Bartaman Patrika
সম্পাদকীয়
 

নিরাপদ মেট্রো রেলই ভবিষ্যৎ

কলকাতা পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী। ব্রিটিশ ভারতেরও রাজধানী ছিল কিছুকাল। শতবর্ষ আগেই ঘুচে গিয়েছে সেই কৌলীন্য। তবু আজ পূর্ব ভারতের প্রধান নগরী। শিল্প-বাণিজ্য শিক্ষা-সংস্কৃতির অন্যতম সেরা পীঠস্থান। এসবের টানে সারা দেশের রুচিশীল মানুষের উল্লেখযোগ্য সমাবেশ ঘটেছে কলকাতায়—যা দিল্লি, মুম্বইয়ের সঙ্গেই তুলনীয়। কলকাতা এখনও মিনি ভারতবর্ষ! শিল্প ব্যবসা বাণিজ্যের জন্য মারওয়াড়িদের খ্যাতি বিশ্বজোড়া। কলকাতার অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে এখনও তাঁরা অগ্রণী। তাই অনেক শিল্পপতি মজা করে বলেন যে রাজস্থানের রাজধানী কলকাতা (জয়পুর নয়)! কলকাতার প্রতি মানুষের আকর্ষণ বরাবরের। দেশ বিভাগ এবং বাংলাদেশ সৃষ্টির কারণে কলকাতায় মানুষের সমাবেশ দুর্নিবার হয়ে ওঠে। কলকাতায় মানুষের বসতি এবং বাইরের মানুষের আনাগোনা ক্রমবর্ধমান। কলকাতার উপর মানুষের চাপ আজ আক্ষরিক অর্থেই দুর্ভর। অত্যন্ত দূরদর্শী মুখ্যমন্ত্রী বিধানচন্দ্র রায় আজকের পরিস্থিতিটা সুদূর অতীতেই নিখুঁত আন্দাজ করেছিলেন। উদ্যোগী হয়েছিলেন মেট্রো রেল নির্মাণের। বুঝেছিলেন, অপ্রতুল রাস্তার মহানগরে ভূগর্ভ মেট্রো রেলই ভবিষ্যৎ। ফরাসি বিশেষজ্ঞদের এনে সমীক্ষা করিয়েছিলেন। বিধানবাবুর অপূর্ণ স্বপ্ন সামনে রেখে ১৯৬৯ সালে রেল তৈরি করে মেট্রোপলিটন ট্রান্সপোর্ট প্রজেক্ট। তাতে দ্রুত পরিবহণের সুপারিশ ছিল। ’৭১-এ প্রকাশিত মাস্টার প্ল্যানে মোট প্রায় একশো কিমির পাঁচটি মেট্রো রেল পথের প্রস্তাব করা হয়। অগ্রাধিকার পায় দমদম-টালিগঞ্জ লাইনটি।
দেশের প্রথম মেট্রো রেল অনুমোদন পায় ’৭২-এ। ইন্দিরা গান্ধী শিলান্যাস করেন। ১৯৭৩-৭৪ সালে কাজ শুরু হয়। ’৮৪-তে চালু হয় এসপ্ল্যানেড-নেতাজি ভবন সাড়ে তিন কিমি ভূগর্ভ রেল চলাচল। দেশের প্রথম এবং এশিয়ার পঞ্চম মেট্রো রেল। ওইবছর কিছুদিন বাদে চালু হয় দমদম-বেলগাছিয়া অংশটি। ধাপে ধাপে অনেক ভাঙাগড়ার ভিতর দিয়ে প্রকল্পটি এগতে থাকে। দমদম-টালিগঞ্জ পর্যন্ত সমস্ত ধাপ জুড়ে যায় ’৯৫ সালে। তারপরও দু’দিকে সম্প্রসারণের কাজ অব্যাহত থাকে। ২০১৩ সালের উত্তরণ নোয়াপাড়া-কবি নজরুল। কলকাতায় এতটা নির্মাণে বহু ঝঞ্ঝাট হয়েছে। শুধু অর্থবরাদ্দের কার্পণ্য ছিল না। সমস্যা ছিল ঘনবসতিপূর্ণ এলাকার উপর দিয়ে প্রকল্প এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার। আশঙ্কা ছিল বহু বাড়ি ভেঙে ধসে পড়ার। কঠিন ছিল নানা দল এবং হাজার হাজার বাসিন্দা ও ব্যবসায়ীর সম্মতি আদায়। বিশেষ কৃতিত্ব প্রাপ্য এ বি এ গনিখান চৌধুরীর। দীর্ঘকালব্যাপী