Bartaman Patrika
সম্পাদকীয়
 

ভাবমূর্তি স্বচ্ছ করতেই হবে

ভাবমূর্তি স্বচ্ছ করতে হবে। জয় করতে হবে মানুষের মন। বাড়াতে হবে জনসংযোগ। ২০২১-এর নির্বাচনকে পাখির চোখ করে শক্ত জমি তৈরির প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল এবং বিরোধী বিজেপিও। যে যার মতো করে শুরু করেছে ‘দিদিকে বলো’ বা ‘দাদাকে জানানোর জন্য চা চক্র কর্মসূচিও। তবে, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কোনও রাখঢাক না-করে স্পষ্ট বক্তব্য নিঃসন্দেহে জনমানসে রেখাপাত করতে শুরু করেছে। তাঁর ব্যক্তিগত সততার ইমেজটি জনসংযোগ তৈরির প্রতিযোগিতার দৌড়ে শাসক দলকে বেশ কিছুটা এগিয়ে রেখেছে। শাসক দল হওয়ার সুবাদে অবশ্যই তা তৃণমূল দলের প্লাস পয়েন্ট। জনসংযোগ বৃদ্ধির জন্য চেষ্টার কোনও ত্রুটি রাখছে না বিজেপিও। তবে, উভয় দলের সামনে এখন যে সমস্যাটি বড় আকার নিচ্ছে তা হল—দলীয় কর্মী-সমর্থকদের একাংশের মধ্যে, এমনকী কোনও কোনও নেতারও লুটেপুটে খাওয়ার নীতি যা জনমানসে বিরূপ প্রতিক্রিয়া তৈরি করছে। দুর্নীতিগ্রস্তরা যেভাবে আর্থিক দিক থেকে ফুলেফেঁপে ঢোল হচ্ছে, তা দৃষ্টিকটু। শুদ্ধকরণের কোনও দাওয়াই যেন ঠিকমতো কাজ করছে না। দ্ব্যর্থহীন ভাষায় বার বার তৃণমূল নেত্রী সংশ্লিষ্ট দুর্নীতিগ্রস্ত নেতা-কর্মীদের সতর্ক করলেও কাজের কাজ কতটা হচ্ছে তা বলা শক্ত। তবে, একটা আশা তো জাগছেই। পুলিসমন্ত্রী হয়েও এবার তাঁকে দুর্নীতিপরায়ণ, জুলুমবাজ, ঘুষ নেওয়ার ঘটনায় অপরাধী পুলিসকর্মীদের একাংশের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে হল। সোমবার বর্ধমানের প্রশাসনিক পর্যালোচনা বৈঠকে তিনি বলেছেন, পুলিসের একটা অংশ সিভিক ভলান্টিয়ারদের দিয়ে টাকা তোলাচ্ছে, বলা হচ্ছে, ‘কলকাতায় টাকা পাঠাতে হবে’। আমি জানতে চাই, কলকাতায় কে টাকা চাইছে? কাকে টাকা পাঠাতে হয় কলকাতায়? এর বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নিতেই হবে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই অকপট বিস্ফোরক মন্তব্যটি নিঃসন্দেহে ভুক্তভোগীদের খুশি করবে। তিনি যেন মানুষের মনের কথাটিই বলেছেন, সত্যের অপলাপ করেননি। এর আগেও তিনি মানুষের স্বার্থে রাজ্য সরকারের নানা জনমুখী প্রকল্প থেকে টাকা কেটে নেওয়ার অনিয়মের অভিযোগ তুলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। কাটমানি খাওয়ার বিরুদ্ধে হুঙ্কার ছেড়েছেন। জনপ্রতিনিধিদেরও একহাত নিতে ছাড়েননি।
