Bartaman Patrika
সম্পাদকীয়
 

  পুজো হোক, পরিবেশ বাঁচিয়ে

ধর্ম ও রাজনীতি, মানবেতিহাসে এই দু’টি শক্তিশালী বিষয় কখনও গলাগলি করে হেঁটেছে, কখনও বা অস্ত্রধারণ করেছে। ভারত বা ভারতের ক্ষুদ্র সংস্করণ পশ্চিমবঙ্গও তা থেকে বিচ্ছিন্ন কিছু নয়। শিক্ষা ও সংস্কৃতিমনস্ক বাঙালি চরিত্র তথাকথিত নরম মনোভাবাপন্ন হওয়ার কারণে এখানে রাজনৈতিক উত্তেজনা চিরকালই উত্তুঙ্গ থাকলেও ধর্মের বাড়াবাড়ি কোনওদিনই তেমন ছিল না। যদিও দেশে শ্রীচৈতন্যর ধর্মান্দোলনের ঝড় থেকেই সতীদাহ প্রথা রদ, বাল্যবিবাহ আটকানো বা বিধবাবিবাহ কিংবা ইয়ং বেঙ্গল আন্দোলনের সময় ব্রাহ্মণ সন্তানদের প্রকাশ্যে মদ্যপান ও নিষিদ্ধ মাংস ভক্ষণের বাড়াবাড়ি পর্যন্ত সকলই ধর্ম সংক্রান্ত বিষয়। যা নিয়ে একদা গোটা দেশে ঘূর্ণাবর্ত তৈরি হয়েছিল। কিন্তু, কালে কালে ধর্মকে রাজনীতির লেজুড় করে যেভাবে চক্রব্যুহ তৈরি হচ্ছে, তার থেকে বেরিয়ে আসার পথ কোথায়! ধর্ম গেল গেল রব তুলে আমাদের চতুর্পাশে এখন রণডঙ্কা বাজছে যেন সব সময়। আর তার পরিণতি জেনেও জুয়ার রাজনীতি চালিয়ে যাচ্ছেন কিছু রাজনীতিক। সম্প্রতি যার আঁচ দেখা যাচ্ছে পরিবেশ দূষণ নিয়েও।
দুর্গাপুজো, লক্ষ্মী, কালীপুজো ও জগদ্ধাত্রী পুজো বঙ্গজীবনের সঙ্গে অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িত। একইসঙ্গে মিশ্র সংস্কৃতির মিলমিশে বেশ কয়েক বছর ধরেই পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে ছট পুজোও ধুমধাম সহকারে এখানে হয়। দেখা যাচ্ছে, এইসব পুজোকে কেন্দ্র করে যুগের পর যুগ ধরে আমরা সংস্কারবশত জলাশয়-নদীকে নির্বিচারে দূষিত করে গিয়েছি। চেতনা যখন ফিরেছে, তখন অনেক দেরি হয়ে গিয়েছে। তা সত্ত্বেও এখনও আমরা দীর্ঘলালিত সংস্কারে আচ্ছন্ন হয়ে দূষণ করেই চলেছি। প্রতিমা বিসর্জনের সঙ্গে পুজো-বর্জ্য জলে ফেলার এই অভ্যাস বদলের সময় এসে গিয়েছে। আর এটা নিয়েই সম্প্রতি রাজনীতির জলঘোলা হয়ে চলেছে। একটা চেষ্টা চলছে যাতে মমতার সরকার হেয় প্রতিপন্ন হয়। ইদানীং বিসর্জন ও পুজো সংক্রান্ত বিষয় নিয়েও কিছু বিতর্ক ঘনীভূত হয়েছে। যাতে ইন্ধন জোগাচ্ছে রাজনীতি। ছটপুজোর জন্য প্রয়োজন জলাশয় বা নদীতীর। এটাই রীতি। কিন্তু, দেখা যায় সামান্য অজ্ঞতা বা সংস্কারাচ্ছন্নতার কারণে পুজো পরবর্তী সময়ে জলে পড়ে থাকে অগুনতি বর্জ্য। আর সে কারণেই জলাশয় ও নদী বাঁচানোর জন্য পরিবেশকর্মীরা আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন। দীর্ঘ কয়েক দশক ধরে রবীন্দ্র সরোবরে ছট পুজোর আয়োজন নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন পরিবেশকর্মীরা। তাই সেখানে এবছর ছটের আয়োজন নিয়ে রাজ্য সরকারের ভূমিকা নিঃসন্দেহে প্রশংসার যোগ্য।
