Bartaman Patrika
রাজ্য
 

 মৃত্যুহীন জীবন...

একজন জন্মসন্ন্যাসী, ঠাকুর যাঁকে এই বলে বিশ্বাস করতেন, যে এই মহাপ্রাণটি জগতের হিতের জন্যে অবতীর্ণ হয়েছেন অনন্তের পরিমণ্ডল থেকে। ঠাকুর এও জানতেন তাঁর এই ধ্রুব শিষ্যটির শরীর বেশি দিন থাকবে না। স্বামীজিও সেকথা জানতেন কিন্তু তিনি সাধারণ পরিবেশে, সাধারণের মতো সাধারণ। তখন তাঁর কোনও অহঙ্কারই থাকত না। সাধারণের সঙ্গে সাধারণের মতোই নিজের বৃহৎ সত্তাকে গুটিয়ে আনতেন।

অপূর্ব চট্টোপাধ্যায়: সদ্য স্বামীহারা মিসেস সেভিয়ারকে সান্ত্বনা দিয়ে স্বামীজি ফিরে এলেন বেলুড় মঠে। সেইসময় তাঁর শরীর একদম ভালো ছিল না। তিনি তখন মুক্তির আকাশে মুক্ত বিহঙ্গের মতো ওড়ার জন্য ছটফট করছেন। একদিন তিনি তাঁর গুরুভ্রাতাদের বললেন, দেখ আমি তো মায়ের জন্য কখনও কিছু করলুম না; আমার শরীরের যেরকম অবস্থা তাতে দু-এক বছরের বেশি বাঁচব বলে মনে হয় না। তাই আমার ইচ্ছা মাকে কিছু তীর্থ করাই। তাহলে তবু তাঁর কিছু করা হবে। তা তোমরা যদি আমায় এ বিষয়ে সাহায্য কর তো ভালো হয়; আমার নিজের শরীরের তো এই অবস্থা।
এরপরই মা-দিদিমা ও দু-একজন গুরুভ্রাতাকে সঙ্গে নিয়ে স্বামীজি তীর্থভ্রমণে বেরলেন। তাঁরা যাবেন পূর্ববঙ্গ ও আসামের দিকে। শিলং-এ পৌঁছে স্বামীজি আবার অসুস্থ হয়ে পড়লেন। শুরু হল প্রবল শ্বাসকষ্ট। এক ফোঁটা বাতাসের জন্য তিনি তখন ছটফট করছেন। গুরুভ্রাতারা স্বামীজির অবস্থা দেখে অত্যন্ত বিচলিত হয়ে পড়লেন। ভয়ানক শ্বাসকষ্ট উপেক্ষা করেই স্বামীজি তাঁদের বলেছিলেন, ‘যাক, মৃত্যুই যদি হয়, তাতেই বা কি আসে যায়? যা দিয়ে গেলুম, দেড়হাজার বছরের খোরাক।’
এই তীর্থভ্রমণে বেরিয়ে বেশ কয়েকটি মজার ঘটনা ঘটেছিল। একদিন ভুবনেশ্বরী দেবী তাঁর জগৎবিখ্যাত পুত্র স্বামী বিবেকানন্দকে বলেছিলেন, ‘দেখ এসব তো অনেক হলো, বেশ ভাল, এইবার একটা বিয়ে কর।’ উত্তরে স্বামীজি বলেছিলেন, ‘দেখো মা, বিয়ে করবার কি দরকার? এই দেখনা আমার সব কত বড় বড় ছেলে (শিষ্যদের দেখিয়ে) রয়েছে।’ কিন্তু এই বিয়ের প্রসঙ্গ দিদিমা তুললেই, স্বামীজি মজা করে হাসতে হাসতে বলতেন, ‘দেখ দিদিমা, এখনও আমার হাতে কিছু টাকা আছে; তুমি এই বেলা মর, আমি তোমার বেশ ঘটা করে শ্রাদ্ধ করি।’
একজন জন্মসন্ন্যাসী, ঠাকুর যাঁকে এই বলে বিশ্বাস করতেন, যে এই মহাপ্রাণটি জগতের হিতের জন্যে অবতীর্ণ হয়েছেন অনন্তের পরিমণ্ডল থেকে। ঠাকুর এও জানতেন তাঁর এই ধ্রুব শিষ্যটির শরীর বেশি দিন থাকবে না। স্বামীজিও সেকথা জানতেন কিন্তু তিনি সাধারণ পরিবেশে, সাধারণের মতো সাধারণ। তখন তাঁর কোনও অহঙ্কারই থাকত না। সাধারণের সঙ্গে সাধারণের মতোই নিজের বৃহৎ সত্তাকে গুটিয়ে আনতেন। রঙ্গ রসিকতা ,মেয়েলি কথাবার্তাতেও তাঁর আপত্তি ছিল না। এখানে তিনি পবিত্র এক অস্তিত্বকে বহন করে নিয়ে চলেছেন— তাঁর গর্ভধারিণীকে। এই পরিক্রমা বৃত্তাকারে ফিরে আসবে উৎসে। আর সেইখান থেকেই ঘটবে তাঁর আবার ফিরে যাওয়া অনন্তে।