তিনি শুধু নবান্নে বসে নির্দেশ জারি করে রাজ্য প্রশাসনের কাজকর্ম চালান না। বার বার জেলায় গিয়ে প্রশাসনিক বৈঠক করার সুবাদে সরাসরি তিনি সেখানকার হাল হকিকৎ জানতে পারেন বা সমস্যা দুর্নীতির বিষয়টিও তাঁর নজরে আসে। দুর্নীতি অনিয়ম রোধের জন্য তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্তও নেন। একথা ঠিক, সরকারি স্তরে বা পুলিসের কাজে কোনও দুর্নীতি ঘটলে অবশ্যই তার দায়ভার সরকারের উপর বর্তায়। বলা যায়, তাঁরাই তো সরকারের মুখ। এটা বুঝতে পেরেই এবার তিনি কথাচ্ছলে পুলিসের আইসিদের উদ্দেশে বলেছেন, ‘‘আপনারা সরকারের মুখ। ভালো করলে যেমন কৃতিত্ব পান তেমনি খারাপ কাজ করলে প্রশ্ন ওঠে সরকার আর আমার দলের বিরুদ্ধে। এসব চলবে না। কড়া ব্যবস্থা নিতে হবে।’’ আমলাতান্ত্রিক প্রতিবন্ধকতার বিরুদ্ধেও সরব হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর স্পষ্ট বার্তা, সরকারি জনমুখী প্রকল্পগুলি গরিব ও প্রান্তিক মানুষের জন্য। এটা নিয়ে যেন কোনও জালিয়াতি না-হয়।
মুখ্যমন্ত্রী একাধিক বার দুর্নীতিগ্রস্তদের বিরুদ্ধে কড়া হুঁশিয়ারি দিলেও বহু ক্ষেত্রে দেখা গিয়েছে, দলীয় কর্মী নেতাদের একাংশকে যেন কোনোভাবেই সবক শেখানো যাচ্ছে না। তাই, দুর্নীতিগ্রস্ত যারা (তা সে সরকারি কর্মী অফিসার দলীয় নেতা কর্মী বা পুলিস যে-ই হোক না কেন) তাদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়াটা জরুরি। বাম জমানা থেকেই দুর্নীতির যে মানসিকতা বা ট্রাডিশন চলছে তার থেকে কিছুতেই মুক্ত হতে পারছে না আমাদের রাজ্য। শুধু এই সমস্যাটা শাসক দল তৃণমূলের অন্দরেরই নয়, বিরোধী দলগুলির মধ্যেও একই ধরনের সমস্যা আছে। এই কারণেই হয়তো বিজেপির নাম ভাঙিয়ে ব্যাঙের ছাতার মতো গজিয়ে ওঠা ভুয়ো ট্রেড ইউনিয়নগুলি টাকা তুলতে সক্ষম হচ্ছে। ওইসব সংগঠনের স্বঘোষিত নেতারা রাজ্যের বিভিন্ন জেলা থেকেও টাকা তুলছে বলে অভিযোগ, যা বিজেপির ভাবমূর্তির পক্ষেও ভালো নয়। খবরে প্রকাশ, গেরুয়া শিবিরও এসব রোধে কড়া পদক্ষেপ করতে চলেছে। তাই এই মুহূর্তে রাজ্যের একাধিক রাজনৈতিক দলের কাছে ভাবমূর্তি রক্ষা করাটাই বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়াচ্ছে। শাসক দল বা বিরোধী যেই হোক, তাদের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে হলে দলীয় স্বার্থেই দোষীদের বিরুদ্ধে কড়া শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। মনে রাখতে হবে, একবার মানুষের বিশ্বাস ভঙ্গ হলে পুরনো আস্থা ফিরে পাওয়াটা অনেক বেশি কষ্টসাধ্য ও সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। সেক্ষেত্রে শুধু ‘দিদিকে বলো’ বা ‘দাদার চা চক্র’ কর্মসূচিতে মানুষের অভিযোগ শুনলেই হবে না, আন্তরিকতার সঙ্গে সেসবের প্রতিকারও করতে হবে। মুখ্যমন্ত্রী ইতিমধ্যেই সেই কাজটি শুরু করেছেন। এবার দেখা যাক, রাজনৈতিক দলগুলি সত্যিই দলের দুর্নীতিগ্রস্তদের সবক শেখাতে পারে কি না।
28th  August, 2019
কুর্নিশ, অভিনন্দন

