দেশ

রামমন্দির নির্মাণের আগেই অযোধ্যার বিপুল জমি বিজেপি নেতাদের কব্জায়

নিজস্ব প্রতিনিধি, নয়াদিল্লি: পুঁজির নাম অযোধ্যা। দেশের কোটি কোটি ধর্মপ্রাণ মানুষের ধর্মীয় আবেগকে ব্যবহার করে কেউ করেছে রাজনীতি, কেউ বাণিজ্য। বিস্ফোরক তথ্য মিলেছে সর্বভারতীয় ইংরেজি দৈনিক ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের তদন্তে। কাঠগড়ায় কেন্দ্র, যোগী সরকার এবং বিজেপি শীর্ষ নেতৃত্ব। ওই রিপোর্টে জানা যাচ্ছে, ২০১৯ সালে সুপ্রিম কোর্টের রামমন্দির-রায়ের মাস থেকেই হাজার হাজার একর জমি কিনে নিয়েছেন গেরুয়া ব্রিগেডের নেতা, মন্ত্রী, এমপি এবং বিজেপি ঘনিষ্ঠ প্রশাসনিক সর্বোচ্চ পর্যায়ের অফিসাররা। রাজনৈতিক ব্যক্তিদের সিংহভাগই বিজেপি সদস্য। দখলদারির তালিকায় সমাজবাদী পার্টি ও বহুজন সমাজ পার্টির কয়েকজন প্রাক্তন পদাধিকারী থাকলেও অধিকাংশ ‘ক্রেতা’ই বিজেপির প্রতিনিধি। তাঁদের গতিবিধি পঞ্চায়েত থেকে সংসদ—সর্বত্র। তার থেকেও নজর করার মতো বিষয় হল, ২০১৯ থেকে অযোধ্যার জমি বহিরাগতদের নিশানায়, অথচ মন্দির সংলগ্ন বিস্তীর্ণ এলাকার জমির সার্কল রেটের বদলই হয়নি! কেন? শুধুই কী প্রভাব খাটানোর ফলে? তা না হলে ‘অমূল্য’ হয়ে ওঠা ওইসব জমি নামমাত্র দামে কৃষক ও আম জনতার থেকে কেনা যেত না। অধিগ্রহণও হতো না। এতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতির মুখে কারা পড়েছেন? জমিদাতারা। কারণ, তাঁরা পুরনো সার্কল রেট অনুযায়ী ক্ষতিপূরণ পেয়েছে। এই ‘অমূল্য’ জমি নিয়ে ব্যবসা কতটা লাভজনক, তার একটি ক্ষুদ্র নমুনা হল কাইজারগঞ্জের বর্তমান বিজেপি এমপির জমি ডিল। প্রাক্তন বিজেপি সাংসদ তথা কুস্তিগির বিতর্কে শিরোনামে থাকা ব্রিজভূষণ সিংয়ের পুত্র কাইজারগঞ্জের বর্তমান এমপি করণভূষণ সিং। তাঁর কোম্পানি নন্দিনী ইনফ্রাস্ট্রাকচার প্রায় এক হেক্টর জমি কিনেছিলেন ২০২৩ সালের জানুয়ারি মাসে। দাম? ১ কোটি ১৫ লক্ষ টাকা। মাত্র পাঁচ মাস পর সেই জমির একাংশ—৬৩৬ বর্গমিটার তিনি বিক্রি করেছেন ৬০ লক্ষ টাকায়। তাৎপর্যপূর্ণ হল, সিংহভাগ জমি কেনা হয়েছে রামমন্দিরের ১৫ কিমি ব্যাসার্ধের মধ্যে। অযোধ্যার জমি কিনতে অরুণাচল প্রদেশ থেকে ছুটে এসেছেন বিজেপি সরকারের উপ মুখ্যমন্ত্রীর দুই পুত্রও। 
অযোধ্যায় জমি কেনার উৎসবে কাদের পরিবারের সদস্যরা শামিল হয়েছেন? উত্তরপ্রদেশ পুলিসের অতিরিক্ত ডিজি, স্বরাষ্ট্র দপ্তরের সচিব, শিক্ষাদপ্তরের জয়েন্ট ডিরেক্টর, আমেথির পুলিস সুপার, আমেথির জেলা পরিষদের সভাধিপতি (বিজেপি নেতা), বিজেপি নেতা বিনীত সিং, হরিয়ানার যোগ কমিশনের চেয়ারম্যান (বিজেপি নেতা), গোঁসাইগঞ্জ পুরসভার চেয়ারম্যান (বিজেপির), বিজেপির প্রাক্তন বিধায়ক চন্দ্রপ্রকাশ শুক্লা, বিজেপির প্রাক্তন বিধায়ক অজয় সিং, রেলের চিফ ইঞ্জিনিয়ার। এরকম আরও বিরাট তালিকাভুক্ত পদাধিকারীদের মা, স্ত্রী, পুত্র, কন্যাদের নামে জমি বিক্রি হয়েছে। এসবের সঙ্গেই রয়েছে নামী ও অনামী অসংখ্য সংস্থা। সন্দেহ করা হচ্ছে, এই অজানা সংস্থাগুলির মধ্যে অনেকটাই বেনামী। অর্থাৎ আড়ালে আছে কোনও না কোনও প্রভাবশালী নাম। 
বিতর্কে ঘৃতাহুতি দিয়েছেন জমি রেজিস্ট্রেশন বিভাগের ইনসপেক্টর জেনারেল। তিনি ফাঁস করে দিয়েছেন, বারংবার অযোধ্যা ও সংলগ্ন এলাকায় জমির সার্কল রেট বাড়ানোর প্রস্তাব সরকারকে দেওয়া সত্ত্বেও প্রত্যাখ্যাত হয়েছে। বাড়েনি দাম। অথচ আশপাশের জেলাগুলির জমির সার্কল রেট যথারীতি বেড়েছে। কংগ্রেস মুখপাত্র সুপ্রিয়া শ্রীনেত বলেছেন, ‘ভগবান রামচন্দ্রের পুজো করা, আর তাঁকে নিয়ে ব্যবসার মধ্যে পার্থক্য আছে। বিজেপির প্রকৃত ভক্তি এবং উদ্দেশ্য স্পষ্ট হয়ে যাচ্ছে এই রিপোর্টে।’ প্রসঙ্গত, অবধ এন্টারপ্রা‌ইজ নামক সংস্থা অযোধ্যায় বিপুল জমি কিনেছে। এই সংস্থার অন্যতম মালিক কে? বিজেপির অযোধ্যা মণ্ডলের সহ সভাপতি রমাকান্ত পান্ডে।
10d ago
কলকাতা
রাজ্য
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

বিকল্প উপার্জনের নতুন পথের সন্ধান লাভ। কর্মে উন্নতি ও আয় বৃদ্ধি। মনে অস্থিরতা।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮৩.২৩ টাকা৮৪.৩২ টাকা
পাউন্ড১০৬.৮৮ টাকা১০৯.৫৬ টাকা
ইউরো৯০.০২ টাকা৯২.৪৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
দিন পঞ্জিকা