Bartaman Patrika
সম্পাদকীয়
 

সবার মত নিয়ে চলুক সরকার

মনমোহন সিংয়ের অর্থনীতি দেশকে ডুবিয়ে দিচ্ছে আওয়াজ তুলে ২০১৪-র ভোটে দেশবাসীর সমর্থন পক্ষে এনেছিলেন নরেন্দ্র মোদি। প্রধানমন্ত্রী হয়ে মোদিজি বলেছিলেন, ইউপিএ জমানার সমস্ত ভুল শুধরে দেশকে অর্থনৈতিক প্রগতির সত্যিকার দিশা দেখাবেন। তাঁর সরকারের বক্তব্য ছিল, দেশের আর্থিক দুর্গতির মূল কারণ বিপুল পরিমাণ কালো টাকা। দেশের ভিতরে যেমন তেমনি বিদেশেও দেশের কালো টাকা রাজ করছে। মোদিজি দাবি করেছিলেন, তিনি একইসঙ্গে বিদেশ থেকে কালো টাকা দেশে ফেরাবেন এবং দেশের অভ্যন্তরে কালো টাকার সমস্ত উৎস বন্ধ করে দেবেন। এই যুক্তিতে তাঁর সরকার নোট বাতিলের মতো বিরাট ঝুঁকিপূর্ণ এক পদক্ষেপ করেছিল। তার কিছুকাল পর চালু করা হয়েছিল এক দেশ এক কর নীতি—পণ্য ও পরিষেবা কর (জিএসটি)। জিএসটি চালু করার প্রয়োজনীয়তা কোনও দলই যুক্তি দিয়ে অগ্রাহ্য করতে পারেনি। কিন্তু, এই আধুনিক করব্যবস্থা চালু করার জন্য যে ধরনের সতর্কতাগ্রহণ এবং পরিকাঠামো গড়া জরুরি ছিল—কেন্দ্র সেসব বিষয়ে গুরুত্ব দেয়নি। এ ছিল কংগ্রেস, তৃণমূলসহ বেশিরভাগ বিরোধী দলের অভিযোগ। তড়িঘড়ি জিএসটি চালুর বিরুদ্ধে সরব হয়েছিল অনেক দল। আর্থিক দুর্নীতিতে লাগাম পরাতে আয়কর এবং শুল্ক ব্যবস্থাতেও কিছু কঠোরতার নীতি গ্রহণ করা হয়। বিশেষ পরিবর্তন আনা হয় আমদানি, রপ্তানিসহ সামগ্রিক শিল্প-বাণিজ্য নীতিতে।
অনেকের প্রত্যাশা ছিল যে সরকারের এইসমস্ত কড়া দাওয়াই পেয়ে অর্থনীতিতে একটি ইতিবাচক পরিবর্তন আসবে। উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি ঘটবে শিল্পোৎপাদনে, কৃষি উৎপাদনে, জিডিপিতে এবং রাজস্ব সংগ্রহে। বাড়বে দেশি ও বিদেশি লগ্নি, শিল্পঋণ (ক্রেডিট গ্রোথ)। মোদিজির প্রতিশ্রুতি মতো চাকরির বাজারে জোয়ার আসবে। কমবে বাণিজ্য ঘাটতি এবং ফিসকাল ঘাটতি। কিন্তু, মোদি সরকারের প্রথম টার্মের মেয়াদ শেষের ছবিটি মোটেই আশাব্যঞ্জক ছিল না। বরং, প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রে ব্যর্থতার ছবি প্রকট হয়ে উঠেছিল। তা সত্ত্বেও, ২০১৯-এ দেশবাসী আস্থা রেখেছে মোদিজিরই নেতৃত্বে। তারা ধরে নিয়েছে, প্রথমবার গৃহীত পদক্ষেপগুলির সুফল পেতে কিছু সময় দরকার। অতএব, মোদিজির আর-একটি সুযোগ প্রাপ্য। অর্থাৎ উপর্যুপরি দু’বার কেন্দ্রে মজবুত স্থিতিশীল সরকার তৈরির পক্ষে রায় দিয়েছে দেশবাসী। কাশ্মীর এবং তিন তালাকের মতো অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ কিছু