Bartaman Patrika
সম্পাদকীয়
 

অর্থনীতি বড় চ্যালেঞ্জের মুখে

গাড়ি শিল্পে ‘রক্তক্ষরণ’ অব্যাহত। নাগাড়ে গাড়ি বিক্রি কমছে। কোপ পড়ছে কাজে। গাড়ি শিল্পে ইতিমধ্যে ৩.৫ লক্ষ কাজ খুইয়েছে। এই অবস্থায় শিল্প মহলের হুঁশিয়ারি, অবস্থার উন্নতি না-হলে আরও কর্মী চাকরি হারাবেন। দেশে গাড়ি শিল্পের বৃদ্ধির ছবিটা প্রায় মুছে যাওয়ার মুখে। বাধ্য হয়ে উত্তর ভারতে মানেসর ও গুরুগ্রামের কারখানা দুটি দু’দিন বন্ধ রাখার কথা জানিয়েছে মারুতি-সুজুকি। দেশের যাত্রিবাহী গাড়ি বাজারের অর্ধেকই যাদের দখলে। বিক্রি কমায় সাত মাস ধরে তারা উৎপাদন ছাঁটাই করে চলেছে। আগস্টে তাদের উৎপাদন কমেছে প্রায় ৩৪ শতাংশ। টাটা মোটরস জামশেদপুরের বাণিজ্যিক গাড়ির কারখানাটি আগস্টে কিছু দিন বন্ধ রাখে। হন্ডা, মহিন্দ্রা অ্যান্ড মহিন্দ্রা, টয়োটা কির্লোস্কার মোটরস, হুন্ডাই, হিরো মোটো কর্প, টিভিএসের মতো অনেক সংস্থাই কয়েক দিন হয় সম্পূর্ণ, না-হয় আংশিক উৎপাদন বন্ধ রেখেছে। গাড়ি শিল্পে এই মন্দার বিরূপ প্রভাব স্বাভাবিকভাবেই পড়ছে যন্ত্রাংশ শিল্পেও। মনে রাখবেন, উৎপাদনমুখী শিল্পে গাড়ি শিল্পের অংশীদারি ৪৯ শতাংশ। মোট কর্মসংস্থানের ৮ শতাংশের উৎস এই শিল্প। শিল্পোৎপাদন ক্ষেত্রে গত ১৫ মাসের হিসেব অনুযায়ী ধীরতম বৃদ্ধি ঘটেছে গত আগস্ট মাসেই। গত ত্রৈমাসিকে বার্ষিক বৃদ্ধির হার দাঁড়িয়েছে মাত্র ৫ শতাংশ, যা গত গত ৬ বছরেরও বেশি সময়ের মধ্যে ধীরতম। এসবের জেরে টান পড়েছে ইস্পাতের চাহিদাতেও। টাটা স্টিলের শীর্ষ কর্তা সম্প্রতি তাঁদের বিভিন্ন প্রকল্পে লগ্নি ছাঁটাই ও বিদেশে কিছু শাখা সংস্থা বন্ধের কথা বলেছেন। একইসঙ্গে মার খাচ্ছে ফ্ল্যাট-বাড়ির বিক্রিবাটাও। আর এই ঝিমিয়ে থাকা চাহিদার ধাক্কা এসে পড়েছে রং শিল্পের গায়ে। হিসেব বলছে, গাড়ি শিল্পে রঙের চাহিদা কমেছে প্রায় ১৫ শতাংশ। বিক্রি ফিকে হয়েছে আবাসনের প্রয়োজন মেটানোর ক্ষেত্রেও। রং সংস্থাগুলির আশঙ্কা, অর্থনীতির শ্লথ গতি বহাল থাকলে সার্বিকভাবে চাহিদা আরও কমতে পারে। ফলে, এই মুহূর্তে ব্যবসা হারানোর ভয়ে কার্যত কাঁটা তারা। চাহিদায় ভাটার টান তো চলছিলই, সেইসঙ্গে সঞ্চয়েও মন্দা প্রকট হচ্ছে। সার্বিকভাবে অর্থনীতির ঝিমিয়ে পড়ার কারণ খুঁজতে অর্থ মন্ত্রকে আলোচনা চলছে। সরকারি সূত্রের খবর, সেখানেও ঝিমুনির অন্যতম কারণ হিসেবে সঞ্চয়ের হার কমে যাওয়ার বিষয়টি উঠে আসছে। নতুন লগ্নি ও রপ্তানি—দু’দিকেই ভাটার টান। সরকারি খরচ বিশেষ বাড়ছে না। বাজারে কেনাকাটাই ছিল