মেট্রো রেল নির্মাণের জন্য সব ধরনের মানুষকেই নানাভাবে ত্যাগ স্বীকার করতে হয়েছে। কাজটি কোনোদিন সম্পূর্ণ যে হবে, বেশিরভাগ মানুষই সেই ভরসা হারিয়ে ফেলছিল। প্রকল্পটি পাওয়ার পর মানুষ বুঝেছে কী অমূল্য ধন পেয়েছে। যদি কল্পনা করা হয় কলকাতায় মেট্রো নেই, তাহলেই আঁতকে উঠব আমরা। দিল্লি, মুম্বইসহ প্রতিটি মেট্রোপলিটন সিটিকে মেট্রো রেল পাওয়ার জন্য যদি কেউ উৎসাহিত করে থাকে তো তার নাম কলকাতা। নিজের অভিজ্ঞতাকে সম্বল করে কলকাতার নানাদিকে মেট্রো রেল সম্প্রসারণের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য দুটি হল ইস্ট-ওয়েস্ট এবং নিউ গড়িয়া-এয়ারপোর্ট। অর্থবরাদ্দ এবং জমির পরিচিত সঙ্কট আছেই। তবু দুটি প্রকল্পেই উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হয়েছে।
সবচেয়ে বড় যে কাজটি হয়েছে ইস্ট-ওয়েস্ট প্রকল্পে গঙ্গার নীচে টানেল তৈরি হয়েছে রেকর্ড সময়ে এবং নির্বিঘ্নে। ভারতের মতো দেশের পক্ষে এ এক বিস্ময়। এসপ্ল্যানেডের মতো হেরিটেজ এলাকাতেও নির্বিঘ্নে উতরে গিয়েছে রেল। খানিকটা পচা শামুকে পা কাটার মতো অবস্থা হয়েছে বউবাজারে এসে। এখানে ৩১ আগস্ট থেকে বেশ কয়েকটি পুরনো বাড়ি ধসে পড়েছে। ছোটবড় মিলিয়ে ৫০টির বেশি বাড়ি নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। একেবারে অসহায় হয়ে পড়েছে সাড়ে তিনশোর বেশি মানুষ। স্বভাবতই তাদের মধ্যে হাহাকার রব উঠেছে। দুর্গত মানুষগুলির পাশে দাঁড়িয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পরিবারগুলির যথাযথ পুনর্বাসন এবং উপযুক্ত ক্ষতিপূরণের দাবি জানিয়েছেন তিনি। পরিস্থিতির উপর নজর রেখেছে আদালত। গুরুত্ব বিচার করে রেলমন্ত্রক ও রেলবোর্ড প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করেছে। কেএমআরসিএল কর্তৃপক্ষ হংকং ও সিঙ্গাপুর থেকে বিশেষজ্ঞ আনছে। মোট পাঁচটি বিদেশি সংস্থার পরামর্শ নেওয়া হচ্ছে। এ কারও দোষ গুণ বিচারের সময় নয়। প্রথমে বিপন্ন মানুষগুলির পাশে দাঁড়াতে হবে, রাজ্যের মতো রেলকেও। তারপর এত বড় বিপদের প্রকৃত কারণ এবং তা থেকে দ্রুত পরিত্রাণের উপায় নির্ধারণ করতে হবে। মেট্রো রেল প্রকল্পটির কাজ যাতে যথাসময়ে শেষ হতে পারে সেই সঙ্কল্প নিয়েই এগতে হবে সংশ্লিষ্ট সব পক্ষকেই। মাথায় রাখতে হবে, ভবিষ্যতে এমন ত্রুটি ও বিপদের পুনরাবৃত্তি কোনোভাবেই না-হয় যেন। এর থেকে শিক্ষা নিতে হবে পরবর্তী সমস্ত মেট্রো প্রকল্পগুলিকেও। নিরাপত্তা সুরক্ষার সঙ্গে মেট্রো রেল পথ নির্মাণের বিকল্প কিছুই নেই। মেট্রো রেলই আধুনিক শহরগুলির ভবিষ্যৎ। তার সঙ্গে কোনও আপসই চলে না।
05th  September, 2019
মমতা মডেল