সিদ্ধান্ত নিয়ে সরকার বুঝিয়ে দিয়েছে, তার শক্তি কতখানি। শক্তির প্রশ্নে এই সরকার বাজপেয়ি তো বটেই নেহরু, ইন্দিরা, রাজীব প্রভৃতির থেকে কোনও অংশে কম নয়। প্রশ্নটা এখানেই, তাহলে অর্থনীতির স্টিয়ারিং হাতে এমন একটি মজবুত সরকারের সামাল সামাল অবস্থা কেন? কেন এই সরকার ৪৫ বছরের ভিতরে সবচেয়ে বেশি বেকারত্ব দেখাল? কেন এই সরকার দেশকে সাত দশকের ভিতরে সবচেয়ে দুর্বল অর্থনীতির ভিতের উপর দাঁড় করাল। কেন এই সরকার ব্যাঙ্ক-ব্যবস্থাকে সবচেয়ে দুর্বল করে ফেলল? কেন এই সরকার রাষ্ট্রায়ত্ত ক্ষেত্রটিকে দুর্বলতর করে ফেলল? কেন এই সরকার টাকার দামের রেকর্ড পতনের সাক্ষী করল দেশকে? কেন এই সরকার সঙ্কট মোকাবিলায় রিজার্ভ ব্যাঙ্কের খয়রাতির দ্বারস্থ হওয়ার মতো একটি কৃষ্ণকায় দৃষ্টান্ত স্থাপন করল? এই পরিস্থিতির জন্য মোদি সরকার আর যাই হোক বিরোধীদের, এমনকী এনডিএ জোটসঙ্গীদেরও দুষতে পারবে না। কারণ, গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তগুলি গ্রহণে এই সরকার বিরোধীদের তো বটেই, সরকারের বন্ধু দলগুলিকেও পরোয়া করে না।
কিন্তু এই কুছ পরোয়া মনোভাবে দেশের তো কোনও ভালো হচ্ছে না। মানুষের আয় কমছে। বহু শিল্প ব্যবসা বাণিজ্য বন্ধ হচ্ছে। চাষ মার খাচ্ছে। নতুন চাকরি হচ্ছে না। পুরনো চাকরি চলে যাচ্ছে। মানুষের হাসিমুখ ম্লান হয়ে যাচ্ছে। শুধু পাকিস্তান নামক দৈত্যশাসনের সুখানুভূতি দিয়ে এত মালিন্য ঢাকা অসম্ভব। এরপরও কি বলা যাবে না যে সরকারের গৃহীত নীতির পুনর্বিবেচনার সময় হয়েছে? মনমোহন জমানার অর্থনৈতিক পণ্ডিতদের মতামত গ্রহণের পাশাপাশি রাজ্য সরকারগুলির মতামতকেও গুরুত্ব দেওয়ার অভ্যাস করুক মোদি সরকার। এই প্রসঙ্গে ক্রমবধর্মান জিএসটি জালিয়াতির কথাটি উল্লেখযোগ্য। পশ্চিমবঙ্গ সরকারের অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্রের আশঙ্কা জিএসটি জালিয়াতির অঙ্কটি ৪৫ হাজার কোটি টাকায় আর সীমিত নেই—১ লক্ষ কোটি টাকায় পৌঁছতে পারে! কর দুর্নীতি ঠেকাতে জিএসটি চালু করা হল। কিন্তু, এই ভয়ঙ্কর ছবি বলে দিচ্ছে, সরকার দক্ষ জিএসটি পরিকাঠামো গড়তে ব্যর্থ হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গসহ সমস্ত রাজ্যের মতামত নিয়ে এই দুর্নীতি ঠেকাতে না-পারলে অর্থনীতিতে যে ধস শুরু হয়েছে তা চরম বিপদসীমা অতিক্রম করতে পারে। ১৩০ কোটি মানুষের মুখ চেয়ে মোদি সরকারের উচিত, ইগো সরিয়ে রেখে যথার্থ পদক্ষেপ করা। এটি মানুষের জীবন-মৃত্যুর মামলা।
30th  August, 2019
শান্তি ফেরাতেই হবে 