ভরসা। এবার তাও কমে গিয়েছে। অর্থনীতিবিদরা বলছেন, একটা সময় লোকে টাকা জমিয়ে তবে দামি জিনিসপত্র কিনত। তারপর সহজে ঋণ মিলতে শুরু করল। ফলে, বাড়ল ধার করে জিনিস কেনার প্রবণতা। টাকা শোধ হত ইএমআই-তে। ইদানীং আয় তেমন বাড়ছে না। ভবিষ্যতে বাড়বে কি না তাও অনিশ্চিত। ফলে ধারে কেনার প্রবণতা কমেছে। ও-দিকে পুরনো ধার মেটাতে আয়ের অনেকখানি খরচ হয়ে যাচ্ছে বলে সঞ্চয়ও কমছে। সব মিলিয়ে দেশের অর্থনীতির স্বাস্থ্য যে খারাপ হচ্ছে, তা তুলে ধরছে বিভিন্ন পরিসংখ্যান। আর যত তা স্পষ্ট হচ্ছে, ততই যেন ভোঁতা হচ্ছে অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে কেন্দ্র ঘোষিত পদক্ষেপগুলির ধার।
এদিকে সর্বকালীন রেকর্ড গড়ল সোনার দাম। জিএসটি যোগ করে রাজ্যে প্রতি ১০ গ্রাম ২৪ ক্যারাট পাকা সোনা ছাড়িয়েছে ৪০ হাজার টাকা। বিশেষজ্ঞদের দাবি, এর কারণ একদিকে, বিশ্ব বাজারে সোনার দাম বাড়ায় আমদানির খরচ বৃদ্ধি। অন্যদিকে, দেশে আমদানি শুল্ক ও জিএসটির চড়া হার। অর্থনীতিবিদদের আশঙ্কা, আগামী দিনে আমদানি আরও কমলে হলুদ ধাতু আরও দামি হতে পারে। সোনার দাম এতটা বাড়ায় মাথায় হাত গয়নার কারিগরদেরও। গয়নার চাহিদা কমেছে। এতটাই যে, তাঁদের বরাত প্রায় তলানিতে। কারিগরদের বাঁধা মাইনে নেই। প্রতিটি গয়না তৈরির জন্য মজুরি পান তাঁরা। ফলে কোপ পড়ছে অনেকের রুটি-রুজিতে। কোথায় যাবে দেশের আম জনতা? উত্তর নেই। অর্থনীতির আকাশে মন্দা ঘনাচ্ছে বলে তোপ দাগছেন বিরোধীরা। তবু সঙ্কটের কথা কবুল করেনি সরকার। তবে দফায় দফায় গাড়ি, ব্যাঙ্ক-সহ বিভিন্ন শিল্পকে চাঙ্গার পদক্ষেপ করে অর্থমন্ত্রী বুঝিয়ে দিচ্ছেন অবস্থা বেগতিক। আশ্বাস দিচ্ছেন সব সমস্যা সমাধানেরও। বিশেষজ্ঞদের দাবি, শুধু ভারত নয়, পুরো বিশ্বই ভুগছে আর্থিক অনটনে। ঘরে চাহিদার অভাব, বাইরে চীন-মার্কিন শুল্ক যুদ্ধ। ভারত ছাড়া, অন্যান্য দেশেও উৎপাদন শিল্পের গতি শ্লথ হওয়ার ইঙ্গিত মিলেছে বিভিন্ন সমীক্ষায়। ব্রেক্সিট নিয়ে অনিশ্চয়তা ও বিশ্ব অর্থনীতির গতি শ্লথ হওয়ায় গত সাত বছরে উৎপাদন শিল্প সবচেয়ে দ্রুত হারে সঙ্কোচনের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে ব্রিটেনে। উৎপাদন সরাসরি কমার ইঙ্গিত জার্মানিতে। বাণিজ্য-যুদ্ধের ধাক্কা লেগেছে ইউরোপীয় ইউনিয়নের উৎপাদন শিল্পেও। অন্য একটি সমীক্ষা বলেছে, চীনে কারখানায় উৎপাদন কমার কথাও। তাহলে কি ফের বিশ্বমন্দার থাবায় গোটা দুনিয়া? আশঙ্কা বাড়ছেই।
09th  September, 2019
অর্থনীতি: স্বস্তি এখনও দূরে