তিনি যে চলে যাবেন এই তথ্যটি তিনি নিজের মধ্যে সঙ্গোপনে রেখে দিয়েছিলেন। কেউ যেন বুঝতে না পারে অগ্নিনির্বাপিত হতে চলেছে। ঘটনাটি এত আকস্মিক যে তাঁর ঘনিষ্ঠ গুরুভ্রাতারাও বুঝতে পারেননি। সেইদিন তিনি দেখিয়ে গেলেন তাঁর লীলা। সম্পূর্ণ সুস্থ সেদিন। একমাইলেরও অধিক পথ হেঁটে এলেন। তারপর নিঃশব্দে নিজের শক্তি দিয়ে যেন জ্বালালেন আর একটি বৃহৎ হোমকুণ্ড, আহুতি দিলেন নিজেকে।
ঠাকুর বলতেন, যাবার আগে হাটে হাঁড়ি ভেঙে দিয়ে যাব। অর্থাৎ আমি কে, সাধারণ ও অসাধারণ মানুষ উভয়েই বুঝতে পারবে। তাঁরই প্রধান শিষ্য স্বামী বিবেকানন্দ সিমুলিয়ার ‘বিলেটি’কে তা অগ্নিআখরে আকাশের গায়ে লিখে রেখে যাবেন। সেই কারণেই প্রথম দিনেই শেষ দিনের কথা বলার চেষ্টা। রবীন্দ্রনাথ বড় সুন্দর একটা লাইন রেখে গেছেন— ‘যা পেয়েছি প্রথম দিনে তাই যেন পাই শেষে।’ স্বামীজির শেষ কোথায়! তিনি তো অনন্ত, তিনি তো ব্রহ্মস্বরূপ। তিনি বলতেন অহং ব্রহ্মাষ্মি। হাজার বার বললেও, ব্রহ্মস্বরূপ হওয়া যায় না।
স্বামীজি আবার বলতেন ব্রহ্মের আবার অসুখ কী? শ্বাসকষ্ট, মধুমেহ— এসবই তো শরীরের। ঠাকুর যাকে বলতেন খাঁচা। ঠাকুরও তো বলতেন, রোগ জানুক আর দেহ জানুক। আমেরিকা ভ্রমণের শেষের দিকে স্বামীজি অত্যন্ত অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন কিন্তু পাত্তা দেননি। পূর্ববঙ্গ ভ্রমণের সময় শরীর সহযোগিতা করেনি। তিনি সেসব গ্রাহ্যের মধ্যেই আনেননি। পরিব্রাজক অবস্থায় হৃষীকেশে গুরুভাইরা মনে করেছিলেন তিনি দেহ ছেড়ে দিয়েছেন। বরাহনগর মঠে একবার ভীষণ অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। স্বামীজির অসুখ করে না, কারণ তিনি মুহূর্তে নিজেকে দেহাতীত অবস্থায় নিয়ে যেতে পারেন। তাঁর শেষের দিনটি স্পষ্ট করে দিয়ে গেছে — দেহ নয় তিনি ছিলেন একটি অগ্নিশিখা। পাশ্চাত্যের পাদরিরাও বারে বারে সে প্রমাণ পেয়েছিলেন।
ফিরে আসি শেষ দিনটির কথায়। সেদিন তিনি ভীষণ সুস্থ। ঠাকুরও চলে যাবার কয়েক ঘণ্টা আগে তাঁর সেবকদের বড় আনন্দ দিয়েছিলেন। সুস্থ মানুষের মতো গলা অন্ন সহজে গ্রহণ করে (স্বামীজিই খাইয়ে দিয়েছিলেন) বড় আরামে বালিশে মাথা রেখে শুয়েছিলেন। আনন্দের হিল্লোল বয়ে গিয়েছিল।
শেষদিনে স্বামীজি কী করলেন! যেটিকে বলা যেতে পারে একটু অন্যরকম। রুদ্ধদ্বার ঠাকুরঘরে দীর্ঘক্ষণ ধ্যানে বসে রইলেন। তারপর বারান্দায় পায়চারি করতে করতে একটি গান বারে বারে গাইলেন। বিকেলে ভ্রমণ শেষে তিনি তাঁর নিজের ঘরে মেঝেতে শুয়ে পড়লেন, সেবককে বললেন বাইরে থাক। সেবক বাইরে থেকে একসময় একটি আর্ত কন্ঠস্বর শুনলেন। এসে দেখলেন স্বামীজি চিরনিদ্রায় নিদ্রিত। এখানেই শেষ নয়, তিনি তাঁর দেহের বাইরে বিচরণ করছিলেন। তা নাহলে তিনি নিবেদিতার প্রার্থনা কেমন করে শুনতে পেলেন। সিস্টার একটি স্মারক নিজের কাছে রাখতে চাইছিলেন। অগ্নি সমন্বিত একটি বস্ত্রখণ্ড পূতচিতাগ্নি থেকে উড়ে এসে তাঁর শরীর স্পর্শ করল। বিদেশিনী স্তম্ভিত। কে কী বুঝলেন জানা নেই, তাঁর এই মানস কন্যা হয়তো রবীন্দ্রনাথের এই লাইনটির অর্থ আর একবার বুঝলেন— এনেছিলে সাথে করে মৃত্যুহীন প্রাণ...।
জনসভায় তীব্র আক্রমণ মমতার
উচ্চবর্ণের জন্য মোদির
সংরক্ষণ আদৌ হবে না