 আদ্যন্ত একজন বাঙালি, যিনি বিশ্বের দরবারে দেশের মুখ উজ্জ্বল করলেন। দেখালেন অর্থনীতির নতুন দিশা। ঝরঝরে বাংলাতে কথা বলেন। বাংলাতে লেখেনও। বিশ্বজয়ী এই বাঙালি অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়। বিশদ

বিপদের সময় দরকার ঐক্যবোধ

ভালোই হয়েছে। একদিনের মধ্যে যে মন্ত্রীমশাই নিজের ভুল বুঝতে পেরেছেন, সেটাই যথেষ্ট। সিনেমার টিকিট বিক্রি থেকে যদি দেশের অর্থনীতির বিচার করা হয়, তবে সে বিচার কতটা যুক্তিযুক্ত হবে, তা বোঝার জন্য দিগ্‌গজ হওয়ার দরকার নেই।
বিশদ

15th  October, 2019
বিবর্ণ হচ্ছে ভারতীয় অর্থনীতি! 

আশঙ্কা আগেই করা হয়েছিল। তাই সত্যি হতে চলেছে। উৎসবের মরশুমেই ভারতীয় রেলকে বেসরকারি হাতে তুলে দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করল নরেন্দ্র মোদি সরকার। প্রাথমিকভাবে ১৫০টি যাত্রিবাহী ট্রেন এবং ৫০টি রেল স্টেশনের দায়িত্বভার বেসরকারি হাতে তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেল মন্ত্রক। 
বিশদ

14th  October, 2019
বন্ধু সেজে বিপদ নয় তো? 

কাঞ্চী সফরে হিউয়েন সাং যখন এসেছিলেন, সময়টা ৬৪২ খ্রিস্টাব্দ। দক্ষিণ ভারতের সঙ্গে চীনের আত্মিক যোগাযোগের সেটাই সূচনা। তাই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে চীনা প্রেসিডেন্ট জি জিনপিং যখন ‘ইনফর্মাল বৈঠকে’ সাড়া দিলেন, ভারতও এই দুই রাষ্ট্রনেতার মোলাকাতের গন্তব্য স্থির করে নিল দক্ষিণ ভারতই। সেই কাঞ্চিপুরম জেলা। মহাবলীপুরম। 
বিশদ

13th  October, 2019
ফড়েরাজ দমনে তৎপরতা দরকার 

প্রাকৃতিক সম্পদে ভরপুর আমাদের রাজ্য পশ্চিমবঙ্গ। একদিকে সমুদ্র, অন্যদিকে পাহাড় ও জঙ্গল। মালভূমি-তরাই অঞ্চল—সবই আমাদের রাজ্যকে দৃশ্যত নান্দনিক সৌন্দর্য ও ঐশ্বর্যশালী করে রেখেছে। কিন্তু, দুঃখের এই যে, ধনশালীরা এই ঐশ্বর্যকে কুক্ষিগত করার চেষ্টা চালায়। আর সেই কারণে এই প্রাকৃতিক সম্পদের প্রকৃত মালিকরা দীনদরিদ্র হিসেবেই বংশপরম্পরায় কাটিয়ে যাচ্ছে। 
বিশদ

12th  October, 2019
সুদের হার হ্রাসে সুরাহা হবে কি? 

বছর পাঁচেক আগেও বৃদ্ধির নিরিখে ভারতের অর্থনীতিকে সমীহ করছিল দুনিয়া। সবচেয়ে দ্রুতগতির অর্থনীতির প্রশ্নে ভারত সমানে টক্কর দিচ্ছিল চীনের সঙ্গে। আন্তর্জাতিক অর্থভাণ্ডার (আইএমএফ) এবং বিশ্ব ব্যাঙ্ক সহ বিভিন্ন শীর্ষ সংস্থা ভারতকে নিয়ে একাধিক আশাপ্রদ ভবিষ্যদ্বাণীও করেছিল। ভারতে বৈদেশিক পুঁজি বিনিয়োগের পরিসর চওড়া হচ্ছিল।
বিশদ

11th  October, 2019
উৎসব যেন দূষণ বৃদ্ধি না-করে  

মঙ্গলবার চলে গেল বিজয়া দশমী। মা দুর্গা সপরিবারে ফিরে গেলেন কৈলাসে। রয়ে গেল মণ্ডপে মণ্ডপে মাটির প্রতিমাগুলি। নিষ্প্রাণ! আর রয়ে গেল নিভে যাওয়া আলোকসজ্জা, হঠাৎ গ্রাস করা নিস্তব্ধতা। আঁধারে ডুবে যাওয়া মণ্ডপগুলি আমাদের আকর্ষণ করে না, দৃশ্যত সুসজ্জিত থেকেও।
বিশদ

