Bartaman Patrika
রাজ্য
 

শাসকদল-রাজ্যপালের বিরোধ বেনজির পর্যায়ে
এরাজ্যে মহারাষ্ট্র মডেলে সমান্তরাল
প্রশাসন চালানো যাবে না: মুখ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: গোটা দেশেই সমান্তরাল প্রশাসন চালানো হচ্ছে। এরাজ্যে মহারাষ্ট্র মডেলে সমান্তরাল প্রশাসন চালাতে চাইলে তা সহজ হবে না। আমরা ছেড়ে কথা বলব না। লড়াই করতে হলে করব। বৃহস্পতিবার শহরে তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক এক অনুষ্ঠানের উদ্বোধনে এভাবেই রাজ্যপাল জগদীপ ধনকারকে সতর্ক করে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজ্য বিধানসভা অধিবেশন দুইদিন মুলতুবি রাখতে তিনিই যে বাধ্য করেছেন, এদিন এমনও অভিযোগ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। বিধানসভা বন্ধ রয়েছে যাঁর কারণে, তিনিই আবার সেখানে গিয়ে কী করতে চাইছেন, এই নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন পরিষদীয় মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ও। সব মিলিয়ে দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে গত তিন মাসে তাঁর আচরণ রাজ্যের শাসকদলের সঙ্গে রাজ্যপালের বিরোধের বেনজির দৃষ্টান্ত তৈরি করে চলেছে বলেই রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের ধারণা।
রাজভবনে আসা ইস্তক জগদীপ ধনকার প্রশাসনের সঙ্গে বিরোধে জড়িয়ে পড়েছেন। তিনি কেন্দ্রের শাসক বিজেপির হয়ে কাজ করছেন বলেও দাবি করেছে তৃণমূল। এদিন মুখ্যমন্ত্রী বলেন, রাজ্যপাল বাংলায় সমান্তরাল প্রশাসন চালাতে চাইছেন। এই প্রসঙ্গেই তিনি মহারাষ্ট্রের রাজ্যপালের ভূমিকা নিয়ে কটাক্ষ করেন। উল্লেখ্য, ওই রাজ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠতা না থাকা সত্ত্বেও গভীর রাতে বিজেপি সরকার গড়ার সুযোগ পায়। এই বেনজির ঘটনার নেপথ্যে মহারাষ্ট্রের রাজ্যপাল অতিসক্রিয় ভূমিকা নিয়েছিলেন। একদিনের মধ্যেই তাঁর সেই প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়। দেবেন্দ্র ফড়নবীশ মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে ইস্তফা দিতে বাধ্য হন। শিবসেনা-এনসিপি জোট সরকার গঠিত হয়। সপ্তাহখানেক আগের সেই নাটকীয় ঘটনা গোটা দেশেই আলোড়ন ফেলে দিয়েছিল। ফড়নবীশ দ্বিতীয় দফায় মুখ্যমন্ত্রী হতে না হতেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তথা বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ তাঁকে অভিনন্দিত করেছিলেন। স্বভাবতই, রাজ্যপালের ভূমিকা ও কেন্দ্রের শাসকদলের যৌথ তৎপরতা নিয়ে সব মহলে বিতর্ক দেখা দেয়। এদিন মুখ্যমন্ত্রীর কথাতেও বাংলার রাজ্যপালের দলতান্ত্রিক ভূমিকারই ইঙ্গিত মিলেছে। মহারাষ্ট্র মডেলে এখানে রাজ্যপালের স্বেচ্ছাচার চলবে না— বস্তুত চ্যালেঞ্জের সুর মুখ্যমন্ত্রীর গলায়। তাঁর মতে, এরাজ্যেও সমান্তরাল প্রশাসন চালাতে চাইছেন রাজ্যপাল। রাজ্যের মানুষের প্রয়োজনে বিধানসভায় বিল আনতে চাইলে, তার অনুমতি দেওয়া নিয়ে দেরি করায় অধিবেশন দু’দিন মুলতুবি রাখতে হয়, যা রাজ্যের পরিষদীয় ইতিহাসে বিরল ঘটনা। এদিন নাম না করে বিজেপির উদ্দেশে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, সারা দেশেই সমান্তরাল প্রশাসন চলছে। মহারাষ্ট্রের চেয়ে বাংলায় একশোগুণ বেশি করে সমান্তরাল প্রশাসন চালানোর চেষ্টা হচ্ছে। কিন্তু কিছুতেই তা মেনে নেওয়া হবে না। এজন্য লড়তে হলেও তিনি প্রস্তুত।
অধিবেশন বন্ধ। তা সত্ত্বেও রাজ্যপাল ধনকার এদিন সকালে বিধানসভায় গিয়েছিলেন। ওই ঘটনার উল্লেখ করে তৃণমূল নেতা তথা রাজ্যের মন্ত্রী পার্থবাবু বলেন, রাজ্যপাল যা করছেন, তাতে তাঁর পদের গরিমা তিনি নিজেই নষ্ট করছেন। তিনি চাইলে কালীঘাট, দক্ষিণেশ্বর যেতে পারতেন। বিধানসভা বন্ধ, অথচ সেখানে গেলেন। কী তার কারণ, বোঝা গেল না। তাঁর পদটি সাংবিধানিক। কিন্তু তাঁর আচরণ প্রশাসনিক প্রধানের মতো। পার্থবাবুর মতে, তিনি রাজনীতি করতে চাইলে করতেই পারেন। কিন্তু সাংবিধানিক পদে থেকে নির্বাচিত সরকারের কাজে হস্তক্ষেপ করছেন, এটা তাঁর পদের প্রতি অবমাননার শামিল।
এদিন বিধানসভায় রাজ্যপালের আসার ঘটনায় অবশ্য আপত্তির কিছু দেখছেন না বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নান। তিনি বলেন, কোনও ব্যক্তি নন, রাজ্যপালের পদটিকে অসম্মান করা উচিত নয়। বাম পরিষদীয় নেতা সুজন চক্রবর্তী বলেন, রাজ্যপাল যাচ্ছেন শুনেই সরকার কেন পালিয়ে বেড়াবে তা বোধগম্য নয়। তিনি নাকি বিধানসভার লাইব্রেরি দেখতে চেয়েছেন। তাতে সরকারের আপত্তির কারণ কী, তা জানা গেল না। তবে, রাজ্যপাল পদ টিকিয়ে রাখার পক্ষপাতি তাঁরা নন বলে জানান সুজনবাবু। তিনি বলেন, তবে যতদিন এই সাংবিধানিক পদটি রয়েছে ততদিন তাকে মান্যতা দেওয়া উচিত।