দেশের মানুষ শান্তিতে বসবাস করতে চায়। চায় নিরাপত্তা। স্বাধীন এই দেশের নাগরিকদের সেই নিরাপত্তা দেওয়ার দায়িত্ব দেশের সরকারের, প্রশাসনের। কিন্তু মানুষের সেই নিরাপত্তাটাই এখন প্রশ্নের মুখে।   বিশদ

মানবিক পুলিস 

যত দোষ, নন্দ ঘোষ—পুলিস সম্বন্ধে এই অপবাদ ঘুচিয়ে মানবিকতার এবং মানুষকে সাহায্যের লম্বা হাত বাড়িয়ে এক অনন্য নজির সৃষ্টি করছেন আমাদের চারপাশে থাকা কোনও কোনও উর্দিধারী।  বিশদ

26th  February, 2020
  আয়কর আদায়ে লক্ষ্য স্থির হোক

 দেশীয় বাজারে কালো টাকার রমরমা আটকাতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ২০১৬ সালের নভেম্বর মাসে নোট বাতিলের ঘোষণা করে হইচই ফেলে দিয়েছিলেন। ঠিক এর পরই ব্যাঙ্কে পুরনো ৫০০ এবং হাজার টাকার নোট জমা দেওয়ার জন্য হুড়োহুড়ি পড়ে গিয়েছিল। বিশদ

25th  February, 2020
বেদান্তের ব্যবহারিক দিক 

কতক মানুষ মনে করে, বেদান্ত পুরোপুরিই একটি তাত্ত্বিক শাস্ত্র, কল্পনাভিত্তিক ও বাস্তব জীবনে ব্যবহারযোগ্য নয়। এধরনের চিন্তা-ভাবনা সত্যের বিপরীত। জগতে যতরকম ‘দর্শন’ আছে, তার মধ্যে বেদান্তই সবচেয়ে বেশী ব্যবহারযোগ্য। 
বিশদ

24th  February, 2020
শুরু ভারত-মার্কিন দর কষাকষি

২৪ ফেব্রুয়ারি ভারতে আসছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। টেক্সাসে হাউডি মোদির মতোই তাঁর জন্য ‘নমস্তে ট্রাম্প’ অনুষ্ঠান হবে আমেদাবাদে। রেওয়াজ অনুযায়ী, বিদেশি রাষ্ট্রনেতাদের ভারত সফর কার্যত ছিল নয়াদিল্লি সফর। প্রশ্ন উঠেছে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট শুধুমাত্র গুজরাতে কেন? তিনি আমেদাবাদে থাকছেন মোট তিন ঘণ্টা। খরচ কত?  
বিশদ

24th  February, 2020
যেতে হবে সমস্যার শিকড়ে 

অবশেষে গ্রেপ্তার করা হল পোলবার দুর্ঘটনার পুলকার মালিককে। একাধিক ধারায় তাঁর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। পাশাপাশি আদালতের অনুমতি মতো চারদিনের জন্য ওই ব্যক্তিকে নিজেদের হেফাজতেও নিয়েছে পুলিস। অর্থাৎ আইনের দিক থেকে দেখতে গেলে তদন্ত প্রক্রিয়া অনেক দূর এগিয়ে গিয়েছে।
বিশদ

23rd  February, 2020
মমতার অধিকার দাবি 

দিল্লির রাজনীতি-বেনিয়াদের কাছে পশ্চিমবঙ্গ চিরকালই ব্রাত্য। শিক্ষার অগ্রগতিতে বঙ্গ পথপ্রদর্শক হলেও পাশ্চাত্য শিক্ষায় ‘সভ্য’ হয়ে ওঠা হিন্দিবলয়ের অধিকাংশ সংখ্যাগুরু চিরকালই বাঙালিকে পিছনে ঠেলে রাখার চেষ্টা করে গিয়েছে। সে স্বাধীনতার আগেও, পরে তো বটেই।  
বিশদ

22nd  February, 2020
ডোনাল্ড ট্রাম্পের চোখে ভারত খারাপ হলেও নরেন্দ্র মোদি ভালো

ভালো আচরণই তো করে না ভারত। এই কথাটি যদি প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তানের কোনও শীর্ষনেতা বলতেন, তাহলে তেমন গুরুত্ব থাকত না। কিন্তু, কথাটি বলেছেন স্বয়ং ডোনাল্ড ট্রাম্প। আমেরিকার প্রেসিডেন্ট। বিশ্বজুড়ে ‘দাদাগিরি’তে যিনি ইতিমধ্যেই যথেষ্ট খ্যাতি অর্জন করেছেন।
বিশদ

21st  February, 2020
বাসযোগ্য পৃথিবীর সাধনা

মানুষ নিজেকে এই গ্রহের সর্বশ্রেষ্ঠ জীব বলে আত্মশ্লাঘা অনুভব করে। আর এই অহঙ্কার থেকেই মানুষের মধ্যে ধারণা তৈরি হয়ে গিয়েছে যে, পৃথিবীর যাবতীয় সম্পদের উপরে শুধু তারই অধিকার। মাটি জল পাহাড় মরুভূমি বনজঙ্গল সবই মানুষের অধীন। স্বভাবতই মানুষের অধীন এই সমস্ত অঞ্চলে যত প্রাণী আছে, তারাও।
বিশদ

20th  February, 2020
প্রতিরক্ষার উচ্চপদে নারীশক্তি

 প্রায় এক দশকের লড়াইয়ের পর জয় হল নারীশক্তির। সেনা বাহিনীতে মহিলা অফিসারদের স্থায়ীভাবে নিয়োগের ব্যবস্থা কার্যকর করার প্রশ্নে দেশের শীর্ষ আদালতের ঐতিহাসিক রায়ে দীর্ঘদিনের বঞ্চনার যেমন অবসান ঘটল তেমনি প্রতিষ্ঠিত হল মহিলাদের সমানাধিকার। বিশদ

19th  February, 2020
রাজ্যের উপর এত গোঁসা কেন? 

