Bartaman Patrika
সম্পাদকীয়
 

বিরাট যুদ্ধজয়ের লক্ষ্যে ভারত

যক্ষ্মা একটি অত্যন্ত পুরনো রোগ। মানুষের নানা অঙ্গ প্রত্যঙ্গে এই রোগ বাসা বাঁধতে সক্ষম। তবে সবচেয়ে বেশি আক্রমণের শিকার হয় ফুসফুস। যক্ষ্মার জীবাণু যে-প্রত্যঙ্গে বাসা বাঁধে তাকে কুরে কুরে খেয়ে ফেলে। অর্থাৎ ওই প্রত্যঙ্গের ক্ষয়সাধন করে। তাই এটি ক্ষয়রোগ নামেও চিহ্নিত হয়। সপ্তদশ শতকে নেদারল্যান্ডসের এক মৃত ব্যক্তির ফুসফুসে গোটা আকৃতির ক্ষত দেখা যায়। তৎকালীন চিকিৎসকসমাজ নাম দেন টিউবারসেল। ১৮৩৯ সাল। বিজ্ঞানী জোহান শনলেইন রোগটির নামকরণ করেন টিউবারকিউলোসিস। ১৮৮২ সাল। জার্মান বিজ্ঞানী রবার্ট কচ এই রোগের জীবাণুটিকে চিহ্নিত করেন। তখন ইউরোপ আমেরিকায় যক্ষ্মা বস্তুত মহামারী। আক্রান্ত প্রতি সাতজনের মধ্যে একজন মারা যাচ্ছিল। ভালো চিকিৎসা ছিল না। তার উপর রোগীকে অত্যন্ত দামি পথ্য খাওয়ানোর বিধান দেওয়া হতো, হাওয়া বদলেরও পরামর্শ দিতেন ডাক্তাররা, যা মধ্যবিত্তেরও সাধ্যের বাইরে ছিল। সব মিলিয়ে যক্ষ্মার চিকিৎসা ছিল রাজকীয় ব্যাপার। তাই রাজরোগও বলা হতো। যক্ষ্মায় শুধু গরিব মানুষ মরেনি, অনেক পরিচিত সম্ভ্রান্ত পরিবারের মানুষও মরেছে। যক্ষ্মার বিভীষিকার কথা ছড়িয়ে রয়েছে আমাদের বাংলাসাহিত্যে এবং চিকিৎসার ইতিহাসে।
যক্ষ্মার জীবাণু আবিষ্কার ছিল একটি যুগান্তকারী সাফল্য। তার ভিত্তিতেই একে একে আবিষ্কার হয়েছে টিকা, ইঞ্জেকশন এবং খাবার ওষুধ। কম সময়ের এবং অত্যন্ত কার্যকরী ‘ডটস’ চিকিৎসা পদ্ধতিও এসেছে। টিবির মধ্যে ভয়ঙ্কর হল মাল্টি ড্রাগ রেজিস্ট্যান্ট (এমডিআর)। মানে কোনও কোনও টিবি রোগীর ক্ষেত্রে একাধিক ওষুধ কাজই করে না। ফলে তাদের সারিয়ে তোলা যায় না। এখনকার ওষুধ এই ধরনের জটিল টিবিকে পরাস্ত করতে পারছে। তা সত্ত্বেও ১৮৮২-২০১৭ পর্যন্ত হিসাবটি অত্যন্ত উদ্বেগজনক। এই সময়ের ভিতরে সারা পৃথিবীতে ২০ কোটির বেশি মানুষের মৃত্যুর কারণ টিবি। টিবির জীবাণু আবিষ্কারের দিনটি ছিল ২৪ মার্চ। দিনটিকে মহিমান্বিত করে রাখার উদ্দেশ্যে ‘বিশ্ব যক্ষ্মা দিবস’ পালন করা হয়। কয়েক দশক যাবৎ ভারতেও যক্ষ্মার বিরুদ্ধে লাগাতার যুদ্ধ জারি আছে। তারপরেও কিন্তু আমাদের অস্বস্তি রয়ে গিয়েছে। বুধবার নয়াদিল্লিতে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন জানান, ভারতের ৩৫ শতাংশ মানুষের শরীরে টিবির জীবাণু রয়েছে। তার মধ্যে ১০ শতাংশ শেষমেশ এই রোগের শিকার হয়ে পড়ে! পশ্চিমবঙ্গের মতো একটি অগ্রণী রাজ্যেও চিহ্নিত টিবি রোগীর সংখ্যা লক্ষাধিক!
