Bartaman Patrika
সম্পাদকীয়
 

গুজরাতি: বৈষম্যমূলক ও অবাঞ্ছিত 

গোটা এশিয়া মহাদেশে সাহিত্যে প্রথম নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন যিনি তিনি একজন বাঙালি কবি। বলা বাহুল্য তাঁর নাম রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। তারপর শতবর্ষ পেরিয়ে গিয়েছে। তবু ভারতের অন্যকোনও ভাষার সাহিত্যিকরা সেই গর্ব স্পর্শ করতে পারেননি। রবীন্দ্রনাথেরই লেখা দুটি গান ভারত এবং বাংলাদেশের জাতীয়সঙ্গীত। এও এক অনন্য নজির। রাষ্ট্রসঙ্ঘের স্বীকৃতি অনুসারে প্রতি বছর ২১ ফেব্রুয়ারি দিনটি পালিত হয় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসাবে। বাংলাভাষার সরকারি মর্যাদা আদায়ের লড়াইতে নেমে ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি ঢাকার বুকে কয়েকজন তরুণ তাঁদের প্রাণ বলিদান করেছিলেন। ওই ব্যতিক্রমী লড়াইকেই সম্মানিত করেছে রাষ্ট্রসঙ্ঘ। মাতৃভাষার সরকারি স্বীকৃতি চাইতে গিয়ে অসমের শিলচরেও বাঙালি বুকের রক্ত দিয়েছে। মাতৃভাষার প্রতি এতখানি আবেগ ভালোবাসা সারা পৃথিবীতে নজিরবিহীন। ১৯৭৪ সালে রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ পরিষদে প্রথম বাংলায় ভাষণ দিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। পশ্চিম আফ্রিকার দেশ সিয়েরা লিওন বাংলাভাষাকে তাদের দ্বিতীয় সরকারি ভাষা হিসেবে গ্রহণ করেছে। সিঙ্গাপুরের স্কুলে যে-কেউ দ্বিতীয় ভাষা হিসেবে বাংলা পড়তে পারে। এই মুহূর্তে সারা পৃথিবীতে ৩০ কোটির বেশি মানুষ বাংলাভাষায় কথা বলে। শুধু সংখ্যার বিচারে নয়, বিদ্বজ্জনসমাজ বাংলাকে পৃথিবীর সেরা ছয়-সাতটি ভাষার একটি বলে গণ্য করে থাকে। শুধু বাংলাভাষীদের জন্য একটি আস্ত দেশ আছে। বাংলাদেশ। বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার একমাত্র প্রেরণা ছিল বাংলাভাষা। হিন্দু মুসলিম দ্বিজাতি তত্ত্বের ভিত্তিতে ১৯৪৭ সালে ভারত ভাগ হয়েছিল। কিন্তু জিন্না সাহেবের সাধের পাকিস্তানের মানচিত্র পাল্টে গিয়েছিল মাত্র ২৪ বছরে! পাকিস্তানের দোর্দণ্ডপ্রতাপ সামরিক শাহির পতন তথা মুসলিম রাষ্ট্রটি দু’টুকরো হয়ে গিয়েছিল শুধুমাত্র বাঙালিত্বের টানে—বাঙালি জাতির উপর পশ্চিম পাকিস্তানের আধিপত্যবাদ অস্বীকার করার দৃঢ় অঙ্গীকারে।
