Bartaman Patrika
সম্পাদকীয়
 

বৃদ্ধিযোগের ভালো-মন্দ

পশ্চিমবঙ্গে হঠাৎ বৃদ্ধিযোগ। সরকারের রাজকোষের সঙ্গে প্রত্যক্ষ ও নানা ভাবে যুক্ত মানুষের পাওনাগণ্ডা অনেকখানি বাড়িয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য। যেমন গত ২৫ জুলাই প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন একলাফে অনেকটাই বাড়ানোর সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হয়েছে। ২৯ জুলাই শিশু শিক্ষা কেন্দ্র (এসএসকে) এবং মাধ্যমিক শিক্ষা কেন্দ্রের (এমএসকে) শিক্ষকদেরও প্রাপ্য বাড়িয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হয়েছে। সম্প্রতি বাড়ানো হয়েছে ত্রিস্তর পঞ্চায়েতের সদস্য এবং ভোটে নির্বাচিত নানা ধরনের পদাধিকারীদেরও। তার আগে বেড়েছে বিধায়ক এবং রাজ্যের মন্ত্রীদের ভাতাও। ৩০ জুলাই ঘোষিত হল পুর কাউন্সিলারসহ সংশ্লিষ্ট সমস্ত পদাধিকারীর ভাতাবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত। বেতন এবং ভাতাবৃদ্ধির প্রতিটি সিদ্ধান্তই স্বাগত। কারণ, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি অর্থনীতির ধর্ম। সরকারি কর্মী থেকে জনপ্রতিনিধি সকলেই এই অর্থনীতির অংশ। একই বাজারে সকলকেই বাজার করতে হয়। অতএব দ্রব্যমূল্যবৃদ্ধির সঙ্গে সংগতিপূর্ণ বর্ধিত বেতন এবং ভাতাই সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের প্রাপ্য। সরকার স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে এই পাওনাগণ্ডা বাড়িয়েছে এমন নয়। প্রতিটি ক্ষেত্র নিজ নিজ দাবিতে সরব ছিল। স্কুলশিক্ষক এবং এসএসকে, এমএসকের শিক্ষকরা বেতনবৃদ্ধির দাবিতে একাধিকবার আন্দোলনও করেছেন। জনপ্রতিনিধিরা আন্দোলনের পথে যাননি ঠিকই কিন্তু ‘সামান্য’ মাসিক ভাতা নিয়ে তাঁদের একাংশের মনে ক্ষোভ অবশ্যই ছিল। অতএব প্রতিটি ক্ষেত্রে পাওনাগণ্ডা বাড়িয়ে দেওয়ার এই সিদ্ধান্ত সুবিবেচনাপ্রসূত বলেই প্রশংসিত হবে, ধরে নেওয়া যায়।
তবে, এর দুটি প্রভাব সম্পর্কেও হুঁশিয়ার থাকতে হবে। সমাজের একটি অংশের আয়বৃদ্ধির প্রভাব বা‌জারে পড়বে। তার দরুণ জিনিসপত্রের দাম কিছুটা বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকবে। আর একটি সম্ভাবনা হল সরকারের বাকি সমস্ত ক্ষেত্রও একইসঙ্গে বেতনসহ অন্যান্য প্রাপ্য বৃদ্ধির ব্যাপারে প্রত্যাশী হয়ে উঠবে। যেমন হাইস্কুল, কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়, সরকারি এবং সরকার