ব্যাপারটা বোঝা গিয়েছিল আগেই। কিন্তু তখনও ধারণাটা প্রতিষ্ঠিত হয়নি। পরপর কয়েকটি রিপোর্ট পাওয়ার পর রোগ ধরা পড়ল। অবশ্য এ রোগ সে রোগ নয়। এই রোগটা হল, মোদিজি এবং অমিত শাহজি কেন্দ্রে যতই চুটিয়ে ব্যাটিং করুন কেন, রাজ্যস্তরের খেলায় তাঁরা বলে বলে বোল্ড আউট হচ্ছেন।   বিশদ

18th  February, 2020
নতুন করে ভাবতে হবে বিজেপিকে 

মাত্র ন’মাস আগে লোকসভা ভোটে দিল্লির ৬৫ থেকে ৭০টি বিধানসভা আসনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছিল বিজেপি। যেখান থেকে কেন্দ্রীয় সরকার পরিচালিত হয় এবং গত ১২ বছর ধরে যেখানে পুরসভা বিজেপির দখলে।
বিশদ

17th  February, 2020
লাভ-লোকসানের রাজনীতি 

পুলওয়ামা হামলার প্রথম বর্ষপূর্তিতে রাহুল গান্ধী একটি প্রশ্ন তুলেছেন—ওই নাশকতায় কার লাভ হয়েছিল? উত্তর দিতে পারলে কোনও পুরস্কার নেই। আট থেকে আশি সকলেই বুঝবেন, কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতির নিশানায় এক এবং একমাত্র প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। 
বিশদ

16th  February, 2020
সভ্য ভারতে বহাল অসভ্য প্রথা

ভারত পৃথিবীর অন্যতম প্রাচীন এক সভ্য দেশ। ভারত শুধু প্রাচীন সভ্য দেশই নয়, দেশটি স্বাধীন ও সার্বভৌম। পৃথিবীর বৃহত্তম গণতন্ত্রও ভারত। স্বামী বিবেকানন্দ, রবীন্দ্রনাথ, মহাত্মা গান্ধীর ভারত অস্পৃশ্যতাকে অপরাধ মনে করে এবং সাম্যের নীতিতে আস্থা রাখে।
বিশদ

15th  February, 2020
ঘুঘুর বাসা ভাঙলে লাভ সরকারের 

লাগে টাকা দেবে গৌরী সেন। এক শ্রেণীর সরকারি অফিসার ও কর্মীর এমন বদ্ধমূল ধারণার কারণেই অনেকসময় সরকারি কাজে দুর্নীতির জন্ম হয়। এই ভাবনা আগেও ছিল, এখনও আছে। ভবিষ্যতেও এর পরিবর্তন হওয়া কঠিন।  
বিশদ

14th  February, 2020
মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা

একে বলে মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা। একদিকে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি আকাশছোঁয়া, তার উপর একলাফে গ্যাসের দাম বাড়ল ১৪৯ টাকা। মানুষ বাজার করবে কী করে, রাঁধবেই কী দিয়ে! এমনিতেই বাজারে গেলে মাছ ছাড়াই ১০০ টাকার সব্জি কিনলে থলি থেকে তা খুঁজে বের করতে হয়।
বিশদ

13th  February, 2020
একনজরে
 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: কলকাতা কর্পোরেশনের ভোটে ওয়ার্ড ভিত্তিক সমস্যা তুলে ধরতে নাগরিকদের কাছে বিশেষ সমীক্ষক টিম পাঠাচ্ছে বিজেপি। মহানগরের ১৪৪টি ওয়ার্ডের নিত্যদিনের সমস্যার চিত্র তুলে ধরতে চাইছে গেরুয়া শিবির। ভোটের প্রচারে স্থানীয় স্তরে এই ইস্যুগুলিকে সামনে রেখে শাসক তৃণমূলকে বিঁধতে ...

