Bartaman Patrika
সম্পাদকীয়
 

ঐতিহাসিক সাহসী পদক্ষেপ 

মোদি সরকার দ্বিতীয় দফায় ক্ষমতায় এসে একের পর এক সাহসী পদক্ষেপ করছে। স্বাধীন ভারতের ইতিহাসে যা ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত। অতীতের বিভিন্ন সরকারের তুলনায় এই সরকার যে অনেক বেশি আগ্রাসী এবং সক্রিয় তা রাজ্যসভায় বিল পাসের মাধ্যমে ৩৭০ ধারাটি খারিজ করে প্রমাণ করে দিল। অর্থাৎ সংবিধানের ৩৭০ ধারায় জম্মু ও কাশ্মীরকে প্রদান করা বিশেষ আইনি অধিকার ও মর্যাদাকে বিলুপ্ত করা হচ্ছে। লোকসভায় বিলটি পাস হওয়ায় লাদাখ এবং জম্মু-কাশ্মীর দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে পরিগণিত হল। অর্থাৎ জম্মু ও কাশ্মীর পূর্ণ রাজ্য আর থাকল না। খারিজ হল ৩৫এ ধারাটিও। ফলে, জম্মু ও কাশ্মীরের বাসিন্দাদের স্পেশাল স্টেটাস আর থাকছে না। বলা যায়, নজিরবিহীন এই সিদ্ধান্তটির মাধ্যমে বিজেপি তাদের পুরনো অ্যাজেন্ডাকেই বাস্তবায়িত করল। এভাবে পূরণ করল শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের স্বপ্নকে। ঐতিহাসিক এই সিদ্ধান্তটি সঠিক, না ভুল, না কি মোদি সরকারের গা-জোয়ারি একতরফা সিদ্ধান্ত, তা নিয়ে বিতর্ক হতেই পারে। উঠতে পারে পদ্ধতি নিয়ে প্রশ্ন। তবে, সিদ্ধান্তটি সঠিক কি না, তা সময়ই বলবে। এই মুহূর্তে যে বিষয়টি অত্যন্ত জরুরি তা হল ভূস্বর্গে শান্তি ফিরিয়ে আনা এবং সেখানকার মানুষের নিরাপত্তা রক্ষা। তাঁদের দুশ্চিন্তামুক্ত করতেই হবে সরকারকে। স্বাধীনতার পর থেকে বারবার রক্তাক্ত হয়েছে ভূস্বর্গ। প্রতিটি ভারতবাসী চায়, কাশ্মীর সমস্যার স্থায়ী সমাধান হোক। নতুন করে কাশ্মীরে আর যাতে কোনোরকম অপ্রীতিকর কোনও ঘটনা না-ঘটে সেদিকে লক্ষ রাখা প্রশাসনের দায়িত্ব ও কর্তব্য। একথা ঠিক, এতদিন পর্যন্ত ৩৭০ ধারা বলে কাশ্মীরবাসীরা নাগরিকত্ব, সম্পত্তির অধিকার, মৌলিক অধিকার সংক্রান্ত একগুচ্ছ বিশেষ অধিকার ভোগ করতেন যা ভারতীয় সংবিধান থেকে পৃথক। সেই আইনের সুবাদে ভারতের অন্য রাজ্যের বাসিন্দারা কাশ্মীরে সম্পত্তি জমি কিনতেও পারতেন না। এই দীর্ঘ ইতিহাসের এবার অবসান হচ্ছে। প্রশ্ন উঠছে, সেখানকার স্বাধিকার নিয়ে। তবে, লোকসভায় বিলটি পাস হওয়ায় এবার কাশ্মীরের বাইরে থাকা ভারতবাসীরাও জম্মু ও কাশ্মীরে জমি কিনে সেখানে স্থায়ীভাবে বসবাস করতে পারবেন। সম্পত্তিও করতে পারবেন। শিল্পস্থাপন থেকে ব্যবসা, শিক্ষা, জীবিকা, বিবাহ প্রভৃতি কোনও ক্ষেত্রেই আর প্রতিবন্ধকতা রইল না। অর্থাৎ, লগ্নির পথটিও সুগম হল। অন্যান্য কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের মতোই জম্মু ও কাশ্মীরেও পৃথক বিধানসভা থাকবে, তবে লাদাখে তা থাকছে না।