10th  October, 2019
শুভশক্তি জেগে উঠুক 

দুর্গা পুজো ভালো কাটুক। মঙ্গল হোক জীবকুলের প্রতিটি প্রাণের। অক্ষয় হোক মানবজীবনের কল্যাণব্রতের। আজ, বঙ্গজীবন তথা ভারতীয় জাতির মন ও মননে উৎসবের আনন্দ। দেবীর আগমনের শুভালোকে প্রজ্জ্বলিত হবে সমগ্র সভ্যতার বর্তিকা। শারদীয়া উৎসবের এই সূচনালগ্নে দূর হয়ে যাক জীবনের যত অশুভ চিন্তা। ধ্বংস পাক চরিত্রের যত অসুরশক্তি। বিনাশ হোক পাপের। 
বিশদ

05th  October, 2019
দুর্গোৎসব আর বাংলা সমার্থক 

কলকাতায় সর্বজনীন দুর্গাপুজোর আয়োজন হয়েছে প্রায় ২৬০০ মণ্ডপে। পুজোর আয়োজন মহানগরের পাড়ায় পাড়ায় বললে অত্যুক্তি হবে না। সপ্তাহব্যাপী দেবী দুর্গার আরাধনাকে কেন্দ্র করে কলকাতা সবরকমে সেজে উঠেছে। সেজে উঠেছে ছোট বড় সব শহর, এমনকী প্রান্তিক গ্রামগুলিও। 
বিশদ

04th  October, 2019
বাঙালি যেন টার্গেট না-হয়  

শরৎ হল প্রধান উৎসবের ঋতু, বিশেষত বাঙালির জন্য। বাঙালি এমনিতেই এক আমুদে জাতি। এইসময় তার আনন্দ যেন বাঁধাভাঙা হয়ে ওঠে। আনন্দ-উপভোগ বহু কৌণিক করে তুলতে বাঙালি তার সবটুকু উজাড় করে দেয় শরতে। বহির্বঙ্গে, এমনকী বহির্ভারতে প্রবাসী বাঙালি চেষ্টা করে বাংলায় তার ঘরে ফিরে আসতে, সারা বছর সম্ভব না-হলে অন্তত এই একটি বার। 
বিশদ

03rd  October, 2019
দরকার স্বাস্থ্য সচেতনতা 

যতদিন যাচ্ছে, আমরা ততই উন্নত হচ্ছি। বিজ্ঞানে, সভ্যতায় ও সংস্কৃতিতে। কিন্তু আমরা অনেকে ক্রমেই হারিয়ে ফেলছি আমাদের স্বাস্থ্য সচেতনতা। সম্প্রতি ওয়ার্ল্ড হার্ট ডে উপলক্ষে প্রকাশিত এক রিপোর্টে দেখা যাচ্ছে, প্রতি বছরে হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের বলি হচ্ছেন দেড় কোটি মানুষ। 
বিশদ

02nd  October, 2019
লক্ষ্মীলাভের সম্ভাবনা 

দেবীপক্ষ চলছে। পুজোও এসে গেল। বাঙালির মহাপুজোর মহোৎসব শুরু হচ্ছে রাজ্যজুড়ে। মনে প্রাণে উৎসবে আবেগে উচ্ছ্বাসে মানুষ এই সময় গা ভাসাতে চাইলেও খুব একটা স্বস্তিতে নেই আম জনতা।   বিশদ

01st  October, 2019
দেউলিয়া হয়ে গিয়েছেন ইমরান! 

একান্ত ঘনিষ্ঠ ব্যক্তিদের সম্মান দেখানোর অংশ হিসেবে সৌদি সরকার সাধারণত কাবা শরিফের দরজা খুলে দেয়। এটাই নাকি রীতি। আর পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের জন্য সৌদি ক্রাউন প্রিন্স মহম্মদ বিন সলমন এবার সেই কাবা শরিফের দরজা খুলে দিয়েছিলেন। 
বিশদ