 করোনা পরিস্থিতির দ্রুত অবনতি হচ্ছে। ভারতসহ সারা পৃথিবীতেই। এটা কোনও নতুন খবর নয়। এই মুহূর্তে নতুন খবরটি হল, কোভিড-১৯ চীনে নতুন করে ছড়াচ্ছে! সোমবার পর্যন্ত সে-দেশে নতুন করে ৩৯ জন আক্রান্ত হয়েছেন। বিশদ

উৎসবের সময় আসেনি

 একদিকে ইতালি আর স্পেন থেকে আসছে স্বস্তির খবর। অন্যদিকে, আমেরিকা এবং ভারতের ছবিটা বেশ আতঙ্কেরই। ইতালি আর স্পেনের কয়েকদিনের খবরে দেখা যাচ্ছে, সেই দুটি দেশে মৃত্যুর হার ক্রমেই কমছে। সেখানে গ্রাফটা একটু নিম্নমুখী হয়েছে।
বিশদ

07th  April, 2020
মন্দার পূর্বাভাস বাড়াচ্ছে দুশ্চিন্তা

 করোনা ভাইরাসের প্রভাবে অর্থনৈতিক কার্যকলাপ স্তব্ধ হয়ে যাওয়ায় বিশ্ব মন্দা যে অবশ্যম্ভাবী, তা আগেই জানিয়েছিল আন্তর্জাতিক অর্থ ভাণ্ডার (আইএমএফ)। রাষ্ট্রসঙ্ঘও একই কথা বলছে। ২০০৯ সালের পরে আবার। এবার আর্থিক মন্দার সবচেয়ে বেশি প্রভাব পড়তে পারে উন্নয়নশীল দেশগুলিতে।
বিশদ

06th  April, 2020
করোনায় কি অপরাধও বাড়বে?

 বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাস–সংক্রান্ত আর্থিক প্রতারণা বাড়ছে বলে সতর্ক করে দিয়েছে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিমিনাল পুলিশ অর্গানাইজেশন বা ইন্টারপোল। এই স্বাস্থ্য সঙ্কটে অনলাইনে কোনও চিকিৎসা সরঞ্জাম কেনাকাটার সময় ক্রেতাকে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছে আন্তর্জাতিক পুলিশ সংস্থা। বিশদ

05th  April, 2020
ধর্মের কাহিনী, শুনছে কে?

চোরায় না শুনে ধর্মের কাহিনী। বাঙালিকে ঠেকায় কে! ঘরবন্দি বঙ্গজ আঁতেলদের পাচনপ্রক্রিয়া কাজ করছে না চায়ের দোকানে তর্কের তুফান না তুললে। সে কারণে লকডাউনে ‘ঘোষিত’ সময়সীমা যত শেষের দিকে এগচ্ছে, ততই মানুষও যেন শেষের দিনের সর্বনাশের প্রহর গুনতে লেগেছে।
বিশদ

04th  April, 2020
করোনার বিরুদ্ধে আগামী
দু’সপ্তাহের লড়াই আরও কঠিন 

আগামী দু’টি সপ্তাহ খুব গুরুত্বপূর্ণ। আগামী দু’সপ্তাহেই ঠিক হয়ে যাবে, আমরা আমেরিকা হব কি না। এই দু’সপ্তাহেই ঠিক হয়ে যাবে, আমরা ইতালির সর্বনাশা রাস্তাকেই বেছে নিলাম কি না। এই দু’সপ্তাহেই প্রমাণ হয়ে যাবে, আমেরিকা, ইতালি, স্পেন থেকে আমরা সত্যিই কোনও শিক্ষা নিয়েছি কি না!   বিশদ