কাশ্মীর আমাদের, ভারতের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ—এ দাবি সব ভারতবাসীর। অথচ, নিয়ন্ত্রণরেখা লঙ্ঘন করে সীমান্ত দিয়ে জঙ্গি ঢুকিয়ে পাকিস্তান বারবার কাশ্মীরকে অশান্ত করে তুলেছে। সেখানে ঘটেছে অন্তহীন রক্তক্ষরণ। এবার কাশ্মীরে সরাসরি কেন্দ্রীয় সরকারের নিয়ন্ত্রণ বলবৎ হলে স্বাভাবিকভাবেই পাকিস্তান চাপে পড়বে। প্রতিরক্ষার ক্ষেত্রে ভারতের এটি একটি অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত। বিচ্ছিন্নতাবাদী সন্ত্রাসবাদীদের উদ্দেশেও এভাবেই কড়া বার্তা দিল ভারত। তাই ৩৭০ ধারা খারিজের সিদ্ধান্ত প্রসঙ্গে ইতিমধ্যেই পাক প্রশাসন হুঙ্কার ছাড়তে শুরু করেছে। এটি ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয় হলেও পাকিস্তান নাক গলাতে ছাড়ছে না। মোদির মিশন কাশ্মীরকে বাস্তবায়িত করতে যে বিষয়টি সবচেয়ে সহায়ক হয়েছে তা হল তাদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা। মোদি সরকারের ম্যানেজমেন্ট অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে বিরোধী ঐক্যে ফাটল ধরিয়ে এই মাস্টার স্ট্রোকটি দিতে সক্ষম হল। তবে, গণতন্ত্রে বিরোধী বক্তব্য নিঃসন্দেহে গুরুত্বপূর্ণ। সেক্ষেত্রে তাদের বক্তব্যে যৌক্তিকতা থাকলে তা বিবেচনার মধ্যে রাখার প্রয়োজনকে অস্বীকার করা যায় না। আইনত দিককেও মান্যতা দিতে হবে।
বেশ কিছুদিন ধরেই কাশ্মীরের কী হতে চলেছে তা নিয়ে জল্পনা চলছিল। সেখানে বাড়ানো হচ্ছিল নিরাপত্তা। অমরনাথযাত্রা বাতিলের পর প্রত্যেক পর্যটককে কাশ্মীর ছাড়তে নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। মোতায়েন হয়েছে আধাসেনা। প্রশ্নটা হল ৩৭০ ধারা খারিজ করেই কি কাশ্মীরের সঙ্কট মোকাবিলা করা যাবে? সেখানে শান্তি ফিরবে? সত্যিই যদি সরকার সেখানে শান্তি ফেরাতে আগ্রহী হয় তাহলে সবার আগে দরকার সেখানকার উন্নয়ন, শিক্ষার প্রসার, কর্মসংস্থান, ঘোচাতে হবে দারিদ্র্য। দারিদ্র্যের কারণে যেসব যুবক সেখানে বিপথগামী হচ্ছেন তাঁদেরকে স্বাভাবিক জীবনে ফেরানোর দায়িত্ব নিতে হবে সরকারকে। সেনা আধাসেনা মোতায়েন করে বা দমন-পীড়নের মাধ্যমে বিপথগামীদের জীবনের স্বাভাবিক ছন্দে ফেরানো খুব সহজসাধ্য বিষয় নয়। তাঁদের মনে জাগাতে হবে জাতীয়তা বোধ, যাতে তাঁরা ভারতবাসী হিসেবে গর্ববোধ করতে পারেন। পরিবর্তন আনতে হবে মন ও মননে। দারিদ্র্যদূরীকরণ, কর্মসংস্থান আর উন্নয়নই পারবে কাশ্মীরের আজকের পরিস্থিতির উন্নতি ঘটাতে। ভারতের অখণ্ডতা রক্ষার স্বার্থে কেন্দ্রীয় সরকার যদি কাশ্মীর সমস্যার সমাধানে আগ্রহী হয় তাহলে সেখানকার উন্নয়নের কাজটিতে অগ্রাধিকার দিয়েই এগতে হবে। ৩৭০ ধারা খারিজের পর সেখানে বিনিয়োগের রাস্তাটি খুলে গিয়েছে, যার ফলে আর্থিক উন্নয়নের বিষয়টিও সুগম হবে। আর শান্তি ফিরলেই সেটা সম্ভব। বলা যায়, এ ব্যাপারে কেন্দ্রীয় সরকারের সদর্থক ভূমিকা আর শাসক দলের রাজনৈতিক সদিচ্ছার দিকে তাকিয়ে আছেন শান্তিপ্রিয় কাশ্মীরবাসীরা।  
07th  August, 2019
আরও এক দেশাত্মবোধ

