Bartaman Patrika
সম্পাদকীয়
 

করোনার সঙ্গে অর্থনৈতিক জয় 

করোনা যত বড় না রোগ তার চেয়ে বড় সমস্যা। হাজারো রোগের সঙ্গে লড়াই করে মানুষ দীর্ঘ জীবন অতিবাহিত করে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে সেই লড়াইগুলো একেবারে ব্যক্তিগত। যার হয় সে নিজে এবং পরিবার কিছুটা টের পায়। চিকিৎসা বিজ্ঞান অনেক উন্নত হয়েছে। সময়মতো চিকিৎসা হলে বেশিরভাগ রোগ সেরে যায়। মানুষ সুস্থ স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যেতে পারে। তার প্রভাব বৃহত্তর সমাজে কমই পড়ে। যক্ষ্মা, কুষ্ঠ, কলেরার মতো কিছু ছোঁয়াচে রোগের উৎপাত আছে বটে, তবে ওসব নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার মতো অবস্থা এখন নেই। রোগী এবং সুস্থ নাগরিক উভয় পক্ষ কিছু সতর্কতা মেনে চললেই যথেষ্ট। ব্যতিক্রম করোনা ভাইরাস বা কোভিড-১৯। করোনা শুধু মানুষকে অসুস্থ করছে বা মেরে ফেলছে না, পৃথিবীর অর্থনীতিকেই ধ্বংস করে দিতে উদ্যত হয়েছে। গরিব মানুষকে অনাহারে মারার ব্যবস্থা করেছে। সকলের চেনা পৃথিবী হঠাৎ অচেনা হয়ে উঠেছে সামান্য সময়ের ভিতরে।
অত্যন্ত নতুন কোভিড-১৯ রোগটি ভয়ঙ্কর সংক্রামক। এখনও পরিষ্কার নয় এর সংক্রমণের ক্ষমতা ঠিক কতটা। ঠিক কতটা সতর্ক হলে সংক্রমণের বিপদ থেকে নিজেকে রক্ষা করা যাবে। বিশেষজ্ঞদের উপলব্ধি, মত এবং স্বভাবতই নির্দেশও কিছুদিন অন্তর পাল্টে যাচ্ছে। আলাদা আলাদাভাবে সুরক্ষিত থাকা প্রতিটা মানুষের কর্তব্য। ব্যক্তি সুরক্ষিত সুস্থ থাকলে পরিবার, অফিস, প্রতিবেশী প্রভৃতি সকলে ভালো থাকবে। কিন্তু, এই গরিব দেশের সকলকে সুরক্ষিত রাখার জন্য যে সাধারণ পরিকাঠামো দরকার তা সহজলভ্য নয়। মাস্ক, ফেসশিল্ড, স্যানিটাজার, হ্যান্ডওয়াশ প্রভৃতি কেনার ক্ষমতা সকলের নেই। গরিব পরিবারের সদস্য সংখ্যা বেশি হলে পরিবারের সবার জন্য কেনা আরও কঠিন ব্যাপার। পিপিই কেনার কথা ছেড়েই দেওয়া যায়। দেশের প্রায় সর্বত্র সংক্রমণের হার লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। আগের দিনের রেকর্ড ভেঙে যাচ্ছে পরের দিন! এইভাবে আমরা ঠিক কোথায় যে চলেছি, তার উত্তর বিশেষজ্ঞদেরও অজানা। এই পরিস্থিতির একটা বড় কারণ সুরক্ষা সরঞ্জামের অভাব। আবার কিছু মানুষের এসব কেনার সঙ্গতি আছে এবং এগুলো ব্যক্তিগত সংগ্রহেও আছে। তবু তাঁরা ঠিকমতো ব্যবহার করেন না। তাঁদের কথা আলাদা। কিন্তু আর্থিক দৈন্যের কারণেই যে বহু মানুষ এসব কিনতে এবং ব্যবহার করতে পারছেন না, এটা এক নির্মম বাস্তব। রাজ্য সরকার এই বিষয়ে কেন্দ্রকে গোড়াতেই সতর্ক করেছিল। মাস্ক-সহ সমস্ত ধরনের সুরক্ষা সরঞ্জাম রাজ্যকে দেওয়ার দাবি জানিয়েছিল। কিন্তু প্রয়োজন মতো কোনওটাই কেন্দ্র দেয়নি।
কেন্দ্র-রাজ্য সম্পর্কের বাধ্যবাধকতা মোদি সরকার অনেক সময়ই ভুলে যায় অথবা ইচ্ছা করে মানে না। তাই বলে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিষ্ক্রিয় থাকতে পারেন না। কেন্দ্রীয় সহায়তার বিকল্প খুঁজে নিতেই অভ্যস্ত তিনি। যেমন লকডাউনের সময় থেকে প্রথম তিন মাসে দেশজুড়ে যখন কাজের হাহাকার তখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার বাংলায় ১১ কোটি ৫৩ লক্ষ কর্মদিবস সৃষ্টি করে সাড়া ফেলে দেয়। ১০০ দিনের কাজের প্রকল্পকে হাতিয়ার করেই এই অসাধ্য সাধন করে বাংলা। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। কোভিড-১৯ প্রতিরোধের সরঞ্জাম, যেমন মাস্ক ও পিপিই তৈরির ব্যবস্থা পশ্চিমবঙ্গেই করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্য সরকারের মাইক্রো, স্মল অ্যান্ড মিডিয়াম এন্টারপ্রাইজেস (এমএসএমই) ডিপার্টমেন্টকে কাজে লাগানো হয়েছে। লক্ষ্য, তিন কোটি মাস্ক তৈরি করা। এতে দেড় কোটি কর্মদিবস সৃষ্টি হবে এবং প্রায় ২০ হাজার মানুষ কাজ পাবে বলে সরকার মনে করছে। বেশি কাজ পাবেন গ্রামের গরিব মহিলারা। মাস্কগুলো স্কুলপড়ুয়া, আশা ও অঙ্গনওয়াড়ি কর্মী এবং ১০০ দিনের কাজের সঙ্গে যুক্ত শ্রমিকদের মধ্যে বিলি করা হবে। বাংলায় তৈরি মাস্ক ভবিষ্যতে প্রতিটি নাগরিকের মুখে শোভা পাবে। সবাই মিলে বিরাট সুরক্ষা বলয় গড়বেন। স্বপ্ন দেখেন মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্যবাসী চায়, তাঁর এই স্বপ্ন পূরণ হোক। করোনা-জয়ের সঙ্গে আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রের বিপর্যয়ও কাটিয়ে উঠুক বাংলা।  
কৃষিতে নগদ জোগানের নিশ্চয়তা
 

