দক্ষিণবঙ্গ

৩৯ শতাংশ বৃষ্টির ঘাটতি চাষ নিয়ে বাড়ছে উদ্বেগ

নিজস্ব প্রতিনিধি, বহরমপুর: আষাঢ় মাস পড়ে গেলেও বৃষ্টির দেখা নেই। অন্যান্য বছর জুন মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে ধারাবাহিকভাবে বৃষ্টি শুরু হয়। কিন্তু এবার কবে বর্ষা ঢুকবে, সেই আশায় আকাশের দিকে তাকিয়ে আছেন চাষিরা। বৃষ্টির অভাবে মুর্শিদাবাদ জেলায় ধান, পাট ও সব্জি চাষে ব্যাপক প্রভাব দেখা দিয়েছে। জেলা কৃষিদপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, এবছর জেলায় ৩৯ শতাংশের বেশি বৃষ্টির ঘাটতি রয়েছে। জানুয়ারি মাস থেকে শুরু থেকে ১৮ জুন পর্যন্ত মোট ৩৩৭ মিলিমিটার বৃষ্টি হওয়ার কথা থাকলেও সেখানে মাত্র ২০৪ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। বৃষ্টির এই ঘাটতির জেরে মুর্শিদাবাদে চাষে ব্যাপক প্রভাব পড়েছে বলে দাবি কৃষকদের। ৩৯ শতাংশ বৃষ্টির ঘাটতি আদৌ মিটবে কি না, সেদিকে তাকিয়ে আছে কৃষিদপ্তরও।
গতবছর মুর্শিদাবাদ জেলায় ব্যাপক বৃষ্টির ঘাটতি দেখা দিয়েছিল। তাতে চাষের কাজও বেশ পিছিয়ে গিয়েছিল। এবারও বৃষ্টির অভাবে জেলায় পাট চাষে ব্যাপক প্রভাব পড়েছে। ধান চাষ করতে গিয়েও সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন বহু ব্লকের চাষিরা। তাই অনেক চাষি বিকল্প চাষের দিকে ঝুঁকছেন। তবে বর্ষার বৃষ্টি শুরু হলে চাষিদের সমস্যা মিটবে বলে আশ্বাস দিচ্ছেন কৃষি বিশেষজ্ঞরা। 
প্রতি বছর চৈত্রের শেষ দিকে ও বৈশাখ মাসে মাঝেমধ্যে কালবৈশাখীর দেখা মিলত। জৈষ্ঠ্য মাসেও কয়েক পশলা ভালোই বৃষ্টি হয়। কিন্তু এবার একেবারেই বৃষ্টির দেখা নেই। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে সপ্তাহ দুয়েক আগে সামান্য বৃষ্টিতে জমিতে জলের সমস্যা কিছুটা মিটেছিল। তারপর আবার টানা রোদ শুরু হয়। দীর্ঘদিন বৃষ্টি না হওয়ায় মাঠের জমি শুকনো হয়ে ফেটে যাচ্ছে। নিয়মিত জলসেচ দিয়েও মাটি আর্দ্র রাখতে পারছেন না চাষিরা। ফলে ব্যাপক সমস্যা হচ্ছে পাট ও সব্জি চাষে। চাষের এই ক্ষতির কারণে ইতিমধ্যে বাজারে সব্জির দাম চড়া হতে শুরু করেছে। পটল ও বেগুন ৫০-৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। শাকের ডাঁটা ২০ টাকা কেজি দরে কিনতে হচ্ছে। জেলায় উৎপাদিত প্রতিটি আনাজের দাম বেড়েছে। এই তীব্র দাবদাহে টানা জলসেচ দিয়ে ফসল বাঁচিয়ে রাখাটাই এখন প্রধান চ্যালেঞ্জ চাষিদের। তাই অনেকেই অপরিণত অবস্থায় সব্জি তুলে বাজারে নিয়ে আসছেন।
বেলডাঙার সব্জি চাষি কুতুবউদ্দিন শেখ বলেন, দীর্ঘদিন বৃষ্টির অভাবে সব্জি চাষে প্রভাব পড়েছে। গাছ সব শুকিয়ে যাচ্ছে। যে কারণে অপরিণত অবস্থায় বাজারে সব্জি পাঠিয়ে দিচ্ছি। এতে অন্তত চাষের খরচটা উঠবে।
জেলাজুড়ে কৃষিদপ্তরের আধিকারিক ও জেলা প্রশাসনের আধিকারিকরা বিভিন্ন এলাকায় চাষের অবস্থা খতিয়ে দেখছেন। তাঁরা চাষিদের সঙ্গে কথা বলছেন। কৃষিদপ্তরের আধিকারিকরা বলেন, ভালো বৃষ্টি না হওয়ার ফলে চাষে কিছুটা প্রভাব পড়ছে। তবে কিছুদিনের মধ্যে ভারী বর্ষা শুরু হলে চাষের জমিতে জলের অভাব অনেকটাই মিটবে। নবগ্রামের ধান চাষি ইমতিয়াজ মাহমুদ শেখ বলেন, পরপর দু’বছর দেরিতে বর্ষা শুরু হয়েছে। যে কারণে আমাদের চাষও পিছিয়ে যায়। এবারও কবে বর্ষা আসবে, সেদিকে তাকিয়ে আছি আমরা। জুন মাসের মাঝামাঝিও বৃষ্টির দেখা নেই। সঠিক সময়ে বৃষ্টি না হলে চাষের কাজে খুবই সমস্যা হয়।
1Month ago
কলকাতা
রাজ্য
দেশ
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

চল্লিশের ঊর্ধ্ব বয়সিরা সতর্ক হন, রোগ বৃদ্ধি হতে পারে। অর্থ ও কর্ম যোগ শুভ। পরিশ্রম...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮৩.১৭ টাকা৮৪.২৬ টাকা
পাউন্ড১০৬.৯৩ টাকা১০৯.৬০ টাকা
ইউরো৯০.০০ টাকা৯২.৪৪ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
দিন পঞ্জিকা