Bartaman Patrika
সম্পাদকীয়
 

প্রতিবাদে ফের অগ্নিদীপ্ত মমতা

এক সময় মানুষ তাঁকে বলতেন, অগ্নিকন্যা। তাঁর ভিতরে যে লড়াইয়ের আগুনটা ছিল সেটা প্রতিবাদের মধ্য দিয়ে ঝলসে উঠত। মানুষ জানতেন, মমতা মানেই অন্যায়ের বিরুদ্ধে আপোসহীন এক যোদ্ধা। তৃণমূল স্তরের মানুষের স্বার্থের সন্ধানেই তাঁর পথ হাঁটা। সেই ভাবনা থেকেই তিনি দলের নামকরণ করেছিলেন তৃণমূল কংগ্রেস। এরাজ্যে বামফ্রন্ট সরকারের ৩৪ বছরের অপশাসনের বিরুদ্ধে তাঁর লড়াই ইতিহাস হয়ে গিয়েছে। সেই অপশাসনের বিরুদ্ধে তাঁর দীর্ঘ ২৬ দিনের অনশনের লড়াই আজও কেউ ভোলেননি। সেই অপশাসনের শিকড় উপড়ে তিনি ক্ষমতায় এসেছেন। দীর্ঘ নয় বছর তিনি রাজ্যে ক্ষমতায় আছেন। অনেকেই ভেবেছিলেন এতদিনে নিশ্চয়ই তাঁর শরীরে লেগেছে ক্ষমতার মেদ। বয়স আর স্তাবকদের ভিড়ে দিনযাপনের কারণে কিছুটা হয়তো আয়েসী হয়ে গিয়েছেন। সেই ধারণাকে সপাটে ব্যাট চালিয়ে উড়িয়ে দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কয়েক মিনিটের সিদ্ধান্তে তিনি নেমে পড়লেন পথের আন্দোলনে। সেই অগ্নিকন্যাকে দেখল সারা দেশ। একাজ করতে একমাত্র তিনিই পারেন।
প্রতিবাদের আগুনটা দেশজুড়ে দীর্ঘদিন ধরে ধিকিধিকি জ্বলছিল। মোদি সরকারের বিভিন্ন একতরফা সিদ্ধান্তের কারণে সারা দেশের মানুষের মনে ক্ষোভ সঞ্চারিত হচ্ছিল। তাঁর ছাপ্পান্ন ইঞ্চির ছাতির সগর্ব ঘোষণাটা পরবর্তীকালে নানা রসিকতার জন্ম দিয়েছে। আর নোট বাতিল করে তিনি যে ছাপ্পান্ন ইঞ্চির অহঙ্কার করেছিলেন, কালে কালে দেখা গেল তা একটি ব্যর্থ পদক্ষেপ। নোট বাতিলে কোনও গরিব মানুষের লাভ হয়নি। বরং তাদের রুজি-রোজগারে টান পড়েছিল। এটিএমের লাইনে দাঁড়িয়ে সাধারণ মানুষের প্রাণও গিয়েছে। এর কি কোনও কারণ ছিল? লাভ হল তো সেই মেহুল চোকসি, বিজয় মালিয়া, নীরব মোদি, আদানি কিংবা আম্বানিদের।
এছাড়া সারাদেশে গোরক্ষদের হিংসা ক্রমেই ছড়িয়েছে, সাম্প্রদায়িকতার বিভেদরেখাটা ক্রমেই স্পষ্টতর হয়ে উঠছে, পাশাপাশি এনআরসি’র চোখরাঙানি। আমরা আর কী দেখলাম! দেখলাম সিবিআইয়ের অন্তর্কোন্দল। সেই দ্বন্দ্ব নেমে এল প্রকাশ্য রাজপথে। দেশের মানুষও হয়তো বুঝতে পারল কত নোংরা জমে আছে সিবিআইয়ের অন্দরে। এরপর দেশের মানুষ দেখতে পেল কী কায়দায় নতুন সিবিআই কর্তা মনোনয়ন হল। সুতরাং অভিযোগ উঠল, সংস্থাটিকে সরকার নিজেদের তাঁবে রাখতে চাইছে। এবং সরকার তাকে যেমন ইচ্ছে তেমনভাবে প্রয়োগ করে তার স্বাধীন সত্তা ক্ষুণ্ণ করতে চাইছে।