সভ্য মানুষের প্রথম পেশার নাম কৃষি। ফলমূল আহরণ এবং শিকারের পর্ব পেরিয়ে মানুষ কৃষিযুগে প্রবেশ করেছিল। কৃষি পৃথিবীর অন্যতম প্রাচীন এক পেশা। জীবনধারণের প্রধান উপকরণ খাদ্য। বিকল্প ও বেশি খাদ্য সংগ্রহের প্রয়োজনে মানুষকে কৃষিকে হাতিয়ার করতে হয়েছিল।   বিশদ

12th  July, 2020
মোদির আরও এক চমক

ভারতের প্রধানমন্ত্রী যে একজন ভালো বক্তা, তা নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই। তাঁর বক্তৃতার পরতে পরতে যে নাটকীয় উপাদান ভরপুর, তা এই করোনা পর্বেও বারবার দেখা গিয়েছে। নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে ‘চমক’ কথাটা এখন প্রায় সমার্থক হয়ে দাঁড়িয়েছে।
বিশদ

11th  July, 2020
সিলেবাসেও আক্রান্ত গণতন্ত্র

খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান। জীবনধারণের প্রথম তিনটি উপকরণ। এই তিনটি চাহিদা পূরণ না হলে কোনও মানুষের পক্ষে সভ্য সমাজের অংশ হওয়া সম্ভব নয়। বস্ত্র ও বাসস্থানের প্রকার ভেদ রয়েছে। মানুষ তার আর্থিক পরিস্থিতি এবং প্রাকৃতিক ও সামাজিক অবস্থান অনুসারে বস্ত্র বেছে নেয়।
বিশদ