ভারত এবং বাংলা দু’টুকরো হয়ে যাওয়ার পরেও স্বাধীন ভারতে বাংলাভাষা এবং বাঙালি সংস্কৃতি যথেষ্ট অগ্রণী ভূমিকা পালন করে চলছে। সংখ্যার বিচারে বাংলাভাষীরা এদেশে দ্বিতীয় বৃহত্তম ভাষা গোষ্ঠী। পশ্চিমবঙ্গ এবং ত্রিপুরা রাজ্যের প্রধান সরকারি ভাষা হল বাংলা। এছাড়া অসমসহ সমগ্র উত্তর-পূর্বাঞ্চলে এবং বিহার, ঝাড়খণ্ড, ওড়িশা, আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জে বাংলাভাষা ও সংস্কৃতি রীতিমতো সমীহ জাগিয়ে রেখেছে। সারা দেশ কলকাতাকেই ভারতের সাংস্কৃতিক রাজধানী হিসেবে মান্যতা দিয়ে থাকে। হিন্দিসহ ভারতের আর কোনও আঞ্চলিক ভাষার মানুষ তার মুখের ভাষা প্রাণের ভাষা নিয়ে এই গর্ব করতে পারবে না। পরিতাপের সঙ্গে লক্ষ করা যাচ্ছে, তবুও ভারতে সরকারি পর্যায়ে বাংলাভাষাকে তার প্রাপ্য গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে না। বাংলাভাষীদের একাংশের বরাবরের ক্ষোভ এই যে, বাংলাভাষাকে, বাঙালি জাতি ও সংস্কৃতিকে ঐতিহাসিক কারণেই দাবিয়ে রাখার একটি পরোক্ষ ষড়যন্ত্র এদেশে বরাবর চলছে। আম বাঙালির এই ক্ষোভ কখনও কখনও যেন মান্যতাও পেয়ে যায়। তার পিছনে থাকে সরকারের কিছু ভুল সিদ্ধান্ত। যেমন আগামী বছরের জয়েন্ট এন্ট্রান্স (মেইন) পরীক্ষায় মাধ্যম হিসেবে ইংরেজি ও হিন্দির সঙ্গে গুজরাতি ভাষাকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।
স্বামী বিবেকানন্দ বলেছিলেন, কোনও ভাষাই অশ্রদ্ধা ও অবজ্ঞার নয়। কথাটি গুজরাতি ভাষা ও সংস্কৃতির জন্যও প্রযোজ্য। গুজরাত, গুজরাতি ভাষা ও সংস্কৃতি নিয়ে বাংলার কোনও বিরোধ নেই। গুজরাতি ভাষা সংস্কৃতিকে বাংলার মানুষও ভালোবাসে। তবু বলতে হবে, মোদি সরকারের এই সিদ্ধান্ত অত্যন্ত বৈষম্যমূলক, অবাঞ্ছিত ও ঘোরতর অন্যায়। যদি আঞ্চলিক ভাষার অধিকার ও মর্যাদার স্বীকৃতির যুক্তিতে গুজরাতি ভাষাকে এই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সর্বভারতীয় প্রবেশিকা পরীক্ষায় মাধ্যম হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়, তবে এই অধিকার ও মর্যাদা সমস্ত আঞ্চলিক ভাষার প্রাপ্য। সবগুলি স্বীকৃত আঞ্চলিক ভাষাকে অবিলম্বে এই পঙ্‌ক্তিভুক্ত করা হোক অথবা পত্রপাঠ বাদ দেওয়া হোক গুজরাতিকেও। ভারতে সংখ্যার বিচারে গুজরাতি অনেক পিছনের একটি ভাষা—হিন্দি ও বাংলার অনেক পিছনে। তাই বিশেষত বাংলা থেকে, সারা দেশের বাংলাভাষীদের তরফে এ নিয়ে যে প্রতিবাদ ধ্বনিত হয়েছে—তাকে সম্মান করা উচিত সরকারের। অন্যথায় বিজেপি সরকারকে আরও বদনামের ভাগীদার হতে হবে। সামান্য বুদ্ধি থাকলে কোনও শাসক এমন বদনাম কুড়ায় না। কেন্দ্রের প্রধান শাসক দলটির গায়ে এমনিতেই সাম্প্রদায়িক অসহিষ্ণুতার কালিমা রয়েছে, এবার তার উপর পোক্তভাবে সেঁটে যাবে ভাষাগত বিভাজনের কারিগর বদনামটিও। তাই বিষয়টি গুরুত্ব দিয়েই পুনর্বিবেচনা করতে হবে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকেই।
 