 এবারের সাধারণতন্ত্র দিবস দেখল দুই ধরনের দেশাত্মবোধ। একদিকে সিএএ নিয়ে অনড় বিজেপি নেতৃত্বাধীন কেন্দ্রীয় সরকার, অন্যদিকে সিএএ বিরোধী সাধারণ মানুষ। একদিকে নয়াদিল্লির রাজপথে চলল সাধারণতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজ। অন্যদিকে শাহিনবাগে উজ্জীবিত প্রতিবাদের মধ্য দিয়ে উড়ল তেরঙ্গা পতাকা।
বিশদ

এই দেশ সাধারণের জন্য 

১৯২৯ সালের ২৬ জানুয়ারি। ওই তারিখেই পূর্ণ স্বরাজ ঘোষণা করেছিল কংগ্রেস। শপথ নিয়েছিল, ব্রিটিশ শাসন থেকে দেশকে মুক্ত করার। স্বাধীনতা পেয়েছিল ভারত। তবে তার জন্য অপেক্ষা করতে হয়েছিল আরও ১৮ বছর। পূর্ণ স্বরাজ ঘোষণার দিনকে মর্যাদা দিতেই ২৬ জানুয়ারি তারিখটিকে সাধারণতন্ত্র দিবস ঘোষণা করা হয়।  
বিশদ

26th  January, 2020
নজরদারি দরকার 

শিশুর খাবারের তালিকায় এমন কোনও কিছু রাখা উচিত নয় যা তার স্বাস্থ্যে বিরূপ প্রভাব ফেলে। একটি শিশু ভূমিষ্ঠ হওয়ার পর তার পুষ্টি ও স্বাস্থ্য গঠনের জন্য মাতৃদুগ্ধই সেরা খাদ্য। এক্ষেত্রে কোনও দ্বিমত নেই। এই কারণেই বলা হয় মাতৃদুগ্ধের কোনও বিকল্প নেই। শিশুটি যখন ধীরে ধীরে বড় হয় তখন দুধ ছাড়াও অন্যান্য খাদ্য গ্রহণের প্রয়োজন পড়ে।
বিশদ

25th  January, 2020
রক্ষক যখন ভক্ষক 

 রক্ষক যখন ভক্ষক হয়ে যায় তখন বিপদের আশঙ্কা অনেকটাই বেড়ে যায়। শুধু সাধারণ মানুষের নয়, দুশ্চিন্তা বেড়ে যায় সরকারেরও। লালগড় থানায় এমনই একটা ঘটনা ঘটেছে, যা সাধারণ মানুষের তো বটেই প্রশাসনের মাথাদেরও মাথাব্যথার পক্ষে যথেষ্ট। বিশদ

24th  January, 2020
ভারতের মন্দায় বিশ্ব উদ্বিগ্ন 

গত বছরের মাঝামাঝি প্রখ্যাত অর্থনীতিবিদ অরবিন্দ সুব্রামনিয়ান দাবি করেছিলেন, ভারতের মোট জাতীয় উৎপাদন বৃদ্ধির হারটি সরকার ফাঁপিয়ে দেখিয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকারের প্রাক্তন মুখ্য অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. সুব্রামনিয়ানের একটি গবেষণাপত্রে বক্তব্য ছিল, ২০১১-১২ থেকে ২০১৬-১৭ সময়কালের ভিতরে দেশের জিডিপি বৃদ্ধি বাস্তবে যে-হারে ঘটেছিল, সরকারি পরিসংখ্যানে তার থেকে ২.৫ শতাংশ বেশি দেখানো হয়েছিল। 
বিশদ

23rd  January, 2020
যাত্রী প্রত্যাখ্যানের বদ অভ্যাস

 কোণঠাসা হয়েও শিক্ষা নেই। নেই লাজলজ্জার বালাই। যাঁদের ক্ষেত্রে এই কথাটি প্রযোজ্য তাঁরা হলেন ‘নো রিফিউজাল’ লেখা বহু হলুদ ট্যাক্সির চালক। মুষ্টিমেয় কয়েকজনকে বাদ দিলে যাত্রীপ্রত্যাখ্যান বা অতিরিক্ত টাকা দাবি করাটা তাঁদের বদ অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। বিশদ

22nd  January, 2020
বারবার এমন পদক্ষেপ কেন? 