অধিগৃহীত সংস্থাগুলির কর্মীরা। আমরা জানি, সরকারি কর্মীরা মহার্ঘভাতা বৃদ্ধির দাবিতে দীর্ঘদিন যাবৎ সোচ্চার। ইতিমধ্যেই ডিএ মামলায় স্যাটের রায় কর্মীদের পক্ষে গিয়েছে। তাঁদের কেন্দ্রীয় হারে ডিএ দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে স্যাট। নবান্নের উপর আরও রয়েছে ষষ্ঠ বেতন কমিশনের সুপারিশ কার্যকর করার চাপ। দাবিপূরণের দরজা একবার খুলে গেলে তা বন্ধ করে দেওয়া কঠিন। আশঙ্কা হয়, এরপর প্রত্যাশা বাড়বে সামাজিক কল্যাণ ক্ষেত্রে সরকার যত রকম ভাতা দিয়ে থাকে (যেমন বিধবাভাতা, বার্ধক্যভাতা, ছাত্রবৃত্তি প্রভৃতি) সেগুলিও বৃদ্ধির জন্য।
সম্প্রতি যতটা বর্ধিত আর্থিক দায় সরকার স্বীকার করে নিয়েছে তার পরিমাণ বিপুল। এরপর ডিএ, ষষ্ঠ বেতন কমিশনের সুপারিশ গ্রহণ মিলিয়ে আরও এক বিশাল ব্যয়ভার অপেক্ষা করছে। সরকার এই পুরোটাই মেটাতে পারলে তার চেয়ে সুখের কিছু হয় না। কারণ, তাতে নাগরিকদের একটি বৃহৎ অংশের জীবনযাত্রার মানে ইতিবাচক পরিবর্তন সূচিত হবে। যার সুফল বাজারেও পড়বে। কিন্তু প্রশ্ন হল, যে সরকারের কাঁধে ঋণের সুদ বাবদ অবিলম্বে ৫৬ হাজার কোটি টাকা মেটানোর দায় রয়েছে, সেই সরকার এটা কতটা পেরে উঠবে? রাজ্য সরকারের আয়ের ক্ষেত্র সীমিত। কেন্দ্রীয় রাজস্বের প্রাপ্য অংশও রাজ্য কখনও পুরো পায় না। যেমন চতুর্দশ অর্থ কমিশনের নিয়মানুসারে মোট কেন্দ্রীয় রাজস্বের (জিটিআর) ৪২ শতাংশ রাজ্যগুলির প্রাপ্য। এটি রাজ্যগুলির সাংবিধানিক অধিকারও বটে। তারপরেও গত পাঁচ বছরে রাজ্যগুলির প্রাপ্য ৩৬ শতাংশও স্পর্শ করেনি। তাই রাজ্যের দায়ভারকে অংশত কেন্দ্রেরও স্বীকার করে নেওয়া উচিত। তা না-হলে রাজ্যের উপর চাপবৃদ্ধিতে অশান্তিই বাড়বে, বাস্তবে কিছুই করার থাকবে না রাজ্যের। অন্যদিকে, রাজ্যকেও চেষ্টা করতে হবে সংকীর্ণ রাজনীতির ঊর্ধ্বে ওঠার এবং অনাবশ্যক কিছু খরচে লাগাম টানার। আয়বৃদ্ধির নতুন নতুন ক্ষেত্র খুঁজে বের করাও জরুরি। বেতন ভাতা বাবদ যাঁরা বাড়তি অর্থ পেতে চলেছেন, তাঁদেরকেও মনে রাখতে হবে, বাংলার কর্মসংস্কৃতির বিন্দুমাত্র সুনাম নেই। জনপ্রতিনিধিদের একাংশ সম্পর্কেও মানুষের শ্রদ্ধা নষ্ট হয়ে গিয়েছে। অতএব সরকার যখন সাধারণ মানুষের কাছ থেকে সংগৃহীত অর্থে তাঁদের জন্য বাড়তি বিপুল ব্যয়ভার স্বীকার করছে, তখন কর্মসংস্কৃতি এবং স্বচ্ছতা ফেরানোর বিষয়ে তাঁরা যেন আন্তরিকতার পরিচয়টি রাখেন।
01st  August, 2019
যাত্রী প্রত্যাখ্যানের বদ অভ্যাস