তার মধ্যেও সুখের কথা জানিয়েছে ‘ইন্ডিয়া টিবি রিপোর্ট ২০১৯’: ২০১৭ সালের চেয়ে ১৬ শতাংশ বেশি রোগীর নাম ২০১৮-তে হাসপাতালে নথিভুক্ত হয়েছে। অর্থাৎ মানুষের মধ্যে সচেতনা বেড়েছে বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে। ২০১০-এর সাপেক্ষে ২০১৮-য় টিবিতে মৃত্যুর হার ৮২ শতাংশ কমেছে। এই সাফল্যকে আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে ভারতকে ২০২৫ সালের মধ্যে যক্ষ্মামুক্ত করার অঙ্গীকার করেছে সরকার। যেখানে ২০৩০ সালের ভিতর বিশ্বকে যক্ষ্মামুক্ত করার লক্ষ্যমাত্রা ধার্য হয়েছে সেখানে সরকারের এই দৃঢ় দৃপ্ত ঘোষণায় দেশবাসী নিঃসন্দেহে খুশি। তবে, মনে রাখতে হবে এই ব্যাপারে দেশবাসীর সহযোগিতাও সমান কাম্য। রোগটি লুকোলেই সর্বনাশ! রোগলক্ষণ বুঝতে পারা মাত্রই উপযুক্ত চিকিৎসকের কাছে যাওয়া কর্তব্য। নির্দিষ্ট টেস্ট এবং পরামর্শমতো ওষুধ খাওয়া দরকার। এই ওষুধ খাওয়ায় কোনোরকম ছেদ পড়া ঠিক নয়। যতদিনের কোর্স ঠিক ততদিন এবং কোনোরকম গাফিলতি ছাড়াই খাওয়া দরকার। অন্যথায় রোগটি সারতে দেরি হয় কিংবা চাপা পড়ে যায়। তার থেকে অন্যরা সংক্রামিত হতে পারে। টিবি রোগীকে নিয়ে অনাবশ্যক ভয় পাওয়ারও কিছু নেই। চিকিৎসা শুরু হয়ে যাওয়ার পর সংশ্লিষ্ট রোগীর থেকে সংক্রমণের কোনও ভয় থাকে না। সুতরাং সবধরনের সচেতনতাই জরুরি। সরকারি তথ্য বলছে, ২৫ শতাংশ মানুষ বেসরকারি চিকিৎসা কেন্দ্রে চিকিৎসা নেয়। কেন্দ্র তাদেরও চিকিৎসা খরচ বহনের কথা ঘোষণা করেছে। যাবতীয় ওষুধ তো দেবেই, ওইসঙ্গে উপযুক্ত পথ্য গ্রহণের জন্য তাদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে প্রতিমাসে দেবে ৫০০ টাকা। দেখতে হবে—সরকারের এই ঘোষণা যেন কেবল কাগজে কলমে সীমাবদ্ধ না-থাকে; এনিয়ে কোনও রাজনীতিও না-হয় কোথাও। ঘোষণা অনুযায়ী কর্মসূচিটি এগলে ভারত সত্যিই এক বিরাট বিপদ থেকে মুক্ত হবে। এই জয় যে-কোনও যুদ্ধজয়ের থেকেও মহৎ হিসেবে চিহ্নিত হয়ে থাকবে চিকিৎসাবিজ্ঞানের ইতিহাসে।
27th  September, 2019
লক্ষ্য যখন মাছে স্বনির্ভর হওয়া