দেবাঞ্জন দাস, বারাসত: উচ্চবর্ণের মানুষের শিক্ষা ও চাকরির জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের ১০ শতাংশ আসন সংরক্ষণ নীতিকে কটাক্ষ করে ‘চালাকি’ বলে উল্লেখ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুক্রবার বারাসতে যাত্রা উৎসবের উদ্বোধনী মঞ্চে এই প্রসঙ্গে মমতা বলেন, যে সব শর্ত রয়েছে, তাতে কতজন গরিব মানুষ চাকরি পাবেন! সব চালাকি! চাকরিই নেই, তার আবার সংরক্ষণ।
বিশদ

বাংলায় বিজেপির শক্তি কতটা,
স্পষ্ট হবে ২০১৯-এর ভোটেই
সর্বভারতীয় কর্মিসভায় দাবি অমিত শাহের

 দিব্যেন্দু বিশ্বাস, নয়াদিল্লি, ১১ জানুয়ারি: ‘২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনেই স্পষ্ট হবে, বাংলায় দলের সাংগঠনিক শক্তিবৃদ্ধি ঠিক কতটা হয়েছে। একইভাবে ওড়িশাতেও বিজেপির সাংগঠনিক শক্তির পরিচয় পাওয়া যাবে লোকসভা নির্বাচনে।’
বিশদ

বাবুঘাটে গঙ্গাসাগর যাত্রীদের উদ্দেশে ঘোষণা মমতার
সাগরদ্বীপ জুড়বে মূল ভূখণ্ডের সঙ্গে,
মুড়িগঙ্গার উপর সেতু বানাবে রাজ্যই

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: কেন্দ্রের মোদি সরকার কথা দিয়েও রাখেনি। তাই সাগরদ্বীপকে মূল ভূখণ্ডের সঙ্গে সংযুক্ত করতে মুড়িগঙ্গার উপর সেতু তৈরি করবে রাজ্য সরকারই। শুক্রবার বাবুঘাটে গঙ্গাসাগরের তীর্থযাত্রীদের শিবিরে এক অনুষ্ঠানে এই ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেতু তৈরিতে দেড় হাজার কোটি টাকা খরচ হবে।
বিশদ

বর্ধিত ভাড়া প্রত্যাহার করল সরকার
পুরনো ভাড়াতেই সরকারি স্পেশাল
বাসে গঙ্গাসাগর দর্শন পুণ্যার্থীদের

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আগের ভাড়াতেই সরকারি ‘স্পেশাল’ বাসে গঙ্গাসাগর মেলায় যেতে শুরু করলেন পুণ্যার্থীরা। শুক্রবার হাওড়া, বাবুঘাট সহ বিভিন্ন জায়গা থেকে মেলার জন্য বিশেষ সরকারি বাস পরিষেবা শুরু হয়েছে। পরিষেবা দেওয়ার মূল দায়িত্বে রয়েছে ডব্লুবিটিসি এবং এসবিএসটিসি।
বিশদ

