চারুপমা

মিলেমিশে আজ ও কাল

ফ্যাশনের খাস কেন্দ্র, এনআইএফটি কলকাতার বার্ষিক অনুষ্ঠানে পড়ুয়াদের ভাবনা কোন খাতে? ঘুরে এসে লিখছেন অন্বেষা দত্ত।

অন্বেষা দত্ত:
 সল্টলেক সেক্টর ৩-র চওড়া পথ যেখানে ফুরল, সেখানে গেট ঠেলে ঢুকতেই মনে হল একটা অন্য দুনিয়ায় চলে এসেছি। ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ফ্যাশন টেকনোলজি (এনআইএফটি)-র ক্যাম্পাসে তখন দৌড়ে বেড়াচ্ছেন একঝাঁক অল্পবয়সি ছেলেমেয়ে। চোখটানা আধুনিক তাঁদের পোশাক। খুবই ব্যস্তসমস্ত। একধারের বিশাল মাঠে তৈরি স্টেজ। তখনও বিকেলের রোদ মরেনি। দিনের আলো না নিভলে ফ্যাশন শোয়ের ঝলকানি দেখতে পাওয়া ভার। তাঁদের বার্ষিক অনুষ্ঠান, ‘স্পেকট্রাম’-এর থিম  ‘ব্যাক টু দ্য ফিউচার।’ আর ফ্যাশন শোয়ের থিম ছিল পরিবেশ রক্ষা, যার নাম ‘লাইফ আন্ডার ওয়াটার।’ পড়ুয়াদের ভাবনায় তৈরি পোশাক দিয়ে শো শুরু হবে আর কিছুক্ষণের মধ্যেই। প্রস্তুতি দেখেই বোঝা গেল পড়ুয়া থেকে শিক্ষক, প্রত্যেকে জান লড়িয়ে দিয়েছেন এই অনুষ্ঠানের জন্য। মাঠের অন্য পারে দেওয়াল জুড়ে অপূর্ব সব গ্রাফিতি দেখতে দেখতে এবার ঢুঁ মারলাম ক্যাম্পাসের দিকে। নানা বয়েসের ছেলেমেয়ে ছোট ছোট টেবিল পেতে বসে পড়েছে একরাশ জিনিসের পসরা নিয়ে। কী নেই সেখানে? হ্যান্ড পেন্টেড টি শার্ট, হ্যান্ডমেড জুয়েলারি, দোপাট্টা থেকে শুরু করে নানাবিধ অ্যাক্সেসরিজ। সবই এই প্রতিষ্ঠানের পড়ুয়াদের হাতে তৈরি। দামও সাধ্যের মধ্যে। তাঁদের হাঁকডাক শুনতে শুনতে পৌঁছে গেলাম এনআইএফটি কলকাতার অধিকর্তা রাজেশ ঝা-র ঘরে। 
কথা শুরু হল ‘ব্যাক টু দ্য ফিউচার’ নিয়ে। অতীতচারণা ভুলে গিয়ে কি তবে শুধুই ভবিষ্যতের দিকে তাকাবে পড়ুয়ারা? বিষয়টা গুছিয়ে বোঝালেন অধিকর্তা। রাজেশবাবু বললেন, ‘আসলে অতীত-ভবিষ্যৎ দুটোই মেলাতে চেয়েছি আমরা। অতীত ভোলার তো প্রশ্নই নেই। আমাদের অতীত ঐতিহ্য অসাধারণ। তার সঙ্গে মিলিয়েই এখনকার প্রজন্ম শিক্ষা নিচ্ছে। ফ্যাশনের ক্ষেত্রে বলুন, অ্যাক্সেসরিজের ক্ষেত্রে বলুন, এভাবেই কাজ হচ্ছে। পড়ুয়াদের কিছু উপকরণ হাতে দেওয়া হচ্ছে। এবার তাদের ভাবতে হবে কী করে সুন্দর কোনও সামগ্রী সেটা থেকে বের করে আনা যায়। পোশাকের ক্ষেত্রেও তাই। কখনও কাগজ, কখনও উচ্চমানের প্লাস্টিক, কখনও ফ্যাব্রিক— সবকিছু দিয়েই তাদের ভাবতে হবে পরিবেশবান্ধব কিছু করার কথা। এখানেই কাজে লাগে সৃষ্টিশীল ভাবনা। সেই ভাবনাটা আরও মজবুত করে তোলা হয় এই প্রতিষ্ঠানে।’ এই অনুষ্ঠানের সূচনা করেন প্রধান অতিথি শিব কুমার, ‘দ্য খাদি অ্যান্ড ভিলেজ ইন্ডাস্ট্রিজ কমিশন’-এর নোডাল অফিসার এবং এনআইএফটি-র অধিকর্তা রাজেশ ঝা। এখানে আমন্ত্রিত হয় অন্য বিশ্ববিদ্যালয় বা কলেজও। বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পারে সেখানকার ছাত্রছাত্রীরা।