08th  November, 2019
মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা 

লক্ষণ ভালো নয়। জিনিসপত্রের দাম ফের বাড়ছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় সহ প্রায় সমস্ত জিনিসের দাম ইতিমধ্যেই আকাশছোঁয়া। অর্থনীতির ভাষায় এটাকে মুদ্রাস্ফীতি বলা যায়। মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রিত মাত্রায় থাকলে সমস্যা নেই।  বিশদ

জনস্বার্থে কঠোর নীতি

ছেলেটা বাঁচতে চেয়েছিল। মরেই গেল ১৮-তে! ইছাপুরের শুভ্রজিৎ প্রাণভরে শ্বাস নিতে পারছিল না। হয়তো একটু অক্সিজেন পেলে বেঁচে যেত। দিনভর এমন নিদারুণ কষ্টে কুঁকড়ে থাকা ছেলেটাকে নিয়ে বাবা-মা চার-চারটে হাসপাতালে ঘুরে বেড়ালেও সাড়া দেয়নি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।
বিশদ

14th  July, 2020
করোনার সঙ্গে অর্থনৈতিক জয় 

করোনা যত বড় না রোগ তার চেয়ে বড় সমস্যা। হাজারো রোগের সঙ্গে লড়াই করে মানুষ দীর্ঘ জীবন অতিবাহিত করে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে সেই লড়াইগুলো একেবারে ব্যক্তিগত। যার হয় সে নিজে এবং পরিবার কিছুটা টের পায়। চিকিৎসা বিজ্ঞান অনেক উন্নত হয়েছে। 
বিশদ

13th  July, 2020
কৃষিতে নগদ জোগানের নিশ্চয়তা
 

সভ্য মানুষের প্রথম পেশার নাম কৃষি। ফলমূল আহরণ এবং শিকারের পর্ব পেরিয়ে মানুষ কৃষিযুগে প্রবেশ করেছিল। কৃষি পৃথিবীর অন্যতম প্রাচীন এক পেশা। জীবনধারণের প্রধান উপকরণ খাদ্য। বিকল্প ও বেশি খাদ্য সংগ্রহের প্রয়োজনে মানুষকে কৃষিকে হাতিয়ার করতে হয়েছিল।   বিশদ

12th  July, 2020
মোদির আরও এক চমক

ভারতের প্রধানমন্ত্রী যে একজন ভালো বক্তা, তা নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই। তাঁর বক্তৃতার পরতে পরতে যে নাটকীয় উপাদান ভরপুর, তা এই করোনা পর্বেও বারবার দেখা গিয়েছে। নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে ‘চমক’ কথাটা এখন প্রায় সমার্থক হয়ে দাঁড়িয়েছে।
বিশদ

11th  July, 2020
সিলেবাসেও আক্রান্ত গণতন্ত্র

খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান। জীবনধারণের প্রথম তিনটি উপকরণ। এই তিনটি চাহিদা পূরণ না হলে কোনও মানুষের পক্ষে সভ্য সমাজের অংশ হওয়া সম্ভব নয়। বস্ত্র ও বাসস্থানের প্রকার ভেদ রয়েছে। মানুষ তার আর্থিক পরিস্থিতি এবং প্রাকৃতিক ও সামাজিক অবস্থান অনুসারে বস্ত্র বেছে নেয়।
বিশদ

10th  July, 2020
সুরক্ষাবিধি না মানার খেসারত 

জুলাই মাসে টানা কয়েকদিন ধরে রাজ্যে করোনা আক্রান্ত ও মৃতের গ্রাফ ঊর্ধ্বমুখী। সেই করোনা চিত্রই তিন মাস আগের স্মৃতি উসকে দিয়ে ফিরিয়ে আনল লকডাউন। তবে সর্বত্র নয়, কলকাতা সহ রাজ্যের কিছু এলাকায়।   বিশদ

09th  July, 2020
করোনা যুদ্ধের সহায়ক পদক্ষেপ

ভারত একটি উন্নয়নশীল দেশ। মানে, দেশটি উন্নত দুনিয়ার সমগোত্রীয় নয়। সেই স্তরে উন্নীত হওয়ার লক্ষ্যে এগচ্ছে। গত চার দশক যাবৎ সেটাই শুনে আসছেন দেশবাসী। তবু, ভারত ‘উন্নত’ দেশের সংজ্ঞাভুক্ত এখনও হতে পারেনি।
বিশদ

08th  July, 2020
সাফল্যের রেকর্ড

 এক অস্থির সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে আমাদের দেশ, রাজ্য। এক ভাইরাসের ধ্বংসলীলায় নাভিশ্বাস উঠেছে দেশবাসীর। করোনা হানায় অর্থনীতির মেরুদণ্ড ভেঙেছে। যার জেরে কাজ হারানো লক্ষ লক্ষ মানুষের জীবনে নেমে এসেছে গভীর সঙ্কট।
বিশদ