রাজ্য সরকারের মতে, ছটপুজোর জন্য সরকার ও প্রশাসন এতদিন রবীন্দ্র সরোবরে যে ব্যবস্থা করে এসেছে, তাতে পরিবেশ সুরক্ষার সঙ্গে কোনও আপস করা হয়নি। প্রসঙ্গত, এ বছর রবীন্দ্র সরোবরে ছটপুজো করতে দেওয়া হবে না বলে ঘোষণা করা হয়েছে। সংবাদে প্রকাশ, এনিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিম। তিনি বলেছেন, দিল্লি থেকে একটা নির্দেশ এসেছে। সেটির ব্যাপারে আমরা অত্যন্ত চিন্তিত। হঠাৎ করে বলা হয়েছে যে, রবীন্দ্র সরোবরে ছটপুজো করা যাবে না। কিন্তু এতদিন ধরে তো তা হয়ে আসছে। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশক্রমে ছটের জন্য জলাশয়ের বন্দোবস্ত করা হয়েছে। ছটপুজোতে যাতে কোনও সমস্যা না হয়, তার জন্য ১১টি জলাশয় চিহ্নিত করে সেগুলি সাফসুতরো করা হয়েছে। আমরা তো পরিবেশের সঙ্গে কোনও আপস করিনি। যেভাবে বিসর্জন প্রক্রিয়া আমরা সম্পন্ন করি, তা ইতিমধ্যে নানা মহলের প্রশংসা কুড়িয়েছে। ছটপুজোতে রবীন্দ্র সরোবরে যে ব্যবস্থা করা হয়, তাতে সরোবরের পরিবেশের কোনও অসুবিধা হয়নি। মেয়রের এমন মন্তব্যের পর এ সংক্রান্ত বিতর্ক নতুন করে ইন্ধন পেয়েছে। কেএমডিএ সূত্রে জানা গিয়েছে, ২০১৭ সালে ন্যাশনাল গ্রিন ট্রাইব্যুনাল একটি মামলার রায়ে জাতীয় সরোবরের তকমা পাওয়া রবীন্দ্র সরোবরে ছটপুজো সহ সমস্ত ধর্মীয় কার্যকলাপ নিষিদ্ধ করে। তারপরও ২০১৮ সালে প্রতিবারের মতোই ছটপুজো হয়। চলতি বছর ওই ট্রাইব্যুনালে আদালত অবমাননার অভিযোগ দায়ের হয় রবীন্দ্র সরোবরের ভারপ্রাপ্ত সংস্থা কেএমডিএ’র বিরুদ্ধে। সেখানে গিয়ে কেএমডিএ জানিয়ে আসে, এবার অবশ্যই আদালতের নির্দেশ মান্য করা হবে। সেইমতোই বিকল্প জলাশয় খোঁজার কাজও শুরু করে কলকাতা পুরসভা। সুতরাং, শুধু রবীন্দ্র সরোবরই নয়, দেশের সব জলাশয়-নদীই জাতীয় সম্পদ। তা রক্ষা করা আমাদের সকলের জাতীয় কর্তব্য। শুধু মাটির উপরের জল নয়, ভূগর্ভস্থ জলও বাঁচানো সকলের দায়িত্ব। ধর্ম থাক, পুজো হোক—কিন্তু, আমাদের যা ধারণ করে থাকে, তাকে পরিত্যাগ করলে আমরাই কি আদৌ থাকব!
25th  October, 2019
মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা 