 কোণঠাসা হয়েও শিক্ষা নেই। নেই লাজলজ্জার বালাই। যাঁদের ক্ষেত্রে এই কথাটি প্রযোজ্য তাঁরা হলেন ‘নো রিফিউজাল’ লেখা বহু হলুদ ট্যাক্সির চালক। মুষ্টিমেয় কয়েকজনকে বাদ দিলে যাত্রীপ্রত্যাখ্যান বা অতিরিক্ত টাকা দাবি করাটা তাঁদের বদ অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। বিশদ

বারবার এমন পদক্ষেপ কেন? 

একশো দিনের কাজে দেশে সেরার স্বীকৃতি পেয়েছে পশ্চিমবঙ্গ। একবার নয়, পরপর চারবার। সম্প্রতি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ফেসবুক পেজে নিজেই এই তথ্য প্রকাশ করেছেন।
পঞ্চায়েত দপ্তরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, সর্বশেষ ওই পুরস্কার মিলেছে ২০১৮-১৯ অর্থবর্ষের জন্য। ওই সময়ে রাজ্যে শ্রমদিবস তৈরি হয়েছে ২৮ কোটি। 
বিশদ

21st  January, 2020
সর্ষের মধ্যেই ভূত লুকিয়ে 

দেবীন্দর সিং। ১৯৯০ সাল থেকে খাকি উর্দি গায়ে চাপাবার পর থেকেই তাঁর সাহস ও বীরত্বের প্রশংসা ছিল পুলিস-প্রশাসনে। উপত্যকার একাধিক এনকাউন্টারে সফল তিনি। একসময় ছিলেন পুলিসের স্পেশাল অপারেশন গ্রুপেও (এসওজি)। কর্মজীবনে পেয়েছেন একাধিক পুরস্কার। সেই পুলিসকর্তার সঙ্গে জঙ্গি সংগঠন হিজবুল মুজাহিদিনের যোগ?  
বিশদ

20th  January, 2020
গুলি চালিয়ে প্রতিবাদের অধিকার হরণ গণতন্ত্র নয় 

ফের তিন বছরের জন্য বিজেপির রাজ্য সভাপতি হলেন দিলীপ ঘোষ। এবং তা যাবতীয় জল্পনা উড়িয়ে। বেশ কয়েকদিন ধরেই বিজেপির একাংশ থেকে শোনা যাচ্ছিল, দিলীপ ঘোষের উপর নাকি আর আস্থা রাখতে পারছে না কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। ফলে তাঁর জায়গায় রাজ্য সভাপতি হিসেবে অন্য কাউকে দায়িত্বে আনা হবে। আদৌ তা হল না।  
বিশদ

19th  January, 2020
জাগ্রত বিবেক 

বেশ কিছুকাল আগের একটি সিনেমায় দেখা সংলাপের কিছু কথা ঘুরেফিরে মনে আসছে। যেখানে একটি চরিত্র বলছে যে, আজকাল ট্যাক্সি চালক যাত্রীর টাকার ব্যাগ ফেরত দিলে, খবর লেখা হয়। কিন্তু, সেটাই তো তাঁর কর্তব্য। অর্থাৎ, আমাদের সমাজটা আজ সিঁড়ি বেয়ে নীচে নামতে নামতে একবারে অতলে তলিয়ে যাচ্ছে।  
বিশদ

18th  January, 2020
ফের সামনে এল নোটবন্দির ব্যর্থতা 

২০১৬ সালের ৮ নভেম্বর দিনটি ভারতবাসীর কাছে স্মরণীয় হয়ে থাকবে। ওই দিন রাতে সমস্ত টিভি চ্যানেলে ভেসে উঠল দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মুখ। দেশবাসীর উদ্দেশে তিনি ভাষণ দেবেন। আচমকা জাতির উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী ভাষণ দেবেন শুনে অনেকেই চমকে উঠেছিলেন।  
বিশদ