একশো দিনের কাজে দেশে সেরার স্বীকৃতি পেয়েছে পশ্চিমবঙ্গ। একবার নয়, পরপর চারবার। সম্প্রতি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ফেসবুক পেজে নিজেই এই তথ্য প্রকাশ করেছেন।
পঞ্চায়েত দপ্তরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, সর্বশেষ ওই পুরস্কার মিলেছে ২০১৮-১৯ অর্থবর্ষের জন্য। ওই সময়ে রাজ্যে শ্রমদিবস তৈরি হয়েছে ২৮ কোটি। 
বিশদ

21st  January, 2020
সর্ষের মধ্যেই ভূত লুকিয়ে 

দেবীন্দর সিং। ১৯৯০ সাল থেকে খাকি উর্দি গায়ে চাপাবার পর থেকেই তাঁর সাহস ও বীরত্বের প্রশংসা ছিল পুলিস-প্রশাসনে। উপত্যকার একাধিক এনকাউন্টারে সফল তিনি। একসময় ছিলেন পুলিসের স্পেশাল অপারেশন গ্রুপেও (এসওজি)। কর্মজীবনে পেয়েছেন একাধিক পুরস্কার। সেই পুলিসকর্তার সঙ্গে জঙ্গি সংগঠন হিজবুল মুজাহিদিনের যোগ?  
বিশদ

20th  January, 2020
গুলি চালিয়ে প্রতিবাদের অধিকার হরণ গণতন্ত্র নয় 

ফের তিন বছরের জন্য বিজেপির রাজ্য সভাপতি হলেন দিলীপ ঘোষ। এবং তা যাবতীয় জল্পনা উড়িয়ে। বেশ কয়েকদিন ধরেই বিজেপির একাংশ থেকে শোনা যাচ্ছিল, দিলীপ ঘোষের উপর নাকি আর আস্থা রাখতে পারছে না কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। ফলে তাঁর জায়গায় রাজ্য সভাপতি হিসেবে অন্য কাউকে দায়িত্বে আনা হবে। আদৌ তা হল না।  
বিশদ

19th  January, 2020
জাগ্রত বিবেক 

বেশ কিছুকাল আগের একটি সিনেমায় দেখা সংলাপের কিছু কথা ঘুরেফিরে মনে আসছে। যেখানে একটি চরিত্র বলছে যে, আজকাল ট্যাক্সি চালক যাত্রীর টাকার ব্যাগ ফেরত দিলে, খবর লেখা হয়। কিন্তু, সেটাই তো তাঁর কর্তব্য। অর্থাৎ, আমাদের সমাজটা আজ সিঁড়ি বেয়ে নীচে নামতে নামতে একবারে অতলে তলিয়ে যাচ্ছে।  
বিশদ

18th  January, 2020
ফের সামনে এল নোটবন্দির ব্যর্থতা 

২০১৬ সালের ৮ নভেম্বর দিনটি ভারতবাসীর কাছে স্মরণীয় হয়ে থাকবে। ওই দিন রাতে সমস্ত টিভি চ্যানেলে ভেসে উঠল দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মুখ। দেশবাসীর উদ্দেশে তিনি ভাষণ দেবেন। আচমকা জাতির উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী ভাষণ দেবেন শুনে অনেকেই চমকে উঠেছিলেন।  
বিশদ

17th  January, 2020
নথির ঝঞ্ঝাট ক্রমবর্ধমান 

মোদি সরকার তার সাফল্যের অনেক ফিরিস্তি দিয়েছে। এখনও দিচ্ছে। দিয়েই চলেছে। কিন্তু তার সবটা যে সত্যি নয়, তা দেশবাসীর চেয়ে ভালো কেউ জানে না। ভারতবাসীর নিখাদ উপলব্ধিটি হল—দেশের সার্বিক অগ্রগতি অনেকদিন আগেই থমকে গিয়েছিল। এখন চলছে অবনতির বা পিছনে হাঁটার অধ্যায়। 
বিশদ

16th  January, 2020
উদ্বেগজনক রিপোর্ট 

বেকারত্বের জ্বালা সহ্য করতে না-পেরে আত্মহননের পথ বেছে নিয়েছেন দেশের হাজার হাজার কর্মহীন মানুষ। এই উদ্বেগজনক তথ্যই উঠে এসেছে সম্প্রতি প্রকাশিত ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরোর (এনসিআরবি) রিপোর্টে। আবার, ঋণের ভারে জর্জরিত একের পর এক কৃষকের আত্মহত্যা যেন দেশে এখন আর কোনও নতুন বিষয়ই নয়।  
বিশদ

15th  January, 2020
ধর্মস্থানে রাজনীতি!