বুলবুলের ক্ষতিপূরণ ও কৃষকবন্ধু প্রকল্পের টাকা পেতে পদ্ধতি সরল করছে রাজ্য

বিশ্বজিৎ মাইতি, বারাসত, বিএনএ: বুলবুলে ক্ষতিগ্রস্ত সমস্ত চাষিকে ক্ষতিপূরণ দিতে নতুন সিদ্ধান্ত নিল রাজ্য সরকার। পৈতৃক সম্পত্তির রেকর্ড না থাকলেও ব্লক ভূমি ও ভূমি সংস্কার আধিকারিকদের দেওয়া সার্টিফিকেটের ভিত্তিতে চাষিদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে।
বিশদ

  সরকার এবার কঠোর হবে, হুঁশিয়ারি পার্থর, গুরুত্ব দিচ্ছেন না পার্শ্বশিক্ষকরা

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আন্দোলনরত পার্শ্বশিক্ষকদের চরম হুঁশিয়ারি দিয়ে রাখলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। বৃহস্পতিবার সাংবাদিক বৈঠক করে তিনি স্পষ্ট জানিয়ে দেন, অনেক হয়েছে। এবার সরকারকে কঠোর হতে হবে। ছাত্রছাত্রীদের ভবিষ্যৎ নিয়ে খেলতে দেব না। বিশদ

দ্বৈরথ চরমে, বিধানসভা ভবন পরিদর্শনে গিয়ে বিড়ম্বনায় ধনকার

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের পর রাজ্য বিধানসভা। ফের রাজ্যপাল জগদীপ ধনকারকে বিড়ম্বনার মুখে পড়তে হল সরকারিভাবে অভ্যর্থনা না পাওয়ার ইস্যুকে কেন্দ্র করে। বৃহস্পতিবার তাঁর বিধানসভা ভবন পরিদর্শন কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে রাজ্যের সঙ্গে সংঘাতের সম্ভাবনা আগেই তৈরি হয়েছিল। বিশদ

 অর্থনীতির অন্ধকার যুগ চলছে,
কেন্দ্রকে তীব্র আক্রমণ মমতার

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: গোটা দেশের অর্থনীতিতে অন্ধকারের যুগ চলছে। মোদি সরকারের নোটবন্দির ফল মানুষ এখন হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছে। বাড়িতে টাকা রাখলে নোটবন্দি, আর ব্যাঙ্কে টাকা রাখলে লুটবন্দি। মানুষ কোথায় যাবে? দেশের অর্থনীতিতে অন্ধকারতম সময় চলছে।
বিশদ

মধ্যশিক্ষা পর্ষদ থেকে
উধাও ২৬ লক্ষ টাকা!

