অমৃতকথা

অদ্বৈত শিক্ষা

ঠাকুর তাঁর সন্তানদের মধ্যে এক স্বামীজীকে ছাড়া আর সবাইকে ভক্তিমার্গের উপদেশ দিয়েছিলেন। স্বামীজীকে অদ্বৈত শিক্ষা দিয়েছেন। কিছুটা অদ্বৈত শিক্ষা অবশ্য তুরীয়ানন্দ মহারাজ এবং অভেদানন্দ মহারাজকেও দিয়েছেন। তাঁর সন্তানরা প্রত্যেকেই এক-একজন কত বড় বড় আধার, তবুও অদ্বৈত-শিক্ষা তিনি সকলকে দিলেন না। আর স্বামীজীকে শুধুই যে অদ্বৈত শিক্ষা দিয়েছিলেন তাই নয়, লীলাও মানিয়েছেন।
মহারাজ বলতেন: “গুরুবাক্য ধরে সাধন করে গেলে ক্রমে মন যত শুদ্ধ হবে তত বুঝতে পারবে, কি করা উচিত। কারো মনে আঘাত দিতে পারবে না। দিলেও অনুতাপ করবে। ঠাকুর হাজরাকে বকেছেন; রাত্রে কষ্ট হচ্ছে, তখনই গিয়ে হাজরার সঙ্গে কথা কয়ে এলেন।” আমরা তো গুরুকে সবসময় সাক্ষাতে পাব না। মন শুদ্ধ হলে, সেই মন থেকেই গুরুনির্দেশ পাব। সেই শুদ্ধ মনই গুরুর কাজ করবে, আর ঠাকুরই হলেন গুরু। মন হচ্ছে দর্পণ। হৃদয়ে জ্যোতিস্বরূপ, চৈতন্যস্বরূপ হয়ে বসে আছেন ঠাকুর। দর্পণ স্বচ্ছ হলে তাঁর আকার পরিষ্কার দেখা যাবে, নির্দেশও পাওয়া যাবে। মন যত অস্বচ্ছ হবে, ঠাকুরও তত অস্পষ্ট হয়ে যাবেন। মনের ওপর আহারাদির একটা ভূমিকা আছে। তবে আহারাদির সম্বন্ধে কড়াকড়ির কোন নির্দেশ নেই ঠাকুরের। শুধু লক্ষ্য ঠিক রেখে চলতে হবে। ঠাকুর বলতেন: “শূকরের মাংস খেয়ে যদি ভগবানে মন থাকে তবে সে ধন্য, আর যদি হবিষ্যান্ন খেয়ে সংসারে মন যায় তবে তাকে ধিক্‌।” এর অর্থ আহারে যথেচ্ছাচার নয়। কথাটির তাৎপর্য—ভগবানকে পাওয়া একমাত্র উদ্দেশ্য—এই দিকে লক্ষ্য রাখা। আমরা দেখি, ঠাকুর স্পর্শদোষ হলে খাবার গ্রহণ করতে পারতেন না। কোন অসৎ ব্যক্তি স্পর্শ করলে অসহ্য যন্ত্রণা হতো। ছান্দোগ্য উপনিষদে বলা হয়েছে: “আহারশুদ্ধৌ সত্ত্বশুদ্ধিঃ সত্ত্বশুদ্ধৌ ধ্রুবা স্মৃতিঃ”। ‘আহার’ সম্পর্কে আহার্য বিষয়ের জাতিদোষ, আশ্রয়দোষ, নিমিত্তদোষের কথা রামানুজ বলেছেন। কিন্তু আচার্য শঙ্কর ‘আহ্রিয়তে’ অর্থে ইন্দ্রিয় দিয়ে বিষয় গ্রহণকেই ‘আহার’ বলেছেন, স্থূল আহারকে নয়। আমরা ঠাকুরের জীবনে দেখছি, তাঁর মধ্যে দুটোরই প্রকাশ। দুটো মিলিয়েই সম্পূর্ণ তাৎপর্যটি পাওয়া যায়। আমরা দুটোকেই গ্রহণ করব।
একবার রাঁচীতে আমাকে জনৈকা মহিলা ভক্ত বলছে: “মহারাজ! ঠাকুর তো সংসারে দাসীর মতো থাকতে বলেছেন। তাই আমি দাসীর মতো সংসারে থাকি।” আমি বললাম: “ ‘দাসীর মতো’ মানে তুমি কি বুঝেছ? ‘দাসীর মতো’ মানে কি irresponsible হয়ে থাকা? ‘দাসীর মতো’ কথাটির অর্থ হচ্ছে ঈশ্বরের ইচ্ছার কাছে নিজের ইচ্ছাকে সম্পূর্ণ সমর্পণ করে সম্পূর্ণ অনাসক্ত হয়ে কর্তব্যকর্ম ঠিক ঠিক করা। এটা বহু অভ্যাস করে করতে হয়। সহজে হয় না। ভোগবাসনা থাকলে কি করে এটা হবে? এটা ত্যাগের কথা।”
স্বামী নির্বাণানন্দের ‘দেবলোকের কথা’ থেকে
5Months ago
কলকাতা
রাজ্য
দেশ
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

পড়ে গিয়ে দেহে আঘাত লাগতে পারে। নিকট আত্মীয়ের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নতি। আয় যোগ শুভ।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮২.৭২ টাকা৮৪.৪৬ টাকা
পাউন্ড১০৬.৬৭ টাকা১১০.১৯ টাকা
ইউরো৮৯.৪৯ টাকা৯২.৬৫ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
দিন পঞ্জিকা