 সিএএ আন্দোলনের জেরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি অসম সফর বাতিল করলেও তিনি পশ্চিমবঙ্গ সফরে এসেছিলেন। সর্বত্র তুমুল বিক্ষোভের মধ্যেও তিনি তাঁর কর্মসূচি সম্পন্ন করে ফিরে গিয়েছেন। কিন্তু তিনি পিছনে রেখে গিয়েছেন অসংখ্য বিতর্ক এবং প্রশ্ন।
বিশদ

14th  January, 2020
মিথ্যেতেই বিশ্বাস জন্মাচ্ছে

হিটলারের জার্মানিতে প্রচারমন্ত্রী ছিলেন জোসেফ গোয়েবলস। তাঁর একটা বিখ্যাত উক্তি হল—মিথ্যে কথাও এত বড় করে বলা এবং এত বার বলা জরুরি যে মানুষ একদিন তা বিশ্বাস করতে শুরু করবে। সেই সময়ে এই উক্তির বাস্তবায়ন করেছিল জার্মান রেডিও। আজকের স্মার্টফোন এবং হোয়াটসঅ্যাপ অক্ষরে অক্ষরে সেই কাজটাই করে চলেছে।  
বিশদ

13th  January, 2020
মৌলিক অধিকারের নবদিগন্ত 

ইন্টারনেট পরিষেবা অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করে রাখা যায় না। ইন্টারনেট ব্যবহারও মৌলিক অধিকারের থেকে আলাদা নয়। ভারতের ইতিহাসে প্রথমবার সুপ্রিম কোর্ট এভাবে ইন্টারনেট ব্যবহারের স্বাধীনতার পক্ষে সওয়াল করল। দেশের শীর্ষ আদালত বুঝিয়ে দিল, সরকারি সিদ্ধান্তের নামে নাগরিকদের অধিকার থেকে বঞ্চিত করা যায় না। 
বিশদ

12th  January, 2020
একনজরে
সংবাদদাতা, আলিপুরদুয়ার: নির্বাচনে কংগ্রেসের সঙ্গে জোট প্রশ্নে ফ্রন্টের বড় শরিক সিপিএমের সঙ্গে আর কোনও তিক্ততা নয়। তাই আসন্ন আলিপুরদুয়ার পুরভোটে বামফ্রন্টের সঙ্গে কংগ্রেস থাকলেও শরিক আরএসপি’র কোনও অসুবিধা নেই।   ...

বিএনএ, বহরমপুর: এবার প্রতিটি বিধানসভা কেন্দ্রে তিনজন করে পিওসি (পয়েন্ট অব কন্ট্রাক্ট) নিয়োগ করবে টিম পিকে। প্রতিটি জেলা থেকে বিধায়ক এবং ব্লক সভাপতিদের কাছ থেকে বিধানসভা কেন্দ্রভিত্তিক তিনজনের নাম চেয়ে পাঠানো হয়েছিল। সেইমতো জেলা থেকে নাম পাঠানো হয়েছে।   ...

গোয়ালিয়র, ২৭ জানুয়ারি (পিটিআই): মধ্যপ্রদেশের গোয়ালিয়র সেন্ট্রাল জেলে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করল এক বন্দি। নাম নরোত্তম রাওয়াত। গত ২৩ জানুয়ারি থেকে জেলে ছিল সে। রবিবার রাতে জেল চত্বরের একটি গাছ থেকে নরোত্তমের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়।  ...

বিএনএ, বারাসত: রবিবার ভোর রাতে বসিরহাটের সংগ্রামপুরে ট্রাক চাপা পড়ে এক পুলিস কর্মীর মৃত্যু হয়েছে। মৃতের নাম দিলীপ বিশ্বাস (৫২)। তাঁর বাড়ি গাইঘাটা থানা এলাকায়। ঘাতক লরির চালক ইন্দাদুল শেখ ও খালাসি আতিউল রহমানকে পুলিস গ্রেপ্তার করেছে। তাদের বাড়ি মুর্শিদাবাদ ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