এরাজ্যের চিটফান্ড কেলেঙ্কারি নিয়ে সিবিআই দীর্ঘদিন তদন্ত করছে। অনেককেই জেলে দীর্ঘদিন আটকে রেখেছিল, এখন আবার ভোটের মুখে সেই ইস্যুতে সিবিআই ঝপাং করে ঝাঁপিয়ে পড়ে অনেক কিছু করতে চাইছে। সুজনের যেমন যুক্তির অভাব হয় না, তেমনই দুর্জনেরও অজুহাতের অভাব হয় না। সিবিআই যে তদন্ত করছে, তার থেকে কী কী মিলেছে, তা সাধারণ মানুষ জানে না। কিন্তু এই তদন্ত যেন প্রতিহিংসার অস্ত্র না হয়ে দাঁড়ায়। দেশের মানুষ মোদির কাছ থেকে সেই গ্যারান্টিই চান। আমরা দেখেছি কিছুদিন আগেই এ রাজ্যে ব্রিগেডের মাটিতে একটা বিরোধী শক্তির উত্থান হয়েছে। একদিকে মোদি এবং অন্যদিকে সঙ্ঘবদ্ধ সারাদেশের রাজনৈতিক দলগুলি। সেই জোট কি কাঁপিয়ে দিল ছাপ্পান্ন ইঞ্চির ছাতিটাকে? বিশেষ করে বিগত কয়েকটি রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির ভরাডুবির ফল মোদির আত্মবিশ্বাসের ভিতটাকে নষ্ট করে দিয়েছে। পাশাপাশি রাফাল ডিল নিয়ে বিরোধীদের যৌথ সংসদীয় কমিটি গড়ার আর্জি খারিজ করে দিয়েছেন তিনি। অনেকেই মনে করছেন, রাফাল ডিল নিয়ে মোদি বোধহয় কিছু লুকোতে চাইছেন। মোদি সরকারের উচিত অবিলম্বে মানুষের বিশ্বাস ফিরিয়ে দেওয়া। বিরোধীদের পাশাপাশি নিজের দলের বিরুদ্ধেই তাঁর একটা গোপন লড়াই চলছে। এবারের লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির ফল যদি ভালো না হয়, তবে সঙ্ঘ পরিবার হয়তো তাঁকে সরিয়েও দেবে। সেজন্য সম্ভবত মুখিয়ে আছেন আদবানিপন্থী কিছু নেতা।
মোদির আমলে এইসব ‘অগণতান্ত্রিক’ পদক্ষেপের বিরুদ্ধে যুদ্ধঘোষণা করলেন মমতা। বুঝিয়ে দিলেন, তাঁর ভিতরের আগুনের কণাগুলো এখনও গনগনে। সারা দেশ দেখল প্রতিবাদের এক বিমূর্ত প্রতীককে। অপশাসনের আর প্রতিহিংসার বিরুদ্ধে আসমুদ্রহিমাচল আজ তাঁর পাশে। তাঁর এই পদক্ষেপের বিরুদ্ধে সারাদেশ থেকে আসছে শুভেচ্ছাবার্তা। অনেকেই তাঁকে বলছেন, আমরা তোমার পাশে আছি। একদিন যে আগুনে পুড়েছিল বামশাসন, লোকসভা ভোটের প্রাকমুহূর্তে দপ্‌ করে জ্বলে উঠল তাঁর প্রতিবাদের সেই আগুন। মোদি সরকার কতটুকু দগ্ধ হবে, নাকি মোদি আপন ক্যারিশ্মায় সেই আগুনকে নিভিয়ে ফের জয়ী হবেন, তা এখনই জানা যাবে না। কে জিতল, আর কে হারল সেটা পরের গল্প। এখন শুধু বলা যায়, মমতা আবার স্বমহিমায়।
05th  February, 2019
লগ্নির জন্য তৈরি রাজ্যের জমিও