লক্ষণ ভালো নয়। জিনিসপত্রের দাম ফের বাড়ছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় সহ প্রায় সমস্ত জিনিসের দাম ইতিমধ্যেই আকাশছোঁয়া। অর্থনীতির ভাষায় এটাকে মুদ্রাস্ফীতি বলা যায়। মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রিত মাত্রায় থাকলে সমস্যা নেই।  বিশদ

জনস্বার্থে কঠোর নীতি

ছেলেটা বাঁচতে চেয়েছিল। মরেই গেল ১৮-তে! ইছাপুরের শুভ্রজিৎ প্রাণভরে শ্বাস নিতে পারছিল না। হয়তো একটু অক্সিজেন পেলে বেঁচে যেত। দিনভর এমন নিদারুণ কষ্টে কুঁকড়ে থাকা ছেলেটাকে নিয়ে বাবা-মা চার-চারটে হাসপাতালে ঘুরে বেড়ালেও সাড়া দেয়নি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।
বিশদ

14th  July, 2020
করোনার সঙ্গে অর্থনৈতিক জয় 

করোনা যত বড় না রোগ তার চেয়ে বড় সমস্যা। হাজারো রোগের সঙ্গে লড়াই করে মানুষ দীর্ঘ জীবন অতিবাহিত করে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে সেই লড়াইগুলো একেবারে ব্যক্তিগত। যার হয় সে নিজে এবং পরিবার কিছুটা টের পায়। চিকিৎসা বিজ্ঞান অনেক উন্নত হয়েছে। 
বিশদ

13th  July, 2020
কৃষিতে নগদ জোগানের নিশ্চয়তা
 

সভ্য মানুষের প্রথম পেশার নাম কৃষি। ফলমূল আহরণ এবং শিকারের পর্ব পেরিয়ে মানুষ কৃষিযুগে প্রবেশ করেছিল। কৃষি পৃথিবীর অন্যতম প্রাচীন এক পেশা। জীবনধারণের প্রধান উপকরণ খাদ্য। বিকল্প ও বেশি খাদ্য সংগ্রহের প্রয়োজনে মানুষকে কৃষিকে হাতিয়ার করতে হয়েছিল।   বিশদ

12th  July, 2020
মোদির আরও এক চমক

ভারতের প্রধানমন্ত্রী যে একজন ভালো বক্তা, তা নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই। তাঁর বক্তৃতার পরতে পরতে যে নাটকীয় উপাদান ভরপুর, তা এই করোনা পর্বেও বারবার দেখা গিয়েছে। নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে ‘চমক’ কথাটা এখন প্রায় সমার্থক হয়ে দাঁড়িয়েছে।
বিশদ

11th  July, 2020
সিলেবাসেও আক্রান্ত গণতন্ত্র

খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান। জীবনধারণের প্রথম তিনটি উপকরণ। এই তিনটি চাহিদা পূরণ না হলে কোনও মানুষের পক্ষে সভ্য সমাজের অংশ হওয়া সম্ভব নয়। বস্ত্র ও বাসস্থানের প্রকার ভেদ রয়েছে। মানুষ তার আর্থিক পরিস্থিতি এবং প্রাকৃতিক ও সামাজিক অবস্থান অনুসারে বস্ত্র বেছে নেয়।
বিশদ

10th  July, 2020
সুরক্ষাবিধি না মানার খেসারত 

জুলাই মাসে টানা কয়েকদিন ধরে রাজ্যে করোনা আক্রান্ত ও মৃতের গ্রাফ ঊর্ধ্বমুখী। সেই করোনা চিত্রই তিন মাস আগের স্মৃতি উসকে দিয়ে ফিরিয়ে আনল লকডাউন। তবে সর্বত্র নয়, কলকাতা সহ রাজ্যের কিছু এলাকায়।   বিশদ

09th  July, 2020
করোনা যুদ্ধের সহায়ক পদক্ষেপ

ভারত একটি উন্নয়নশীল দেশ। মানে, দেশটি উন্নত দুনিয়ার সমগোত্রীয় নয়। সেই স্তরে উন্নীত হওয়ার লক্ষ্যে এগচ্ছে। গত চার দশক যাবৎ সেটাই শুনে আসছেন দেশবাসী। তবু, ভারত ‘উন্নত’ দেশের সংজ্ঞাভুক্ত এখনও হতে পারেনি।
বিশদ

08th  July, 2020
সাফল্যের রেকর্ড

 এক অস্থির সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে আমাদের দেশ, রাজ্য। এক ভাইরাসের ধ্বংসলীলায় নাভিশ্বাস উঠেছে দেশবাসীর। করোনা হানায় অর্থনীতির মেরুদণ্ড ভেঙেছে। যার জেরে কাজ হারানো লক্ষ লক্ষ মানুষের জীবনে নেমে এসেছে গভীর সঙ্কট।
বিশদ