 রূপাঞ্জনা দত্ত, লন্ডন, ২৬ ফেব্রুয়ারি: সুয়েলা ব্রাভেরমান। ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের ক্যাবিনেটে রদবদলের পর চলতি মাসের শুরুতে ব্রিটেনের প্রথম ভারতীয় বংশোদ্ভূত মহিলা হিসেবে অ্যাটর্নি জেনারেলের পদে নিযুক্ত হন এই এমপি। অবশেষে অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে শপথ নিলেন তিনি। ...

 দুবাই, ২৬ ফেব্রুয়ারি: নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে ওয়েলিংটন টেস্টে ব্যর্থতার জেরে স্টিভ স্মিথের কাছে মসনদ খোয়ালেন বিরাট কোহলি। আইসিসি’র টেস্ট র‌্যাঙ্কিংয়ে দু’নম্বরে নেমে গেলেন ভারত অধিনায়ক। তাঁর জায়গায় শীর্ষস্থানে অস্ট্রেলিয়ার তারকা ব্যাটসম্যান স্মিথ। ...

সংবাদদাতা, বালুরঘাট: সরকারি আইটিআই প্রতিষ্ঠানে পঠনপাঠন লাটে ওঠার অভিযোগ তুলে তালা ঝুলিয়ে বিক্ষোভ দেখাল পড়ুয়ারা। বুধবার ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার হিলি থানার জমালপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের রামজীবনপুর আইটিআইতে।   ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যার্থীদের ক্ষেত্রে আজকের দিনটা শুভ। কর্মক্ষেত্রে আজ শুভ। শরীর-স্বাস্থ্যের ব্যাপারে সতর্ক হওয়া প্রয়োজন। লটারি, শেয়ার ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮০২- ফরাসি লেখক ভিক্টর হুগোর জন্ম
১৯০৮- লেখিকা লীলা মজুমদারের জন্ম
১৯৩১- স্বাধীনতা সংগ্রামী চন্দ্রশেখর আজাদের মৃত্যু
১৯৩৬- চিত্র পরিচালক মনমোহন দেশাইয়ের জন্ম
২০১২- কিংবদন্তি ফুটবলার শৈলেন মান্নার মৃত্যু





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৮৯ টাকা ৭২.৫৯ টাকা
পাউন্ড ৯১.৫৯ টাকা ৯৪.৮৮ টাকা
ইউরো ৭৬.৪৯ টাকা ৭৯.৪১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৩,১৬০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪০,৯৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪১,৫৬০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৭,৪০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৭,৫০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১৪ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার, (ফাল্গুন শুক্লপক্ষ) চতুর্থী অহোরাত্র। রেবতী ৪৭/৪০ রাত্রি ১/৮। সূ উ ৬/৪/১৪, অ ৫/৩৫/২, অমৃতযোগ রাত্রি ১/৫ গতে ৩/৩৫ বারবেলা ২/৪২ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ১১/৪৯ গতে ১/৩৫ মধ্যে। 
১৪ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার, চতুর্থী, রেবতী ৪২/২৩/২২ রাত্রি ১১/৪/৩৪। সূ উ ৬/৭/১৩, অ ৫/৩৪/৯। অমৃতযোগ দিবা ১/০ গতে ৩/২৮ মধ্যে। কালবেলা ২/৪২/২৫ গতে ৪/৮/১৭ মধ্যে। কালরাত্রি ১১/৫০/৪১ গতে ১/২৪/৪৯ মধ্যে। 
২ রজব 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
১৪৩ পয়েন্ট পড়ল সেনসেক্স 

04:08:26 PM

জলপাইগুড়িতে ২১০ কেজি গাঁজা সহ ধৃত ৩ 

03:39:45 PM

পুরভোট অবাধ ও শান্তিপূর্ণ করতে হবে, রাজ্য নির্বাচন কমিশনারকে নির্দেশ রাজ্যপাল 
পুরভোটের দিনক্ষণ চূড়ান্ত না হলেও প্রশাসনিক তৎপরতা তুঙ্গে। এরমধ্যেই রাজ্য ...বিশদ

01:25:00 PM

লেকটাউনে নির্মীয়মাণ বিল্ডিং থেকে পড়ে মৃত শ্রমিক 

01:10:00 PM

মালদহে কার্তুজ উদ্ধার 
মালদহের হবিবপুর ব্লকের আইহো বাজারের একটি দোকান থেকে ১০ রাউন্ড ...বিশদ

01:05:54 PM

ইংলিশবাজারে দুর্ঘটনায় মৃত ১, জখম ১০ 
মালদহের ইংলিশবাজারে ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কে দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকের পিছনে ...বিশদ

12:58:00 PM