 বামফ্রন্ট সরকারের সাফল্যের বড়াই করতে গিয়ে জ্যোতি বসু থেকে বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য ৩৪ বছর যাবৎ বস্তুত একটাই রেকর্ড বাজাতেন: বামফ্রন্ট আমলেই বাংলা ঘুরে দাঁড়িয়েছে। কংগ্রেস জমানার সমস্ত কালিমা মুছে বাংলা তর তর করে এগচ্ছে।
বিশদ

দাম্পত্য কলহের দায় আর কত দিন বইবে অবোধ শিশুরা 

যে কোনও মৃত্যুই মর্মান্তিক। আর সেই মৃত্যু অস্বাভাবিক বা অসময়ে হলে বেদনার মাত্রা বেড়ে যায় বহুগুণ। দাম্পত্য কলহের জেরে এমন অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনা ঘটেই চলেছে। কখনও কখনও সেই মৃত্যুর ঘটনার সঙ্গে জড়িয়ে যায় শিশু সন্তানরা। জীবন সম্পর্কে কোনও বোধ তৈরি হওয়ার আগেই তাদেরও কাউকে কাউকে চলে যেতে হয় পৃথিবী ছেড়ে। 
বিশদ

28th  February, 2020
শান্তি ফেরাতেই হবে 

দেশের মানুষ শান্তিতে বসবাস করতে চায়। চায় নিরাপত্তা। স্বাধীন এই দেশের নাগরিকদের সেই নিরাপত্তা দেওয়ার দায়িত্ব দেশের সরকারের, প্রশাসনের। কিন্তু মানুষের সেই নিরাপত্তাটাই এখন প্রশ্নের মুখে।   বিশদ

27th  February, 2020
মানবিক পুলিস 

যত দোষ, নন্দ ঘোষ—পুলিস সম্বন্ধে এই অপবাদ ঘুচিয়ে মানবিকতার এবং মানুষকে সাহায্যের লম্বা হাত বাড়িয়ে এক অনন্য নজির সৃষ্টি করছেন আমাদের চারপাশে থাকা কোনও কোনও উর্দিধারী।  বিশদ

26th  February, 2020
  আয়কর আদায়ে লক্ষ্য স্থির হোক

 দেশীয় বাজারে কালো টাকার রমরমা আটকাতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ২০১৬ সালের নভেম্বর মাসে নোট বাতিলের ঘোষণা করে হইচই ফেলে দিয়েছিলেন। ঠিক এর পরই ব্যাঙ্কে পুরনো ৫০০ এবং হাজার টাকার নোট জমা দেওয়ার জন্য হুড়োহুড়ি পড়ে গিয়েছিল। বিশদ

25th  February, 2020
বেদান্তের ব্যবহারিক দিক 

কতক মানুষ মনে করে, বেদান্ত পুরোপুরিই একটি তাত্ত্বিক শাস্ত্র, কল্পনাভিত্তিক ও বাস্তব জীবনে ব্যবহারযোগ্য নয়। এধরনের চিন্তা-ভাবনা সত্যের বিপরীত। জগতে যতরকম ‘দর্শন’ আছে, তার মধ্যে বেদান্তই সবচেয়ে বেশী ব্যবহারযোগ্য। 
বিশদ

24th  February, 2020
শুরু ভারত-মার্কিন দর কষাকষি

২৪ ফেব্রুয়ারি ভারতে আসছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। টেক্সাসে হাউডি মোদির মতোই তাঁর জন্য ‘নমস্তে ট্রাম্প’ অনুষ্ঠান হবে আমেদাবাদে। রেওয়াজ অনুযায়ী, বিদেশি রাষ্ট্রনেতাদের ভারত সফর কার্যত ছিল নয়াদিল্লি সফর। প্রশ্ন উঠেছে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট শুধুমাত্র গুজরাতে কেন? তিনি আমেদাবাদে থাকছেন মোট তিন ঘণ্টা। খরচ কত?  
বিশদ

24th  February, 2020
যেতে হবে সমস্যার শিকড়ে 

অবশেষে গ্রেপ্তার করা হল পোলবার দুর্ঘটনার পুলকার মালিককে। একাধিক ধারায় তাঁর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। পাশাপাশি আদালতের অনুমতি মতো চারদিনের জন্য ওই ব্যক্তিকে নিজেদের হেফাজতেও নিয়েছে পুলিস। অর্থাৎ আইনের দিক থেকে দেখতে গেলে তদন্ত প্রক্রিয়া অনেক দূর এগিয়ে গিয়েছে।
বিশদ

23rd  February, 2020
মমতার অধিকার দাবি 

দিল্লির রাজনীতি-বেনিয়াদের কাছে পশ্চিমবঙ্গ চিরকালই ব্রাত্য। শিক্ষার অগ্রগতিতে বঙ্গ পথপ্রদর্শক হলেও পাশ্চাত্য শিক্ষায় ‘সভ্য’ হয়ে ওঠা হিন্দিবলয়ের অধিকাংশ সংখ্যাগুরু চিরকালই বাঙালিকে পিছনে ঠেলে রাখার চেষ্টা করে গিয়েছে। সে স্বাধীনতার আগেও, পরে তো বটেই।  
বিশদ

22nd  February, 2020
ডোনাল্ড ট্রাম্পের চোখে ভারত খারাপ হলেও নরেন্দ্র মোদি ভালো

ভালো আচরণই তো করে না ভারত। এই কথাটি যদি প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তানের কোনও শীর্ষনেতা বলতেন, তাহলে তেমন গুরুত্ব থাকত না। কিন্তু, কথাটি বলেছেন স্বয়ং ডোনাল্ড ট্রাম্প। আমেরিকার প্রেসিডেন্ট। বিশ্বজুড়ে ‘দাদাগিরি’তে যিনি ইতিমধ্যেই যথেষ্ট খ্যাতি অর্জন করেছেন।
বিশদ