07th  July, 2020
কাজের বাংলা 

একটা দেশ আর্থিকভাবে কতটা শক্তিশালী, তা বোঝাতে অনেকে মাথাপিছু আয়ের হিসেব নেন। যে দেশের মাথাপিছু আয় বেশি, সেই দেশকে আপাতভাবে উন্নত মনে হয়। মনে হতে পারে, সেই দেশ আর্থ-সামাজিকভাবে বেশ এগিয়ে।   বিশদ

06th  July, 2020
মানুষের রাজনীতি 

রাজনীতির প্রাচীন সংজ্ঞা চারটি বিষয় বা নীতির উপর প্রতিষ্ঠিত। সাম, দান, ভেদ ও দণ্ড। ‘সাম’ শব্দের অর্থ শত্রুকে বশীভূত করা। তোষণ এবং সন্ধিস্থাপনের মাধ্যমে তা সম্ভব।   বিশদ

05th  July, 2020
স্বপ্নপূরণের দলিল 

সেই কবে কোলে কাঁখে বাচ্চা আর বাক্স প্যাটরা নিয়ে সীমান্ত পেরিয়ে এপারে ঠাঁই নিয়েছিলেন তাঁরা। মানে আজকের উদ্বাস্তু কলোনির বাসিন্দাদের পূর্বপুরুষরা। তারপর গঙ্গা-পদ্মা দিয়ে অনেক জল গড়িয়ে গিয়েছে, এখন তাঁরা বাংলার বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে আছেন।  বিশদ

04th  July, 2020
এবার ভয় জি-৪ 

কথায় বলে, বিপদ একা আসে না। কোভিড-১৯-এর ধাক্কায় মানবসভত্যা টলমল। এই মহামারী থেকে বাঁচার উপায় খুঁজতে হিমশিম খাচ্ছে সারা পৃথিবী। এরই মধ্যে জি-৪ নামক এক মারণ ভাইরাসের দুঃসংবাদে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে।   বিশদ

03rd  July, 2020
হিসেবের চাল 

কথায় আছে, রাজায় রাজায় যুদ্ধ হয় উলুখাগড়ার প্রাণ যায়। কিন্তু মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আর এ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘোষণায় এক বেনজির উলটপুরাণের সাক্ষী থাকল রাজ্যবাসী।   বিশদ

02nd  July, 2020
কয়লা শিল্পে সরকার একাই যথেষ্ট

 জ্বালানি ও শক্তির প্রাকৃতিক উৎস হিসেবে কয়লার গুরুত্ব বিরাট। হাতে গোনা কয়েকটিমাত্র দেশে ভালো পরিমাণ কয়লার মজুদ ভাণ্ডার রয়েছে। সেই সৌভাগ্যের অধিকারীদের মধ্যে ভারত অন্যতম। বিশ্বের পঞ্চম বৃহৎ কয়লা ভাণ্ডারটি ভারতের।
বিশদ

01st  July, 2020
সতর্কতা, নাকি অন্য কারণ

 এ যেন ভাসুর ভাদ্দর বউয়ের সম্পর্ক! ১৫ জুন পূর্ব লাদাখের গলওয়ানে সংঘর্ষের পর সর্বদল বৈঠকে চীনের নাম না করে তিনি বলেছিলেন, কেউ ভারতীয় ভূখণ্ডে ঢুকে বসে নেই, তাঁবুও তৈরি করেনি। রবিবার ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠানে লাদাখের প্রসঙ্গ টানলেও চীনের নাম নিলেন না প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।
বিশদ

30th  June, 2020
একনজরে
সংবাদদাতা, মালদহ: মালদহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের আধুনিক ট্রমা কেয়ার সেন্টারটি নভেম্বর মাস নাগাদ চালু হতে পারে। করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসার পরেই এই বিশেষ চিকিৎসা কেন্দ্রটি চালু করার কথা ভাবনাচিন্তা করছে মেডিক্যাল কর্তৃপক্ষ।   ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: হাসপাতালের দরজায় দরজায় ঘুরে প্রায় বিনা চিকিৎসায় তরতাজা ছেলেকে হারানো বাবা-মা অবশেষে ন্যায়ের প্রতীক আদালতের দরজায় মাথা কুটে সামান্য হলেও বিচার পেলেন। ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, আরামবাগ: সোমবার গভীর রাতে আরামবাগ শহরের কালীপুরে তৃণমূলের পতাকা ও ফ্লেক্স ছিঁড়ে ফেলার ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। শাসক দলের অভিযোগ, বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরাই ওই কাজ করেছে। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছে বিজেপি।   ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: এফসিআইতে বিভিন্ন পদে চাকরির টোপ দিয়ে এ রাজ্যের পঞ্চান্ন জন বেকার যুবকের কাছ থেকে পৌনে এক কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠল। তারাতলা থানা এলাকার ব্রেস ব্রিজের বাসিন্দা প্রতারিত সুবোধকুমার সিংয়ের লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে সম্প্রতি তদন্তে নেমেছে ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