গত সেপ্টেম্বর থেকে সারা ভারতে আর্থিক লেনদেনের পরিমাণ বৃদ্ধির প্রবণতা লক্ষণীয়। সেই ধারার প্রতিফলন দেখা গিয়েছে জিএসটি আদায়ে। অক্টোবর ও নভেম্বরের জিএসটি আদায়ের মোট পরিমাণ ১ লক্ষ কোটি টাকা ছাড়িয়ে গিয়েছে। বিশদ

বাংলার আশাব্যঞ্জক অবস্থান

নাড়ি টিপে রোগ নির্ণয়। একটা সময় ছিল যখন অভিজ্ঞ চিকিৎসকরা নাকি রোগীর নাড়ি ধরে বলে দিতে পারতেন তার কী রোগ হয়েছে। এভাবেই তাঁরা রোগীর শারীরিক ও মানসিক পরিস্থিতি বোঝার চেষ্টা করতেন। কারণ তখন এখনকার মতো নানারকম মেডিকেল টেস্ট করানোর সুযোগ সবার ছিল না। বিশদ

03rd  December, 2020
যে মর্যাদা নেতাজির অবশ্যপ্রাপ্য

নেতাজি সংক্রান্ত গোপন ফাইলপত্র প্রকাশ্যে আনবে ভারত সরকার। ১৪ অক্টোবর, ২০১৫ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এই ঘোষণা করে ভারতের রাজনীতিতে আলোড়ন ফেলে দিয়েছিলেন। ২০১৬ সালের ২৩ জানুয়ারি একশোটি গোপন ফাইল প্রকাশ করে বাহবা কুড়িয়েছিলেন তিনি। বিশদ

02nd  December, 2020
মন জয়ের চেষ্টা!

একটি শিশু যখন আধো আধো কথা বলতে শুরু করে তখন মিষ্টিই শোনায়। কিন্তু বড়বেলায় সেই আধো আধো কথা থেকে গেলে তা হয় হাস্যকর। কখনও মনে হয় বয়স কম দেখানোর অপচেষ্টা। বাংলাকে বঞ্চিত রেখে প্রধানমন্ত্রীর ভাঙা বাংলায় ভাষণ বা কবিতা পাঠের বঙ্গপ্রেম অনেকটা সেরকমই! বিশদ

01st  December, 2020
কৃষকদের সঙ্গে কথা বলুন মোদি

দু’মাসের বেশি হয়ে গেল মোদি সরকার বিতর্কিত কৃষি বিলগুলি পাশ করিয়ে নতুন আইনে পরিণত করেছে। সংসদে বিল উত্থাপনের শুরু থেকেই বিরোধিতা করেছিল সমস্ত বামপন্থী দল, অকালি দল, কংগ্রেস, তৃণমূল প্রভৃতি। বিজেপি-বিরোধী বেশিরভাগ দলই এই বিল তথা আইনের বিপক্ষে ছিল। বিশদ

30th  November, 2020
মন্দের ভালো

আমাদের দেশে বহু মানুষের কাছে এখনও শিক্ষার আলো পৌঁছয়নি। পণ্ডিতদের কাছে অর্থনীতিতে মন্দা, জিডিপি বৃদ্ধির হার ঋণাত্মক হওয়া ইত্যাদি বিষয় গুরুত্ব পেলেও আম জনতা এই বিষয়গুলি নিয়ে বিশেষ মাথা ঘামায় না। শিক্ষিত সমাজ বিষয়গুলির গুরুত্ব বুঝলেও দেশের সাধারণ মানুষ বিশেষত গরিব মানুষ অত শত বোঝে না। বিশদ