 পরিব্রাজক বিবেকানন্দ

গুঞ্জন ঘোষ: শ্রীরামকৃষ্ণের দেহত্যাগের পর নরেন্দ্রনাথ স্বামী বিবেকানন্দরূপে ভারত পরিক্রমায় বেরিয়ে নিজেকে জানার সঙ্গে সঙ্গে জেনেছিলেন কোথায় ভারতের শক্তি আর কোথায় তার দুর্বলতা। আধ্যাত্মিকতার প্রাণকেন্দ্র ভারতবর্ষের লুপ্ত গৌরব পুনরুদ্ধারের সংকল্পে শিকাগো ধর্মমহাসভাকেই পাখির চোখ করলেন।
বিশদ

মমতার পরবর্তী নির্দেশের অপেক্ষায় স্বাস্থ্যভবন
‘আয়ুষ্মান ভারত’ থেকে বেরিয়ে আসায় ‘স্বাস্থ্যসাথী’
প্রকল্পের কোনও সমস্যাই হবে না, দাবি কর্তাদের

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: রাজনৈতিক উদ্দেশ্য চরিতার্থ করার অভিযোগ তুলে ‘আয়ুষ্মান ভারত’ প্রকল্প থেকে বেরিয়ে আসার পর রাজ্য তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যয়ের স্বপ্নের প্রকল্প ‘স্বাস্থ্যসাথী’ স্বয়ংসম্পূর্ণভাবে রূপায়ণে কোন সমস্যা হবে না। এমনই দাবি স্বাস্থ্য দপ্তরের কর্তাদের।
বিশদ

 তৃণমূলের ব্রিগেড সমাবেশে হাজির
থাকবেন ভিন রাজ্যের তিন মুখ্যমন্ত্রী

জানালেন মমতা

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আগামী ১৯ জানুয়ারি তৃণমূল কংগ্রেসের ব্রিগেড সমাবেশে অন্য রাজ্যের তিনজন মুখ্যমন্ত্রী অংশ নেবেন। শুক্রবার সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ব্রিগেড সমাবেশে ভিন রাজ্যের বিভিন্ন দলের বেশ কয়েকজন প্রথম সারির নেতার আসার কথা জানিয়েছেন।
বিশদ

লক্ষ্য ভোট, আত্মঘাতী চাষিদের পরিবারগুলিকে শহরে এনে সমাবেশের পরিকল্পনা সিপিএমের কৃষক সংগঠনের

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: গত কয়েক বছর ধরে কৃষক আত্মহত্যার ঘটনাবলি নিয়ে রাজনৈতিক বিতর্ক গোটা দেশেই এখন তুঙ্গে। আসন্ন লোকসভা ভোটের আগে কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদি সরকারকে এব্যাপারে প্রায় সব বিরোধী দলই কাঠগড়ায় তুলে প্রতিদিনই তুলোধোনা করছে।
বিশদ

শনি-রবি খোলা থাকছে উচ্চশিক্ষা বিভাগ
মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের আগে
রিপোর্ট তৈরিতে ব্যস্ত শিক্ষাকর্তারা

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: সোমবার মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে বসবেন রাজ্যের কলেজগুলির অধ্যক্ষ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যরা। কিন্তু কী নিয়ে সেই বৈঠক হবে, তা নিয়ে এখনও অন্ধকারে তাঁরা। এদিকে, বিকাশ ভবনের কর্তাদের মধ্যেও এই বৈঠক নিয়ে প্রবল টেনশন। কারণ বৈঠকের ‘অ্যাজেন্ডা’ কী, তা স্পষ্ট নয় কারও কাছে। বিশদ

  ব্রিগেডে ৮ ফেব্রুয়ারি সভা করতে আসতে পারেন মোদি

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি ব্রিডেগ প্যারেড গ্রাউন্ডে রাজনৈতিক সমাবেশ করতে আসতে পারেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। শুক্রবার দিল্লিতে শুরু হওয়া দু’দিনের জাতীয় পরিষদের বৈঠকের মাঝে বঙ্গ নেতৃত্বকে এমনই ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে। যেখানে হাজির ছিলেন স্বয়ং নরেন্দ্র মোদি, দলের সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ সহ তাবড় নেতা-মন্ত্রীরা।
বিশদ

