অমৃতকথা

জাত

মায়াকে চিনতে পারলে সে তখনই পালায়। এক গুরু শিষ্যের বাড়ি যাচ্ছিলেন, সঙ্গে চাকর ছিল না। পথের মাঝে এক মুচীকে দেখতে পেয়ে বললেন, “ওরে আমার সঙ্গে যাবি? ভাল খেতে পাবি আদরে থাকবি, চল্‌না।” মুচী বললে, “ঠাকুর আমি অতি নীচ জাত, কেমন করে আপনার চাকর হয়ে যাব?” গুরু বললেন, “তাতে তোর কোন চিন্তা নেই; তুই কাউকে আপনার পরিচয় দিসনি কি কারুর সঙ্গে আলাপ করিসনি।” মুচী রাজি হলো। সন্ধ্যার সময় শিষ্যের বাড়িতে গুরু সন্ধ্যা করছেন, এমন সময় আর একজন ব্রাহ্মণ এসে সেই চাকরকে বললেন, “অমুক জায়গা থেকে আমার জুতো জোড়াটা এনে দেতো?” চাকর কথা কইলো না। ব্রাহ্মণ আবার বললেন, সে তাতেও চুপ করে রইলো। ব্রাহ্মণ তিন চারবার বললেন, সে তবুও নড়লো না। শেষে ব্রাহ্মণ বিরক্ত হয়ে বললেন, “আরে বেটা, ব্রাহ্মণের কথা শুনিসনে তুই কি জাত মুচী নাকি?” মুচী এ কথা শুনে ভয়ে কাঁপতে কাঁপতে গুরুর দিকে চেয়ে বললো, “ঠাকুরমশাই গো! ঠাকুরমশাই গো! আমায় চিনেছে আমি পালাই।” সে তক্ষুণি পালালো।
হরিদাস বাঘের মুখোস মুখে দিয়ে একটা ছেলেকে ভয় দেখাচ্ছিল। মা এসে ছেলেকে শান্ত করবার জন্য বললেন, “ওকে আবার ভয় কি? ও যে আমাদের হরে। ও কাগজের মুখোস মুখে দিয়েছে।” সে তাতেও থামলো না; পরে যখন হরিদাস মুখোস খুলে তার সামনে এসে দাঁড়ালো ও মুখোসটি তার হাতে দিয়ে শান্ত করলো তখন সে বুঝলো, আর মুখোসে ভয় পায় না। সেই রকম মায়ার ভিতর যিনি আছেন, তাঁকে জানতে পারলে আর মায়াকে ভয় হয় না।
জীবাত্মা ও পরমাত্মা কিরূপ?
যেমন স্রোতের জলে একটা লাঠি বা তক্তা আড় করে ধরলে দু’ভাগ দেখায়, তেমন অখণ্ড পরমাত্মা মায়ারূপ উপাধি দ্বারা দু’ভাগ দেখায়।
যেমন জল ও জলের বুদ্বুদ। এক বুদ্বুদ যেমন জলেই ওঠে, জলেই থাকে ও জলেই মেশায়, তেমন জীবাত্মা পরমাত্মা একই, তফাৎ এই যে, বড়ো ও ছোটো—আশ্রয় ও আশ্রিত।
সমুদ্রের জল দূর থেকে কালো দেখায়, কাছে গেলে তা নয়—স্বচ্ছ নির্মল। কৃষ্ণের রূপ দূর থেকে কালো দেখায়, কাছে গেলে তা নয়—স্বচ্ছ নির্মল।
কলের জাহাজ নিজে অনায়াসে চলে যায় ও বড় বড় গাধা বোট্‌কে টেনে নিয়ে যায়, তেমন মহাপুরুষ যখন আসেন, তখন তিনি অনায়াসে বদ্ধ লোকদের টেনে নিয়ে যান।
যখন বন্যা আসে তখন খানা, ডোবা সমস্ত ভাসিয়ে নিয়ে যায়। বৃষ্টিতে সামান্য নালা দিয়ে কষ্টে জল যায় মাত্র। যখন মহাপুরুষ আসেন; সকলেই তাঁর কৃপায় তরে যায়। সিদ্ধ লোকে কষ্টে-সৃষ্টে আপনি ঈশ্বর লাভ করে চলে যান।
বড় বড় বাহাদুরী কাঠ যখন ভেসে যায়, তখন কতো লোক তার উপর চড়ে ভেসে যায়। তাতে সে ডোবে না। হাবাতে কাঠে সামান্য একটা কাক বসলেই ডুবে যায় তেমন যখন মহাপুরুষ আসেন; কত লোক তাঁকে আশ্রয় করে তরে যায়। সিদ্ধ লোক নিজে কষ্টে-সৃষ্টে যায় মাত্র।
রেলের ইঞ্জিন আপনি চলে যায় ও কতো মাল বোঝাই গাড়ি টেনে নিয়ে যায়। অবতারেরাও সেইরকম পাপ বোঝাই সংসারী লোকদের ঈশ্বরের কাছে টেনে নিয়ে যায়।
সুরেশচন্দ্র দত্ত সংকলিত ‘শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণদেবের উপদেশ’ থেকে
5Months ago
কলকাতা
রাজ্য
দেশ
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

গৃহ পরিবেশে হঠাৎ আসা চাপ থেকে মানসিক অস্থিরতা। ব্যবসা ভালো চলবে। অনুকূল আয় ভাগ্য।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার ৮২.৭৬ টাকা৮৪.৫০ টাকা
পাউন্ড১০৭.০০ টাকা ১১০.৫২ টাকা
ইউরো৮৯.৮৮ টাকা৯৩.০৪ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
দিন পঞ্জিকা