Bartaman Patrika
সম্পাদকীয়
 

সতর্কতা, নাকি অন্য কারণ

এ যেন ভাসুর ভাদ্দর বউয়ের সম্পর্ক! ১৫ জুন পূর্ব লাদাখের গলওয়ানে সংঘর্ষের পর সর্বদল বৈঠকে চীনের নাম না করে তিনি বলেছিলেন, কেউ ভারতীয় ভূখণ্ডে ঢুকে বসে নেই, তাঁবুও তৈরি করেনি। রবিবার ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠানে লাদাখের প্রসঙ্গ টানলেও চীনের নাম নিলেন না প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তাঁর এই মৌনতা দেশেই অনেক আগেকার দিনের ভাসুরের নাম না নেওয়ার রীতির কথা মনে করিয়ে দিচ্ছে। যদিও দু’সপ্তাহ আগে সেই রাতের সংঘর্ষে যে চীনা লালফৌজ গলওয়ান উপত্যকায় ভারতীয় ভূখণ্ডে ঢুকে আমাদের সেনাদের মেরেছিল— সেকথা জানিয়েছিল তাঁরই সরকারের বিদেশ মন্ত্রক ও সেনাবাহিনী। তিনি নিজেও বলেছেন, আমাদের বীর সেনারা দেখিয়ে দিয়েছেন তাঁরা ভারত মাতার গৌরবে আঁচ লাগতে দেবেন না। আবার সেই তিনিই কেউ ভারতীয় ভূখণ্ডে ঢুকে বসে নেই বলে মন্তব্য করে দেশবাসীকে বিভ্রান্ত করে চলেছেন। সেই সঙ্গে চীনের নামটুকু পর্যন্ত মুখে আনছেন না। চীনের আগ্রাসনের বিরুদ্ধে আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া, জাপানের মতো দেশ ভারতের পাশে এসে দাঁড়ালেও অভিযোগ উঠছে যে, বেনজির সমীহ করে চলতে চাইছেন মোদি। একই মহাদেশে একদিকে পাকিস্তান, অন্যদিকে নেপালের মতো দেশও এখন চোখ রাঙাচ্ছে ভারতকে। তাই বোধহয় বাড়তি সতর্ক হয়ে মহা শক্তিধর চীনের নাম নিতেও কুণ্ঠা নয়াদিল্লির।
৩৩ মিনিটের মন কি বাতে গোল গোল অনেক কথাই তিনি বলেছেন। চীনের নাম করতে এত দ্বিধা কেন? অথচ বলছেন, ভারতের ভূখণ্ডের দিকে যারা তাকাবে তাদের চোখে চোখ রেখে যোগ্য জবাব দেওয়ার সাহস এদেশের আছে। কিন্তু সত্যিই ইন্দো-চীন সেনার রক্তক্ষয়ী লড়াইয়ের দিন ভারতের ভূখণ্ডে লালফৌজের অনুপ্রবেশ ঘটেছিল কিনা সে প্রশ্নের উত্তর এখনও দেশবাসীর অজানা। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে যিনি ঘরে ঢুকে মেরে আসার হুঁশিয়ারি দেন সেই কড়া হুঙ্কার কিন্তু শোনা যাচ্ছে না চীনের ক্ষেত্রে। তাই একটা সংশয় দানা বাঁধছে। যে কোনও কারণেই হোক চীনের ক্ষেত্রে তাহলে কি তিনি একটু নরম! এর পিছনে কি অন্য কোনও কারণ আছে? প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য স্পষ্ট হওয়া দরকার। এক্ষেত্রে কোনও ধোঁয়াশা রাখলে আমজনতার উদ্দেশে বাগ্মী প্রধানমন্ত্রীর ভাষণটি নিছকই কথার কথা হয়ে যাবে। চীন সীমান্ত লঙ্ঘন করেছিল কিনা তা তিনি স্পষ্ট না করলেও একাধিক উপগ্রহ চিত্রে নাকি ভারতীয় ভূখণ্ডে চীনা সেনার অস্তিত্ব ধরা পড়েছে। তাই প্রকৃত সত্য উদ্ঘাটনের দায় থেকে যাচ্ছে কেন্দ্রের সরকারের।