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: মধ্যশিক্ষা পর্ষদের বিপুল পরিমাণ টাকার হিসেব মিলছে না। সূত্রের খবর, কয়েক বছর ধরে মোট প্রায় ২৬ লক্ষ টাকা উধাও হয়েছে পর্ষদের। বৃহস্পতিবার বিষয়টি সামনে আসায় বিধাননগর (পূর্ব) থানায় পর্ষদের তরফে খবর দেওয়া হয়। আসে বিশাল পুলিসবাহিনী। যদিও, লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়েছে অনেক রাতে।
বিশদ

ত্রুটি থাকলে ফেরত পাঠান, ধরে রেখেছেন কেন, পাল্টা পার্থ
গণপিটুনি বিল: পেশ করার জন্য পাঠানো ও
পাশ হওয়া দু’টি বিল ভিন্ন, বললেন রাজ্যপাল

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: বিধানসভায় পাশ হওয়া গণপিটুনি বিলের ভবিষ্যৎ যে কার্যত বিশ বাঁও জলে, বৃহস্পতিবার তেমনই ইঙ্গিত মিলল স্বয়ং রাজ্যপাল জগদীপ ধনকারের কথায়। বিধানসভা ভবন পরিদর্শন করতে এসে বিড়ম্বনায় পড়া ধনকার এদিন বলেন, গণপিটুনি সংক্রান্ত বিষয়ে বিধানসভায় পেশের জন্য তাঁর সই করা এবং পরে পাশ হওয়া বিল দু’টি ভিন্ন। বিশদ

  পশ্চিমবঙ্গের জন্য বিশেষ আর্থিক সহায়তা আদায়ে উদ্যোগী অধীর, আনছেন প্রাইভেট মেম্বার বিল

 নিজস্ব প্রতিনিধি, নয়াদিল্লি, ৫ ডিসেম্বর: তৃণমূলের সঙ্গে সম্পর্ক আদায় কাঁচকলায় হলেও রাজ্যের উন্নয়নের প্রশ্নে এবার পশ্চিমবঙ্গের জন্য কেন্দ্রের কাছ থেকে বিশেষ আর্থিক সহায়তা আদায়ে উদ্যোগী হলেন লোকসভার কংগ্রেসের দলনেতা অধীররঞ্জন চৌধুরী। বিশদ

 চিটফান্ডের সুবিধাপ্রাপকরাই চান ডাকঘরে স্বল্প সঞ্চয় বন্ধ করতে, ধর্মতলায় বললেন সুজন-মান্নান

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: মানুষ স্বল্প সঞ্চয় প্রকল্পে আগ্রহী হলে চিটফান্ডগুলির লোক ঠকানো চলবে না। তাই চিটফান্ড থেকে যারা নানাভাবে সুবিধা পেয়েছে, তারা কেউ চায় না স্বল্প সঞ্চয় প্রকল্পগুলি উজ্জীবিত হোক। বিশদ

কারিগরি শিক্ষা দপ্তরের নজরে একাধিক স্বশাসিত সংস্থা, অর্ডার নিয়ে প্রশ্ন কর্মী-আধিকারিকদের

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: কারিগরি শিক্ষা, প্রশিক্ষণ এবং দক্ষতা উন্নয়ন দপ্তর তার অধীন যাবতীয় সংস্থাগুলির উপর নজরদারি বাড়াচ্ছে। ৪ ডিসেম্বরের তারিখ দেওয়া, ৫ ডিসেম্বর প্রকাশিত একটি অর্ডারে সংস্থাগুলির যাবতীয় কাজকর্মকে মন্ত্রীর আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে। বিশদ

শিক্ষা দিয়েছে হায়দরাবাদ
মহিলাদের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে
নয়া বাহিনী গড়ছে লালবাজার

