দক্ষিণবঙ্গ

পারাদ্বীপে ধরা পড়ল ১১০ কেজির কইভোলা দীঘা ফিস মার্কেটে ২৫ হাজারে নিলাম

সংবাদদাতা, কাঁথি: মঙ্গলবার দীঘা মোহনার ফিস মার্কেটে ১১০ কেজি ওজনের বিশালাকার কইভোলা মাছকে ঘিরে মৎস্যজীবীদের মধ্যে হুড়োহুড়ি পড়ে যায়। ওড়িশার পারাদ্বীপের এক ব্যক্তির ট্রলারে ধরা পড়ে ওই কইভোলা মাছ। মাছটি মোহনার ফিস মার্কেটে নিয়ে আসার পর তা দেখতে মৎস্যজীবীদের পাশাপাশি পর্যটকরাও ভিড় জমান। অনেকেই ছবিও তোলেন। মাছটি নিলামের জন্য ‘বিসিবি’ কাঁটায় তোলা হয়। দরদামের পর শেষ পর্যন্ত তা ২৫ হাজার টাকায় বিক্রি হয়। মাছটি কিনে নেয় কলকাতার একটি মৎস্য রপ্তানিকারক সংস্থা। মাছটি কেনার পর বড় বড় হোটেলে মাছ সরবরাহ করে সংস্থা। দীঘা মোহনার ফিস মার্কেটে এর আগে আরও বেশি ওজনের কইভোলা নিলাম হয়েছে। বেশ কয়েক বছর আগে ১৭৫ কেজি ওজনের কইভোলা মাছ নিলাম হয়েছিল।  মৎস্যজীবী অসীম কুণ্ডু, গণেশ দাস বলেন, এই ধরনের মাছ কম ধরা পড়ে এবং সচরাচর গভীর সমুদ্রে থাকে। বড় বড় ট্রলারই বিশালাকার এই ধরনের মাছ ধরতে পারে। এই মাছ রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে, এমনকী প্রতিবেশী রাষ্ট্র বাংলাদেশেও রপ্তানি হয়। উল্লেখ্য, মরশুমের মাঝামাঝি সময় পেরিয়ে গেলেও দীঘা মোহনায় রুপোলি ফসল ইলিশের দেখা নেই। ইলিশ নিয়ে মৎস্যজীবীরা যারপরনাই হতাশ। দীঘা ফিসারমেন অ্যান্ড ফিস ট্রেডার্স অ্যাসোসিয়েশনের সম্পাদক শ্যামসুন্দর দাস বলেন, ইলিশের জায়গায়  মাঝেমধ্যে তেলিয়া ভোলা কিংবা কোনও দামি মাছ ধরা পড়ে গেলে মৎস্যজীবীদের লক্ষ্মীলাভ হয়। তবে তেলিয়া ভোলার দাম বেশি। কারণ তেলিয়া ভোলা যেমন খাওয়া হয়, তেমনি তার পটকা জীবনদায়ী ওষুধ তৈরির ক্ষেত্রে কাজে লাগে। তাই ওই মাছ এত মহার্ঘ। সেই তুলনায় কইভোলা মাছের দাম অনেকটাই কম।  নিজস্ব চিত্র
9Months ago
কলকাতা
রাজ্য
দেশ
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

পড়ে গিয়ে দেহে আঘাত লাগতে পারে। নিকট আত্মীয়ের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নতি। আয় যোগ শুভ।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮২.৭২ টাকা৮৪.৪৬ টাকা
পাউন্ড১০৬.৬৭ টাকা১১০.১৯ টাকা
ইউরো৮৯.৪৯ টাকা৯২.৬৫ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
দিন পঞ্জিকা