10th  July, 2020
সুরক্ষাবিধি না মানার খেসারত 

জুলাই মাসে টানা কয়েকদিন ধরে রাজ্যে করোনা আক্রান্ত ও মৃতের গ্রাফ ঊর্ধ্বমুখী। সেই করোনা চিত্রই তিন মাস আগের স্মৃতি উসকে দিয়ে ফিরিয়ে আনল লকডাউন। তবে সর্বত্র নয়, কলকাতা সহ রাজ্যের কিছু এলাকায়।   বিশদ

09th  July, 2020
করোনা যুদ্ধের সহায়ক পদক্ষেপ

ভারত একটি উন্নয়নশীল দেশ। মানে, দেশটি উন্নত দুনিয়ার সমগোত্রীয় নয়। সেই স্তরে উন্নীত হওয়ার লক্ষ্যে এগচ্ছে। গত চার দশক যাবৎ সেটাই শুনে আসছেন দেশবাসী। তবু, ভারত ‘উন্নত’ দেশের সংজ্ঞাভুক্ত এখনও হতে পারেনি।
বিশদ

08th  July, 2020
সাফল্যের রেকর্ড

 এক অস্থির সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে আমাদের দেশ, রাজ্য। এক ভাইরাসের ধ্বংসলীলায় নাভিশ্বাস উঠেছে দেশবাসীর। করোনা হানায় অর্থনীতির মেরুদণ্ড ভেঙেছে। যার জেরে কাজ হারানো লক্ষ লক্ষ মানুষের জীবনে নেমে এসেছে গভীর সঙ্কট।
বিশদ

07th  July, 2020
কাজের বাংলা 

একটা দেশ আর্থিকভাবে কতটা শক্তিশালী, তা বোঝাতে অনেকে মাথাপিছু আয়ের হিসেব নেন। যে দেশের মাথাপিছু আয় বেশি, সেই দেশকে আপাতভাবে উন্নত মনে হয়। মনে হতে পারে, সেই দেশ আর্থ-সামাজিকভাবে বেশ এগিয়ে।   বিশদ

06th  July, 2020
মানুষের রাজনীতি 

রাজনীতির প্রাচীন সংজ্ঞা চারটি বিষয় বা নীতির উপর প্রতিষ্ঠিত। সাম, দান, ভেদ ও দণ্ড। ‘সাম’ শব্দের অর্থ শত্রুকে বশীভূত করা। তোষণ এবং সন্ধিস্থাপনের মাধ্যমে তা সম্ভব।   বিশদ

05th  July, 2020
স্বপ্নপূরণের দলিল 

সেই কবে কোলে কাঁখে বাচ্চা আর বাক্স প্যাটরা নিয়ে সীমান্ত পেরিয়ে এপারে ঠাঁই নিয়েছিলেন তাঁরা। মানে আজকের উদ্বাস্তু কলোনির বাসিন্দাদের পূর্বপুরুষরা। তারপর গঙ্গা-পদ্মা দিয়ে অনেক জল গড়িয়ে গিয়েছে, এখন তাঁরা বাংলার বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে আছেন।  বিশদ

04th  July, 2020
এবার ভয় জি-৪ 

কথায় বলে, বিপদ একা আসে না। কোভিড-১৯-এর ধাক্কায় মানবসভত্যা টলমল। এই মহামারী থেকে বাঁচার উপায় খুঁজতে হিমশিম খাচ্ছে সারা পৃথিবী। এরই মধ্যে জি-৪ নামক এক মারণ ভাইরাসের দুঃসংবাদে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে।   বিশদ

03rd  July, 2020
হিসেবের চাল 

কথায় আছে, রাজায় রাজায় যুদ্ধ হয় উলুখাগড়ার প্রাণ যায়। কিন্তু মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আর এ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘোষণায় এক বেনজির উলটপুরাণের সাক্ষী থাকল রাজ্যবাসী।   বিশদ

02nd  July, 2020
কয়লা শিল্পে সরকার একাই যথেষ্ট

 জ্বালানি ও শক্তির প্রাকৃতিক উৎস হিসেবে কয়লার গুরুত্ব বিরাট। হাতে গোনা কয়েকটিমাত্র দেশে ভালো পরিমাণ কয়লার মজুদ ভাণ্ডার রয়েছে। সেই সৌভাগ্যের অধিকারীদের মধ্যে ভারত অন্যতম। বিশ্বের পঞ্চম বৃহৎ কয়লা ভাণ্ডারটি ভারতের।
বিশদ