 বিশ্ব বঙ্গ বাণিজ্য সম্মেলনে বিনিয়োগের যে সুনামি আছড়ে পড়েছে এরাজ্যে, তাকে বরণ করে নিতে যে পর্যাপ্ত জমি রয়েছে, সেকথাও জানিয়ে দেওয়া হয়েছে দেশের তাবড় উদ্যোগপতিদের। তাও যে সে পরিমাণে নয়, শিল্প গড়ার জন্য এই মুহূর্তে রাজ্যের হাতে জমি আছে ১০ হাজার একরেরও উপর।
বিশদ

নোট ফাঁস: রাফাল ও বোফর্স

 ১৯৮৬ সাল। অন্য একটি খবর সংক্রান্ত বিষয়ে সেই সময় সুইডেনে ছিলেন চিত্রা সুব্রহ্মণ্যম। ‘দি হিন্দু’র সাংবাদিক। রেডিওতে খবর চলছিল। তাঁর কানে এল কয়েকটা চেনা নাম। এবং তার থেকেও পরিচিত একটি পদবি—গান্ধী। বিরাট দুর্নীতির খবর। ভারতে। বোফর্স কেলেঙ্কারি।
বিশদ

10th  February, 2019
বাংলাই সেরা বিনিয়োগ গন্তব্য

শুধু কৃষিনির্ভরতা বাংলার চিত্র পাল্টে দিতে পারবে না। বাংলার সার্বিক উন্নতির জন্য শিল্পের বিকাশটাও জরুরি। কৃষির পাশাপাশি শিল্পের উন্নতিই হল একবিংশ শতকের বাংলার চাহিদা। পরাধীন ভারতে প্রকৃতিনির্ভরতার দরুন কৃষির বিকাশ থমকে ছিল। স্বাধীনতার পর ‘সবুজ বিপ্লব’-এর হাত ধরে কৃষিতে যথেষ্ট অগ্রগতি ঘটেছে।
বিশদ

09th  February, 2019
বেচারাম!

 বাস্তব অভিজ্ঞতায় দেখা যায় কোনও পরিবারের একটি প্রজন্ম বহু পরিশ্রমে এবং মেধার সঠিক ব্যবহারে সম্পদ গড়ে তোলে। ওই প্রজন্ম নতুন নতুন সম্পত্তি ক্রয় করে। তারা তখন কেনারাম বলে চিহ্নিত হয়। পরবর্তী প্রজন্ম যোগ্য উত্তরসূরি হলে সেই সম্পদকে আরও বাড়িয়ে তোলে। তাতে পরিবার আরও সমৃদ্ধ হয়।
বিশদ

08th  February, 2019
আসল মেজাজে ফিরছে ভোট

 দেশজুড়ে হইচই ফেলে দেওয়া সারদা চিটফান্ড মামলাটি ২০১৪ সালের। এই মামলায় সারদার কর্ণধার সুদীপ্ত সেন, সংস্থার অন্যতম কর্ত্রী দেবযানী মুখোপাধ্যায়কে এবং কয়েকজন প্রভাবশালী রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বকেও ধাপে ধাপে গ্রেপ্তার করেছে সিবিআই। কিন্তু, এই দীর্ঘদিনেও এই অপরাধের কিনারা করতে পারেনি তারা।
বিশদ

07th  February, 2019
জনমুখী উদ্যোগ

দেশে কর্মসংস্থানের হাল বিশেষ সুবিধের নয়। মোদি সরকারের ভোটমুখী বাজেটও কর্মসংস্থানের বিশেষ কোনও দিশা দেখাতে পারেনি। ন্যাশনাল স্যাম্পেল সার্ভের খসড়া রিপোর্ট থেকে জানা গিয়েছে, দেশে বেকারত্বের হার ৬.১ শতাংশ। সাধারণ চাকরিজীবীর সংখ্যাও দেশের জনসংখ্যার তুলনায় বেশ কম।
বিশদ