07th  July, 2020
কাজের বাংলা 

একটা দেশ আর্থিকভাবে কতটা শক্তিশালী, তা বোঝাতে অনেকে মাথাপিছু আয়ের হিসেব নেন। যে দেশের মাথাপিছু আয় বেশি, সেই দেশকে আপাতভাবে উন্নত মনে হয়। মনে হতে পারে, সেই দেশ আর্থ-সামাজিকভাবে বেশ এগিয়ে।   বিশদ

06th  July, 2020
মানুষের রাজনীতি 

রাজনীতির প্রাচীন সংজ্ঞা চারটি বিষয় বা নীতির উপর প্রতিষ্ঠিত। সাম, দান, ভেদ ও দণ্ড। ‘সাম’ শব্দের অর্থ শত্রুকে বশীভূত করা। তোষণ এবং সন্ধিস্থাপনের মাধ্যমে তা সম্ভব।   বিশদ

05th  July, 2020
স্বপ্নপূরণের দলিল 

সেই কবে কোলে কাঁখে বাচ্চা আর বাক্স প্যাটরা নিয়ে সীমান্ত পেরিয়ে এপারে ঠাঁই নিয়েছিলেন তাঁরা। মানে আজকের উদ্বাস্তু কলোনির বাসিন্দাদের পূর্বপুরুষরা। তারপর গঙ্গা-পদ্মা দিয়ে অনেক জল গড়িয়ে গিয়েছে, এখন তাঁরা বাংলার বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে আছেন।  বিশদ

04th  July, 2020
এবার ভয় জি-৪ 

কথায় বলে, বিপদ একা আসে না। কোভিড-১৯-এর ধাক্কায় মানবসভত্যা টলমল। এই মহামারী থেকে বাঁচার উপায় খুঁজতে হিমশিম খাচ্ছে সারা পৃথিবী। এরই মধ্যে জি-৪ নামক এক মারণ ভাইরাসের দুঃসংবাদে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে।   বিশদ

03rd  July, 2020
হিসেবের চাল 

কথায় আছে, রাজায় রাজায় যুদ্ধ হয় উলুখাগড়ার প্রাণ যায়। কিন্তু মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আর এ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘোষণায় এক বেনজির উলটপুরাণের সাক্ষী থাকল রাজ্যবাসী।   বিশদ

02nd  July, 2020
কয়লা শিল্পে সরকার একাই যথেষ্ট

 জ্বালানি ও শক্তির প্রাকৃতিক উৎস হিসেবে কয়লার গুরুত্ব বিরাট। হাতে গোনা কয়েকটিমাত্র দেশে ভালো পরিমাণ কয়লার মজুদ ভাণ্ডার রয়েছে। সেই সৌভাগ্যের অধিকারীদের মধ্যে ভারত অন্যতম। বিশ্বের পঞ্চম বৃহৎ কয়লা ভাণ্ডারটি ভারতের।
বিশদ

01st  July, 2020
সতর্কতা, নাকি অন্য কারণ

 এ যেন ভাসুর ভাদ্দর বউয়ের সম্পর্ক! ১৫ জুন পূর্ব লাদাখের গলওয়ানে সংঘর্ষের পর সর্বদল বৈঠকে চীনের নাম না করে তিনি বলেছিলেন, কেউ ভারতীয় ভূখণ্ডে ঢুকে বসে নেই, তাঁবুও তৈরি করেনি। রবিবার ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠানে লাদাখের প্রসঙ্গ টানলেও চীনের নাম নিলেন না প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।
বিশদ

30th  June, 2020
একনজরে
নিজস্ব প্রতিনিধি, আরামবাগ: সোমবার গভীর রাতে আরামবাগ শহরের কালীপুরে তৃণমূলের পতাকা ও ফ্লেক্স ছিঁড়ে ফেলার ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। শাসক দলের অভিযোগ, বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরাই ওই কাজ করেছে। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছে বিজেপি।   ...

সংবাদদাতা, মালদহ: মালদহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের আধুনিক ট্রমা কেয়ার সেন্টারটি নভেম্বর মাস নাগাদ চালু হতে পারে। করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসার পরেই এই বিশেষ চিকিৎসা কেন্দ্রটি চালু করার কথা ভাবনাচিন্তা করছে মেডিক্যাল কর্তৃপক্ষ।   ...