তাহলে ভারতে চীনা সেনার অনুপ্রবেশের জবাব কীভাবে দেওয়া হল? প্রশ্ন উঠবেই। অনুপ্রবেশ বা আগ্রাসন প্রশ্নে একাধিক বক্তব্য এসে পড়ায় প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে যদি বিরোধীরা প্রশ্ন তোলেন তা কি নিছকই তাঁদের কূট রাজনীতি? অনুপ্রবেশের সঙ্গে কি দেশের স্বার্থ জড়িত নয়? বাকপটুতা দিয়ে মন জয় করার চেষ্টা হলেও সংশয় কিন্তু একটা থেকে যাচ্ছে। লালফৌজ যদি সীমান্ত লঙ্ঘনই না করে থাকে তাহলে কীসের এত লড়াই? কেন নিরাপত্তাবাহিনীর এত বৈঠক? সমরাস্ত্রে জবাব দেওয়ার প্রস্তুতি? বিশেষ অত্যাধুনিক অস্ত্র সম্ভারও তৈরি রাখছে ভারত। এই পরিস্থিতির যথাযথ ব্যাখ্যার প্রয়োজন। মন কি বাতের ভাষণে সারবত্তা যতটা না আছে নাটকীয়তা রয়েছে তার অনেক বেশি। বিদেশি দ্রব্য ছেড়ে লোকালের জন্য ভোকাল হওয়ার উপর গুরুত্ব বা আত্মনির্ভর ভারত গঠনের বক্তব্যে নেই কোনও নতুনত্ব। এতো বিজেপি সরকারের এজেন্ডাই। আর প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় ভারতীয় সেনা সতর্ক থাকবে সেটাও স্বাভাবিক। সরকারকে আরও একটি প্রশ্নের জবাব দিতে হবে। গত মে মাসে সীমান্তে ইন্দো-চীন সেনার দফায় দফায় সংঘর্ষের পরও বাড়তি সতর্কতা নেওয়া হয়নি কেন? এক্ষেত্রেও নীরবতা অবাকই করে।
চীনের আগ্রাসনের জবাব কীভাবে ভারত দেবে তা নিয়ে গোটা দেশে আগ্রহ বাড়ছে। নরেন্দ্র মোদি সেনাবাহিনীর জয়গান করেছেন যা তাঁদের প্রাপ্যই ছিল। তিনি বললেন, বিদেশ থেকে আসা পণ্যের তুলনায় দেশীয় পণ্যের উপযোগিতা কম নয়। দেশীয় পণ্য ব্যবহারের শপথ নিতে হবে দেশবাসীকে। অতীত ঐতিহ্যের কথাও টেনেছেন। এও বলেছেন, আত্মনির্ভর ভারতই হবে শহিদদের প্রতি প্রকৃত শ্রদ্ধার্ঘ্য। বক্তব্যের নিশানা যে চীন তা বুঝতে অসুবিধা হয় না। ভারতের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় যোগ্য জবাব দেওয়াটাই প্রত্যাশিত। দক্ষ ভারতীয় সেনার প্রতি পূর্ণ আস্থাও আছে আপামর ভারতবাসীর। এটাও ঠিক, ভারত ঝগড়ায় নয়, বন্ধুত্বেই বিশ্বাসী। তাই লাদাখ সমস্যা নিরসনে সমাধানসূত্র বের করার চেষ্টাও হচ্ছে যা এখনও পর্যন্ত অধরা। তবে সমাধান কোন পথে আসবে তা নিয়ে জল্পনা যখন তুঙ্গে তখন প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে ধোঁয়াশা নানা বিতর্ককে উস্কে দিচ্ছে। চীনের নামোচ্চারণে কেন এত অনীহা সেই উত্তরের অপেক্ষায় দেশবাসী।
কেন্দ্রের অমানবিক নিয়ম