06th  February, 2019
বাজল ভোটের দামামা

ফের একটা ভোটের ঢাকে কাঠি পড়ে গেল। যে ঢাকের বাদ্যিতে আম জনতার হৃদয় নেচে ওঠার বদলে বুক কেঁপে ওঠার প্রহর গোনা শুরু হল। বিশ্বের বৃহত্তম গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা অনুশীলনের প্রাকলগ্নে ঘরে ঘরে এখন একটাই আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে—এই ভোট রক্তপাতহীন, নির্বিঘ্ন ও নিরাপদে হবে তো? আর কয়েকদিন পরেই ভোটের দিনক্ষণ ঘোষণা হয়ে যাবে।
বিশদ

04th  February, 2019
বাজেট রাজনীতি ও কর্মসংস্থান

 এই সরকারের কর্তাব্যক্তিরা সবাই জানেন, দেশে কর্মসংস্থানের হাল কতটা খারাপ। সরকারি চাকরি বলতে সম্প্রতি রেলের বেশ কিছু নিয়োগ। এছাড়া সেই অর্থে না হয়েছে নতুন কোনও উল্লেখযোগ্য শিল্প, না কৃষিক্ষেত্রে ব্যাপক কিছু সুরাহা। তাহলে কর্মসংস্থানটা হবে কীভাবে?
বিশদ

03rd  February, 2019
বাজেটে মরিয়া মোদি

 দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসার জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি কতটা মরিয়া, তা দেখিয়ে দিল তাঁর সরকারের অন্তর্বর্তী বাজেট। ভোট-অন-অ্যাকাউন্টের যাবতীয় রীতি কার্যত লঙ্ঘন করেই একাধিক বড় ঘোষণা করে দিলেন অর্থমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল।
বিশদ

02nd  February, 2019
রাজনীতি!

 আনুষ্ঠানিকভাবে দিনক্ষণ ঘোষিত না হলেও দেশজুড়ে লোকসভা ভোটের ঢাকে কাঠি পড়ে গিয়েছে বলাই যেতে পারে। আগামী মাস তিনেকের মধ্যেই ভোটপর্ব শুরু হয়ে যাওয়ার কথা। একশো পঁচিশ কোটি মানুষের বাসভূমি বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্রের দেশ ভারতে লোকসভা ভোট একটি মহাযজ্ঞের মতোই।
বিশদ

01st  February, 2019
বাঁচুক সরকারি শিক্ষাব্যবস্থা

বাম আমলে হাজারটা ক্ষোভের মধ্যে একটির কারণ ছিল অসংখ্য অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক সময়মতো পেনশন এবং গ্র্যাচুইটি পাননি। এমনও গুরুতর অভিযোগ পাওয়া যেত যে অবসরকালীন আর্থিক পাওনাগন্ডা বহু শিক্ষক জীবদ্দশাতেই পাননি; তাঁদের বিধবা পত্নীরাও আদালতের দরজার দরজায় হত্যে দিয়ে দিয়ে নিঃস্ব হয়ে গিয়েছেন!
বিশদ

31st  January, 2019
মন জয়ের প্রতিযোগিতা

গরিব, কৃষক, মধ্যবিত্তের মন পেতে দেশের রাজনৈতিক নেতাদের মরিয়া প্রচেষ্টা থেকেই স্পষ্ট লোকসভা নির্বাচন আসন্ন। গরিব মধ্যবিত্তের ভোটটা একটা বড় ফ্যাক্টর। বলা যায়, আগামী একমাস দেশের রাজনীতিতে খুব গুরুত্বপূর্ণ সময়। হাতে আর বেশি সময় নেই মোদি সরকারের।
বিশদ

30th  January, 2019
শিল্পে নয়া দিশা 

দীর্ঘদিনের জট অবশেষে কাটল। যা আদতে শিল্পজগতের পক্ষে অত্যন্ত আনন্দের খবরই বলা চলে। কারণ, রাজ্য সরকার বিনিয়োগে জোয়ার আনতে বিভিন্ন এলাকায় জমির সংস্থান রেখে শিল্প তালুক তৈরি করেছে অনেকদিনই হল। সেখানে বিরাট অঙ্কের জমি খালিও পড়ে রয়েছে। 
বিশদ