লখনউ: গ্যাংস্টার বিকাশ দুবের ঘনিষ্ঠ এক সহযোগী তথা আত্মীয়কে গ্রেপ্তার করল উত্তরপ্রদেশ পুলিস। ধৃতের নাম শশীকান্ত ওরফে সোনু পাণ্ডে। তাকে জেরা করে এনকাউন্টারের দিন পুলিসের ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: হাসপাতালের দরজায় দরজায় ঘুরে প্রায় বিনা চিকিৎসায় তরতাজা ছেলেকে হারানো বাবা-মা অবশেষে ন্যায়ের প্রতীক আদালতের দরজায় মাথা কুটে সামান্য হলেও বিচার পেলেন। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

পড়শির ঈর্ষায় অযথা হয়রানি। সন্তানের বিদ্যা নিয়ে চিন্তা। মামলা-মোকদ্দমা এড়িয়ে চলা প্রয়োজন। প্রেমে বাধা।প্রতিকার: একটি ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮২০: সাহিত্যিক অক্ষয়কুমার দত্তের জন্ম
১৯০৩: রাজনীতিক কে কামরাজের জন্ম
১৯০৪: রুশ লেখক আস্তন চেকভের মৃত্যু
১৯৫৪: আর্জেন্তিনার ফুটবলার মারিও কেম্পেসের জন্ম  



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৪.৪৬ টাকা ৭৬.১৭ টাকা
পাউন্ড ৯২.৯৩ টাকা ৯৬.২০ টাকা
ইউরো ৮৩.৮৮ টাকা ৮৬.৯৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৯, ৭৭০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৭, ২২০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৭, ৯৩০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৫১, ৯০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৫২, ০০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৩১ আষাঢ় ১৪২৭, ১৫ জুলাই ২০২০, বুধবার, দশমী ৪৩/৯ রাত্রি ১০/২০। ভরণী ২৯/৭ অপঃ ৪/৪৩। সূর্যোদয় ৫/৪/৪২, সূর্যাস্ত ৬/২০/১৪। অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৩ গতে ১১/১৫ মধ্যে পুনঃ ১/৫৫ গতে ৫/২৭ মধ্যে। রাত্রি ৯/৫৫ মধ্যে পুনঃ ১২/৪ গতে ১/৩০ মধ্যে। বারবেলা ৮/২৩ গতে ১০/৩ মধ্যে পুনঃ ১১/৪২ গতে ১/২১ মধ্যে। কালরাত্রি ২/২৩ গতে ৩/৪৪ মধ্যে।  
৩০ আষাঢ় ১৪২৭, ১৫ জুলাই ২০২০, বুধবার, দশমী রাত্রি ৮/৪৩। ভরণী নক্ষত্র অপরাহ্ন ৪/৭। সূযোদয় ৫/৪, সূর্যাস্ত ৬/২৩। অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৩ গতে ১১/১৬ মধ্যে ও ১/৫৬ গতে ৫/২৮ মধ্যে এবং রাত্রি ৯/৫৬ মধ্যে ও ১২/৪ গতে ১/৩০ মধ্যে। কালবেলা ৮/২৪ গতে ১০/৪ মধ্যে ও ১১/৪৩ গতে ১/২৩ মধ্যে। কালরাত্রি ২/২৪ গতে ৩/৪৪ মধ্যে।
২৩ জেল্কদ  

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
মাধ্যমিকে ষষ্ঠ অশোকনগরের অস্মি চৌধুরি চিকিৎসক হতে চায় 
মাধ্যমিকে রাজ্যে ষষ্ঠ স্থান অধিকার করেছে অশোকনগর বাণীপিঠ ...বিশদ

01:46:07 PM

বিহারে রাজভবনের ২০ জন কর্মী করোনায় আক্রান্ত 

01:36:04 PM

মাধ্যমিকে সপ্তম চন্দননগরের সুহা ঘোষ ভবিষ্যতে বিজ্ঞানের শিক্ষক হতে চায় 

01:35:35 PM

৭০১ পয়েন্ট উঠল সেনসেক্স

01:32:50 PM

মাধ্যমিকে দশম জুনায়েদ হাসান চিকিৎসক হতে চায় 

01:29:42 PM

ময়নাগুড়িতে  ব্যারিকেড করে বিজেপির মিছিল আটকাল পুলিস 

01:27:50 PM