30th  September, 2019
অস্ত্র পাচার ও পাক দ্বিচারিতা 

একদিকে ড্রোনের মাধ্যমে ভারতে অস্ত্র পাচার, অন্যদিকে রীতিমতো জঙ্গিবাহিনীকে অনুপ্রবেশের জন্য সীমান্তের ওপারে তৈরি রাখা। রাষ্ট্রসঙ্ঘে নানা অজুহাত খাড়া করে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান কিংবা তাঁর বিদেশমন্ত্রী যতই ভারত বিরোধিতার জিগির তোলার চেষ্টা করুন না কেন, ইসলামাবাদের দ্বিচারিতা বেআব্রু হতে বেশি সময় লাগে না। এই দু’টি ঘটনা তারই প্রমাণ। 
বিশদ

29th  September, 2019
শুভ চেতনা উঠুক জ্বলে

 আজ মহালয়া। ভোররাতে আকাশবাণীতে বীরেন্দ্রকৃষ্ণ ভদ্রের কণ্ঠে স্তোত্রপাঠের সঙ্গে সঙ্গে বুকের মাঝে যেন বেজে ওঠে আগমনির সুর। নীল আকাশে পেঁজা তুলোর মতো মেঘের কোলে শিউলি আর কাশ ফুলের শোভায় গ্রামবাংলার রূপ যেন ফেটে পড়ে।
বিশদ

28th  September, 2019
বিরাট যুদ্ধজয়ের লক্ষ্যে ভারত

 যক্ষ্মা একটি অত্যন্ত পুরনো রোগ। মানুষের নানা অঙ্গ প্রত্যঙ্গে এই রোগ বাসা বাঁধতে সক্ষম। তবে সবচেয়ে বেশি আক্রমণের শিকার হয় ফুসফুস। যক্ষ্মার জীবাণু যে-প্রত্যঙ্গে বাসা বাঁধে তাকে কুরে কুরে খেয়ে ফেলে। অর্থাৎ ওই প্রত্যঙ্গের ক্ষয়সাধন করে। তাই এটি ক্ষয়রোগ নামেও চিহ্নিত হয়। বিশদ

27th  September, 2019
একনজরে
 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: বৃদ্ধাকে বিমার টাকা পাইয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ৪০ লক্ষ টাকা প্রতারণা করার অভিযোগে ১৬ জনকে গ্রেপ্তার করল বিধাননগর সাইবার থানার পুলিস। সোমবার সন্ধ্যায় সেক্টর ফাইভের ডিএন ব্লকের একটি অফিস থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ...

 তাল তামর (সিরিয়া) ও ওয়াশিংটন, ১৫ অক্টোবর (এএফপি ও পিটিআই): সিরিয়ার উত্তরপূর্ব প্রান্তে তুরস্কের সামরিক বাহিনীর আগ্রাসনে বেশ খানিকটা জমি হারাতে হয়েছে কুর্দদের। এর পাল্টা আঙ্কারার বিরুদ্ধে বেশ কিছু প্রশাসনিক পদক্ষেপ নিল আমেরিকা। ...

 সৌম্যজিৎ সাহা, কলকাতা: পড়াশোনা চলাকালীন পড়ুয়াদের হাতে-কলমে কাজ শেখার জন্য ইন্টার্নশিপ বাধ্যতামূলক করেছে এআইসিটিই। তবে দেখা যাচ্ছে, নিজেদের উপযোগী করে তোলার ক্ষেত্রে আগ্রহ কম পশ্চিমবঙ্গের ছাত্রছাত্রীদের। অল ইন্ডিয়া কাউন্সিল অব টেকনিক্যাল এডুকেশনের এক সমীক্ষায় উঠে এসেছে এই তথ্য। ...

বিএনএ, সিউড়ি: বিজেপি নেতা ধ্রুব সাহা ও অতনু চট্টোপাধ্যায়কে ফের সিউড়ি আদালতে তোলা হল। পুরনো মামলায় তাঁরা মাসখানেক ধরে সংশোধনাগারেই ছিলেন। এদিন তাঁদের ফের সিউড়ি আদালতে তোলা হয়।  ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

উচ্চবিদ্যায় ভালো ফল হবে। কর্মপ্রার্থীদের ক্ষেত্রে সুযোগ আসবে। কোনও প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় সাফল্য আসবে। ব্যবসায় যুক্ত ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