সারা বিশ্বে ফ্যাশন-খাতায় এনআইএফটি-র জায়গা এখন নবম স্থানে, জানালেন অধিকর্তা। তাঁর কথায়, স্পেকট্রাম অর্থাৎ বর্ণচ্ছটা। সেখানে থাকে নানা সুন্দর রং। আমাদের বার্ষিক অনুষ্ঠানও তেমনই। নানা বিষয়ে সাজানো। সারা দেশে এনআইএফটি-র ১৪টি শাখাতেই এটা হয়। পড়ুয়ারা তাঁদের সৃষ্টিশীল সত্তা তুলে ধরার জায়গা পান। সঙ্গে থাকে সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়ামূলক নানা অনুষ্ঠান। ‘এই কাজের অনেকগুলো উদ্দেশ্য’, বললেন রাজেশবাবু— ‘ওদের আত্মবিশ্বাস বাড়ে। ভবিষ্যতে উদ্যোগপতি হিসেবে এগিয়ে যেতে পারে। আর পাশাপাশি রোজগার তো হয়ই।’ পোশাক বানানোর কাজ চলছে চূড়ান্ত তৎপরতায়। সেই ল্যাবে ঢুকে দেখলাম এক টেবিলে ছড়িয়ে রয়েছে টুকরো টুকরো করে কাটা কোল্ড ড্রিংকের প্লাস্টিক বোতলের পিছনের অংশ। সেগুলো দেখতে লাগছে ফুলের মতো। সে ফুল লাগানো হবে ড্রেসে। প্লাস্টিক দিয়ে একজন তৈরি করছেন স্কার্ট, আশপাশে তারে ঝোলানো শোলার অসংখ্য বল। এই পোশাক পরা যাবে? আত্মবিশ্বাসী মেয়েটি বলে ওঠে, ‘ফ্যাশন শোয়ে পরার জন্যই তো বানাচ্ছি আমরা। গোটা কাজটাই করেছি রিসাইক্লিংয়ের কথা মাথায় রেখে।’এদেশের সমৃদ্ধ টেক্সটাইল নিয়ে পড়ুয়ারা কতটা ওয়াকিবহাল? রাজেশবাবু জানালেন, এখন ‘ক্রাফট ক্লাস্টার’ ধরে কাজ করছেন তাঁরা। পশ্চিমবঙ্গ সহ বিভিন্ন রাজ্যেই অসাধারণ শিল্পকর্ম হয়। এনআইএফটি সেই কাজে নিজেদের যুক্ত করছে। পড়ুয়ারা সরাসরি কথা বলছেন ক্রাফটস ম্যানদের সঙ্গে। তাঁদের থেকে জ্ঞান যেমন নিচ্ছেন, তেমনই পড়ুয়াদের আধুনিক ও সচেতন মনের ভাবনা ছাপ ফেলছে শিল্পীদের মনে। দু’তরফেই সমৃদ্ধ করার কাজটি হচ্ছে সুচারুভাবে, বললেন অধিকর্তা। এইভাবেই ভবিষ্যতে পড়ুয়ারা নতুন ভাবনা নিয়ে কাজও করতে পারছেন। তাঁদের সবসময় মনে করানো হচ্ছে অতীত কতটা জরুরি। আর মনে করানোর জন্যই আছে এনআইএফটি।’    ছবি: ভাস্কর মুখোপাধ্যায়                      
15Months ago
কলকাতা
রাজ্য
দেশ
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

পড়ে গিয়ে দেহে আঘাত লাগতে পারে। নিকট আত্মীয়ের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নতি। আয় যোগ শুভ।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮২.৭২ টাকা৮৪.৪৬ টাকা
পাউন্ড১০৬.৬৭ টাকা১১০.১৯ টাকা
ইউরো৮৯.৪৯ টাকা৯২.৬৫ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
দিন পঞ্জিকা