29th  November, 2020
স্বাস্থ্য বিপ্লব

দারিদ্র হল একটা দুষ্টচক্রের নিয়ন্তা। অশিক্ষা। তার থেকে অপুষ্টি। সেখান থেকে দুর্বল সমাজ। এই সমস্ত মন্দের কারণ হল দারিদ্র। অর্থাৎ একটা খারাপ থেকে আর একটা খারাপের মধ্য দিয়ে সমাজটাকে নিরন্তর টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে যায় দারিদ্র। দরিদ্র সমাজের আয়ের বেশিরভাগটা খাদ্যের পিছনে খরচ হয়ে যায়। বিশদ

28th  November, 2020
বোর্ডের পরীক্ষা: উচিত সিদ্ধান্ত

লড়াই এখনও অব্যাহত। যে চ্যালেঞ্জ করোনা ভাইরাস ছুঁড়ে দিয়েছে তার মোকাবিলা সমানতালে চলছে। ভারতে আটমাস পেরিয়ে গিয়েছে। তবু বিশেষজ্ঞরা, সরকার, সাধারণ মানুষ কেউই নিশ্চিত নয় এই সংগ্রাম কবে শেষ হবে। এ এমন এক যুদ্ধ যাতে জয়লাভের বিকল্প নেই। অতএব অনেক ভেবেচিন্তেই পদক্ষেপ করতে হচ্ছে। বিশদ

27th  November, 2020
কবে ভ্যাকসিন: ধোঁয়াশা রইল

একেই বলে চর্বিতচর্বণ। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি জানেনই না দেশে কবে থেকে করোনা ভ্যাকসিন দেওয়ার কাজ শুরু হবে বা তার ক’টি ডোজ। অথবা তার দাম কী! আর যদি জানেনও তাহলেও তিনি এব্যাপারে ভারতবাসীকে দিশা দেখাতে ব্যর্থ হলেন। বিশদ

26th  November, 2020
ভ্যাকসিন: ভীষণ স্বস্তির কথা

ইউনিক আইডেনটিফিকেশন আধার ইন্ডিয়া-র তরফে পশ্চিমবঙ্গের জন্য ২০২০ সালের মে মাসে প্রজেক্টেড পপুলেশন ছিল ৯ কোটি ৯৬ লক্ষের কিছু বেশি। সেই হিসেবে ভারতের চতুর্থ বৃহৎ জনসংখ্যার রাজ্য হল পশ্চিমবঙ্গ। অর্থাৎ ১০ কোটি জনসংখ্যার চাপ নিয়ে ২০২১ সালে প্রবেশ করতে চলেছে আমাদের রাজ্য। ভারত একটি গরিব দেশ। বিশদ

25th  November, 2020
এত দেরিতে বোধোদয়!

পরিযায়ী শব্দটার সঙ্গে আমরা অল্প বিস্তর পরিচিত। আমাদের মাতামাতি মূলত পরিযায়ী পাখিদের ঘিরে। শীতের সময়ে দূরদূরান্ত থেকে ঝাঁকে ঝাঁকে উড়ে আসা পরিযায়ী পাখি দেখার আকর্ষণ কম নয়। আর মানুষের ক্ষেত্রে? বিশদ

24th  November, 2020
জঙ্গিদের লক্ষ্য যদি ভ্যাকসিন 

করোনা মহামারী শতাব্দীর সবচেয়ে বড় বিপদ হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে। তবে সভ্য সমাজের এই চিন্তার উল্টো দিকে হেঁটে চলেছে জঙ্গি গোষ্ঠীগুলি। তারা এটাকে বরং এক দুর্লভ মওকা হিসেবে বেছে নিয়েছে। জঙ্গি গোষ্ঠীগুলি জানে, এই পরিস্থিতিতে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রগুলি মানুষকে বাঁচাতে নানাভাবে ব্যস্ত রয়েছে। বিশদ

23rd  November, 2020
মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা

করোনাকালে বহু মানুষেরই আয় কমেছে, অথচ বেড়েছে জিনিসপত্রের দাম। দু’মাস এক জায়গায় দাঁড়িয়ে থাকার পর ফের বাড়ল পেট্রল-ডিজেলের দাম। তাই আশঙ্কাও বাড়ল। এমনিতেই গরিব-মধ্যবিত্তের এখন নুন আনতে পান্তা ফুরানোর অবস্থা। মূল্যবৃদ্ধির আঁচে দগ্ধ আম জনতা। প্রায় সব খাদ্যপণ্যের দাম ঊর্ধ্বমুখী। বিশদ