অমিত শাহকে রাজ্যে ভোটে লড়ার চ্যালেঞ্জ অভিষেকের

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ৪২টি আসনের মধ্যে তিনি কোথায় দাঁড়াবেন, সাংবাদিক সম্মেলন করে ঘোষণা করুন। ওঁকে একাই সেখানে ভো-কাট্টা করব। ব্রিগেড সমাবেশের সমর্থনে আয়োজিত শ্যামবাজারের সভা থেকে শুক্রবার এভাবেই বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিলেন তৃণমূল যুব কংগ্রেসের রাজ্য সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।
বিশদ

ধর্মঘটী শ্রমিক-কর্মচারী সংগঠনগুলি ফের মিছিলে

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: পরপর দু’দিন বিভিন্ন জায়গায় ভাঙচুর ও অবরোধের মাধ্যমে ধর্মঘট করেও ক্ষান্ত থাকছে না বাম ও ডানপন্থী শ্রমিক ও কর্মচারী সংগঠনগুলি। এবার তারা ধর্মঘটের সময় তাদের উপর পুলিশ ও শাসক দলের হামলার প্রতিবাদে ফের রাস্তায় নামল।
বিশদ

রাজ্যে পঞ্চায়েত স্তরে ক্যাম্প করে কাস্ট সার্টিফিকেট দেওয়া শুরু

 দীপ্তিমান মুখোপাধ্যায়, হাওড়া: কয়েকদিন আগেই বোলপুরে বীরভূম জেলা প্রশাসনিক বৈঠকে জাতিগত শংসাপত্র বা কাস্ট সার্টিফিকেট বিলি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর বক্তব্য ছিল, বিভিন্ন জেলায় কাস্ট সার্টিফিকেট পেতে লোকজনকে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে।
বিশদ

কারিগরি সমস্যায় কেএমডিএ-র অবসরপ্রাপ্তদের পেনশন হল না

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: সরকারি তরফে অনুমোদনে কারিগরি সমস্যার কারণে শুক্রবারও পেনশন হল না কলকাতা মেট্রোপলিটন ডেভেলপমেন্ট অথরিটির (কেএমডিএ) অবসরপ্রাপ্ত কর্মীদের। তবে এদিনই অর্থ দপ্তরের তরফে সংশ্লিষ্ট খাতে টাকা রিলিজ করে দেওয়া হয়েছে।
বিশদ

Pages: 12345

একনজরে
 মুম্বই, ১১ জানুয়ারি (পিটিআই): বেতন বৃদ্ধি, ‘বেস্ট’ ও ‘বিএমসি’র বাজেট মিশিয়ে দেওয়া সহ একাধিক দাবিতে শুক্রবার চতুর্থ দিনে পড়ল মুম্বইয়ের বাস ধর্মঘট। যার জেরে চরম ...

বিএনএ, চুঁচুড়া: বামেদের ডাকা ধর্মঘটের দিন কলেজে ঢুকতে বাধা দেওয়ার প্রতিবাদ করায় দলীয় কর্মীকে মারধরে অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের দাবিতে শুক্রবার উত্তরপাড়া থানার কানাইপুর ফাঁড়ি ঘেরাও করল তৃণমূল। ...

 সিডনি, ১১ জানুয়ারি: এশিয়ার প্রথম অধিনায়ক হিসেবে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টেস্ট সিরিজ জয়ের মুকুট সদ্য তাঁর মাথায় উঠেছে। তবু অজিদের বিরুদ্ধে ওয়ান ডে সিরিজে খেলতে নামার আগে মন ভালো নেই বিরাট কোহলির। চোখে মুখে ধরা পড়েছে বিষণ্ণতার ছাপ। খানিক অপ্রস্তুতও বটে। ...

সংবাদদাতা, বিষ্ণুপুর: দীর্ঘ ৮ বছর পর স্থায়ী পদে শিক্ষিকা পেয়ে বৈতল গার্লস হাইস্কুলে কার্যত উৎসবের আমেজ। ২০১১ সালে চালু হওয়া ওই হাইস্কুলে এতদিন কোনও স্থায়ী শিক্ষক ছিল না। অতিথি শিক্ষক দিয়ে স্কুল চলেছে।  ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিতর্ক বিবাদ এড়িয়ে চলা প্রয়োজন। প্রেম পরিণয়ে মানসিক স্থিরতা নষ্ট। নানা উপায়ে অর্থ উপার্জনের সুযোগ। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