পড়শির ঈর্ষায় অযথা হয়রানি। সন্তানের বিদ্যা নিয়ে চিন্তা। মামলা-মোকদ্দমা এড়িয়ে চলা প্রয়োজন। প্রেমে বাধা।প্রতিকার: একটি ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮২০: সাহিত্যিক অক্ষয়কুমার দত্তের জন্ম
১৯০৩: রাজনীতিক কে কামরাজের জন্ম
১৯০৪: রুশ লেখক আস্তন চেকভের মৃত্যু
১৯৫৪: আর্জেন্তিনার ফুটবলার মারিও কেম্পেসের জন্ম  



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৪.৪৬ টাকা ৭৬.১৭ টাকা
পাউন্ড ৯২.৯৩ টাকা ৯৬.২০ টাকা
ইউরো ৮৩.৮৮ টাকা ৮৬.৯৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৯, ৭৭০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৭, ২২০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৭, ৯৩০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৫১, ৯০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৫২, ০০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৩১ আষাঢ় ১৪২৭, ১৫ জুলাই ২০২০, বুধবার, দশমী ৪৩/৯ রাত্রি ১০/২০। ভরণী ২৯/৭ অপঃ ৪/৪৩। সূর্যোদয় ৫/৪/৪২, সূর্যাস্ত ৬/২০/১৪। অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৩ গতে ১১/১৫ মধ্যে পুনঃ ১/৫৫ গতে ৫/২৭ মধ্যে। রাত্রি ৯/৫৫ মধ্যে পুনঃ ১২/৪ গতে ১/৩০ মধ্যে। বারবেলা ৮/২৩ গতে ১০/৩ মধ্যে পুনঃ ১১/৪২ গতে ১/২১ মধ্যে। কালরাত্রি ২/২৩ গতে ৩/৪৪ মধ্যে।  
৩০ আষাঢ় ১৪২৭, ১৫ জুলাই ২০২০, বুধবার, দশমী রাত্রি ৮/৪৩। ভরণী নক্ষত্র অপরাহ্ন ৪/৭। সূযোদয় ৫/৪, সূর্যাস্ত ৬/২৩। অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৩ গতে ১১/১৬ মধ্যে ও ১/৫৬ গতে ৫/২৮ মধ্যে এবং রাত্রি ৯/৫৬ মধ্যে ও ১২/৪ গতে ১/৩০ মধ্যে। কালবেলা ৮/২৪ গতে ১০/৪ মধ্যে ও ১১/৪৩ গতে ১/২৩ মধ্যে। কালরাত্রি ২/২৪ গতে ৩/৪৪ মধ্যে।
২৩ জেল্কদ  

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
মাধ্যমিকে ষষ্ঠ অশোকনগরের অস্মি চৌধুরি চিকিৎসক হতে চায় 
মাধ্যমিকে রাজ্যে ষষ্ঠ স্থান অধিকার করেছে অশোকনগর বাণীপিঠ ...বিশদ

01:46:07 PM

বিহারে রাজভবনের ২০ জন কর্মী করোনায় আক্রান্ত 

01:36:04 PM

মাধ্যমিকে সপ্তম চন্দননগরের সুহা ঘোষ ভবিষ্যতে বিজ্ঞানের শিক্ষক হতে চায় 

01:35:35 PM

৭০১ পয়েন্ট উঠল সেনসেক্স

01:32:50 PM

মাধ্যমিকে দশম জুনায়েদ হাসান চিকিৎসক হতে চায় 

01:29:42 PM

ময়নাগুড়িতে  ব্যারিকেড করে বিজেপির মিছিল আটকাল পুলিস 

01:27:50 PM