01st  July, 2020
সতর্কতা, নাকি অন্য কারণ

 এ যেন ভাসুর ভাদ্দর বউয়ের সম্পর্ক! ১৫ জুন পূর্ব লাদাখের গলওয়ানে সংঘর্ষের পর সর্বদল বৈঠকে চীনের নাম না করে তিনি বলেছিলেন, কেউ ভারতীয় ভূখণ্ডে ঢুকে বসে নেই, তাঁবুও তৈরি করেনি। রবিবার ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠানে লাদাখের প্রসঙ্গ টানলেও চীনের নাম নিলেন না প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।
বিশদ

30th  June, 2020
কেন্দ্রের অমানবিক নিয়ম

 করোনা পরিস্থিতি পৃথিবীর প্রায় সব দেশের উন্নয়ন প্রক্রিয়া বানচাল করে দিয়েছে। সবচেয়ে মারাত্মক প্রভাব পড়েছে কাজের বাজারে। বাঁধাধরা সরকারি চাকরিতে নিযুক্ত মানুষের সংখ্যা খুব কম। বেশিরভাগ মানুষ কাজ করেন বেসরকারি শিল্প, ব্যবসা-বাণিজ্য কিংবা পরিষেবা ক্ষেত্রে।
বিশদ

29th  June, 2020
চিকিৎসা খরচ ও মানবিক সরকার

 কথায় বলে, বসে খেলে রাজার ধনও একটা সময় পর নিঃশেষিত হয়ে যায়। আমরা ভারতবাসী। আমরা বঙ্গবাসী। আর্থ-রাজনীতিক তত্ত্ব ভিন্নমত পোষণ করতে পারে। কিন্তু বাস্তবটা হল, ভারত একটা গরিব দেশ। তার ভিতরে পশ্চিমবঙ্গের আর্থ-সামাজিক অবস্থান গড়পড়তা।
বিশদ

28th  June, 2020
হুঙ্কারেই সুর বদল

 কারও সর্বনাশ হলে অনেকের পৌষ মাস হয়। ঝড়-বন্যা-ভূমিকম্পের মতো প্রাকৃতিক বিপর্যয় হলে লক্ষ লক্ষ মানুষ সব হারিয়ে পথে বসেন। তাঁদের অন্ন-বস্ত্র-বাসস্থান ফিরিয়ে দিতে ত্রাণবাবদ কোটি কোটি টাকা বরাদ্দ করে সরকার। বিশদ

27th  June, 2020
একনজরে
মাদ্রিদ: রিয়াল মাদ্রিদের লিগ জয় কার্যত নিশ্চিত। অঘটন না ঘটলে এক ম্যাচ বাকি থাকতেই খেতাব জিতবে জিনেদিন জিদান-ব্রিগেড। লিগ তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে থাকা বার্সেলোনার চেয়ে ...

সুমন তেওয়ারি  আসানসোল: করোনার দাপটের মধ্যেই এবার ডেঙ্গু হানা দিল পশ্চিম বর্ধমান জেলায়। স্বাস্থ্যদপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, আসানসোল, দুর্গাপুর সহ জেলার বিভিন্ন প্রান্তে এখনও ...

  নয়াদিল্লি: ফের বাড়ল ডিজেলের দাম। দু’সপ্তাহ আগে দিল্লিতে প্রথমবার ডিজেলের মূল্য লিটার প্রতি ৮০ টাকা ছাড়িয়েছিল। রবিবার তা প্রতি লিটারে ১৬ পয়সা বেড়ে ৮১ ...