জাতীয় যুব দিবস
১৮৬৩: স্বামী বিবেকানন্দের জন্ম
১৯৩৪: মাস্টারদা সূর্য সেনের ফাঁসি
১৯৫০: কলকাতায় চালু হল চিত্তরঞ্জন ক্যানসার হাসপাতাল  





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৯.৬০ টাকা ৭১.২৯ টাকা
পাউন্ড ৮৮.২২ টাকা ৯১.৪৩ টাকা
ইউরো ৭৯.৬৯ টাকা ৮২.৭০ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩২,৬৬৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩০,৯৯০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩১,৪৫৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৯,৩০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৯,৪০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

আজ স্বামী বিবেকানন্দের ১৫৭তম আবির্ভাব দিবস
২৭ পৌষ ১৪২৫, ১২ জানুয়ারি ২০১৯, শনিবার, ষষ্ঠী ৩৯/১৫ রাত্রি ১০/৫। নক্ষত্র- পূর্বভাদ্রপদ ৫/৫০ দিবা ৮/৪৩, সূ উ ৬/২২/৫৮, অ ৫/৬/৩০, অমৃতযোগ দিবা ঘ ৭/৬ মধ্যে পুনঃ ৭/৪৯ গতে ৯/৫৭ মধ্যে পুনঃ ১২/৬ গতে ২/৫৮ মধ্যে পুনঃ ৩/৪০ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ১/৪ গতে ২/৫০। বারবেলা ঘ ৭/৪৩ মধ্যে পুনঃ ১/৪ গতে ২/২৪ মধ্যে পুনঃ ৩/৪৪ গতে অস্তাবধি, কালরাত্রি ঘ ৬/৪৫ মধ্যে পুনঃ ৪/৪৩ গতে উদয়াবধি।
আজ স্বামী বিবেকানন্দের ১৫৭তম আবির্ভাব দিবস
২৭ পৌষ ১৪২৫, ১২ জানুয়ারি ২০১৯, শনিবার, ষষ্ঠী রাত্রি ৫/৫১/২৯। উত্তরভাদ্রপদনক্ষত্র অহোরাত্র। সূ উ ৬/২৪/১, অ ৫/৪/৪২, অমৃতযোগ দিবা ঘ ৭/৬/৪৪ মধ্যে ও ঘ ৭/৪৯/২৮ থেকে ঘ ৯/৫৭/৩৮ মধ্যে ও ১২/৫/৪৮ থেকে ২/৫৬/৪২ মধ্যে ও ৩/৩৯/২৫ থেকে ৫/৪/৫২ মধ্যে এবং রাত্রি ১/৪/২২ থেকে ঘ ২/৫০/৫৫ মধ্যে। বারবেলা ১/৪/৩৩ থেকে ২/২৪/৩৯ মধ্যে, কালবেলা ৭/৪৪/৭ মধ্যে ও ঘ ৩/৪৪/৪৫ থেকে ৫/৪/৫২ মধ্যে, কালরাত্রি ৬/৪৪/৪৬ মধ্যে ও ঘ ৪/৪৪/১৬ থেকে ৬/২৪/১০ মধ্যে।
 
এই মুহূর্তে
ভর সন্ধ্যায় শ্যুটআউট পার্কসার্কাসে
ভর সন্ধ্যায় পার্কসার্কাস স্টেশন সংলগ্ন এলাকায় গুলি করে খুন করা ...বিশদ

09:59:38 PM

কলকাতায় চিতা বাঘের চামড়া সহ ধৃত ২

শনিবার বিকালে উত্তর কলকাতার একটি বাড়ি থেকে চিতা বাঘের চামড়া ...বিশদ

06:20:00 PM

আইলিগ: নেরোকাকে ১-০ গোলে হারাল মোহন বাগান 

04:09:04 PM

পথ দুর্ঘটনায় জখম উঃদিনাজপুরের জেলাশাসক
পথ দুর্ঘটনায় জখম হলেন উঃদিনাজপুরের জেলাশাসক অরবিন্দ কুমার মিনা। তবে ...বিশদ

04:05:22 PM

৩৪ রানে হারল ভারত 
ভারতের বিরুদ্ধে সিরিজের প্রথম একদিনের ম্যাচ ৩৪ রানে জিতল অস্ট্রেলিয়া  ...বিশদ

03:56:27 PM

 প্রথম ওয়ান ডে: ভারত ২১৪/৬ (৪৫ ওভার)

03:31:36 PM