দক্ষিণবঙ্গ

কোটি টাকা তুলে চম্পট সংস্থার কর্তারা, বিক্ষোভ, রঘুনাথপুরে অবরোধ

সংবাদদাতা, রঘুনাথপুর: ২০ হাজার টাকার আসবাবপত্র মিলবে পাঁচ হাজার টাকায়। এক হাজার টাকার জিনিস পাবেন ৪০০ টাকায়। ক্রেতাদের মন টানতে সূদুর তামিলনাড়ু থেকে রঘুনাথপুর শহরে এসে একটি সংস্থা এমনই ভাবে ব্যবসা শুরু করেছিল। বুধবার ভোরে অফিসে তালা লাগিয়ে প্রায় কোটি টাকা নিয়ে নিরুদ্দেশ হয়ে যায় সংস্থার কর্তাব্যক্তিরা। সেই খবর ছড়িয়ে পড়তেই সংস্থায় বিনিয়োগ করা ক্রেতারা ক্ষোভে ফেটে পড়েন। এদিন শহরের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের মিশন পাড়া রোডে অবস্থিত সংস্থার অফিস ঘেরাও করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে ক্রেতারা। সংস্থার অফিসে ভাঙচুর চালানোর চেষ্টা করা হয়। পুলিস গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে প্রশাসনের তরফ থেকে টাকা ফেরতের কোনও আশ্বাস না পাওয়ায় বিক্ষোভকারীরা এটিএম গ্রাউন্ডের কাছে পুরুলিয়া-বরাকর রাজ্য সড়ক অবরোধ করে। প্রায় দু’ ঘণ্টা ধরে অবরোধ চলে। পরে পুলিসের আশ্বাসে অবরোধ উঠে যায়।
স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রায় একমাস আগে একটি সংস্থা কম দামে আসবাবপত্র বিক্রি করার জন্য রঘুনাথপুরে আসে। সেখান থেকে প্রায় ১০ থেকে ৪৫ শতাংশ ডিসকাউন্টে মাল দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়। টাকা জমা দেওয়ার ১২ দিনের মধ্যে অর্ডার দেওয়া জিনিস পাওয়া যাবে বলে জানানো হয়। মানুষের বিশ্বাস অর্জন করতে পুরসভা থেকে নেওয়া ট্রেড লাইসেন্স দেখান তাঁরা। পাশাপাশি ব্যবসা করার জন্য প্রাক্তন পুরসভার চেয়ারম্যান মদন বরাটের লজের একটি ঘর ভাড়া নেন। শুরুতে কয়েকজনকে মাল ডেলিভারিও দেওয়া হয়। সব কিছু দেখে শহর ও শহর সংলগ্ন এলাকার মানুষের বিশ্বাস গড়ে উঠে। তাই আসবাবপত্র নেওয়ার জন্য ২০ থেকে ৫০ হাজার এমনকী এক লক্ষ টাকা পর্যন্ত জমা করেন অনেকে। এদিন বিক্ষোভে শামিল আদ্রা এলাকার মদন কর্মকার বলেন, আসবাবপত্র নেওয়ার জন্য এক লক্ষ টাকা দিয়েছিলাম। আর দু’ দিন পর ডেলিভারি দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তার আগেই পাততাড়ি গুটিয়ে হাওয়া। একেই অভিযোগ করেন উমা কুম্ভকার, নন্দদুলাল চক্রবর্তী। রঘুনাথপুর শহরে বিজেপি কাউন্সিলার দীনেশ শুক্লা বলেন, রঘুনাথপুর শহরের মানুষ প্রতারিত হওয়ার জন্য পুরসভার বর্তমান এবং প্রাক্তন দুই চেয়ারম্যান দায়ী। অন্য রাজ্য থেকে ব্যবসা করতে এসেছে অথচ তাঁদের সঠিক কাগজপত্র রয়েছে কিনা তা প্রাক্তন চেয়ারম্যান মদন বরাট কেন দেখেননি। অন্যদিকে ব্যবসার জন্য সমস্ত কাগজপত্র ঠিক রয়েছে কিনা তা বর্তমান পুরসভার চেয়ারম্যানই বা কেন দেখেননি। আসলে ওই সংস্থা মোটা টাকা দিয়ে প্রশাসনকে ম্যানেজ করেছিল। আমরা সঠিক তদন্তের দাবি জানাই।
পুরসভার চেয়ারম্যান তরণী বাউরি বলেন, ট্রেড লাইসেন্সের জন্য যে কেউ অনলাইনে আবেদন করতে পারেন। যদি সমস্ত কাগজপত্র ঠিক থাকে তাহলে লাইসেন্স দিতে অসুবিধা থাকে না। ওই সংস্থার তরফ থেকে সমস্ত কাগজপত্র জমা দেওয়া হয়েছিল। তাই আমরা ট্রেড লাইসেন্স দিয়েছিলাম।
রঘুনাথপুর এলাকার ব্যবসায়ীরা বলেন, আমাদের ট্রেড লাইসেন্স পেতে কত খড়কুটো পোড়াতে হয়। অথচ বাইরে থেকে একজন ব্যবসা করতে এল, সে আবেদনের পরেই কি করে এত সহজে ট্রেড লাইসেন্স পেয়ে গেল? যদিও মদনবাবু বলেন, ওই সংস্থার তরফ থেকে সমস্ত কাগজপত্র, আধার কার্ড দেওয়া হয়েছিল। তাই আমি ওদের ভাড়া দিয়েছিলাম। পুলিসের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, বিষয়টি নিয়ে লিখিত কোনও অভিযোগ হয়নি। তবে ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।
1Month ago
কলকাতা
রাজ্য
দেশ
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

বিকল্প উপার্জনের নতুন পথের সন্ধান লাভ। কর্মে উন্নতি ও আয় বৃদ্ধি। মনে অস্থিরতা।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮৩.২৩ টাকা৮৪.৩২ টাকা
পাউন্ড১০৬.৮৮ টাকা১০৯.৫৬ টাকা
ইউরো৯০.০২ টাকা৯২.৪৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
দিন পঞ্জিকা