21st  February, 2020
বাসযোগ্য পৃথিবীর সাধনা

মানুষ নিজেকে এই গ্রহের সর্বশ্রেষ্ঠ জীব বলে আত্মশ্লাঘা অনুভব করে। আর এই অহঙ্কার থেকেই মানুষের মধ্যে ধারণা তৈরি হয়ে গিয়েছে যে, পৃথিবীর যাবতীয় সম্পদের উপরে শুধু তারই অধিকার। মাটি জল পাহাড় মরুভূমি বনজঙ্গল সবই মানুষের অধীন। স্বভাবতই মানুষের অধীন এই সমস্ত অঞ্চলে যত প্রাণী আছে, তারাও।
বিশদ

20th  February, 2020
প্রতিরক্ষার উচ্চপদে নারীশক্তি

 প্রায় এক দশকের লড়াইয়ের পর জয় হল নারীশক্তির। সেনা বাহিনীতে মহিলা অফিসারদের স্থায়ীভাবে নিয়োগের ব্যবস্থা কার্যকর করার প্রশ্নে দেশের শীর্ষ আদালতের ঐতিহাসিক রায়ে দীর্ঘদিনের বঞ্চনার যেমন অবসান ঘটল তেমনি প্রতিষ্ঠিত হল মহিলাদের সমানাধিকার। বিশদ

19th  February, 2020
রাজ্যের উপর এত গোঁসা কেন? 

ব্যাপারটা বোঝা গিয়েছিল আগেই। কিন্তু তখনও ধারণাটা প্রতিষ্ঠিত হয়নি। পরপর কয়েকটি রিপোর্ট পাওয়ার পর রোগ ধরা পড়ল। অবশ্য এ রোগ সে রোগ নয়। এই রোগটা হল, মোদিজি এবং অমিত শাহজি কেন্দ্রে যতই চুটিয়ে ব্যাটিং করুন কেন, রাজ্যস্তরের খেলায় তাঁরা বলে বলে বোল্ড আউট হচ্ছেন।   বিশদ

18th  February, 2020
নতুন করে ভাবতে হবে বিজেপিকে 

মাত্র ন’মাস আগে লোকসভা ভোটে দিল্লির ৬৫ থেকে ৭০টি বিধানসভা আসনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছিল বিজেপি। যেখান থেকে কেন্দ্রীয় সরকার পরিচালিত হয় এবং গত ১২ বছর ধরে যেখানে পুরসভা বিজেপির দখলে।
বিশদ

17th  February, 2020
লাভ-লোকসানের রাজনীতি 

পুলওয়ামা হামলার প্রথম বর্ষপূর্তিতে রাহুল গান্ধী একটি প্রশ্ন তুলেছেন—ওই নাশকতায় কার লাভ হয়েছিল? উত্তর দিতে পারলে কোনও পুরস্কার নেই। আট থেকে আশি সকলেই বুঝবেন, কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতির নিশানায় এক এবং একমাত্র প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। 
বিশদ

16th  February, 2020
সভ্য ভারতে বহাল অসভ্য প্রথা

ভারত পৃথিবীর অন্যতম প্রাচীন এক সভ্য দেশ। ভারত শুধু প্রাচীন সভ্য দেশই নয়, দেশটি স্বাধীন ও সার্বভৌম। পৃথিবীর বৃহত্তম গণতন্ত্রও ভারত। স্বামী বিবেকানন্দ, রবীন্দ্রনাথ, মহাত্মা গান্ধীর ভারত অস্পৃশ্যতাকে অপরাধ মনে করে এবং সাম্যের নীতিতে আস্থা রাখে।
বিশদ

15th  February, 2020
একনজরে
 কৌশিক ঘোষ, কলকাতা: আধার সংযুক্তিকরণ সহ রেশন ব্যবস্থার সংস্কারে রাজ্য সরকারের কাজের প্রশংসা করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে অভিনন্দন জানালেন কেন্দ্রীয় খাদ্য ও সরবরাহ মন্ত্রী রামবিলাস পাসোয়ান। ...

সুকান্ত বেরা  কলকাতা: ইডেনের ঘড়িতে তখন দুপুর ১২টা বেজে ২০ মিনিট। প্র্যাকটিস শেষে বাংলার কোচ অরুণ লাল ও ক্যাপ্টেন অভিমন্যু ঈশ্বরণ যখন সাংবাদিক সম্মেলন ...