03rd  April, 2020
সাধু সাবধান 

করোনা দানবের তাণ্ডব চলছে বিশ্বজুড়ে। লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। মৃত্যু-মিছিল চলছে। এসময়ে এতটুকু গাফিলতি, নজরদারির অভাব বিপদ বাড়াতে পারে। যার জ্বলন্ত প্রমাণ রাজধানী দিল্লির ধর্মীয় সম্মেলনের ঘটনা।   বিশদ

02nd  April, 2020
ভুল পথ, ঠিক পথ

 রবিবার, ২৯ মার্চ দিনটি মহামারীর ইতিহাসে উল্লেখযোগ্য হিসাবে চিহ্নিত হয়ে রইল। কোভিড-১৯ সংক্রমণ ওই একদিনে (২৪ ঘণ্টায়) অতিরিক্ত ১ লক্ষ হল। সারা পৃথিবীতে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা সেদিন ছাপিয়ে গেল ৮ লক্ষ। অথচ তার আগের দিনও সংখ্যাটি ৬ লক্ষের কিছু বেশি ছিল। বিশদ

01st  April, 2020
উন্নত দেশ পারেনি, আমরা পারব

 আমরা কিছুটা সাবধান হয়েছি। এখন অনেক কিছুই অনেকে মেনে চলছি। কিন্তু আমাদের এখনও অনেকটাই সাবধান হতে হবে। সবাই আমরা যথার্থ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছি না। সকলকেই মনে রাখতে হবে, পৃথিবীজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে মৃত্যুর এক হানাদার।
বিশদ

31st  March, 2020
ভয়ের পরেই আসবে জয়

 করোনা ভাইরাসের প্রকোপে বিশ্বজুড়ে শুরু হয়েছে হাহাকার। শত চেষ্টা করেও তা আটকাতে পারছেন না কেউ। চীনের উহান থেকে শুরু হওয়া এই মৃত্যু মিছিল ইতালি, স্পেন ও ইরানকে বিধ্বস্ত করে এখন আমেরিকায় পৌঁছে গিয়েছে। বিশদ

30th  March, 2020
  সচেতন না হলে বিপদ বাড়বে

 সচেতনতার অভাব কীভাবে ঘরে বাইরে বিপদ ডেকে আনে তা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল নদীয়ার তেহট্টের ঘটনা। চিকিৎসকের পরামর্শ অগ্রাহ্য করার মাশুল গুনতে হচ্ছে ওই পরিবারটিকে। বিশদ

29th  March, 2020
দাঁতে দাঁত চেপে লড়াই চলুক

 এমন দৃশ্য কি সচরাচর দেখা যায়? স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী রাস্তায় নেমে আধলা ইট তুলে নিজেই সুরক্ষাবৃত্ত এঁকে দিচ্ছেন। সব্জি বিক্রেতাদের বোঝাচ্ছেন, দূরত্ব বজায় রেখে চলাটাই মূল সতর্কতা। বিশদ

28th  March, 2020
ভয়ঙ্কর সময়ের সামনে দাঁড়িয়ে

 অনেক বাধা আর প্রতিকূলতাকে দূরে সরিয়ে আবার আমরা পাঠকের মুখোমুখি। গত একশো বছরের ইতিহাসে মানবজাতির সামনে এমন অভূতপূর্ব সঙ্কট এসেছে বলে মনে পড়ে না। তিন মাস বয়সের এক মারণ ভাইরাসের সঙ্গে সারা পৃথিবীর সবচেয়ে উন্নত আধুনিক নাগরিক সমাজের অদৃশ্য লড়াই চলছে। বিশদ

27th  March, 2020
এ লড়াই শুধুই জয়ের জন্য

আমরা আজ যে যুগে বাস করছি, সেটাকে তথ্য ও সংবাদের যুগ বললে অত্যুক্তি হবে না। তথ্য ও খবর কোনও শ্রেণী বিশেষেরও কুক্ষিগত নয়। অন্তত সাধারণ তথ্য ও খবর এখন রীতিমতো সর্বজনীন। তাই আমাদের জানতে দেরি হয়নি গত ডিসেম্বরে সুদূর চীন দেশের হুবেই প্রদেশের উহান শিল্প-শহরে কী ভয়ানক কাণ্ড ঘটেছিল।
বিশদ