29th  January, 2019
বঙ্গের ভাণ্ডারে বিবিধ রতন 

‘হে বঙ্গ ভাণ্ডারে তব বিবিধ রতন’...কবি মাইকেল মধুসূদন দত্ত বহুকাল আগেই রত্নগর্ভা বাংলাদেশকে এই বলেই সম্বোধন করেছিলেন। একেবারে ঠিক উপলব্ধি। আবার ‘ভারতরত্ন’ সম্মানে ভূষিত হলেন আরও একজন বাঙালি। যিনি আবার প্রাক্তন রাষ্ট্রপতিও।  
বিশদ

28th  January, 2019
আমাদের গর্বের সাধারণতন্ত্র 

আজ ২৬ জানুয়ারি। আমাদের সাধারণতন্ত্র দিবস। ১৯৫০ সালের এই দিনে স্বাধীন ভারতের সংবিধান কার্যকরী হয়। পরাধীনতার শেষ পর্বে ভারতবর্ষ শোষিত হতো ব্রিটিশদের প্রবর্তিত ১৯৩৫ সালের ভারত শাসন আইন অনুসারে।
বিশদ

26th  January, 2019
 এবার প্রিয়াঙ্কাও!

 গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক কাঠামোয় পরিবারতন্ত্র নামক বিষয়টি বহুকাল ধরেই ব্যাপকভাবে সমালোচিত। পরিবারতন্ত্রের মধ্যেই একধরনের রাজতন্ত্রের ছায়া লুকিয়ে থাকে বললে ভুল হয় না। রাজার ছেলেই রাজা হবে, এমন ব্যবস্থা যুগ যুগ ধরে প্রচলিত ছিল।
বিশদ

25th  January, 2019
একনজরে
 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: পিএফ খেলাপিদের সংখ্যা বাড়ছে। অর্থাৎ, কর্মীর বেতন থেকে পিএফ বাবদ টাকা কেটে নিলেও, তা পিএফ দপ্তরে জমা করছে না বহু সংস্থা। গোটা দেশেই এই অপরাধ বাড়ছে। বাদ নেই পশ্চিমবঙ্গও। এবার এই বিষয়ে প্রত্যেকটি আঞ্চলিক অফিসকে সতর্ক করল ...

বিএনএ, কোচবিহার: দলের একাধিক নির্দেশকে অমান্য করার জেরে কোচবিহার পুরসভার দু’জন দলীয় কাউন্সিলারকে রবিবার সাসপেন্ড করেছে ফরওয়ার্ড ব্লক। ১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলার চন্দনা মোহন্ত ও ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলার তপন ঘোষকে দ্রুত সাসপেন্ডের চিঠি পাঠানো হবে।  ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, হাওড়া: কৃষকদের সুবিধার্থে রাজ্য জুড়ে ৩৬৪১টি এটিএম চালু করছে রাজ্য সমবায় দপ্তর। আগামী মার্চ মাসের মধ্যেই এই এটিএমগুলি চালু হয়ে যাবে। যে সমস্ত কৃষকের সমবায় ব্যাঙ্ক ও সমবায় সমিতিতে অ্যাকাউন্ট আছে, তাঁরা এই এটিএমগুলি ব্যবহার করতে পারবেন। এর ...

কারাকাস, ১০ ফেব্রুয়ারি: আন্তর্জাতিক বাজারে তেল বিক্রি থেকে পাওয়া অর্থ যুক্তরাষ্ট্রের বদলে রাশিয়ার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট স্থানান্তরের উদ্যোগ নিয়েছে ভেনেজুয়েলা। এর অংশ হিসেবে ইতিমধ্যেই রাষ্ট্রায়ত্ত্ব তেল কোম্পানি পিডিভিএসএ’র পক্ষ থেকে ক্রেতাদের রাশিয়ার একটি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের নম্বর সরবরাহ করা হয়েছে। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

পারিবারিক ঝামেলার সন্তোষজনক নিষ্পত্তি। প্রেম-প্রণয়ে শুভ। অতিরিক্ত উচ্চাভিলাষে মানসিক চাপ বৃদ্ধি। প্রতিকার: আজ দই খেয়ে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৪৭: বিজ্ঞানী টমাস আলভা এডিসনের জন্ম
১৮৮২: ছন্দের জাদুকর সত্যেন্দ্রনাথ দত্তের জন্ম
১৯১৭: মার্কিন লেখক সিডনি শেলডনের জন্ম
১৯৮০: ঐতিহাসিক রমেশচন্দ্র মজুমদারের মৃত্যু
১৯৯০: দক্ষিণ আফ্রিকার জেল থেকে মুক্তি পেলেন নেলসন ম্যান্ডেলা 