 নয়াদিল্লি, ২৮ ফেব্রুয়ারি (পিটিআই): সীমান্তের ওপারে থাকা পরিকাঠামো জঙ্গিরা খোলা ময়দান হিসেবে ব্যবহার করতে পারবে না। বালাকোটে প্রত্যাঘাত চালিয়ে জঙ্গিদের সেই বার্তা দিয়েছে ভারতীয় বায়ুসেনা। ...

সংবাদদাতা, ইসলামপুর: জোর নেই সংগঠনের। ইসলামপুর পুরসভার বিরুদ্ধে স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্ব তাই এখনও পর্যন্ত কোনও আন্দোলনই সংগঠিত করতে পারল না। এদিকে দোরগোড়ায় পুরভোট।   ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যায় মাঝেমধ্যে উদ্বেগ দেখা দেবে। প্রেম-প্রণয়ে শুভাশুভ মিশ্র, মাঝেমধ্যে মতান্তর ঘটবে। বুঝেশুনে চলা দরকার। কর্মে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৪৬৮ - পোপ দ্বিতীয় পলের জন্ম
১৭১২ - সুইডেনে ২৯ ফেব্রুয়ারির পর ৩০ ফেব্রুয়ারি পালনের সিদ্বান্ত হয়। এর কারণ তারা আগের নিয়মে ফিরতে চেয়েছিল।
১৮৯৬ - ভারতের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মোরারজি দেসাইয়ের জন্ম





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭১.২৯ টাকা ৭৩.০০ টাকা
পাউন্ড ৯১.৩৬ টাকা ৯৪.৬৮ টাকা
ইউরো ৭৭.৮৮ টাকা ৮০.৮৮ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪২,৯৬৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪০,৭৬৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪১,৩৮০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৫,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৫,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১৬ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, শনিবার, (ফাল্গুন শুক্লপক্ষ)পঞ্চমী। ভরণী অহোরাত্র ৭/৪৮ দিবা ৯/১০। সূ উ ৬/২/৩৭, অ ৫/৩৫/৫৭, অমৃতযোগ দিবা ৯/৫৩ গতে ১২/৫৮ মধ্যে। রাত্রি ৮/৫ গতে ১০/৩৪ মধ্যে পুনঃ ১২/১৩ গতে ১/৫৩ মধ্যে পুনঃ ২/৪৩ গতে ৪/২২ মধ্যে। বারবেলা ৭/৩০ মধ্যে পুনঃ ১/১৬ গতে ২/৪২ মধ্যে পুনঃ ৪/৮ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ৭/৯ মধ্যে পুনঃ ৪/২৯ গতে উদয়াবধি।
১৬ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, শনিবার, ষষ্ঠী, ভরণী ৫৩/২৫/৩২ রাত্রি ৩/২৭/৪৩। সূ উ ৬/৫/৩০, অ ৫/৩৫/১১। অমৃতযোগ দিবা ৯/৪৯ গতে ১২/৫৭ মধ্যে এবং রাত্রি ৮/৬ গতে ১০/৩৩ মধ্যে ও ১২/১১ গতে ১/৪৯ মধ্যে ও ২/৩৮ গতে ৪/১৭ মধ্যে। কালবেলা ৭/৩১/৪৩ মধ্যে ও ৪/৮/৫৯ গতে ৫/৩৫/১১ মধ্যে। কালরাত্রি ৭/৮/৫৮ মধ্যে ও ৪/৩১/৪২ গতে ৬/৪/৩৭ মধ্যে।
৪ রজব

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
মধ্যাহ্নভোজে নবীন পট্টনায়কের বাড়িতে অমিত-মমতা-নীতিশরা 
ইস্টার্ন জোনাল কাউন্সিলের বৈঠক শেষে মধ্যাহ্নভোজে ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়কের ...বিশদ

28-02-2020 - 03:51:00 PM

১৫০২ পয়েন্ট পড়ল সেনসেক্স 

28-02-2020 - 03:13:22 PM

দিল্লি হিংসায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪২ 

28-02-2020 - 03:09:23 PM

১৪৫৩ পয়েন্ট পড়ল সেনসেক্স

28-02-2020 - 03:04:02 PM

হলদিয়ায় এসপি অফিস ঘেরাও বিজেপির 
হলদিয়ায় মা ও মেয়েকে পুড়িয়ে মারার প্রতিবাদে লকেট চট্টোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে ...বিশদ

28-02-2020 - 03:04:00 PM

নবি মুম্বইতে নাবালিকা ছাত্রীর শ্লীলতাহানির অভিযোগে গ্রেপ্তার শিক্ষক 

28-02-2020 - 02:19:40 PM