22nd  November, 2020
জীববৈচিত্র রক্ষার দায়িত্ব মানুষের

জীববৈচিত্রের জন্য ভারত একটি উল্লেখযোগ্য দেশ। গোরু, মহিষ, ছাগল, কুকুর, বিড়াল, হাঁস, মুরগির মতো অল্প কিছু প্রাণী গৃহপালিত। কিন্তু এর বাইরে জলে, জঙ্গলে আছে আরও কয়েকশো প্রাণী। কিছু নিরীহ, কিছু হিংস্র। মানুষের সংস্রবের বাইরে, প্রাকৃতিক পরিবেশে যেসব প্রাণী রয়েছে ভারতে তাদের সংরক্ষণ করা হয় মূলত তিনভাবে। বিশদ

21st  November, 2020
শাঁখের করাত! 

শুধু আবেগ নয়, প্রশ্নটা অধিকারের। তথ্য জানার অধিকার। নেতাজি অন্তর্ধান রহস্যের প্রকৃত সত্যটা কী তা জানার অধিকার দেশবাসী, বিশেষ করে বাংলার মানুষের আছে। এ প্রসঙ্গে কেন্দ্রের হাতে কী তথ্য আছে তা জানতে আগ্রহী বঙ্গবাসী। নেতাজির বিষয়ে যাবতীয় তথ্য এবার অন্তত কেন্দ্র সামনে আনুক। 
বিশদ

20th  November, 2020
স্বাগত উন্নয়নের রাজনীতি 

নির্ঘণ্ট ঘোষণা শুধু বাকি। সে নিতান্তই আনুষ্ঠানিকতা। এটুকু উপেক্ষা করলে পশ্চিমবঙ্গে ভোটের ঢাকে কাঠি কিন্তু পড়ে গিয়েছে। কোভিড পরিস্থিতিতে ভোট গ্রহণ নিয়ে যে আশঙ্কা ছিল সেটাও দূর করে দিয়েছে বিহার। পাশের রাজ্যে সফল ভোট গ্রহণের পর নতুন সরকারও তৈরি হয়ে গিয়েছে।  
বিশদ

19th  November, 2020
একনজরে
নিজস্ব প্রতিনিধি, বর্ধমান: ভাঙা রাস্তায় মর্নিং ওয়াকে বেরিয়ে হোঁচট খাচ্ছেন বৃদ্ধ-বৃদ্ধারা। বাচ্চাদের নিয়ে অত্যন্ত সাবধানে যাতায়াত করতে হয়। বেহাল রাস্তায় গাড়ির গতি একটু বেশি হলেই রয়েছে দুর্ঘটনার সম্ভাবনা।  ...

অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ততম ফরম্যাটে ভালো ফল করাই এখন লক্ষ্য টিম ইন্ডিয়ার। একদিনের সিরিজের ব্যর্থতা থেকে শিক্ষা নিয়ে দলকে আরও শক্তপোক্ত করার চেষ্টা করবেন বলে ...

চীন সহ যে কোনও দেশের হুমকি মোকাবিলায় প্রস্তুত ভারতীয় নৌবাহিনী। বৃহস্পতিবার নৌসেনা দিবস উপলক্ষে এক সাংবাদিক বৈঠকে এমনটাই জানিয়েছেন ভারতীয় নৌবাহিনীর প্রধান অ্যাডমিরাল করমবীর সিং। ...

