পড়তে পারে আসন্ন বিহার ভোটে।  
বিশদ

13th  October, 2020
ভুল পথে ভারতীয় রেল 

ভারতীয় রেলের আয়ের ৭০ শতাংশই আসে পণ্য পরিবহণ মাশুল থেকে। তাই মালগাড়ি চলাচলের বিষয়টিতেই অগ্রাধিকার কাম্য ছিল। উল্টে এটাই এদেশে সবচেয়ে অবহেলিত। ভারতীয় রেলের যে নেটওয়ার্ক ক্যাপাসিটি তার মাত্র ৩৩ শতাংশ এই ক্ষেত্র ব্যবহার করতে পারে।
বিশদ

12th  October, 2020
মূল্যবৃদ্ধি: দুশ্চিন্তা বাড়াচ্ছে 

দুবেলা দু’মুঠো অন্ন জোগাতে না পেরে মাত্র চার হাজার টাকার বিনিময়ে কন্যাসন্তানকে বিক্রি করে দিতে বাধ্য হলেন বাবা-মা। এই ঘটনাটি কোনও গল্পকথা নয়, বাস্তব সত্য। ঘরে ঘরে এমন ঘটনা না ঘটলেও অপরিকল্পিত লকডাউন আর করোনা ক্লিস্ট অর্থনীতির ধাক্কায় বিপর্যয় নেমে এসেছে বহু পরিবারে।  
বিশদ

11th  October, 2020
পুজো: উৎসব এবং চ্যালেঞ্জ 

ভারতে করোনা কাঁপুনি ধরিয়েছিল গত মার্চেই। দ্বিধাগ্রস্ত সরকার কয়েক ঘণ্টার নোটিসে সারা দেশে লকডাউন ঘোষণা করেছিল ২৫ মার্চ থেকে। আধুনিক ভারতের ইতিহাসে অভূতপূর্ব ওই নিষেধাজ্ঞা মোট চার দফায় ৩১ মে পর্যন্ত বলবৎ ছিল। লকডাউনের সওয়া দু’মাসেই ভারতের অর্থনীতির নাভিশ্বাস উঠে যাওয়ার জোগাড় হয়।  
বিশদ

10th  October, 2020
হল্লা ছাপিয়ে কৃষক স্বার্থ 

নতুন কৃষি আইন নিয়ে দেশজুড়ে বিক্ষোভ চরমে। এই আইনকে সামনে রেখে কৃষক শ্রেণীর বন্ধনমুক্তির ফানুস উড়িয়ে চলেছে মোদি সরকার। অন্যদিকে বিরোধীদের স্পষ্ট অভিযোগ, বাস্তবে কৃষকদের কর্পোরেট গোষ্ঠীর অধীনে নিয়ে যাওয়ার পাকা বন্দোবস্ত করা হচ্ছে। আগামী দিনে কৃষকের নিজের ইচ্ছা বলে কিছু থাকবে না। বিশদ

09th  October, 2020
পাশে থাকার বার্তা 

বাম জমানায় জঙ্গলমহল ছিল মাওবাদীদের মুক্তাঞ্চল। সেখানকার অনুন্নয়ন আর দারিদ্রের সুযোগকে কাজে লাগিয়ে আস্তানা গেড়ে দাপিয়ে বেড়াত মাওবাদীরা। আতঙ্কে দিন কাটত জঙ্গলমহলবাসীর।  বিশদ

08th  October, 2020
একনজরে
করোনা আবহেও লক্ষ্মীর আরাধনার বাজেটে খামতি পড়েনি। এমনকী বাইরে থেকে চাঁদা আদায়ও নয়। গ্রামবাসীরাই বছরভর মাটির ভাঁড়ে যে টাকা জমিয়েছেন, তাতেই হচ্ছে পুজোর আয়োজন। ...

কাশ্মীর ইস্যুতে আন্তর্জাতিক মহল, বিশেষ করে দুই মুসলিম দেশের কাছে বড় ধাক্কা খেল পাকিস্তান। জম্মু ও কাশ্মীরের উপর থেকে ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের বর্ষপূর্তি উপলক্ষে মঙ্গলবার ইরানে কালা দিবস পালন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল ইমরান খানের সরকার। এমনকী, সৌদি আরবের রিয়াধেও সেই ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, তমলুক: ভুয়ো ভাউচার ছাপিয়ে ময়নার শ্রীকণ্ঠা সমবায় কৃষি উন্নয়ন সমিতি থেকে প্রায় ১৩ লক্ষ টাকা আত্মসাৎতের অভিযোগ উঠল সমিতির ম্যানেজারের বিরুদ্ধে। গত ১৭ অক্টোবর সমবায় সমিতির সম্পাদক সুবোধচন্দ্র মাইতি ম্যানেজার সোমনাথ দাসের বিরুদ্ধে ময়না থানায় এফআইআর করেছেন।   ...