17th  January, 2020
নথির ঝঞ্ঝাট ক্রমবর্ধমান 

মোদি সরকার তার সাফল্যের অনেক ফিরিস্তি দিয়েছে। এখনও দিচ্ছে। দিয়েই চলেছে। কিন্তু তার সবটা যে সত্যি নয়, তা দেশবাসীর চেয়ে ভালো কেউ জানে না। ভারতবাসীর নিখাদ উপলব্ধিটি হল—দেশের সার্বিক অগ্রগতি অনেকদিন আগেই থমকে গিয়েছিল। এখন চলছে অবনতির বা পিছনে হাঁটার অধ্যায়। 
বিশদ

16th  January, 2020
উদ্বেগজনক রিপোর্ট 

বেকারত্বের জ্বালা সহ্য করতে না-পেরে আত্মহননের পথ বেছে নিয়েছেন দেশের হাজার হাজার কর্মহীন মানুষ। এই উদ্বেগজনক তথ্যই উঠে এসেছে সম্প্রতি প্রকাশিত ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরোর (এনসিআরবি) রিপোর্টে। আবার, ঋণের ভারে জর্জরিত একের পর এক কৃষকের আত্মহত্যা যেন দেশে এখন আর কোনও নতুন বিষয়ই নয়।  
বিশদ

15th  January, 2020
ধর্মস্থানে রাজনীতি!

 সিএএ আন্দোলনের জেরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি অসম সফর বাতিল করলেও তিনি পশ্চিমবঙ্গ সফরে এসেছিলেন। সর্বত্র তুমুল বিক্ষোভের মধ্যেও তিনি তাঁর কর্মসূচি সম্পন্ন করে ফিরে গিয়েছেন। কিন্তু তিনি পিছনে রেখে গিয়েছেন অসংখ্য বিতর্ক এবং প্রশ্ন।
বিশদ

14th  January, 2020
মিথ্যেতেই বিশ্বাস জন্মাচ্ছে

হিটলারের জার্মানিতে প্রচারমন্ত্রী ছিলেন জোসেফ গোয়েবলস। তাঁর একটা বিখ্যাত উক্তি হল—মিথ্যে কথাও এত বড় করে বলা এবং এত বার বলা জরুরি যে মানুষ একদিন তা বিশ্বাস করতে শুরু করবে। সেই সময়ে এই উক্তির বাস্তবায়ন করেছিল জার্মান রেডিও। আজকের স্মার্টফোন এবং হোয়াটসঅ্যাপ অক্ষরে অক্ষরে সেই কাজটাই করে চলেছে।  
বিশদ

13th  January, 2020
মৌলিক অধিকারের নবদিগন্ত 

ইন্টারনেট পরিষেবা অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করে রাখা যায় না। ইন্টারনেট ব্যবহারও মৌলিক অধিকারের থেকে আলাদা নয়। ভারতের ইতিহাসে প্রথমবার সুপ্রিম কোর্ট এভাবে ইন্টারনেট ব্যবহারের স্বাধীনতার পক্ষে সওয়াল করল। দেশের শীর্ষ আদালত বুঝিয়ে দিল, সরকারি সিদ্ধান্তের নামে নাগরিকদের অধিকার থেকে বঞ্চিত করা যায় না। 
বিশদ

12th  January, 2020
নির্বুদ্ধিতার পরিণাম 

নির্বুদ্ধিতার পরিণাম। নৈহাটির বিস্ফোরণকাণ্ডকে ঠিক এই ভাষাতেই ব্যাখ্যা করা যায়। কারণ বাজি হোক বা বোমা—এ ধরনের বিস্ফোরক নিষ্ক্রিয় করার বিশেষজ্ঞদের কাছ থেকে এরকম ছেলেমানুষি কাজ কি সাধারণ মানুষ আশা করেন?  
বিশদ