 করোনা পরিস্থিতি পৃথিবীর প্রায় সব দেশের উন্নয়ন প্রক্রিয়া বানচাল করে দিয়েছে। সবচেয়ে মারাত্মক প্রভাব পড়েছে কাজের বাজারে। বাঁধাধরা সরকারি চাকরিতে নিযুক্ত মানুষের সংখ্যা খুব কম। বেশিরভাগ মানুষ কাজ করেন বেসরকারি শিল্প, ব্যবসা-বাণিজ্য কিংবা পরিষেবা ক্ষেত্রে।
বিশদ

29th  June, 2020
চিকিৎসা খরচ ও মানবিক সরকার

 কথায় বলে, বসে খেলে রাজার ধনও একটা সময় পর নিঃশেষিত হয়ে যায়। আমরা ভারতবাসী। আমরা বঙ্গবাসী। আর্থ-রাজনীতিক তত্ত্ব ভিন্নমত পোষণ করতে পারে। কিন্তু বাস্তবটা হল, ভারত একটা গরিব দেশ। তার ভিতরে পশ্চিমবঙ্গের আর্থ-সামাজিক অবস্থান গড়পড়তা।
বিশদ

28th  June, 2020
হুঙ্কারেই সুর বদল

 কারও সর্বনাশ হলে অনেকের পৌষ মাস হয়। ঝড়-বন্যা-ভূমিকম্পের মতো প্রাকৃতিক বিপর্যয় হলে লক্ষ লক্ষ মানুষ সব হারিয়ে পথে বসেন। তাঁদের অন্ন-বস্ত্র-বাসস্থান ফিরিয়ে দিতে ত্রাণবাবদ কোটি কোটি টাকা বরাদ্দ করে সরকার। বিশদ

27th  June, 2020
ওষুধের অপপ্রয়োগের বিপদ

 ওষুধ আমরা একাধিক উপায়ে নিয়ে থাকি। ট্যাবলেট, ক্যাপসুল, ইঞ্জেকশন, সিরাপ, মলম, স্যালাইন, ইনহেলার প্রভৃতি। যে-কোনও ওষুধ সবসময় ভালো চিকিৎসকের পরামর্শ মতোই ব্যবহার করা উচিত। অন্যথায় সব ওষুধই অতি মাত্রায়, কম মাত্রায় (অনিয়মিত-সহ) এবং অপ্রয়োজনে নেওয়া হতে পারে।
বিশদ

26th  June, 2020
বাংলার উত্তরণ

কথায় আছে, যারে দেখতে নারি তার চরণ ব্যাঁকা। এ রাজ্যের স্কুল শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে যাঁরা সরকারের শাপশাপান্ত করেন, গেল গেল রব তোলেন—এই রিপোর্ট তাঁদের কপালে ভাঁজ ফেলবে নিশ্চিত।
বিশদ

25th  June, 2020
করোনা-যুদ্ধের অভিমুখ  

আজ, ২৪ জুন বুধবার। ভারতে করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের ঠিক তিন মাস পূর্ণ হচ্ছে। একবিংশ শতকের দু’দশক পার হতে আর বাকি ছ’মাস। সন্দেহ নেই, এটা যোগাযোগ এবং তথ্যের স্বর্ণযুগ। প্রযুক্তির কল্যাণে সারা দেশের তো বটেই, গোটা পৃথিবীর অভিজ্ঞতা আমাদের সামনে প্রতি মুহূর্তে উঠে আসছে।  বিশদ

24th  June, 2020
সেনার স্বাধীনতা 

সাজ সাজ রব। মনে হতে পারে লাদাখ সীমান্তে চীনের সঙ্গে যেন যুদ্ধের দামামা বেজে গিয়েছে। আকাশে নজরদারি বিমানের আনাগোনা, ঘুরপথে সাঁজোয়া গাড়ির অবিরাম যাওয়া-আসা, পার্বত্য এলাকায় লড়াইয়ে পারদর্শী সেনা সমাবেশ। এভাবেই চীনের মোকাবিলায় প্রস্তুত হচ্ছে ভারত।  
বিশদ