25th  March, 2020
সংযম পালনই হোক বাঁচার সংকল্প 

এক সূত্রে বাঁধিয়াছি সহস্রটি মন, এক কার্যে সঁপিয়াছি সহস্র জীবন— আজ গোটা দেশবাসী মনপ্রাণ দিয়ে সংযমের সঙ্গে একটাই সংকল্প পালন করে চলেছেন, আর সেটা হল স্বেচ্ছাবন্দিত্ব।  
বিশদ

24th  March, 2020
বাংলার মানুষ করোনা যুদ্ধে প্রস্তুত 

ভয় পাবেন না! এখনও যারা করোনায় আক্রান্ত হয়ে এরাজ্যের হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন, তাঁরা সকলেই ভাইরাসকে শরীরে ধারণ করে বিদেশ থেকে এসেছেন। তবে শিক্ষিত সমাজের অংশ হয়েও কিছু মানুষের দায়িত্বজ্ঞানহীন আচরণ কতটা সঙ্কট ডেকে আনতে পারে, তা নিয়ে চিন্তা আছে বইকি! বিদেশ ফেরতদের দায়িত্বশীল হতে আর্জি জানিয়েছেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও।  
বিশদ

23rd  March, 2020
একনজরে
 রিও ডি জেনেইরো, ৭ এপ্রিল: বিশ্ব ফুটবলে এক দশকের বেশি সময় ধরে দাপট দেখিয়ে চলেছেন লায়োনেল মেসি ও ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো। তবে অনেকের মতে, এই দুই ...

সংবাদদাতা, কাঁথি: গাছের ডাল কাটতে গিয়ে তা ছিটকে বুকে এসে লাগায় অস্বাভাবিক মৃত্যু হল এক যুবকের। পটাশপুর থানার রামনগর এলাকায় এই ঘটনা ঘটেছে। মৃতের নাম লক্ষ্মণ মাইতি(৩৭)।   ...

 জীবানন্দ বসু, কলকাতা: করোনা কেন্দ্রিক লকডাউনের জেরে গত কয়েকদিনে তাঁদের স্বাভাবিক জীবনযাপন অনেকটাই দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে। পর্যাপ্ত খাদ্য-রসদের অভাবই যে তার অন্যতম কারণ, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। ...

  ফতেপুর (উত্তরপ্রদেশ), ৭ এপ্রিল (পিটিআই): দুই কিশোর-কিশোরীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়াল উত্তরপ্রদেশের ফতেপুরের মালাওয়াইনে। পুলিশ আত্মহত্যা বললেও এই মৃত্যু নিয়ে রহস্য তৈরি হয়েছে। কারণ, কিশোরের পরিবারের দাবি, দু’জনকে খুন করে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

ব্যবসায় বাড়তি বিনিয়োগ প্রত্যাশিত সাফল্য নাও দিতে পারে। কর্মক্ষেত্রে পদোন্নতি শ্বাসকষ্ট ও বক্ষপীড়ায় শারীরিক ক্লেশ। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৭৫৭: বাংলার নবাব আলীবর্দী খাঁ মারা যান।
১৭৫৯: ব্রিটিশ বাহিনী ভারতের মাদ্রাজ দখল করে।
১৮৫৭: বারাকপুরে সিপাহি বিদ্রোহের নায়ক মঙ্গল পাণ্ডের ফাঁসি
১৮৯৪: সাহিত্যিক বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের মৃত্যু
১৯০২: কলকাতায় মূক ও বধির বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়।
১৯২৯: দিল্লির সেন্ট্রাল অ্যাসেম্বলিতে বোমা ছুঁড়ে ধরা পড়লেন ভগৎ সিং ও বটুকেশ্বর দত্ত
১৯৫০: ভারত পাক চুক্তি স্বাক্ষর করলেন লিয়াকত-নেহরু
১৯৫০: বিপ্লবী হেমচন্দ্র কানুনগোর মৃত্যু
১৯৭৩: স্পেনের চিত্রশিল্পী পাবলো পিকাসোর মৃত্যু
১৯৭৬: ফুটবলার গোষ্ঠপালের মৃত্যু