11th  January, 2020
আরও একটি নিষ্ফলা ধর্মঘট
দেশের প্রাপ্তি কেবল দুর্ভোগ

 আরও একটা নিষ্ফলা বন্‌ধ বা সাধারণ ধর্মঘট দেখল পশ্চিমবঙ্গ সহ গোটা দেশ। নিষ্ফলা কারণ, কংগ্রেস এবং বামেদের দাবিমতো বন্‌ধ সর্বাত্মক সফল বলে মেনে নিলেও ধর্মঘট ডাকার উদ্দেশ্য কিন্তু সফল হবে না। কারণ একটা সাধারণ ধর্মঘট বা বন্‌ধ সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনকে খারিজ করে দিতে পারবে না।
বিশদ

10th  January, 2020
অসমের শিক্ষা 

সামসুল হক। বয়স সাঁইত্রিশ। পেশায় শিক্ষক। অসমে আঁচলপাড়া গ্রামের স্কুলে। তিনি এনআরসির একজন অফিসার। কিন্তু পরিতাপের বিষয় হল—তাঁর বোন আবিদা সিদ্দিকের নামটি নেই এনআরসি তালিকায়। স্বভাবতই পরিবারটির ঘুম ছুটে গিয়েছে। আবিদার নাম তোলার জন্য সমস্তরকম চেষ্টা করে চলেছে পরিবারটি।  
বিশদ

09th  January, 2020
এই বন্‌ধ কার স্বার্থে 

এনআরসি, সিএএ, এনপিআর প্রভৃতি ইস্যুতে প্রতিবাদ আন্দোলনে এখন উত্তাল এই দেশ। গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে এই ইস্যুতে আন্দোলনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আপত্তি নেই। তাই ইতিমধ্যেই মোদি সরকারকে হুঁশিয়ারি দিয়ে পথে নেমে ঝড় তুলেছে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল। 
বিশদ

08th  January, 2020
গৃহস্থের খরচ আরও বাড়ছে 

ফের দুঃসংবাদ। এমনিতেই আলুর দর চলছিল কেজিপ্রতি ৩০ টাকার আশপাশে, পেঁয়াজ ১০০ টাকার আশপাশে। নিত্যপ্রয়োজনীয় এই দুটি জিনিস কিনতে গিয়ে মধ্যবিত্ত নাকানি চোবানি খাচ্ছিলেন। সম্প্রতি এই দুটি জিনিসেরই বাজারদর পড়তির দিকে। কিন্তু সুখ সইল না। 
বিশদ

07th  January, 2020
একনজরে
 রাষ্ট্রসঙ্ঘ, ২১ জানুয়ারি (পিটিআই): শুধু ভারত নয়, বেকারত্ব বাড়ছে গোটা বিশ্বেই। এদেশে বেকারত্বের হার বৃদ্ধির অভিযোগকে মান্যতা দেয়নি কেন্দ্রীয় সরকার। কিন্তু বিশ্বে বেকারদের সংখ্যা যে ...

 বিএনএ, বারাকপুর: বারাকপুর শিল্পাঞ্চলে আরও একটি জুট মিল বন্ধ হয়ে গেল। মঙ্গলবার সকালে টিটাগড়ের এম্পায়ার জুট মিল কর্তৃপক্ষ সাসপেনশন অব ওয়ার্কের নোটিস ঝুলিয়ে দেয়। এতে কাজ হারালেন প্রায় দুই হাজার শ্রমিক। মিল বন্ধের প্রতিবাদে এদিন বিক্ষোভ দেখান শ্রমিকরা। ...

নয়াদিল্লি, ২১ জানুয়ারি: আগামী শুক্রবার নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে সিরিজ শুরু করছে ভারত। গ্লেন টার্নার-রিচার্ড হ্যাডলিদের দেশে পাঁচটি টি-২০, তিনটি একদিনের ম্যাচ এবং দু’টি টেস্ট খেলবে বিরাট ...