সংবাদদাতা, মালদহ: প্রাকৃতিক বিপর্যয় ও লকডাউনের জেরে ক্ষতিগ্রস্ত মালদহের আম ব্যবসাকে চাঙ্গা করতে ইতিমধ্যেই উদ্যোগ নিয়েছে রাজ্যের খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ ও উদ্যানপালন দপ্তর। দিল্লিতে নিযুক্ত ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মপ্রার্থীরা বেশ কিছু সুযোগের সংবাদে আনন্দিত হবেন। বিদ্যার্থীরা পরিশ্রমের সুফল নিশ্চয় পাবে। ভুল সিদ্ধান্ত থেকে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৩০: কলকাতায় দ্য জেনারেল অ্যাসেম্বলিজ ইনস্টিটিউশন, অধুনা স্কটিশ চার্চ কলেজ প্রতিষ্ঠা করলেন আলেকজান্ডার ডাফ এবং রাজা রামমোহন রায়
১৯০০: অভিনেতা ছবি বিশ্বাসের জন্ম
১৯৪২: মার্কিন অভিনেতা হ্যারিসন ফোর্ডের জন্ম
১৯৫৫: সাহিত্যিক আশাপূর্ণা দেবীর মৃত্যু
২০১১: মুম্বইয়ে ধারাবাহিক তিনটি বিস্ফোরণে হত ২৬, জখম ১৩০
২০১৩: বোফর্স কান্ডে অভিযুক্ত ইতালীয় ব্যবসায়ী অত্তাভিও কাত্রোচ্চির মৃত্যু।



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৪.৩১ টাকা ৭৬.০৩ টাকা
পাউন্ড ৯৩.০০ টাকা ৯৬.২৯ টাকা
ইউরো ৮৩.২৩ টাকা ৮৬.২৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
11th  July, 2020
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৯,৯৪০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৭,৩৮০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৮,০৯০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৫২,১০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৫২,২০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২৯ আষাঢ় ১৪২৭, ১৩ জুলাই ২০২০, সোমবার, অষ্টমী ৩২/৪৫ অপঃ ৬/১০। রেবতী ১৫/২৫ দিবা ১১/১৪। সূর্যোদয় ৫/৩/৫২, সূর্যাস্ত ৬/২০/৩৮। অমৃতযোগ দিবা ৮/৩৬ গতে ১০/২২ মধ্যে। রাত্রি ৯/১২ গতে ১২/৪ মধ্যে পুনঃ ১/৩০ গতে ২/৫৫ মধ্যে। বারবেলা ৬/৪৩ গতে ৮/২২ মধ্যে পুনঃ ৩/১ গতে ৪/৪১ মধ্যে। কালরাত্রি ১০/২১ গতে ১১/৪২ মধ্যে।
২৮ আষাঢ় ১৪২৭, ১৩ জুলাই ২০২০, সোমবার, অষ্টমী অপরাহ্ন ৫/০। রেবতী নক্ষত্র দিবা ১১/৮। সূযোদয় ৫/৩, সূর্যাস্ত ৬/২৩। অমৃতযোগ দিবা ৮/৩৬ গতে ১০/২৩ মধ্যে এবং রাত্রি ৯/১৩ গতে ১২/৪ মধ্যে ও ১/২৯ গতে ২/৫৫ মধ্যে। কালবেলা ৬/৪৩ গতে ৮/২৩ মধ্যে ও ৩/৩ গতে ৪/৪৩ মধ্যে। কালরাত্রি ১০/২৩ গতে ১১/৪৩ মধ্যে।
২১ জেল্কদ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আজকের রাশিফল
মেষ: কর্মপ্রার্থীরা বেশ কিছু সুযোগের সংবাদে আনন্দিত হবেন। বৃষ: কোনও সম্পদ লাভে ...বিশদ

07:11:04 PM

ইতিহাসে আজকের দিনে

১৮৩০: কলকাতায় দ্য জেনারেল অ্যাসেম্বলিজ ইনস্টিটিউশন, অধুনা স্কটিশ চার্চ কলেজ ...বিশদ

07:03:20 PM

গুজরাটে একদিনে করোনা আক্রান্ত ৯০২ 
গুজরাটে গত ২৪ ঘণ্টায় ৯০২ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। মৃত্যু ...বিশদ

08:06:12 PM

মহারাষ্ট্রে একদিনে করোনা আক্রান্ত ৬,৪৯৭ 
মহারাষ্ট্রে গত ২৪ ঘণ্টায় ৬ হাজার ৪৯৭ জন করোনায় আক্রান্ত ...বিশদ

07:52:00 PM

উত্তর প্রদেশে একদিনে করোনা আক্রান্ত ১,৬৬৪ 
উত্তর প্রদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ১ হাজার ৬৬৪ জন করোনায় ...বিশদ

07:47:39 PM

২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে করোনা আক্রান্ত ১,৪৩৫
গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১,৪৩৫ জন। ...বিশদ

07:47:36 PM