23rd  June, 2020
শহিদের প্রাপ্য 

জন্মাবার পর থেকে মানুষ প্রথম যে জিনিসটা খোঁজে তা হল নিরাপত্তা। সদ্যোজাত শিশুকে প্রথম নিরাপত্তা দেন মা। মাকে আগলে রাখেন বাবা। অর্থাৎ মা-বাবার মিলিত যত্নে একজন মানুষ নিরাপদে বেড়ে ওঠার সুযোগ পায়। কিন্তু, এই মা-বাবাকে কেন্দ্র করে যে আস্ত একটা পরিবার তাকে নিরাপত্তা দেয় কে? 
বিশদ

22nd  June, 2020
যথারীতি ঐক্যবদ্ধ ভারত 

ভারত একটি সুপ্রাচীন সভ্যতার নাম। অতীতে পৃথিবীকে দু’টি ভাবে চিনত মানুষ। একটি অংশের নাম ভারত। অন্য অংশের নাম বহির্ভারত। সবচেয়ে সুসভ্য ও সমৃদ্ধশালী অংশের পরিচয় ছিল ভারত। যে সামান্য রাজনৈতিক মানচিত্রের অংশ হিসেবে আজ আমরা বসবাস করছি, সেটাকে কেন্দ্র করেই চতুর্দিকে বহু বিস্তৃত ছিল সেই ভারতবর্ষের ধারণা। 
বিশদ

21st  June, 2020
বাংলা ব্রাত্য 

পিছু ছাড়ছে না বঞ্চনা। করোনা ও উমপুনের জোড়া ধাক্কায় বিপর্যস্ত এই রাজ্যের জন্য কেন্দ্র উপুড়হস্ত হবে—এমনটাই হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু কোথায় কী! বিপদের সময়ে রাজ্যেরই বকেয়া পাওনা ৫৩ হাজার কোটি টাকা চেয়েছিল নবান্ন।  বিশদ

20th  June, 2020
সম্পর্ক ভালো হচ্ছে সর্বস্তরে 

এপ্রিলের গোড়ায় দেশবাসীর মন খারাপ হয়ে গিয়েছিল জাতীয় মহিলা কমিশনের একটি কথায়। সংস্থাটির পর্যবেক্ষণ ছিল যে, লকডাউন পর্বে দেশে গার্হস্থ হিংসা বেড়েছে! অর্থাৎ হিংসা বেড়েছে পরিবারগুলির মধ্যে। বাড়ির দুর্বল সদস্যরা সবল সদস্যদের হাতে আগের চেয়ে বেশি হিংসার শিকার হচ্ছেন।  
বিশদ

19th  June, 2020
বিশ্বাসভঙ্গের ট্র্যাডিশন 

কোনও আগ্নেয়াস্ত্রের ঝঙ্কার নয়, বিমান থেকে গোলাবর্ষণও নয়। স্রেফ লোহার রড, পেরেক লাগানো লাঠি আর পাথর ছিল অস্ত্র। তা দিয়েই ভারতের অন্তত ২০ জন সেনাকে খতম করে দিল চীনের সেনাবাহিনী। ভারতের প্রত্যাঘাতে চীনের ক্ষয়ক্ষতি অবশ্য বেশি।  বিশদ

18th  June, 2020
কোন ভয়ে বাদ বাংলার মুখ্যমন্ত্রী? 

করোনার দাপটে ভারতের আর্থ-সামাজিক পরিস্থিতি টলমল। বিশেষ করে শিল্প ও পরিষেবা ক্ষেত্র প্রায় মুখ থুবড়ে পড়েছে। আর্থিক বৃদ্ধির হার ক্রমশ তলানিতে। এমনিতেই দেশ বেকার সমস্যায় জর্জরিত ছিল। করোনা পরিস্থিতিতে কয়েক কোটি শ্রমিক-কর্মচারীর চাকরি চলে গিয়েছে।
বিশদ

17th  June, 2020
আয় বাড়ানোর ফন্দি!