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৫.০৯ টাকা ৭৬.৮১ টাকা
পাউন্ড ৯১.৫৭ টাকা ৯৪.৮৬ টাকা
ইউরো ৮০.৬৮ টাকা ৮৩.৭২ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪১,৮৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৯,৭৩০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪০,৩৩০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৮,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৮,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
22nd  March, 2020

দিন পঞ্জিকা

২৪ চৈত্র ১৪২৬, ৭ এপ্রিল ২০২০, মঙ্গলবার, (চৈত্র শুক্লপক্ষ) চতুর্দশী ১৬/২৬ দিবা ১২/২। উত্তরফাল্গুনী ৯/৩০ দিবা ৯/১৫। সূ উ ৫/২৭/২৬, অ ৫/৫০/১৬, অমৃতযোগ দিবা ৭/৫৭ গতে ১০/২৫ মধ্যে পুনঃ ১২/৫৩ গতে ২/৩২ মধ্যে পুনঃ ৩/২১ গতে ৫/০ মধ্যে। রাত্রি ৬/৩৬ মধ্যে পুনঃ ৮/৫৬ গতে ১১/১৫ মধ্যে পুনঃ ১/৩৫ গতে ৩/৮ মধ্যে। বারবেলা ৭/০ গতে ৮/৩৩ মধ্যে পুনঃ ১/১২ গতে ২/৪৪ মধ্যে। কালরাত্রি ৭/১৭ গতে ৮/৪৪ মধ্যে।
২৪ চৈত্র ১৪২৬, ৭ এপ্রিল ২০২০, মঙ্গলবার, চতুর্দশী ১৩/৫৮/১৪ দিবা ১১/৪/৯। উত্তরফাল্গুনী ৭/১০/১০ দিবা ৮/২০/৫৫। সূ উ ৫/২৮/৫১, অ ৫/৫০/৫৪। অমৃতযোগ দিবা ৭/৫৪ গতে ১০/২৩ মধ্যে ও ১২/৫৩ গতে ২/৩২ মধ্যে ও ৩/২২ গতে ৫/১ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/৩৭ মধ্যে ও ৮/৫৬ গতে ১১/১৫ মধ্যে ও ১/৩৩ গতে ৩/৬ মধ্যে। বারবেলা ৭/১/৩৬ গতে ৮/৩৪/২২ মধ্যে, কালবেলা ১/১২/৩৮ গতে ২/৪৫/২৩ মধ্যে।
১৩ শাবান

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
করোনা পরিস্থিতি নিয়ে রাজ্যপাল জগদীপ ধনকারের সঙ্গে আড়াই ঘণ্টার বৈঠক মুখ্যসচিবের 

09:27:00 PM

করোনা: বিশ্বে সুস্থ হয়ে গিয়েছেন ৩ লক্ষেরও বেশি রোগী
বিশ্বে করোনা যেমন কেড়ে নিচ্ছে বহু প্রাণ, তেমনি সুস্থও হয়ে ...বিশদ

08:59:28 PM

রামপুরহাটে ঝাড়খণ্ড সীমান্ত সংলগ্ন সুরচিয়া জঙ্গলে আগুন, অকুস্থলে দমকলের ২টি ইঞ্জিন

08:04:00 PM

আজ হুগলি, নদীয়া, বীরভূমে ঝড়-বৃষ্টির সম্ভাবনা 

07:56:00 PM

এবার বিনামূল্যেই হবে করোনা পরীক্ষা, জানাল সুপ্রিম কোর্ট
অনুমোদিত সরকারি বা বেসরকারি ল্যাবে করোনা পরীক্ষা বিনামূল্যে করা হবে। ...বিশদ

07:22:52 PM

আজ ঝাড়গ্রাম, পঃ মেদিনীপুরে ঝড়-বৃষ্টির সম্ভাবনা 

07:09:00 PM