রাজ্য সরকারি কর্মীদের বিজেপি প্রভাবিত সংগঠনের গোষ্ঠী  লড়াই আরও তীব্র হল। বুধবার সরকারি কর্মচারী পরিষদের তরফে সাংবাদিক বৈঠক করে নতুন কমিটি গড়ার কথা ঘোষণা করা হয়। একইসঙ্গে সংগঠনের নেতারা জানিয়ে দেন, এতদিন  যে জেলা কমিটিগুলি ছিল তা  ভেঙে দেওয়া হল। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

অতি সত্যকথনের জন্য শত্রু বৃদ্ধি। বিদেশে গবেষণা বা কাজকর্মের সুযোগ হতে পারে। সপরিবারে দূরভ্রমণের যোগ। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

ভারতীয় নৌ দিবস
১১৩১- পারস্যের কবি ও দার্শনিক ওমর খৈয়ামের মৃত্যু
১৮২৯- সতীদাহ প্রথা রদ করলেন লর্ড বেন্টিঙ্ক
১৮৮৪- ঐতিহাসিক রমেশচন্দ্র মজুমদারের জন্ম
১৯১০- ভারতের ষষ্ঠ রাষ্ট্রপতি আর বেঙ্কটরামনের জন্ম
১৯২৪- মুম্বইয়ে গেটওয়ে অব ইন্ডিয়ার উদ্বোধন হল
১৯৭৭- ক্রিকেটার অজিত আগরকরের জন্ম  



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭২.৯৯ টাকা ৭৪.৭০ টাকা
পাউন্ড ৯৭.১৫ টাকা ১০০.৫৫ টাকা
ইউরো ৮৭.৯২ টাকা ৯১.১০ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৫০, ০৬০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৭, ৫০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৮, ২১০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬৩, ৬০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬৩, ৭০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১৮ অগ্রহায়ণ, ১৪২৭, শুক্রবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২০, চতুর্থী ৩৪/৫৫ রাত্রি ৮/৪। পুনর্বসু নক্ষত্র ১৮/৫২ দিবা ১/৩৯। সূর্যোদয় ৬/৬/৩, সূর্যাস্ত ৪/৪৭/৩৯। অমৃতযোগ দিবা ৬/৪৮ মধ্যে পুনঃ ৭/৩২ গতে ৯/৪০ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৮ গতে ২/৩৯ মধ্যে পুনঃ ৩/২৩ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ৫/৪১ গতে ৯/১৪ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৪ গতে ৩/২৭ মধ্যে পুনঃ ৪/২০ গতে উদয়াবধি। বারবেলা ৮/৪৫ গতে ১১/২৬ মধ্যে। কালরাত্রি ৮/৬ গতে ৯/৪৬ মধ্যে।
১৮ অগ্রহায়ণ, ১৪২৭, শুক্রবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২০, চতুর্থী রাত্রি ৫/৪৫। পুনর্বসু নক্ষত্র দিবা ১২/২৮। সূর্যোদয় ৬/৭, সূর্যাস্ত ৪/৪৮। অমৃতযোগ দিবা ৭/২ মধ্যে ও ৭/৪৪ গতে ৯/৫০ মধ্যে ও ১১/৫৭ গতে ২/৫১ মধ্যে ও ৩/২৭ গতে ৪/৪৮ মধ্যে এবং রাত্রি ৫/৪৫ গতে ৯/২১ মধ্যে ও ১২/৩ গতে ৩/৩৮ মধ্যে ও ৪/৩২ গতে ৬/৮ মধ্যে। বারবেলা ৮/৪৭ গতে ১১/২৮ মধ্যে। কালরাত্রি ৮/৮ গতে ৯/৪৮ মধ্যে। 
১৮ রবিয়ল সানি।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আইএসএল: চেন্নাইকে ১-০ গোলে হারাল বেঙ্গালুরু 

09:32:56 PM

আইএসএল: চেন্নাই ০ বেঙ্গালুরু ১ (৫৫ মিনিট) 

08:52:01 PM

ফ্রান্সে বিজয় মালিয়ার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত
ফ্রান্সে বিজয় মালিয়ার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করল ইডি। যার আনুমানিক মূল্য ...বিশদ

07:31:00 PM

প্রথম টি-২০: অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ১১ রানে জিতল ভারত

05:33:31 PM

পূর্ব মেদিনীপুরের নতুন পুলিস সুপার প্রবীণ প্রকাশ 
মাত্র পাঁচ মাসের ব্যবধানে বদলি হলেন পূর্ব মেদিনীপুরের পুলিস সুপার ...বিশদ

05:30:18 PM

প্রথম টি-২০: অস্ট্রেলিয়া ১১৩/৪ (১৫ ওভার) 

05:08:30 PM