 সুজিত ভৌমিক, কলকাতা: হায়দরাবাদে মহিলা চিকিৎসককে গণধর্ষণ ও নৃশংসভাবে খুনের পর এবার কলকাতা শহরে কর্মরত মহিলাদের সুরক্ষা দিতে নয়া বাহিনী গড়ছে কলকাতা পুলিস। এরজন্য ৭৫টি গাড়ি কেনা হচ্ছে। রাতের শহরে নানা প্রয়োজনে যে সব অঞ্চলে মহিলাদের যাতায়াত বেশি, সেখানেই টহল দেবে এই বাহিনী।
বিশদ

  ফসলের গোড়া পোড়ানো রুখতে এবার উপগ্রহ চিত্রের মাধ্যমে নজরদারি চাইছে রাজ্য

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ফসলের গোড়া বা নাড়া পোড়ানো রুখতে এবার উপগ্রহ চিত্রের মাধ্যমে সর্বক্ষণ নজরদারি করতে চাইছে রাজ্য। মূলত কোথায় কোথায় ফসল পোড়ানো হচ্ছে, সেটা জানতেই এই পরিকল্পনা। রাজ্য দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদের পক্ষ থেকে এবিষয়ে ইতিমধ্যে পরিকল্পনা শুরু করে দেওয়া হয়েছে। বিশদ

 শিক্ষামন্ত্রীকে পদত্যাগপত্র ইমেল করলেন বৈশাখী

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: অধ্যাপক পদ ছাড়তে চেয়ে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে চিঠি দিলেন বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। বৃহস্পতিবার তাঁকে ইমেল মারফত ইস্তফাপত্র পাঠিয়েছেন তিনি। মিল্লি আল আমিন কলেজের রাষ্ট্র বিজ্ঞানের এই অধ্যাপিকা আগেও একবার অব্যাহতি চেয়ে মন্ত্রীকে চিঠি দিয়েছিলেন। বিশদ

রাজ্যে গণতন্ত্র নেই, বন্ধ বিধানসভার
গেটের সামনে দাঁড়িয়ে ক্ষোভ রাজ্যপালের
 

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ফের রাজ্য-রাজ্যপাল সংঘাত। আজ বিধানসভার সামনে দাঁড়িয়েই রাজ্যে গণতন্ত্র নেই বলে কটাক্ষ করলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকার। আজ সকাল ১০টা ৫০ মিনিটে বিধানসভায় আসেন রাজ্যপাল। কিন্তু ঢুকতে গিয়েই দেখেন গেট বন্ধ। সমস্যার সূত্রপাত সেখান থেকেই।   বিশদ

05th  December, 2019
লঙ্কা ১০ টাকায় কিনে বিক্রি ১৪০ টাকায়
পেঁয়াজ ১৪০ টাকা,
আগুন সব্জিবাজারে

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: কয়েকদিন আগে কলকাতার খুচরো বাজারে কেজিতে একশো টাকা ছোঁয়ার পর পেঁয়াজের দাম সামান্য কমায় সাধারণ ক্রেতারা কিছুটা স্বস্তি পেয়েছিলেন। কিন্তু বুধবারই খুচরো বাজারে পেঁয়াজের দাম অস্বাভাবিক বেড়ে একশো টাকা ছাড়িয়েও অনেকটা চড়া হল। কলকাতার অধিকাংশ বাজারে এদিন ১২০ থেকে ১৪০ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে। খুব ভালো মানের পেঁয়াজের দাম দেড়শো টাকার আশপাশে ছিল বলে জানা গিয়েছে।
বিশদ

05th  December, 2019

Pages: 12345

একনজরে
সংবাদদাতা, কাঁথি: খেজুরি-১ বিডিওর উদ্যোগে বিবাহিতা এক নাবালিকাকে উদ্ধার করা হল। পাশাপাশি নাবালিকার পরিবারের লোকজন পুলিস¬-প্রশাসনের কাছে মুচলেকা দিয়ে জানিয়েছেন, মেয়ে ১৮বছর হলেই তাকে স্বামীর বাড়িতে পাঠানো হবে। ততদিন পর্যন্ত বাপেরবাড়ির হেফাজতেই থেকে পড়াশোনা করবে সে।  ...

ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে যেসব সংস্থার শেয়ার গতকাল লেনদেন হয়েছে শুধু সেগুলির বাজার বন্ধকালীন দরই নীচে দেওয়া হল। ...

