অমৃতকথা

ঠাকুর

মহারাজ (স্বামী ব্রহ্মানন্দ) বলতেনঃ “দক্ষিণেশ্বরে থাকাকালীন আমি ঠাকুরের ঘরেই শুতাম। রাত্রে যখনই ঘুম ভাঙত, দেখতাম—হয় ঠাকুর সমাধিস্থ হয়ে বসে আছেন, একেবারে নিস্পন্দ, না হয় ভাবস্থ হয়ে ঘরের চারপাশে ঘুরে বেড়াচ্ছেন আর ‘মা’, ‘মা’ বলছেন। সেই সময় তাঁর পরিধানে কাপড়চোপড় প্রায়ই থাকত না। লৌকিক আচরণে তাঁকে অনেক ক্ষেত্রে নিয়মের বাইরে দেখা যেত। তা না হলে স্বাভাবিক অবস্থায় ঠাকুরের পানের বেটুয়া পর্যন্ত ভুল হতো না।”
একদিনের ঘটনা মহারাজ বলছেনঃ “রাত্রি প্রায় দুটোর সময় ঠাকুর আলু, পটল, মশলা একটি জায়গায় সাজিয়ে রাখছেন। ঠাকুরের তখন পেটের অবস্থা ভাল নয়। ঝোলভাত খান। পাছে রান্না করতে গিয়ে বেশি মশলা দিয়ে ফেলে অথবা বেশি বেশি রান্না করে সেজন্য সব গুছিয়ে এক জায়গায় রাখছেন। ঠাকুরের ভাগ্নে হৃদয় ঠাকুরকে ঐ অবস্থায় দেখে বললেন, ‘মামা, ও কি করছ?’ ঠাকুর বললেন, ‘কালকের ঝোলভাতের জন্য সব ঠিক করে রাখছি।’ হৃদয় বললেন, ‘সে তো কালকে। এত রাত্রে কি?’ ঠাকুরের অবস্থা কখন কি হয় তিনি নিজেই জানেন না। ভাবের ঘোরে হয়তো বা তিনি সেসময় অন্য রাজ্যে থাকবেন, তাই স্বাভাবিক অবস্থায় এগুলি গুছিয়ে রাখছেন। হৃদয়ের প্রশ্নের উত্তরে ঠাকুর তাই বললেন, ‘কাল কোন্‌ অবস্থায় থাকি তার কোন ঠিক নেই।’”
একথা গভীরভাবে বোঝবার চেষ্টা করলে তবে যদি কিছু ধারণা হয়।
মহারাজ বলতেনঃ “দেখ, যুগাবতার এলে একটা শক্তি জাগ্রত হয়। ঠাকুর যুগাবতার, তাঁর আগমনে একটা বিশেষ শক্তি জাগ্রত হয়েছে। এই সুযোগ নাও। এই জন্মে যদি না হয়, তবে বহু জন্ম লেগে যাবে। কাজেই উঠে পড়ে লাগ। এ-জন্মেই হয়ে যাবে।”
মহারাজের দেহরক্ষার কদিন আগের কথা। মহারাজকে দেখতে মাস্টার মশাই (কথামৃতকার) বলরাম-মন্দিরে এসেছেন। মহারাজ বলরাম-মন্দিরে আছেন। মহারাজের সঙ্গে ঠাকুরের বিষয়ে নানা প্রসঙ্গ হচ্ছে। মহারাজ যেন তাঁর স্বভাবসিদ্ধ ভাবের ঘোরে আচ্ছন্ন। ফ্যালফ্যাল দৃষ্টি, যেন কোন এক অতীন্দ্রিয় রাজ্যে রয়েছে তাঁর মন। বললেনঃ “দেখুন মাস্টার মশাই, এবার ঠাকুর এসে জীবলোক আর শিবলোকের মধ্যে একটি bridge (সেতু) তৈরি করে দিয়ে গেছেন। এখন সহজেই মানুষ ভগবানের কাছে যেতে পারবে।”
একদিন বাবুরাম মহারাজ মঠের ঘাটের পোস্তার কাছে দাঁড়িয়ে আছেন। আমি তাঁকে দেখে সেখানে গেলাম। তিনি আবেগভরে বলে উঠলেনঃ “এখানে দাঁড়িয়েই একদিন দেখেছিলাম (ভাবে দর্শন), সমস্ত জগতে অশান্তির আগুন দাউদাউ করে জ্বলছে। চারিদিকে আগুন আর আগুন! আর এখানে এসে সব নিভে গেল, সব শান্ত হয়ে গেল।” তাঁর এই কথাগুলি শুনে আমার এত আনন্দ হচ্ছিল যে, ‘এখানে’ কথাটি বলে তিনি কি mean করেছিলেন তা তাঁর কাছে জানবার কথা তখন আমার মনে মোটেই আসেনি। আমার মনে হয়েছিল, ঠাকুরকে লক্ষ্য করেই তিনি ‘এখানে’ কথাটি বলেছিলেন। অর্থাৎ জগতে যে দাঙ্গাহাঙ্গামা, মারামারি কাটাকাটি চলছে, একমাত্র ঠাকুরকে আশ্রয় করলেই তার সমাধান হয়ে যাবে।
স্বামী নির্বাণানন্দের ‘দেবলোকের কথা’ থেকে
5Months ago
কলকাতা
রাজ্য
দেশ
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

গৃহ পরিবেশে হঠাৎ আসা চাপ থেকে মানসিক অস্থিরতা। ব্যবসা ভালো চলবে। অনুকূল আয় ভাগ্য।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮২.৭৭ টাকা৮৪.৫১ টাকা
পাউন্ড১০৬.৬৮ টাকা১১০.১৯ টাকা
ইউরো৮৯.৫৩ টাকা৯২.৬৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
17th     July,   2024
দিন পঞ্জিকা