দেশ

মোদির ৩ ‘তুঘলকি সিদ্ধান্তে’র জেরে ক্ষতির বহর ১১.৩ লক্ষ কোটি টাকা

নয়াদিল্লি: নোট বাতিল, জিএসটি চালু ও অপরিকল্পিত কোভিড লকডাউন। মোদি জমানায় ‘তুঘলকি সিদ্ধান্তে’র ত্রিফলা ধাক্কা! ২০১৬ থেকে ২০২৩ সালের মধ্যে এই তিন ধাক্কার জেরে দেশের অর্থনীতিতে ক্ষতির বহর ১১.৩ লক্ষ কোটি। ইনফর্মাল সেক্টর বা অসংগঠিত ক্ষেত্রে ঝাঁপ বন্ধ হয়েছে ৬৩ লক্ষ সংস্থার। চাকরি গিয়েছে ১ কোটি ৬০ লক্ষ। ইন্ডিয়া রেটিংস অ্যান্ড রিসার্চ-এর সাম্প্রতিক রিপোর্টে মোদির আমলে দেশের অর্থনীতির এই করুণ চিত্র প্রকাশ্যে চলে এসেছে। তাৎপর্যপূর্ণ বিষয় হল, কেন্দ্রের পরিসংখ্যান ও কর্মসূচি বাস্তবায়ন মন্ত্রকের ৫ জুলাই প্রকাশ করা বার্ষিক সমীক্ষার তথ্যের ভিত্তিতে এই রিপোর্টটি তৈরি হয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই ‘আচ্ছে দিন’-এর স্বপ্ন দেখানো প্রধানমন্ত্রী মোদির বিজেপি সরকারকে তুলোধোনা করছে বিরোধীরা।
ইন্ডিয়া রেটিংস অ্যান্ড রিসার্চ-এর রিপোর্টে দেশের অর্থনীতিতে তিন ধাক্কার উল্লেখ করা হয়েছে। ২০১৬ সালে মোদি সরকারের নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত, ২০১৭ সালে জিএসটি চালু ও ২০২০ সালে লকডাউন জারি করার ফলে দেশীয় অর্থনীতি, বিশেষ করে অসংগঠিত ক্ষেত্রের যে মেরুদণ্ড ভেঙে গিয়েছে, রীতিমতো তথ্য প্রকাশ করে তা তুলে ধরা হয়েছে এই রিপোর্টে। বলা হয়েছে, ত্রিফলা ধাক্কার জেরে সামগ্রিক ক্ষতির পরিমাণ ২০২২-২৩ সালে দেশের মোট জিডিপি ৪.৩ শতাংশের সমতুল। ২০১৫-১৬ থেকে ২০২২-২৩ সালের মধ্যে ইনফর্মাল সেক্টরের প্রায় ৬৩ লক্ষ সংস্থা বন্ধ হয়ে গিয়েছে। এর ফলে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে দেশের গরিব মানুষের। কারণ অসংগঠিত ক্ষেত্রের বিভিন্ন সংস্থার উপরই অসংখ্য নিম্নবিত্ত মানুষের রুটিরুজি নির্ভর করে।
রিপোর্টে বলা হয়েছে, অসংগঠিত ক্ষেত্রের একাংশ সংগঠিত ক্ষেত্রের আওতায় এসেছে। এর ফলে কর সংগ্রহ বেড়েছে। সরকারের কোষাগার ভরেছে। কিন্তু অসংগঠিত ক্ষেত্রে নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরির পথ অবরুদ্ধ হয়েছে। 
পরিংখ্যান মন্ত্রকের প্রকাশিত তথ্য বলছে, ২০২১-২২ সালে কৃষি বহির্ভূত সংস্থার সংখ্যা ছিল ৫.৯৭ কোটি। ২০২২-২৩ সালে তা বেড়ে হয়েছে ৬.৫ কোটি। স্বাভাবিকভাবেই এক বছরে এই সেক্টরে কর্মসংস্থান ৯.৭৯ কোটি থেকে বেড়ে হয়েছে ১০.৯৬ কোটি। কিন্তু তা সত্ত্বেও ‘ত্রিফলা ধাক্কা’র পূর্ববর্তী পরিস্থিতির তুলনায় এই কর্মসংস্থানের সংখ্যা অনেকটাই কম। কারণ নোট বাতিল, জিএসটি ও লকডাউনের আগে ২০১৫-১৬ সালে এই ক্ষেত্রে ১১.১৩ কোটি চাকরি হয়েছিল। অর্থনীতিতে তিন ধাক্কা না এলে ২০২২-২৩ সালে এই সংখ্যাটাই বেড়ে দাঁড়াত ১২.৫৩ কোটি।
তিন ‘তুঘলকি সিদ্ধান্তে’র ধাক্কায় মোদি জমানায় অসংগঠিত ক্ষেত্রের এই বেহাল দশা নিয়ে তোপ দেগেছে বিরোধী দলগুলি। নোট বাতিল, জিএসটি ও অপরিকল্পিত লকডাউন জারি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই মোদি সরকারের মুণ্ডপাত করে আসছেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী। এমনকী জিএসটিকে ‘গব্বর সিং ট্যাক্স’ বলেও কটাক্ষ করতে দেখা গিয়েছে তাঁকে। রায়বেরিলির কংগ্রেস সাংসদের দাবি, নোট বাতিল ও জিএসটির ফলে দেশের ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প শেষ হয়ে গিয়েছে। কর্মহীন হয়েছেন অসংখ্য মানুষ। এই ইস্যুতে এবার সিপিএমের তোপ, বড় কর্পোরেট ও অতি ধনীদের স্বার্থরক্ষায় মোদি সরকারের নেওয়া তিন সিদ্ধান্তের বলি হয়েছেন অসংখ্য গরিব মানুষ।
10d ago
কলকাতা
রাজ্য
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

বিকল্প উপার্জনের নতুন পথের সন্ধান লাভ। কর্মে উন্নতি ও আয় বৃদ্ধি। মনে অস্থিরতা।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮৩.২৩ টাকা৮৪.৩২ টাকা
পাউন্ড১০৬.৮৮ টাকা১০৯.৫৬ টাকা
ইউরো৯০.০২ টাকা৯২.৪৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
21st     July,   2024
দিন পঞ্জিকা