বংশপরম্পরায় আজও মহানায়ক উত্তমকুমারের বাড়ির লক্ষ্মী প্রতিমা তৈরি করে চলেছেন কুমোরটুলির একটি নির্দিষ্ট শিল্পী পরিবার। পটুয়াপাড়ার ৪০/১, বনমালি সরকার স্ট্রিটে মৃৎশিল্পী জয়ন্ত পালের ঘরে জোরকদমে ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

উচ্চবিদ্যার ক্ষেত্রে মধ্যম ফল আশা করা যায়। প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় সাফল্য আসবে। প্রেম-প্রণয়ে নতুনত্ব আছে। কর্মরতদের ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

বিশ্ব স্ট্রোক দিবস
১৯৬৯: ইন্টারনেটের আগের স্তর আরপানেটের আবিষ্কার
১৯৭১: অস্ট্রেলিয় ক্রিকেটার ম্যাথু হেডের জন্ম
১৯৮১: অভিনেত্রী রীমা সেনের জন্ম
১৯৮৫: বক্সার বিজেন্দর সিংয়ের জন্ম
১৯৮৮: সমাজ সংস্কারক ও স্বাধীনতা সংগ্রামী কমলাদেবী চট্টোপাধ্যায়ের মৃত্যু
১৯৯৯: ওড়িশায় ঘূর্ণিঝড়ে কমপক্ষে ১০ হাজার মানুষের মৃত্যু
২০০৫: দিল্লিতে পরপর তিনটি বিস্ফোরণে অন্তত ৬২জনের মৃত্যু  



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭২.৮৯ টাকা ৭৪.৬০ টাকা
পাউন্ড ৯৪.৪৭ টাকা ৯৭.৮৪ টাকা
ইউরো ৮৫.২৮ টাকা ৮৮.৪৪ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৫১,৮১০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৯,১৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৯,৮৯০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬২,১০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬২,২০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১২ কার্তিক, ১৪২৭, বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ত্রয়োদশী ২৩/৫২ দিবা ৩/১৬। উত্তরভাদ্রপদ নক্ষত্র ১৫/৪১ দিবা ১২/০। সূর্যোদয় ৫/৪৩/১৬, সূর্যাস্ত ৪/৫৭/৩০। অমৃতযোগ দিবা ৭/১৩ মধ্যে পুনঃ ১/১৩ গতে ২/৪২ মধ্যে। রাত্রি ৫/৪৮ গতে ৯/১৩ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৬ গতে ৩/১০ মধ্যে পুনঃ ৪/১ গতে উদয়াবধি। বারবেলা ২/১০ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ১১/২১ গতে ১২/৫৬ মধ্যে।
১২ কার্তিক, ১৪২৭, বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ত্রয়োদশী দিবা ৩/২১। উত্তরভাদ্রপদ নক্ষত্র দিবা ১/১২। সূর্যোদয় ৫/৪৪, সূর্যাস্ত ৪/৫৮। অমৃতযোগ দিবা ৭/১৮ মধ্যে ও ১/১১ গতে ২/৩৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৫/৪৩ গতে ৯/১১ মধ্যে ও ১১/৪৬ গতে ৩/১৪ মধ্যে ও ৪/৬ গতে ৫/৪৫ মধ্যে। কালবেলা ২/১০ গতে ৪/৫৮ মধ্যে। কালরাত্রি ১১/২১ গতে ১২/৫৭ মধ্যে।
১১ রবিয়ল আউয়ল।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আজকের দিনটি কেমন যাবে?  
মেষ: কর্মরতদের উপার্জনের ক্ষেত্রে কোনও বাধা নেই। বৃষ: শেয়ার বা ফাটকায় বিনিয়োগ ...বিশদ

04:29:40 PM

ইতিহাসে আজকের দিনে  
বিশ্ব স্ট্রোক দিবস ১৯৬৯: ইন্টারনেটের আগের স্তর আরপানেটের আবিষ্কার ১৯৭১: অস্ট্রেলিয় ক্রিকেটার ...বিশদ

04:28:18 PM

আইপিএল: কেকেআর-কে ৬ উইকেটে হারাল সিএসকে 

11:14:20 PM

আইপিএল: চেন্নাই ১২১/৩ (১৫ ওভার) 

10:43:26 PM

আইপিএল: চেন্নাই ৮৮/১ (১১ ওভার) 

10:19:05 PM

আইপিএল: চেন্নাই ৩৭/০ (৫ ওভার) 

09:51:13 PM