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৫৪ টাকা ৭২.২৪ টাকা
পাউন্ড ৯০.৮২ টাকা ৯৪.০৯ টাকা
ইউরো ৭৯.৩৬ টাকা ৮২.৫৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
09th  February, 2019
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৩,৭৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩২,০৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩২,৫৩০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪০,১৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪০,২৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
10th  February, 2019

দিন পঞ্জিকা

 ২৮ মাঘ ১৪২৫, ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, সোমবার, ষষ্ঠী ২২/৪৪ দিবা ৩/২১। অশ্বিনী ৩৭/২৩ রাত্রি ৯/১২। সূ উ ৬/১৫/১২, অ ৫/২৬/৪২, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৫ মধ্যে পুনঃ ১০/৪৩ গতে ১২/৫৮ মধ্যে। রাত্রি ৬/১৮ গতে ৮/৫১ মধ্যে পুনঃ ১১/২৫ গতে ২/৫১ মধ্যে। বারবেলা ৭/৩৯ গতে ৯/৩ মধ্যে পুনঃ ২/৩৮ গতে ৪/২ মধ্যে, কালরাত্রি ১০/১৫ গতে ১১/৫১ মধ্যে।
২৭ মাঘ ১৪২৫, ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, সোমবার, ষষ্ঠী ১১/০/১১। অশ্বিনীনক্ষত্র অপঃ ৫/২৪/৩২, সূ উ ৬/১৬/৩৫, অ ৫/২৪/৫৯, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৫/৪২ মধ্যে ও ১০/৪৩/৫৭ থেকে ১২/৫৭/৩৮ এবং রাত্রি ৬/১৬/২৫ থেকে ৮/৫০/৪৪ মধ্যে ও ১১/২৫/৪ থেকে ২/৫০/৪৯ মধ্যে, বারবেলা ২/৩৭/৫৩ থেকে ৪/১/২৬ মধ্যে, কালবেলা ৭/৪০/৮ থেকে ৯/৩/৪১ মধ্যে, কালরাত্রি ১০/১৪/২০ থেকে ১১/৫০/৪৭ মধ্যে। 
৫ জমাদিয়স সানি
এই মুহূর্তে
পথ দুর্ঘটনায় মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীর মৃত্যু ঘিরে উত্তেজনা বীরভূম জেলার ময়ূরেশ্বরের কোটসুরে 

07:03:00 PM

পশ্চিম মেদিনীপুরের কেশিয়াড়িতে স্কুলে ছাত্রীর ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার, চাঞ্চল্য 

05:32:00 PM

মেট্রো চ্যানেলে ধর্না, গ্রেপ্তার মান্নান সহ অনেকে
কলকাতার মেট্রো চ্যনেলে ধর্নায় বসতে গিয়ে গ্রেপ্তার হলেন বিরোধী দলনেতা ...বিশদ

05:21:00 PM

বেশ কিছু বাস বন্ধ হাওড়ায়, চরম ভোগান্তি যাত্রীদের
হাওড়া ময়দান থেকে ১০টি রুটের মোট ২৮০টি বাস চলাচল বন্ধ ...বিশদ

05:16:17 PM

শিয়ালদহ মেন ও বনগাঁ শাখায় রেল অবরোধ
কৃষ্ণগঞ্জের বিধায়ক সত্যজিৎ বিশ্বাস খুনেরপ্রতিবাদে অবরোধের জেরে শিয়ালদহ মেন শাখা ...বিশদ

04:47:00 PM

মাধ্যমিকের প্রশ্নপত্র নিয়ে কী কী বিধি জারি করল পর্ষদ
আগামীকাল শুরু মাধ্যমিক। এবারের মাধ্যমিকে পরীক্ষার্থির সংখ্যা বেশ কিছুটা ...বিশদ

04:43:50 PM