 এও যেন এক ধরনের ‘মোদি-ম্যাজিক’। আন্তর্জাতিক বাজারে যখন অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম কমছে, তখন আমাদের দেশের সরকারের পরিকল্পনাহীনতায় টানা আট-ন’দিন ধরে পেট্রল-ডিজেলের দাম বেড়েই চলেছে। প্রশ্ন হল কেন?
বিশদ

16th  June, 2020
বন্ধু নেপালকে ফেরাতেই হবে

 নেপাল দেশটির ভূরাজনৈতিক অবস্থান অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। হিমালয় কন্যা নেপালের কোনও সমুদ্র সীমান্ত নেই। দেশটির দু’দিকে এশিয়ার দুই বৃহৎ শক্তির অবস্থান—উত্তরে চীন এবং দক্ষিণ-পূর্ব-পশ্চিমে ভারত। রাজতন্ত্রের বিলোপসহ নতুন সংবিধান গ্রহণের আগে অবধি নেপাল ছিল পৃথিবীর একমাত্র হিন্দু রাষ্ট্র।
বিশদ

15th  June, 2020
মানুষের কষ্ট বাড়বে

২৫ মার্চ লকডাউন চাপিয়ে দেওয়া হয়েছিল ২১ দিনে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার আশ্বাস দিয়ে। কিন্তু বাস্তবে তার কোনও প্রতিফলন দেখা যায়নি। বরং কোভডি-১৯ সংক্রমণ এবং মৃত্যু বেড়ে চলেছে সমস্ত রকম অনুমান, আশঙ্কা নস্যাৎ করে দিয়ে। বিশদ

14th  June, 2020
একনজরে
অলকাভ নিয়োগী, বর্ধমান: পরিযায়ী শ্রমিকেরা ভিন রাজ্য থেকে ফিরতেই পূর্ব বর্ধমান জেলায় করোনা পরীক্ষাও বেড়েছে। মে মাসের প্রথম সপ্তাহেও সারা জেলায় ৫০০-এর কম নমুনা পরীক্ষা হয়েছিল। কিন্তু, রবিবার পর্যন্ত জেলায় সেই পরীক্ষার সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় সাড়ে ২৩ হাজার। যার ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, বারাকপুর: রবিবার রাতে কল্যাণী-চাকদহ রাজ্য সড়কে আলাইপুরের কাছে গাছের গুঁড়ি ফেলে প্রায় ১৫টি গাড়িতে ডাকাতি করে দুষ্কৃতীরা। বাধা দিতে গিয়ে দুষ্কৃতীদের হাতে কয়েকজন জখম হয়েছেন। ঘটনার প্রতিবাদে সোমবার সকালে ঘণ্টাখানেক অবরোধ করা হয়। ...

জীবানন্দ বসু, কলকাতা: বিদেশি বিনিয়োগ তথা বেসরকারিকরণ ইস্যুতে কয়লা শিল্পে তিনদিনের লাগাতার ধর্মঘট নিয়ে কেন্দ্রের মোদি সরকারের বিরুদ্ধে কার্যত যুদ্ধংদেহী অবস্থান নিল আরএসএস নিয়ন্ত্রিত শ্রমিক ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: প্রখ্যাত যাত্রাভিনেতা তথা নির্দেশক ত্রিদিব ঘোষ সোমবার ভোরে তাঁর যাদবপুরের বাড়িতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। বয়স হয়েছিল ৬৭ বছর। বিভিন্ন যাত্রাপালাতে তিনি ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যার্থীদের কোনও বৃত্তিমূলক পরীক্ষায় ভালো ফল করবে। বিবাহ প্রার্থীদের এখন ভালো সময়। ভাই ও বোনদের ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮১৭: ব্রিটিশ উদ্ভিদ্বিজ্ঞানী এবং অভিযাত্রী জোসেফ ডালটন হুকারের জন্ম
১৯১৭-দাদাভাই নওরজির মৃত্যু।
১৯৫৯ - বিশিষ্ট বাঙালি অভিনেতা ও নাট্যাচার্য শিশিরকুমার ভাদুড়ীর মৃত্যু
১৯৬৬- মাইক টাইসনের জন্ম।
১৯৬৯- রাজনীতিবিদ সুপ্রিয়া সুলের জন্ম।
১৯৮৫- মার্কিন সাঁতারু মাইকেল ফেলপসের জন্ম।