শিক্ষার জন্য দূরে কোথাও যেতে পারেন। প্রেম-প্রণয়ে নতুন যোগাযোগ হবে। বিবাহের কথাবার্তাও পাকা হতে পারে। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৫৫৬:দ্বিতীয় মোঘল সম্রাট হুমায়ুনের মৃত্যু
১৮৬৫: স্বাধীনতা সংগ্রামী পাঞ্জাব কেশরী লালা লাজপত রাইয়ের জন্ম
১৮৯৮: ভারতের মাটিতে পা রাখলেন ভগিনী নিবেদিতা
১৯২৫: বিজ্ঞানী রাজা রামান্নার জন্ম
১৯৩০: গায়ক যশরাজের জন্ম
১৯৩৭: গায়িকা সুমন কল্যাণপুরের জন্ম





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৬৪ টাকা ৭২.৩৪ টাকা
পাউন্ড ৯১.৭৩ টাকা ৯৫.০২ টাকা
ইউরো ৭৭.৩৫ টাকা ৮০.৩৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪১,৩২০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৯,২০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৯,৭৮০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৭,৪৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৭,৫৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১৩ মাঘ ১৪২৬, ২৮ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার, (মাঘ শুক্লপক্ষ) তৃতীয়া ৫/৩ দিবা ৮/২২। শতভিষা ৭/৩৪ দিবা ৯/২৩। সূ উ ৬/২১/২১, অ ৫/১৭/৩৫, অমৃতযোগ দিবা ৮/৩২ গতে ১০/৪৩ মধ্যে পুনঃ ১২/৫৪ গতে ২/২২ মধ্যে পুনঃ ৩/৫ গতে ৪/৩৩ মধ্যে। রাত্রি ৬/৯ মধ্যে পুনঃ ৮/৪৬ গতে ১১/২২ মধ্যে পুনঃ ২/০ গতে ৩/৪৪ মধ্যে। বারবেলা ৭/৪৩ গতে ৯/৫ মধ্যে পুনঃ ১/১২ গতে ২/৩৪ মধ্যে। কালরাত্রি ৬/৫৬ গতে ৮/৩৪ মধ্যে।
১৩ মাঘ ১৪২৬, ২৮ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার, তৃতীয়া ০/৪৫/৪৫ প্রাতঃ ৬/৪২/৩৩। শতভিষা ৪/৩৯/৩৪ দিবা ৮/১৬/৫। সূ উ ৬/২৪/১৫, অ ৫/১৬/২৮, অমৃতযোগ দিবা ৮/৩১ গতে ১০/৪৩ মধ্যে ও ও ১২/৫৬ গতে ২/২৫ মধ্যে ও ৩/৯ গতে ৪/৩৭ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/১৩ মধ্যে ও ৮/৪৯ গতে ১১/২৫ মধ্যে। কালবেলা ১/১১/৫৩ গতে ২/৩৩/২৫ মধ্যে। কালরাত্রি ৬/৫৪/৫৬ গতে ৮/৩৩/২৫ মধ্যে।
২ জমাদিয়স সানি

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
 চন্দননগরে সরস্বতী প্রতিমা কিনে এনে আত্মঘাতী সপ্তম শ্রেণীর ছাত্র
বুধবার সরস্বতী পুজো। মঙ্গলবার বাবার সঙ্গে গিয়ে আনন্দ করেই সরস্বতী ...বিশদ

03:59:00 PM

ট্যুইটে আক্ষেপ রাজ্যপালের
সমাবর্তন অনুষ্ঠান ছেড়ে বেরিয়ে আসার সময় আমার মনে সম্মানের বিষয়টিই ...বিশদ

02:32:28 PM

এবার ক্যানভাসে সিএএ-র প্রতিবাদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের 

02:16:00 PM

এই প্রথম বারুইপুর আদালতে ফাঁসির নির্দেশ
এই প্রথম ফাঁসির নির্দেশ দিল বারুইপুর আদালত। আজ এই আদালতে ...বিশদ

01:56:00 PM

 শিক্ষকদের জন্য সুখবর মমতার
শিক্ষকদের জন্য বড় সিদ্ধান্ত ঘোষণা রাজ্যের। ট্যু ইট করে সেই ...বিশদ

01:51:21 PM

সমাবর্তন অনুষ্ঠানে যোগ না দিয়ে ফিরেই গেলেন রাজ্যপাল 
সমাবর্তন অনুষ্ঠানে যোগ না দিয়ে ফিরে গেলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকার। ...বিশদ

01:42:00 PM