বিশ্ব খাদ্য দিবস
১৯০৫: বঙ্গভঙ্গ হয়
১৯২৩: দি ওয়াল্ট ডিজনি সংস্থা প্রতিষ্ঠা হয়
১৯২৭: নোবেল পুরস্কার বিজয়ী জার্মান সাহিত্যিক, চিত্রকর, ভাস্কর এবং নাট্যকার গুন্টার গ্রাসের জন্ম
১৯৪৮: অভিনেত্রী হেমা মালিনীর জন্ম
১৯৫১: রাওয়ালপিন্ডিতে খুন হন পাকিস্তানের প্রথম প্রধানমন্ত্রী লিয়াকত আলি খান
১৯৬৪: প্রথম পরমাণু বিস্ফোরণ ঘটাল চীন





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৪৬ টাকা ৭২.১৬ টাকা
পাউন্ড ৮৮.৩২ টাকা ৯১.৬১ টাকা
ইউরো ৭৭.১৯ টাকা ৮০.১৭ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৯,১৭০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৭,১৬৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৭,৭২০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৫,৯০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৬,০০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২৯ আশ্বিন ১৪২৬, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার, দ্বিতীয়া ০/২১ প্রাতঃ ৫/৪৫। ভরণী ২১/৫১ দিবা ২/২১। সূ উ ৫/৩৬/৫৪, অ ৫/৭/৫৮, অমৃতযোগ দিবা ৬/২৩ মধ্যে পুনঃ ৭/৯ গতে ৭/৫৫ মধ্যে পুনঃ ১০/১৩ গতে ১২/৩২ মধ্যে। রাত্রি ৫/৫৯ গতে ৬/৪৯ মধ্যে পুনঃ ৮/২৯ গতে ৩/৭ মধ্যে, বারবেলা ৮/৩০ গতে ৯/৫৬ মধ্যে পুনঃ ১১/২৩ গতে ১২/৪৯ মধ্যে, কালরাত্রি ২/৩০ গতে ৪/৪ মধ্যে।
২৮ আশ্বিন ১৪২৬, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার, তৃতীয়া ৫৯/১০/৩৯ শেষরাত্রি ৫/১৭/৩৫। ভরণী ২১/৩৭/১৬ দিবা ২/১৬/১৩, সূ উ ৫/৩৭/১৯, অ ৫/৯/১৯, অমৃতযোগ দিবা ৬/৩০ মধ্যে ও ৭/১৫ গতে ৭/৫৯ মধ্যে ও ১০/১৩ গতে ১২/২৭ মধ্যে এবং রাত্রি ৫/৪৭ গতে ৬/৪৮ মধ্যে ও ৮/২১ গতে ৩/১১ মধ্যে, বারবেলা ১১/২৩/১৯ গতে ১২/৪৯/৪৯ মধ্যে, কালবেলা ৮/৩০/১৯ গতে ৯/৫৬/৪৯ মধ্যে, কালরাত্রি ২/৩০/১৯ গতে ৪/৩/৪৯ মধ্যে।
১৬ শফর

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
অনন্তনাগে পুলিস-জঙ্গি গুলির লড়াই 

10:32:03 AM

শহরে ট্রাফিকের হাল
আজ, বুধবার সকালে শহরের রাস্তাঘাটে যান চলাচল মোটের উপর স্বাভাবিক। ...বিশদ

10:25:27 AM

ওড়িশার মালকানগিরিতে ১৫০ কেজি নিষিদ্ধ মাদক সহ গ্রেপ্তার ২ 

10:20:00 AM

  বৌদ্ধধর্ম গ্রহণ করা নিয়ে মায়াবতীর কড়া সমালোচনায় সরব বিজেপি
সঠিক সময়ে বৌদ্ধধর্ম গ্রহণ করবেন বলে জানিয়েছিলেন মায়াবতী। মহারাষ্ট্রে নির্বাচনী ...বিশদ

09:57:06 AM

আলিপুরের সৌজন্য ভবনে আজ মন্ত্রিসভার বৈঠক
আজ, বুধবার রাজ্য সরকারের অতিথিশালা আলিপুরের ‘সৌজন্য ভবন’-এ রাজ্য মন্ত্রিসভার ...বিশদ

09:56:13 AM

সংখ্যালঘু মেধাবী পড়ুয়াদের জন্য বিশেষ কোচিং রাজ্যের
প্রতিযোগিতামূলক সরকারি চাকরির প্রস্তুতিতে মেধাবী সংখ্যালঘু পড়ুয়াদের জন্য বিশেষ প্রশিক্ষণের ...বিশদ

09:43:20 AM