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৪.৮১ টাকা ৭৬.৫৩ টাকা
পাউন্ড ৯১.৯০ টাকা ৯৫.২০ টাকা
ইউরো ৮৩.৫৩ টাকা ৮৬.৫৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৯,০৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৬,৫৭০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৭,২৭০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৮,৭৯০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৮,৮৯০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১৬ আষাঢ় ১৪২৭, ৩০ জুন ২০২০, মঙ্গলবার, দশমী ৩৭/৭ রাত্রি ৭/৫০। চিত্রা ১/৩৯ প্রাতঃ ৫/৩৯ পরে স্বাতী ৫৭/৪২ রাত্রি ৪/৪। সূর্যোদয় ৪/৫৯/৯, সূর্যাস্ত ৬/২১/১০। অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৯ মধ্যে পুনঃ ৯/২৬ গতে ১২/৬ মধ্যে পুনঃ ৩/৪০ গতে ৪/৩৩ মধ্যে। রাত্রি ৭/৩ মধ্যে পুনঃ ১২/১ গতে ২/৯ মধ্যে। বারবেলা ৬/৩৯ গতে ৮/১৯ মধ্যে পুনঃ ১/২০ গতে ৩/০ মধ্যে। কালরাত্রি ৭/৪০ গতে ৯/০ মধ্যে।
১৫ আষাঢ় ১৪২৭, ৩০ জুন ২০২০, মঙ্গলবার, দশমী রাত্রি ৭/১৩। চিত্রা নক্ষত্র প্রাতঃ ৫/৪১ পরে স্বাতী নক্ষত্র শেষরাত্রি ৪/৫। সূযোদয় ৪/৫৮, সূর্যাস্ত ৬/২৪। অমৃতযোগ দিবা ৭/৪২ মধ্যে ও ৯/২৯ গতে ১২/৯ মধ্যে ও ৩/৪২ গতে ৪/৩৫ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৫ মধ্যে ১২/৩ গতে ২/১১ মধ্যে। বারবেলা ৬/৩৯ গতে ৮/২০ মধ্যে ও ১/২২ গতে ৩/২ মধ্যে। কালরাত্রি ৭/৪৩ গতে ৯/২ মধ্যে।
৮ জেল্কদ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
দিল্লিতে করোনা পজিটিভ আরও ২,১৯৯ জন, মোট আক্রান্ত ৮৭,৩৬০ 

10:41:52 PM

আগামী ৩ মাসের জন্য স্বল্প সঞ্চয় প্রকল্পগুলিতে সুদের হার অপরিবর্তিত রাখল কেন্দ্র 

10:08:59 PM

কলকাতায় রান্নার গ্যাসের দাম বাড়ছে 
কলকাতায় রান্নার গ্যাসের দাম বাড়ছে সাড়ে চার টাকা। আগামীকাল থেকে ...বিশদ

09:56:15 PM

মহারাষ্ট্রে করোনা পজিটিভ আরও ৪,৮৭৮ জন, মোট আক্রান্ত ১,৭৪,৭৬১ 

08:38:03 PM

গুজরাতে করোনায় পজিটিভ আরও ৬২০ জন, মোট আক্রান্ত ৩২,৪৪৬ 

08:30:54 PM

কর্ণাটকে করোনা পজিটিভ আরও ৯৪৭ জন, মোট আক্রান্ত ১৫,২৪২ 

07:27:52 PM