 নয়াদিল্লি, ৫ ডিসেম্বর (পিটিআই): আইনজীবীদের আদালত অবমাননার হুঁশিয়ারি দেওয়ার পর করজোড়ে ক্ষমা চাইলেন বিচারপতি অরুণ মিশ্র। মঙ্গলবার বিচারপতি মিশ্রর নেতৃত্বাধীন পাঁচ সদস্যের বেঞ্চে এক জমি অধিগ্রহণ মামলার শুনানি চলছিল। ...

বিএনএ, মালদহ: রোগীকে পরীক্ষার নাম করে তার শ্লীলতাহানির অভিযোগে অভিযুক্ত চিকিৎসকের খোঁজ মিলল না বৃহস্পতিবারেও। ইংলিশবাজার শহরে তার চেম্বারটিও বন্ধ রয়েছে বলে জানা গিয়েছে। এব্যাপারে মালদহ মহিলা থানা একটি মামলা দায়ের করেছে বলে পুলিস সূত্রে জানা গিয়েছে।  ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

অতিরিক্ত পরিশ্রমে শারীরিক ক্লান্তি। প্রিয়জনের বিপদগামিতায় অশান্তি ও মানহানির আশঙ্কা। সাংসারিক ক্ষেত্রে মতানৈক্য এড়িয়ে চলা ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮২৩: জার্মান দার্শনিক ম্যাক্সমুলারের জন্ম
১৮৫৩: ঐতিহাসিক ও শিক্ষাবিদ হরপ্রসাদ শাস্ত্রীর জন্ম
১৯৫৬: দলিত আন্দোলনের নেতা ভীমরাওজি রামাজি আম্বেদকরের মৃত্যু
১৯৮৫: ক্রিকেটার আর পি সিংয়ের জন্ম
১৯৯২: অযোধ্যার বিতর্কিত সৌধ ধ্বংস
২০১৬ - তামিলনাড়ুর প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জয়ললিতার মৃত্যু



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৯.৯২ টাকা ৭৩.০৯ টাকা
পাউন্ড ৯১.৬২ টাকা ৯৬.০৫ টাকা
ইউরো ৭৭.৪২ টাকা ৮১.১৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,৭২৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,৭৪০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৭,২৯০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৪,২০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৪,৩০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৬ ডিসেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, দশমী অহোরাত্র। উত্তরভাদ্রপদ ৪২/৬ রাত্রি ১০/৫৭। সূ উ ৬/৬/৫৩, অ ৪/৪৭/৫৩, অমৃতযোগ দিবা ৬/৪৮ মধ্যে পুনঃ ৭/৩২ গতে ৯/৪০ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৮ গতে ২/৩৯ মধ্যে পুনঃ ৩/২৩ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ৫/৪১ গতে ৯/১৪ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৪ গতে ৩/২৭ মধ্যে পুনঃ ৪/২০ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ৮/৪৭ গতে ১১/২৭ মধ্যে, কালরাত্রি ৮/৭ গতে ৯/৪৭ মধ্যে।
১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৬ ডিসেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, দশমী ৫৮/২৮/৪৯ শেষরাত্রি ৫/৩১/৫০। উত্তরভাদ্রপদ ৪১/৪৫/৪১ রাত্রি ১০/৫০/৩৪, সূ উ ৬/৮/১৮, অ ৪/৪৮/২৩, অমৃতযোগ দিবা ৭/২ মধ্যে ও ৭/৪৪ গতে ৯/৫০ মধ্যে ও ১১/৫৭ গতে ২/৫১ মধ্যে ও ৩/২৭ গতে ৪/৪৮ মধ্যে এবং রাত্রি ৫/৪৫ গতে ৯/২১ মধ্যে ও ১২/৩ গতে ৩/৩৮ মধ্যে ও ৪/৩২ গতে ৬/৯ মধ্যে, কালবেলা ১০/৮/২০ গতে ১১/২৮/২১ মধ্যে, কালরাত্রি ৮/৮/২২ গতে ৯/৪৮/২১ মধ্যে।
৮ রবিয়স সানি

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে সিরিজের প্রথম টি-২০ জিতল ভারত

10:31:05 PM

 প্রথম টি২০: ভারত ১৭৭/২ (১৬ ওভার)

10:13:22 PM

প্রথম টি২০: ভারত ৮৯/১ (১০ ওভার) 

09:34:38 PM

প্রথম টি২০: ভারতকে ২০৮ রানের টার্গেট দিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ 

08:34:59 PM

প্রথম টি২০: ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৪৪/৩ (১৫ ওভার) 

08:09:22 PM

প্রথম টি২০: ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১০১/২ (১০ ওভার) 

07:47:55 PM