 পাপ্পা গুহ, উলুবেড়িয়া: মানবধর্ম সবথেকে বড় ধর্ম। আপনারা যদি মানুষকে সঠিকভাবে সেবা করতে পারেন, তাহলে এর থেকে বড় কাজ আর হবে না। মঙ্গলবার সকালে উলুবেড়িয়া ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মরতদের সহকর্মীদের সঙ্গে সম্পর্ক ভালো থাকবে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা ও ব্যবহারে সংযত থাকা দরকার। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৬৬৬: মুঘল সম্রাট শাহজাহানের মৃত্যু
১৯০০ - টেলিপ্রিন্টার ও মাইক্রোফেনের উদ্ভাবক ডেভিট এ্যাডওয়ার্ড হিউজ।
১৯০১: রানি ভিক্টোরিয়ার মৃত্যু
১৯২৭ - প্রথমবারের মতো বেতারে ফুটবল খেলার ধারাবিবরণী প্রচার।
১৯৭২: অভিনেত্রী নম্রতা শিরোদকরের জন্ম





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৩৬ টাকা ৭২.০৬ টাকা
পাউন্ড ৯০.৯৮ টাকা ৯৪.২৫ টাকা
ইউরো ৭৭.৫৪ টাকা ৮০.৪৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪০,৫৩০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৮,৪৫৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৯,০৩০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৬,৬৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৬,৭৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৭ মাঘ ১৪২৬, ২২ জানুয়ারি ২০২০, বুধবার, ত্রয়োদশী ৪৮/৩৬ রাত্রি ১/৪৯। মূলা ৪৪/৫৩ রাত্রি ১২/২০। সূ উ ৬/২২/৩৮, অ ৫/১৩/২৬, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৯ মধ্যে পুনঃ ১০/০ গতে ১১/২৬ মধ্যে পুনঃ ৩/২ গতে ৪/২৮ মধ্যে। রাত্রি ৬/৫ গতে ৮/৪৩ মধ্যে পুনঃ ২/০ গতে উদয়াবধি। বারবেলা ৯/৫ গতে ১০/২৬ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৭ গতে ১/৯ মধ্যে। কালরাত্রি ৩/৬ গতে ৪/৪৪ মধ্যে।
৭ মাঘ ১৪২৬, ২২ জানুয়ারি ২০২০, বুধবার, ত্রয়োদশী ৮৯/২৭/৪৪ রাত্রী ২/১৩/৯। মূলা ৪৬/৪২/৪৪ রাত্রি ১/৭/৯। সূ উ ৬/২৬/৩, অ ৫/১১/৩৯, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৭ মধ্যে ও ১০/০ গতে ৪/৩৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/১৫ গতে ৮/৫০ মধ্যে ও ২/০ গতে ৬/২৬ মধ্যে। কালবেলা ৯/৭/২৭ গতে ১০/২৮/৯ মধ্যে, কালরাত্রি ৩/৭/২৭ গতে ৪/৪৬/৪৫ মধ্যে।
 ২৬ জমাদিয়ল আউয়ল

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
রাস্তা সম্প্রসারণের জন্য জবরদখল উচ্ছেদ, গায়ে আগুন লাগালেন মহিলা 
রাস্তা সম্প্রসারণের জন্য জবর দখল উচ্ছেদের চেষ্টা পুলিস ও প্রশাসনের। ...বিশদ

04:27:00 PM

কলকাতা বইমেলার জন্য শুরু হল অ্যাপ, রয়েছে স্টল খুঁজে পাওয়ার সুবিধাও 

04:13:45 PM

কৃষ্ণনগরে এনআরসি বিরোধিতায় শুরু হল মিছিল, রয়েছেন রাজীব বন্দ্যেপাধ্যায় এবং মহুয়া মৈত্র 

04:02:00 PM

২০৮ পয়েন্ট পড়ল সেনসেক্স 

03:58:42 PM

ইটাহারে ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ 
ইটাহারের জয়হাট চেকপোষ্টে আদিবাসীদের জমি দখলের প্রতিবাদে পথ অবরোধ চলছে ...বিশদ

03:48:00 PM

বাংলায় ডিটেনশন ক্যাম্প করতে দেব না: মমতা 

03:43:31 PM